ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

মুস্তাফিজের দুর্দান্ত বোলিংয়ের পরও হেরেছে রাজস্থান

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ শনিবার, ০৭:৫৫ পিএম
মুস্তাফিজের দুর্দান্ত বোলিংয়ের পরও হেরেছে রাজস্থান

দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত বোলিং করেছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান। ৪ ওভারে একটিও বাউন্ডারি না খেয়ে দিয়েছিলেন কেবল ২২ রান। নিয়েছিলেন দুইটি উইকেটও। দিল্লি ক্যাপিটালসের মতো শক্তিশালী দলকে ১৫৪ রানেই আটকেও রাখা গেলো। কিন্তু তার এমন দারুণ বোলিংয়ের পরও কিন্তু জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারলো না রাজস্থান রয়্যালস।

আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) মোস্তাফিজের দারুণ বোলিং গেছে বিফলে। ১৫৫ রান তাড়া করতে নেমে ৬ উইকেটে ১২১ রানেই থেমেছে রাজস্থান, হেরেছে ৩৩ রানের বড় ব্যবধানে।

রান তাড়ায় শুরু থেকেই ছন্দে ছিল না রাজস্থান। ১৭ রানে ৩ আর ৫৫ রানে ৫টি উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে দলটি। অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসন একাই যা লড়েছেন। শেষ পর্যন্ত ৫৩ বলে ৮ চার আর ১ ছক্কায় ৭০ রানে অপরাজিত থাকেন রাজস্থান দলপতি।

এর আগে মোস্তাফিজের আগুন ঝরানো বোলিং সামলে ৬ উইকেটে ১৫৪ রান তোলে দিল্লি ক্যাপিটালস। টস হেরে ব্যাট করতে নামা দিল্লিকে শুরুতেই চেপে ধরেন রাজস্থানের বোলাররা।

মোস্তাফিজকে দিয়ে আক্রমণ শুরু করেন রাজস্থান অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসন। প্রথম ওভারে উইকেট না পেলেও মাত্র ৬ রান খরচ করেন কাটার মাস্টার।

প্রথম তিন ওভারে বিনা উইকেটে ১৮ রান তোলে দিল্লি। এরপর ২১ রানের মধ্যে সাজঘরের পথ ধরেন দুই ওপেনার শিখর ধাওয়ান (১২ বলে ১০) আর পৃথ্বি শ (৮ বলে ৮)। পাওয়ার প্লের প্রথম ৬ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে মাত্র ৩৬ রান তুলতে পারে রিশাভ পান্তের দল।

এরপর পান্তের সঙ্গে ৪৪ বলে ৬৫ রানের জুটিতে রানের গতি কিছুটা বাড়ান শ্রেয়াস আয়ার। পান্ত ততটা মেরে খেলতে পারেননি। ১২তম ওভারে ফের বল হাতে নিয়ে দিল্লি অধিনায়ককে (২৪ বলে ২৪) বোল্ড করেন মোস্তাফিজ। ওই ওভারে টাইগার পেসার দেন মাত্র ৫ রান।

এক ওভার পর মারমুখী আয়ার পড়েন দুর্ভাগ্যজনক স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে। রাহুল তেয়াতিয়ার বলে শট খেলতে গিয়ে ক্রিজের একটু বাইরে চলে এসেছিলেন আয়ার, স্যামসন স্ট্যাম্প ভেঙে দেন চোখের পলকে। ৩২ বলে ১ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় আয়ার ফেরেন ৪৩ রানে।

সিমরন হেটমায়ার (১৬ বলে ২৮) চালিয়ে খেলছিলেন। ১৭তম ওভারে মোস্তাফিজ তাকে শর্ট থার্ডম্যানে সাকারিয়ার ক্যাচ বানান। কাটার মাস্টারের ওই ওভার থেকে ৪ রান তুলতে পারে দিল্লি।

ইনিংসের শেষ ওভারটিও করেন মোস্তাফিজ। বাঁহাতি এই পেসারের ওভারটিতে বাউন্ডারি না হলেও দিল্লি তুলে নেয় ৯ রান। সবমিলিয়ে ৪ ওভারে মাত্র ২২ রান খরচায় মোস্তাফিজ শেষ করেন ২ উইকেট নিয়ে, একটি বাউন্ডারিও হজম করেননি তিনি।

বিষয়: আইপিএল