ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

অনাস্থা ভোট বিতর্কে এবার মামলা ঠুকলেন ইমরান খান

প্রকাশ: ০১:০৯ পিএম, ১৪ মে, ২০২২


Thumbnail অনাস্থা ভোট বিতর্কে এ বার মামলা ঠুকলেন ইমরান খান

পাকিস্তান ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে অনাস্থা ভোট নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানালেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। দেশটিতে সৃষ্ট রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় গত গত ৭ এপ্রিল ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির ডেপুটি স্পিকার কাসিম খান সুরির নির্দেশকে খারিজ করে দেয় পাকিস্তানের শীর্ষ আদালত। সেই রায়ের বিরুদ্ধেই ‘রিভিউ পিটিশন’ দায়ের করেছেন প্রাক্তন এই পাক প্রধানমন্ত্রী। 

শুক্রবার (১৩ মে) পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টে এই রিভিউ পিটিশন জারি করা হয়। 

রিভিউ পিটিশন দায়ের করে ইমরানের আইনজীবী বলেছেন, ‘‘পাকিস্তানের সংবিধানের ২৪৮ নম্বর অনুচ্ছেদ বলছে, আইনসভা এবং বিচার বিভাগ পরস্পরের কাজে হস্তক্ষেপ করতে পারে না। তাই আইনসভার ডেপুটি স্পিকার পাক সংবিধানের ৫ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী যে সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছিলেন, তা বাতিল করার অধিকার নেই সুপ্রিম কোর্টের।’’ 

গত ৩ এপ্রিল তৎকালীন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের বিরুদ্ধে বিরোধী জোটের তরফে আনা অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে ভোটাভুটির কথা থাকলেও ডেপুটি স্পিকার সুরি তা খারিজ করে দিয়েছিলেন। তাঁর যুক্তি ছিল, বিদেশি শক্তির প্ররোচনায় আনা এই অনাস্থা প্রস্তাব আসলে সংবিধান-বিরোধী এবং তা দেশের পক্ষে ক্ষতিকর। তাই পাক সংবিধানের ৫ নম্বর অনুচ্ছেদ মেনে এ নিয়ে কোনও ভোটাভুটি হতে দিতে পারবেন না তিনি।

সুরির ওই ঘোষণার পরেই ইমরানের সুপারিশে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি ভেঙে দেন প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি। তার প্রতিবাদে সেদিন রাতেই শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হন বিরোধী নেতৃত্ব। এর পর ৭ এপ্রিল পাক সুপ্রিম কোর্ট প্রধান বিচারপতি উমর আটা বান্দিয়ালের নেতৃত্বে গঠিত পাক সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ ডেপুটি স্পিকারের নির্দেশে ‘অসাংবিধানিক’ ঘোষণা করে ৯ এপ্রিল অনাস্থা ভোট কারনোর নির্দেশ দেন। পরাজয় অনিবার্য বুঝে অনাস্থা প্রস্তাবের ভোটাভুটিতে অংশ নেননি। ইস্তফা দেন ইমরান খান। সূত্র: আনন্দবাজার  

ইমরান খান   পাকিস্তান   সুপ্রিম কোর্ট   মামলা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ব্রাজিলে ভূমিধ্বসে ৩৫ জনের মৃত্যু

প্রকাশ: ১১:৫৬ এএম, ২৯ মে, ২০২২


Thumbnail ব্রাজিলে ভূমিধ্বসে ৩৫ জনের মৃত্যু

ব্রাজিলে প্রবল বৃষ্টিতে কমপক্ষে ৩৫ জনের প্রাণহানি হয়েছে। অতিবর্ষণের ফলে ভূমিধ্বসে এ প্রাণহানির ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়। 

শুক্রবার (২৭মে) ও শনিবার (২৮মে) টানা দুই দিনের ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় ভূমিধ্বসের ঘটনা ঘটে। 

এ ঘটনায় ঘর-বাড়ি ছেড়ে অনেকে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যেতে বাধ্য হয়েছেন। রোববার (২৯ মে) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স এবং সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা। 

ব্রাজিলের পারনাম্বুকো প্রদেশের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে জানানো তথ্য অনুযায়ী, প্রবল বৃষ্টির কারণে পাহাড়ি শহুরে এলাকাগুলোতে ভূমিধস হয়েছে এবং শনিবার বিকেল পর্যন্ত প্রদেশটিতে কমপক্ষে ৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

প্রাদেশিক সরকার জানিয়েছে, অস্থায়ীভাবে হলেও তুমুল বৃষ্টি ও ভূমিধসের ঘটনায় ৭৬৫ জন মানুষ তাদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছেন। অন্যদিকে ব্রাজিলের কেন্দ্রীয় জরুরি পরিষেবা দপ্তর জানিয়েছে, পারনাম্বুকোর প্রতিবেশী আলাগোয়াস প্রদেশের কর্তৃপক্ষ বৃষ্টির কারণে দু’জনের মৃত্যুর তথ্য নিবন্ধন করেছে।

এর আগে গত ডিসেম্বরের শেষের দিকে এবং চলতি বছরের জানুয়ারির শুরুতে উত্তর-পূর্ব ব্রাজিলের বাহিয়া প্রদেশে বৃষ্টিপাতের কারণে কয়েক ডজন মানুষ নিহত এবং কয়েক হাজার লোক বাস্তুচ্যুত হয়। এছাড়া জানুয়ারিতে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ সাও পাওলোতে বন্যায় অন্তত ১৮ জনের মৃত্যু হয়।

এরপর ফেব্রুয়ারিতে রিও ডি জেনেরিও প্রদেশের পাহাড়ি এলাকায় প্রবল বর্ষণে ২৩০ জনেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারায়। 

রয়টার্স বলছে, ২০২১ সালের বেশিরভাগ সময়জুড়ে ব্রাজিলের বেশিরভাগ অংশ ভয়াবহ খরার মধ্যে কাটালেও বছরের শেষ মাসগুলোতে অস্বাভাবিকভাবে তীব্র বৃষ্টিপাত শুরু হয়। 

ব্রাজিল   ভূমিধ্বস   নিহত   বৃষ্টিপাত  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইমরানের আজাদি মার্চ স্থগিত, জনমনে বিস্ময় ও সংশয়

প্রকাশ: ১১:৩৪ এএম, ২৯ মে, ২০২২


Thumbnail ইমরানের আজাদি মার্চ স্থগিত, জনমনে বিষ্ময় ও সংশয়

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বৃহস্পতিবার (২৬মে) হঠাৎ করেই 'হাকিকি আজাদি মার্চ' কর্মসূচি সমাপ্তি ঘোষণা করেন। এতে বিস্ময় প্রকাশ করে অনেকেই। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আজাদি মার্চ থেকে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচিতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন ইমরান খান। কিন্তু হঠাৎ তাঁর এই সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কারণ খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছে দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন। 

তবে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণায় ক্ষমতাসীন জোটকে ছয় দিনের সময় বেঁধে দিয়েছেন পিটিআই চেয়ারম্যান। অন্যথায় পরবর্তী সময় আরও বেশি লোকজন নিয়ে রাজধানীতে ফিরে আসার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

অবশ্য হঠাৎ এই কর্মসূচী থেকে সরে আসায় তৈরি হয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা। অনেকে এর মধ্যে সমঝোতার আভাসও পাচ্ছেন। একইসাথে সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপের বিষয়টিও গুঞ্জনের পালে হাওয়া দিচ্ছে। 'আজাদী মার্চ' রাজধানীমূখী না হয়ে সমাবেশে সীমাবদ্ধ থাকার পেছনে সেনাবাহিনীর কলকাঠি দায়ী বলে ধারণা করা হচ্ছে বিভিন্ন মহলে। 

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, সরকার-পিটিআই মুখোমুখি অবস্থান নেওয়ায় চাপ বাড়তে থাকে। শক্তিশালী স্টেকহোল্ডারদের কাছে স্পষ্ট বার্তা পৌঁছে দেওয়া হয়েছিল—এমন পরিস্থিতিতে অর্পিত দায়িত্বের বিষয়ে পুরোপুরি সজাগ থেকে দীর্ঘ সময় ধরে তারা নীরব দর্শক হয়ে থাকতে পারেন না।

বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউনকে বলে, প্রতিষ্ঠানগুলোর অতীত ভূমিকার বিষয়ে নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়ার ক্ষেত্রে সব রাজনৈতিক দলের মনোভাব একই। একমাত্র পার্থক্য হলো রাজনৈতিক দলগুলো আর একই অবস্থানে নেই। সূত্রটি বলছে, আস্থার সংকট রয়েছে। এই মুহূর্তে কেউ কাউকে বিশ্বাস করছে না।

সাধারণ নির্বাচনের বিষয়ে সূত্রটি বলেছে, সেনাপ্রধানের অবসরে যাওয়ার এক মাস আগে চলতি বছরের অক্টোবরেই নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাবনা প্রবল। স্পিকারের দপ্তরেই এ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। নির্বাচনের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করতে সেখানে আরও দর-কষাকষি হতে পারে। 

তড়িঘড়ি করে কর্মসূচি সমাপ্ত ঘোষণার বিষয়ে পিটিআইয়ের একজন নেতা বলেন, এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন ইমরান। এর পেছনে বাস্তব কারণ ছিল। তিনি বলেন, যাহোক, সব স্টেকহোল্ডারের স্বার্থই রক্ষা হয়েছে, যাকে ‘উইন-উইন সিচুয়েশন’ বলা যেতে পারে। সমাবেশের উপস্থিতি প্রসঙ্গে তাঁরা বলেন, ‘কখনো সংখ্যাটা মুখ্য, কখনো প্রতীকী বার্তা; গত রাতের (বুধবার রাত) সমাবেশ ছিল অনেকটাই প্রতীকী।’

আরেক পিটিআই নেতা বলেন, দীর্ঘ সময় ধরে নেতা-কর্মীদের অবস্থান কর্মসূচিতে রাখার কোনো ধরনের প্রস্তুতি ছিল না। ব্যাপক জনসমাগমে সরকার বিচলিত হতে পারে, এমন আশঙ্কার বিষয়ও ছিল। এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে অবস্থান কর্মসূচিতে না গিয়ে শুধু শক্তি প্রদর্শনের সিদ্ধান্তে যায় পিটিআই।

ওই নেতা আরও বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিশেষ করে, সেনাবাহিনীর সঙ্গে নেতা-কর্মীরা সংঘর্ষে জড়াতে পারেন, এমন আশঙ্কা থেকে তড়িঘড়ি করে কর্মসূচি শেষ করে দেন ইমরান। তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, কয়েক হাজার মানুষের রাজনৈতিক ও গণতান্ত্রিক অধিকার চর্চা ঠেকাতে কারা সেনাবাহিনীকে ডেকে এনেছে। এটা ছিল জনগণকে সেনাবাহিনীর মুখোমুখি করার চেষ্টা।

ছয় দিন পর কর্মসূচিতে ফেরার বিষয়ে এই পিটিআই নেতা বলেন, কর্মসূচিতে ফেরার সিদ্ধান্ত এখন পর্যন্ত বহাল। পরবর্তী রাজনৈতিক জমায়েতে সর্বোচ্চ আদালত প্রতিবন্ধকতা তৈরি করবেন না বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছে। এটি পিটিআইকে আরও স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ করে দেবে।

ইমরানের বক্তব্যের প্রতি ইঙ্গিত করে সূত্রটি বলেছে, জনগণ সুপ্রিম কোর্টের দিকে তাকিয়ে আছে, যেখানে বিশ্বের কোথাও শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অনুমোদন অস্বীকার করা হয় না বলে তিনি বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

জাতীয় পরিষদে অনাস্থা ভোটে হেরে গত ৯ এপ্রিল ক্ষমতা থেকে বিদায় নেন ইমরান খান। এরপর নতুন নির্বাচনের দাবিতে চাপ সৃষ্টির জন্য দেশজুড়ে একের পর এক সমাবেশ করেন তিনি। সবশেষ ২৫ মের আজাদি মার্চ ছিল নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা না করা পর্যন্ত কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার অংশ। যদিও শেষ পর্যন্ত সেটা হয়ে ওঠেনি।
যাহোক, লংমার্চ ও আলটিমেটামের একটি অর্জন হলো—বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনার দরজা খোলা রয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের ঘোষণা।

আজাদি মার্চ   পাকিস্তান   ইমরান খান  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

মারিওপোল থেকে জাহাজ বোঝাই ধাতব পদার্থ যাচ্ছে রাশিয়ায়

প্রকাশ: ১০:৫৫ এএম, ২৯ মে, ২০২২


Thumbnail মারিওপোল থেকে জাহাজ বোঝাই ধাতব পদার্থ যাচ্ছে রাশিয়ায়

মারিওপোল বন্দর থেকে রাশিয়ার একটি জাহাজে করে ধাতব পদার্থ সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে বলে রাশিয়ার সংবাদমাধ্যমে জানানো হয়েছে। 

এদিকে, মারিওপোল বন্দর থেকে ধাতব পদার্থ নিয়ে যাওয়ার ঘটনাটিকে ‘ছিনতাই’ বলে ঘোষণা করেছে। খবর রয়টার্সের।

বার্তা সংস্থা তাসের কাছে বন্দরের এক মুখপাত্র বলেছেন, সোমবার রাশিয়ার জাহাজটিতে দুই হাজার ৭০০ টন ধাতব পদার্থ বোঝাই করে ১৬০ কিলোমিটার দূরে রাশিয়ার রোস্তভ–অব–ডন শহরের পূর্বাঞ্চলে নেওয়া হবে। তবে এসব ধাতব পদার্থ কোথায় উৎপন্ন হয়েছে তা তিনি বলেননি। 

ইউক্রেনের মানবাধিকার ন্যায়পাল লিউডমিলা ডেনিসোভা বলেছেন, চালানটিতে ইউক্রেন থেকে রাশিয়ার লুটপাটের মালামাল রয়েছে।

টেলিগ্রাম মেসেজিং অ্যাপে দেনিসোভা লিখেছেন, ‘ইউক্রেনের অস্থায়ীভাবে দখলকৃত অঞ্চলে লুটপাট অব্যাহত রয়েছে। ইউক্রেনীয় শস্য চুরির পরে দখলকারীরা মারিউপোল থেকে ধাতব পণ্য লুটে নিতে শুরু করেছে।’

ইউক্রেনের বৃহত্তম ইস্পাতপণ্য নির্মাতা মেটিনভেস্ট গত শুক্রবার বলেছে, মারিউপোলে আটকে থাকা কয়েকটি জাহাগে করে ধাতব পণ্য চুরি করে পাচার করার কাজে ব্যবহার করতে পারে রাশিয়া। এ বিষয়ে তারা উদ্বেগে রয়েছে। রাশিয়া তাদের পণ্য চুরি করে নিতে পারে। তারা রাশিয়ার বিরুদ্ধে দস্যুবৃত্তির অভিযোগ এনেছে। 

মারিওপোল থেকে সরিয়ে নেওয়া ধাতব পদার্থ মেটিনভেস্টের কিনা সে প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির একজন মুখপাত্র বলেন, ‘হ্যাঁ, মারিউপোল বন্দরে আমাদের পণ্য রয়েছে।’
গত সপ্তাহে মারিওপোল শহরের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার দাবি করে রাশিয়া জানায়, আজভ সাগরের কাছে আজভস্তাল ইস্পাত কারখানায় আশ্রয় নেওয়া ২ হাজার ৪০০ ইউক্রেন সেনা আত্মসমর্পন করেছে। গত বৃহস্পতিবার রাশিয়া জানায়, মারিওপোল বন্দর থেকে সব মাইন সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এটি এখন বাণিজ্যিক বন্দর হিসেবে কার্যক্রম শুরুর জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। 

মারিওপোলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার ফলে আজভ সাগর উপকূলের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ এখন মস্কোর হাতে চলে এসেছে। এখন একটি সেতু তৈরি করে রাশিয়ার মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে ক্রিমিয়ার যোগাযোগ স্থাপন সফল হয়েছে। ২০১৪ সালে ক্রিমিয়া দখলে নেয় রাশিয়া।
গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযানের নামে হাজারো সেনা পাঠায় রাশিয়া। মস্কো বলেছিল, ইউক্রেনকে নিরস্ত্রীকরণ করতে তারা অভিযান চালিয়েছে।

কারণ ইউক্রেনের সেনারা রুশ ভাষাভাষী মানুষের ওপর গণহত্যা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ তোলে মস্কো। কিন্তু কিয়েভ ও পশ্চিমা দেশগুলোর পক্ষ থেকে রাশিয়ার এই আক্রমণের পটভূমির বিষয়টিকে ভিত্তিভীন বলে উড়িয়ে দেওয়া। 

মারিওপোল   ধাতব পদার্থ   জাহাজ  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

দেশত্যাগে বাধার মুখে সাবেক ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট

প্রকাশ: ১০:২১ এএম, ২৯ মে, ২০২২


Thumbnail দেশত্যাগে বাধার মুখে সাবেক ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট

দেশ ছাড়ার জন্য সব ধরনের আনুষ্ঠানিক অনুমতিপত্র থাকলেও দেশত্যাগে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ইউক্রেনের সাবেক প্রেসিডেন্ট পেত্রো পোরোশেঙ্কো। ন্যাটোর একটি পর্ষদে বৈঠকে অংশ নেওয়ার জন্য লিথুয়ানিয়া যাওয়ার কথা থাকলেও দেশত্যাগে বাধার মুখে পড়েছেন সাবেক এই ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট। 

স্থানীয় সময় শনিবার ( ২৭ মে) দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট অভিযোগ করে বলেন, রাশিয়ার আগ্রাসনের পর থেকে সরকার তথাকথিত রাজনৈতিক যুদ্ধবিরতি ভঙ্গ করার অভিযোগ এনে তাকে দেশত্যাগে বাধা দিচ্ছে।  

২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিলেন পোরোশেঙ্কো। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে তাকে ঘন ঘন প্রকাশ্যে আসতে দেখা যায়। সাবেক এই প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের একটি মামলা চলছে। পোরোশেঙ্কোর দাবি করেন, ওই মামলা উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির মিত্রদের সঙ্গে যোগসূত্র রয়েছে। তবে গত জানুয়ারিতে আদালত তাকে মামলা চললেও স্বাধীনভাবে চলাফেরার অনুমতি দেন।

ইউক্রেনের এই সাবেক প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে অভিযোগ, দেশটির পূর্বাঞ্চলে রাশিয়াপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের আর্থিক সহায়তা দিতে ২০১৪ থেকে ২০১৫ সালে অবৈধভাবে কয়লা বিক্রির সঙ্গে জড়িত তিনি। 

ইউক্রেন   সাবেক প্রেসিডেন্ট   দেশত্যাগ   বাঁধা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে গিয়ে কয়লা সঙ্কটে ভারত

প্রকাশ: ০৯:৫৮ এএম, ২৯ মে, ২০২২


Thumbnail বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে গিয়ে কয়লা সঙ্কটে ভারত

ভয়াবহ কয়লা সংকটে পড়তে যাচ্ছে ভারত। বিদ্যুৎ উৎপাদনে দেশটিতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় কয়লা। বিদ্যুতের অত্যধিক চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে কয়লার এই সংকটের সম্ভাবনা দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। 

গত ছয় বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় সংকট এড়াতে ২০১৫ সালের পর প্রথমবারের মতো কয়লা আমদানি করতে যাচ্ছে কোল ইন্ডিয়া লিমিটেড (সিআইএল)। সম্প্রতি কয়লা আমদানি বাড়াতে ভারত সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থার উপর চাপ বাড়িয়েছে। রাজ্য সরকারগুলোর মালিকানাধীন বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো যদি আমদানির মাধ্যমে কয়লার মজুদ গড়ে না তোলে তাহলে স্থানীয়ভাবে উত্তোলিত কয়লা সরবরাহ কমিয়ে দেওয়ারও হুমকিতে তারা। 

ভয়াবহ বিদ্যুৎ সংকট কাটিয়ে উঠতে সরকারি-বেসরকারি কোম্পানিগুলোকে জুন মাসের মধ্যে এক কোটি ৯০ লাখ টন কয়লা আমদানি করার সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে ভারত সরকার।  

গত এপ্রিলের পর থেকে ভারতে কয়লার মজুদ ১৩ শতাংশ করে কমেছে। গত নয় বছরের মধ্যে এ সময়ে এটি সর্বনিম্ন মজুদ। ঊর্ধ্বমুখী বিদ্যুৎ চাহিদা মজুদ বাড়ানোর প্রচেষ্টাকে চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছে। ফলে কয়লা আমদানি দেশটির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে পরিণত হয়েছে।

যদিও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্বজুড়ে এমনিতেই জ্বালানিটির সরবরাহ সীমিত। এ কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্য বর্তমানে রেকর্ড সর্বোচ্চ দামে লেনদেন হচ্ছে। ফলে আমদানির মাধ্যমে চাহিদা মেটাতেও হিমশিম অবস্থার মধ্যে পড়তে পারে ভারত।

২৮ মে একটি চিঠি ইস্যু করে দেশটির বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, কোল ইন্ডিয়া কোম্পানি সরকার-থেকে-সরকার-(জিটুজি) প্রকল্পের মাধ্যমে কয়লা আমদানি করবে এবং রাষ্ট্রীয় ও স্বাধীনভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতে সরবরাহ করবে। এই চিঠি কয়লাবিষয়ক সেক্রেটারি, কোল ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যানসহ সমস্ত ইউটিলিটি, শীর্ষ কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে বিদ্যুতের চাহিদা অনুযায়ী ভারতের কয়লা দরকার ১৯ কোটি ৭৩ লাখ টন, কিন্তু অভ্যন্তরীণ কয়লা সরবরাহ ১৫ কোটি ৪৭ লাখ টনের বেশি হবে না। এই পরিসংখ্যান বলছে, কয়লার ঘাটতির পরিমাণ তাহলে ৪ কোটি ২৫ লাখ টন।

তীব্র দাবদাহের কারণে বছরের এপ্রিল মাসে ভারতে রেকর্ড পরিমাণে বিদ্যুৎ চাহিদা বেড়ে যায়। পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে না পারায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা বিদ্যুতহীন থাকতে বাধ্য হন দেশটির মানুষ। বিভিন্ন রাজ্যে বিদ্যুৎ সংকট সামাল দিতে একপর্যায়ে কর্তৃপক্ষ নিয়মিত যাত্রীবাহী ট্রেন বাতিল করে কয়লা পরিবহনে নিয়োগ করতে বাধ্য হয়। ছয় বছরের বেশি সময়ে সবচেয়ে তীব্র এ বিদ্যুৎ সংকট ভারত সরকারকে কয়লা আমদানি কমানোর নীতি থেকে পিছু হটতে বাধ্য করছে। 


কয়লা   ভারত   বিদ্যুৎ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন