এডিটর’স মাইন্ড

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ: তৃণমূলের শেষ ‘সৌভাগ্যবান’

প্রকাশ: ১০:০০ এএম, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

আমি অনেকটা নির্ভার হয়ে আবার ঢাকায় এসে এক বিকেলে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে গেলাম। বত্রিশ নম্বর বাসভবনের নিচতলায় বঙ্গবন্ধু নেতা-কর্মীদের দ্বারা পরিবৃত্ত হয়ে রাজনৈতিক বিষয়াদি নিয়ে আলাপে মত্ত। আমি বাসায় ঢুকতেই লিডার আমাকে দেখে শিশুর মতো অট্টহাসিতে চারদিক চমকিত করে তুললেন। আমি অনেকটা ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে এদিক-ওদিক তাকাতে থাকলাম।  এক পর্যায়ে খোঁজ নিতে থাকলাম। শার্ট-প্যান্টের বোতাম ঠিকমতো লাগিয়েছি কি না অথবা অন্য কোনো বৈসাদৃশ্য আছে কি না। আমাকে হতভম্ব অবস্থা থেকে তিনিই উদ্ধার করলেন আরও রহস্যঢাকা কথা বলে। বললেন, ‘তোর জজ মারা গেছে! তোর কথা তো না রেখে পারি না। তুই তো আমার দাদা হোস।উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধুর পিতামহের নাম শেখ আবদুল হামিদ। আমি আরও হতবুদ্ধিতে ডুবে গেলাম। শেষ পর্যন্ত পুরো বিষয়টি জানতে পারলাম। আমার সিটে বঙ্গবন্ধু যাকে এমএনএ পদে মনোনয়ন দেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন সেই অবসরপ্রাপ্ত জজ সাহেব আকস্মিকভাবে মৃত্যুবরণ করেছেন। সুতরাং এমএনএ পদে আমার মনোনয়ন নিশ্চিত হয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু প্রথম দিন আমার উপস্থাপিত আকাক্সক্ষার বিষয়টি উপেক্ষা করার সময় দুঃখভরা মুখাবয়ব মনে রেখেছিলেন এবং আমার সৌভাগ্যের চাকা এভাবে খুলে যাওয়ার বিষয়টি ভেবে সেদিন এমনভাবে অট্টহাসিতে পরিবেশটাকে স্মৃতিসিক্ত করে দিলেন। আমার জীবনে ধরনের সৌভাগ্যজনক ঘটনার উদাহরণ বহু আছে।” (আমার জীবননীতি, আমার রাজনীতি- মো. আবদুল হামিদ, পৃষ্ঠা ১৫২)

বিদায়ী রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তাঁর আংশিক জীবনীগ্রন্থ এবার বইমেলায় প্রকাশ করেছেন। প্রকাশিত গ্রন্থে তিনি তাঁর জীবনের ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি সময়কাল তুলে ধরেছেন পাঠকদের জন্য। যদিও তাঁর রাজনীতির বিকাশকাল এরপর ব্যাপক বিস্তৃত। কিন্তু সময়টুকুর ঘটনাবলি প্রকাশে তিনি থেকেছেন সৎ এবং অকপট। জীবনের প্রাপ্তিগুলোকেসৌভাগ্য’, ‘খোদাই রহমতকিংবাঅলৌকিকবলেই বারবার উল্লেখ করেছেন। নিজের আদর্শ, ত্যাগ, নিষ্ঠাকে সারল্য দিয়ে আড়াল করার চেষ্টা আছে তাঁর জীবনী গ্রন্থে। কিন্তু তারপরও সাধারণ মানুষ, বিশেষ করে পশ্চাৎপদ তৃণমূলের তরুণদের উদ্দীপনা জোগাতে গ্রন্থটি অসাধারণ ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করি। তবে আমি খুশি হয়েছি গ্রন্থটি প্রকাশের সময় নির্বাচনে। রাষ্ট্রপতি হিসেবে আবদুল হামিদের বিদায়ের আয়োজন শুরু হয়েছে। এখন তিনি বিদায়ী রাষ্ট্রপতি। বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় রাষ্ট্রপতি থেকেছেনভাটি শার্দূল একদিকে তিনি ছিলেন সাধারণ মানুষ। হাস্যরসে তিনি তাঁর রুটিন বক্তৃতাগুলোকেও উপভোগ্য করে তুলতেন। একেবারে খোলামেলা ভাষায়, কিশোরগঞ্জের আঞ্চলিক টানে কথা বলে তিনি মুগ্ধতা ছড়াতেন। জনগণ তাঁকে নিজের মানুষ, আপনজন ভাবতেন। রাষ্ট্রপতির ভাবগাম্ভীর্যের দেয়াল তিনি উপড়ে ফেলেছিলেন। আবার আদর্শের প্রশ্নে তিনি ছিলেন অবিচল, অনড়। দৃঢ়প্রতিজ্ঞ মানুষটি তাঁর জীবনীগ্রন্থেও এর স্বীকারোক্তি দিয়েছেন এভাবে- ‘আসলে জীবনে কোনো বিষয়ে আমার সিদ্ধান্ত একবার গৃহীত হয়ে গেলে এর থেকে ফিরে এসেছি এমন উদাহরণ আমার মনে পড়ে না। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে জীবন বাজি রেখে নেমে পড়তাম।’ (পৃষ্ঠা ১২৮, আমার জীবননীতি, আমার রাজনীতি) ৬০-এর দশকে গুরুদয়াল কলেজে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। এখান থেকেই রাজনীতিতে প্রবেশ। দীর্ঘ ৬০ বছরের বেশি সময়ে রাজনীতির মাঠে আবদুল হামিদের বিচরণ। দীর্ঘ সময়ে তাঁর রাজনীতিতে আদর্শিক বিচ্যুতি নেই। পদস্খলন নেই। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে, এলাকায় রাজনীতি করার জন্য যেমন তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার মায়া ত্যাগ করেছিলেন, তেমনি তাঁর নির্দেশেই৭১-এর মার্চে উত্তাল সময়ে মৃত্যুঝুঁকি নিয়ে ট্রেনযাত্রা করেছিলেন ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জ।৭৫-এর পর যেমন আবদুল হামিদ বিভ্রান্ত হননি, খুনি মোশতাকের প্রলোভনে নিজেকে বিকিয়ে দেননি, তেমনি এক-এগারোর সময় তাঁর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় নেতারা তাঁর অবস্থান নড়চড় করতে পারেননি। শেখ হাসিনার পক্ষে অটল অবস্থানে থেকে তিনি প্রমাণ করেছেন আদর্শে তিনি কতটা অনড়। কত দৃঢ়।সৌভাগ্যঅথবাখোদাই রহমততো তাঁর ছিলই। কিন্তু প্রতিটি সৌভাগ্যকে তিনি যথাযথ প্রমাণ করেছেন নিজ যোগ্যতায়। কারণেই গত ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী এবং সংসদীয় দলের নেতা রাষ্ট্রপতির অকুণ্ঠ প্রশংসা করেছেন। রাষ্ট্রপতির আদর্শের প্রতি অবিচল থাকা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ২০১৪ সালের নির্বাচন প্রসঙ্গ উপস্থাপন করেন। সংবাদমাধ্যমের খবর থেকে জানা যায়, সংসদীয় দলের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০১৪ সালের নির্বাচনের সময় দলের ভিতর থেকেও নির্বাচন নিয়ে কেউ কেউ রাষ্ট্রপতির কাছে বিভ্রান্তিকর তথ্য পৌঁছানোর চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু রাষ্ট্রপতি তখন ঠান্ডা মাথায় পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছেন। ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদের সমাপনী অধিবেশনেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতির ভূয়সী প্রশংসা করেন। বাংলাদেশে ১৯৯১ সালে সংসদীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রবর্তিত হওয়ার পর রাষ্ট্রপতির পদ অনেকটাই অলংকারিক। কিন্তু নির্বাচনের সময় সংবিধানের অন্তর্নিহিত ক্ষমতাবলে রাষ্ট্রপতি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠেন। বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, দাতাসংস্থা, রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজের নানা প্রশ্নের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয় বঙ্গভবন। সময় রাষ্ট্রপতির দৃঢ়তা, গ্রহণযোগ্যতার চুলচেরা বিশ্লেষণ হয়। তার চেয়েও বড় কথা, নির্বাচনকালীন অশুভ গণতন্ত্রবিরোধী শক্তির অবৈধ ক্ষমতা দখলের লক্ষ্যবস্তু হন রাষ্ট্রপতি। ব্যক্তিত্বহীন, লোভী, আদর্শহীনরা সময়ে ভয়ে বা প্রলোভনে গণতন্ত্রকে বিকিয়ে দেন। যেমন দিয়েছিলেন . ইয়াজউদ্দিন। রাষ্ট্রপতি হিসেবে আবদুল হামিদ পরীক্ষায় দুবার উত্তীর্ণ হয়েছেন। তাঁর রাষ্ট্রপতি মেয়াদকালে দেশে দুটি জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। দুটি নির্বাচনের সময়েই সংবিধানের বাইরে গিয়ে গণতন্ত্রকে ক্ষতবিক্ষত করার শঙ্কা ছিল। চেষ্টাও ছিল। কিন্তু রাষ্ট্রপতি পরিস্থিতি সামাল দিয়েছেন অসাধারণ দক্ষতায়। শুধু প্রধানমন্ত্রী নন, আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরাও রাষ্ট্রপতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা এবং সম্মান দেখান। টানা ১০ বছর রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পদে থেকেও আবদুল হামিদ বিদায় নিচ্ছেন তুমুল জনপ্রিয় অবস্থায়। রাষ্ট্রপতি পদে তাঁর চেয়ে বেশি দিন যেমন কেউ থাকেননি, তেমনি তাঁর মতো অভাবনীয় জনপ্রিয়তা নিয়েও কেউ দায়িত্ব পালন করেননি। রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা কতটুকু, তিনি দেশের জন্য কী করলেন, সে প্রশ্ন ছাপিয়ে রাষ্ট্রের অভিভাবক হিসেবে তিনি সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠেছিলেন। কলেজ ছাত্র সংসদের নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোটে জিএস হিসেবে জয়ী হওয়া, ভিপি পদে বিপুল ভোটে বিজয় কিংবা৭০-এর নির্বাচনে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী সব প্রার্থীর জামানত হারানো, আবদুল হামিদের তুমুল জনপ্রিয়তার প্রমাণ। জনপ্রিয়তা তিনি ধরে রেখেছেন বিদায় বেলাতেও। কীভাবে? এর একটি কারণ আমরা শুরুতেই আলোচনা করেছি। আদর্শে অবিচল থাকা। এর চেয়েও বড় কারণ হলো- তাঁর বাঙালিত্ব। তিনি দেশের কাদা-জলে বেড়ে ওঠা সন্তান। শেকড় থেকে তিনি বটবৃক্ষে পরিণত হয়েছেন। এর এক ঝলক পাওয়া যায় রাষ্ট্রপতির লেখা গ্রন্থটিতে। তিনি কিশোর বয়সে ছিলেন ডানপিঠে। খেত থেকে শসা চুরি করেছেন। ডাব চুরি করে হোস্টেলের ছাত্রদের বিলি করেছেন। এমনকি তামাকপ্রীতির কথা অকপটে বলেছেন- ‘আমার তামাকপ্রীতির হাতেখড়ি হাওরে দাওয়াইল্লা কামলাদের সঙ্গে। শৈশবের এই প্রথম প্রেমটা আজও ছাড়তে পারিনি। সহস্রবার চেষ্টা করেছি, পারিনি।’ (পৃষ্ঠা-৪২) অকপটে লিখেছেন- ‘এই সময়টাতে ছাত্রদের মধ্যে পৌরুষ প্রদর্শনের জন্য উত্তম কুমারের মতো সিগারেট খাওয়ার বাতিক ধরলো আমাকে।’ (পৃষ্ঠা ৭৭) এটাই আবদুল হামিদ। এখনো তাঁর নিজের কথাগুলো বলেন অকপটে, ভনিতাহীনভাবে। কারণেই মানুষ তাঁকে ভালোবাসে। বিশ্বাস করে। আপন ভাবে। কৈশোর-উত্তীর্ণ বয়সে প্রথম প্রেম, নারীর প্রতি ভালোলাগা, সুন্দরীদের প্রতি মুগ্ধতা তাঁকে তাড়িত করত। মেহের নিগারের প্রতি দুর্বলতার কথা বয়সেও মনে রেখেছেন। কৈশোর-উত্তীর্ণ রোমান্টিকতা নিয়ে তাঁর অকপট স্বীকারোক্তি যে কোনো পাঠককেই বিস্মিত করবে। প্রসঙ্গে বইটির একটি অংশ উদ্ধৃতি না করে পারছি না।

আমার নিকলী জিসি হাইস্কুলের দেড় বছরের ছাত্রজীবনের বহু মজার ঘটনা স্মৃতির আকাশে উজ্জ্বল হয়ে আছে। এগুলো থেকে আরও একটি মজার কথা বলি। আমার দুই শ্রেণি নিচে একটি সুদর্শনা মেয়ে পড়ত। নিকলীতেই তার বাড়ি। মেয়েটি চালচলনে ছিল খুবই চটপটে। অনেকেই তার সঙ্গে ভাব জমানোর জন্য ঘুরঘুর করত। মনে মনে নিজেকে রাজা-উজির ভাবলেও তখনকার দিনে অনেকের দৌড়ই থেমে যেত কল্পনাতেই। কানাঘুষায় শুনতে পেলাম আমার এক সহপাঠী তাকে পাওয়ার জন্য প্রাণান্তকর প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। খবর পেলাম সে নাকি সাফল্যের কাছাকাছিও এসে গেছে। মাথায় দুষ্ট বুদ্ধি চাপল। তাকে বিষাদের বড়ি খাওয়াতে হবে। একদিন একটা ভাবগম্ভীর পরিবেশ তৈয়ার করে তাকে বললাম, আমি মেয়েটিকে বিয়ে করতে চাই। লোকমুখে শুনলাম তুমি নাকি ওর দিকে চোখ দিয়েছ। চাঁদনি রাতে সাপ দেখার মতো চমকে উঠল সে। আশা ভঙ্গের আতঙ্কে আমার সহপাঠী দুমড়েমুচড়ে গেল। সে জানে আমি হাত বাড়ালে তার স্বপ্ন সুদূরে পালিয়ে যাবে। এতটুকু জানিয়েই চলে এলাম। পরদিন তাকে স্কুলে দেখা গেল না। মেয়েটাও নেই। কিছুকাল পর শুনলাম তার বিয়ে হয়ে গেছে। তবে সেই সহপাঠীর সঙ্গে হয়নি। কয়েক বছর পর নিকলীর পথে লঞ্চে সেই সুদর্শনার সঙ্গে দেখা। সে এখন মেয়ে থেকে পুরোপুরি মহিলায় পরিণত হয়েছে। আমি তাকে অকপটেই বললাম, আমি তো তোমাকে বিয়ে করতে চেয়েছিলাম মনে মনে। বিবাহিতা মহিলা দেখি লজ্জায় লাল হয়ে যাচ্ছে। একটু চমকের সুরে সে বলে, ‘হামিদ ভাই যে কী কয়, লজ্জা শরম নাই।আমি বললাম, ‘বিয়ে করাতে লজ্জা কীসের?’ থেমে গেল সে, মুখ দেখে বুঝলাম গভীর ভাবনায় ডুবে গেছে। মনে মনে হয়তো বলছেআগে কইলেন না কেন?’ কথাবার্তা শেষ না হতেই লঞ্চ চুনতি ঘাটে এসে ভিড়ল। সবকিছু অসমাপ্ত রেখেই নেমে গেল সেই মহিলা। তারপর মেঘনায় অনেক জল বয়ে গেছে। দেশ স্বাধীন হলো। বহুদিন পর আমি তখন স্পিকার। হঠাৎ এক বিকেলে টেলিফোন। অপর প্রান্ত থেকে জানাল একজন মহিলা কথা বলতে চায়। আমি জানতে চাইলাম কোন মহিলা। নিকলীর সেই চটপটে মেয়ে। স্মৃতিতে খুঁজে পেলাম না। তবু ফোন লাগাতে বললাম, পরিচয় দিল। সর্বশেষ দেখা হয়েছিল চুনতি ঘাটে নামার আগে, লঞ্চে। হঠাৎ করে রঙিন স্মৃতি জেগে উঠল মনের আকাশে। আলাপে আবারও হারিয়ে গেলাম। সে আবদার করল তার ছেলেটার যেন একটা ব্যবস্থা করে দেই। আমি আবারও হাস্য-রসিকতা করে বললাম, অবশ্যই করব। তোমাকে বিয়ে করলে এই ছেলে তো আমারই হতো। আবারও সেই লঞ্চে বিয়ের মতো কথা থেমে গেল তার। হয়তো অনেক কিছু ভেবে থাকবে। জীবন কত বিচিত্র।” (পৃষ্ঠা ৯৭)

বাল্য প্রেমের স্মৃতি স্পিকার হয়েও আঁকড়ে রেখেছেন। এটা প্রকাশে কোনো কপটতার আশ্রয় নেননি। এভাবেই সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জন করেছেন। তাদের মনের ভিতর জায়গা করে নিয়েছেন। ভন্ডামিহীন স্বভাবই তাঁকে রাজনীতিতে দিয়েছে অতুলনীয় জনপ্রিয়তা। জনগণের ভালোবাসা।

আমাদের চারপাশে এখন যারা রাজনীতি করেন তারা কজন এরকম অনায়াসে নিজের কথাগুলো অবলীলায় বলতে পারবেন? কজন বলতে পারবেন তারা আবদুল হামিদের মতো। তিল তিল করে বেড়ে উঠেছেন, কিন্তু নিজেকে পাল্টাননি। একই রকম আছেন। চারপাশে তাকালেই দেখা যায় বদলে যাওয়ার হিড়িক। যখন বিরোধী দলে ছিলেন দেখা হলেই জড়িয়ে ধরতেন। তারপর এমপি হলেন। দামি পাজেরো হাঁকিয়ে যান। দেখা হলে মেকি এক উৎকট হাসি দিতেন। এরপর যখন মন্ত্রী হলেন, তখন দুঃসময়ের সাথীদেরও চেনেন না। কথাবার্তা আচরণে মনে হয় জমিদার। এরকম উদাহরণ বহু। চারপাশে অগণিত এরকম মুখোশ পরে অতীত ঢেকে রাখা মানুষ। অহংকারে এদের যেন মাটিতে পা পড়ে না। এরা মানুষকে মানুষ মনে করে না। সেদিন সরকারি দলের একজন হুইপকে জিজ্ঞেস করলামসারা দেশে এত উন্নয়ন, তারপরও কেন আওয়ামী লীগের ভোটে জয় নিয়ে সংশয়। কেন অনেক এলাকায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের জনপ্রিয়তা তলানিতে।তিনি উত্তর দিলেন- ‘ব্যবহার। দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার ফলে আওয়ামী লীগের অনেকের মধ্যে দাম্ভিকতা এবং অহংকার প্রকট আকার ধারণ করেছে। এটা সাধারণ মানুষ পছন্দ করে না। ঘৃণা করে। কিছু কিছু এমপির জনপ্রিয়তা ধসের এটি একটি বড় কারণ।এরা তো রাষ্ট্রপতির জীবন থেকে শিক্ষা নিতে পারেন। রাষ্ট্রপতি হয়েও তিনি অতি সাধারণ হাস্যরসে ভরপুর স্বভাবের মানুষ। মাটিতে পা রেখেছেন।

কদিন আগে সরকারের একজন মেধাবী উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলছিলাম। তিনি আমাকে তার অভিজ্ঞতার কথা বলছিলেন। লিবিয়ার দায়িত্ব শেষ করে ওই কর্মকর্তা সপরিবারে ঢাকায় ফিরছেন। বিমানবন্দরে বসে আছেন। সময় দেখলেন, একজন বাঙালি যাত্রী অসুস্থ। তিনি তার কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করলেন- বাংলাদেশে যাবেন নাকি। ভদ্রলোক হ্যাঁ সূচক উত্তর দিলেন। সরকারি কর্মকর্তা দেখলেন লোকটি বেশ অসুস্থ। তিনি অসুস্থ ব্যক্তিকে সহায়তা করার জন্য আরেক বাংলাদেশিকে খুঁজে বের করলেন। তাকে অনুরোধ করলেন, দুবাইতে যেন অসুস্থ ব্যক্তিকে সহযোগিতা করে এবং কানেকটিং ফ্লাইটে তুলে দেওয়ার ব্যবস্থা করে। ওই সহৃদয় ব্যক্তি সঙ্গে সঙ্গে রাজি হলেন। কিন্তু প্লেনে যাত্রীদের ওঠানোর সময় ওই যাত্রীর অসুস্থতার মাত্রা বেশি হওয়ায় তাকেঅফলোডকরা হলো। সরকারি কর্মকর্তা এয়ারলাইনসের লোকজনকে অনুরোধ করলেন বটে। কিন্তু তাতে কাজ হলো না। তিনি দূতাবাসের গাড়ির ড্রাইভারকে ফোন করে বললেন, একজন অসুস্থ ব্যক্তি যাচ্ছেন, তাকে দ্রুত যেন হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। অসুস্থ ব্যক্তিকেও তিনি বললেন, বাইরে তার জন্য গাড়ি অপেক্ষা করছে। ওই গাড়ি হাসপাতালে নিয়ে যাবে। যথারীতি ত্রিপোলি থেকে প্লেন ছাড়ল। দুবাইতে ট্রানজিটের সময় সরকারি কর্মকর্তাকে খুুঁজে বের করলেন সেই তরুণ। যার সহায়তা অসুস্থ ব্যক্তির জন্য তিনি চেয়েছিলেন। তরুণটি বলল, ‘অসুস্থ ব্যক্তিকে খুঁজে পাচ্ছি না।সরকারি কর্মকর্তা তাকে বিনয়ের সঙ্গে বললেন, ‘তিনি খুব অসুস্থ ছিলেন। প্লেনে তাকে নেয়নি। আমি দূতাবাসকে বলেছি। দূতাবাসের গাড়ি তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাবে।তরুণ এবার হতাশ। বললেন, ‘আহারে, মানুষটার যা- বাঁচার সম্ভাবনা ছিল দূতাবাসের পাল্লায় পড়ে এখন তার আর বাঁচার আশা নেই।ওই সরকারি কর্মকর্তা আমাকে বলছিলেন, ‘এটাই হলো বাস্তবতা। সাধারণ মানুষ সরকারি কথা বিশ্বাস করে না।আবদুল হামিদের বইটি পড়তে পড়তে আমার ওই মেধাবী কর্মকর্তার গল্পটা মনে পড়ল। জনগণ এবং সরকারের মধ্যে অবিশ্বাসের দেয়াল ক্রমশ যেন বড় হচ্ছে। একটি সরকার মন্ত্রী, এমপি এবং সরকারি কর্মকর্তাদের নিয়েই। একমাত্র প্রধানমন্ত্রী ছাড়া কজন মন্ত্রীর কথা সাধারণ মানুষ বিশ্বাস করে? মন্ত্রী যখন বলেন জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না, তখন মানুষ মূল্যবৃদ্ধির শঙ্কায় উদ্বিগ্ন হয়। সরকারি কর্মকর্তা যখন বলেনদেশের অর্থনীতিতে কোনো সংকট নেই’, তখন মানুষ আসন্ন অর্থনৈতিক সংকটের কথায় শঙ্কিত হয়। এমপি সাহেব যখন বলেনআমি জনগণের পাশে আছি’, তখন সাধারণ জনগণ ভয় পায়, আমার কি সমস্যা হবে। কেন অনাস্থার সংকট? এর কারণ দুটি। প্রথমত, সরকারের লোকজন অকপটে সত্যি কথা বলেন না। দ্বিতীয়ত, তারা জনগণের ভাষায় কথা বলে না। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এক্ষেত্রে উজ্জ্বল ব্যতিক্রম। কখনো কোনো নির্বাচনে পরাজিত না হওয়া মানুষটি অকপটে সত্যটা বলতেন। এমনটি তাঁর জীবনীগ্রন্থেও তিনি চাইলে অনেক ঘটনাই এড়িয়ে যেতে পারতেন। কিন্তু সত্যের মুখোমুখি হওয়ার যে সাহস তিনি দেখিয়েছেন সেটাই তাঁকে মহিমান্বিত করেছে। তাঁর অকপট সত্য ভাষণই তাঁকে বিশ্বাসযোগ্য করেছে। দ্বিতীয়ত, আবদুল হামিদ সারা জীবন জনগণের ভাষায় কথা বলেছেন। এমনকি রাষ্ট্রপতি হওয়ার পরও তাঁর হাস্যরস এবং হিউমার কোনো ভাড়িক্কির আড়ালে ঢেকে যায়নি। যে কোনো রাজনীতিবিদের জন্য এটি বড় শিক্ষা।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তাঁর গ্রন্থে একাধিকবার নিজেকে সৌভাগ্যবান বলেছেন। তিনি লিখেছেন ‘... জীবনে আমি মনে মনে যুক্তিসম্মত যা কিছু চেয়েছি, অনেকটাই অলৌকিকভাবেই তা পেয়ে গেছি। যদিও অলৌকিকতায় আমার একেবারেই আস্থা নেই। তবে বাস্তবে এমন কিছু পেয়েছি যা অলৌকিকত্বের পর্যায়েই পড়ে।’ (পৃষ্ঠা ১৯) সত্যিই তো। কিশোরগঞ্জের মিঠামইন উপজেলার কামালপুর গ্রামে জন্ম নেওয়া এক ডানপিঠে, দুরন্ত বালকের ধীরে ধীরে রাষ্ট্রপতি হওয়ার ঘটনা তো রূপকথার মতোই। তিনি সুযোগ পেয়েছেন। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়েছেন নিজ যোগ্যতায়। ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদে ডেপুটি স্পিকার হওয়ার আগে তিনি জাতীয় রাজনীতিতে পাদপ্রদীপে ছিলেন না। স্পিকার হুমায়ূন রশীদ চৌধুরীর মতো কেতাদুরস্ত স্পিকারের পাশে তিনি নিজেকে উজ্জ্বল করে মেলে ধরেছেন। হুমায়ূন রশীদ চৌধুরীর মৃত্যুর পর তাঁকে স্পিকার করতে একমুহূর্তও ভাবতে হয়নি কারও। স্পিকার হিসেবে তিনি ছিলেন উজ্জ্বল, প্রাণবন্ত। ২০০১ সালের নির্বাচনে তিনি বিরোধী দলের উপনেতা হন। তাঁর নিযুক্তি যে সঠিক ছিল তা আবদুল হামিদ প্রমাণ করেছেন ২০০৭ সালে অনির্বাচিত সরকারের সময়, সাহসী অবস্থান নিয়ে। জিল্লুর রহমানের রাষ্ট্রপতি হওয়াটা ২০০৯ সালে ছিল অবধারিত। তাঁর মৃত্যুর পর রাষ্ট্রপতি পদকে মহিমান্বিত করেছেন আবদুল হামিদ আপন যোগ্যতায়, মেধায়। তিনি প্রমাণ করেছেন পদের জন্য রাজনীতিবিদরাই সবচেয়ে যোগ্য। সম্মান এবং মর্যাদা নিয়েই তিনি বিদায় নিচ্ছেন। কিন্তু তরুণ প্রজন্মের জন্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এখন এক অদ্ভুত ধাঁ ধাঁ।  মিঠামইনে বেড়ে ওঠে, অজপাড়াগাঁয়ের নিকলী জিসি হাইস্কুলে পড়ে, গুরুদয়ালে ছাত্ররাজনীতি করা কাদামাটির গন্ধমাখা কেউ আর কি রাষ্ট্রপতি হতে পারবেন? রাষ্ট্রপতি তো দূরের কথা এলিট স্কুল-কলেজ না পড়ে বিপুল বিত্তের মালিক না হয়ে কি কেউ এমপি হতে পারবেন? নেতা হতে পারবেন?

পাদটীকা : রাষ্ট্রপতির আত্মজীবনীটা ১৯৭২-এর ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত। আমি আশা করব তিনি অবসরে গিয়ে যত দ্রুত সম্ভব পূর্ণাঙ্গ আত্মজীবনী লিখবেন। বাংলাদেশের জন্য, রাজনীতির জন্য এরকম একটি গ্রন্থ খুবই জরুরি।

লেখক : নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত
poriprekkhit@yahoo.com



মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

ইরান-ইসরায়েল ইস্যু: শেখ হাসিনাই হতে পারেন শান্তির দূত

প্রকাশ: ০৯:০০ পিএম, ১৩ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

ইরান-ইসরায়েল ইস্যু ক্রমশ উত্তপ্ত হচ্ছে। তৈরি হয়েছে যুদ্ধ পরিস্থিতি। ইরান যে কোন সময় ইসরায়েল হামলা করতে পারে। এমন একটি পরিস্থিতিতে সারা বিশ্ব উৎকণ্ঠিত। এক অস্থির যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে পুরো মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে। ইতোমধ্যে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো জানিয়েছে, ইরানের আক্রমণের ক্ষেত্রে মধ্যপ্রাচ্যের ভূখণ্ড তারা ব্যবহার করতে দেবে না। সব কিছু মিলিয়ে একটি বিভাজন এবং বৈরি পরিবেশ তৈরি হয়েছে। সবচেয়ে অবাক করার ব্যাপার হলো এই বৈরি পরিবেশে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য একজন উদার নৈতিক নেতা নেই যিনি এই পরিস্থিতিতে সকল পক্ষকে আস্থায় নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। আর এরকম শূন্যতার মধ্যে শেখ হাসিনাই হতে পারেন আলোকবর্তিকা। 

উল্লেখ্য, ২০১২ সালে শেখ হাসিনার বিশ্বশান্তির দর্শন জাতিসংঘ অনুমোদিত হয়েছে। এই বিশ্বশান্তি দর্শনের আলোকেই ইসরায়েল ইস্যুতে একটি রাজনৈতিক সমাধান হতে পারে। 

বাংলাদেশ মধ্যপ্রাচ্য ইস্যুতে কঠোর এবং যৌক্তিক অবস্থান গ্রহণ করেছে। বাংলাদেশ গাজায় নিরীহ মানুষের ওপর অবিচার, হত্যা এবং মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্য সবসময় নিন্দা জানাচ্ছে। মহামান্য রাষ্ট্রপতি তার ঈদের শুভেচ্ছা ভাষণেও মধ্যপ্রাচ্যের মানবিক বিপর্যয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা 'মাদার অব হিউম্যানিটি' হিসেবে পরিচিত। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে তিনি বিশ্ব মানবতার কণ্ঠস্বর হয়েছেন। আর এ কারণেই বিশ্বে জ্যেষ্ঠ নেতাদের মধ্যে তিনি অন্যতম। উদার মুসলিম দেশের নারী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার কারণে তিনি আলাদা একটি অবস্থানে রয়েছেন। বাংলাদেশ একদিকে যেমন ইসরায়েলের আগ্রাসনের নিন্দা করে, অন্যদিকে ধর্মান্ধ মৌলবাদ এবং ধর্মের নামে উগ্র সন্ত্রাসবাদকে প্রত্যাখ্যান করে। আর এটি বাংলাদেশকে গুরুত্বপূর্ণ করেছে। শেখ হাসিনা এই মুহূর্তে বিশ্বের এমন একজন নেতা যিনি মধ্যপ্রাচ্য ইস্যুতে সংকট সমাধানের আলোকবর্তিকা হয়ে সামনে দাঁড়াতে পারেন। তার শান্তির মডেলকে সামনে রেখে যদি বিবদমান পক্ষগুলো আলোচনার টেবিলে বসে তাহলে ইসরায়েল ইস্যুতে শান্তি অসম্ভব নয়।

বিশ্বে যারা নেতৃবৃন্দ আছেন তারা প্রায় অনেকেই বিতর্কিত এবং পক্ষপাতে দুষ্ট। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বিশ্ব নেতার অবস্থানে থাকতে পারছেন না। চীন এই বিষয়ে নিজেদের গুরুত্বপূর্ণ ভাবে পক্ষ করতে চায় না। তাছাড়া বিভাজিত বিশ্বে চীনের নেতৃত্ব মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপ মেনে নেবে না এটা বলাই বাহুল্য। পাশাপাশি রাশিয়া এখন নিজের ঘর সামলাতে ব্যস্ত। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বে সমঝোতায় নেতৃত্ব দেওয়া পুতিনের পক্ষে প্রায় অসম্ভব। 

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান সমঝোতার উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারে। কিন্তু এরদোয়ান ব্যাপারে ইসরায়েল সহ অন্যান্য দেশগুলোর একটি অবস্থান রয়েছে। তাছাড়া তুরস্ক এই বিতর্কে কতটুকু সহনীয় অবস্থায় থাকতে পারবে তা নিয়ে ব্যস্ত।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী এখন নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত। এই অবস্থায় বিশ্বকে যুদ্ধাবস্থা থেকে সামাল দিতে পারেন একমাত্র শেখ হাসিনাই। তার শান্তির বার্তা যদি বিবাদমান পক্ষগুলো অনুধাবন করে তাহলে এই জটিল কঠিন পরিস্থিতিতে বিশ্ব শান্তি অসম্ভব নয়। আর এই শান্তির জন্য শেখ হাসিনাই হতে পারেন বিশ্ব নেতা। তার শান্তির দর্শন এবং তার শান্তির উদ্যোগের মাধ্যমে এই অসহনীয় পরিস্থিতি থেকে মুক্তি হতে পারে বিশ্ব।

ইরান-ইসরায়েল   শেখ হাসিনা   শান্তির দূত   জো বাইডেন   ইরান  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

আওয়ামী লীগে ক্রমশ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছেন যারা

প্রকাশ: ০৬:০০ পিএম, ১৩ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

আওয়ামী লীগে নীরবে নিভৃতে পালাবদল ঘটছে। এক সময় আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ নেতা মানে ছিলেন আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মোহাম্মদ নাসিম, শেখ সেলিম, মতিয়া চৌধুরী। এখন তাদের অধ্যায় আস্তে আস্তে যবনিকা ঘটেছে। শারীরিক ভাবে তারা অনেকেই অসুস্থ। অনেকে এখন রাজনীতিতে অপাঙ্ক্তেয় হয়ে গেছেন। বরং একটি নতুন প্রজন্মকে আওয়ামী লীগ সভাপতি সামনে নিয়ে আসছেন। তাদেরকে নীতি নির্ধারক হিসেবে জায়গা করে দিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের এই পালাবদলটি শেখ হাসিনার দূরদর্শী রাজনীতির একটি অংশ বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন। 

পুরনোদেরকে অসম্মান না করে নতুনদের জন্য জায়গা করে দেওয়ার যে কৌশল সেটি রাজনীতিতে একটি শিক্ষণীয়। কিছু দিন আগেও যারা আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ ছিল, তাদের বদলে এখন আস্তে আস্তে আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছেন বেশ কিছু নেতা। যারা আওয়ামী লীগে ক্রমশ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছেন। বিশেষ করে ১১ জানুয়ারি টানা চতুর্থবারের মতো আওয়ামী লীগ সরকার গঠিত হওয়ার পর যাদেরকে বেশি পাদপ্রদীপে দেখা যাচ্ছে, তাদের মধ্যে রয়েছেন;

১. ড. হাছান মাহমুদ: ড. হাছান মাহমুদের পদোন্নতি ঘটেছে। এর আগে তিনি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী। এবার তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। স্পষ্টতই আওয়ামী লীগ সভাপতি তাকে পাদপ্রদীপে নিয়ে আসছেন। তিনি আওয়ামী লীগের এক নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকও বটে। কোন কারণে সাধারণ সম্পাদকের পদ খালি হলে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকই গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করে। আগামী দিনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবেও ড. হাছান মাহমুদের সম্ভাবনা উজ্জ্বল বলেই অনেকে মনে করছেন। আর এই সমস্ত বিবেচনা থেকেই আওয়ামী লীগে এখন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নেতা হিসেবে সামনে আসছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। 

২. জাহাঙ্গীর কবির নানক: জাহাঙ্গীর কবির নানক আওয়ামী লীগে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেন নিজ যোগ্যতায়। মাঠের নেতা হিসেবে তার দীর্ঘদিনের সুনাম ছিল। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক, যুবলীগের চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি তৃণমূলের রাজনীতির সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত। রাজনীতিতে চড়াই উতরাই এর মধ্য দিয়েই তিনি এগিয়ে গেছেন তার আদর্শের কারণে। বিশেষ করে ২০১৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়ন না পাওয়ার পর তিনি ভেঙে পড়েননি। বরং সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করে গেছেন। তার পুরস্কার তিনি পেয়েছেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক থেকে তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য পদে উন্নীত হন। এবার নির্বাচনে মনোনয়ন পেয়ে মন্ত্রিত্ব পেয়েছেন। আওয়ামী লীগের এই নেতা এখন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন এবং বিশ্বস্ত হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছেন। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে তার সরব উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তিনি এখন আওয়ামী লীগের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নীতি নির্ধারক হয়ে উঠেছেন। 
৩. আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম: আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হলেও কর্মীদের সঙ্গে সম্পর্ক কর্মী বান্ধব হওয়ার কারণে তার অবস্থান আস্তে আস্তে দৃঢ় হচ্ছে। আওয়ামী লীগের তৃণমূলের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতাদের অন্যতম বাহাউদ্দিন নাছিম কর্মীদের কাছে আওয়ামী লীগ সংগঠনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। আওয়ামী লীগ সভাপতির আস্থাভাজন, বিশ্বস্ত এবং সংগঠনের প্রশ্নে অকুতোভয় এবং একনিষ্ঠ এই নেতা মন্ত্রী না হয়েও আওয়ামী লীগের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একজন নীতি নির্ধারক হয়ে উঠছেন নিজ যোগ্যতায়। 

৪. আব্দুর রহমান: আব্দুর রহমান জাহাঙ্গীর কবির নানক এর মতোই তিনি ২০১৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়ন পাননি। কিন্তু তারপরও তিনি ভেঙে পড়েননি। সংগঠনের জন্য কাজ করেছেন এবং আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে নিজের জায়গা করে নিয়েছেন। এবার নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর তিনি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করছেন এবং আওয়ামী লীগ সভাপতির আস্থার প্রতিদান তিনি ভালো ভাবেই দিচ্ছেন।

আওয়ামী লীগের একটি পালা বদল ঘটছে। তোফায়েল আহমেদ, আমির হোসেন আমু কিংবা শেখ ফজলুল করিমের জায়গা আস্তে আস্তে এই সমস্ত নেতারা জায়গা করে নিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের একটা পাইপলাইন তৈরি করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। যেখানে পর্যায়ক্রমে নেতারা অপেক্ষমান অবস্থায় আছেন। নেতৃত্বের শূন্যতা আওয়ামী লীগে যেন না হয় সেজন্য একটি দূরদর্শী রাজনৈতিক কৌশল গ্রহণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আব্দুর রহমান   জাহাঙ্গীর কবির নানক   ড. হাছান মাহমুদ   আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

অন্ধকার ছয়দিন

প্রকাশ: ১০:৩০ পিএম, ১২ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

বাংলাদেশে এখন সংবাদপত্রের লোডশেডিং চলছে। গত বুধবার থেকে সংবাদপত্র বের হচ্ছে না। টানা ৬ দিন সংবাদপত্র বন্ধের বিশ্ব রেকর্ড করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। না কোন প্রতিবাদে নয়, দাবী আদায়ের জন্য নয়। ছুটির ফাঁদে সংবাদপত্র বন্ধ আছে। সংবাদপত্রকে বলা হয় জরুরী সেবা। চিকিৎসক, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা যেমন জরুরী সেবা দেন, তেমনি সংবাদকর্মীদের কাজও হলো দেশের মানুষকে সার্বক্ষণিকভাবে সঠিক, বস্তুনিষ্ঠ তথ্য দেয়া। বিশেষ করে ছুটির সময় এটার প্রয়োজন আরো বেশী। এবার দেশে একটা দীর্ঘ ছুটি। এসময় সংবাদপত্র অনেক জরুরী। আচ্ছা ভাবুন তো, ছয়দিন যদি হাসপাতালে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হতো, কিংবা আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যদি বলতো ছয়দিন তারা দায়িত্ব পালন করবে না। তাহলে কি হতো? আমিতো মনে করি, সংবাদপত্র বন্ধ রাখার বিষয়টিও তেমনি আঁতকে ওঠার মতো। কিন্তু সংবাদপত্রের মালিকদের এনিয়ে বিকার নেই।  

এবার বাংলাদেশ দু’টি বড় উৎসব কাছাকাছি সময় উদ্যাপন করছে। ঈদ-উল-ফিতর উদযাপন করতে না করতেই, আগামীকাল (রোববার) ১৪ এপ্রিল পহেলা বৈশাখ। বাঙালীর সবচেয়ে বড় উৎসব। এদেশের প্রায় ৯০ ভাগ মানুষ মুসলমান। আর ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদ-উল-ফিতর। তবে বাংলাদেশে ঈদ-উল-ফিতর কেবল মুসলমানদের জন্য সবচেয়ে বড় উৎসব নয়। এ অঞ্চলে বসবাসরত অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরাও এই উৎসবে আনন্দ করে। সম্প্রীতির বাংলাদেশে ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার’-এই রীতি চলে এসেছে দীর্ঘদিন। ইদানিংকার মতো সাম্প্রদায়িক দৃষ্টি ভঙ্গিতে কোন ধর্মীয় উৎসবকেই দেখা হতো না। ঈদের দিন অন্য ধর্মের বন্ধুরাও বাসায় আসতো সেমাই মিষ্টি এক সাথে খাওয়া হতো। আবার হিন্দুদের পূজাতেও আমরা যেতাম। অনেক মজা হতো। যতো দিন যাচ্ছে আমাদের ধর্মীয় উদার নৈতিক চেতনাকে গ্রাস করে ফেলছে ধর্মান্ধ সংকীর্ণতা। এখন ঈদ উৎসব যেন অনেকটাই ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানে শৃঙ্খলিত। রমজান মাস জুড়ে এক ধরনের কঠোর বিধি নিষেধ থাকে যা স্বতঃস্ফূর্ত না। আরোপিত এবং লোক দেখানো। এই আরোপিত বিধি নিষেধ নিয়ে বাড়াবাড়ি করেন কিছু ‘বক ধার্মিক’। এদের কারণে গত তিন ঈদে পহেলা বৈশাখ নির্বাসিত ছিলো। পবিত্র রমজানের সাথে পহেলা বৈশাখের কোন বিরোধ নেই। কিন্তু তারপরও অতি উৎসাহী কট্টরবাদীদের দাপটে শৃঙ্খলিত হয় পহেলা বৈশাখ। অথচ বাঙালী হিসেবে পহেলা বৈশাখীই আমাদের প্রথম এবং প্রধান সর্বজনীন উৎসব। বাংলা বর্ষ বরণ বাঙালীর প্রাণের উৎসব। এই উৎসব অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি। বেশ কয়েক বছর পর এবার পহেলা বৈশাখ উদ্যাপিত হবে বাঁধাহীন ভাবে। বাঙালী জাতি বর্ষবরণ করবে মুক্ত ভাবে। এটা আমাদের জন্য বড় আনন্দের উপলক্ষ্য তো বটেই। কিন্তু এত বড় উৎসব হবে সংবাদপত্রহীন! কি অদ্ভুত! সংবাদপত্র কি দায়িত্বহীন মালিকানার শিকার?

ঐতিহাসিকভাবে বাংলাদেশের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে লালন করে। সম্প্রীতির বন্ধনে অটুট। কিছু মানুষ যতোই কট্টর মৌলবাদী হোক না কেন, সাধারণ মানুষ এখনও উগ্র পন্থাকে সমর্থন করে না। এজন্য একই সময়ে একাধিক ধর্মাবলম্বীদের উৎসব এদেশে নির্বিঘ্নে অনুষ্ঠিত হয়। এবার রমজানের কথায় ধরা যাক না কেন। এবার রমজানের মধ্যেই খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের ‘ইস্টার সানডে’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোজার মধ্যেই দোল উৎসবে হিন্দু সম্প্রদায় রং উৎসবে মেতেছে। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। কোথাও সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানরা বলেননি যে, রোজার জন্য ইস্টার সানডে করা যাবে না কিংবা দোল উৎসব বন্ধ রাখতে হবে। ধর্মকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে চায় কিছু উপরের তলার মানুষ। যারা ধর্ম প্রতিপালনের চেয়ে লোক দেখানোতে বেশী আগ্রহী। এদের হাতে ধর্ম এবং সংস্কৃতি কোনটাই নয়। এবার ঈদের পরপরই পহেলা বৈশাখ অনুষ্ঠিত হচ্ছে-এজন্য আমি আনন্দিত। বাংলাদেশের মানুষের সামনে এটি এক অনন্য সুযোগ। এর মাধ্যমে প্রমাণ হতে পারে আমরা বাঙালী, আমরা অসাম্প্রদায়িক, আমরা উদার। এদেশের মানুষ যেমন ঈদ উৎসব করলো তেমনি বাংলা নববর্ষকেও বরণ করবে। এই বর্ষ বরণের উৎসব যেন ঢেকে দিচ্ছে সংবাদপত্রে ছুটি। এবার ঈদের ছুটিতে সবচেয়ে বিস্ময়কর ঘটনা ঘটিয়েছে বাংলাদেশ সংবাদপত্র মালিকরা। ঈদ এবং পহেলা বৈশাখ মিলিয়ে মোট ৬ দিন সংবাদপত্র বন্ধ রাখার এক অগ্রহণযোগ্য সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সংবাদপত্র মালিকরা। পহেলা বৈশাখে কেন সংবাদপত্র বন্ধ থাকবে? কর্পোরেট নিয়ন্ত্রিত বাংলাদেশের সংবাদপত্রগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটি ‘ঈদ সংখ্যা’ সাময়িকী প্রকাশ করেছে। এটা ভালো উদ্যোগ। সাহিত্য চর্চার ক্ষেত্রে এই সব সাময়িকী গুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমি আশা করেছিলাম এবার যেহেতু কাছাকাছি সময়ে ঈদ এবং বর্ষবরণ তাই সংবাদপত্রগুলো পহেলা বৈশাখে একটা ছোট সাময়িকী করবে। আলাদা আলাদা সাময়িকী না করুক ঈদ সংখ্যা এবং নববর্ষ সংখ্যা মিলিতভাবে করবে। কিন্তু কোথায় কি, এবার পহেলা বৈশাখে কোন সংবাদপত্রই বেরুচ্ছে না। শুধু পহেলা বৈশাখ কেন? বাংলাদেশে এখন চলছে অন্ধকার সময়। ১০ এপ্রিল থেকে ১৫ এপ্রিল দেশে কোন সংবাদপত্র প্রকাশিত হবে না। এটি নজীর বিহীন। 

অবশ্য কেউ বলতে পারেন, এ যুগে সংবাদপত্র ৬ দিন না ৬ মাস বন্ধ থাকলো কার কি? এখন সংবাদের জন্য কে আর দৈনিক পত্রিকার অপেক্ষা করে? অনলাইন, টেলিভিশন, সোশাল মিডিয়ার এই যুগে কেউ আর খবরের জন্য সকালের সংবাদপত্রের অপেক্ষা করে না। সকাল বেলা এক কাপ চায়ের সাথে একটি সংবাদপত্র এখন উত্তেজনাপূর্ণ রোমাঞ্চ নয়। এসব ঘটনা প্রিন্ট মিডিয়ার অপ্রয়োজনীয় হয়ে ওঠারই ইঙ্গিত। কিন্তু তারপরও প্রিন্ট মিডিয়া এখনও বিশ্বস্ততা এবং আস্থার প্রতীক। একজন পাঠক টেলিভিশনে বা অনলাইনে যতো সংবাদই দেখুক বা পড়ুক না কেন, দিনের শেষে তার নির্ভরতা ছাপা কাগজ। অনলাইনে কোন সংবাদ পাঠ করার পর তার সত্যতা যাচাই করে ছাপা কাগজে। তাই এখনও সংবাদ, সঠিক তথ্যের জন্য প্রধান নির্ভরতার জায়গা হলো সংবাদপত্র। তথ্যের এই বিশ্বস্ত উৎস বন্ধ আছে। টানা ছয়দিনের জন্য দেশের মানুষ সংবাদপত্র পাবে না। এই ছয়দিনকে বলা যায় অন্ধকার সময়। সংবাদপত্র বিহীন একটা দিন মানে অন্ধকার দিন-রাত্রি। গত ১০ এপ্রিল থেকে অন্ধকার ছয়দিন শুরু হয়েছে। আমরা যারা সেকেলে মানুষ। ঘুম থেকে উঠেই পত্রিকা খুঁজি তাদের জন্য এই ছয়দিন দূর্বিসহ, অবর্ননীয়। 

প্রশ্ন হলো সংবাদপত্রের মালিকরা কেন এরকম সিদ্ধান্ত নিলো? এই সিদ্ধান্ত দেশের সংবাদপত্র শিল্পকে আরো সংকটে ফেলবে। বাংলাদেশে এখন সংবাদপত্রের মালিকানা শিল্পপতি এবং ব্যবসায়ীদের দখলে। প্রধান সব সংবাদপত্রই কোন না কোন শিল্প গ্রুপের নিয়ন্ত্রণে। বড় শিল্পপতিদের কাছে সংবাদপত্র হলো মর্যাদার প্রতীক। মুক্ত সাংবাদিকতা, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, পাঠকের কাছে দায় বদ্ধতা ইত্যাদি ব্যবসায়ীদের কাছে মূখ্য বিষয় নয়। সংবাদপত্র এখনকার মালিকদের কাছে ‘ক্ষমতা’ এবং ‘অস্ত্র’। এই ক্ষমতা দেখিয়ে তারা তাদের ব্যবসাকে সম্প্রসারিত করে। সুদৃঢ় করে। সরকার সংবাদপত্র মালিকদের ভয় পায়। ব্যাংক তো তটস্থ থাকে। তাই পত্রিকা থাকা মানে ব্যবসায়ীদের সব মুশকিল আসান। কর্পোরেট হাউসে এখন সাংবাদিকতা নেই, এক ঝাঁক ক্রীতদাস আছে। যাদের একমাত্র কাজ মালিকদের মনোরঞ্জন করা। এদের মধ্যে যিনি সম্পাদক তিনি হলেন সবচেয়ে বড় ক্লাউন। মালিকদের খুশী করাই তার একমাত্র কাজ। পেশাগত উৎকর্ষতা চুলোয় যাক। যিনি মালিকের স্বার্থ যতো নিবিড়ভাবে সুরক্ষিত করেন তিনি ততো বড় সম্পাদক। এই অস্ত্র প্রয়োগ করে মালিকরা প্রতিপক্ষকে ভয় দেখায়। যারা তাদের কথা শোনে না তাদের এই অস্ত্র দিয়ে ঘায়েল করে। সংবাদপত্রের মালিকানা ব্যবসায়ীদের কাছে একধরনের বর্মের মতো। নিজেদের অপকর্ম, স্বেচ্ছাচারিতা জায়েজ করার জন্য সংবাদপত্রকে তারা ব্যবহার করে। সংবাদপত্রের মালিক হবার কারণে কেউ তাদের অপকর্মের বিরুদ্ধে টু শব্দটি করেনি। এভাবেই চলছে সংবাদপত্র শিল্প। সংবাদপত্র এখন কর্পোরেট ক্রীতদাস। তাই মালিকরা সংবাদপত্র দুই দিন বন্ধ থাকলো না ছয়দিন বন্ধ থাকলো তা নিয়ে ভাবেন না। তারা তাদের ব্যবসা সুরক্ষা পত্রিকা দিয়ে কতটা হলো তা নিয়েই ব্যস্ত। সংবাদপত্র মালিকরা পাঠকের কাছে জবাবদিহিতার বিশ্বাসী নন। তারা দেখেন এই সংবাদপত্র তাদের স্বার্থ কতটা রক্ষা করতে পারছে। ছাপা কাগজ একদিন বের না হলে অনেক সংবাদপত্রের অনেক টাকা সাশ্রয়। এসব বিবেচনা করেই মালিকরা মনে করেছেন পত্রিকা যদি কয়েকটা দিন বন্ধই থাকে, কি এমন ক্ষতি। কিন্তু এই ছয়দিন সংবাদপত্র বন্ধ যে এক ভয়ংকর বার্তা দিলো তাকি মালিকরা অনুধাবন করেন? সংবাদপত্র ছাড়াও যে দেশ চলে, এমন এক ঘোষণাই কি দিলেন না মালিকরা। ভবিষ্যতে এর মূল্য দিতে হবে সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকেই। 

সৈয়দ বোরহান কবীর, নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত
ই-মেইল: poriprekkhit@yahoo.com


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

সরকারের তিন মাস: সেরা অর্জন

প্রকাশ: ০৮:০০ পিএম, ১০ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

প্রথম তিন মাস বর্তমান সরকারের জন্য ছিল অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং। বিশেষ করে ৭ জানুয়ারি নির্বাচনে বিরোধী দল অংশগ্রহণ না করার ফলে এই নির্বাচন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে কতটুকু গ্রহণযোগ্য হয়, নির্বাচনের পর কী ধরনের প্রভাব এবং প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয় সেটি ছিল সকলের কাছে একটি দেখার বিষয়। তবে সরকার প্রথম তিন মাসে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক সংকট গুলোকে ভালোভাবেই মোকাবেলা করতে পেরেছি। এখন পর্যন্ত সরকারের চেষ্টা নিয়ে সাধারণ মানুষের কোন রকম অভিযোগ নেই। 

সরকার এই প্রথম তিন মাসে বেশ কিছু ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করেছে। এর মধ্যে রয়েছে;

১. নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা আদায়: ৭ জানুয়ারি নির্বাচন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। এটি সরকারের একটি প্রধান অর্জন। বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো এই নির্বাচনকে কীভাবে দেখবেন? নির্বাচনের পরে কী ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে তা নিয়ে বিভিন্ন মহলের নানা রকম আগাম পূর্বাভাস ছিল, সংশয় ছিল। কিন্তু এই সংশয় উড়িয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আন্তর্জাতিক গ্রহণযোগ্যতা অর্জনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ সফলতা অর্জন করেছে। নির্বাচনের পর প্রায় সব দেশই নতুন সরকারের সঙ্গে অংশীদারিত্বের সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার বার্তা দিয়েছে। এটি সরকারের জন্য একটি বিরাট অর্জন। এই সরকার যে এত তাড়াতাড়ি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করবে এটা অনেকেই ভাবতে পারেননি। 

২ স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে অনিয়ম দূর করার জন্যই সাঁড়াশি উদ্যোগ: নতুন সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে কিছু বেদনাদায়ক ঘটনা ঘটেছে। সুন্নতে খতনা করতে গিয়ে একাধিক শিশুর মৃত্যু, অবৈধ হাসপাতালে রোগীদের ভুল চিকিৎসার মৃত্যুর পর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যেভাবে প্রতিক্রিয়া দিয়েছে তার সকল মহলে প্রশংসিত হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে হাসপাতালগুলোতে সাঁড়াশি অভিযান শুরু হয়েছে। অবৈধ বেশ কিছু ক্লিনিক হাসপাতাল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যে দুর্নীতির মধ্যে ডুবে ছিল তা এখন হারে হারে টের পাচ্ছে সাধারণ মানুষ। মানুষ সরকারের এই অবস্থানকে সাধুবাদ জানিয়েছে এবং আশা করছে যে, এই ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। নতুন স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে অনিয়ম, দুর্নীতি বন্ধের ক্ষেত্রে তার অবস্থান অটুট রাখবেন এটাই সাধারণ মানুষ প্রত্যাশা করে।

৩. সুলভ মূল্যে পণ্য বিক্রি: এবার দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে সরকার এখন পর্যন্ত সফল হতে পারেনি বটে, তবে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে সরকার সুলভ মূল্যে পণ্য বিক্রির যে বহুমুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে তা বিভিন্ন মহলে প্রশংসিত হয়েছে। বিশেষ করে ভ্যান রমজান মাসে সুলভ মূল্যে দুধ, ডিম, মাংস বিতরণ ব্যাপকভাবে ঢাকা এবং আশেপাশের এলাকাগুলোর মানুষকে সুবিধা দিয়েছে। এই উদ্যোগের সঙ্গে মিলে দেশের ৩৫ টি জেলায় রাজনীতিবিদ, প্রশাসন নিজস্ব উদ্যোগে সুলভ মূল্যে রমজানের পণ্য বিতরণ করার মাধ্যমে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তরমুজ নিয়ে যখন কিছু মধ্যসত্ত্বভোগী লাগামহীন স্বেচ্ছাচারিতা শুরু করেছে তখন কৃষি মন্ত্রণালয় কৃষকের বাজারের মাধ্যমে সুলভ মূল্যে তরমুজ বিক্রি করে একটি নজির স্থাপন করেছে। এটি সরকারের জন্য একটি বড় শিক্ষা যে, বিকল্প চ্যানেলের মাধ্যমে সুলভ মূল্যে পণ্য দিলে বাজার নিয়ন্ত্রণ করার জন্য তা খুব উপকার দেয়।

৪. ব্যাংক একীভূত করা: ব্যাংক একীভূতকরণ উদ্যোগটি নতুন সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পরেই করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে বলা হয়েছে, যে সমস্ত দুর্বল ব্যাংক আছে, সেই দুর্বল ব্যাংকগুলোকে সকল ব্যাংক একীভূত করবে এবং ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় সীমা বেঁধে দিয়েছে। এই নির্দেশনার আলোকে ইতোমধ্যে পদ্মা ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক, রাজশাহী, কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক সহ একাধিক ব্যাংক একীভূত হচ্ছে। এর ফলে আর্থিক খাতে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে। তবে সকলে প্রত্যাশা করেন এ সমস্ত ব্যাংকগুলোকে দেউলিয়া বানানোর ক্ষেত্রে যারা দায়ী তাদেরকেও শাস্তির আওতায় আনতে হবে। তাদেরকে ছাড় দেওয়ার জন্য যেন ব্যাংক একীভূত না হয় সে ব্যাপারে সরকারকে সতর্ক থাকতে হবে।

৫. অবৈধ দালান-কোঠার বিরুদ্ধে অভিযান: বিশেষ করে বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডের পর গৃহায়ন পূর্ত মন্ত্রণালয় অবৈধ দালান এবং অনুমোদিত ভবনের বিরুদ্ধে যে অভিযান শুরু করেছে তা বিভিন্ন মহলে প্রশংসিত হয়েছে। এই উদ্যোগ অব্যাহত রাখতে হবে। সরকারের নতুন গৃহায়ন পূর্ত মন্ত্রী দায়িত্ব নিয়েছেন। তার কাছে মানুষের প্রত্যাশা অনেক। বিশেষ করে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ একটি দুর্নীতিমুক্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে দাঁড়াবে এই প্রত্যাশা। এখন পর্যন্ত যে অভিযান চলছে সেই অভিযান সরকারের সফল উদ্যোগের একটি বলেই অনেকে মনে করছেন। এছাড়াও সরকার সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কিছু ভালো কাজ করছে, যে কাজগুলো ফলাফল পেতে সাধারণ মানুষকে অপেক্ষা করতে হবে। 


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

তোফায়েল আহমেদ: রাজনীতিতে অস্তমিত সূর্য

প্রকাশ: ১১:০০ পিএম, ০৯ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

তোফায়েল আহমেদ কি রাজনীতিতে এক অস্তমিত সূর্য? তিনি কি নিভে যাচ্ছেন? বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে তিনি কি নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে অবসরে চলে যাচ্ছেন—এমন প্রশ্নগুলো এখন খুব বড় করে সামনে এসেছে। কারণ সাম্প্রতিক সময়ে যারা তোফায়েল আহমেদকে দেখেছেন তারা আগের তোফায়েল আহমেদের ছায়াকেও দেখতে পারেননি। যে তোফায়েল আহমেদ ছিল সরব, যার ভরাট কণ্ঠস্বরে জাতীয় সংসদ প্রকম্পিত হত, যিনি সবসময় সবাইকে চমকে দিতেন বিভিন্ন দিন তারিখের হিসেব মুখস্থ বলে দিয়ে, যার সবসময় শত শত টেলিফোন নম্বর, বাড়ির ঠিকানা মুখস্থ থাকত, যা স্মৃতিশক্তি নিয়ে সকলে প্রশংসা করত, রাজনীতিতে যিনি একজন যুবরাজের মত পদচারণা করতেন, নানা রকম বিতর্কের পরও তিনি স্বমহিমায় উজ্জ্বল ছিলেন সেই তোফায়েল আহমেদ এখন কোথায়? 

এবার দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তোফায়েল আহমেদ জয়ী হয়েছেন। সংসদে তাকে দেখা যায় কদাচিৎ। তবে তিনি এখন শারীরিক অসুস্থতার কারণে অনেকটাই বিপর্যস্ত অবস্থায় রয়েছেন। বিশেষ করে একাধিক অসুস্থতা তাকে এখন স্বাভাবিকভাবে হাঁটা চলা করতে দেয় না। তার কণ্ঠস্বরের তেজও কেড়ে নিয়েছে তার একের পর এক অসুখ। 

তোফায়েল আহমেদের এক পাশ অনেকটাই অবশ হয়ে গেছে। আর এ কারণেই তিনি স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারেন না। তবে এখনও তিনি লেখালেখি করেন এবং নানারকম রাজনৈতিক আলোচনায় তাকে আগ্রহীও দেখা যায়। তবে আগের যে তোফায়েল আহমেদ, যিনি যে কোন রাজনৈতিক আড্ডা এবং রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে মধ্যমণি হিসেবে সবাইকে মাতিয়ে রাখতেন, যার দিকে তাকিয়ে থাকত লক্ষ লক্ষ জনতা সেই তোফায়েল আহমেদ এখন নেই। 

অনেকেই মনে করেন যে, রাজনৈতিক অসুস্থতার চেয়ে মানসিক ভাবেই তোফায়েল আহমেদ বেশি বিপর্যস্ত। বিশেষ করে পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর তার ভূমিকা নিয়ে নতুন করে বিতর্ক শুরুর প্রেক্ষাপটেই রাজনীতিতে তিনি নিজেকে আস্তে আস্তে গুটিয়ে ফেলতে শুরু করেছেন। 

গত বছর আগস্টে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় শোক দিবসের স্মরণে এক লেখায় কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য উপস্থাপন করেছিলেন। সেখানে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লিখেছিলেন যে, বঙ্গবন্ধু যখন আক্রান্ত হন, ৩২ নম্বর যখন খুনিরা ঘিরে ফেলে তখন তিনি বেশ কয়েক জনকে ফোন করেছিলেন। তাদের মধ্যে একজন ছিলেন তোফায়েল আহমেদে। হতাশাজনক হলেও তোফায়েল আহমেদ সেই টেলিফোনের পর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেননি। এই লেখাটির পর আওয়ামী লীগের মধ্যে তা নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছিল। অনেকে এটা নিয়ে হৈ চৈ করেছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তোফায়েল আহমেদ এর প্রতিবাদও করতে পারেনি। কারণ আওয়ামী লীগ সভাপতিকে যারা চেনেন তারা সকলেই জানেন যে, বঙ্গবন্ধুর প্রশ্নে তিনি তথ্য প্রমাণ ছাড়া কোন বক্তব্য দেন না। এই ঘটনার পর আকস্মিকভাবে তোফায়েল আহমেদ অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। তাকে চিকিৎসার জন্য বাইরেও নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। অনেকে মনে করেছিলেন তিনি হয়ত নির্বাচন করবেন না। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন এবং বিজয়ী হয়েছেন অসুস্থ শরীর নিয়ে। 

এখন তিনি জাতীয় সংসদে আসেন বটে তবে আগের মত সরব উপস্থিতি তার নেই। হয়ত রাজনীতির জীবনে তিনি শেষ প্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছেন। তবে রাজনীতির ইতিহাসে তোফায়েল আহমেদ চিরকাল বেঁচে থাকবেন। তার রাজনৈতিক জীবনের দুটি ভাগ সবসময় আলোচিত থাকবে। একটি হল স্বাধীনতা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর একান্ত বিশ্বস্ত সহচর হিসেবে তরুণ তুখোড় ছাত্রনেতা তোফায়েল আহমেদ। আরেকটি হল পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টে তার বিতর্কিত এবং রহস্যময় ভূমিকা। কোন তোফায়েল আহমেদ ইতিহাসে বেশি আলোচিত থাকবেন তা সময়ই বলে দেবে।



তোফায়েল আহমেদ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন