ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

দাউদ ইব্রাহিমের ডেরায় কে এই নতুন ‘লেডি ডন’

প্রকাশ: ০১:৩০ পিএম, ২৯ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail দাউদ ইব্রাহিমের ডেরায় কে এই নতুন ‘লেডি ডন’

ভারতের বাণিজ্যিক রাজধানী মুম্বাইয়ের কালো জগতের বাদশাহ ছিলেন দাউদ ইব্রাহিম। এক সময় তার কথায় পুরো মুম্বাই সহ সমগ্র ভারত থাকতো ভীত। সেই দিন এখন অনেকটাই গত। পুরনো সেই জায়গা এখন দখল করে নিয়েছেন ২২ বছরের এক তরুণী। দাউদ একসময় মুম্বাইয়ের যেই ডোংরি এলাকা থেকে তার সাম্রাজ্য নিয়ন্ত্রণ করতো সেই ডোংরি এলাকা থেকে মাদক সাম্রাজ্য নিয়ন্ত্রণ করছেন ইকরা কুরেশি নামের এই তরুণী। ওই এলাকার ‘ড্রাগ কুইন’ বলা হয় ইকরাকে। 

দাবি করা হয়, ইকরার বছর পাঁচেকের একটি সন্তান আছে। তার বিরুদ্ধে কেউ যদি কোনও কথা বলেন, তাহলে তার ওপর হামলা চালাতে দ্বিধা করেন না ইকরা। অনলাইনে মাদকের ব্যবসা চালান ইকরা। ইনস্টাগ্রামের মাধ্যমে মাদকের কারবার চালান তিনি। পুলিশ সূত্রের খবর, প্রথমে ইনস্টাগ্রামের মাধ্যমে নতুন গ্রাহক জোগাড় করেন। তারপর তার কাছে নারীদের মাধ্যমে মাদক পৌঁছে দেন তিনি। ইকরার মাদক নেটওয়ার্ক চালানোর জন্য নারীদের একটি দল রয়েছে। যারা মুম্বাইয়ের বার এবং ডিস্কোতে মাদক সরবরাহ করেন।

পুলিশের চোখে ধুলা দেওয়ার জন্য একটা ফোন ২-৪ দিনের বেশি ব্যবহার করেন না ইকরা। মাদকের চুক্তি হয়ে যাওয়ার পরই সেই ফোন বাতিল করে দেন। নতুন কোনও চুক্তির জন্য আবার নতুন ফোন এবং নম্বর ব্যবহার করেন। ফলে মুম্বাইয়ের মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থাকেও (এনসিবি) ইকরার গতিবিধি নজর রাখতে সমস্যায় পড়তে হয়।

ইকরার নাম প্রকাশ্যে আসে ২০২১ সালের মার্চে। এনসিবি গোপন সূত্রে খবর পায় ডোংরি এলাকায় হাজিম কসমে এক মাদক পাচারকারী রয়েছে। পুলিশ অভিযান চালাতেই ৫২ গ্রাম মাদক-সহ ধরা পড়েন ইকরা। গ্রেফতার হওয়ার আগে পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ ছিল না পুলিশের খাতায়।

চরস, এমডি এবং এলএসডি’র বড় সরবরাহকারী ইকরা। ডোংরি এলাকায় তাকে ‘লেডি ডন’ এবং ‘ড্রাগ কুইন’ও বলা হয়। ইকরার গতিবিধির ওপর এনসিবি নজর রাখত। ইকরাও এনসিবি কর্তা সমীর ওয়াংখেড়ের গতিবিধির ওপর নজর রাখতেন। তিনি কখন অফিস যাচ্ছেন। কোথায় যাচ্ছেন, কতজন লোক তার সঙ্গে রয়েছেন, কাদের সঙ্গে দেখা করছেন— সব ছিল ইকরার নখদর্পণে। এমনকি এনসিবি দফতরেও ছদ্মবেশে পৌঁছে গিয়েছিলেন তিনি। সোনু পাঠান এবং এজাজ সাইকো নামে দুই মাদক পাচারকারীকে এনসিবি গ্রেফতার করার পরই ইকরার নাম তদন্তকারীদের হাতে আসে। সূত্র: আনন্দবাজার

দাউদ ইব্রাহিম   মুম্বাই   মাদক   পুলিশ  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

মেক্সিকোতে বন্দুক যুদ্ধে নিহত ১১

প্রকাশ: ১১:০৪ এএম, ২৫ মে, ২০২২


Thumbnail মেক্সিকোতে বন্দুক যুদ্ধে নিহত ১১

মেক্সিকোর মধ্যাঞ্চলীয় সিলায়া শহরে একটি হোটেল ও বারে সন্ত্রাসীদের বন্দুক হামলার ঘটনায় ১১ জন নিহত হয়েছেন। নিহতদের মাঝে নারীও রয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। 

সোমবার (২৩ মে) এই মর্মান্তিক হামলা ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।

সংবাদমাধ্যম বলছে, গত সোমবার রাতে মেক্সিকোর কেন্দ্রীয় গুয়ানাজুয়াতো প্রদেশের সেলায়া শহরে দু’টি পৃথক বার ও একটি হোটেলে চালানো ওই হামলায় নিহত ১১ জনের মধ্যে আটজন নারী এবং তিনজন পুরুষ। এছাড়া এই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও বেশ কয়েকজন।

মেক্সিকোর গুয়ানাজুয়াতো একটি সমৃদ্ধ শিল্প অঞ্চল হলেও স্থানীয় সান্তা রোসা দে লিমা এবং জালিস্কো নিউ জেনারেশন কার্টেল নামক দু’টি গ্রুপের মধ্যে বিরোধের কারণে এটি মেক্সিকোর অন্যতম সহিংস প্রদেশে পরিণত হয়েছে। 

সেলায়া শহরের নিরাপত্তা সচিবালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বন্দুক হামলার খবর পেয়ে ভ্যালে হারমোসোর আশপাশে পৌঁছানোর পর কর্মকর্তারা নিহতদের মৃতদেহগুলো খুঁজে পান। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, নিহতদের গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার পর হামলাকারীরা স্থাপনায় আগুন দেওয়ার জন্য পেট্রোল ঢেলে দেয়।

তারা আরও জানান, মৃতদেহগুলো প্লাস্টিকের টেবিল ও চেয়ারের মধ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল এবং একজন ফুটপাতে পড়ে ছিল।

প্রদেশটিতে অপরাধীরা মাদক ও চোরাই জ্বালানি পাচারের রুট নিয়ন্ত্রণের জন্য একে অপরের সঙ্গে লড়াই করছে। অবশ্য সর্বশেষ এই হামলায় কোনো অপরাধী গ্রুপকে সন্দেহ করা হয়েছে তা জানায়নি কর্তৃপক্ষ।

মেক্সিকো   হামলা   বন্দুক যুদ্ধ  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

আরও তিন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে মাঙ্কিপক্স

প্রকাশ: ১১:০৩ এএম, ২৫ মে, ২০২২


Thumbnail আরও তিন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে মাঙ্কিপক্স

চলমান মহামারি করোনাভাইরাসের প্রভাব কিছুটা কমতে না কমতেই আরও তিন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে মাঙ্কিপক্স। মঙ্গলবার (২৪ মে) আরব বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ একই দিনে ইউরোপের চেক প্রজাতন্ত্র ও স্লোভেনিয়াতেও মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। এ নিয়ে মোট ২১টি দেশে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়েছে।

বুধবার (২৩ মে)  ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এসব তথ্য জানিয়েছে। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, মাঙ্কিপক্স সাধারণত আফ্রিকার দেশগুলোয় শনাক্ত হয়। কিন্তু এবার ভাইরাসজনিত এ রোগের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়েছে উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ায়। মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হওয়া দেশের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাধারণ মানুষের মধ্যে এর ঝুঁকি এখনো কম।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলেছেন, একজনের মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্ত ব্যক্তি সম্প্রতি পশ্চিম আফ্রিকা ভ্রমণে গিয়েছিলেন। আক্রান্ত ওই ব্যক্তিকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। যেকোনো প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় পূর্ণ প্রস্তুতি আছে তাঁদের। রোগটি শনাক্ত করতে আগাম নজরদারির ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, আফ্রিকার বাইরে যেসব দেশে সাধারণত এটি শনাক্ত হয় না, সঠিক পদক্ষেপ নিয়ে সেসব দেশে এ রোগের প্রকোপ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

সংস্থাটির গ্লোবাল ইনফেকশিয়াস হ্যাজার্ড প্রিপেয়ার্ডনেস বিভাগের পরিচালক সিলভি ব্রিয়ান্ড গতকাল (২৪ মে) এক সম্মেলনে বলেন, ‘সবাইকে মাঙ্কিপক্স নিয়ে নজরদারি বাড়াতে উৎসাহিত করছি, যাতে সংক্রমণের মাত্রা কোথায় আছে ও গতিপথ কী, তা বোঝা যায়। এবারের প্রাদুর্ভাবটি স্বাভাবিক না হলেও এখনো নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।’

আফ্রিকার বাইরে এখন পর্যন্ত মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত ও সন্দেহভাজন আক্রান্তের সংখ্যা ২৩৭। বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে পরিকল্পনা ঘোষণা করছে।

এইদিকে জার্মানি জানিয়েছে, তারা ৪০ হাজার ডোজ ইমভ্যানেক্স টিকা কিনছে। এ টিকা স্মলপক্সের জন্য হলেও মাঙ্কিপক্সের বিরুদ্ধেও কার্যকর।

মাঙ্কিপক্স   শনাক্ত  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ক্রেতা নেই তাই সমুদ্রে ভেসে আছে রাশিয়ার তেলের জাহাজ

প্রকাশ: ১০:০৩ এএম, ২৫ মে, ২০২২


Thumbnail ক্রেতা নেই তাই সমুদ্রে ভেসে আছে রাশিয়ার তেলের জাহাজ

তেল বিক্রির ক্রেতা খুঁজে না পাওয়ায় এখন রাশিয়ার বেশ কয়েকটি তেল বোঝাই জাহাজ প্রায় ৬ কোটি ২০ লাখ ব্যারেল ‘উরালস ক্রুড অয়েল’ নিয়ে সমুদ্রে ভেসে আছে। নিষেধাজ্ঞার ভয়ে অনেক দেশ রাশিয়া থেকে অপরিশোধিত তেল আমদানি এড়িয়ে চলায় এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। 

 এনার্জি এনালাইসিস ফার্ম ভোরটেক্সা বলছে, ইউক্রেনে আক্রমণের জেরে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়ার অপরিশোধিত তেল আমদানির উপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় রুশ ব্যবসায়ীরা এই তেল বিক্রির জন্য ক্রেতা খুঁজে পাচ্ছেন না। 

ভোরটেক্সা জানিয়েছে, যুদ্ধ পূর্ববর্তী সময়ের তুলনায় সমুদ্রে রাশিয়ার উরালস ক্রুড অয়েলের পরিমাণ গড়ে তিনগুণ বেড়েছে। চলতি মাসে রাশিয়ার সমুদ্রজাত তেল রপ্তানি প্রতিদিন গড় ৬৭ লাখ ব্যারেলে দাঁড়িয়েছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসের তুলনায় এই সংখ্যা ১৫ শতাংশ কম। ফেব্রুয়ারিতে গড়ে প্রতিদিন ৭৯ লাখ ব্যারেল তেল রপ্তানি হতো।

তবে রাশিয়ার তেল রপ্তানি পরিস্থিতি এখনো তুলনামূলক শক্তিশালী মনে হচ্ছে। যদিও হস্টন ভিত্তিক জ্বালানি বিশ্লেষক ক্লে সিগলের মতে, সমুদ্রে রাশিয়ার বিপুল পরিমাণ তেল জমে যাচ্ছে।

বর্তমান দেশটির ১৫ শতাংশ উরালস ক্রুড অয়েল সমুদ্রে জমা হচ্ছে। সেগুলোর কোনো গন্তব্য নেই। কিছু তেল অবশ্য অজ্ঞাত ক্রেতাদের কাছে পাঠানো হচ্ছে। তবে অনেক তেল অবিক্রীত থেকে যাচ্ছে।

এখন রাশিয়ার বেশিরভাগ অপরিশোধিত তেল এশিয়ায় আসছে। বিশেষত ভারত এবং চীনে। যদিও এখনো রাশিয়ার তেলের একটি বড় অংশ ইউরোপেও যাচ্ছে।

রাশিয়া   ইউক্রেন   ইইউ   যুক্তরাষ্ট্র   তেল   গ্যাস  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার কবলে হামাস

প্রকাশ: ০৯:১৮ এএম, ২৫ মে, ২০২২


Thumbnail যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার কবলে হামাস

যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি বিভাগের নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়লো ফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের ব্যবসায়িক কার্যক্রম। এখন থেকে এই সংগঠনের সাথে যেসব প্রতিষ্ঠান ব্যবসায়িক কার্যক্রমে যুক্ত থাকবে, সেই সাথে হামাসের কার্যক্রমে বিনিয়োগকারীদের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলো বাইডেন প্রশাসন। 

মঙ্গলবার (২৪ মে) এ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে ভয়েজ অব আমেরিকা।

গণমাধ্যমটি জানিয়েছে, হামাসের বিনিয়োগ কার্যালয়কে নিষ্ক্রিয় করার লক্ষ্যেই এমন নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি বিভাগ। 

ট্রেজারি বিভাগের সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন ও অর্থনৈতিক অপরাধ বিভাগের সহকারী সচিব এলিজাবেথ রোসেনবার্গের দাবি, হামাসের বিনিয়োগ কার্যালয়ের মালিকানায় ৫০ কোটি ডলারের বেশি সম্পদ রয়েছে। সুদান, তুরস্ক, সৌদি আরব, আলজেরিয়া এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে পরিচালিত হচ্ছে এসব কার্যালয়।

রোসেনবার্গ বলেন, ‘হামাসের বেশ কিছু গোপন বিনিয়োগের তথ্য আমাদের কাছে রয়েছে। তাদের বিনিয়োগ কার্যালয় এসব দেখাশোনা করে এবং এসব বিনিয়োগ থেকে যথেষ্ট অর্থ আয় করে এই রাজনৈতিক গোষ্ঠী। আর তারপর এই অর্থ তারা ব্যয় করে সন্ত্রাসবাদী কার্যক্রমে। গাজার অধিবাসীরা যে ব্যাপক দরিদ্রতার মধ্যে দিন যাপন করছে, তার জন্য প্রধানত দায়ী হামাস।’

হামাস   ফিলিস্তিন   ইসরায়েল  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

বিশ্বজুড়ে দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা প্রায় সোয়া ছয় লাখ

প্রকাশ: ০৮:৩১ এএম, ২৫ মে, ২০২২


Thumbnail বিশ্বজুড়ে দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা প্রায় সোয়া ছয় লাখ

বিশ্বজুড়ে চলমান মহামারি করোনাভাইরাসে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। একইঙ্গে বেড়েছে শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘন্টায় বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে  মারা গেছেন প্রায় দেড় হাজার মানুষ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে প্রায় সোয়া ছয় লাখে।

বুধবার (২৫ মে) সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন এক হাজার ৪৬০ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে পাঁচ শতাধিক। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬৩ লাখ তিন হাজার ৪১৬ জনে।

একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৬ লাখ ২০ হাজার ৬১৪ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে দেড় লাখের বেশি। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫২ কোটি ৮৭ লাখ ৭৯ হাজার ২২২ জনে।

এদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র। গত ২৪ ঘণ্টায় এই দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৭৫ হাজার ৬২৩ জন এবং মারা গেছেন ৩২৪ জন। করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৮ কোটি ৫২ লাখ ৪১ হাজার ৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১০ লাখ ২৯ হাজার ৫২৪ জন মারা গেছেন।

অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে উত্তর কোরিয়ায়। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৩৪ হাজার ৫২০ জন। পূর্ব এশিয়ার এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২৯ লাখ ৪৮ হাজার ৯০০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ৬৮ জন মারা গেছেন।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যার তালিকায় দেশটির অবস্থান তৃতীয়। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১ হাজার ১৩২ জন। মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪ কোটি ৩১ লাখ ৪১ হাজার ২০০ জন এবং মারা গেছেন ৫ লাখ ২৪ হাজার ৪৯০ জন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২২৮ জন এবং নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ৩২ হাজার ৮২০ জন। অপরদিকে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩ কোটি ৮ লাখ ৩৬ হাজার ৮১৫ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ৬৫ হাজার ৯৫৫ জনের।

এছাড়াও গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাশিয়ায় ৯০ জন, জার্মানিতে ১৪১ জন, ফ্রান্সে ৮৮ জন, দক্ষিণ আফ্রিকায় ৫০ জন, দক্ষিণ কোরিয়ায় ১৯ জন, থাইল্যান্ডে ৩৬ জন, ইতালিতে ৯৫ জন, জাপানে  ৩০ জন, অস্ট্রেলিয়ায় ৬৮ জন, গ্রিসে ১৪ জন মারা গেছে। 

বিশ্ব করোনাভাইরাস  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন