ইনসাইড টক

‘বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করা প্রশাসনের এখতিয়ারে নেই’

প্রকাশ: ০৪:১১ পিএম, ০১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসহাক আলী খান পান্না বলেছেন, বুয়েটে শুধু ছাত্রলীগ ছাত্ররাজনীতি চায় না। অন্যান্য ছাত্র সংগঠনগুলোও তো ছাত্ররাজনীতি চায়। তাহলে কেন শুধু এখন সামনে ছাত্রলীগের নাম সামনে আসছে। বুয়েটে যারা ছাত্ররাজনীতি চাচ্ছে তাদের প্রথম পরিচয় তারা বুয়েটের ছাত্র। আর বুয়েট কর্তৃপক্ষ যেটা করেছে যে, ক্যাম্পাসে ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করেছে, এটা বুয়েট প্রশাসন করতে পারে না। তাদের এখতিয়ার নেই। দেশের প্রচলিত মৌলিক আইন যেখানে আমাকে অধিকার দিয়েছে বুয়েট সেটা নিষিদ্ধ করতে পারে না। আইনে বলা হয়েছে, দেশের প্রচলিত আইন এবং নিয়মের মধ্যেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো পরিচালিত হবে। সেখানে বুয়েট তো বাংলাদেশের বাইরের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নয়। দেশের নিয়মেই তো বুয়েট চলার কথা। কিন্তু সেখানে বুয়েট প্রশাসন কীভাবে আমার মৌলিক অধিকার রহিত করে? আমার ক্যাম্পাসে আমি মুক্ত চিন্তায় ঘুরবো, আমি কথা বলবো, আমি স্লোগান দিবো, আমি বক্তৃতা দিবো, আমি পড়াশুনা করবো। এটা থেকে বুয়েট কর্তৃপক্ষ কীভাবে আমাকে বঞ্চিত করতে পারে।

বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ এবং ছাত্ররাজনীতি আবার ফিরিয়ে আনার প্রসঙ্গে নিয়ে বাংলা ইনসাইডার এর সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় ইসহাক আলী খান পান্না এসব কথা বলেছেন। পাঠকদের জন্য ইসহাক আলী খান পান্না এর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডার এর নিজস্ব প্রতিবেদক শান্ত সিংহ।

ইসহাক আলী খান পান্না বলেন, যারা প্রগতির কথা বলেন না, মৌলবাদ বা জঙ্গিবাদের কথা চিন্তা করে তারাই তো আজ ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করতে চায়। আপনি দেখেন, একটি জলালয়ে যদি পানির কোন ঢেউ না হয়, সেটা যদি কোন কারণে ব্যবহার না হয় তাহলে সেখানে মশা মাছি আর্বজনা জন্মায়। সেখানে থেকে এক সময় দুর্গন্ধ ছাড়ায়। ঠিক তেমনি ভাবে বুয়েটে যদি আপনি মুক্ত চিন্তার চর্চা না করতে দেন তাহলে এর অন্তরালে মৌলবাদী শক্তির উত্থান ঘটবে, ধর্মান্ধের উত্থান ঘটবে। যারা স্বাধীনতাকে এখনও মেনে নেননি আপনি তাদেরকে শক্তিশালী করবেন। অথচ প্রগতির কথা যারা বলে সেটা  ছাত্রলীগ হোক কিংবা ছাত্র ইউনিয়ন হোক এমনকি ছাত্রদলও যদি হয় তাহলে তারা সেখানে কথা বলতে পারবে না কেন।

তিনি বলেন, আপনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেখেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা পড়াশুনা করেছি। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা ছাত্ররাজনীতি করেছি, এই ক্যাম্পাসে আমরা আমাদের অধিকারের কথা বলেছি, স্বাধীনতার কথা বলেছি, গণতন্ত্রের কথা বলেছি, স্বৈর শাসকের বিরুদ্ধে আমরা লড়াই করেছি। সেখানে শিবির কোন দিন স্লোগান মিছিল কিছু পরিচালনা করতে পারেনি, করেনি। তারা বুয়েট এবং ঢাকা মেডিকেলে তাদের কার্যক্রম করেছে। একই ভাবে সেই বুয়েটে এখনও তাদের কর্মকাণ্ড চলে। আর ছাত্রলীগ সহ অন্যান্য সংগঠনগুলোর কর্মকাণ্ড চলবে না সেটা তো হতে পারে না। আর সবচেয়ে বড় কথা হলো আপনার শুধু ছাত্রলীগ টার্গেট কেন? ছাত্রলীগের ব্যানারে যারা ছাত্ররাজনীতি করে তারাও তো বুয়েটের ছাত্রছাত্রী। তাহলে বুয়েটের শিক্ষার্থীদেরও তো কথা বলার অধিকার রয়েছে, তারও হলে থাকার অধিকার রয়েছে। তাহলে কেন আপনি তাকে এসব থেকে বঞ্চিত করছেন। বাংলাদেশের সকল অনৈতিক, অগণতান্ত্রিক, স্বৈরচারী মনোভাবের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ সব সময় কথা বলেছে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ছাত্রলীগ মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছে। এখন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং তার নির্দেশে বাংলাদেশে স্বৈর শাসনের পতন, মৌলবাদের পতন এবং সকল আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছে ছাত্রলীগ। সেই ছাত্রলীগ বুয়েটে মৌলবাদের যে চর্চা হচ্ছে তার বিরুদ্ধে কথা বলেছে। সুতরাং এবং অবশ্যই সেটা সঠিক করেছে। অনতিবিলম্বে বুয়েটের সকল ছাত্রছাত্রীদের সবার মুক্ত বিচরণের সুযোগ করে দেয়া দরকার। তারা যেন প্রগতির কথা বলতে পারে, মুক্তিযুদ্ধের কথা বলতে পারে, গণতন্ত্রের কথা বলতে পারে সেই পরিবেশ তাদের দিতে হবে। এখন বুয়েটকে নিয়ে যে খেলা চলছে প্রকারন্তে বাংলাদেশে এরা স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির পালন করছে। এটা হতে পারে না। আপনি বুয়েট কর্তৃপক্ষকে জিজ্ঞাসা করেন আমাদের স্বাধীনতা দিবস, ২১ ফেব্রুয়ারি, পহেলা বৈশাখ, বুদ্ধিজীবী দিবস তারা এগুলো পালন করে কিনা। এগুলো অবশ্যই তাদের করতে হবে। বুয়েট স্বাধীনতা বাংলা ভূখন্ডে বাইরে কোন প্রতিষ্ঠান না। অতএব ছাত্রলীগ যে দাবি তুলেছে বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি ফিরিয়ে আনতে হবে এটা যুক্তি যুক্ত।

সাবেক ছাত্রলীগ এই নেতা বলেন, বুয়েটে যে অনাকাঙ্খিত ঘটনাগুলো ঘটেছে সেগুলোর আমরা অবশ্যই নিন্দা জানাই। এর সঙ্গে যারা জড়িত আইনের মাধ্যমে তাদের বিচার হবে, একাডেমিক কাউন্সিলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কিন্তু ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করে বুয়েটকে অন্ধকারে রেখে মৌলবাদী শক্তিকে পৃষ্টপোষকতা করার কোন সুযোগ নাই বুয়েট কর্তৃপক্ষের। অনতিবিলম্বে এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে বুয়েটকে সকলের জন্য উন্মূক্ত এবং সুন্দর একটি পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।

দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের ব্যানারে যারা অপকর্ম করেছে তাদের দায় সংগঠন নিবে না উল্লেখ্য করে ইসহাক আলী খান পান্না বলেন, কোন ব্যক্তি, কোন ছাত্র যদি কোন ধরনের অপকর্মের সাথে জড়িত হয়ে থাকে এটা তার ব্যক্তিগত অপরাধ। কারণ ছাত্রলীগ কোন ধরনের অপরাধকেই সমর্থন করে না। যারা ইতোমধ্যে কোন অপরাধের সঙ্গে জড়িয়েয়ে সংগঠন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। সুতরাং এগুলোকে অজুহাত দেখিয়ে রাজনীতি বন্ধ করা যাবে না। 



মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

ট্রাম্পের ওপর হামলা যতটা রাজনৈতিক, তার চেয়ে বেশি সামাজিক অস্থিরতার বহিঃপ্রকাশ

প্রকাশ: ০৪:১১ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক সাহাব এনাম খান বলেছেন, ট্রাম্পের ওপর হামলা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত ক্ষোভের প্রকাশ। এটি নিন্দনীয়। আমি ব্যক্তিগতভাবে এটির তীব্র নিন্দা জানাই। দেখুন, যুক্তরাষ্ট্রের ইলেকটোরাল সিস্টেম বেশ জটিল। তাই চট করেই হামলাকে কেন্দ্র করে ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা রাতারাতি বেড়ে যাবে এ কথা বলার সুযোগ আপাতত নেই। অনেকগুলো ফ্যাক্টরের ওপর নির্ভরশীল দেশটির নির্বাচন। ফলে হামলার মাধ্যমে সস্তা জনপ্রিয়তা আসতে পারে একজন প্রার্থির পক্ষে তা বলা এখনই ঠিক নয়। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের বিষয় রয়েছে। 

শনিবার (১৩ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের বাটলার শহরে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর হামলা হয়েছে। কেনো বা কী কারণে এমন ভয়াবহ হামলার ঘটনা ঘটেছে এ নিয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক সাহাব এনাম খান বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা বলেন। 

হামলাটি রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্ম থেকে সৃষ্ট কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক সাহাব এনাম খান বলেন, এটি একেবারেই অসম্ভব। কারণ বাইডেন এমনিতেই বিপর্যস্ত ও দুর্বল অবস্থায় রয়েছেন। এছাড়াও এমন একটি হামলা ঘটিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা নেয়ার তেমন দৃষ্টান্ত দেশটিতে আগেও দেখা যায়নি। অতএব ষড়যন্ত্র তত্ত্বের দিক থেকে এমন ভাবার কোন রকমের অবকাশ নেই। একইসঙ্গে এমন বাইডেন প্রশাসন কখনই এমন বিতর্কিত পরিস্থিতির সৃষ্টি করবে না। 

তিনি বলেন, এমন সমীকরণ থেকে এটা বলাই যায় যে একান্তই ব্যক্তিগত বিকৃত মানসিকতা থেকেই হামলাকান্ডটি হয়েছে। ট্রাম্পের ব্যক্তি ইমেজ নিয়ে পূর্বে নানা সমালচনা রয়েছে আর সে হিসেবে নির্বাচনে বাড়তি জনপ্রিয়তা লাভের  আশায় তিনি নিজে এমন হামলার নেপথ্য পরিকল্পনাকারী কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক এনাম খান সেটিকে নাকচ করে দেন। এ প্রশ্নের জবাবে বাংলা ইনসাইডারকে তিনি বলেন, দেশটির ফেডারেল সরকার ব্যবস্থা, গোয়েন্দা সংস্থা ও অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী এবং বিচার ব্যবস্থা এতটাই জটিল যে এমন কাজ করে ট্রাম্প নিজের বিপদ ডেকে আনবেন না। 

তিনি বলেন, আপনারা জানেন যুক্তরাষ্ট্র কোন রকমের বেআইনি কিছু হলে দেশটির বিচার ও আইন সংস্থাগুলো অত্যন্ত কঠোরতার সাথে সকল বিষয় জবাবদিহিতার আওতায় এনে থাকে। এমনকি সে ব্যক্তি যতই প্রভাবশালী হোক না কেন তাকেও আইনের উর্ধ্বে রাখ হয় না। তাই ট্রাম্প যদি এটি ভুলেও করিয়েও থাকতেন তবে পরে তদন্তে তা প্রমাণিত হলে ট্রাম্পের রাজনৈতিক জীবন যেমন আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ হওয়ার ঝুঁকিতে পড়তো অনুরূপ রিপাবলিক দলের গ্রহনযোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন উঠে আসতো। 

তিনি বলেন, অতএব এত বড় অপরাধ ঘটানোর কোনো সম্ভাবনা ট্রাম্পের নেই।

যুক্তরাষ্ট্রের সম্প্রতি বিভিন্ন বন্দুক হামলা বৃদ্ধির কারণ নিয়ে জানতে চাইলে অধ্যাপক সাহাব এনাম খান বলেন, দেশটির বন্দুক আইনের বিপক্ষে রিপাবলিকদের অবস্থান জোরালো। কিন্তু বাইডেন প্রশাসন সেটিকে জোরালোভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাইলেও রিপাবলিকের বাধার মুখে কার্যত বাস্তবায়নে পিছিয়ে। সেক্ষেত্রে বলা যায় দেশটিতে সঠিক অস্ত্র আইনের উপস্থিতির অভাবের আরেকটা প্রতিফলনও আজকের এ হামলা। আমি মনে করি সামাজিক নিরাপত্তার স্বার্থে এখনই সঠিক সময় কার্যকরি একটি অস্ত্র আইনের দিকে যাওয়া। 

তিনি আরো বলেন, অস্থির সামাজিক প্রেক্ষাপট ও ব্যক্তি পর্যায়েও নানা অস্থিরতা দেশটিকে ক্রমেই সহিংসতার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। আজকের হামলা থেকে এটা বলাই যেতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের সামাজিক অবক্ষয় ও অস্থিরতার আরেক চিত্র এ হামলা। 

অন্যদিকে বিশ্বের অন্য কোন পরাশক্তি এমন হামলার সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারে কিনা এমন শঙ্কার কথা নাকচ করে দিয়ে এনাম খান বলেন, এটি কোনোভাবেই সমভব নয়। কারণ, রাশিয়া, চীনসহ অন্যান্য বেশ কিছু পরাশক্তিধর রাষ্ট্র সবসময় চায় ট্রাম্প ক্ষমতায় আসলে বিশ্ব রাজনীতির মেরুকরণে তাদের একটা সুবিধাজনক অবস্থান থাকবে। অতএব এ হামলার সঙ্গে অন্য কোনো শক্তিধর রাষ্ট্রের কোনো রকমের সম্ভাবনা নেই   যুক্ত থাকার। 

অধ্যাপক সাহাব এনাম খান অবশেষে বলেন, ট্রাম্পের ওপর এ হামলাকে সম্পূর্ণ ‘ক্রিমিনোলজি পারসপেকটিভ’ থেকেই আমাদের দেখতে হবে। না ব্যক্তি ট্রাম্প, না রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট কিংবা অন্য কোনো গোষ্ঠীর এ হামলায় জড়িত। এটি একেবারেই বিকৃত মানসিকতাবোধ থেকে বিচ্ছিন্ন একক ব্যক্তি দ্বারা সংঘটিত একটি হামলার বিষয়।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা দূর করার জন্য মানুষের সচেতনতা অনেক বেশি জরুরি’

প্রকাশ: ০৪:১৩ পিএম, ১৩ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (পরিবেশ, জলবায়ু ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সার্কেল) মোঃ খায়রুল বাকের বলেছেন, ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা দূর করার জন্য মানুষের সচেতনতা অনেক বেশি জরুরি। কারণ আমরা যে ড্রেনেজ সিস্টেমগুলো করেছি সেগুলোতে প্রচুর পরিমাণ প্লাস্টিক এবং পলিথিন পাই। কোন কোন ড্রেনেজ থেকে ১ থেকে ২ ট্রাক পর্যন্ত প্লাস্টিক এবং পলিথিন পাওয়া যায়। আজকে সকালে গোড়ানের একটি ড্রেনে জাজিন পাওয়া গেছে। এই বিষয়গুলোই ড্রেন দিয়ে পানি সরে যেতে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে।

শনিবার (১৩ জুলাই) বাংলা ইনসাইডারের সাথে একান্ত আলাপচারিতায় মোঃ খায়রুল বাকের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আগে ড্রেনেজের দায়িত্ব ছিলো ঢাকা ওয়াসার। ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর সেটা ঢাকা উত্তর এবং দক্ষিণ দুই সিটি কর্পোরেশনের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এরপর থেকে আমরা স্বল্প এবং দীর্ঘমেয়াদি কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। এর মধ্যে যে সমস্ত জায়গাগুলো জলাবদ্ধ প্রবণ সেগুলোকে প্রথমে চিহ্নিত করেছি। এ রকম আমরা ১৬১টি স্থান চিহ্নিত করেছি। এর মধ্যে ১০৯ টি স্থানে জলাবদ্ধতা ইতোমধ্যে দূর হয়েছে। যেমন আজিমপুর, নটর ডেম কলেজের সামনে। তবে ঘূর্ণিঝাড় রেমাল বা মোখার ফলে যে বৃষ্টিপাত হয় সেক্ষেত্রে একটু জটিলতা তৈরি হয়। কারণ আমাদের ড্রেনেজগুলো এই বৃষ্টিপাতের উপযোগী নয়। 

যারা ড্রেনেজ সিস্টেম নষ্ট করে তাদের বিরুদ্ধে সিটি কর্পোরেশন কেন আইন ব্যবস্থা গ্রহণ করে না জানতে চাইলে মোঃ খায়রুল বাকের বলেন, আমাদের যথেষ্ট লোকবল নেই। এছাড়া এগুলো সারাক্ষণ পাহারা দিয়ে রাখার মতো আমাদের নিজস্ব কোন বাহিনী বা পুলিশ নেই। এখানে মানুষের সচেতনতাই মুখ্য। মানুষের সহযোগিতা ছাড়া শুধু সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে এর রক্ষণা বেক্ষণ করা সম্ভব নয়। 

তিনি বলেন, আগে ঢাকায় বৃষ্টি হলে সেই বৃষ্টির পানি সরতে ৪ থেকে ৫ দিন পর্যন্ত সময় লেগে যেত। কিন্তু এখন সেটা নেই। কোথাও কোথাও কিছুটা জলাবদ্ধতা তৈরি হলেও সেটা এখন ঘণ্টায় নেমে এসেছে। আমরা সেটাকে আরও কমিয়ে আনার জন্য কাজ করছি। গতকাল আমরা সারাদিন কাজ করেছি। আজকেও আমরা সকাল থেকে সবাই কাজ করছি।

গতকালের জলাবদ্ধতা দ্রুত কেন শেষ হলো না জানতে চাইলে মোঃ খায়রুল বাকের বলেন, ঢাকা শহরের বৃষ্টির পানি যে নদীগুলো নামবে এখন সেই সবগুলো নদী পানিতে ভরে গেছে। সেজন্য কালকের এই জলাবদ্ধা তৈরি হয়েছিল।

জলাবদ্ধতা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘কোটা ইস্যুতে আদালতের আদেশের জন্য অপেক্ষা করা উচিত’

প্রকাশ: ০৪:২৭ পিএম, ১১ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও চেয়ারম্যান, বায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্র (ক্যাপস) অধ্যাপক ড. আহমদ কামরুজ্জামান মজুমদার বলেছেন, আমাদের দেশের শিক্ষার মানের উন্নয়নের জন্য গবেষণার দিকে আরও বেশি নজর দেয়া উচিত। বিশ্বের অন্যান্য উন্নত দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মতোই আমাদেরকে শিক্ষার গবেষনার মান বাড়ানোর দিকে নজর দেয়া উচিত। কিন্তু বর্তমানে শিক্ষাঙ্গনের নানা অস্থিরতা ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি থেকে নিরসনে অবশ্যই শিক্ষার্থীদের মধ্যে আরও সহনশীলতা বাড়ানোর জন্য আমাদের সকল সচেতন মহলকে কাজ করতে হবে। 
দেশের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সাথে একান্ত আলাপচারিতা করেন ড. আহমদ কামরুজ্জামান মজুমদার। 

চলমান আন্দোলন নিরসনে দ্রুত সমাধানের কথা উল্লেখ করে ড. আহমদ কামরুজ্জামান বলেন, আমরা তা না করে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অস্থিতিশীলতায় বাস করি। আন্দোলনের বিষয়টি নিয়ে আদালতের আদেশের জন্য অপেক্ষা করা উচিত।

দেশের শিক্ষার স্থিতিশীলতার বিষয়ে তিনি বলেন, ২০২২ সালে প্রকাশিত ইকোনোমিস্ট ইনটেলিজেন্স প্রকাশিত গ্লোবাল লায়েবিলিটি ইনডেক্সে বিশ্ব শিক্ষার স্থিতিশীলতা ও উন্নয়ন সংক্রান্ত প্রতিবেদনে আমাদের স্কোর ছিল ৫৫। অথচ সেখানে ২০২৩-২৪ এর রিপোর্টে দেখা যায় এ মান এসে দাঁড়িয়েছে ৫০। আমি মনে করি শিক্ষার মান বাড়াতে ছাত্র-শিক্ষকসহ সকলকেই অধিক মনোযোগী হওয়া দরকার। আর তাতেই একজন শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত সফলতা আসবে। 


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘রাজশাহীর রাজনীতিতে গ্রুপিং নতুন নয়’

প্রকাশ: ০৩:৫৮ পিএম, ২৯ জুন, ২০২৪


Thumbnail

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং খুলনা-৩ আসনের সংসদ সদস্য এস এম কামাল হোসেন বলেছেন, রাজশাহীর এই ভুল বোঝাবুঝি বা গ্রুপিং অনেক আগের। আমরা কয়েকবার বসার চেষ্টা করেছি। ভুল বোঝাবুঝির অবসানের উদ্যোগও নিয়েছিলাম। ব্যক্তিগত ভাবেও আমি সবার সাথে যোগাযোগ করে কয়েকবার বসার চেষ্টা করেছি। কিন্তু বসা হয়নি। সংসদ নির্বাচন, উপজেলা নির্বাচনের জন্য পরে আর বসা হয়নি। এর মধ্যে একটি দু:খজনক ঘটনা ঘটে গেল। বাঘার সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল অভ্যন্তরীণ কোন্দলে নিহত হলেন। এক সময় তিনি ছাত্ররাজনীতির সাথে জড়িত ছিল, ছাত্রলীগের রাজনীতি করতো। পরে বাঘা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন। নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে সে মারা গেল, এটা দু:খজনক।

সম্প্রতি রাজশাহীর বাঘায় আওয়ামী লীগের দু পক্ষের সংঘর্ষ এবং পরবর্তীতে এক পক্ষ অন্য পক্ষকে হুমকি সহ সেখানকার রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সাথে একান্ত আলাপচারিতা করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন। উল্লেখ্য, কামাল হোসেন রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করছেন।

কামাল হোসেন বলেন, রাজশাহীর এই পুরো বিষয়টি আমি অবগত আছি। বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটিতে আলোচনা করা হবে। দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সিদ্ধান্তে হবে সাংগঠনিক কি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমি এরই মধ্যে দলের পুরো রিপোর্ট সংগ্রহ করে রাখবো। দল চাইলে আমি সে রিপোর্ট জমা দিব। দলের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক আমাকে যেভাবে নিদের্শনা দিবেন আমি সেভাবে কাজ করবো।

তিনি আরও বলেন, এই মুহুর্তে আমি চেষ্টা করছি দুই পক্ষের সাথে আলোচনা করতে যাতে করে আর কোন সংঘাতের মতো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে। এখানে আসলে আমার একার পক্ষে কোন কিছু করার সম্ভব না। কারণ এখানে একজন কেন্দ্রীয় নেতা আছেন যিনি প্রেসিডিয়াম সদস্য। পদাধিকারবলে তিনি আমার চেয়ে বড় এবং তিনি জাতীয় নেতা এ.এইচ.এম. কামারুজ্জামানের সন্তান। এখানে একটা পুরো টিম আছে। এখানে একজন  ‍যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আছেন, একজন প্রেসিডিয়ামের সদস্য আছেন। এছাড়াও কয়েকজন সদস্য আছেন। সুতরাং দল থেকে আমাকে যে নিদের্শনা দেওয়া হবে আমি আমার পুরো টিম বসে সেটি বাস্তবতায়ন করবো।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে এগিয়ে নিতে হলে সব ধরনের ছবি প্রয়োজন: ফজলুর রহমান বাবু

প্রকাশ: ০৭:৫১ পিএম, ২৭ জুন, ২০২৪


Thumbnail

ফজলুর রহমান বাবু, বাংলাদেশের অভিনয় জগতের এক জীবন্ত কিংবদন্তি। গত কয়েক দশক ধরে তিনি তার সুনিপুণ অভিনয়ের মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। অসাধারণ এই অভিনেতা চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। সম্প্রতি, তিনি নিজের অভিনয় ক্যারিয়ার ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করেছেন।

বাংলা ইনসাইডার- আপনার অভিনয় জীবনের পথচলাটা কিভাবে শুরু হলো? 

ফজলুর রহমান বাবু- ছাত্রজীবন থাকা অবস্থাতেই আমি থিয়েটারের সাথে যুক্ত হই, সেসময় থেকেই মূলত অভিনয়ের প্রতি আগ্রহটা বাড়তে থাকে। প্রথমদিকে এটার ওপর শুধুমাত্র ঝোঁক ছিলো, কিন্তু পরবর্তীতে অভিনয় ব্যাপারটাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখতাম, এটাকে পেশা হিসেবে নিতে চেয়েছিলাম। দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টা ও পরিশ্রমের ফলে একটা সময় এসেছে, যখন এটাকে পেশা হিসেবে নিতে পেরেছি। 

বাংলা ইনসাইডার- সম্প্রতি আপনি ‘তুফান’ নামের একটি সিনেমাতে অভিনয় করেছেন, ‘তুফান’ সিনেমাতে কাজ করার অভিজ্ঞতা যদি আমাদের সাথে শেয়ার করতেন?

ফজলুর রহমান বাবু- ‘তুফান’ তো রায়হান রাফির সিনেমা। রাফির প্রথম সিনেমাতে আমি কাজ করেছি, দ্বিতীয় সিনেমাতেও কাজ করেছি, ওটিটি প্ল্যাটফর্মেও তার সাথে কাজ করা হয়েছে, সর্বশেষ ‘তুফান’ করলাম। ‘তুফান’ সম্পূর্ণ বাণিজ্যিকধর্মী একটি ছবি। ছবিটি যে বাণিজ্যিকভাবে সফল, অনেক মানুষ দেখছে. এটা আমি এনজয় করছি।  একটা দেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি চলতে গেলে সব ধরনের সিনেমা প্রয়োজন।

বাংলা ইনসাইডার- ‘তুফান’ সিনেমার মাধ্যমে শাকিব খানের সাথে আপনার প্রথম পর্দা শেয়ার করা হলো, তার সাথে কাজের অভিজ্ঞতায় তাকে একজন মানুষ ও একজন অভিনেতা হিসেবে আপনার কেমন মনে হয়েছে?

ফজলুর রহমান বাবু- শাকিব খানের সাথে এটি আমার প্রথম কাজ, এই সাময়িক সময়ের কাজের অভিজ্ঞতা দিয়ে একটা মানুষকে বিচার করা যায় না। তবে সিনেমার চিত্রনায়ক হিসেবে সে একদম ঠিকঠাক আছে বলে আমার মনে হয়। পাশাপাশি সে কাজের প্রতি যথেষ্ট ডেডিকেটেড, সময়মতো শুটিং সেটে আসে, পরিচালকের সাথে প্রপারলি কমিউনিকেট করার চেষ্টা করে এবং তার যারা সহকর্মী আছে তাদের সবার সাথেই তিনি প্রপার বিহেভ করেন। সবকিছু মিলিয়ে একজন চলচ্চিত্র নায়কের যেমন বিহেভিয়ার হওয়া উচিত, কাজের প্যাটার্ন হওয়া উচিত, তার মধ্যে সেসকল বিষয় একদম ঠিকঠাক আছে। 

বাংলা ইনসাইডার- এখনকার বেশিরভাগ কমেডি কন্টেন্টকেই অনেকে ‘ভাড়ামি’ বলে অভিহিত করছেন? এ ব্যাপারে আপনার মন্তব্য কি?

ফজলুর রহমান বাবু- ‘কমেডি’ খুব উচুমানের শিল্প। অনেকেই কমেডিকে বেশ ছোট নজরে দেখেন, যেটা একদমই ভুল বলে আমার মনে হয়। বিশ্ববিখ্যাত অভিনেতা চার্লি চ্যাপলিন যিনি বিশ্বব্যাপী  বহু অভিনেতার অনুপ্রেরণা, তিনি তার কমেডি দিয়ে মানুষকে হাসিয়েছেন, কাঁদিয়েছেন। আমাদের দেশেও বেশ ভালো ভালো কমেডি কন্টেন্ট হচ্ছে। তবে, কিছু মোটাদাগের হাস্যরসাত্মক কন্টেন্টও হচ্ছে যেগুলোতে কিছু অহেতুক অঙ্গভঙ্গি ও সংলাপ থাকে যেগুলো আসলে নাটক অথবা কোনো কন্টেন্ট এর সংলাপ হওয়া উচিত না। 

বাংলা ইনসাইডার- দর্শকরা আবার হলমুখী হচ্ছেন, বিশেষ করে তরুণ প্রজন্ম। ‘তুফান’ এর অনেক বড় একটা দর্শকশ্রেণি এই তরুন প্রজন্ম। এ ব্যাপারে আপনার অভিমত কি?

ফজলুর রহমান বাবু- এটা অবশ্যই খুব পজিটিভ একটা ব্যাপার, দেখে খুব ভালো লাগছে যে তরুণ প্রজন্ম আমাদের সিনেমা দেখতে হলে আসছে।  আর রায়হান রাফির প্রতি আমাদের প্রত্যাশা অনেক। ও যে এই সিনেমার মাধ্যমে সকল শ্রেণির দর্শককে হলমুখী করতে পেরেছে, এটাই ‘তুফান’ এর সবচেয়ে বড় সফলতা। তবে আমাদের সচেতন থাকতে হবে। এখন সবাই ঘরে বসেই বিশ্বমানের কন্টেন্ট দেখতে পাচ্ছে। আমাদেরও যথেষ্ট মেধাবী লেখক, পরিচালক ও অভিনেতা আছে, অতএব আমাদের নিজেদের আরো শাণিত করে দর্শক চাহিদা ও রুচির কথা মাথায় রেখেই সুস্থ ধারার কাজ করা উচিত।


ফজলুর রহমান বাবু   শাকিব খান   রায়হান রাফি   তুফান   সিনেমা  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন