ইনসাইড ইনভেস্টিগেশন

ঢাকায় মাদকবিরোধী অভিযান, গ্রেফতার ১২১

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ১১:৫৩ এএম, ১৭ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযানের সময় মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ১২১ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ। আজ বুধবার (১৭ নভেম্বর) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ডিএমপির পক্ষ থেকে বলা হয়, গতকাল মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) সকাল থেকে আজ বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ডিএমপির নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানে মাদক সেবন ও বিক্রির দায়ে রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে ১২১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অভিযানে গ্রেফতারদের কাছ থেকে ১৪ হাজার ৭২ পিস ইয়াবা, ৪৮৪ গ্রাম ১৪২ পুরিয়া হেরোইন, ৫৯ কেজি ৭৮৫ গ্রাম ৯২ পুরিয়া গাঁজা, ১২টি ইনজেকশন ও ৭০ বোতল ফেনসিডিল জব্দ করা হয়। গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৯৩টি মামলা হয়েছে।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইনভেস্টিগেশন

আফগানিস্তানে ট্রেনিংপ্রাপ্ত হুজি’র ফখরুল, ছিল ভয়ঙ্কর পরিকল্পনা

প্রকাশ: ০৪:৪৯ পিএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail আফগানিস্তানে ট্রেনিংপ্রাপ্ত হুজি’র ফখরুল, ছিল ভয়ঙ্কর পরিকল্পনা

১৯৮৮ সালে আফগান যুদ্ধে যাওয়ার জন্য পাকিস্তানে যান মো. ফখরুল ইসলাম (৫৮)। এরপর তিনি আফগানিস্তানে ট্রেনিংয়ে শেখেন অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র একে-৪৭, এলএমজি ও রকেট লাঞ্চার পরিচালনা। ওই সময়ে ফখরুল আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেন ও মোল্লা ওমরের সঙ্গে একাধিকবার সাক্ষাৎ করেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সিটিটিসি ইউনিটের সিটি সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনের ডিজিটাল ফরেনসিক টিম বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে সম্প্রতি তাকে গ্রেপ্তার করে। অভিযানে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের (হুজি) নেতা ফখরুল ইসলামসহ সংগঠনটির ছয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তাকৃত হুজি সদস্যরা হলেন- মো. ফখরুল ইসলাম (৫৮), মো. সাইফুল ইসলাম (২৪), মো. সুরুজ্জামান (৪৫), হাফেজ মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন (২৩), মো. দীন ইসলাম (২৫) এবং মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন (৪৬)। গ্রেপ্তারের সময় তাদের কাছ থেকে জঙ্গি কর্মকাণ্ডে ব্যবহৃত নয়টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

শনিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিটিটিসি প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান।

সিটিটিসি জানায়, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তথা সিটিটিসির জঙ্গি কার্যক্রম বিরোধী অপারেশন চলমান থাকায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের (হুজি) মুফতি হান্নানসহ একাধিক নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি গ্রেপ্তার হন। এর ফলে হরকাতুল জিহাদ সংগঠনটি নেতৃত্বশূন্য হয়ে যায়। কিন্তু এই ফখরুল ইসলাম হুজির সদস্য সংগ্রহ ও অর্থ সংগ্রহ এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন। তিনি বড় ধরনের হামলার পরিকল্পনা করেন। ওই হামলার মাধ্যমে তিনি জানান দিতে চেয়েছিলেন যে হুজি এখনও নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়নি।

সিটিটিসি প্রধান বলেন, ‘বিদেশ থেকে জঙ্গি বিষয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মো. ফখরুল ইসলাম বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের (হুজি) সক্রিয় সদস্য। তিনি ১৯৮৮ সালে গাজীপুর জেলার টঙ্গী থানার তামিরুল মিল্লাত মাদরাসায় দারোয়ানের চাকরি করতেন। পরে ওই বছর কাজের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তানের করাচি শহরে যান। পাকিস্তানে অবস্থানকালে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মুফতি জাকির হোসেনের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। মুফতি জাকির হোসেন তখন করাচি শহরে ইসলামিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল এবং আল-কায়দার সামরিক কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করতেন।’ 

তিনি বলেন, ‘মুফতি জাকির আল কায়েদা সংগঠনের জিহাদি ট্রেনিংয়ের কমান্ডার ছিলেন। ফখরুল ইসলামকে তিনি জিহাদের দাওয়াত দিলে তিনি তা গ্রহণ করেন। ফখরুল ইসলাম জিহাদি প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণের জন্য মুফতি জাকিরের সঙ্গে একাধিকবার পাকিস্তান থেকে আফগানিস্তানের কান্দাহার শহরে যান। সেখানে দীর্ঘকালীন প্রশিক্ষণে অংশ নেন। ফখরুল ওই প্রশিক্ষণে বিভিন্ন অস্ত্র চালনা শেখার পাশাপাশি অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র একে-৪৭, এলএমজি ও রকেট লাঞ্চার পরিচালনা শেখেন। প্রশিক্ষণকালে কান্দাহারের সমশেদ পাহাড়ে তিনি নিয়মিত ফায়ারিং অনুশীলন করতেন। অনুশীলনের সময় ফখরুল ইসলাম একে-৪৭ সহ সশস্ত্র অবস্থায় প্রশিক্ষণ এলাকায় ৪ ঘণ্টা করে নিরাপত্তামূলক পাহারা ডিউটি করতেন।’

সিটিটিসি প্রধান আসাদুজ্জামান আরও বলেন, ‘ওই সময়ে ফখরুল আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেন ও মোল্লা ওমরের সঙ্গে একাধিকবার সাক্ষাৎ করেন। তিনি আফগানিস্তানে বিভিন্ন মেয়াদে জিহাদি প্রশিক্ষণ করার পর আবার পাকিস্তানের করাচিতে ফিরে আসেন। করাচি থেকে ১৯৯৫ সালে ইরানের রাজধানী তেহরান যান এবং প্রায় ৩ বছর সেখানে অবস্থান করেন। এরপর করাচি ফিরে তিনি পরে ইসলামাবাদ থেকে ভারতের ভিসা নিয়ে ১৯৯৮ সনে বাংলাদেশে আসেন।’

সিটিটিসির এই কর্মকর্তা বলেন, ‘সিটিটিসির জঙ্গি কার্যক্রম বিরোধী অপারেশন চলমান থাকায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের মুফতি হান্নানসহ একাধিক নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি গ্রেফতার হন। এর পরে হরকাতুল জিহাদ নেতৃত্বশূন্য হয়ে যায়। এরই ধারাবাহিকতায় দেশে এসে ফখরুল ইসলাম জঙ্গি কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে নতুন সদস্য সংগ্রহ শুরু করেন। বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের (হুজি) সদস্য সংগ্রহ, অর্থ সংগ্রহ করা এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন তিনি।’

সিটিটিসি কর্মকর্তা জানান, সশরীরে ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক যোগাযাগ মাধ্যম ব্যবহার করে সাংঠনিক কার্যক্রম অব্যাহত রাখেন ফখরুল। তিনি সামাজিক যোগাযাগমাধ্যমে এনক্রিপটেড অ্যাপস বিপ (Apps Bip) ব্যবহারের মাধ্যমে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসী এবং বাংলাদেশের অন্য হুজি সদস্যদের সঙ্গে উগ্রবাদী ও আক্রমণাত্মক বিষয়ে আলোচনা করতেন। এভাবে তারা যে কোনো সময়ে বাংলাদেশের গুরুপূর্ণ স্থাপনাগুলোতে বড় ধরনের জঙ্গি হামলা পরিচালনার বিষয়ে নিজেদের মধ্যে পরিকল্পনা করেন। বাংলাদেশের হুজি সদস্যদের বান্দরবান পাহাড়ি এলাকায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার পরিকল্পনা করেছিলেন গ্রেফতারকৃতরা। ফখরুল ও তার ছেলে গ্রেফতার মো. সাইফুল ইসলাম অন্য হুজি সদস্যদের নিয়ে একাধিকবার কক্সবাজার জেলায় অবস্থিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যান। তারা রোহিঙ্গাদের সংগঠনে সম্পৃক্ত করতে মাঠে নামেন। ওই কার্যক্রমের অংশ হিসাবে রোহিঙ্গাদের অনুপ্রাণিত করার লক্ষ্যে তাদেরকে বিভিন্ন সময় মোটা অংকের টাকা অনুদান দেন।

গ্রেপ্তার অপর আসামি হাফেজ মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সিকিউরড এনক্রিপটেড অ্যাপস ব্যবহার করে টেলিগ্রাম গ্রুপ ‘মোরা সত্যের সৈনিক’র অ্যাডমিন ‘অস্থায়ী মুসাফির’ হিসেবে ছদ্মনাম ধারণ করে গ্রুপটি পরিচালনা করেন বলেও জানান সিটিটিসির ওই কর্মকর্তা।

আসাদুজ্জামান আরও বলেন, ‘মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন অ্যাপসে নিজেকে মামুনুল হিসেবে ছদ্মনাম ধারণ করেন। হাফেজ মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন টেলিগ্রাম অ্যাপসের মাধ্যমে বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসীদের এবং বাংলাদেশের অন্য হুজি সদস্যদের সঙ্গে উগ্রবাদী ও আক্রমণাত্মক বিষয়ে আলোচনা করে মেসেজ আদান-প্রদান করেন। নিষিদ্ধ ঘোষিত হুজির একটি এনক্রিপটেড অ্যাপের প্রাইভেট চ্যানেল ‘একটু প্রস্তুতি’র কনটেন্ট হিসেবে ‘একটি বোমা তৈরি করো তোমার মায়ের রান্নার ঘরে’ শীর্ষক ১০ পাতার ডকুমেন্ট শেয়ার করা হয়। একই চ্যানেল থেকে টাইম বোমা বানানো সংক্রান্ত বাংলা বিবরণীসহ ভিডিও শেয়ার করে। আব্দুল্লাহ আল মামুন ওই এনক্রিপটেড অ্যাপসের চ্যানেল থেকে পাওয়া কনটেন্ট তার সংগঠনের পরিচিত দুই-একজনকে হাতে-কলমে বোমা বানানোর প্রশিক্ষণ দিতে এবং বোমা বানানোর নির্দেশনা দিয়ে শেয়ার করেন।’

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা জানান, তারা টেলিগ্রাম গ্রুপের মাধ্যমে সক্রিয় থেকে উগ্রবাদী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন। গ্রেফতাররা তাদের অন্য সহযোগীদের সঙ্গে মিলে উগ্রবাদী ও আক্রমণাত্মক ভিডিও ও তথ্য শেয়ার এবং নিজেদের মধ্যে গোপন তথ্য আদান-প্রদান করতেন। তারা ওই গ্রুপে উগ্রবাদী ও আক্রমণাত্মক প্রশিক্ষণের বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি সচিত্র প্রশিক্ষণ ডকুমেন্টস (পিডিএফ, ভিডিও, অডিও) আদান-প্রদান করতো। পলাতক অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত আছে বলেও জানিয়েছে সিটিটিসি।


জঙ্গি   হুজি   আফগানিস্তান   ট্রেনিংপ্রাপ্ত   ফখরুল   আল-কায়েদা   ওসামা বিন লাদেন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইনভেস্টিগেশন

হরকাতুল জিহাদের ৬ সদস্য গ্রেফতার

প্রকাশ: ১১:১২ এএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

নিষিদ্ধ ঘোষিত হরকাতুল জিহাদের (হুজি) ছয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি)

শুক্রবার রাতে তাদের গ্রেফতার করা হয় বলে জানিয়েছেন ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. ফারুক হোসেন।

তিনি জানান, রাতে অভিযান চালিয়ে সিটিটিসি ছয় হুজির সদস্যকে গ্রেফতার করেছে। আজ শনিবার বিষয়ে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানাবেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সিটিটিসি প্রধান মো. আসাদুজ্জামান।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইনভেস্টিগেশন

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযান, গ্রেপ্তার ৯৩

প্রকাশ: ০১:৩২ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযানে ৯৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) ডিএমপি'র মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. ফারুক হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে বুধবার (২৫ জানুয়ারি) সকাল ছয়টা থেকে বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) সকাল ছয়টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এসময় তাদের কাছ থেকে ২৫ হাজার ৪২০ পিস ইয়াবা, ১৬১ গ্রাম হেরোইন, ৫৫ বোতল দেশি মদ, ২ বোতল ফেন্সিডিল, ১৭ কেজি গাঁজা ও ১৩টি ইনজেকশন উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৫৯টি মামলা দায়ের হয়েছে।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইনভেস্টিগেশন

‘ভিডিও প্রকাশ করে দায় স্বীকারের পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের’

প্রকাশ: ০৫:০০ পিএম, ২৫ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail ‘ভিডিও প্রকাশ করে দায় স্বীকারের পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের’

নতুন জঙ্গি সংগঠন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার সদস্যদের নানা মুহূর্তের ভিডিও প্রকাশ করেছে র‌্যাব। এসব ভিডিওতে এই জঙ্গি সংগঠনের আমিরসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সদস্যদের প্রশিক্ষণ, রণকৌশলগত চলাচল, চলতি পথে অস্ত্র বহন এবং টহলকালীন ও ব্লক করার সময় অবস্থান কেমন হবে, তা দেখানো হয়েছে। এছাড়া শত্রুর ক্যাম্পে হানা দেওয়ার সময় কীভাবে ৩৬০ ডিগ্রির কৌণিক দূরত্বে সদস্যরা অবস্থান নেবেন, সেই মহড়াও রয়েছে ভিডিওতে।

র‌্যাব জানিয়েছে, বড় ধরনের হামলার পর অস্ত্রসহ এসব ভিডিও প্রকাশ করে দায় স্বীকারের পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের। বিশেষ করে কাশিমপুর কারাগারে একযোগে জঙ্গি হামলা চালিয়ে উগ্রপন্থিদের ছাড়িয়ে নেওয়ার ছক কষেছিলেন তারা। এরমধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা ছিল মূল লক্ষ্য। যে কারণে ছোট ছোট এই ভিডিওগুলো তিন-চার মাস আগে থেকে তৈরি করা। 

র‌্যাব জানায়, জামাতুল আনসারের সামরিক শাখার প্রধান মাসুকুর রহমানকে এই ভিডিও করার কারণ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়েছিল। প্রশ্নের উত্তরে এসব তথ্য জানায় জামাতুল আনসারের সামরিক শাখার প্রধান মাসুকুর রহমান। 

    

মাত্র ৮ মিনিট ৪৩ সেকেন্ডের একটি ভিডিও। ভিডিওটিতে স্পষ্ট  ফুটে উঠেছে জঙ্গি সংগঠন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার সদস্যদের প্রশিক্ষণ এবং নানা মুহূর্তের প্রস্তুতির চিত্র। সামরিক প্রশিক্ষণের প্রস্তুতিসহ সংগঠিত হচ্ছে জঙ্গি সংগঠনটি- যা অনেকটা ফিল্মি কায়দায়। অর্থাৎ চলচ্চিত্র কিংবা যুদ্ধের কোনো ডকুমেন্টারিতেই এমন দৃশ্য দেখা যায়।     

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এসব ভিডিওচিত্র প্রকাশ করে র‌্যাব। ভিডিওতে সামরিক পোশাকের আদলে তৈরি পোশাক পরে একে-২২ রাইফেল ও শর্টগান নিয়ে প্রশিক্ষণের দৃশ্য দেখা গেছে। ভিডিওতে তাতে যে ২২-২৩ জনকে দেখা গেছে, তাদের প্রায় সবার পরিচয় নিশ্চিত করা গেছে বলেও জানায় র‌্যাব। এদের মধ্যে রয়েছেন, জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার আমির আনিসুর রহমান ওরফে মাহমুদ, কথিত সামরিক কমান্ডার শিব্বির আহমেদ ওরফে হামিদ কারছে এবং দাওয়াতি শাখার প্রধান আবদুল্লাহ মায়মুন।


র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গত সোমবার (২৪ জানুয়ারি) ভোরে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন এলাকা থেকে সংগঠনটির সামরিক শাখার প্রধান মাসুকুর রহমান ওরফে রনবীর ও তার সহযোগী আবুল বাশার মৃধা ওরফে আলমকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। মাসুকুর রহমানের কাছ থেকে একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। সেই ফোনেই পাওয়া যায় পার্বত্য অঞ্চলে সংগঠনটির সদস্যদের সামরিক প্রশিক্ষণের একটি ভিডিও।

র‌্যাবের অভিযানে উদ্ধার হওয়া ভিডিওতে জঙ্গিদের কয়েকটি প্রশিক্ষণ ক্যাম্প দেখানো হয়েছে। সেগুলো হলো- জর্দান ক্যাম্প, ডা. আহমেদ ক্যাম্প, রেতলাঙ ক্যাম্প, রামজুদান পাহাড়ের পাশে রামজুদান ক্যাম্প। বান্দরবানের দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে এসব ক্যাম্প গড়ে তোলা হয়েছে। ভিডিওর শুরুতেই জামাতুল আনসারের আমির আনিসুর রহমান ওরফে মাহমুদকে দেখা গেছে। ঠিক তার পেছনেই পার্বত্য চট্টগ্রামের সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) এক প্রশিক্ষককেও দেখা গেছে।

ভিডিওচিত্রে পাহাড়ে প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো প্রথম ও দ্বিতীয় ব্যাচের জঙ্গি রয়েছে বলেও জানিয়েছে র‌্যাব। তবে এই জঙ্গিগোষ্ঠীর সামরিক শাখার প্রধান মাসুকুর রহমান ওরফে রনবীরের ছবি দেখা যায়নি। গত সোমবার কক্সবাজারে রনবীরের সঙ্গে গ্রেফতার হওয়া তার সহযোগী আবুল বাশার মৃধা ওরফে আলমকে ভিডিওতে দেখা গেছে। আবুল বাশার এই সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ নেতা এবং বোমা তৈরির বড় কারিগর বলে জানায় র‌্যাব।


ভিডিওতে আরও দেখা যায়, জঙ্গিদের হাতে অস্ত্র, ওয়াকিটকি, কারও মাথায় কাফনের কাপড়। সব তরুণের চোখ-মুখ হাস্যোজ্জ্বল। নিজেরা রান্না করছেন, আড্ডা দিচ্ছেন ও খাওয়া-দাওয়া করছেন। পাহাড়ে তৈরি বাঙ্কারে কেউ কেউ পাহারা বসিয়েছেন। বিশাল কড়াইয়ে বনের ভেতরে কথিত হিজরতের উদ্দেশে ঘরছাড়া তরুণরা মাংস রান্না করছেন। কোনো তরুণের কাঁধে ভারী অস্ত্র। তারা কাঠের তৈরি ক্যাম্প পাহারা দিচ্ছেন। কারও গায়ে কমব্যাট ড্রেস। এ সময় রাতের আঁধারে একজনকে গাইতে শোনা যায়, ‘মাথায় কাফন বেঁধে জঙ্গি মিশন দুনিয়াতে ছড়িয়ে দাও’।

বিভিন্ন ক্যাম্পে সামরিক কার্যক্রম বা প্রশিক্ষণের সার্বিক দায়িত্বে থাকা দুই সদস্যকে ভিডিওতে দেখা গেছে জানিয়ে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, ভিডিওতে সাব্বির ওরফে কারসে এবং দিদার ওরফে চাম্পাইকে দেখা গেছে। প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের সামরিক কার্যক্রম বা প্রশিক্ষণ দুভাগে ভাগ করা হয়েছে। দুটি ভাগের দায়িত্ব দেওয়া হয় এ দুজনকে। আর পুরো সামরিক কার্যক্রম দেখভাল করতেন গ্রেফতার হওয়া সামরিক শাখার প্রধান মাসুকুর রহমান। ভিডিওতে সালেহ ও আল-আমিন নামের আরও দুজনকে দেখা গেছে। গ্রেফতার হওয়া সালেহ কদিন আগে বান্দরবানে শারক্বীয়ার দুই সদস্যের কবরের সন্ধান দিয়েছিলেন।


এই ভিডিও করার উদ্দেশ্য সম্পর্কে কমান্ডার মঈন বলেন, প্রাথমিক উদ্দেশ্য হলো, যারা পার্বত্য চট্টগ্রামে আছেন ও প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন, তাদের আরও উদ্বুদ্ধ করা। সংগঠনটির সামরিক শাখায় যাদের অন্তর্ভুক্ত করা হবে, তাদের করণীয় কী হবে, সে বিষয়টি সামনে রেখেও ভিডিওটি করা হয়েছে। সমতলে অবস্থানকারী বিভিন্ন ব্যক্তিকে ভিডিও দেখিয়ে উদ্বুদ্ধ করাও ছিল তাদের অন্যতম উদ্দেশ্য।

প্রসঙ্গত, গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে বেশ কয়েকটি অভিযান পরিচালনা করে কুমিল্লা থেকে নিখোঁজ হওয়া আটজন তরুণের মধ্যে চারজন ও কেএনএফ সদস্যসহ ১৪ জনকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হয়। এদের মধ্যে রয়েছেন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার বর্তমান আমির আনিসুর রহমান ওরফে মাহমুদ। উগ্রবাদী এ সংগঠনে ছয়জন শূরা সদস্য রয়েছেন। তারা দাওয়াতি, সামরিক, অর্থ, মিডিয়া ও উপদেষ্টার দায়িত্বে আছেন।

এর মধ্যে শূরা সদস্য আবদুল্লাহ মাইমুন দাওয়াতি শাখার প্রধান, রনবীর সামরিক শাখার প্রধান, মারুফ আহমেদ সামরিক শাখার সেকেন্ড ইন কমান্ড, মোশারফ হোসেন রাকিব অর্থ ও গণমাধ্যম শাখার প্রধান, শামীন মাহফুজ প্রধান উপদেষ্টা ও প্রশিক্ষণের সার্বিক তত্ত্বাবধায়ক এবং ভোলার শায়েখ আলেম বিভাগের প্রধান হিসেবে সংগঠনটিতে দায়িত্ব পালন করছেন।

নতুন এই জঙ্গি সংগঠনের ৫৫ জন সদস্যকে কেএনএফ প্রধান নাথান বম, সামরিক কমান্ডার কথিত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ভাংচুং লিয়ান বম, মিডিয়া শাখার প্রধান কথিত লে. কর্নেল লালজং মুই মাওয়াইয়া, কথিত লে. কর্নেল লাল মুন ঠিয়াল চির চির ময়ের সরাসরি তত্ত্বাবধানে পার্বত্য চট্টগ্রামে সামরিক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।  


ভিডিও প্রকাশ   পরিকল্পনা   জঙ্গি   র‌্যাব   আটক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইনভেস্টিগেশন

ক্ষুব্ধ হয়ে নিজ মেয়েকেই খুন করেছেন বাবা: পিবিআই

প্রকাশ: ০৪:০৯ পিএম, ২২ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail কুদ্দুছ খাঁ ও তার বন্ধু মোকাদ্দেছ মণ্ডল।

নিজের পছন্দের ছেলেকে বিয়ে করায় মেয়ের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে নিজের মেয়েকে হত্যা করেন বাবা আ. কুদ্দুস খাঁ। তার মেয়ের নাম পারুল আক্তার। তারা টাঙ্গাইলের কালিহাতী এলাকার বাসিন্দা। 

রবিবার (২২ জানুয়ারি) পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সংবাদ সম্মেলনে এসব তুলে ধরা হয়। এ সংবাদ সম্মেলন হয় পিবিআইয়ের প্রধান কার্যালয় ধানমন্ডিতে।

পিবিআই জানায়, নিজের পছন্দের ছেলেকে বিয়ে করেছিলেন টাঙ্গাইলের কালিহাতীর পারুল আক্তার। তাঁর বাবা সেই বিয়ে মেনে নিতে পারেননি। ঢাকা জেলার আশুলিয়া এলাকায় এসে একটি পোশাক কারখানায় চাকরি শুরু করেন পারুল ও তাঁর স্বামী নাছির উদ্দিন ওরফে বাবু। দুজন যা বেতন পেতেন, তা দিয়ে তাঁদের সংসার খুব ভালোভাবে চলত না। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মাঝে মধ্যেই ঝগড়া হতো। বিয়ের তিন বছর পর ঝগড়া করে স্ত্রীকে বাসায় রেখে বেরিয়ে যান নাছির। পারুল তাঁর বাবাকে ফোন করে পারিবারিক অশান্তির কথা বলেন।

মেয়ের প্রতি ক্ষুব্ধ বাবা মেয়েকে বাড়ি ফিরতে বলেন। বাবার কথায় স্বামীর সংসার ছেড়ে গ্রামে চলে যান পারুল। এবার ক্ষুব্ধ বাবা নিজের ও পরিবারের অসম্মান করায় মেয়েকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। পারুলের বাবা আ. কুদ্দুস খাঁ মেয়েকে ভালো ছেলের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার কথা বলে টাঙ্গাইল থেকে জয়পুরহাটে নিয়ে যান। পরিকল্পনা অনুযায়ী, কুদ্দুসের সঙ্গে তাঁর বন্ধু মোকাদ্দেছ ওরফে মোকা মণ্ডলও যান।

সেখানে যাওয়ার পর জয়পুরহাটের পাঁচবিবি এলাকায় একটি নদীর পাশে নির্জন জায়গায় রাতের অন্ধকারে পারুলকে তাঁর বাবা ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন। পরে মোকাদ্দেছের সহযোগিতায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাস রোধ করে হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলে দেন।

শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে মেয়ে হত্যার এমন লোমহর্ষক, বর্বরোচিত বিবরণ তুলে ধরেন আ. কুদ্দুছ খাঁ। তিনি এখন কারাগারে। তাঁর দেওয়া জবানবন্দি রবিবার (২২ জানুয়ারি) পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরা হয়। 

সংবাদ সম্মেলনে পিবিআই।

সংবাদ সম্মেলনে পিবিআই প্রধান অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক বনজ কুমার মজুমদার বলেন, পারুল সব ভাইবোনের মধ্যে মেধাবী ছিলেন। স্কুলে তাঁর রোল নম্বর ছিল ২। দেখতেও ছিলেন সুন্দরী। বাবা কুদ্দুসের স্বপ্ন ছিল মেয়েকে শিক্ষিত করবেন। কিন্তু নবম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় পালিয়ে বিয়ে করায় বাবা ক্ষুব্ধ হন।

বনজ মজুমদার বলেন, তখন থেকেই কুদ্দুসের পরিকল্পনা ছিল মেয়ে তাঁকে যে অসম্মান করেছে, তাতে তার বেঁচে থাকার অধিকার নেই। মেয়ের বিয়ের তিন বছর পর সেই সুযোগ পেয়ে তিনি তাঁর বন্ধুর সহযোগিতায় মেয়েকে হত্যা করেন। কুদ্দুসের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মোকাদ্দেছকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক বনজ কুমার মজুমদার বলেন, মেয়েকে হত্যার পর কুদ্দুসের মধ্যে আরেকটা বিষয় কাজ করছিল যে তাঁর মেয়ের এই পরিণতির জন্য নাছির দায়ী। তাঁকেও শাস্তি দিতে হবে। তাই মেয়ের জামাইকে ফাঁসাতে একের পর এক মামলা করেছেন তিনি। রহস্য উদ্ঘাটন করতে না পারায় থানা-পুলিশ, সিআইডি ও পিবিআই পুলিশ প্রতিবেদন দেন। মেয়ের বাবাও বারবার নারাজি দেন।

পিবিআই জানায়, পারুলের বাবা শুরুতে অপহরণ ও গুমের মামলা করলেও সর্বশেষ তিনি আশুলিয়া থানায় হত্যা মামলা করেন। সেই মামলার তদন্ত আবার পিবিআইকে দেওয়া হয়। তদন্তে নেমে ২০১২ সালে মেয়ের বাবার করা সাধারণ ডায়রিতে দেওয়া একটি ফোন নম্বরের সূত্র ধরে এ হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন করা হয়।

পিবিআই আরও জানায়, মেয়েকে হত্যার পর নাছিরকে শাস্তি দিতে দীর্ঘ সাত বছর ধরে তিনি মামলা চালিয়েছেন। এর জন্য তিনি নিজের জমিও বিক্রি করেছেন।


পিবিআই   বাবা   মেয়ে   খুন  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন