ইনসাইড হেলথ

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন, কতটা বিপজ্জনক?

প্রকাশ: ০৮:০০ এএম, ২৮ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন, কতটা বিপজ্জনক?

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার নতুন একটি ধরন শনাক্ত হয়েছে। নতুন এ ধরন বারবার জিনগত রূপ বদলাতে সক্ষম। ধরনটির কারণে বিশ্বে নতুন করে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উদ্বেগ ছড়িয়েছে। জারি হচ্ছে বিধিনিষেধ ও ভ্রমণের নিষেধাজ্ঞা।

ঝুঁকিপূর্ণ বলা হচ্ছে কেন?

প্রাথমিকভাবে করোনার নতুন এ ধরনটির বৈজ্ঞানিক নাম বি.১.১.৫২৯। তবে গতকাল শুক্রবার এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘ওমিক্রন’। এ নাম দিয়েই ধরনটিকে ‘উদ্বেগজনক’ বলে আখ্যায়িত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। উদ্বেগজনক বলার কারণ হিসেবে সংস্থাটি এ ধরনটির বারবার জিনগত রূপ বদল এবং আগেও করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত ব্যক্তিদের আবার এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকির বিষয়টিকেই সামনে তুলে এনেছে।

বিজ্ঞানীরা এতটা উদ্বিগ্ন কেন?

এ ধরনটির স্পাইক প্রোটিনে ৩০টির বেশি মিউটেশন রয়েছে। অতি সংক্রামক ডেলটার তুলনায় সংখ্যাটা দ্বিগুণেরও বেশি। আমাদের দেহকোষে ঢুকে পড়ার জন্য ভাইরাস মূলত এটাকে ব্যবহার করে থাকে। এমন নাটকীয় পরিবর্তনের কারণে এ উদ্বেগ তৈরি হয়েছে যে এর আগে সংক্রমিত হওয়ার কারণে শরীরে তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডি অথবা করোনার টিকা ধরনটির সঙ্গে আর মানিয়ে নিতে পারবে না। জিনগত রূপ বদলের বিষয়টির ওপর ভিত্তি করেই বিজ্ঞানীদের পূর্বানুমান, এ ধরনটি আরও বেশি মাত্রায় সংক্রমণ ঘটাবে এবং এর আগে অন্য ধরনের কারণে যাদের রোগ প্রতিরোধব্যবস্থা তৈরি হয়েছে তারা পুনরায় আক্রান্ত হতে পারেন।

বিদ্যমান টিকা এর বিরুদ্ধে কাজ করবে?

নতুন ধরনের জিনগত রূপ বদল নিয়ে বিজ্ঞানীরা সবচেয়ে বেশি উদ্বিগ্ন। তাদের উদ্বেগের কারণ নতুন ধরনের কিছু কিছু মিউটেশন যে রোগ প্রতিরোধব্যবস্থাকে ফাঁকি দিতে সক্ষম তা ইতিমধ্যে জানা গেছে। যদিও এগুলো তাত্ত্বিক জায়গা থেকে বিজ্ঞানীদের পূর্বানুমান। অ্যান্টিবডিগুলো কীভাবে কার্যকরভাবে নতুন এ ধরনের সংক্রমণ রুখে দিতে পারে, তা পরীক্ষার জন্য জোর গতিতে গবেষণা শুরু হয়েছে। তবে এ ধরনটির কারণে সত্যিকার অর্থে বিশ্বজুড়ে পুনরায় করোনায় সংক্রমিত হওয়ার হারের তথ্য-উপাত্ত আসতে শুরু করলে হয়তো মানুষের রোগ প্রতিরোধব্যবস্থায় কোনো পরিবর্তন ঘটবে কি না, তার স্পষ্ট ইঙ্গিত পাওয়া যাবে। বিদ্যমান অ্যান্টবডিগুলো নতুন ধরনটিকে একেবারেই শনাক্ত করতে পারবে না, এমনটা অবশ্য মনে করছেন না বিজ্ঞানীরা। যেটা হতে পারে যে এখন করোনার যেসব টিকা আছে সেগুলো নতুন ধরনে কম সুরক্ষা দেবে। এ জন্য ঝুঁকিতে থাকা মানুষকে তৃতীয় ডোজসহ টিকাদানের হার বৃদ্ধি করাকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করা হচ্ছে।

বিশ্বজুড়ে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা কতটা?

এখন পর্যন্ত ধরনটিতে আক্রান্ত বেশির ভাগ মানুষ দক্ষিণ আফ্রিকার। এ ছাড়া বতসোয়ানা ও হংকংয়ে এ ধরনে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ইসরায়েলেও একজনের এ ধরনে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানা গেছে। ওই ব্যক্তি সম্প্রতি মালাউই থেকে ফিরেছেন। দেশটিতে আরও দুজন এ ধরনটিতে আক্রান্ত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। এ ছাড়া গতকাল বেলজিয়ামে একজন এ ধরনে আক্রান্ত হয়েছেন। ওই ব্যক্তি সম্প্রতি মিসর এবং তুরস্কে সফরে গিয়েছিলেন। এ ছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকায় গোষ্ঠী পর্যায়ে এ ধরনের সংক্রমণ ছড়িয়েছে। যদি এ ধরনের সংক্রমণ ক্ষমতা বেশি হয়ে থাকে, তাহলে ধরে নেওয়া যায় যে ইতিমধ্যে অন্যান্য দেশেও এর বিস্তার ঘটেছে।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

করোনায় মৃত্যু ৩, শনাক্ত ২০৮৭

প্রকাশ: ০৪:৫৪ পিএম, ২৮ Jun, ২০২২


Thumbnail করোনায় মৃত্যু ৩, শনাক্ত ২০৮৭

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩ জনের ‍মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার ১৪৫ জনে।

এ সময়ে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৮৭ জন। মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৬৯ হাজার ৩৬১ জনে। শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

করোনাভাইরাস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

চট্রোগ্রামে করোনায় শনাক্ত ৬৬ জন

প্রকাশ: ১০:১৬ এএম, ২৮ Jun, ২০২২


Thumbnail চট্রোগ্রামে করোনায় শনাক্ত ৬৬ জন

চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৬৬ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৫৮ শতাংশ। তবে এ সময় করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধায়ক সুজন বড়ুয়া বলেন, চট্টগ্রামে এন্টিজেন টেস্টসহ ১৪টি ল্যাবে ৪৮৬টি নমুনা পরীক্ষায় ৬৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৬১ জন নগরীর বাসিন্দা। বাকিদের মধ্যে আনোয়ারায় ২, পটিয়ায় ১ ও হাটহাজারীতে ২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

এর আগে, সোমবার (২৭ জুন) চট্টগ্রামে ৬৬ জনের করোনা শনাক্তের কথা জানিয়েছিল সিভিল সার্জন কার্যালয়। চট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ২৭ হাজার ৭৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে নগরের বাসিন্দা ৯২ হাজার ৫১০ জন। বাকিরা বিভিন্ন উপজেলার।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রামে মোট ১ হাজার ৩৬২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৭৩৪ জন নগরের বাসিন্দা। আর বিভিন্ন উপজেলায় মৃত্যু হয়েছে ৬২৮ জনের।

চট্রোগ্রাম   করোনা   শনাক্ত  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

ভাসানচরে রোহিঙ্গারা ক্যাম্পে টেলিমেডিসিন সেবা চালু

প্রকাশ: ০৯:৩৯ এএম, ২৮ Jun, ২০২২


Thumbnail ভাসানচরে রোহিঙ্গারা ক্যাম্পে টেলিমেডিসিন সেবা চালু

নোয়াখালীর উপজেলা হাতিয়ার ভাসানচরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে টেলিমেডিসিন সেবা চালু করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। 

সোমবার (২৭ জুন) দুপুরে এ সেবার ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম।

এ সময় তিনি বলেন, ভাসানচরে ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল রয়েছে। এছাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে টেলিমেডিসিন সেবা চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে ২৪ ঘণ্টা সেবা পাবে রোহিঙ্গারা। 

সভার সভাপতি নোয়াখালী জেলার সিভিল সার্জন ডা. মাসুম ইফতেখার বলেন, রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে একদল দক্ষ চিকিৎসক ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে কাজ করছে। সেখানে এক্সরেসহ সকল চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে। এবার টেলিমেডিসিন সেবা চালু করা হলো। আশা করি সবাই সেবা গ্রহণ করবে।

রোহিঙ্গারা   ক্যাম্পে   টেলিমেডিসিন   সেবা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

করোনার নতুন ধরনে আক্রান্ত ব্যক্তি ১০ জনকে সংক্রমিত করতে পারে

প্রকাশ: ০৮:৪১ এএম, ২৮ Jun, ২০২২


Thumbnail করোনার নতুন ধরনে আক্রান্ত ব্যক্তি ১০ জনকে সংক্রমিত করতে পারে

করোনার নতুন ধরন দ্রুত এবং ব্যাপকভাবে ছড়ায় বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও ইমেরিটাস অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ। এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি প্রায় ১০ জনকে সংক্রমিত করতে পারে বলেও জানান তিনি। করোনা ভাইরাসের চতুর্থ ঢেউ মোকাবিলা করতে মাস্ক পরার উপর বিশেষ গুরুত্বের কথা উল্লেখ করেন তিনি।

সোমবার (২৭ জুন) বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) আয়োজিত ‘করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধি ও করণীয়’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

 ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, সংক্রমণের হার বাড়লেও আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। করোনার চতুর্থ ঢেউ মোকাবিলায় লকডাউনের মতো পদক্ষেপের প্রয়োজন পড়বে না। তবে, বেপরোয়াভাবে চলাচল বা স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করা যাবে না।

সবাইকে হাত ধোয়ার অভ্যাস চর্চা ও শারীরিক নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখাসহ যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। এছাড়া করোনার নতুন ধরন যথাযথভাবে মোকাবিলা করার জন্য দ্রুত করোনা টিকা গ্রহণের আহ্বান জানান অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ।
 
দেশের প্রখ্যাত মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. আব্দুল্লাহ বলেন, নাকে নেওয়ার করোনার ওষুধের ট্রায়াল শিগগিরই দেশে শুরু হতে পারে। বাংলাদেশ ও সুইডেনের যৌথ উদ্যোগে এ ওষুধ বাংলাদেশে তৈরি হবে। এ টিকা করোনা ভাইরাসের সব ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধেই প্রায় শতভাগ কার্যকর হবে এবং এটি মানুষকে অনেক বেশি সুরক্ষা দেবে বলেও জানান তিনি।
 
তিনি আরও বলেন, শিগগিরই ৫ থেকে ১২ বছর বয়সী শিশুদের করোনা ভাইরাসের টিকার আওতায় নিয়ে আসার বিষয়টি সরকারের পরিকল্পনায় রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অভিমত অনুযায়ী ৫ থেকে ১২ বছর বয়সী শিশুদের ফাইজারের টিকা দেওয়া হবে।

করোনা থেকে সুরক্ষা পেতে সবাইকে দ্রুত টিকা নেওয়া এবং করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. মো. আবু তাহের বলেন, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের কারণে বিশ্বে বাংলাদেশ সাফল্যের শীর্ষে রয়েছে।  

ইউজিসি সচিব ড. ফেরদৌস জামানের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. মো. আবু তাহের।

ইউজিসির সিনিয়র সহকারী পরিচালক ও এপির ফোকাল পয়েন্ট মো. গোলাম দস্তগীরের সঞ্চালনায় সেমিনারে ইউজিসির উপপরিচালক, সিনিয়র সহকারী পরিচালক, সহকারী পরিচালক ও সমপর্যায়ের ৪০ জন কর্মকর্তা অংশ নেন।

করোনা   নতুন ধরন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

করোনায় শনাক্ত ২১০১, মৃত্যু ২

প্রকাশ: ০৫:৫৮ পিএম, ২৭ Jun, ২০২২


Thumbnail করোনায় শনাক্ত ২১০১, মৃত্যু ২

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ১০১ জন। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৬৭ হাজার ২৭৪ জনে। শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ২০ শতাংশ। এসময় ২ জনের ‍মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার ১৪২ জনে। 

সোমবার (২৭ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। মারা যাওয়া দুই জনই ঢাকার বাসিন্দা। এর মধ্যে একজন নারী, একজন পুরুষ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৭৯ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬ হাজার ৮৬৭ জন।

২৪ ঘণ্টায় ১৩ হাজার ৯২০টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৩ হাজার ৮২০টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ২০ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। ২০২১ সালের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান।



মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন