ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইমরানের আজাদি মার্চ স্থগিত, জনমনে বিস্ময় ও সংশয়

প্রকাশ: ১১:৩৪ এএম, ২৯ মে, ২০২২


Thumbnail ইমরানের আজাদি মার্চ স্থগিত, জনমনে বিষ্ময় ও সংশয়

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বৃহস্পতিবার (২৬মে) হঠাৎ করেই 'হাকিকি আজাদি মার্চ' কর্মসূচি সমাপ্তি ঘোষণা করেন। এতে বিস্ময় প্রকাশ করে অনেকেই। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আজাদি মার্চ থেকে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচিতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন ইমরান খান। কিন্তু হঠাৎ তাঁর এই সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কারণ খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছে দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন। 

তবে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণায় ক্ষমতাসীন জোটকে ছয় দিনের সময় বেঁধে দিয়েছেন পিটিআই চেয়ারম্যান। অন্যথায় পরবর্তী সময় আরও বেশি লোকজন নিয়ে রাজধানীতে ফিরে আসার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

অবশ্য হঠাৎ এই কর্মসূচী থেকে সরে আসায় তৈরি হয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা। অনেকে এর মধ্যে সমঝোতার আভাসও পাচ্ছেন। একইসাথে সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপের বিষয়টিও গুঞ্জনের পালে হাওয়া দিচ্ছে। 'আজাদী মার্চ' রাজধানীমূখী না হয়ে সমাবেশে সীমাবদ্ধ থাকার পেছনে সেনাবাহিনীর কলকাঠি দায়ী বলে ধারণা করা হচ্ছে বিভিন্ন মহলে। 

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, সরকার-পিটিআই মুখোমুখি অবস্থান নেওয়ায় চাপ বাড়তে থাকে। শক্তিশালী স্টেকহোল্ডারদের কাছে স্পষ্ট বার্তা পৌঁছে দেওয়া হয়েছিল—এমন পরিস্থিতিতে অর্পিত দায়িত্বের বিষয়ে পুরোপুরি সজাগ থেকে দীর্ঘ সময় ধরে তারা নীরব দর্শক হয়ে থাকতে পারেন না।

বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউনকে বলে, প্রতিষ্ঠানগুলোর অতীত ভূমিকার বিষয়ে নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়ার ক্ষেত্রে সব রাজনৈতিক দলের মনোভাব একই। একমাত্র পার্থক্য হলো রাজনৈতিক দলগুলো আর একই অবস্থানে নেই। সূত্রটি বলছে, আস্থার সংকট রয়েছে। এই মুহূর্তে কেউ কাউকে বিশ্বাস করছে না।

সাধারণ নির্বাচনের বিষয়ে সূত্রটি বলেছে, সেনাপ্রধানের অবসরে যাওয়ার এক মাস আগে চলতি বছরের অক্টোবরেই নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাবনা প্রবল। স্পিকারের দপ্তরেই এ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। নির্বাচনের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করতে সেখানে আরও দর-কষাকষি হতে পারে। 

তড়িঘড়ি করে কর্মসূচি সমাপ্ত ঘোষণার বিষয়ে পিটিআইয়ের একজন নেতা বলেন, এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন ইমরান। এর পেছনে বাস্তব কারণ ছিল। তিনি বলেন, যাহোক, সব স্টেকহোল্ডারের স্বার্থই রক্ষা হয়েছে, যাকে ‘উইন-উইন সিচুয়েশন’ বলা যেতে পারে। সমাবেশের উপস্থিতি প্রসঙ্গে তাঁরা বলেন, ‘কখনো সংখ্যাটা মুখ্য, কখনো প্রতীকী বার্তা; গত রাতের (বুধবার রাত) সমাবেশ ছিল অনেকটাই প্রতীকী।’

আরেক পিটিআই নেতা বলেন, দীর্ঘ সময় ধরে নেতা-কর্মীদের অবস্থান কর্মসূচিতে রাখার কোনো ধরনের প্রস্তুতি ছিল না। ব্যাপক জনসমাগমে সরকার বিচলিত হতে পারে, এমন আশঙ্কার বিষয়ও ছিল। এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে অবস্থান কর্মসূচিতে না গিয়ে শুধু শক্তি প্রদর্শনের সিদ্ধান্তে যায় পিটিআই।

ওই নেতা আরও বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিশেষ করে, সেনাবাহিনীর সঙ্গে নেতা-কর্মীরা সংঘর্ষে জড়াতে পারেন, এমন আশঙ্কা থেকে তড়িঘড়ি করে কর্মসূচি শেষ করে দেন ইমরান। তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, কয়েক হাজার মানুষের রাজনৈতিক ও গণতান্ত্রিক অধিকার চর্চা ঠেকাতে কারা সেনাবাহিনীকে ডেকে এনেছে। এটা ছিল জনগণকে সেনাবাহিনীর মুখোমুখি করার চেষ্টা।

ছয় দিন পর কর্মসূচিতে ফেরার বিষয়ে এই পিটিআই নেতা বলেন, কর্মসূচিতে ফেরার সিদ্ধান্ত এখন পর্যন্ত বহাল। পরবর্তী রাজনৈতিক জমায়েতে সর্বোচ্চ আদালত প্রতিবন্ধকতা তৈরি করবেন না বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছে। এটি পিটিআইকে আরও স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ করে দেবে।

ইমরানের বক্তব্যের প্রতি ইঙ্গিত করে সূত্রটি বলেছে, জনগণ সুপ্রিম কোর্টের দিকে তাকিয়ে আছে, যেখানে বিশ্বের কোথাও শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অনুমোদন অস্বীকার করা হয় না বলে তিনি বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

জাতীয় পরিষদে অনাস্থা ভোটে হেরে গত ৯ এপ্রিল ক্ষমতা থেকে বিদায় নেন ইমরান খান। এরপর নতুন নির্বাচনের দাবিতে চাপ সৃষ্টির জন্য দেশজুড়ে একের পর এক সমাবেশ করেন তিনি। সবশেষ ২৫ মের আজাদি মার্চ ছিল নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা না করা পর্যন্ত কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার অংশ। যদিও শেষ পর্যন্ত সেটা হয়ে ওঠেনি।
যাহোক, লংমার্চ ও আলটিমেটামের একটি অর্জন হলো—বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনার দরজা খোলা রয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের ঘোষণা।

আজাদি মার্চ   পাকিস্তান   ইমরান খান  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

রাশিয়ার বিরুদ্ধে হিমার্স ব্যবহার শুরু করেছে ইউক্রেন

প্রকাশ: ১০:১২ পিএম, ২৫ Jun, ২০২২


Thumbnail রাশিয়ার বিরুদ্ধে হিমার্স ব্যবহার শুরু করেছে ইউক্রেন

যুক্তরাষ্ট্রের সরবরাহকৃত হিমার্স রকেট সিস্টেম ব্যবহার শুরু করছে ইউক্রেন।  রাশিয়ার দখলকৃত ইউক্রেনীয় ভূখণ্ডের বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে মার্কিন রকেট ব্যবস্থা আঘাত হেনেছে। 

টেলিগ্রামে দেওয়া এক পোস্টে এ তথ্য জানিয়েছেন ইউক্রেনের জেনারেল স্টাফের প্রধান ভ্যালেরি জালুঝনি।  

শনিবার (২৫ জুন) কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরা এ তথ্য জানিয়েছে।

রাশিয়ার রকেট ব্যবস্থার মোকাবিলায় মার্কিন হিমার্স ব্যবস্থা প্রয়োজন বলে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে দীর্ঘদিন ধরে চাহিদা জানিয়ে আসছিল ইউক্রেন। কিয়েভ মনে করে, এই ব্যবস্থা দিয়ে দোনবাসে রুশ বাহিনীর অগ্রগতি ঠেকানো সম্ভব।

দূরপাল্লার এই ক্ষেপনাস্ত্র সরবরাহে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। সেই প্রতিক্রিয়াকে আমলে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনকে শর্ত দিয়েছিল, এই ক্ষেপনাস্ত্র রাশিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবহার করার যাবে না।

গত বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) ইউক্রেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওলেক্সি রেজনিকভ যুক্তরাষ্ট্রের দেওয়া হাই মোবিলিটি আর্টিলাটি রকেট সিস্টেমস (হিমার্স) তার দেশে পৌঁছানোর খবর জানিয়েছিলেন।

ইউক্রেন   হিমার্স   রাশিয়া  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

বেলারুশ থেকেও হামলা শুরু হয়েছে: ইউক্রেনের দাবি

প্রকাশ: ০৯:৫১ পিএম, ২৫ Jun, ২০২২


Thumbnail বেলারুশ থেকেও হামলা শুরু হয়েছে: ইউক্রেনের দাবি

রাশিয়ার মিত্র দেশ বেলারুশ থেকেও হামলা হয়েছে বলে দাবি করেছে ইউক্রেনের সেনাবাহিনী।

শনিবার কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরা এ তথ্য জানিয়েছে।

ইউক্রেনের উত্তরাঞ্চলীয় সামরিক কমান্ড বলেছে, শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ৫টা নাগাদ চেরনিহিভ অঞ্চলে বেলারুশ থেকে রকেট ছোড়া হয়েছে। আকাশ থেকে দেসনা গ্রামকে লক্ষ্য করে ২০টি রকেট নিক্ষেপ করা হয়েছে।

এদিকে, রাশিয়াও আজ ব্যাপক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে বলে জানিয়েছে ইউক্রেন। ইউক্রেনের সেনাবাহিনী বলেছে, বিভিন্ন সামরিক স্থাপনা লক্ষ্য করে এ হামলা চালানো হয়েছে।

ইউক্রেনের সামরিক কর্মকর্তারা বলেছেন, গতকাল শুক্রবার থেকে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের লুহানস্ক অঞ্চলের সেভেরোদোনেৎস্ক ও লিসিচানস্ক শহরে ব্যাপক হামলা শুরু করেন রুশ সেনারা। এ শহর দুটি দখলে ব্যাপক গোলাবর্ষণের পাশাপাশি বিমান হামলাও জোরদার করা হয়েছে। সেখানে একটি রাসায়নিক কারখানা গুঁড়িয়ে দিয়েছেন তারা। ওই কারখানায় অনেক বেসামরিক লোকজন আটকে ছিলেন।

আজকের হামলা প্রসঙ্গে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের পরামর্শক মাইখাইলো পোডোলিয়াক টুইটারে বলেছেন, ‘রাতে ৪৮টি ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র পুরো ইউক্রেনে নিক্ষেপ করেছে রুশ বাহিনী। তারা এখনো ইউক্রেনকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করে যাচ্ছে। ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করে আতঙ্ক সৃষ্টি ও মানুষকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করছেন রুশ সেনারা।’

সূত্র: আল-জাজিরা।


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

জ্বালানি ও বিদ্যুতের তীব্র সংকটের মুখে পাকিস্তান

প্রকাশ: ০৯:৪৭ পিএম, ২৫ Jun, ২০২২


Thumbnail জ্বালানি ও বিদ্যুতের তীব্র সংকটের মুখে পাকিস্তান

প্রাকৃতিক গ্যাসের সরবরাহে অস্থিরতা তৈরি হওয়ায় পাকিস্তানের জ্বালানি ও বিদ্যুৎ সংকট দিন দিন তীব্রতর হচ্ছে। দেশটি প্রাকৃতিক গ্যাসের আমদানির ক্ষেত্রে এখনো কোনো চুক্তিতে পৌঁছাতে পারেনি বলে জানিয়ে বার্তাসংস্থা জিও নিউজ। 

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, পাকিস্তান এলএনজি লিমিটেড তরল প্রাকৃতিক গ্যাস কেনার জুলাইয়ের একটি টেন্ডার বাতিল করেছে।

চলতি মাসে টানা তিনবার পাকিস্তান এলএনজি আমদানির চুক্তিতে পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়েছে। জ্বালানি আমদানিতে অদক্ষতার পরিচয় দেওয়ায় এরই মধ্যে বিদ্যুতের ঘাটতি দেখা দিয়েছে। তাছাড়া সম্প্রতি দেশটিতে শীততাপ যন্ত্রের ব্যবহারও বেড়েছে। এতে অধিক জ্বালানির প্রয়োজন হচ্ছে।

এলএনজির আমদানির বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে দেশটির জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জাকারিয়া আলি শাহ বলেন, আমরা বিকল্প কৌশলের চিন্তা ভাবনা করছি। পাকিস্তানে বর্তমানে কোনো জ্বালানি ঘাটতি নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে পাকিস্তানের সরকার জ্বালানির সংরক্ষণ বাড়ানোর চেষ্টা করছে। দেশটি এরই মধ্যে সরকারি চাকরিজীবীদের কাজের সময় কমিয়েছে। তাছাড়া করাচিসহ অন্যান্য শহরের শপিংমল ও কারখানা খোলা রাখার সময়ও কমানো হয়েছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ বিদ্যুৎ বিভ্রাট কামতে আরও পদক্ষেপ নেওয়া আহ্বান জানিয়েছেন। অন্যদিকে বিরোধীশিবিরে বলা হচ্ছে দেশটি শ্রীলংকার মতো পরিণতি বরণ করাতে যাচ্ছে।

পাকিস্তান   জ্বালানি   বিদ্যুৎ   সংকট  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইউক্রেনে তিন দিক থেকে রাশিয়ার ক্ষেপনাস্ত্র হামলা

প্রকাশ: ০৯:৩১ পিএম, ২৫ Jun, ২০২২


Thumbnail ইউক্রেনে তিন দিক থেকে রাশিয়ার ক্ষেপনাস্ত্র হামলা

ইউক্রেনের বিভিন্ন অঞ্চলে দেশটির সামরিক স্থাপনা লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে রাশিয়া। ইউক্রেনের উত্তর, পশ্চিমের পাশাপাশি দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায়  শনিবার (২৫ জুন) ইউক্রেনের কর্মকর্তারা এই তথ্য জানিয়েছেন। 

দেশটির সরকারি এক কর্মকর্তা বলেছেন, শুক্রবার (২৪ জুন) পূর্ব লুহানস্ক অঞ্চলের সেভেরোদনেৎস্ক এবং লিসিচানস্কের শহরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করেছে রাশিয়া। সেখানকার একটি রাসায়নিক কারখানা ধ্বংস হয়ে গেছে। এতে শহরের শত শত বেসামরিক নাগরিক আটকা পড়েছেন।

এক টুইট বার্তায় ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা মিখাইলো পোডোলিয়াক বলেছেন, রাতভর পুরো ইউক্রেনে ৪৮টি ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে রুশ সৈন্যরা। রাশিয়া এখনও ইউক্রেনকে ভয় দেখাতে, আতঙ্ক সৃষ্টি করতে চাইছে। মানুষকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করছে।

এদিকে সেভেরোদনেৎস্কে রাশিয়ার হামলা তীব্র হওয়ায় সৈন্যদের শহরটি ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে ইউক্রেন। গত মে মাসে মারিউপোল শহরের নিয়ন্ত্রণ হারানোর পর এবার সেভেরোদনেৎস্ক থেকেও পিছু হটলো দেশটি।

প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন রাশিয়ার সৈন্যদের ইউক্রেন সীমান্তে মোতায়েনের নির্দেশ দেওয়ার চার মাস পর সেভেরোদনেৎস্ক থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করল ইউক্রেন। রাশিয়ার চলমান এই যুদ্ধে হাজার হাজার মানুষের প্রাণহানি এবং লাখ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন।

রাশিয়ার সাম্প্রতিক এই অভিযানে লুহানস্কের পুরো নিয়ন্ত্রণ মস্কোর হাতে চলে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইউক্রেনের লিসিচানস্ক শহর রাশিয়ার পরবর্তী লক্ষ্য হতে পারে।

ইতোমধ্যে দেশটির দুই বন্দর শহর খেরসন ও মারিউপোল, দনেৎস্ক প্রদেশের শহর লিয়াম এবং মধ্যাঞ্চলীয় প্রদেশ জাপোরিজ্জিয়ার আংশিক এলাকার পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ চলে গেছে রুশ বাহিনীর হাতে। এই তালিকায় এবার যুক্ত হতে যাচ্ছে সেভেরোদনেৎস্ক।

ইউক্রেন   রাশিয়া   ক্ষেপণাস্ত্র  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

বিশ্ব গণমাধ্যমের শিরোনামে পদ্মা সেতু

প্রকাশ: ০৮:৩৮ পিএম, ২৫ Jun, ২০২২


Thumbnail বিশ্ব গণমাধ্যমের শিরোনামে পদ্মা সেতু

সব জল্পনা-কল্পনা পেছনে ফেলে পদ্মার বুকে বাস্তবে ধরা দিল বহুল কাঙ্খিত পদ্মা সেতু। খরস্রোতার এপার ওপার এক সেতুবন্ধনে আবদ্ধ হলো। স্বপ্নসত্যির এই মাহেদ্রক্ষণে শনিবার (২৫ জুন) বর্ণিল উৎসবের মধ্য দিয়ে দেশের দীর্ঘতম ও বহুল প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

বিরল ও ঐতিহাসিক এই দিনটিতে বাংলাদেশের সাহসী এই পদক্ষেপের প্রশংসায় পঞ্চমুখ বিশ্ব মিডিয়া। আন্তর্জাতিক সব গণমাধ্যমের খবরের শিরোনাম হয়েছে বাংলাদেশের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের খবর। 

মার্কিন বার্তা সংস্থা এসোসিয়েট প্রেস (এপি) এর শিরোনাম ছিল ‘বাংলাদেশের দীর্ঘতম সেতুর উদ্বোধন’। এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার দেশের দীর্ঘতম সেতুর উদ্বোধন করেছেন। রাজনৈতিক সংঘাত আর দুর্নীতির অভিযোগের মধ্যে এই সেতু তৈরি করতে সময় লেগেছে আট বছর।

এপি লিখেছে, জনসাধারণের জন্য রোববার খুলে দেওয়া হবে সেতুটি। এর মাধ্যমে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমুদ্রবন্দর মোংলার দূরত্ব ১০০ কিলোমিটার কমে যাবে।

ঢাকা থেকে ৩১ কিলোমিটার দূরে মাওয়া প্রান্তে সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘এই সেতু বাংলাদেশের জনগণের। এটি আমাদের আবেগ, সৃজনশীলতা, সাহস, সহনশীলতা এবং অধ্যবসায়ের ফল।’

ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি পদ্মা সেতুর উদ্বোধন নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলেছে, দুর্নীতির অভিযোগ, মানব বলির গুজব ছড়িয়ে পিটুনির মাধ্যমে হত্যাকাণ্ডসহ নানা ঘটন-অঘটনের পর শনিবার রাজধানী ঢাকার কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ সেতু খুলে দিয়েছে বাংলাদেশ।

আনুষ্ঠানিকভাবে দেশটির দীর্ঘতম পদ্মা বহুমুখী সেতুর উদ্বোধন করা হয়েছে। নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার প্রায় আট বছর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি মূল অবকাঠামো নির্মাণের লক্ষ্য পূরণ হয়েছে।

এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের এই প্রকল্পে কর্মকর্তাদের ঘুষের অভিযোগে কানাডিয়ান ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্ম এসএনসি-লাভালিনকে এক দশকের জন্য বিশ্বব্যাংকের প্রকল্পে দরপত্রে অংশ নেওয়া থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত কানাডার প্রসিকিউটররা এই কোম্পানির নির্বাহীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগের প্রমাণ পাননি।

পদ্মা সেতুতে মানুষের মাথা বলি দিতে হবে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এমন গুজব ছড়িয়ে ২০১৯ সালে বাংলাদেশে ৮ জনকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ ধরনের নানা ঘটনার পর বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের জনগণের দীর্ঘদিনের এক স্বপ্নের দুয়ার খুলেছে শনিবার।

‘বাংলাদেশের দীর্ঘতম রেল-সড়ক সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

এতে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার দেশের দীর্ঘতম এবং সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত বহুল প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেছেন। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ চার লেনের সড়ক-রেল সেতুটি রাজধানী এবং অন্যান্য অঞ্চলের সাথে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সংযোগকারী পদ্মা নদীর ওপর নির্মাণ করা হয়েছে।

বহুমুখী সড়ক-রেল সেতুটি বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে। এনডিটিভি লিখেছে, বাংলাদেশের এই সেতুর উদ্বোধন অনেক তাৎপর্য বহন করে। অনেক অর্থনৈতিক বিশ্লেষক বাংলাদেশের নিজস্ব অর্থায়নে সেতু নির্মাণের সক্ষমতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করলেও তা উড়িয়ে সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে।

সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কারও বিরুদ্ধে আমার কোনও অভিযোগ নেই। তবে আমি মনে করি যারা পদ্মা সেতু নির্মাণ পরিকল্পনার বিরোধিতা করেছেন এবং এটাকে ‘পাইপ ড্রিম’ বলেছিলেন, তাদের আত্মবিশ্বাসের অভাব রয়েছে। আমি আশা করি এই সেতু তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়াবে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া ট্যুডে বলছে, শনিবার পদ্মা নদীর ওপর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার রেল-সড়ক সেতুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মাধ্যমে বাংলাদেশের বিশাল পরিবর্তনের গল্পের শুরু হয়েছে। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভের পর এটি বাংলাদেশের এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো প্রকল্প।

এছাড়াও ভারতের টাইমস অব ইন্ডিয়া, হিন্দুুস্তান টাইমস, আনন্দবাজার, দ্য হিন্দু, মধ্যপ্রাচ্যের গালফ নিউজ, খালিজ টাইমস, মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমে বাংলাদেশের বৃহত্তম পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের খবর প্রকাশ করা হয়েছে। 

এদিকে শনিবার (২৫ জুন) কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা লিড শিরোনাম করেছে ‘পদ্মা সেতু: জ্বলে পুড়ে-মরে ছারখার, তবু মাথা নোয়াবার নয়! পদ্মা সেতু উদ্বোধনে হাসিনার কণ্ঠে সুকান্ত’। এমনকি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি তাদের ফেসবুক পেজে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়েছে। 

ভারতের আরেক সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের বাংলা সংস্করণও লাইভ আপডেট জানিয়েছে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের। স্মারক নোট প্রকাশ থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রীর টোল পরিশোধের খবর ধারাবাহিকভাবে উঠে এসেছে তাদের প্রতিবেদনে।

সংবাদ প্রতিদিন লিখেছে, ‘শত বাধা পেরিয়ে তৈরি স্বপ্নের পদ্মা সেতু, বাংলাদেশকে অভিনন্দন আমেরিকা ও চীনের’।

ইটিভি ভারতের শিরোনামে বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশ পদ্মা সেতু: ঢাকা-কলকাতা আরও কাছাকাছি, বহু প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতু উদ্বোধনে শেখ হাসিনা’।

এবিপি আনন্দ লিখেছে, ‘সড়কপথে এপার বাংলা থেকে ওপার বাংলায় পৌঁছানোর দূরত্ব কমাবে পদ্মা সেতু’।

প্রতিবেদনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নপূরণের কথা উল্লেখ করেছে ভারতের টাইমস গ্রুপের বাংলা সংবাদমাধ্যম এই সময়। তাদের শিরোনাম, ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণ, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা’। সেতুটি নির্মাণে কত খরচ হয়েছে তা নিয়ে আরেকটি প্রতিবেদন করেছে তারা।

কলকাতার জাতীয় দৈনিক আজকালের শিরোনাম, ‘বাংলাদেশ আজ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে বিশ্বের বুকে: শেখ হাসিনা’।

বার্তা সংস্থা এএনআই লিখেছে, বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষের স্বপ্ন সত্য হলো: পদ্মা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’। দ্য ইকোনমিক টাইমস এবং টাইমস অব ইন্ডিয়াও একই খবর প্রকাশ করেছে।

দ্য হিন্দু পত্রিকা শিরোনাম করেছে, ‘বাংলাদেশের দীর্ঘতম সেতু খুললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’।

বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের শিরোনাম, ‘পদ্মা সেতু উদ্বোধন করলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বললেন স্বপ্ন সত্য হয়েছে’।

বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের খবরের শিরোনাম, বাংলাদেশের দীর্ঘতম সেতুর উদ্বোধন হয়েছে। তাদের এই খবর প্রকাশ করেছে এবিসি নিউজ, টরন্টো স্টারের মতো বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম।

সিঙ্গাপুরভিত্তিক দৈনিক দ্য স্ট্রেইট টাইমস শুক্রবার পদ্মা সেতু নিয়ে বিশদ এক প্রতিবেদন করেছে। তাদের শিরোনাম, ‘বিদেশি ঋণের ফাঁদ, আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বিতা এড়িয়েছে বাংলাদেশের নতুন সেতু’।

পদ্মা সেতু   বিশ্ব গণমাধ্যম  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন