ইনসাইড বাংলাদেশ

মেট্রোরেলের টিকিটে কর বসাতে চায় এনবিআর, কোম্পানিটির ‘না’

প্রকাশ: ০৮:১৬ পিএম, ১৯ মার্চ, ২০২৩


Thumbnail মেট্রোরেলের টিকিটে কর বসাতে চায় এনবিআর, কোম্পানিটির ‘না’।

মেট্রোরেলের টিকিটের ওপর ভ্যাট (মূল্য সংযোজন কর) বসানোর প্রস্তাব করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ভ্যাট বিভাগ। কিন্তু ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিডেট বা মেট্রোরেল কোম্পানি এই ভ্যাট দিতে চায় না। তাদের যুক্তি, মেট্রোরেলে অভিজাত শ্রেণি ভ্রমণ করে না, সাধারণ মানুষ ভ্রমণ করে।

জানা গেছে, গত ২২ জানুয়ারি ঢাকা দক্ষিণ ভ্যাট কমিশনারেটের কমিশনার শওকত আলী সাদী ভ্যাট আরোপের আহ্বান জানিয়ে ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডকে (মেট্রোরেল কোম্পানি) চিঠি দেন। ওই চিঠিতে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত কোচ হিসেবে মেট্রোরেল চলাচলকারী যাত্রীদের টিকিটে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপের কথা বলা হয়।

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে ঢাকা মেট্রোরেল কোম্পানি ওই চিঠির জবাব দেয়। জবাবে বলা হয়, মেট্রোরেলে সব শ্রেণির মানুষ একই ভাড়া দিয়ে ওঠেন। তাই এ ধরনের পরিবহনে ভ্যাট প্রযোজ্য হবে না। মেট্রোরেল কোম্পানির এই জবাব পাওয়ার পর সম্প্রতি ঢাকা দক্ষিণ ভ্যাট কমিশনারেট থেকে এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা চেয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) চিঠি পাঠানো হয়েছে। এখনো নির্দেশনা মেলেনি।

ভ্যাট আইন অনুযায়ী, যেকোনো শীতাতপনিয়ন্ত্রিত রেলের টিকিটে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপের বিধান আছে। ঢাকার মেট্রোরেল পুরোপুরি শীতাতপনিয়ন্ত্রিত এবং এটি গণপরিবহন।

এ বিষয়ে ঢাকা মেট্রোরেল কোম্পানির পরিচালক ও কোম্পানি সচিব মোহাম্মদ আবদুর রউফ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ভ্যাট আইন অনুযায়ী রেলের শীতাতপনিয়ন্ত্রিত কোচের বা এসি টিকিটের ওপর ভ্যাট আরোপ আছে। এ ক্ষেত্রে দর্শনটি হলো, একই ট্রেনে নন-এসি টিকিটও আছে। টিকিটেও শ্রেণি বিভেদ আছে। সাধারণত অভিজাত শ্রেণির যাত্রীরা এসি টিকিট কাটেন। তাঁদের ক্ষেত্রে ভ্যাট আরোপ ঠিক আছে। ’

কিন্তু মেট্রোরেলে সবার জন্য একই মূল্যের একই ধরনের টিকিট- এ কথা উল্লেখ করে মোহাম্মদ আবদুর রউফ বলেন, ‘আমাদের উদ্দেশ্য, নিম্ন আয়, নিম্নমধ্যম আয়ের মানুষসহ সব শ্রেণির মানুষ মেট্রোরেলে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে দ্রুত যাবেন। তাই ভ্যাট আরোপ করা ঠিক হবে না। ’

ভ্যাট আরোপ করলে মেট্রোরেলের ভাড়া আরও বাড়বে বলেও উল্লেখ করেন ঢাকা মেট্রোরেল কোম্পানির পরিচালক।


মেট্রোরেল   টিকিট   কর   এনবিআর   কোম্পানি   না  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

তাপপ্রবাহ: ইসতিসকার নামাজসহ ব্যাঙের বিয়ে, বৃষ্টি হবে কবে?

প্রকাশ: ০৮:৪৩ এএম, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

দেশের বেশিরভাগ এলাকার ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে তীব্র তাপপ্রবাহ। দাবদাহে নাভিশ্বাস উঠেছে মানুষের। হিটস্ট্রোকে নয়জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। বন্ধ রয়েছে স্কুল-কলেজ।

গতকাল মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টির জন্য সৃষ্টিকর্তার কৃপা কামনা করে ইসতিসকার নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা। এ ছাড়া বৃষ্টির আশায় রাজশাহী ও নাটোরে ধুমধাম করে ‘ব্যাঙের বিয়ে’ দেওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে এখনই বড় ধরনের বৃষ্টিপাত হয়ে তাপমাত্রা কমার কোনো সম্ভাবনা দেখছে না আবহাওয়া অধিদফতর।

আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, আজ চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ী ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি হতে পারে। শিলাবৃষ্টিও হতে পারে কোথাও কোথাও। তবে ঢাকাসহ দেশের অন্য কোথাও বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। ফলে তাপপ্রবাহ আজ আরও বিস্তার লাভ করতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদ মো. বজলুর রশিদ।

এদিকে আবহাওয়া অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, গতকাল রাজশাহী, পাবনা, খুলনা, বাগেরহাট, যশোর ও পটুয়াখীলী জেলার ওপর দিয়ে তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছিল। এ ছাড়া মৌলভীবাজার, রাঙামাটি, চাঁদপুর, বান্দরবান জেলাসহ ঢাকা, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগ এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের অবশিষ্টাংশের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে, যা আরও বিস্তার লাভ করতে পারে। আজ সারা দেশে দিনের তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে, অপরিবর্তিত থাকতে পারে রাতের তাপমাত্রা। বাতাসে জলীয় বাষ্প বেশি থাকায় অস্বস্তি বিরাজ করবে। আগামীকাল সিলেট বিভাগের দুয়েক জায়গায় কিছুটা বৃষ্টি হতে পারে। তবে বিরাজমান তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে। পরবর্তী পাঁচ দিনের আবহাওয়ায় উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই।

গতকাল মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় রাজশাহী বিভাগের পাবনার ঈশ্বরদীতে ৪০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকা বিভাগে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল গোপালগঞ্জে ৩৯.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, রংপুর বিভাগের দিনাজপুরে ৩৯.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সিলেট বিভাগের শ্রীমঙ্গলে ৩৬.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, চট্টগ্রাম বিভাগের বান্দরবানে ৩৭.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস, খুলনা বিভাগের যশোর ও খুলনায় ৪০.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বরিশাল বিভাগের পটুয়াখালীর খেপুপাড়ায় ৪০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও ময়মনসিংহে ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল তাপমাত্রা তুলনামূলক কম ছিল চট্টগ্রাম বিভাগে। এ বিভাগের অধিকাংশ স্থানে তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে ছিল।

ইসতিসকার নামাজ আদায়

বৃষ্টির জন্য সৃষ্টিকর্তার কৃপা কামনা করে গতকাল ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ইসতিসকার নামাজ আদায় ও বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় দুহাত তুলে চোখের পানি ফেলেন মুসল্লিরা। রাজধানীর আফতাবনগর ঈদগাহ মাঠে গতকাল সকালে শায়খ আহমাদুল্লাহর ইমামতিতে ইসতিসকার নামাজ আদায় করেন শতাধিক মুসল্লি। নামাজ শেষে মুসল্লিদের নিয়ে খুতবা ও দোয়া করেন শায়খ আহমাদুল্লাহ।

এ সময় তিনি বলেন, বনায়ন ধ্বংসের কারণে প্রতিবছর তাপমাত্রা বাড়ছে। এখনই সচেতন না হলে সামনের দিনে আরও বিপদে পড়তে হবে।

খুলনা নগরীর শহীদ হাদিস পার্কে গতকাল সকাল ১০টায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর সভাপতি মাওলানা আবদুল আউয়ালের ইমামতিতে ইসতিসকার নামাজ আদায় করেন মুসল্লিরা। বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে তিন দিনব্যাপী ইসতিসকার নামাজের আয়োজন করা হয়েছে। গতকাল প্রথম দিনে ইসতিসকার নামাজ আদায় করেন পাঁচ শতাধিক মুসল্লি। মোরেলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট মো. মনিরুল হক তালুকদারের আহ্বানে গতকাল সকাল ৭টায় উপজেলা সদর আবদুল আজিজ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে এ নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। নামাজ ও দোয়া পরিচালনা করেন মোরেলগঞ্জ বাজার চাউলাপট্টি জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব প্রভাষক মাওলানা মোহাম্মদ আলী।

এছাড়া চুয়াডাঙ্গা, লালমনিরহাট, নীলফামারী, নাটোরের লালপুর, পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া, বরগুনার পাথরঘাটায় বৃষ্টি কামনায় মুসল্লিরা ইসতিসকার নামাজ আদায় করেন বলে জানিয়েছেন আমাদের সংবাদকর্মীরা।

ব্যাঙের বিয়ে

গতকাল মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার তাঁতারপুর গ্রামে ব্যাঙের বিয়ে দেন স্থানীয়রা। ‘আল্লাহ মেঘ দে, পানি দে, ছায়া দে রে’ গানটি গেয়ে ষাটের অধিক বাড়িতে বৃষ্টির জন্য আর্তনাদ করেন তাঁতারপুর গ্রামের শিশুসহ একদল নারী-পুরুষ। প্রতীকী পুকুর খননের পর ব্যাঙের বিয়ে দেওয়া হয়। সন্ধ্যায় গ্রামের ওসিমুদ্দিন মণ্ডলের আমবাগানে ভোজের আয়োজন করা হয়।

অন্যদিকে, এর আগেরদিন সোমবার (২২ এপ্রিল) দুপুরে নাটোরের লালপুর উপজেলার বিলমাড়িয়া ইউনিয়নের নাগশোষা গ্রামে মহাধুমধাম করে ব্যাঙের বিয়ে দিয়েছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। বিয়ের জন্য ছায়াম গায়েহলুদ, আশীর্বাদ, ধান-দূর্বা, ভোজন সব আয়োজনই ছিল। বিয়েতে নিমন্ত্রিত ব্যক্তিরাও ব্যাঙ দম্পতিকে দিয়েছেন অর্থসহ বিভিন্ন ধরনের উপহার। হয় এ 


তাপপ্রবাহ   ইসতিসকার নামাজ   ব্যাঙের বিয়ে  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

স্বজনপ্রীতিতে ভেঙে পড়েছে চেইন অব কমান্ড

প্রকাশ: ০৮:২৫ এএম, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

সন্তান, আত্মীয়স্বজনদের উপজেলা নির্বাচন থেকে বিরত না রাখার কারণে, শাস্তির মুখোমুখি পড়তে যাচ্ছেন এমপি-মন্ত্রীরা। দলীয় সভানেত্রীর কড়া নির্দেশনার পরও তারা তাদের এ ধরনের কাজ জারি রেখেছে।

৩০ এপ্রিল আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে এ ব্যাপারে কঠোর সিদ্ধান্ত হতে পারে বলে একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা জানিয়েছেন। রাজনীতি-বিশ্লেষকরা বলছেন, টানা চার মেয়াদে ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগের দলীয় চেইন অব কমান্ড ভেঙে পড়েছে।

এমপি-মন্ত্রী এমনকি কিছু কেন্দ্রীয় নেতাও দলীয় প্রধানের নির্দেশনা মানেননি। এটা সংগঠনবিরোধী কার্যক্রম। শৃঙ্খলা-পরিপন্থি কাজ। দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করলে বহিষ্কারসহ নানা শাস্তির কথা গঠনতন্ত্রে রয়েছে। এর আগে একাধিকবার গঠনতন্ত্রবিরোধী কাজে জড়িত থাকার অপরাধে কাউকে কাউকে বহিষ্কার করা হলেও পরে আবার সাধারণ ক্ষমা পেয়েছেন। দলীয় পদবি এমনকি মনোনয়নও দেওয়া হয়েছে তাদের। সে কারণে এবারের উপজেলা নির্বাচনেও দলীয় সভানেত্রীর নির্দেশনা আমলে নেননি অনেক এমপি-মন্ত্রী।

প্রথম ধাপের ভোটে গত সোমবার ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। শেষ দিনেও নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াননি এমপি-মন্ত্রীদের স্বজনরা। এসব প্রার্থীর বিষয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, যারা দলীয় নির্দেশ অমান্য করে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, তারা মূলত দলের শৃঙ্খলা মেনে চলছেন না। দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ অমান্য করছেন। তাদের বিষয়ে দল অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেবে।

৩০ এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টায় গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে দলীয় নির্দেশ অমান্যকারীদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রাজশাহী সিটি মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘উপজেলা নির্বাচন গ্রহণযোগ্য ও সর্বজনীন করার জন্য দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপি-মন্ত্রীদের বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছিলেন। এ চাপ এখনো বহাল রয়েছে। প্রথম ধাপের ভোটে কিছু এমপি-মন্ত্রী দলীয় সভানেত্রীর নির্দেশনা রেখেছেন। কেউ কেউ রাখেননি। এখনো সময় ফুরিয়ে যায়নি। আশা করি তারা দলীয় প্রধানের কথা রাখবেন। যারা দলীয় সভানেত্রীর কথা রাখেননি, তাদের ব্যাপারে ৩০ এপ্রিল দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে।’

জানা গেছে, কেন্দ্রীয় নির্দেশ অমান্য করার পেছনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা নিজের পক্ষে নানা যুক্তিও দিচ্ছেন। প্রথম ধাপের নির্বাচনে দলের নির্দেশনা এসেছে ১৮ এপ্রিল। আর প্রথম ধাপের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল ১৫ এপ্রিল। এজন্য কোথাও কোথাও মন্ত্রী-এমপিদের স্বজনরা একমাত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী কিংবা আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী হয়ে গেছেন। তাদের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীও নেই। স্থানীয় মন্ত্রী-এমপিরা নিজেদের স্বজনদের প্রার্থী ঘোষণা করায় অন্যরা আর প্রার্থী হওয়ার সাহস পাননি। প্রথম ধাপের ভোটে অনেক এমপি-মন্ত্রী দলীয় সভানেত্রীর কথা তো শোনেনইনি, দ্বিতীয় ধাপেও এ প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখতে দেনদরবার শুরু করেছেন কেউ কেউ।

দ্বিতীয় ধাপে কুমিল্লা সদর আসনে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন কুমিল্লা-১০ আসনের এমপি, সাবেক অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের ছোট ভাই গোলাম সারোয়ার। আ হ ম মুস্তফা কামাল সম্প্রতি দলের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের কাছে এসেছিলেন তাঁর ভাইয়ের পক্ষে দলীয় নেতা-কর্মীকে কাজ করতে যেন কুমিল্লা সদর আসনের এমপি আ ক ম বাহারউদ্দিন বাহারকে ফোন করেন। এ সময় দলের সাধারণ সম্পাদক সরাসরি না করে দেন। একই সঙ্গে দলীয় সভানেত্রীর নির্দেশনা মানার কথা বলেন সাবেক অর্থমন্ত্রীকে।

সুনামগঞ্জ-৪ আসনের এমপি মোহাম্মদ সাদিকের ভাগনে ফজলে রাব্বী স্বরনও সদর আসনে প্রার্থী হিসেবে প্রচার চালাচ্ছেন।

প্রথম ধাপে যেসব এমপি-মন্ত্রীর স্বজন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি তাঁদের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শাজাহান খানের ছেলে আসিবুর রহমান খান এবং চাচাতো ভাই পাভেলুর রহমান (শফিক) খান মাদারীপুর সদর উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

আওয়ামী লীগের আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও টাঙ্গাইল-১ আসনের এমপি ড. আবদুুর রাজ্জাকের দুই স্বজন তাঁর নির্বাচনি এলাকায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আবদুর রাজ্জাকের খালাতো ভাই হারুন অর রশিদ হীরা ও মামাতো ভাই মো. মঞ্জুরুল ইসলাম তপন ধনবাড়ী উপজেলায় নির্বাচনি মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সিদ্ধান্তে অটল আছেন।

শেষ দিনেও কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী আতাউর রহমান আতা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি। আতা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফের চাচাতো ভাই।

গাজীপুর-১ আসনের এমপি ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের আপন ভাতিজা পরিচয় দেওয়া মুরাদ কবীর গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি। তবে মোজাম্মেল হক বলেছেন, মুরাদ তার আপন ভাতিজা নন, দূর সম্পর্কের ভাতিজা।

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নানের ছেলে সাখাওয়াত হোসেন ও পাশের সোনাতলা উপজেলায় তাঁর ভাই মিনহাদুজ্জামান উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেননি।

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দিনাজপুর-৫ আসনের এমপি মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের ছোট ভাই উপজেলা নির্বাচন করার সিদ্ধান্তে অনড় রয়েছেন।

ঠাকুরগাঁও-২ আসনের এমপি মাজহারুল ইসলাম সুজনের চাচা মোহাম্মদ আলী, চাচাতো ভাই আলী আফসার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াননি।

পাবনার বেড়া উপজেলায় প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেননি ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর ভাই সাবেক বেড়া পৌর মেয়র আবদুল বাতেন।

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারের ভাগনে জাহাঙ্গীর হোসেন সোহেল নির্বাচন করছেন।

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলায় বর্তমান এমপি আলী আজগর টগরের পরিবারের দুজন অংশ নিচ্ছেন। এঁরা হলেন ভাই আলী মুনছুর বাবু এবং তাঁদের চাচা সহিদুল ইসলাম।

নীলফামারী-১ আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকারের চাচাতো ভাই আনোয়ারুল হক সরকার মিন্টু ও ভাতিজা ফেরদৌস পারভেজ নির্বাচন করছেন।

নেত্রকোনা-১ আসনের এমপি মোশতাক আহমেদ রুহির চাচাতো ভাই মুহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান কলমাকান্দা উপজেলা চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি।

মানিকগঞ্জ-৩ (মানিকগঞ্জ সদর ও সাটুরিয়া উপজেলা) আসনের এমপি ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের আপন ফুপাতো ভাই মো. ইসরাফিল হোসেন রয়েছেন নির্বাচনে।

প্রথম ধাপে নরসিংদীর পলাশ উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেননি আলহাজ শরীফুল হক। সম্পর্কে তিনি স্থানীয় সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপের স্ত্রীর বড় ভাই।

মৌলভীবাজার-১ আসনের এমপি ও সাবেক মন্ত্রী শাহাব উদ্দিনের ভাগনে শোয়েব আহমদ বড়লেখা উপজেলায় প্রার্থী হয়েছেন।

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে মাঠে থাকলেন সাবেক মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী ও পিরোজপুরে-১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিমের ছোট ভাই এস এম নুরে আলম সিদ্দিকী।

নোয়াখালী-৬ আসনের এমপি মোহাম্মদ আলীর ছেলে আশিক আলী অমি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। নোয়াখালী ৪ (সদর-সুবর্ণচর) আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরীর একমাত্র ছেলে আতাহার ইসরাক শাবাব চৌধুরী সুবর্ণচর উপজেলায় প্রার্থী হয়েছেন। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘উপজেলা নির্বাচন নিয়ে দলীয় সভানেত্রী যে নির্দেশনা দিয়েছেন, সেখানে অনেকের বোধোদয় হয়নি। শুভবুদ্ধির উদয় হয়নি। যারা দলীয় প্রধানের নির্দেশনা মানেন না, জনগণও তাদের সেভাবেই মূল্যায়ন করবে। ৩০ এপ্রিল দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

দলের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেন, ‘দলীয় সভানেত্রীর নির্দেশনা না মানা অত্যন্ত দুঃখজনক। দলীয় ফোরামে আলোচনা করেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’


উপজেলা নিবার্চন   স্বজনপ্রীতি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

রানা প্লাজা ট্রাজেডি: বিচার ও পুনর্বাসনের অপেক্ষায় ভুক্তভোগীরা

প্রকাশ: ০৮:১৭ এএম, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

২০১৩ সালে ঢাকার সাভারে রানা প্লাজা ধসের ১১ বছর হচ্ছে আজ। বুধবার (২৪ এপ্রিল) ওই ঘটনায় বেঁচে ফেরা শ্রমিকরা এখনো পুনর্বাসন বা বিচার পাননি বলে জানিয়েছেন। তাদের দাবি, অবিলম্বে ওই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার ও পুনর্বাসন করা হোক।

দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় শ্রমিক হতাহতের ঘটনায় ১১ বছর আগের ২৪ এপ্রিলে রানা প্লাজার নিচে চাপা পড়েন কয়েকটি পোশাক কারখানার ৫ হাজারের মতো শ্রমিক।

কয়েকদিনের উদ্ধার তৎপরতায় ১,১৭৫ জনের লাশ তুলে আনা হয়। পঙ্গুত্ব বরণ করেন আরও ১ হাজার ১৬৯ জন।

ওই সময় জানা গেছে, ২০১৩ সালের ২৩ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৯টায় সাভারের রানা প্লাজা ভবনের তৃতীয় তলায় পিলার ও দেয়ালে ফাটল দেখা দেয়। খবর পেয়ে বিজিএমইএ কর্মকর্তারা রানা প্লাজায় আসেন। তারা ওই ভবনের গার্মেন্ট মালিকদের পরামর্শ দেন-বুয়েটের ভবন বিশেষজ্ঞদের দিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করা পর্যন্ত সব কার্যক্রম যেন বন্ধ রাখা হয়।

তবে পাঁচ গার্মেন্টস মালিক এবং তাদের লোকজন ভয়ভীতি দেখিয়ে পর দিন (২৪ এপ্রিল) শ্রমিকদের কাজে যোগ দিতে বাধ্য করেন। এর সঙ্গে যোগ দেন রানা প্লাজা ভবনের মালিক খালেক ও সোহেল রানা। পরে এ দিনই (২৪ এপ্রিল) ধসে পড়ে রানা প্লাজা।

ওই ঘটনায় মোট ৩টি মামলা হয়। এর মধ্যে শ্রমিকদের মৃত্যুতে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ এনে মামলা করে পুলিশ। ইমারত নির্মাণ আইন লঙ্ঘন করে ভবন নির্মাণের অভিযোগে অপর মামলাটি করে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। আর ভবন নির্মাণসংক্রান্ত দুর্নীতি নিয়ে আরেকটি মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দায়ের করা এসব মামলার বিচার চলছে ধীরগতিতে। আর ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া সেই ভবন নির্মাণে ত্রুটি থাকার অভিযোগে ইমারত নির্মাণ বিধিমালা আইনে দায়ের করা মামলাটির জট খোলেনি এখনো। দীর্ঘদিন হাইকোর্টে স্থগিত হয়ে আছে এটি। হাইকোর্টে শুনানির কোনো উদ্যোগ নেই।

এদিকে ১১ বছরেও এখনো পঙ্গুত্ব নিয়ে বাঁচার লড়াই করছেন অনেকেই। অসুস্থতা আর দারিদ্র্যতা নিয়ে দীর্ঘদিন বসবাস করে আসলেও কেউ তাদের পুনর্বাসনে এগিয়ে আসেনি বলে অভিযোগ শ্রমিকদের।

রানা প্লাজার আহত শ্রমিক তাসলিমা বেগম বলেন, মেরুদণ্ড ও পায়ে আঘাত পাইছি আমি। এত বছর ধরে কাজ করতে পারি না। অনেক কষ্টে পরিবার নিয়ে আছি। রানা প্লাজা ধসের এত দিন হয়ে গেছে আমাদের কেউ খবর নেয় নাই। আমরা কারও কাছে ভিক্ষা চাই না। আমাদের ন্যায্য পাওনা বুঝায় দেওয়া হোক।

রানা প্লাজার একটি কারখানার সুইং অপারেটর নীলুফা বেগম ধসে পড়ার ঘটনায় মারাত্মক আহত হয়েছিলেন। তিনি বলেন, রানাপ্লাজা ধসে পড়ার এত বছর হয়ে যায়, তারপরও আমাদের কোনো খোঁজ কেউ নেয় না। আমার একটা পা মারাত্মকভাবে আহত। অপারেশনের জন্য ৭ লাখ টাকা লাগবে। আজ পর্যন্ত বায়ার, মালিক কিংবা সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের কোনো খোঁজখবর কেউ রাখেনি। বিনা চিকিৎসায় এখন পর্যন্ত ১৩ জন মারা গেছে।

বাংলাদেশ গার্মেন্ট ও সোয়েটার্স শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের আইনবিষয়ক সম্পাদক খাইরুল মামুন মিন্টু বলেন, রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির ১১ বছরে এসেও আমাদের দাবি যেগুলো ছিল তার কিছুই পূরণ হয়নি। চিকিৎসা আর পুনর্বাসনের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। আহত ও ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিক পরিবারগুলো মানবেতর দিন পার করছে। তাই সরকার ও বিজিএমইএর প্রতি দাবি দ্রুত শ্রমিকদের কিছু সহায়তা দেওয়া হোক।

এদিকে, রানা প্লাজায় হতাহতদের স্মরণে মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সকালে সাভার রানা প্লাজার সামনে ‘রানা প্লাজা হত্যাকাণ্ডের ১১ বছর : হাজারো প্রাণ ও স্বপ্নের গল্প’ শীর্ষক আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা সভা আয়োজন করে বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতি।

এতে চার আলোকচিত্রীর তোলা ছবি ও পোশাক শ্রমিকদের সন্তানদের সাতজনের আঁকা ছবি, জীবিত থাকা অবস্থায় স্টুডিওতে তোলা ২০ শ্রমিকের ছবি প্রদর্শন করা হয়।

এর মধ্যে একটি ছবি নিহত শাহেদুলের। স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে স্টুডিওতে ছবি তুলে, ব্যাকড্রপে উড়োজাহাজের ছবি দেওয়া। হয়তো উড়োজাহাজে চড়ার স্বপ্ন ছিল তার।

আরেকটি ছবি ছিল নিহত আঁখির। হয়তো সমুদ্র ভালোবাসতেন তিনি। কিন্তু যাওয়া হয়নি কখনো। তাই স্টুডিও থেকে স্বপ্নের ছবি তৈরি করিয়ে নেন সেই সমুদ্রের পাড়ে। আখি আক্তার (১৮) ও তার বন্ধুরা রানা প্লাজার সপ্তম তলার নিউ ওয়েব স্টাইল লিমিটেড কারখানায় কাজ করতেন। বন্ধুদের সঙ্গে পহেলা বৈশাখ-১৪২০ (১৪ এপ্রিল, ২০১৩) এই ছবিটি তোলা। তার ঠিক ১০ দিন পর ২৪ এপ্রিল ২০১৩ রানা প্লাজা ধসের পর থেকে আঁখি নিখোঁজ। এই ছবির কেবল একজন বেঁচে আছে। আঁখিসহ এই ছবির সবাই নিহত বা নিখোঁজ।

আয়োজকরা জানান, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ধসে এসব শ্রমিকের প্রাণ ও স্বপ্ন নিঃশেষ হয়ে যায়। রানা প্লাজার সামনে প্রদর্শনী করে আবারও সেই অতীতের স্মৃতিকে সামনে আনা হয়েছে। এ ঘটনাকে ইতিহাসে বাঁচিয়ে রাখতে এবং তরুণদের লড়াইয়ে প্রেরণা দিতেই এই প্রদর্শনী। রানা প্লাজার শ্রমিকদের মতো যাতে আর কাউকে অকালে মরতে না হয়, এ প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে সেই বার্তাই দিতে চেয়েছেন তারা।


রানা প্লাজা ধস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

রাষ্ট্রপতির এক বছর

প্রকাশ: ০৮:০০ এএম, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

আজ ২৪ এপ্রিল। রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিনের দায়িত্ব গ্রহণের এক বছর পূর্তি আজ। গত বছর এই দিনে বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন মো. সাহাবুদ্দিন। তিনি এমন এক সময় রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন যখন বাংলাদেশের গণতন্ত্রের ভবিষ্যত নিয়ে এক ধরনের শঙ্কা দেখা দিয়েছিল। দেশের গণতন্ত্র ঘিরে দেশি বিদেশি নানা ষড়যন্ত্রের ডালপালার কথা শোনা গিয়েছিল। এ রকম পরিস্থিতি গোটা দেশ সহ বিশ্বেরও চোখ ছিল বঙ্গভবনের দিকে। বিশেষ করে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে গণতন্ত্র যেন এক কালো মেঘ দ্বারা আচ্ছন্ন হতে যাচ্ছিল। তবে শেষ পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি তার মেধা, মনন এবং বিচক্ষণতার সাথে দেশে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

নির্বাচনের পরপর নতুন সরকার গঠনের ক্ষেত্রেও বলিষ্ট ভূমিকা রেখেছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। এ সময় তিনি মার্জিত এবং পরিমিত বোধের পরিচয় দিয়েছেন। গণতন্ত্র নিয়ে যে নানা রকম আশঙ্কা কথা শোনা গিয়েছিল এ সময় জাতির অভিভাবক হিসেবে তিনি নিজেকে সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য বলে প্রমাণ করতে পেরেছেন। একজন রাজনীতিবিদ রাষ্ট্রপতি হলে যে তিনি জনবান্ধব হন এবং আদর্শের প্রতি অবিচল থাকেন তার একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

উল্লেখ্য, রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ১৯৭১ সালে পাবনা জেলার স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ছিলেন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে প্রত্যক্ষভাবে অংশগ্রহণ করেন। ছাত্র জীবনে তিনি পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এবং ১৯৭৪ সালে পাবনা জেলা যুবলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মনোবিজ্ঞানে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। পরে পাবনা শহীদ আমিনুদ্দিন আইন কলেজ থেকে এলএলবি পাস করেন।

১৯৭৫ সালে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাণ্ডের পর সামরিক আইনে তিনি তিন বছর কারাগারে বন্দি ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি শেখ মুজিব হত্যা মামলায় আইন মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিযুক্ত সমন্বয়কারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ২০০৬ সালে শ্রম আদালতের চেয়ারম্যান, এবং ২০০৮ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ২০০১ সালে সাধারণ নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী এবং সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীর ওপর হামলা, হত্যা, ধর্ষণ ও লুণ্ঠন ও মানবতাবিরোধী কর্মকাণ্ডের অভিযোগ অনুসন্ধানে গঠিত বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেব দায়িত্ব পালন করেছেন।

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ২০২০ সালের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন।তিনি আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির চেয়ারম্যান হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেন।

সর্বশেষ ২০২২ সালে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলের নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

ব্যক্তিগত জীবনে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন এক পুত্র সন্তানের বাবা এবং তার স্ত্রী প্রফেসর ড. রেবেকা সুলতানা সরকারের সাবেক যুগ্ম সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।


রাষ্ট্রপতি   মো. সাহাবুদ্দিন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

আজ থাইল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ০৭:৫৫ এএম, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী স্রেথা তাভিসিনের আমন্ত্রণে ৬ দিনের সরকারি সফরে আজ থাইল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (২৪ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট সকাল ১০টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করার কথা রয়েছে।

স্থানীয় সময় দুপুর দেড়টায় ব্যাংককের ডন মুয়াং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিমানটি অবতরণের কথা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা লেখক মো. নজরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেন। গত জানুয়ারিতে সরকার গঠনের পর এটিই হবে প্রধানমন্ত্রীর প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফর।

প্রধানমন্ত্রী ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত এ সফর করবেন। সফরকালে থাইল্যান্ডের সঙ্গে সহযোগিতা বাড়াতে দুই দেশের মধ্যে একটি চুক্তি, তিনটি সমঝোতা স্মারক ও একটি আগ্রহপত্র সইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে।

২৬ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীকে আনুষ্ঠানিকভাবে থাই প্রধানমন্ত্রী স্রেথা তাভিসিন স্বাগত জানাবেন এবং তাকে একটি আনুষ্ঠানিক গার্ড অব অনার প্রদান করা হবে।

২৪ থেকে ২৯ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার থাইল্যান্ড সফর উপলক্ষে সোমবার তার মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এটি একটি দ্বিপক্ষীয় ও বহুপক্ষীয় উভয় সফর।’

তিনি বলেন, এই সফর উভয় পক্ষের জন্যই তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ এতে দুই বন্ধুপ্রতিম দেশের (বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ড) মধ্যে সহযোগিতার নতুন জানালা উন্মোচিত হবে।

সফরকালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী থাভিসিনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করবেন এবং জাতিসংঘের এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কমিশনের (ইউএনএসক্যাপ) ৮০তম অধিবেশনে যোগ দেবেন।

আগামী শুক্রবার থাইল্যান্ডের গভর্নমেন্ট হাউসে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। ওই দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সৌজন্যে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী আয়োজিত রাষ্ট্রীয় মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেবেন। সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থাইল্যান্ডের রাজপ্রাসাদে রাজা মহা ভাজিরা-লংকর্ন ফ্রা ভাজিরা-ক্লাচাও-উহুয়া এবং রানী সুধিদা বজ্রসুধা-বিমলা-লক্ষণের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করবেন।


থাইল্যান্ড   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন