ইনসাইড গ্রাউন্ড

টাইগারদের ব্যর্থতা: কারণ কি শুধুই পারফরম্যান্স নাকি ভাগ্যের নির্মম পরিহাস?

প্রকাশ: ০৪:১১ পিএম, ১১ জুন, ২০২৪


Thumbnail

টি-২০ বিশ্বকাপের নবম আসর শুরুর পূর্বের কিছু পারফরম্যান্সের কারণে বাংলাদেশকে নিয়ে যেন সমালোচনার ঝড় উঠেছিল। একের পর এক সিরিজ হার আর ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে নিয়মিতভাবে নেটিজেনদের দুয়ো ধ্বনীও শুনতে হয়েছিল টাইগারদের।

তবে সে সবকিছু ছাপিয়ে বিশ্বকাপে নিজেদের মিশন শুরুর ম্যাচেই সব সমালোচনার জবাব দিয়েছে টাইগাররা। শ্রীলংকাকে দুই উইকেটে হারিয়ে বৈশ্বিক এই আসরে শুভসূচনা করেছে তারা। কিন্তু আসরে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে যেন ভাগ্য সাথে ছিল না টাইগারদের।

সোমবার (১০ জুন) রাত সাড়ে ৮টায় নিউ ইয়র্কের নাসাউ কাউন্টি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এবারের আসরে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ। যেখানে শুরুতে আগুন বোলিংয়ের মাধ্যমে প্রোটিয়াদের অল্পেই আটকে দিয়েছিল টাইগাররা।

পরে ১১৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে বেশ ভালোভাবেই এগোচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ম্যাচের প্রায় শেষের দিকে গিয়ে যেন এক প্রকার চাপে পড়েছিল টাইগাররা। তবুও মাহমুদুল্লাহর দায়িত্বশীলতা ও হৃদয়ের ভরসাবান ব্যাটিংয়ে জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গিয়েছিল বাংলাদেশ।

কিন্তু শেষ মুহুর্তে বাঁধ সাধে বিতর্কিত আম্পায়ারিং। যদিও আইসিসির আইন অনুযায়ী সেটিকে ভুল বলা যায় না। তবুও সেটির কারণেই হয়ত ম্যাচটিতে পরাজয়ের স্বাদ নিতে হয়েছে বাংলাদেশকে। আর এমন পরিস্থিতিতে একটি প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সবখানেই, সেটি হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচটি হারার দোষ আসলে কার? এই প্রশ্নের উত্তরে বাংলাদেশ চাইলে যেমন নিজেদের দোষ ধরতে পারে, ঠিক তেমনি একই সাথে দোষ ধরা যেতে পারে আম্পায়ারিংয়েরও।

কি ঘটেছিল সেই ম্যাচে? মূলত বিতর্ক শুরু হয় বাংলাদেশের রান তাড়ার ১৭তম ওভারে। ওটনেইল বার্টম্যানের বলে মাহমুদউল্লাহর প্যাডে লেগে ফাইন লেগ বাউন্ডারির দিকে চলে যায় চার রানের জন্য। দক্ষিণ আফ্রিকা এলবিডব্লিউয়ের জন্য আপিল করে এবং অন-ফিল্ড আম্পায়ার আপিল মঞ্জুর করেন। তবে, রিভিউ করার পর সিদ্ধান্তটি ভুল প্রমাণিত হয় এবং আউট বাতিল হয়। ক্রিকেটের নিয়ম অনুযায়ী, আম্পায়ার প্রথমে আউট দিয়েছিলেন বলে বলটি ডেড বলে গণ্য হয় এবং বাংলাদেশ চার রান পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ ঠিক সেই চার রানের ব্যবধানেই হেরে যায়।

আর খুব কাছে যেয়ে হারা ম্যাচটিতে বাংলাদেশকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকা ব্যাটার তাওহীদ হৃদয় নিজেদের দোষ দেখছেন। তবে নিজেদের দোষের পাশাপাশি আম্পায়ারিং সিদ্ধান্ত নিয়েও তিনি তার অসন্তোষ প্রকাশ করেন। প্রতিভাবান এই ব্যাটারের বিশ্বাস আম্পায়রিং তার দলকে জয়ের সুযোগ থেকে বঞ্চিত করেছে।

‘সত্যি বলতে, এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে এটি আমাদের জন্য ভালো সিদ্ধান্ত ছিল না। আমার দৃষ্টিকোণ থেকে, আম্পায়ার এটি আউট দিয়েছিলেন, তবে এটি আমাদের জন্য খুব কঠিন ছিল। সেই চার রান ম্যাচের চিত্র বদলে দিতে পারতো।’ হৃদয় ম্যাচের পর সাংবাদিকদের বলেন।

হৃদয় আরও কিছু আম্পায়ারিং সিদ্ধান্ত নিয়ে আক্ষেপ প্রকাশ করেন, যার মধ্যে তার দাবি বেশ কয়েকটি ওয়াইড বলও ছিল। ‘আইন আমার হাতে নয়। সেই সময়ে সেই চার রান সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আম্পায়াররা একটি সিদ্ধান্ত নিতে পারেন এবং তারা মানুষ, তাই ভুল করতে পারেন। তারা কয়েকটি ওয়াইডও দেয়নি যা ওয়াইড ছিল। এমন একটি ভেন্যুতে যেখানে কম রান হয়, সেখানে এক বা দুই রান একটি বড় বিষয়। আমি মনে করি সেই চার রান বা দুই ওয়াইড খুব কাছাকাছি ছিল এবং আমি নিজেও আম্পায়ারের কল দ্বারা আউট হয়েছি এবং এখানে আমার বিশ্বাস উন্নতির সুযোগ রয়েছে।’

হৃদয় নিজেই ৩৪ বলে ৩৭ রান করেন, এরপর কাগিসো রাবাদার একটি ডেলিভারিতে এলবিডব্লিউ আউট হন। রিপ্লেতে দেখা গেছে বলটি মাত্র লেগ স্টাম্পে লেগে যাচ্ছে, যার ফলে আম্পায়ারের কল অনুযায়ী আউট দেওয়া হয়।

শুধু হৃদয় নয়, এই বিতর্কিত আম্পায়ারিং নিয়ে দেশের সাধারণ ক্রিকেটভক্তদের পাশাপাশি সমালোচনায় মুখর হয়েছেন সাবেক ক্রিকেটাররাও। বাংলাদেশের ক্রিকেটে দীর্ঘদিন ধরেই যুক্ত আছেন ভারতের সাবেক ব্যাটার ওয়াসিম জাফর।  নিজের ‘এক্স’ অ্যাকাউন্টে ভারতের সাবেক এই ব্যাটার বলেন, ‘মাহমুদউল্লাহকে ভুলভাবে লেগ বিফোর উইকেট আউট দেয়া হয়েছে। লেগ বাই হয়ে বলটা চার হয়েছিল। ডিআরএসে সিদ্ধান্ত বদলে গেছে। কিন্তু বাংলাদেশ চার রান পায়নি কারণ একবার যখন ব্যাটার আউট দেয়া হয় তখন বল ডেড হয়। যদি এটা ভুলভাবেও হয়। এবং সাউথ আফ্রিকা শেষ পর্যন্ত ৪ রানে জিতেছে। বাংলাদেশের জন্য খারাপ লাগছে।’

বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের কারণে বাংলাদেশের শেষ মুহুর্তে গিয়ে হারের বিষয়টি নতুন নয়। ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল, ২০১৮ সালের এশিয়া কাপের ফাইনাল, ২০২১ সালে ইমার্জিং এশিয়া কাপের সেমিফাইনাল- ইত্যাদি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ইভেন্টে ভুল বাউন্ডারি, উইকেট না দেওয়া, ওয়াইড না দেওয়ার মতো বিভিন্ন বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের কারণে হারতে হয়েছে বাংলাদেশকে। আর এই তালিকায় এবার যুক্ত হল চলতি টি-২০ বিশ্বকাপের নবম আসরের দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ম্যাচও।

আর এত কিছুর পর এখন ক্রীড়া ভক্তদের মনে একটাই প্রশ্ন, বাংলাদেশের বারবার জয়ের খুব কাছ থেকে ফিরে আসার কারণ কী? শুধুই পারফরম্যান্স নাকি ভাগ্যের নির্মম পরিহাস? তবে সবশেষে সংকীর্ণ এই হার এবং বিতর্কিত আম্পায়ারিং সিদ্ধান্তগুলি বাংলাদেশ এবং তাদের ভক্তদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। তবে বাংলাদেশ চাইবে এই বিতর্ক যত দ্রুত সম্ভব ভুলে যেতে।


বাংলাদেশ   টি-২০ বিশ্বকাপ   ক্রিকেট   বিসিবি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

মার্কিনদের বিপক্ষে কষ্টার্জিত জয়ে সুপার এইট নিশ্চিত ভারতের

প্রকাশ: ১২:১৩ এএম, ১৩ জুন, ২০২৪


Thumbnail

জমে উঠেছে টি-২০ বিশ্বকাপের নবম আসর। যেখানে সুপার এইটে ওঠার লড়াইয়ে প্রতিনিয়ত একে অপরকে টেক্কা দিচ্ছে প্রতিটি দল। ইতোমধ্যেই ডি গ্রুপ থেকে দক্ষিণ আফ্রিকা ও বি গ্রুপ থেকে অস্ট্রেলিয়া নিশ্চিত করেছে তাদের সুপার এইট। আর তাদের দৌঁড়ে তৃতীয় দল হিসেবে সুপার এইটে ওঠার লক্ষ্যে আজ মাঠে নেমেছিল ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র।

যেখানে শুরুতে ব্যাট করে অল্পতে থামলেও পরবর্তীতে বল হাতে ভারতের কঠিন পরীক্ষা নিয়েছে মার্কিনরা। যার ফলে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের জিততে হয়েছে বেশ কষ্ট করেই। আর এই জয়ে তৃতীয় দল হিসেবে সুপার এইট নিশ্চিত করল রোহিত-কোহলিরা।

এদিন নিউইয়র্কের নাসাউ কাউন্টি ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে আট উইকেটে ১১০ রান সংগ্রহ করে যুক্তরাষ্ট্র। জবাবে ৩ উইকেট হারিয়ে ১০ বল বাকি থাকতে লক্ষ্যে পৌঁছায় ভারত। এই জয়ে সুপার এইট নিশ্চিত করেছে টিম ইন্ডিয়া।

ভারতের হয়ে রান তাড়া করতে নেমে প্রথম বলে সিঙ্গেল নেন রোহিত শর্মা। সৌরভ নেত্রভলকারের করা পরের ডেলিভারিতেই উইকেটের পিছে ক্যাচ দেন কোহলি। পান গোল্ডেন ডাকের স্বাদ। পরের ওভারে রোহিত ফেরেন ৩ রানে।

চলতি আসরে ভারতের অন্যতম সেরা ব্যাটার রিশাভ পান্ট। তিনিও ১৮ রানে বোল্ড হন। ৪৪ রানে তিন উইকেট হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে ভারত। সেখান থেকে দলের হাল ধরেন সুরিয়াকুমার যাদব ও শিভম দুবে।

দুর্দান্ত এক ইনিংস খেল অর্ধশতক পূরণ করে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন সুরিয়াকুমার। তিনি ৫০ ও দুবে ৩১ রানে অপরাজিত থাকেন। যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে নেত্রভলকার দুটি ও আলী খান একটি করে উইকেট নেন।

এর আগে আজ টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা। তার সিদ্ধান্তের যথার্থতা প্রমাণের যেন প্রথম ওভারে দুই উইকেট শিকার করেন আর্শদীপ সিং। ডায়মন্ড ডাকের স্বাদ পান যুক্তরাষ্ট্রের শয়ন জাহাঙ্গীর। আন্দ্রেয়াস গৌসও করেন ২ রান।

অধিনায়ক অ্যারন জোনস একটু ধীরে ধীরে এগোতে চেয়েছিলেন। তবে ব্যক্তিগত ১১ রানে হার্দিক পান্ডিয়ার শিকার হন তিনি। কোরি অ্যান্ডারসনকেও ফেরান পান্ডিয়া। তবে এদিন বল হাতে ভয়ংকর রূপে ছিলেন আর্শদীপ। তিনি একাই শিকার করেন ৪ উইকেট।

যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে সর্বোচ্চ ২৭ রান করেন নিতিশ কুমার। এছাড়া স্টিভেন টেইলর ২৪, অ্যান্ডারসন ১৫, ভ্যান স্ককিক ১১ ও হারমীত সিং ১০ রান করেন। আর কেউ দুই অঙ্কের ঘরে যেতে পারেননি। আর্শদীপ ও পান্ডিয়ার বাইরে এক উইকেট নেন আক্সার প্যাটেল।


ভারত   যুক্তরাষ্ট্র   টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ভারতীয় বোলারদের দাপট, অল্পেই থামল যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশ: ১০:১৭ পিএম, ১২ জুন, ২০২৪


Thumbnail

চলমান টি-২০ বিশ্বকাপের নতুন চমক স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্র। পাকিস্তানকে হারিয়ে আসর শুরু করা দলটি নিজেদের পরের ম্যাচেও জিতেছে। তৃতীয় ম্যাচে আজ ভারতের মুখোমুখি স্বাগতিকরা। আগের দুই ম্যাচে দাপট দেখালেও আজ ব্যাট হাতে অল্পেই থেমেছে তারা।

নিউইয়র্কের নাসাউ কাউন্টি ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে নির্ধারিত ২০ ওভারে যুক্তরাষ্ট্রের সংগ্রহ আট উইকেটে ১১০ রান।

আজ টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা।  তার সিদ্ধান্তের যথার্থতা প্রমাণের যেন প্রথম ওভারে দুই উইকেট শিকার করেন আর্শদীপ সিং। ডায়মন্ড ডাকের স্বাদ পান যুক্তরাষ্ট্রের শয়ন জাহাঙ্গীর। আন্দ্রেয়াস গৌসও করেন ২ রান।

অধিনায়ক অ্যারন জোনস একটু ধীরে ধীরে এগোতে চেয়েছিলেন। তবে ব্যক্তিগত ১১ রানে হার্দিক পান্ডিয়ার শিকার হন তিনি। কোরি অ্যান্ডারসনকেও ফেরান পান্ডিয়া। তবে এদিন বল হাতে ভয়ংকর রূপে ছিলেন আর্শদীপ। তিনি একাই শিকার করেন ৪ উইকেট।

যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে সর্বোচ্চ ২৭ রান করেন নিতিশ কুমার। এছাড়া স্টিভেন টেইলর ২৪, অ্যান্ডারসন ১৫, ভ্যান স্ককিক ১১ ও হারমীত সিং ১০ রান করেন। আর কেউ দুই অঙ্কের ঘরে যেতে পারেননি। আর্শদীপ ও পান্ডিয়ার বাইরে এক উইকেট নেন আক্সার প্যাটেল।


ভারত   যুক্তরাষ্ট্র   টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ভারতের বোলিং তোপে বিপর্যয়ে যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশ: ১০:০৮ পিএম, ১২ জুন, ২০২৪


Thumbnail

চলমান টি-২০ বিশ্বকাপের নতুন চমক স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্র। পাকিস্তানকে হারিয়ে আসর শুরু করা দলটি নিজেদের পরের ম্যাচেও জিতেছে। তৃতীয় ম্যাচে আজ ভারতের মুখোমুখি তারা। আগের দুই ম্যাচে দাপট দেখালেও আজ ব্যাট হাতে ব্যাকফুটে স্বাগতিকরা।

নিউইয়র্কের নাসাউ কাউন্টি ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের সংগ্রহ ১৮ ওভারে ৭ উইকেটে ১০০ রান।

আজ টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা।  তার সিদ্ধান্তের যথার্থতা প্রমাণের যেন প্রথম ওভারে দুই উইকেট শিকার করেন আর্শদীপ সিং। ডায়মন্ড ডাকের স্বাদ পান যুক্তরাষ্ট্রের শয়ন জাহাঙ্গীর। আন্দ্রেয়াস গৌসও করেন ২ রান।

অধিনায়ক অ্যারন জোনস একটু ধীরে ধীরে এগোতে চেয়েছিলেন। তবে হার্দিক পান্ডিয়ার শিকার হয়েছেন তিনি। এর আগে করেছেন ১১ রান। এখন স্টিভেন টেইলর ও নিতিশ কুমার ক্রিজে ব্যাট করছেন।

স্বাগতিক হিসেবে এবারের টি-২০ বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পায় যুক্তরাষ্ট্র। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের মঞ্চে খেলতে নেমেই বিশ্বকে চমকে দিয়েছে তারা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে কানাডা ও পরের ম্যাচে পাকিস্তানকে হারায় স্বাগতিকরা।

যুক্তরাষ্ট্রের মতো দারুণ ছন্দে আছে ভারতও। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৮ উইকেটের জয় দিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করে টিম ইন্ডিয়া। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিপক্ষে অসাধারণ এক জয় তুলে নেয় তারা।


যুক্তরাষ্ট্র   ভারত   টা টোয়েন্টি বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বোর্ডকে ব্ল্যাকমেইলের অভিযোগ, পাকিস্তান দল থেকে বাদ যাচ্ছেন ৬ ক্রিকেটার!

প্রকাশ: ০৮:৪৬ পিএম, ১২ জুন, ২০২৪


Thumbnail

চলমান টি-২০ বিশ্বকাপের আগে বেশ বড় ধরণের রদবদল আনা হয় পাকিস্তানের ক্রিকেট প্রশাসনে। নতুন কোচিং স্টাফ নিয়োগ দেওয়ার পাশাপাশি অধিনায়কত্বে ফেরানো হয় বাবর আজমকে। এছাড়া অবসর ভেঙে দলে ফেরানো হয় দুই তারকা ক্রিকেটারকে।

বলা যায় বেশ আটঘাঁট বেধেই শিরোপা পুনরুদ্ধারের আশায় যুক্তরাষ্ট্রে পা রেখেছিল সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান। কিন্তু আইসিসির সহযোগী দেশ যুক্তরাষ্ট্র এবং চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে লো স্কোরিং ম্যাচে অবিশ্বাস্য হারের পর এখন বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়ার শঙ্কায় মেন ইন গ্রিনরা।

নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে কানাডার বিপক্ষে জয়ে এখনো কাগজে-কলমে পাকিস্তানের আশা টিকে আছে। কিন্তু সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের সুপার এইটের ভাগ্য নির্ভর করছে অনেক যদি-কিন্তুর ওপর। তবে এরই মধ্যে পিসিবি চেয়ারম্যান মহসীন নাকভি দলে বড় পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিয়েছেন।

পাকিস্তানের জিও নিউজসহ একাধিক গণমাধ্যম দাবি করেছে, বিশ্বকাপের পর দলের অন্তত ৬ জন খেলোয়াড় বাদ পড়তে পারেন। বোর্ড সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তি এবং সাবেক ক্রিকেটারদের সঙ্গে মহসিন নাকভি এ বিষয়ে আলোচনা শুরু করেছেন বলেও খবর। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের একটি সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

টি-২০ বিশ্বকাপ ব্যর্থতা নিয়ে কঠোর অবস্থানে যেতে চাচ্ছে পিসিবি। সম্ভাব্য বাদ পড়াদের তালিকায় রয়েছেন অবসর ভেঙে দলে ফেরা মোহাম্মদ আমির ও ইমাদ ওয়াসিম এবং ইফতেখার আহমেদ, আজম খান ও উসমান খানের মতো ক্রিকেটাররা।

জিও নিউজের খবরে একটি গুরুতর বিষয়ও উঠে এসেছে। বলা হচ্ছে, ম্যানেজার ওয়াহাব রিয়াজের প্রশ্রয়ে দলের তিনজন খেলোয়াড়ের একটি গ্রুপ পিসিবি কর্মকর্তাদের ব্ল্যাকমেইল করছে। এই খেলোয়াড়রা তাদের সম্মানি বাড়ানোর জন্য নাকি চাপ দিচ্ছেন। আর তাতে ইন্ধন রয়েছে খোদ ওয়াহাবের।

বিশ্বকাপ শেষে অধিনায়ক বাবর আজম, প্রধান কোচ গ্যারি কারস্টেন, সহকারী কোচ আজহার মেহমুদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে পাকিস্তান দলে পরিবর্তন আনবে বোর্ড। 

এখানেই শেষ নয়, টি-২০ বিশ্বকাপের আগে আগে নেতৃত্বে ফেরানো বাবর আজমকে নিয়েও আছে অসন্তোষ। চলমান আসরে তারকা এই ব্যাটারের নেতৃত্ব নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে অনেক। সতীর্থদের মধ্যে তাকে ঘিরে অসন্তোষের কারণে অধিনায়কত্ব থেকে বাদ পড়তে পারেন তিনি।

পাকিস্তান   টি-২০ বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

সুপার এইটে ওঠার লড়াইয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে ফিল্ডিংয়ে ভারত

প্রকাশ: ০৮:১৮ পিএম, ১২ জুন, ২০২৪


Thumbnail

জমে উঠেছে টি-২০ বিশ্বকাপের নবম আসর। যেখানে সুপার এইটে ওঠার লড়াইয়ে প্রতিনিয়ত একে অপরকে টেক্কা দিচ্ছে প্রতিটি দল। ইতোমধ্যেই ডি গ্রুপ থেকে দক্ষিণ আফ্রিকা ও বি গ্রুপ থেকে অস্ট্রেলিয়া নিশ্চিত করেছে তাদের সুপার এইট। আর তাদের দৌঁড়ে তৃতীয় দল হিসেবে কে সুপার এইটে উঠছে তা নিশ্চিত হবে আজ রাতেই।

সুপার এইটের পথে এগিয়ে যাবার জন্য এ ম্যাচেও জয়ের জন্য মরিয়া যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত। বুধবার (১২ জুন) নিউইয়র্কের নাসাউ কাউন্টি ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে দুই দলের লড়াই শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টা ৩০ মিনিটে।

এমন ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা। আজ প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মুখোমুখি হচ্ছে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র। ফলে ম্যাচ জিতে উপলক্ষটা স্মরণীয় করতে চাইবে দুই দলই।

স্বাগতিক হিসেবে এবারের টি-২০ বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পায় যুক্তরাষ্ট্র। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের মঞ্চে খেলতে নেমেই বিশ্বকে চমকে দিয়েছে তারা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে কানাডা ও পরের ম্যাচে পাকিস্তানকে হারায় স্বাগতিকরা।

যুক্তরাষ্ট্রের মতো দারুণ ছন্দে আছে ভারতও। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৮ উইকেটের জয় দিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করে টিম ইন্ডিয়া। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিপক্ষে অসাধারণ এক জয় তুলে নেয় তারা।


ভারত   যুক্তরাষ্ট্র   টা টোয়েন্টি বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন