ইনসাইড টক

‘বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার নির্বাচন হচ্ছে নির্বাচন-নির্বাচন খেলা’

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৪:০০ পিএম, ১৫ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন সাধারণ সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এই যে সহিংসতা আমরা দেখছি, মনোনয়ন বাণিজ্য দেখছি, এগুলো হলো রোগের উপসর্গ, রোগ নয়। আমার বিবেচনায় রোগ তিনটি। এর মধ্যে প্রথমটি হল আমাদের রাজনীতিতে সুবিধাবাদ। রাজনীতি হওয়া উচিত জনগণের কল্যাণের জন্য, জনস্বার্থে। কিন্তু আমাদের রাজনীতিটা হয়ে গিয়েছে ব্যক্তির স্বার্থে, গোষ্ঠীর স্বার্থে, দলের স্বার্থে। অর্থাৎ রাজনীতিতে মানুষ এখন যুক্ত হয় কিছু পাওয়ার জন্য। তাই রাজনৈতিক দলের পদ-পদবী পেলে কিংবা এইসব নির্বাচিত পদ-পদবী পেলে তারা রাতারাতি অর্থবিত্তের মালিক হয়। বিভিন্ন রকম অন্যায় করে পার পেয়ে যাওয়ার সুযোগ পায়। এই পরিস্থিতি যতদিন থাকবে, অর্থাৎ রাজনীতি যদি আবারও জনকল্যাণমুখী না হয়, জনগণের স্বার্থে না হয়, ততদিন পর্যন্ত এই অসম প্রতিযোগিতা, মনোনয়ন বাণিজ্য, একে অপরকে নিশ্চিহ্ন করার, ল্যাঙ মারার, সহিংস আচরণ বিরাজ করতেই থাকবে। এটি হলো প্রথম রোগ। রাজনীতিকে কলুষিত মুক্ত করতে হবে, কল্যাণমুখী করতে হবে এবং রাজনীতিটা করতে হবে জনস্বার্থে, কিছু পাওয়ার জন্য নয়।

স্থানীয় নির্বাচনে সহিংসতা, নির্বাচন কমিশনারের ভূমিকা সহ বিভিন্ন বিষয়ে ড. বদিউল আলম মজুমদার বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন। পাঠকদের জন্য ড. বদিউল আলম মজুমদার এর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডার এর নিজস্ব প্রতিবেদক অলিউল ইসলাম।

ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, দ্বিতীয় রোগটি হল আমাদের সবকিছু দলীয় হয়ে গেছে। প্রশাসন দলীয়, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দলীয়, আমাদের নির্বাচন কমিশন দলীয়। এর ফলে এই যে দলীয় ভিত্তিক নির্বাচন হচ্ছে, যারাই ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন পাচ্ছে, তাদের বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় নিশ্চিত। এবং এরই প্রতিফলন ঘটছে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া কিন্তু নির্বাচন নয়। এটা হচ্ছে নির্বাচন-নির্বাচন খেলা। নির্বাচন হলো বিকল্প বেছে নেওয়ার সুযোগ থাকা। কিন্তু আমাদের নির্বাচনী ব্যবস্থাই ধ্বংস হয়ে গিয়েছে। ফলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থী নির্বাচিত হয়ে যাচ্ছেন। আর তৃতীয় রোগটি হলো, আমাদের নির্বাচন কমিশন নির্বাসনে চলে গিয়েছে। বস্তুত নির্বাচন কমিশন তথা ইসি নির্বাচনকে `নির্বাসনে` নিয়ে গেছে। তারা যথাযথ দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হচ্ছে বলেই নির্বাচনে সহিংসতা বাড়ছে। ভোটের মাঠে প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নির্বাচন কমিশনের অধীনে। অথচ ইসি সেখানে পদক্ষেপ নিচ্ছে না। প্রার্থী বা রাজনৈতিক দল বুঝে গেছে- যত অন্যায়ই করুক না কেন, নির্বাচন কমিশন কিছু করতে পারবে না। ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীরা মনে করছেন, প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের পক্ষে। ফলে কেউ কোনো আইন বা রীতির তোয়াক্কা করছে না। তারা যে কোনো মূল্যে জয় পেতে চাইছে এবং সহিংসতায় জড়াতেও দ্বিধা করছে না।

ইসি মাহবুব তালুকদারের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ওনি তো সাহিত্যিক মানুষ। ওনি ওনার ভাষায় কথা বলেন এবং হয়তো পাঠকদের জন্য, শ্রোতাদের জন্য আকর্ষণীয় হবে ভেবে এই ভাষায় মন্তব্য করেছেন। আমি যে ভাষা ব্যবহার করেছি তা হল আমাদের নির্বাচনী ব্যবস্থা নির্বাসনে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই নির্বাচন কমিশনের অকর্মণ্যতা, অদক্ষতা এবং পক্ষপাতদুষ্টটার কারণে হয়েছে। তো ওনি ওনার ভাষার কথা বলেছেন। আমাদের নির্বাচনী ব্যবস্থা তো ভেঙ্গে পড়েছে। আমাদের মধ্যরাতে ভোট হয়। আমাদের অন্যায় করে পার পাওয়া যায়। পাশাপাশি আমাদের নিকৃষ্ট যন্ত্র ইভিএম, যা নিরীক্ষণ করা যায় না, তা ব্যবহার করা হয়। 

নির্বাচন কমিশনার হিসেবে ওনার ভূমিকা কি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওনাদের বিরুদ্ধে তো আমরা অভিযোগ করেছি। ওনারা চরমভাবে  ব্যর্থই নয় শুধু, চরম অসদাচরণও করেছে। তারা মধ্যরাতে ভোট নিয়েছেন। বিভিন্ন রকমের অন্যায় বিশেষ করে টকা-পয়সা লোপাট, দুর্নীতি করেছেন এবং সাফাই গেয়েছেন। তারা ট্যাক্স পেয়ারের টাকা ভাগ বাটোয়ারা করে দিয়েছেন। বৈশাখী টেলিভিশনে সাত-আট পর্বের একটি প্রোগ্রামও করেছে তাদের দুর্নীতি নিয়ে। শুধু তাই নয়, তাদের অন্যতম দুর্নীতি হল ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিজে লাভবান হওয়া এবং অন্যকে লাভবান করা। তারা ক্ষমতার অপব্যবহার করে মধ্যরাতে ভোট করেছে। বিভিন্নভাবে ক্ষমতাসীনদেরকে অন্যায় করে পার পেয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে। সেটাই তো সবচেয়ে বড় দুর্নীতি। সুতরাং তারা চরমভাবে ‍দুর্নীতিগ্রস্থ এবং তারা চরমভাবে ব্যর্থ। তারা আমাদের নির্বাচনী ব্যবস্থা ভেঙ্গে দিয়ে ধ্বংস করে দিয়েছে। আমি মনে করি আমরা মহা সংকটের মধ্যে আছি এবং এই সংকটটি আরো ঘনীভূত হবে। যেহেতু ক্ষমতায় যাওয়া মানে হল সুযোগ সুবিধা পাওয়া, অন্যায় করে পার পেয়ে যাওয়া, তাই ক্ষমতা ছাড়ার আর কোনো রকম আগ্রহ কারোরই নাই এবং থাকবেও না। এটি আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করবে। তাই ক্ষমতায় থাকার জন্য ক্ষমতাসীনরা সবকিছুই করবে। যা আমাদের সবগুলো প্রতিষ্ঠানকে নিয়ম-কানুন, বিধি-বিধান সবকিছু ধ্বংস করে দিবে। পক্ষপাতদুষ্ট ব্যক্তিদেরকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দিবে এবং প্রতিষ্ঠানগুলো সম্পূর্ণ অকার্যকর হয়ে যাবে।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘ওবায়দুল কাদের মনের কষ্ট থেকে ছাত্রলীগকে এ কথা বলেছেন’

প্রকাশ: ০৩:৫৯ পিএম, ০৩ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসহাক আলী খান পান্না বলেছেন, গতকাল ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ ছাত্রলীগের যৌথ বার্ষিক সম্মেলনে যে ঘটনা ঘটেছে সেটিকে অন্যভাবে দেখা কোনো সুযোগ নেই। কারণ সেখান দুটি ইউনিটের এক সাথে সম্মেলন হয়েছে। সেখানে ছাত্রলীগের হাজার হাজার নেতাকর্মীর সমাগম হয়েছে। এতো জনের উপস্থিতির কারণে সেখানে ছোটখাটো হট্টগোল হয়েছে কিন্তু অনাকাঙ্খিত কোনো পরিস্থিতির সৃষ্টি কিন্তু হয়নি। আর যেটি ঘটেছে সেটি যেকোনো বড় সমাগম বা অনেক মানুষের সমাগম হলে হতেই পারে। এটি খুবই স্বাভাবিক। ছাত্রলীগ একটি ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। এই সংগঠনের মধ্যে কোনো অন্ত:কোন্দল আছে বলে আমি মনে করি না। এই সংগঠনের সাংগঠনিক নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। তার নির্দেশে এবং তার পরামর্শে ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র পরিচালিত হয়ে থাকে। 

ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ ছাত্রলীগের যৌথ বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এক পর্যায়ে উপস্থিত নেতাকর্মীদের মধ্যে উচ্ছৃঙ্খলা দেখা দেয়। তারা বিভিন্ন পোস্টার উঁচিয়ে স্লোগান দিতে থাকেন। থামতে বললেও কথা না শুনে তারা স্লোগান দিতে থাকেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা কি ছাত্রলীগ? কোনো শৃঙ্খলা নেই। কেন বারবার ছাত্রলীগ এভাবে আলোচনায় আসছে তা নিয়ে বাংলা ইনসাইডার এর সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় ইসহাক আলী খান পান্না এসব কথা বলেছেন। পাঠকদের জন্য ইসহাক আলী খান পান্না এর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডার এর নিজস্ব প্রতিবেদক শান্ত সিংহ।

ইসহাক আলী খান পান্না বলেন, ছাত্রলীগের উশৃঙ্খল নিয়ে আমাদের দলের জননেতা ওবায়দুল কাদের ছাত্রলীগের উদ্দেশ্যে যে কথা বলেছেন সেটি তিনি তার প্রত্যাশার জায়গায় থেকে বলেছেন। তিনি তার মনের কষ্ট থেকে ছাত্রলীগের উদ্দেশ্যে এ সমস্ত কথা বলেছেন। তার মনের কষ্ট হলো যে, ছাত্রলীগকে আরও শৃঙ্খল হওয়া দরকার, ছাত্রলীগকে আরও সংগঠিত হওয়ার দরকার। এই প্রত্যাশার জায়গা থেকে তিনি ছাত্রলীগকে এসমস্ত কথা বলেছেন। তিনি ছাত্রলীগকে শোধরানোর জন্য বলেছেন। কিন্তু এটিকে ভিন্নভাবে দেখার সুযোগ নেই।

ছাত্রলীগের আসন্ন সম্মেলনের ব্যাপারে সংগঠনটির সাবেক এই নেতা বলেন, যে নেতৃত্ব আসবে সেই নেতৃত্ব বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ঘোষিত কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করবে। সরকারের সুনাম অক্ষুণ্ণ রেখে ছাত্রলীগের ঐতিহ্যকে ধারণ করে তারা সামনের এগিয়ে যাবে। যে নেতৃত্ব ২০২৪ সালে নির্বাচনে শেখ হাসিনার বিজয় নিশ্চিত করতে একটি বলিষ্ট ভূমিকা পালন করবে। 

তিনি আরও বলেন, এখন ডিসেম্বর মাস, আমাদের বিজয় অর্জনের মাস। এই মাসে কারা ষড়যন্ত্র করছে, কারা হুংকার দিচ্ছে সেটি বুঝতে কারো অসুবিধা হওয়ার কোনো কথা নয়। যারা হুংকার দিচ্ছে তারা সবাই একাত্তর এবং পঁচাত্তরের ঘাতক গোষ্ঠী। তারা এখনো ষড়যন্ত্র করছে। এই ষড়যন্ত্রকারীই আগামী ১০ ডিসেম্বর ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে নামার চেষ্টা করছে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের শক্তি ছাত্রলীগ সহ আওয়ামী লীগের অন্যান্য সহযোগী সংগঠন রাজপথে সক্রিয় আছে যেকোনো ষড়যন্ত্রকে ধূলিসাৎ করে দিতে। আর সেই শক্তি সব ষড়যন্ত্রকে মোকাবিলা করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তুলতে প্রস্তুত আছে। এ সমস্ত ষড়যন্ত্রকে মোকাবিলার করার জন্য আমরা যেকোনো ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত আছি।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘যে সরকারই আসুক তখন কিন্তু শিল্পীদের মধ্যে ভাগাভাগি হয়ে যায়’

প্রকাশ: ০৪:০০ পিএম, ০২ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক বলেছেন, নির্বাচন কিন্তু আজকে নতুন করতেছি না। আমি গতবার নমিনেশন তুলেছিলাম নির্বাচন করার উদ্দেশ্যে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গতবার আমাকে নমিনেশন দেয় নাই। কারণ, মনে করেছে যে সিদ্দিকুর রহমান এখনো পারফেক্টলি নৌকার মাঝি হওয়ার যোগ্যতা রাখে না। গতবার আমি মধুপুর-ধনবাড়ি টাঙ্গাইল-১ আসন থেকে নমিনেশন পেপার ওঠিয়েছিলাম। সেখানে যেহেতু আমার মা থাকে, ডেফিনেটলি সেখানে আমার মায়ের জন্য যেতে হয়। আমি একটা মাকে দেখতে গিয়ে আমার মধুপুর ধনবাড়ীর সাড়ে চার লক্ষ মাকে আমি দেখে আসি। মানে মায়ের সন্তানদেরকে দেখি, মাকেও দেখি। অতএব ভালোবাসাটা ওখানে আমার প্রচুর পরিমাণে। যেহেতু আমার জন্মটা টাঙ্গাইল মধুপুরে।

সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক একজন নাট্য অভিনেতা। বেশিরভাগ সময় কমেডি চরিত্রে অভিনয় করে থাকেন। ২০১৩ সালে তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র 'এইতো ভালোবাসা' মুক্তি পেয়েছিল। বর্তমানে তিনি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছেও পোষণ করেছেন। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এই অভিনেতার সাথে কথা বলেন বাংলা ইনসাইডারের বিনোদন প্রতিবেদক আসিফ আলম।

সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক বলেন, সেই জায়গা থেকে যেমন আমার ওখানে ভালোবাসা আছে, এখানে গুলশান-বনানী। ঢাকা-১৭ আসনের মানুষও আমাকে খুব ভালোবাসে। কারণ, যেহেতু আমার বেড়ে ওঠাটা ঢাকা শহরেই। আল্টিমেটলিই আমার বাসা গুলশানে, অফিসও গুলশানে। সবকিছু গুলশান বেইজড। যেহেতু এখানে ভিআইপি লোকজনরা থাকে এবং তাদের আনাগোনা থাকে। তাই তাদের সার্ভিস দেওয়ার জন্য আমার মনে হয় এরকম লোক দরকার যে, এই দেশে সিআইপি না হলেও ভিআইপি না হলেও সেলেব্রিটি। কিন্তু সেটার প্রমাণ কিন্তু ইতিপূর্বে দেখেছেন আমার শ্রদ্ধেয় বড় ভাই ফারুক ভাই। ফারুক ভাই এই আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে আছেন। উনি এখন হাসপাতালে ভর্তি, সবাই উনার জন্য দোয়া করবেন। আল্লাহ উনাকে ভালো করে এখানে নিয়ে আসুক। সেই জায়গাটা যেহেতু ফারুক ভাই সার্ভিস দিয়েছে, ফারুক ভাইয়ের উত্তসূরী না হলেও আমরা একই পরিবারের সদস্য। আমরা যেহেতু মিডিয়া পরিবারের সদস্য। তাই, সেই জায়গাটা থেকে গুলশান-বনানী তার মানে ঢাকা-১৭ আসনেও এবার নির্বাচনের চিন্তা করেছি।

তিনি আরও বলেন, এটা তো আসলে সম্পূর্ণ জনগণের ওপর নির্ভর করবে। কারণ, যদি বলেন আমি কতটা আশাবাদী? শতভাগ। কারণ, শতভাগ না হলে সিদ্দিকুর রহমান নির্বাচন করবে সেটা কখনো ঘোষণা দিত না। আর আলটিমেটলি আমার চলাফেরা বা সমস্ত কর্মকাণ্ডই কিন্তু এটিকে ভিত্তি করে যে মানুষের পাশে দাঁড়ানো, একটা মানুষকে হেল্প করা, একটা মানুষের সমস্যা হলে সেটাকে কিভাবে সমাধান করা যায় সেই চিন্তা গুলোই সারাদিন আমার মাথার ভিতরে থাকে। অনেকেই জানে যে, সিদ্দিকুর রহমান তো অভিনয় করতো। সে হঠাৎ করে এখানে কেন? হঠাৎ করে না। এটা আমার ফ্যামিলি ব্যাকগ্রাউন্ডের জায়গা থেকে। মাঝখানে যেটা হয়েছে আমি নাট্যকার অভিনেতা নির্মাতা হিসেবে বেঁচে থাকতে চাই, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু একজন অভিনেতা মারা গেলে মানুষ আল্টিমেটলি তাকে অতটা মনে করে না যদি সে সোশ্যাল এক্টিভিটি না করে। তাই সোশাল এক্টিভিটি করার জন্য আমি সদা প্রস্তুত। সেইজন্য আমি মনে করি, আগামী নির্বাচনে হান্ড্রেট পার্সেন্ট নমিনেশন পাওয়ার আশাবাদী, ইনশাআল্লাহ।

মিডিয়া থেকে যারা এমপি হয়েছেন তাঁরা কিছুই করেননি জানিয়ে সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক বলেন, বাংলাদেশের মিডিয়া থেকে অনেক মানুষ কিন্তু এমপি হয়েছে। কিন্তু আদৌ সেই জায়গাটা তারা ফুলফিল করতে পারে নাই। আমাদের যে অভাবগুলো, আমাদের যে চাহিদা গুলো সেগুলা। সেটার জন্য তোম আমি ব্যাপকভাবে চিন্তা করি সবসময়ই। আমার ফেসবুক পেইজ আপনার দেখেন যে, আমি বিভিন্ন রকমের স্ট্যাটাস দিই। আসলে আমরা অনেক কিছু চাই। আমরা এখন পর্যন্ত শিল্পীরা বাংলাদেশে পেশাগত মর্যাদাটাই পাইনি। মিডিয়ার সাথে যে সমস্ত লোকগুলো জড়িত তাঁরা আলটিমেটলি দিনশেষে কি পায়? তারা কিছু পায় না। দিনশেষে মিডিয়ার লোকগুলো শেষ বয়সে অসুস্থ অবস্থায় কোথায় সে ঔষধের থলে ধরে দাঁড়ায় থাকবে সেটাও করে, আবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে গিয়ে একটা চেক নিয়ে আসে। এটি হলো তা জীবনের অর্জন। সিদ্দিকুর রহমান যদি মিডিয়ার থেকে এমপি হয় তাহলে দেখে দিবে সেগুলো সম্ভব না। কারণ, আমাদের মিডিয়ার ম্যাক্সিমাম লোকের আমরা যেটা করি, একটা বোকামি করি যে একটা প্রফেশনের ওপর ডিপেন্ড করি। বাংলাদেশে ছোট্ট একটা মিডিয়ার জায়গা। এই ছোট্ট জায়গায় কিন্তু তার নিজের লাইফটাকে ফুলফিল করতে পারে কিন্তু পরবর্তী জেনারেশন তার বাচ্চাটার জন্য তেমন কোনো কিছু করতে পারেনা।

এমপি হলে তিনি কি কবেন জানিয়ে বলেন, আমি যদি ওখানে যাই শিল্পীদের পক্ষে যে ধরনের দাবিগুলো আছে আমাদের পেশাগত মর্যাদা এটা নিয়ে আমি কখনোই দেখিনি এতগুলা শিল্পী জাতীয় সংসদে গিয়েছে কোথায় সেই পেশাগত মর্যাদা নিয়ে কথা বলবে, আমাদের ওই জায়গা গুলা ঠিক করবে সেগুলোর না করে। আমাদের এখন পর্যন্ত দেখবেন যে সরকারই আসুক তখন কিন্তু শিল্পীদের মধ্যে ভাগাভাগি হয়ে যায়। আওয়ামী লীগের শিল্পী, বিএনপির শিল্পী, জামায়াত ইসলামের শিল্পী, বিভিন্ন জায়গার শিল্পী। শিল্পীদের কিন্তু ভাগ হওয়ার কথা না। আমি সবসময় একটা কথা যে, ব্যক্তি সিদ্দিক একটা দলের হতে পারে কিন্তু নাট্যকার-অভিনেতা-নির্মাতা সিদ্দিকুর রহমান সারা বাংলাদেশের।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘বিএনপি একটি খারাপ মতলব নিয়ে এই সমাবেশ করতে চায়’

প্রকাশ: ০৪:০০ পিএম, ০১ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, আমরা অনেক আগে থেকেই আশঙ্কা করে আসছিলাম এবং আমাদের আশঙ্কাই সত্য। সেটা হলো বিএনপির একটি অশুভ উদ্দেশ্য রয়েছে এবং একটি খারাপ মতলব নিয়ে তারা এই সমাবেশ করতে চায়। তার কারণ হলো, তারা যে বলছে দশ লক্ষাধিক লোক হবে সেই দশ লক্ষাধিক লোকের ধারণক্ষমতা হলো একমাত্র সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান সম্পর্কে তাদের গাত্রদাহ রয়েছে। কারণ, ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পাকিস্তান সেনাবাহিনী আত্মসমর্পণ করেছিল। যুদ্ধের মধ্যদিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙ্গালী জাতিকে তার মুক্তির পথ নির্দেশনা করেছিলেন।

১০ ডিসেম্বর বিএনপির নয়াপল্টনে সমাবেশ করতে চাওয়া, দেশি এবং বিদেশি একটি চক্রান্ত ইত্যাদি নিয়ে বাংলা ইনসাইডার এর সঙ্গে আলাপচারিতায় জাহাঙ্গীর কবির নানক এসব কথা বলেন।

অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, তাদের প্রস্তাবে মনে হচ্ছে যে তারা শান্তিপূর্ণ সমাবেশ চায়না। তাদের অশুভ উদ্দেশ্য রয়েছে, যে উদ্দেশ্যগুলি ইতিমধ্যে তারা বিভিন্ন সময়ে বলেছে, তর্জন-গর্জন দিয়েছে। কাজেই, তাদের যে অশুভ উদ্দেশ্য, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক এই পরিস্থিতিতে তারা একটি আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রকারীদের সঙ্গে তারা জড়িত রয়েছে। আমাদেরকে আবার পিছিয়ে দেওয়ার জন্য, স্থবির করে রাখার জন্য এই বৈশ্বিক সংকটের সময় তারা একের পর এক ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে। আশাকরি বিএনপির শুভবুদ্ধির উদয় হবে এবং তারা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ফিরে আসবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যে তাদের সমাবেশকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জাতীয় সম্মেলন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছিল ৮ ডিসেম্বর। সেই সম্মেলন কিন্তু ৬ ডিসেম্বর এগিয়ে নিয়ে এসেছে। আমাদের প্রতি নির্দেশনা দিয়েছেন নেত্রী যে, ৭ তারিখের মধ্যে সব অপসারণ করার জন্য। এখানে মঞ্চ, প্যান্ডেল যাবতীয় যা সম্মেলনকে ঘিরে রয়েছে সমস্ত কিছু অপসারণের জন্য।

বিএনপি গায়ে পড়ে একটা সহিংসতা সৃষ্টি করতে চাচ্ছে, সংঘাত তৈরি করতে চাচ্ছে, লাশ চাচ্ছে। সেখানে আওয়ামী লীগের কৌশল কি, এমন প্রশ্নের জবাবে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, বিএনপির কলকাঠি যিনি নাড়ছেন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি তারেক রহমান, সে বাংলাদেশের মানুষ শান্তিতে থাক, বাংলাদেশের মানুষ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাক এটি কোনোভাবেই তিনি চান না। তারা লাশের রাজনীতি করে। কাজেই, তারা বিভিন্ন দুরভিসন্ধি করছে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আমরা বলতে পারি এই সমাবেশকে কেন্দ্র করে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা তাদের করেছি। কিন্তু তারা যদি কোনো অশান্তি, বিশৃঙ্খলা, অচলাবস্থা সৃষ্টি করতে চায় বা তারা কোনো দুর্ঘটনা ঘটাতে চায় তা মোকাবেলা করার সক্ষমতা আওয়ামী লীগের ছিলো এবং আছে।

প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি চাচ্ছেন শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক কর্মসূচি এবং এ লক্ষ্যে তিনি ছাত্রলীগের সম্মেলন এগিয়ে নিয়েছেন, পরিবহন ধর্মঘট না দেয়ার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। কিন্তু দেখা যায় রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘট দেওয়া হয়েছে। তার মানে কি আওয়ামী লীগ সভাপতির নির্দেশনাও আওয়ামী লীগের একটি অংশ মানছে না, এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের এই প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, বিষয়টা এমন না। বিষয়টা আমি জানিনা। নেত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আছেন। তারপরও ধর্মঘট হলে সেটা খুবই দুঃখজনক এবং দুর্ভাগ্যজনক।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে দেশি এবং বিদেশি একটি চক্রান্ত চলছে। সেই চক্রান্তের অংশ হিসেবেই ১০ ডিসেম্বরের এরকম একটা অবস্থায় বিএনপি গিয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কেউ কেউ এমন গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে যাতে এখানে ভুতের সরকার কায়েম করা যায়। কাজেই ভুতের সরকারের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জনগণ প্রস্তুত হয়েছে।

জাহাঙ্গীর কবির নানক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘সমঝোতার আগে দলের গঠনতন্ত্রের পরিবর্তন দরকার’

প্রকাশ: ০৩:৫৯ পিএম, ৩০ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

সংসদে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ ও জাতীয় পার্টির (জাপা) সাবেক মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেছেন, জাতীয় পার্টি ভাঙ্গবে, না তারা সমঝোতায় পৌঁছাবেন তা দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের এবং পার্টির চিফ প্যাট্রন ও সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ সিদ্ধান্ত নেবেন তারা কি করবেন। তবে সমঝোতার ব্যাপারে এখনো কোন কথা শুরু হয়নি।

চিকিৎসা শেষে প্রায় পাঁচ মাস পর রোববার থাইল্যান্ড থেকে দেশে ফিরেছেন জাপার প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। দেশে  ফিরেই তিনি দেশের সমসাময়িক রাজনীতি নিয়ে কথা বলেছেন। পাশাপাশি দলের ঐক্যের ডাক দিয়েছেন। তিনি দেশে ফেরার পর আড়ালে জাতীয় পার্টি সমঝোতা শুরু করেছে কিনা এসব নিয়ে বাংলা ইনসাইডার এর সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় মসিউর রহমান রাঙ্গা এসব কথা বলেছেন। পাঠকদের জন্য মসিউর রহমান রাঙ্গা এর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডার এর নিজস্ব প্রতিবেদক শান্ত সিংহ।

মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, দলের মধ্যে বিরোধ দূর করে সমঝোতা করতে চাইলে কিংবা দলকে আরও সংগঠিত করতে চাইলে দলের ধারা পরিবর্তন করতে হবে। বিশেষ করে দলের গঠনতন্ত্রের ২০ ধারার পরিবর্তন আনতে হবে। কারণ এই ধারার জন্য দলে অরাজকতা সৃষ্টি হয়। একক নেতৃত্বের একটি স্বৈরচারি মনোভাব তৈরি হয়। সেজন্য দলকে সংগঠিত করতে চাইলে কিংবা দলের বিরোধ দূর করতে চাইলে অবশ্যই আগে এই ২০ ধারাটির পরিবর্তন করতে হবে। অনথায় সমঝোতা করে কোনো লাভ হবে না। দলকে সংগঠিত করা যাবে না। এর ব্যতিত কিছুদিন হয়তো দল সংগঠিত হবে কিন্তু পরে নেতৃত্বের মধ্যে আবার সেই স্বৈরচারি মনোভাব জেগে উঠবে। সুতরাং দলকে শক্তিশালী করার পূর্বশত হলো ২০ ধারার পরিবর্তন।

তিনি বলেন, রওশন এরশাদের সাথে জিএম কাদেরের এখন পর্যন্ত কোনো সমঝোতা হয়নি। জিএম কাদের নিজে থেকে উনার ভাবির সাথে উনি দেখা করতে এসেছেন, কোনো সমঝোতা করতে নয়। সমঝোতার উদ্দেশ্য নিয়ে জিএম কাদের রওশন এরশাদের সাথে দেখা করতে আসেনি। উনি মূলত রওশন এরশাদের কাছে এসেছিলেন তার স্বাস্থ্যগত দিক জানার জন্য। সেখানে কিছু রাজনৈতিক কথাবার্তা হয়েছে কিন্তু কোনো সমঝোতার বিষয়টি আসেনি।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘সরকার আগেই সমাবেশের অনুমতি দিলে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হতো না’

প্রকাশ: ০৪:০০ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন বলেছেন, বিএনপি অন্যান্য বিভাগীয় গণসমাবেশের মতোই আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশ করবে। এর বাইরে বিএনপির আসলে অন্য কোনো উদ্দেশ্য নেই। যে সমস্ত আতঙ্কের কথা বলা হচ্ছে বা শোনা যাচ্ছে এগুলো ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ আতঙ্কিত হয়ে বলছে। সারাদেশে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশগুলোতে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত জমায়েত দেখে সরকার ভয় পেয়ে এখন এ ধরনের কথাবার্তা বলছে। সমাবেশগুলোতে যে গণ জোয়ার তৈরি হয়েছে তাতে সরকার আতঙ্কিত হবে এটাই স্বাভাবিক। দেশের কোথাও বিএনপির সমাবেশগুলোতে সরকার বাধা দিয়ে গণজমায়েত ঠেকাতে পারেনি। আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকাতেও সরকার সেটি করতে পারবে না ভেবেই এই আতঙ্ক থেকে  সরকার এখন নিজেই আতঙ্ক ছড়াচ্ছে।

আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশ করবে বিএনপি। এ নিয়ে জনসাধারণ এক ধরনের আতঙ্কিতবোধ লক্ষ্য করা গেছে। বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন উঠেছে, ১০ ডিসেম্বর আসলে কি হবে। ১০ ডিসেম্বর আসলেই কি হবে এ নিয়ে বাংলা ইনসাইডার এর সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় জহির উদ্দিন স্বপন এসব কথা বলেছেন। পাঠকদের জন্য জহির উদ্দিন স্বপন এর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডার এর নিজস্ব প্রতিবেদক শান্ত সিংহ।

জহির উদ্দিন স্বপন বলেন, বিএনপির সমাবেশগুলোতে যেভাবে গণজোয়ার শুরু হয়েছে এগুলো আসলে গায়ের জোরে ঠেকানো সম্ভব নয়। সরকার অহেতুক সংঘাত সৃষ্টি করতে চাইছে। বিএনপি ১০ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে সমাবেশ করতে ডিএমপির কাছে অনুমতি চাইলো। কিন্তু অনুমতি দেওয়া হলো সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। অথচ তারা আগে থেকেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান টানা কমসূর্চি দিয়ে রেখেছে। স্বাভাবিকভাবেই আমরা যেখানে যাব না। আমরা বিকল্প স্থান বেছে নিয়েছি। আসল কথা হলো সরকারের মধ্যে ম্যাচিউরিটি লোকের অভাব রয়েছে। শেষ পর্যন্ত সরকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি দিলো। কিন্তু এর আগে দিলো না কেন? সরকার আগেই সমাবেশ করার অনুমতি দিলে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হতো না। সরকার অহেতু একটি আতঙ্কিত পরিস্থিতি তৈরি করেছে।

সরকারের বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে তিনি বলেন, সরকার এখন শান্তিপূর্ণ অবস্থান নিয়েছে। কিন্তু শুরু থেকে সরকার এই শান্তিপূর্ণ অবস্থান নিলে সরকারের এমন কি ক্ষতি হতো? সরকারই বিভিন্ন ধরনের কথাবার্তা বলে সংঘাতের মতো একটি ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরি করেছে। অথচ বিএনপি সংঘাত তৈরি হোক এমন কোন কথাই বলেনি বা এমন কোন কর্মসূচিও নেয়নি। সরকারের মধ্যে ম্যাচিউর লোকের অভাব থাকার কারণে সাধারণ মানুষের মধ্যে অহেতুক ভীতি তৈরি হয়েছে। বস্তুত ১০ ডিসেম্বর কিছুই হবে না। বিএনপির একটি সাধারণ সমাবেশ করবে,যেখানে সারাদেশে থেকে মানুষ আসবে এবং বিএনপির পক্ষে একটি গণজোয়ার তৈরি হবে। 


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন