ইনসাইড আর্টিকেল


শহীদ আসাদ দিবস আজ

আজ বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) শহীদ আসাদ দিবস। ১৯৬৯ সালের এই দিনে পাকিস্তানি স্বৈরশাসক আইয়ুব খান সরকারের বিরুদ্ধে গণআন্দোলনকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজের সামনের সড়কে পুলিশের গুলিতে শহীদ হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অকুতোভয় এই ছাত্রনেতা। সেই থেকে দিনটি শহীদ আসাদ দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। এই দিনটি বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাসে একটি তাৎপর্যপূর্ণ দিন...

আরো পড়ুন...
অনলাইন উপর্জনই হতে পারে টেকসই কর্মক্ষেত্র

বর্তমান কাজের নতুন নতুন দিগন্ত উন্মোচন করছে অনলাইন। ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে উপার্জন করার সুযোগ তৈরি করে দিচ্ছে। আর তাই ঘরে বসেই ইন্টারনেট ব্যাবহারের মাধ্যমে বিভিন্ন ভাবে বা উপায়ে উপার্জন করছে অনেকে। কিন্তু অনলাইনে যেমন উপার্জন করার বিভিন্ন মাধ্যম রয়েছে ঠিক তেমনি রয়েছে ফাঁদে ফেঁসে যাওয়ার ভয়। তাই অনলাইনে উপার্জন করার জন্য বাছাই করুন সঠিক প্ল্যাটফর্মটি...

আরো পড়ুন...
১৮ জানুয়ারি ১৯৭২: বঙ্গবন্ধুর ক্যান্টনমেন্ট পরিদর্শন

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিজ বাসবভন থেকে গ্রেফতার করেন। তারপর তাঁকে এক সপ্তাহ ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে আটকে রাখেন। পাকিস্তানের বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেয়ে ১৯৭২ সালের ১৮ জানুয়ারি সেই ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট পরিদর্শনে যান জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু ক্যান্টনমেন্ট পরিদর্শনের সময় মিত্রবাহিনীর

আরো পড়ুন...
যে বিষয়গুলি কর্মক্ষেত্রে আপনাকে এগিয়ে রাখবে

ক্যারিয়ারে এগিয়ে যাওয়ার জন্য আপনাকে অধিক দক্ষশীল হতে হবে, নিজেকে সানের দিকে ধাক্কা দিতে হবে। নতুন কিছু শেখার প্রতি আগ্রহ থাকতে হবে এবং শেখার পাশাপাশি অনুশীলন করা গুরুত্বপূর্ন ক্যারিয়ারের জন্য। অনুশীলনের মাধ্যমে নিজের সূক্ষ্ম ক্ষমতা গুলি ধীরে ধীরে আরও উন্নত করতে হবে...

আরো পড়ুন...
কিংবদন্তী কমিউনিস্ট নেতা জ্যোতিষ বসুর মৃত্যুবার্ষিকী

এই রাজনীতিবিদ জ্যোতিষ বসু ২০১০ সালে ১৭ জানুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন। এক শিক্ষিত উচ্চবিত্ত পরিবারে তাঁর জন্ম। বাবা নাম নিশিকান্ত বসু এবং মায়ের নাম হেমলতা বসু। এই কিংবদন্তির বাবা পেশায় ডাক্তার ছিলেন। ডাক্তার নিশিকান্ত বসু ও হেমলতা বসুর তৃতীয় সন্তান জ্যোতিষ বসু। জন্মের পর তাঁর নাম রাখা হয় জ্যোতিকিরণ বসু। স্কুলে ভর্তির সময় তাঁর নাম থেকে 'কিরণ' শব্দটি ছেঁটে দেওয়া হয়...

আরো পড়ুন...

কমিউনিটি কেন্দ্র নিয়ে নারী উদ্যোক্তা আন্নির ছুঁটে চলা

একজন মা হিসেবে আমি দেশের প্রচলিত ধারার যে কোনো সুপারশপে গিয়ে একটা দ্বিধার মধ্যে পরে যেতাম। এমনও হয়েছে কিছু কেনাকাটা করতে বের হয়েছি। সঙ্গে বাচ্চা আছে, সে ঘুমিয়ে পড়েছে। আমরা বাসায় চলে এসেছি...

আরো পড়ুন...
নবাব সলিমুল্লাহর ১০৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী

পূর্ববাংলার মানুষের অধিকার ও স্বার্থ আদায়ে বিশ শতকের গোঁড়ার দিকে যিনি নেতৃত্বের হাল ধরেন, তিনি হলেন নওয়াব স্যার সলিমুল্লাহ। আজ জাতীয় ইতিহাসের অন্যতম রূপকার নবাব স্যার সলিমুল্লাহর ১০৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী...

আরো পড়ুন...
ছুটির দিনে যেভাবে যেখানে ঘুরতে যেতে পারেন

কর্মব্যস্ত মানুষের জীবনে সাপ্তাহিক ছুটি থাকে একদিন কিংবা দুই দিন। এই ছুটি কর্মব্যস্ত মানুষের মনে উৎসবের আমেজ তৈরি করে এবং সপ্তাহের কর্মদিবসে কাজের শক্তি জুগিয়ে মনকে রাখে প্রফুল্ল। ছুটির দিনে অনেকেই বাসায় বসে বই পড়ে, রান্না করে, মুভি দেখে কাটাতে পছন্দ করেন। অনেকে আবার ঘরে না থেকে ঘুরতে পছন্দ করেন। যারা ছুটির দিনে ঘরে বসে বোরিং সময় কাটাতে চান না তাদের অনেকেই পরিবার নিয়ে ঘুরতে বের হয়, আবার অনেকেই বন্ধু-বান্ধবদের সাথে...

আরো পড়ুন...
ঐতিহ্যে আধুনিকতার ছোঁয়া

আমাদের দেশের ঐতিহ্যের আরেক নাম জামদানি। এই জামদানি প্রাচীনকালের মিহি মসলিন কাপড়ের উত্তরাধিকারী হিসেবে বাঙ্গালী নারীদের অতি পরিচিত। মসলিনের উপর নকশা করে তৈরি করা হয় জামদানি কাপড়। নকশি কাঁথার মতোই আজ জামদানি শাড়ি বাংলার অনিবার্য সংস্কৃতির প্রতীক। শুধু বাংলার নয়, মুঘল-পারসিক ঐতিহ্যের এক সুন্দর নান্দনিক উত্তরাধিকার বলা হয় এই জামদানিকে...

আরো পড়ুন...
বিপ্লবী ব্রিটিশ বিরোধী মাস্টারদা’র মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ব্রিটিশ ভারতের প্রখ্যাত বিপ্লবী। চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠনসহ বহুবিধ বিপ্লবের অধিনায়ক মাস্টারদা সূর্যসেনের ৮৯তম মৃত্যু বার্ষিকী আজ। সূর্য সেনের পুরো নাম সূর্য কুমার সেন। কিন্তু সূর্য সেন নামেই বেশি পরিচিত তিনি। তবে সহকর্মী বা সহ যোদ্ধাদের কাছে পরিচিত মাস্টার দা হিসেবে। ১৯৩৪ সালের আজকের এই দিনে আগ্নেয়াস্ত্র রাখার অপরাধে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়...

আরো পড়ুন...
সাফারি পার্কে বাঘ-ভাল্লুকের সাথে একদিন

কর্ম ব্যস্ত জীবনে একটু বিনোদনের জন্য বাঘ ভাল্লুকের সাথে সময় কাটাতে চাইলে চলে যান বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে। একদিনে ঘুরে আসুন ঢাকার অদূরে গাজীপুর জেলার শ্রীপুর জেলায় অবস্থিত সাফারি পার্কে। সেখানে গেলে বন্যপ্রাণীদের সাথে দেখা হওয়ার পাশাপাশি সবুজ প্রকৃতিতে হাড়িয়ে যেতে পারবেন...

আরো পড়ুন...
শীতের গোলাপ রাজ্য

ফুল পছন্দ করে না এমন মানুষ খুব কমই পাওয়া যাবে। আর সেটা যদি হয় ফুলের রানী গোলাপ ফুল। আমাদের দেশে অনেক ফুলই আছে তাঁর মধ্যে গোলাপ ফুল অন্যতম এবং পরিচিত। এই ফুল চিনে না এমন একজনও পাওয়া যাবে না, সেটা হোক দেশে বা দেশের বাইরে। এর জন্যই হয়তো গোলাপকে ফুলের রানী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। সকল ধরনের শুভ কাজ, শুভেচ্ছা, স্বাগত, বা বিভিন্ন বড় ধরনের অনুষ্ঠানে আর কোন ফুল দেখেন বা আনা দেখেন গোলাপ ফুলের আধিপত্য সর্বস্তরে।

আরো পড়ুন...
শীতের চাঁদরে মুড়ানো গ্রাম বাংলা

ভোরের ঘন কুয়াশার চাঁদর সরিয়ে দূর দিগন্তে লাল টুকটুকে সূর্যের আবির্ভাব। শিশিরে ভেজা ধানের শীষ আর ফুলের কলিতে মৌমাছির মধু আহরণ। এ সবই যেন শীতের সকালে গ্রাম বাংলার চির পরিচিত এক রূপ। শহরের মতো গ্রাম বাংলায় ধোঁয়া আর কুয়াশা মিলে ‘ধোঁয়াশা’ জমাট বাঁধে না। বরং গ্রামকে পরম মমতায় জড়িয়ে রাখে গাঁঢ়, নিশ্ছিদ্র কুয়াশার চাদর। টুপটাপ শিশির ঝরে পড়ার শব্দ পাওয়া যায় টিনের চালে। মনে হয় যেনো গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি পড়ছে আর ছন্দ তৈরি করছে।

আরো পড়ুন...
ঝাঁকে ঝাঁকে এলো অতিথি পাখি

শীত আসলেই অতিথি পাখিদের আগমন ঘটে আমাদের দেশে। শহুরে প্রকৃতিতে ষড়ঋতুর ঠাঁই না হলেও ঢাকা এবং ঢাকার বাইরের কিছু কিছু জায়গাতে প্রতিটি ঋতু সাজে প্রকৃতির বর্ণিল রূপে। তাঁর মধ্যে রয়েছে ঢাকার অদূরে জাবি ক্যাম্পাস এবং ঢাকার বাইরে সিলেটের বাইক্কা বিলের মত কিছু কিছু জায়গা। শীত এলেই ঝরাপাতার...

আরো পড়ুন...
ঐতিহ্যে ঘেরা গয়না গ্রাম ‘ভাকুর্তা’

১৫০ বছরের পুরোনো গ্রাম ভাকুর্তা । এ গ্রামের প্রতিটি ঘরের উঠোন, দরজা, ঘরের ভিতরজুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে অলঙ্কার তৈরির সরঞ্জাম। বেশিরভাগ বাড়ির বারান্দায় উজ্জ্বল আলোয় উঁকি দিচ্ছে আগুনের ফুলকি। পুরো গ্রামেই চলছে এ কর্মযজ্ঞ। শত বছরের ঐতিহ্য পিতৃপুরুষের পেশাকে আগলে রাখা একটি জনপদ ভাকুর্তা। তাদের জীবনের চিত্রটা সুখকর না হলেও তারা এই পেশা আগলে রেখেছেন জীবিকা ও পিতৃপুরুষের...

আরো পড়ুন...
জুমার নামাজ ফজিলত

মুমিন মুসলমানদের উচিত যথাযথভাবে জুমার নামাজ আদায় করা। জুমার দিনের আমলগুলো যথাযথভাবে পালন করা। কারণ জুমার নামাজের ফজিলত সম্পর্কে বলা হয়েছে, আল্লাহ তাআলা কেয়ামতের দিন সপ্তাহের...

আরো পড়ুন...
ঘরোয়াভাবে উদযাপন করতে পারেন থার্টি ফার্স্ট নাইট

বিদায় নিচ্ছে ২০২১, নতুন বছর ২০২২ চলেই এলো। জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনের মাধ্যমে নতুন বছরকে স্বাগত জানানো হবে। নাচ-গান, হই-হুল্লোড়, খাওয়া-দাওয়া, কি হবে না সে পার্টিতে। কিন্তু মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন দেশে সকল ধরণের অনুষ্ঠান সীমিত আকারে পালন করা হচ্ছে।

আরো পড়ুন...