ইনসাইড গ্রাউন্ড

হাল ছেড়ে দিচ্ছেন গার্দিওলা, তবে কি চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল?

প্রকাশ: ০৯:০০ এএম, ০২ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

পেপ গার্দিওলা, ক্লাব ফুটবল ইতিহাসের এক অনন্য রত্ন। প্রিমিয়ার লিগ থেকে শুরু করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ- সবখানেই যেন আধিপত্য তার। গেলবারই ম্যানচেস্টার সিটির কোচ হিসেবে জিতেছেন ট্রেবল ও। এবারও সেই দৌঁড়ে শীর্ষের কাতারেই ছিলেন তিনি। তবে গত রোববার দিবাগত রাতে প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে আর্সেনালের সাথে ড্রয়ের পর ভিন্ন এক সুর পেপ গার্দিওলার মুখে। হাল ছেড়ে দিয়ে তিনি বললেন, ‘এটা আর আমাদের হাতে নেই।’

তবে কি টানা চতুর্থ শিরোপা জয়ের দৌড় থেকে ছিটকে পড়ছে গার্দিওলার দল ম্যানচেস্টার সিটি? প্রিমিয়ার লিগে এবার শীর্ষ তিন দলেরই ২৯টি করে ম্যাচ শেষ। এর মধ্যে ৬৭ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে লিভারপুল, দুই পয়েন্ট পেছনে থেকে দুইয়ে আর্সেনাল। আর ৬৪ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে সর্বশেষ তিন আসরের চ্যাম্পিয়ন সিটি। আর এই ধারাবাহিকতা অনুযায়ী ‘যারা প্রথমে আছে, তারাই ফেবারিট। আর্সেনাল দুইয়ে, আমরা তিনে’—এই হচ্ছে গার্দিওলার যুক্তি।

কিন্তু ইতিহাস অনুযায়ী সিটি কোচের যুক্তি বা পয়েন্ট তালিকার বর্তমান অবস্থাকে চূড়ান্ত ধরে নেওয়া ঝুঁকিপূর্ণও। কারণ ঠিক আগের মৌসুমেই ২৯ রাউন্ড শেষে আর্সেনাল ৭২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ছিল। সমান ম্যাচে সিটির পয়েন্ট ছিল ৬৭। কিন্তু মৌসুম শেষে দেখা গেল ২৯ ম্যাচের পর পাঁচ পয়েন্ট পিছিয়ে থাকা সিটিই ৫ পয়েন্ট এগিয়ে থেকে শিরোপাজয়ী!

এমন রদবদলের অন্যতম কারণ ছিল নিজেদের মধ্যে পয়েন্ট কাটাকাটি আর শেষ দিকে গানারদের এলোমেলো হয়ে যাওয়া। এবারও তাই লিভারপুল এগিয়ে যেমন ঠিকই, তেমনি শেষ কথাটা বলে দেওয়া যাচ্ছে না এখনই। তবে শেষ দিকে কার সামনে কী অপেক্ষা করছে, প্রতিপক্ষ কারা, ম্যাচ কোথায়, অন্য প্রতিযোগিতাগুলোর ব্যস্ততা কতটা—এসব মিলিয়ে একটা আভাস পাওয়াই যায়।

শেষ ৯ ম্যাচের হিসাব আমলে নিলে কিছুটা সুবিধাজনক অবস্থানেই আছে লিভারপুল। অ্যাস্টন ভিলা (চতুর্থ স্থান), টটেনহাম (পঞ্চম) আর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (ষষ্ঠ) ছাড়া বাকি সব দলই নিচের দিকের। এর মধ্যে অ্যাস্টন ভিলা ও ইউনাইটেডের বিপক্ষে খেলতে হবে ওদের মাঠে গিয়ে। লিগে ইউনাইটেডের বিপক্ষে সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচের তিনটিতেই জিতেছে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল, একটিতে হার। গত মাসে দুই দলের সর্বশেষ লড়াইয়ে অবশ্য টাইব্রেকারে জিতেছে ইউনাইটেডই (এফএ কাপে)।

ট্রফি–জয়ের পথটা খুব বেশি কণ্টকাকীর্ণ নয় বলে কিছুটা স্বস্তি হওয়ারই কথা লিভারপুল কোচের। মৌসুম শেষে অ্যানফিল্ড ছাড়তে যাওয়া এই জার্মান কোচের মুখে তাই ট্রফি–সম্ভাবনা প্রশ্নে শোনা গেল উপভোগের মন্ত্র, ‘আমরা যদি সামনের সময় উপভোগ করি, তাহলে (ট্রফি জেতার) সুযোগ থাকবে। উপভোগ না করলেও সুযোগ থাকবে, যদিও সেটা কঠিন। যে কারণে এই সময়টা আমরা ইতিবাচক থাকারই চেষ্টা করব।’

ইতিবাচক থাকার চেষ্টা করছেন আর্সেনাল কোচ মিকেল আরতেতাও। লিভারপুলের মতো তাঁর দলের সামনেও ইউনাইটেড, টটেনহামের বিপক্ষে ম্যাচ বাকি। দুটি ম্যাচই প্রতিপক্ষের মাঠে। আছে অ্যাস্টন ভিলা, ব্রাইটন আর চেলসির বিপক্ষে নিজের মাঠে ম্যাচও। চ্যাম্পিয়নস লিগ কোয়ার্টার ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখ প্রতিপক্ষ হওয়ায় সেখানেও বাড়তি মনোযোগ রাখতে হবে আর্সেনালকে। ইউরোপীয় প্রতিযোগিতার কথা ধরলে ম্যানচেস্টার সিটির চাপ অবশ্য আরও বেশি, প্রতিপক্ষের নাম যে রিয়াল মাদ্রিদ।

লিগে অবশ্য সিটির চ্যালেঞ্জ তুলনামূলক কমই। শেষ ৯ ম্যাচের মধ্যে বড় ম্যাচ টটেনহামের মাঠে। তবে লিগের শেষ দিনের ম্যাচ বলে এর আগেই নিজেদের ভাগ্য অনেকটাই জেনে যাবে তারা। নিজেদের কাজটা করে যাওয়ার পাশাপাশি অন্যদের দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া যে বিকল্প নেই!


প্রিমিয়ার লিগ   ফুটবল   ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ   ক্রীড়াঙ্গন   পেপ গার্দিওলা   ম্যানচেস্টার সিটি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

এল ক্লাসিকোতে রাতে মুখোমুখি রিয়াল-বার্সা

প্রকাশ: ০৪:৫৪ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

ফুটবল দুনিয়ায় বাড়তি উত্তেজনা, আর রোমাঞ্চ ছড়ায় এল ক্লাসিকো। দু'দলের লড়াইয়ে দুভাগ ফুটবল বিশ্ব। তবে পয়েন্ট টেবিলে তাদের অবস্থান কিছুটা হলেও রঙ হারায়। বিগ ম্যাচের আগে বিপরীত মেরুতে রিয়াল-বার্সা। চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ চার নিশ্চিত করে উড়ছে লস ব্লাঙ্কোস। আর কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায়ে কালো মেঘ ব্লগরানা শিবিরে। রোববার (২১ এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় মাঠে নামবে এই দুই দল। 

এ মৌসুম পর বার্সেলোর দায়িত্ব ছাড়ছেন জাভি হার্নান্দেজ। তাই স্প্যানিশ ট্যাকটিশিয়ানের জন্য এটিই হতে যাচ্ছে শেষ এল ক্লাসিকো। লিগ শিরোপা ধরে রাখার লড়াইয়ে জয়ের বিকল্প দেখছেন না জাভি। মৌসুমে একমাত্র শিরোপার জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখতে চায় বার্সেলোনা। যদিও কাজটা কঠিন। ৭৮ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষে রিয়াল। আর ৮ পয়েন্ট কম নিয়ে পরের অবস্থানে বার্সেলোনা।

বার্সা কোচ জাভি বলেন, শিরোপা জয়ের রেসে টিকে থাকার শেষ সুযোগ আমাদের। মৌসুমের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ এটি। সবকিছু ভুলে নতুন করে শুরু করতে হবে। তবে মানসিকভাবে আমাদের চেয়ে এগিয়ে থাকবে রিয়াল মাদ্রিদ।

এল ক্লাসিকোর আগে শুধু চ্যাম্পিয়নস লিগের সুখস্মৃতি নয়। শেষ দু’দেখায় জয় আর ঘরের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে খেলা বলে বাড়তি আত্মবিশ্বাসী রিয়াল মাদ্রিদ। তবে বার্সেলোনাকে হালকাভাবে নেয়ার কোনো সুযোগ দেখছেন না কার্লো আনচেলত্তি। এই ম্যাচ জিতে শিরোপা পুনরুদ্ধারের আরও কাছে যেতে চান ইতালিয়ান ট্যাকটিশিয়ান।

মাদ্রিদ কোচ বলেন, বার্সেলোনা কঠিন প্রতিপক্ষ। তারা এখনো শিরোপা রেসে টিকে আছে। তবে আমরা চাই এ ম্যাচ জিতে শিরোপা জয়ের আরও কাছে যেতে। আমি নিশ্চিত, অন্য সব ক্লাসিকোর মতোই হতে যাচ্ছে এটি।

দু’দলেই নেই নতুন কোন ইনজুরি। আগের ২৫৬ দেখায় ১০৪ জয়ে এগিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ। বার্সেলোনা জিতেছে ১০০টি। দু ট্যাকটিশিয়ানের লড়াইয়েও এগিয়ে আনচেলত্তি। তাই এ ম্যাচ জিতে হিসাবটা সমান করে নিতে চাইবেন জাভি।


ফুটবল   রিয়াল   বার্সা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

দুর্দান্ত মেসিতে জয় পেল মায়ামি

প্রকাশ: ০৩:৪০ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

লিওনেল মেসির দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে এমএলএসের ম্যাচে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছেড়েছে ইন্টার মায়ামি। স্পোর্টিং কানসাস সিটির পরে এবার নাশভিলের বিপক্ষে জয়ে বড় ভূমিকা রাখেন বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক।

রোববার (২১ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৫টায় এমএলএসের ম্যাচে চেজ স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় ইন্টার মায়ামি ও নাশভিল। ম্যাচটিতে ৩-১ গোলে জয় পায় মায়ামি। দরের হয়ে জোড়া গোল করেন মেসি। মেসির পাস থেকে বাকি গোলটি করেন সার্জিও বুসকেটস। নাশভিলের হয়ে একমাত্র গোলটি হয় আত্মঘাতি। 

অবশ্য ম্যাচের শুরুতে বড় ধাক্কা খেতে হয়েছে মায়ামি। ম্যাচের দুই মিনিটের সময় দলটির ডিফেন্ডার ফ্রাঞ্চো নেগ্রির আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় নাশভিল। তবে ম্যাচে ফিরতে বেশিক্ষণ সময় নেয়নি মায়ামি। ম্যাচের ১১তম মিনিটে সুয়ারেজের অ্যাসিস্ট থেকে গোল করে ম্যাচে সমতা ফেরার মেসি। 

এরপর ম্যাচের প্রথমার্ধেই লিড নেয় মায়ামি। ৩৯তম মিনিটে মেসির কর্নার কিক থেকে হেড করে দলকে লিড পাইয়ে দেন সার্জিও বুসকেটস। ২-১ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় মায়ামি। 

বিরতি থেকে ফিরে ৮১তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন এলএমটেন। শেষ পর্যন্ত ৩-১ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ইন্টার মায়ামি। 

এর মধ্যদিয়ে আটবারের ব্যালন ডি’অর বিজয়ী তার ক্যারিয়ারে ৮৩০তম গোল করে। আর চলতি মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলে ৯ খেলায় নয়টি গোল করলেন। এমএলএসে ৭টি ও কনকাকাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ২টি গোল করেছেন। পাশাপাশি সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেন ৫টি গোল। 

এ জয়ের ফলে ১০ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে মায়ামি। 


ইন্টার মায়ামি   বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বিশ্বকাপ নিয়ে পাকিস্তানের সমর্থকদের ‘সুখবর’ দিলেন আমির

প্রকাশ: ০৩:২১ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

চলতি বছরই রয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। বৈশ্বিক এই আসরকে সামনে রেখে ইতোমধ্যেই দলগুলো নিজের পরিকল্পনা শুরু করেছে। এবারের বিশ্বকাপকে সামনে রেখে নিজেদের সেরা দল গঠনে বেশ মনোযোগী পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। দলের শক্তিমত্তা বৃদ্ধির লক্ষ্যে অবসর ভেঙে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেছেন পাক পেসার মোহাম্মদ আমির। দলে ফিরেই পাকিস্তানের সমর্থকদের দিলেন সুখবর। 

প্রায় চার বছর মাঠের বাইরে থাকার পর পাকিস্তানের জার্সিতে মাঠে নামেন আমির। তিনি জানান, স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য নিয়েই ফিরেছেন তিনি। আসন্ন বিশ্বকাপ জয়ের লক্ষ্যেই তাকে দলে ফেরানো হয়েছে বলেও জানান এই পেসার। 

আমির বিশ্বাস করেন, অবসরের আগে তিনি যে টুর্নামেন্টগুলোতে খেলেছিলেন সেগুলোতে দল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার রেকর্ড আছে। এবারও সেই ধারা অব্যাহত রাখতে চান তিনি। আমির বলেন, ‘আমি ২০০৯ সালে প্রথমবার আসি এবং পাকিস্তান বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়। ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনাল খেলি, যেখানে দল চ্যাম্পিয়ন হয়। পিসিবি ম্যানেজমেন্ট আমাকে স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য দিয়ে ফিরিয়ে এনেছে, সেটা হলো বিশ্বকাপ।’

এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের জার্সিতে বিশেষ কিছু করে দেখাতে চান আমির। নিজের ফিটনেস নিয়ে এই পাক পেসার জানান, ২০১৯ সালের চেয়েও বর্তমানে বেশ ফিট আছেন তিনি। 

আমির বলেন, ‘আমি মনে করি আমার ফিটনেস ২০১৯ সালের চেয়ে অনেক ভালো। গেলো কয়েক বছর আমি আগের চেয়ে বেশি ফিট বোধ করছি। আপনি যতই দক্ষ হন না কেনো, ফিট না থাকলে মাঠে নিজের সেরাটা দিতে পারবেন না। আমি বিশ্বাস করি, আমার যে ফিটনেস লেভেল আছে, তাতে আমি দলে বড় অবদান রাখতে পারব।’


বিশ্বকাপ   পাকিস্তান   পিসিবি   মোহাম্মদ আমির  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

পাকিস্তানের সাথে টেস্ট সিরিজ খেলতে আগ্রহী ভারতের অধিনায়ক রোহিত

প্রকাশ: ০২:০৩ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে টেস্ট সিরিজ খেলার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ক রোহিত শর্মা। তার মতে, বিশ্ব ক্রিকেটের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে টেস্ট সিরিজ হলে অসাধারণ ব্যাপার হবে।

রাজনৈতিক বৈরিতার কারণে দীর্ঘদিন ধরেই দ্বিপাক্ষীক সিরিজ খেলছে না ভারত ও পাকিস্তান। ২০০৭ সালে সর্বশেষ টেস্ট ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে এই দুই দল। সাদা বলের ফরম্যাটে একে অপরের বিপক্ষে আইসিসি বা এশিয়া কাপের মত টুর্নামেন্টে মুখোমুখি হয় ভারত ও পাকিস্তান। দুই দলের ওই ম্যাচগুলোও হয় নিরপেক্ষ ভেন্যুতে।

অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক অ্যাডাম গিলক্রিস্ট এবং ইংল্যান্ডের মাইকেল ভনের সঙ্গে ইউটিউবে চ্যাট শোতে ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষীক সিরিজ নিয়ে নিজের আগ্রহের কথা প্রকাশ করেন রোহিত।

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার লংগার ভার্সনের ম্যাচ টেস্ট ক্রিকেটের জন্য সহায়ক হবে কিনা, ভনের এমন প্রশ্নের উত্তরে রোহিত বলেন, ‘আমি পুরোপুরিভাবে তা বিশ্বাস করি। পাকিস্তান ভালো এবং প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ দল। দুর্দান্ত বোলিং লাইন আপ আছে তাদের। বিশেষ করে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেলা হলে, অসাধারণ হবে।’

নিরপেক্ষ ভেন্যুতে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে সিরিজ আয়োজনের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছিলো ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। ২০১২ সাল থেকে কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজে একে অপরের মুখোমুখি হয়নি ভারত-পাকিস্তান। গেল বছর এশিয়া কাপের ম্যাচ খেলতে পাকিস্তানে যেতে ভারত অস্বীকৃতি জানালে, তাদের ম্যাচগুলো শ্রীলঙ্কার মাটিতে অনুষ্ঠিত হয়। তবে একই বছরের অক্টোবরে ভারতের মাটিতে ওয়ানডে বিশ্বকাপে ঠিকই অংশ নিয়েছিল পাকিস্তান। বিশ্বকাপের ওই ম্যাচটিই দুই দলের সর্বশেষ লড়াই।


ভারত   পাকিস্তান   টেস্ট সিরিজ   রোহিত শর্মা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

আগামীকাল থেকে শুরু ডিপিএলের সুপার লিগ

প্রকাশ: ০৯:০০ এএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

তীব্র গরমের কারণে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) সুপার লিগের প্রতি রাউন্ডের পর দু’দিনের বিরতি রেখেছে ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিস (সিসিডিএম)। সোমবার (২২ এপ্রিল) ডিপিএলের প্রথম পর্ব শেষে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ ছয় দলকে নিয়ে থেকে শুরু হবে সুপার লিগ।

প্রাথমিকভাবে প্রতি রাউন্ডের পর একদিন বিরতি দিয়ে ৩০ এপ্রিলের মধ্যে এবারের আসর শেষ করতে চেয়েছিলো সিসিডিএম। কিন্তু আবহাওয়া বিবেচনায় নিয়ে নিজেদের সিদ্বান্ত বদল করেছে সিসিডিএম। কারণ, প্রচন্ড গরমের কারণে খেলোয়াড়রা ক্র্যাম্পিং ঝুঁকিতে পড়তে পারে।

এদিকে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের আগে জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা চলতি ডিপিএলে অংশ নিচ্ছে। এজন্য যে কোনো সময় বড় ধরণের ইনজুরিতে পড়তে পারে তারা। 

সুপার লিগের টিকিট পাওয়া ছয়টি দল হলো...

১। আবাহনী লিমিটেড

২। শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব

৩। মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব

৪। শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব

৫। প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব

৬। গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সুপার লিগের প্রথম রাউন্ডে আবাহনীর মুখোমুখি হবে প্রাইম ব্যাংক এবং বিকেএসপিতে গাজী গ্রুপের বিপক্ষে খেলবে শাইনপুকুর। দিনের অন্য ম্যাচে ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে শেখ জামালের প্রতিপক্ষ মোহামেডান।

এদিকে, ২৩ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া রেলিগেশন লিগে খেলবে গাজী টায়ার্স ক্রিকেট একাডেমি, সিটি ক্লাব এবং রূপগঞ্জ টাইগার্স ক্রিকেট ক্লাব। এই পর্বে দলগুলো একে অপরের বিপক্ষে একবার করে খেলবে। সব ম্যাচ শেষে টেবিলের তলানিতে থাকা দুই দল প্রিমিয়ার লিগ থেকে বাদ পড়ে যাবে। রেলিগেশন লিগেও প্রতি ম্যাচের পর দু’দিন করে বিরতি রাখা হয়েছে।


ডিপিএল সুপার লীগ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন