ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

যেভাবে ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিল পাকিস্তানের পূর্ববর্তী প্রধানমন্ত্রীরা


Thumbnail যেভাবে ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিল পাকিস্তানের পূর্ববর্তী প্রধানমন্ত্রীরা

চলতি বছরের আগস্টে পাকিস্তানের ৭৫ বছর পূর্ণ হবে। এই দেশটির রাজনীতির গতিপথ অনুমান করা কঠিন। এ কারণেই দেশটির ইতিহাসে এখন পর্যন্ত কোনো প্রধানমন্ত্রী তাদের মেয়াদ পূর্ণ করতে পারেননি। ১৯৪৭ সাল থেকে প্রত্যেক প্রধানমন্ত্রী যদি তার ৫ বছরের মেয়াদ পূর্ণ করতে পারতেন তাহলে ইমরান খান পাকিস্তানের ১৫তম প্রধানমন্ত্রী হতেন। কিন্তু, ইমরান খান ছিলেন দেশটির ২২তম প্রধানমন্ত্রী। তার একমাত্র কারণ নির্ধারিত মেয়াদের আগেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীদের নানা কারণে ক্ষমতা থেকে সরে যেতে হয়েছে। 

শনিবার (৯ এপ্রিল) দিনভর নানা নাটকীয়তার পর মধ্যরা‌তে সংস‌দের স্পিকার, ডেপু‌টি স্পিকা‌রের পদত্যা‌গের পর অনাস্থা ভো‌টে হে‌রে পা‌কিস্তা‌নের প্রধানমন্ত্রীর পদ হারা‌ন ইমরান খান। শনিবার মধ্যরাতে পা‌কিস্তান মুসলিম লী‌গ-নওয়া‌জের (পিএমএল-এন) জ্যেষ্ঠ সাংসদ ও প্যা‌নেল স্পিকার আয়াজ সা‌দি‌কের সভাপ‌তি‌ত্বে অনাস্থা ভো‌টে হে‌রে পা‌কিস্তা‌নের সাত দশ‌কের কো‌নো প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার মেয়াদ পূর্ণ কর‌তে না পারার ইতিহাসের অংশ হ‌লেন সা‌বেক এ ক্রি‌কেট তারকা। পার্লামেন্টে জাতীয় পরিষদে ১৭৪ জন সদস্য তার বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোট দিয়েছেন বলে জানিয়েছে জিও নিউজ। ভোট শেষে ফল ঘোষণা করেন নতুন স্পিকারের দায়িত্ব নেওয়া সরদার আয়াজ সাদিক।

পাকিস্তানের আর্থিক দুরবস্থা ও ভুল পররাষ্ট্রনীতির অভিযোগে ইমরানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনে বিরোধী দলগুলো। তবে এ প্রস্তাবকে ‘অসাংবিধানিক’ আখ্যা দিয়ে ৩ এপ্রিল তা খারিজ করে দেন জাতীয় পরিষদের ডেপুটি স্পিকার কাসিম খান সুরি। সেদিনই প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শে জাতীয় পরিষদ ভেঙে দেন প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি। এ পরিস্থিতিতে স্বপ্রণোদিত হয়ে নোটিশ দেন সুপ্রিম কোর্ট। বিরোধীরাও আদালতের দ্বারস্থ হন। টানা পাঁচ দিন শুনানি শেষে সুপ্রিম কোর্ট ৭ এপ্রিল অনাস্থা প্রস্তাব খারিজ ও জাতীয় পরিষদ ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্তকে অসাংবিধানিক বলে ঘোষণা করেন এবং অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ভোট আয়োজনের নির্দেশ দেন। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা মেনে দেশটির সংসদের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদের স্পিকার আসাদ কায়সারের সভাপতিত্বে শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় অধিবেশন শুরু হয়। দিনভর চলে নাটকীয়তা। কয়েক দফায় অধিবেশন স্থগিত করা হয়। 

এ তো গেলো ইমরান খানের ঘটনা। সম্প্রতি জিও নিউজ পাকিস্তানে ক্ষমতা থেকে পূর্ববর্তী সকল সরকার প্রধানকে কিভাবে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়েছিল তার একটি প্রতিবেদন করেছে। সেখানে ১৯৪৭ সাল থেকে শুরু করে প্রতিটি সরকার প্রধানের মেয়াদকাল এবং ক্ষমতাচ্যুতির চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। সেগুলো এখন তুলে ধরা হলো।

লিয়াকত আলী খান: ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট-১৯৫১ সালের ১৬ অক্টোবর (৪ বছর)

পাকিস্তানের প্রথম প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট নির্বাচিত হন। ১৯৫১ সালের ১৬ অক্টোবর রাওয়ালপিন্ডিতে আততায়ীর গুলিতে তিনি নিহত হন। মৃত্যুর আগে ৪ বছর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

খাজা নাজিমুদ্দিন: ১৯৫১ সালের ১৭ অক্টোবর-১৯৫৩ সালের ১৭ এপ্রিল (২ বছরের কম)

লিয়াকত আলী খান নিহত হওয়ার একদিন পর ১৯৫১ সালের ১৭ অক্টোবর দায়িত্ব গ্রহণ করেন খাজা নাজিমুদ্দিন। কিন্তু, ধর্মীয় রাজনৈতিক দলগুলোর দাঙ্গার কারণে নাজিমুদ্দিনকে পদত্যাগের নির্দেশ দেন তৎকালীন গভর্নর জেনারেল গোলাম মুহাম্মদ। কিন্তু, তিনি সেই নির্দেশ প্রত্যাখ্যান করেন। এরপর ১৯৫৩ সালের ১৭ এপ্রিল নাজিমুদ্দিনকে গভর্নর জেনারেল প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দেন।

মোহাম্মদ আলী বগড়া: ১৯৫৩ সালের ১৭ এপ্রিল-১৯৫৫ সালের ১২ আগস্ট (২ বছর)

১৯৫৩ সালের ১৭ এপ্রিল গভর্নর জেনারেল মোহাম্মদ আলী বগড়াকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন। কিন্তু, ১৯৫৫ সালের ১২ আগস্ট আঞ্চলিক ইস্যুতে দ্বন্দ্ব এবং পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতার না থাকায় ভারপ্রাপ্ত গভর্নর-জেনারেল ইস্কান্দার মির্জা তাকে সরিয়ে দেন।

চৌধুরী মোহাম্মদ আলী: ১৯৫৫ সালের ১২ আগস্ট-১৯৫৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর (১ বছর)

চৌধুরী মোহাম্মদ আলীকে ১৯৫৫ সালের ১২ আগস্ট পাকিস্তানের চতুর্থ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করেন ভারপ্রাপ্ত গভর্নর-জেনারেল ইস্কান্দার মির্জা। ১৯৫৬ সালের সংবিধানে অগ্রণী ভূমিকা পালনের জন্য পাকিস্তানে চৌধুরী মোহাম্মদ আলীর নাম এখনো উচ্চারিত হয়। কিন্তু, ১৯৫৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর দলের সদস্যদের সঙ্গে দ্বন্দ্বের কারণে এবং আইয়ুব খানের একনায়কতন্ত্র নিয়ে স্পষ্টবাদী হওয়ার কারণে চাপের মুখে পড়েন তিনি। এরপর তিনি পদত্যাগ করেন।

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী: ১৯৫৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর-১৯৫৭ সালের ১৭ অক্টোবর (১ বছর)

প্রগতিশীল হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ১৯৫৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর পদ গ্রহণ করেন। কিন্তু, ইস্কান্দার মির্জার সঙ্গে মতপার্থক্যের কারণে ১৯৫৭ সালের ১৭ অক্টোবর তিনি পদত্যাগ করেন।

ইব্রাহিম ইসমাইল চুন্দ্রিগার: ১৯৫৭ সালের ১৭ অক্টোবর-১৯৫৭ সালের ১৬ ডিসেম্বর (২ মাস)

ইব্রাহিম ইসমাইল চুন্দ্রিগার ১৯৫৭ সালের ১৭ অক্টোবর ৬ষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হন। তিনি ক্ষমতায় ছিলেন মাত্র ২ মাস।

ফিরোজ খান নুন: ১৯৫৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর-১৯৫৮ সালের ৭ অক্টোবর (১ বছরের কম)

১৯৫৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর ফিরোজ খান নুনকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর পদে উন্নীত করেন ইস্কান্দার মির্জা। কিন্তু, ১৯৫৮ সালের ৭ অক্টোবর জেনারেল আইয়ুব খান সামরিক আইন জারির সময় নুনকে তার পদ থেকে বরখাস্ত করেন।

নুরুল আমিন: ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর-১৯৭১ সালের ২০ ডিসেম্বর (১৩ দিন)

দীর্ঘ ১৩ বছর সামরিক আইন জারির পর স্বৈরশাসক ইয়াহিয়া খানের প্রশাসনের অধীনে নুরুল আমিনকে ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বরে প্রধানমন্ত্রী করা হয়। দায়িত্ব পালনের ১৩ দিনের মাথায় ১৯৭১ সালের ২০ ডিসেম্বর আমিনকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

জুলফিকার আলী ভুট্টো

জুলফিকার আলী ভুট্টো ১৯৭৩ সালের ১৪ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী হন। তিনি ১৯৭৭ সালে পুনরায় সাধারণ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন এবং জয়ী হন। কিন্তু, স্বৈরশাসক জেনারেল মুহাম্মদ জিয়া উল হক তাকে কারাবন্দী করেন। ১৯৭৯ সালে ভুট্টোর ফাঁসি হয়।

মুহাম্মদ খান জুনেজো: ১৯৮৫ সালের ২৩ মার্চ-১৯৮৮ সালের ২৯ মে (৩ বছর)

মুহাম্মদ খান জুনেজো ১৯৮৫ সালের ২৩ মার্চ সামরিক একনায়কতন্ত্রের শাসনামলে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। তবে, ১৯৮৮ সালের ২৯ মে জুনেজোর সরকার বরখাস্ত করা হয়।

বেনজির ভুট্টো: ১৯৮৮ সাল-১৯৯০ সালের ৬ আগস্ট (২ বছর)

পাকিস্তানে জেনারেল জিয়া-উল-হকের বছরের পর বছর সামরিক শাসনের পর বেনজির ভুট্টো ১৯৮৮ সালে পাকিস্তানের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী হিসাবে নির্বাচিত হন। ১৯৮৯ সালে তার দল অভিশংসন থেকে বেঁচে যায়। কিন্তু, তার সরকার ক্ষমতা ধরে রাখতে পারেনি এবং ১৯৯০ সালের ৬ আগস্ট রাষ্ট্রপতি গুলাম ইসহাক খান তাকে সরিয়ে দেন।

নওয়াজ শরীফ: ১৯৯০ সাল-১৯৯৩ সালের ১৮ জুলাই (৩ বছরের কম)

নওয়াজ শরীফ ১৯৯০ সালে প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন। কিন্তু, ১৯৯৩ সালে আবারও রাষ্ট্রপতি গুলাম ইসহাক খান একটি নির্বাচিত সরকারকে বরখাস্ত করেন। পরে সুপ্রিম কোর্ট শরীফের সরকারকে পুনর্বহাল করেন। কিন্তু, সেনাবাহিনীর তৎকালীন প্রধান ওয়াহিদ কাকার ১৯৯৩ সালের ১৮ জুলাই নওয়াজ শরীফ এবং গুলাম ইসহাক খানকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করেন।

বেনজির ভুট্টো: ১৯৯৩ সাল-১৯৯৬ সালের নভেম্বর (৩ বছর)

বেনজির ভুট্টো ১৯৯৩ সালে পুনরায় প্রধানমন্ত্রী হন। কিন্তু, এবারও তিনি তার মেয়াদ শেষ করতে পারেননি। কারণ রাষ্ট্রপতি ফারুক লেঘারি ১৯৯৬ সালের নভেম্বরে তার সরকারকে বরখাস্ত করেন।

নওয়াজ শরীফ: ১৯৯৭ সাল-১৯৯৯ সালের ১২ অক্টোবর (২ বছর)

নওয়াজ শরীফ ১৯৯৭ সালের নির্বাচনের পর পুনরায় প্রধানমন্ত্রীর পদে অধিষ্ঠিত হন। তবে, তার পূর্বসূরির মতো তিনিও ৫ বছরের মেয়াদ শেষ করতে পারেননি। ১৯৯৯ সালের ১২ অক্টোবর জেনারেল পারভেজ মোশাররফ দেশে জরুরি অবস্থা জারি করেন এবং নওয়াজ শরীফকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেন।

মীর জাফরুল্লাহ খান জামালি: ১৯ মাস

জাফরুল্লাহ খান জামালি স্বৈরশাসক পারভেজ মোশারফের অধীনে প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। কিন্তু, মোশাররফ তাকে বরখাস্ত করার আগে তিনি মাত্র ১৯ মাস দায়িত্ব পালন করেন।

চৌধুরী সুজাত: ২০০৪ সালের ৩০ জুন-২০০৪ সালের ৩০ আগস্ট (২ মাস)

চৌধুরী সুজাত ২০০৪ সালের ৩০ জুন পার্লামেন্ট নির্বাচনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী হন। শওকত আজিজ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত না হওয়া পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন সুজাত।

শওকত আজিজ: ২০০৪ সালের ২৮ আগস্ট-২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর (৩ বছর)

শওকত আজিজ ২০০৪ সালের ২৮ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত হন। পার্লামেন্টের মেয়াদ শেষ করে ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর তিনি দায়িত্ব ত্যাগ করেন।

ইউসুফ রাজা গিলানি: ২০০৮ সাল-২০১২ সাল (৪ বছর)

ইউসুফ রাজা গিলানি ২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনের পর ১৮তম প্রধানমন্ত্রী হন। তার দল পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) জাতীয় পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন অর্জন করে। কিন্তু, ২০১২ সালে শীর্ষ আদালত অবমাননার মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে তাকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

রাজা পারভেজ আশরাফ: ২০১২ সালের ২২ জুন-২০১৩ সালের ২৪ মার্চ (১ বছরের কম)

পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) সরকারের অবশিষ্ট মেয়াদ শেষ করতে গিলানির কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন রাজা পারভেজ আশরাফ। ২০১২ সালের ২২ জুন থেকে ২০১৩ সালের ২৪ মার্চ পর্যন্ত তিনি এই পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন।

নওয়াজ শরীফ: ২০১৩ সালের জুন-২০১৭ সালের ২৮ জুলাই (৪ বছরের বেশি)

নওয়াজ শরীফ ২০১৩ সালের জুনে তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ফিরে আসেন। পাকিস্তানের পূর্ববর্তী সব প্রধানমন্ত্রীর তুলনায় এখন পর্যন্ত তিনি সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৭ সালের ২৮ জুলাই সর্বোচ্চ আদালত কর্তৃক অভিশংসিত হওয়ার আগে তিনি ৪ বছর ৫৩ দিন ক্ষমতায় ছিলেন।

শাহীদ খাকান আব্বাসি: ২০১৭ সালের আগস্ট-২০১৮ সালের ৩১ মে (১ বছরের কম)

নওয়াজ শরীফকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার পরে শাহীদ খাকান আব্বাসিকে ২১তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়। ২০১৭ সালের আগস্টে তিনি এই দায়িত্ব গ্রহণ করেন। কিন্তু, ২০১৮ সালের ৩১ মে তার মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। কারণ নতুন নির্বাচনের জন্য পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়া হয়।

ইমরান খান: আগস্ট ১৮, ২০১৮-এপ্রিল ১০, ২০২২ (৩ বছরের বেশি)

২০১৮ সালের ১৮ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন ইমরান খান। কিন্তু, ইমরান খানও নিজের মেয়াদ পূর্ণ করতে পারেননি। ২০২২ সালের ১০ এপ্রিল জাতীয় পরিষদে বিরোধীদের অনাস্থা ভোটে হেরে ক্ষমতা হারান ইমরান খান।

সূত্র: জিও নিউজ

প্রধানমন্ত্রী   ইমরান খান  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইউক্রেনের জন্য অস্ত্র কিনবে যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশ: ০৯:২৭ পিএম, ২৭ Jun, ২০২২


Thumbnail ইউক্রেনের জন্য অস্ত্র কিনবে যুক্তরাষ্ট্র

ইউক্রেনের জন্য চলতি সপ্তাহে উন্নত প্রযুক্তির মাঝারি থেকে দূরপাল্লার সারফেস-টু-এয়ার ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার ঘোষণা দিতে পারে যুক্তরাষ্ট্র।

সোমবার ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে-ইউক্রেনকে সহায়তা করার জন্যই যুক্তরাষ্ট্র এই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার ঘোষণা দিতে যাচ্ছে। 

ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর চাহিদা মেটাতে ওয়াশিংটন ইউক্রেনের জন্য গোলাবারুদ এবং কাউন্টার-ব্যাটারি রাডারসহ অন্যান্য নিরাপত্তা সহায়তা ঘোষণা করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

দিকে, রাশিয়ার দখলকৃত ইউক্রেনীয় ভূখণ্ডের বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে মার্কিন রকেট ব্যবস্থা আঘাত হানছে বলে জানিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা। এর আগেও রুশ সেনা অভিযানে আক্রান্ত ইউক্রেনে সামরিক সহায়তা অনুমোদন করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। 


ইউক্রেন   যুক্তরাষ্ট্র   অস্ত্র   রাশিয়া   যুদ্ধ   সাহায্য  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

সু চি'র মুক্তির জন্য আহ্বান জানিয়েছে আসিয়ান জোট

প্রকাশ: ০৮:১০ পিএম, ২৭ Jun, ২০২২


Thumbnail সু চি'র মুক্তির জন্য আহ্বান জানিয়েছে আসিয়ান জোট

শান্তিতে নোবেলজয়ী গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চিকে কারাগার থেকে মুক্তি দিতে মিয়ানমারের সেনা সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর জোট আসিয়ান। সোমবার (২৭ জুন) জোটটির মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ও কম্বোডিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাক সোখন এ আহ্বান জানান। খবর রয়টার্সের

কম্বোডিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, তাঁদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাক সোখন আগামী বুধবার থেকে মিয়ানমারে দ্বিতীয় সফর শুরু করবেন। ১০ সদস্যবিশিষ্ট আসিয়ানের সঙ্গে জান্তা সরকারের শান্তি প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকারের অংশ হিসেবে এ সফর হবে।

গত বছর সেনা অভ্যুত্থানের পর আটক হন সু চি। কমপক্ষে ২০টি অপরাধের ঘটনায় তাঁর বিরুদ্ধে বিচার শুরু হয়। সু চি তাঁর বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ৭৭ বছর বয়সী এ নেত্রীকে অজ্ঞাত স্থানে আটকে রাখা হয়েছে।

মিয়ানমারের জান্তা বরাবর লেখা এক চিঠিতে সুচির প্রতি কৃপা করার অনুরোধ জানিয়েছেন প্রাক সোখন। তিনি লিখেছেন, ‘দেশকে স্বাভাবিকতায় ফিরিয়ে নিতে এবং শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমাধানের মধ্য দিয়ে জাতীয় সমন্বয় প্রতিষ্ঠায় অং সান সু চি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। আর তা মিয়ানমারের অনেকের কাছে ও আন্তর্জাতিকভাবে সমাদৃত।’

চিঠিতে তিনি আরও লিখেছেন, এক পক্ষকে বাদ দিয়ে সফল শান্তি প্রক্রিয়া সম্ভব নয়। যত জটিলই হোক না কেন, সংঘাতের শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমাধান জরুরি। এ প্রক্রিয়ায় যুক্ত সবাইকে নিজেদের রাজনৈতিক ক্ষেত্র থেকে কথা বলার সুযোগ দিতে হবে।

এর আগে মার্চে মিয়ানমার সফর করেন প্রাক সোখন। তাঁর এ সফরকে ব্যর্থ বলে উল্লেখ করেছিলেন অধিকারকর্মীরা। তাঁদের অভিযোগ, সোখন জান্তার পক্ষে কথা বলেছেন এবং বিরোধীদের এড়িয়ে গেছেন। সোখন বলেছিলেন সমালোচনার জায়গাটি তিনি বুঝতে পারছেন।


সু চি   আসিয়ান   মিয়ানমার   জান্তা সরকার   মুক্তি  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইরান-ভেনেজুয়েলার তেল বাজারে চায় ফ্রান্স

প্রকাশ: ০৭:৫৫ পিএম, ২৭ Jun, ২০২২


Thumbnail ইরান-ভেনেজুয়েলার তেল বাজারে চায় ফ্রান্স

ইউক্রেনে হামলার পর রাশিয়ার ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে পশ্চিমা বিশ্ব। তাই প্রতিশোধ নিতে রাশিয়া এরই মধ্যে ইউরোপে জ্বালানি সরবরাহ কমিয়েছে। তাছাড়া চলতি বছরের মধ্যে রাশিয়ার ওপর জ্বালানি নির্ভরশীলতা সম্পূর্ণভাবে কমাতে চায় ইউরোপের দেশগুলো। এমন পরিস্থিতিতে ইউরোপজুড়ে জ্বালানি সংকট তীব্র হচ্ছে। তাই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া ইরান ও ভেনেজুয়েলার তেল বাজারে চায় ফ্রান্স।

ফরাসি প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেছেন, মূল্য স্থিতিশীল রাখতে ইরান ও ভেনেজুয়েলা থেকে অপরিশোধিত তেল বাজারে ফিরে আসতে দেওয়া উচিত। এজন্য দেশ দুইটির ওপর যুক্তরাষ্ট্র যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তা উঠিয়ে দেওয়া উচিত বলেও জানান তিনি।

ওই কর্মকর্তা বলেন, সরবরাহের বৈচিত্র্যকরণ, মূল্য নির্ধারণের বিষয়ে সব উৎপাদকদের সঙ্গে আলোচনা ও তেলের উৎপাদন বৃদ্ধি ভোক্তা ও ব্যবসার ওপর চাপ কমাতে সাহায্য করবে।

এদিকে ইউক্রেনে আগ্রাসনের পর বিশ্বে খাদ্য ও জ্বালানি সংকটের কারণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন রাশিয়ার বিরুদ্ধে জি-৭ নেতাদের এক সঙ্গে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। রোববার (২৬ জুন) সম্মেলনে অংশ নিয়ে তিনি এ আহ্বান জানান।

জার্মানির ব্যাভারিয়ান আল্পসে বৈঠকের শুরুতে, সাতটি ধনী দেশের মধ্যে চারটি দেশ রাশিয়ার স্বর্ণ আমদানি নিষিদ্ধ করার কথা জানায়।

সূত্র: ব্লুমবার্গ 


ইরান   ভেনেজুয়েলা   তেল   বানিজ্য   ফ্রান্স  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

জর্ডানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে গুলি করে হত্যার পরে অভিযুক্তের আত্মহত্যা

প্রকাশ: ০৫:৫৯ পিএম, ২৭ Jun, ২০২২


Thumbnail জর্ডানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে গুলি করে হত্যার পরে অভিযুক্তের আত্মহত্যা

জর্ডানের একটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গত বৃহস্পতিবার একজন নারী শিক্ষার্থীকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ নিয়ে দেশটিতে ব্যাপক জন অসন্তুষ্টি তৈরি হয়।

রোববার (২৬ জুন) পুলিশ ওই আততায়ীকে ঘিরে ফেললে অভিযুক্ত ব্যক্তি নিজেই নিজের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করে। পরবর্তীতে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

আরব নিউজের খবরে বলা হয়েছে, অভিযুক্ত আত্মহত্যাকারীর নাম খালেদ আবদাল্লাহ হাসান। জর্ডানের রাজধানী আম্মানের এপ্লাইড সায়েন্স বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী ইমান রসিদকে (২১) গুলি করে হত্যা করেন তিনি। আমান রসিদ বিশ্ববিদ্যালয়ের নার্সিং বিভাগের  শিক্ষার্থী ছিলেন।

পুলিশ এক বিবৃতিতে বলেছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী হত্যায় অভিযুক্ত আবদাল্লাহকে বালামা শহরে অবস্থানের বিষয় শনাক্ত করে। ওই জায়গা ঘিরে ফেলা হলে তাকে অস্ত্রসহ পাওয়া যায়। পুলিশ তাকে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানায়। কিন্তু সে সবাইকে অবাক করে নিজের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করে।


জর্ডান   বিশ্ববিদ্যালয়   ছাত্রী   হত্যা   আত্মহত্যা   মধ্যপ্রাচ্য  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইউক্রেনে সক্রিয় পশ্চিমা কমান্ডোদের গোপন সেল

প্রকাশ: ০৪:০৪ পিএম, ২৭ Jun, ২০২২


Thumbnail ইউক্রেনে সক্রিয় পশ্চিমা কমান্ডোদের গোপন সেল

রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ পরিচালনার ক্ষেত্রে পশ্চিমা গোয়েন্দা সংস্থা এবং কমান্ডোদের একটি গোপন সেল ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীকে সহযোগিতা করছে। দৈনিক নিউ ইয়র্ক টাইমস এ খবর দিয়েছে।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদন অনুসারে মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ এবং বিদেশি কমান্ডোদের একটি চক্র ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে সক্রিয় রয়েছে। এই বাহিনীতে আমেরিকা, কানাডা, বৃটেন, ফ্রান্স ও লিথুয়ানিয়ার কমান্ডো ও গোয়েন্দারা রয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এসব দেশের অবসরপ্রাপ্ত এবং নিয়মিত কমান্ডো এবং গোয়েন্দা সদস্যরা অংশ নিচ্ছে।

কমান্ডো ও গোয়েন্দা সেলের একটি অংশ ইউক্রেনে সক্রিয় রয়েছে এবং আরেকটি অংশ ইউক্রেনের বাইরে ব্রিটেন, জার্মানি এবং ফ্রান্সের মতো দেশে তৎপর রয়েছে। এই সেলের সদস্যরা ইউক্রেনের সেনাবাহিনী এবং গোায়েন্দাদেরকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে এবং পশ্চিমা দেশগুলোর সর্বাধুনিক অস্ত্র ব্যবহারের উপযোগী করে তুলছে। পাশাপাশি ইউক্রেনের গোয়েন্দাদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে আরো বেশি উপযুক্ত করে তুলছে।

এর আগে ওয়াশিংটন দাবি করেছিল যে, ইউক্রেনের মাটিতে আমেরিকার কোনো সেনা নেই। কিন্তু নিউ ইয়র্ক টাইমসের এই প্রতিবেদন অনুসারে, ওয়াশিংটনের ওই দাবি মিথ্যা বলে প্রমাণিত হচ্ছে। সূত্র: পার্সটুডে

রাশিয়া   ইউক্রেন   যুক্তরাষ্ট্র   ইইউ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন