ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

খালেদা জিয়া কি নির্বাচনের প্রস্তুতির নির্দেশ দিলেন ফখরুলকে?

প্রকাশ: ১২:২৫ পিএম, ১৭ এপ্রিল, ২০২৩


Thumbnail

গতরাতে আকস্মিকভাবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেন। বেগম খালেদা জিয়ার বাসবভন ফিরোজায় তিনি ঘন্টাখানেক সময় অতিবাহিত করেন। রাত ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত তিনি বেগম খালেদা জিয়ার বাসভবনে ছিলেন। কিন্তু এই সময় তিনি গণমাধ্যমের মুখোমুখি হননি, সাংবাদিককদের কোনো প্রশ্নের উত্তরও দেননি। এমনকি বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার কি কথা হয়েছে সেটিও তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে গণমাধ্যমকে বলেননি।

তবে একাধিক সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে নিশ্চিত করেছে, নির্বাচন সংক্রান্ত বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ বার্তা বেগম খালেদা জিয়া মির্জা ফখরুলকে দিয়েছেন। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে তিনি নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে সেই নির্বাচন বর্তমান সরকারের অধীনে হবে না নির্দলীয়, নিরপেক্ষ, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হবে এই নিয়ে কোনোরকম মন্তব্য করেননি বেগম খালেদা জিয়া। দীর্ঘদিন পর খালেদা জিয়ার সঙ্গে মির্জা ফখরুলের এই বৈঠক রাজনীতিতে মেরুকরণের নতুন ইঙ্গিত বলে মনে করা হচ্ছে। বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে এসে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে এম আবদুল মোমেন দাবি করেছেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তত্ত্বাবধায়ক সরকার চায় না বরং একটি অংশগ্রহণমুলক নির্বাচন চায়। তার এই বক্তব্যের কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র করেনি। কিন্তু এই বক্তব্যের পরপরই গতকাল দুপুরে মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাসের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপির তিন নেতা। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সাংগঠনিক সম্পাদক ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক কমিটির সদস্য সচিব শামা ওবায়েদ পিটার হাসের সাথে বৈঠক করেন এবং তাঁরা আগামী নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ কীভাবে হবে তার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন।

বিভিন্ন সূত্রগুলো ধারণা করছে, বিএনপির উপর এখন নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য দ্বি-মাত্রিক চাপ আসছে। প্রথমত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপিকে বর্তমান সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা এবং সেখানে তাঁরা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করবে, পর্যবেক্ষকরা ক্ষমতাবান থাকবে ইত্যাদি বিষয়গুলোতে আস্বস্ত করছে। বিএনপিকে নির্বাচনে আসার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একধরণের প্রচ্ছন্ন অনুরোধ করছে বলেও একাধিক কূটনৈতিক সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে জানিয়েছে। যদি সে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ না হয় তাহলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সেই নির্বাচনকে গ্রহণ করবে না। কিন্তু নির্বাচন যদি শেষ পর্যন্ত বিএনপি বয়কট করে, আর আওয়ামী লীগ যদি সুষ্ঠ নির্বাচন করে তবে সেই নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন করা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য সমস্যার বিষয় হইতে পারে বলেও ধারণা করা হচ্ছে। এই সমস্ত বিবেচনা থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি না বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচন না মাঝামাঝি একটি অবস্থানে আনার জন্য কাজ করছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

তবে অন্য একটি সূত্র বলছে, সরকারের হাতেই রয়েছে ট্রাম্পকার্ড। বেগম খালেদা জিয়াকে আগামী নির্বাচনের পর বিদেশে পাঠানোর বিনিময়ে বিএনপিকে নির্বাচনে আনানোর একটি তৎপরতা দৃশ্যমান হচ্ছে ক্রমশ। বেগম খালেদা জিয়া বর্তমানে নির্বাহী আদেশে জামিনে রয়েছেন। তিনি এবং তার পরিবার উচ্চ চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার আবেদন করেছেন। কিন্তু সরকারে পক্ষ থেকে তার বিদেশে যাবার আবেদন এখন পর্যন্ত অনুমোদন করা হয়নি। খালেদা জিয়ার পরিবার যে কোনো মূল্যে তাকে বিদেশে নেয়ার ক্ষেত্রে অত্যন্ত আগ্রহী। আর একারণেই তাঁরা যেকোনো মূল্যে বেগম জিয়ার বিষয়ে সরকারের সাথে সমঝোতা করতে চান। এই সমঝোতার অংশ হিসেবেই বেগম খালেদা জিয়া মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ডেকেছেন কি না তা নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছ। অনেকেই মনে করছেন, বেগম খালেদা জিয়া মির্জা ফখরুল ইসলামকে ডেকে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতির কথা বলেছেন। এর মানে সরকারে সঙ্গে তিনি একরকম দর কষাকষিতে যাচ্ছেন এবং সেই দর কষাকষির অংশ হিসেবে বিএনপি হয়তো শেষ পর্যন্ত বর্তমান সরকারের অধীনেই নির্বাচনে যাবে খালেদা জিয়ার নির্দেশে। এটি নিয়ে বিএনপির মধ্যে কি ধরণের প্রতিক্রিয়া হয়েছে তা এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি।



মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

বেনজীরকেও হার মানালেন মতিউর

প্রকাশ: ১১:০০ পিএম, ২০ জুন, ২০২৪


Thumbnail

#দেশে-বিদেশে অঢেল সম্পদ, নামিদামী ব্র্যান্ডের গাড়ি
#ময়মনসিংহের ভালুকায় বিশাল জুতার কারখানা
#গাজীপুরে পিকনিক ও শুটিং স্পট 
# নরসিংদী শ্বশুর বাড়িতে রাজকীয় বাড়ি, রায়পুরায় রিসোর্ট
#ঢাকার অভিজাত এলাকাগুলোতে রয়েছে অসংখ্য প্লট-ফ্ল্যাট 
#দুই স্ত্রী নামে বেনামে সম্পদ

৩৭ লাখ টাকার গরু ও ১৫ লাখ টাকায় ছাগল কেনার খবরে মুহূর্তে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় ওঠে মুশফিকুর রহমান ইফাত নামের এক তরুণকে নিয়ে। এই ছেলেটির এতো টাকা আসছে কোথায় থেকে এমন আলোচনায় বেরিয়ে আসে তার বাবা জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) কর্মকর্তা ড. মো. মতিউর রহমানের নাম। মতিউর বলেছেন ছেলেটি তার নয়। তখনই কেঁচো খুঁড়তে সাপের মতো একে একে বেরিয়ে আসে মতিউর রহমানের অঢেল সম্পদের খবর। দেশে-বিদেশের সম্পদের হিসাবে যেন সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদকেও হার মানায়িছে। 

একটি দৈনিকসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে এর মধ্যেই উঠে এসেছে মতিউরের সম্পদের খবর। জানা যায়, নরসিংদী, ময়মনসিংহের ত্রিশাল ছাড়াও গাজীপুরের পূবাইলে রিসোর্ট, শুটিংস্পট, বাংলো বাড়ি, জমিসহ নামে-বেনামে রয়েছে অঢেল সম্পদ। বরিশালেও রয়েছে তার সম্পদ। জানা গেছে , প্রথম স্ত্রী লায়লা কানিজকে বিপুল অর্থ খরচ করে বানিয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যান। দ্বিতীয় স্ত্রী ব্যাংক কর্মকর্তা। তাদের নামেও রয়েছে সম্পদের পাহাড়। এর মধ্য প্রকাশ হয়েছে, কোরবানির পশু কিনে ভাইরাল যুবকটি মতিউরের দ্বিতীয় স্ত্রীর আগের ঘরের সন্তান। ব্যাংকার এই মহিলাই মতিউরের অনেক টাকা পয়সার লেন দেন করেন। 

আরো জানা যায়, শুধু দেশে নয় বিদেশে বাড়ি রয়েছে তার। তার ছেলের রয়েছে বিশ্বের নামিদামী ব্র্যান্ডের গাড়ির কালেকশন। এসব বিষয়ে ইতিমধ্যেই খোঁজ খবর নিতে শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। 



এ বিষয়ে ড. মো. মতিউর রহমান বাংলা ইনসাইডারকে বলেন, ‘কোরবানি উপলক্ষে ১৫ লাখ টাকার খাসি কিংবা গরু কিনে ভাইরাল হওয়া যুবক মুশফিকুর রহমান ইফাত আমার ছেলে নয়। এই নামে আমার কোন ছেলে নেই। সে আমার কোন দূরসম্পর্কের আত্মীয়ও না কিংবা তাকে আমি চিনিও না।’

তবে তার প্রতিবেশীদের বরাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন পোস্টে উঠে এসেছে যে এই ইফাত তার দ্বিতীয় স্ত্রীর ছেলে। এই ছেলের খায়েশ মেটাতে দামী গাড়ি-বাড়ি থেকে বিপুল দামের গরু, ছাগল কিনে দিতেও পিছপা হন না তিনি।  

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আলোচিত এনবিআর কর্মকর্তা ড. মো. মতিউর রহমানের ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের ঝালপাজা মৌজায় একটি শিল্প গোষ্ঠীর সাথে গ্লোবাল সুজ লিমিটেড নামে রয়েছে বিশাল এক জুতার ফ্যাক্টরি। এখানে প্রায় ৩শ বিঘা জমির জুড়ে রয়েছে গ্লোবাল সুজ লিমিটেড কারখানা, বাগানবাড়ি, দেশি-বিদেশী ফলের বাগান ও ফসলি জমি। জুতার ফ্যাক্টরিতে প্রায় ৪শ’ কর্মকর্তা ও কর্মচারী কাজ করে। এ ফ্যাক্টরির উৎপাদিত জুতা রপ্তানি হয় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। 

কারখানার দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তা কর্মীরা জানান, মাঝে মাঝে ফ্যাক্টরি পরিদর্শনে আসেন এনবিআর কর্মকর্তা মতিউর রহমান। সকালে এসে বিকালে চলে যান।

ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের ঝালপাঝা চেঁচ্চারমোড় থেকে বাম দিকে কিছুটা গেলেই দেখা মেলে আলোচিত এনবিআর কর্মকর্তা মতিউর রহমানের বিশাল জুতার কারখানা। ভালুকা উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোর্শেদ আলম ওই জুতার কারখানা ও জমি দেখাশোনা করেন। স্থানীয় বাজার দরে ওই ৩ শত বিঘা জমির দাম প্রায় ১’শ কোটি টাকা। শুধু ভালুকা নয় গাজীপুরের পূবাইলেও রয়েছে মতিউর রহমানের বিশাল সাম্রাজ্য। 

পূবাইলের খিলগাঁওয়ের টঙ্গী ঘোড়াশাল সড়কের দক্ষিণ পাশে বিশাল এলাকা জুড়ে গড়ে তুলেছেন আপন ভুবন পিকনিক অ্যান্ড শুটিং স্পট। পূবাইল ইউনিয়ন ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, পূবাইলের খিলগাঁও মৌজায় ড. মো. মতিউর রহমানের নামে ৩৬৫৬ নং জোতে ০.২৭০০ একর (২৭ শতাংশ) এবং একই মৌজায় ৪২৪৯নং জোতে ০.১৪৪০ একর (১৪ শতাংশ) ভূমির নামজারি রেকর্ড রয়েছে। এছাড়া মো: মতিউর রহমান, তার স্ত্রী লায়লা কানিজ ও মেয়ে ফারজানা রহমানের নামে খিলগাঁও মৌজায় ৩৫৫৭ নং জোতে ০.৪৮১৬ একর (৪৮ শতাংশ), একই মৌজায় ৩৬৫২ নং জোতে ড. মো: মতিউর রহমানের স্ত্রী লায়লা কানিজ ও পুত্র আহমেদ তৌফিকুর রহমান (অর্ণব) এর নামে ০.৪৫১৬২৫ একর (৪৫ শতাংশ) ভূমির নাম জারির তথ্য পাওয়া যায়। চারটি নামজারিতে মোট এক একর ৩৪ শতাংশ জমি। আপন ভুবন পিকনিক এন্ড শুটিং স্পটের ম্যানেজার রাজিব হাসান জানান, আপন ভুবন পিকনিক এন্ড শুটিং স্পটের মালিক মতিউর রহমান নন, অন্য একটি শিল্প গোষ্ঠী। তবে মতিউর রহমান ও তার পরিবারের লোকজন মাঝেমাঝেই এই রিসোর্টে বেড়াতে আসেন।

পিকনিক এন্ড শুটিং স্পটের তত্ত্বাবধায়ক মো. মাসুদ জানান, স্থানীয় সামাদ মোল্লা, রহিমা বেগম, ইলিয়াস মোল্লা গংদের কাছ থেকে জমি লিজ ও বাৎসরিক ভাড়ায় নিয়ে ২০১৮ সালের দিকে স্পটটি চালু করা হয়। রিসোর্টটি প্রায় ২৫ বিঘা জমির উপর প্রতিষ্ঠিত। 

এখানেই শেষ নয়, মতিউর রহমানের আমলনামা। মতিউর রহমানের বাড়ি বরিশালের মুলাদী উপজেলায়। ওই এলাকায় বাড়ি ঘর ছাড়াও তার নামে প্রায় ১ হাজার ৫শ বিঘা জমি রয়েছে। নরসিংদীর মরজালে তার স্ত্রী উপজেলা চেয়ারম্যান লায়লা কানিজ লাকীর নামে ১শ বিঘা জমির উপর রয়েছে ওয়ান্ডার পার্ক অ্যান্ড ইকো রিসোর্ট। তার মেয়ে ফারজানা ইসপিতার নামে মরজাল বাসষ্ট্যান্ড ও আশপাশ এলাকায় ১০ বিঘা জমি রয়েছে। এছাড়াও ছেলে আহম্মদ তৌফিক অনুদ ও মেয়ে ফারজানা ইসপিতার নামে কমপক্ষে ৫০ বিঘা জমি রয়েছে। নাটোরের সিংড়ায় ২০ বিঘা জমি রয়েছে। স্ত্রী লায়লা কানিজ লাকীর নামে নরসিংদীর রায়পুরায় মরজালে ৪ বিঘা জমির উপর রয়েছে সুরম্ম অট্টালিকা। 

শুধু তাই নয়, রাজধানীর অভিজাত এলাকায় মতিউর, তার স্ত্রী-সন্তান, আত্মীয়দের নামে-বেনামে ৪০টি প্লট আছে। গুলশান-২ এ শাহবুদ্দিন পার্কের উল্টোদিকে একটি ভবনে চারটি ফ্ল্যাট আছে। গুলশানের একটি ভবনে রয়েছে আটটি ফ্ল্যাট। সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, দুবাই ও যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে বিপুল পরিমাণ সম্পদ। স্ত্রী লায়লা কানিজের জনপ্রতিনিধি হওয়ার শখ পূরণে প্রভাব খাটিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলা চেয়ারম্যান বানিয়েছিলেন। স্ত্রীর নামেও রয়েছে হাজার কোটি টাকার সম্পদ। এবারেও প্রার্থী হিসেবে মাঠে নেমেছেন তিনি। অর্থ-বিত্তের পাশে মতিউর রহমানের রয়েছে ঋণ কেলেংকারির ঘটনাও। সোনালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে থাকাকালীন চামড়া ঋণ কেলেংকারির ঘটনায় জড়িত ছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে। তার এসব দুর্নীতির তথ্যে পাঁচবার তদন্ত কমিটি গঠন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কিন্তু কর্মকর্তাদের হাতের মুঠোয় নিয়ে ক্লিন চিট নিয়েছেন তিনি। 

এসব বিষয়ে জানতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্মকর্তা ড. মতিউর রহমানের মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। তার মুঠোফোনে খুদে বার্তা পাঠালেও উত্তর দেননি।

মুশফিকুর রহমান ইফাত   ভাইরাল ছাগল   জাতীয় রাজস্ব বোর্ড   এনবিআর   মতিউর রহমানে  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

বেনজীরের তারেক কানেকশন (ভিডিও)

প্রকাশ: ০২:০০ পিএম, ০৭ জুন, ২০২৪


Thumbnail

সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীর আহমেদের সঙ্গে তারেক জিয়ার যোগাযোগের চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। একাধিক গোয়েন্দা সূত্র নিশ্চিত করেছে, সাবেক পুলিশপ্রধান অবসর গ্রহণের পর অন্তত একবার তারেক জিয়ার সঙ্গে সরাসরি সাক্ষাৎ করেছেন। এছাড়াও তারেক জিয়ার ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি আব্দুল মালেকের সঙ্গে তার একাধিক কথোপকথনের তথ্য এখন গোয়েন্দাদের হাতে।

বিএনপি যদি ক্ষমতায় আসে তাহলে যেন বেনজীরের বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের ওপর বিরূপ আচরণ না করে এবং বেনজীর আহমেদকে যেন কোন রকম হেনস্থা না করা হয়, সে কারণেই তারেক জিয়াকে বেনজীর আহমেদ বিপুল পরিমাণ অর্থ দিয়েছিলেন বলেও দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র ধারণা করছে। তবে গোয়েন্দা সূত্রগুলো বলছে, এ ব্যাপারে আরও বিস্তারিত অনুসন্ধান করতে হবে। সেই অনুসন্ধানের কাজ চলছে।

উল্লেখ্য যে, বেনজীর আহমেদ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ সালে পুলিশ প্রধানের পদ থেকে অবসর গ্রহণ করেন। এরপর তিনি অবসর জীবনযাপন করছিলেন। ২০২৩ সালের ১৮ এপ্রিল বেনজীর আহমেদ যুক্তরাজ্য সফর করেন। তার কন্যা সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবে- এই কারণে তিনি, তার স্ত্রী এবং আরেক কন্যাসহ যুক্তরাজ্যে যান। যুক্তরাজ্যে তিনি এক মাস অবস্থান করেছিলেন এবং এই এক মাস অবস্থানকালে অন্তত একবার তারেক জিয়ার সঙ্গে তার দেখা হয়েছে।

একাধিক গোয়েন্দা সূত্র বলছে, লন্ডনের স্ট্রেটফোর্ড এলাকায় বেনজীর আহমেদ এবং তারেক জিয়ার সাক্ষাৎ হয়েছে বলে প্রাথমিক তথ্যে জানা গেছে। এই স্ট্রেটফোর্ড এলাকায় হাট হাউজ বলে একটি আবাসিক হোটেল রয়েছে, যে হোটেলটি ওয়েস্টফিল্ড শপিংমলের খুব কাছাকাছি। এখানেই কোন একটি জায়গায় তাদের বৈঠকের কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য একাধিক সরকারি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির হাতে আছে।

এ বছর জানুয়ারি মাসে নির্বাচনের পরপরই এই তথ্যগুলো পেতে শুরু করে বিভিন্ন সংস্থা। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো আরও বলছে, বেনজীর আহমেদ এই সাক্ষাৎ ছাড়াও টেলিফোনে একাধিকবার যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি আব্দুল মালেকের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। আব্দুল মালেক তারেক জিয়ার অত্যন্ত ঘনিষ্ট ব্যক্তি। বাংলাদেশ থেকে যে সমস্ত অর্থ পাচার হয়ে তারেক জিয়ার কাছে যায়, সে সমস্ত অর্থ তারেক জিয়ার কাছে পৌঁছে দেওয়ার মূল দায়িত্বটি পালন করে থাকেন এই আব্দুল মালেক। আব্দুল মালেকের সঙ্গে বেনজীরের অন্তত ১৭টি কল রেকর্ডের তথ্য প্রাথমিকভাবে পাওয়া গেছে। তবে এই সমস্ত আলাপ আলোচনায় কী হয়েছে এ নিয়ে এখন পর্যন্ত কোন বিস্তারিত বিবরণ পাওয়া যায়নি।

বিভিন্ন দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, ২০২২ সালের ডিসেম্বর থেকে বিএনপি বড় ধরনের আন্দোলন শুরু করে এবং সেই সময় বিএনপির আন্দোলনে একটি জোয়ারের ভাব লক্ষ্য করা গিয়েছিল। এই সময় অনেকেই বিএনপির সঙ্গে গোপনে যোগাযোগ শুরু করেছিলেন। বিশেষ করে যে সমস্ত ব্যবসায়ী অবৈধভাবে বিপুল পরিমাণ বিত্তের মালিক হচ্ছেন, যারা বিদেশে অর্থ পাচার করেছেন, তারা তারেক জিয়ার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে শুরু করেন। মূলত এদের লক্ষ্য ছিল যদি কোন কারণে সরকার বিপদে পড়ে এবং দেশে একটি অন্যরকম পরিস্থিতি তৈরি হয়, তাহলে যেন তারেক জিয়া তাদেরকে রক্ষা করেন।

২০২৩ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিএনপি একটি প্রভাবশালী অবস্থানে এসেছিল। এই সময় বেনজীর আহমেদের মতো অনেক দুর্নীতিবাজই লন্ডনে যোগাযোগ শুরু করেছিলেন এবং তারেক জিয়াকে বিপুল পরিমাণ অর্থ দিয়েছিলেন।

উল্লেখ্য যে, তারেক জিয়ার দুবাই, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াসহ অন্তত ৮টি দেশে বিপুল সম্পদ রয়েছে। এ সমস্ত দেশ থেকে লন্ডনে অর্থ পাঠানো কোন জটিল বিষয় নয়।
বিভিন্ন দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, সরকার যে এখন বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে অনমনীয় এবং কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে তার অন্যতম কারণ হলো বেনজীরের সঙ্গে তারেক জিয়ার কানেকশন। বেনজীর তার নিজের অবৈধ সম্পদ রক্ষার জন্য তারেক জিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন এটি নিশ্চিত। তবে তিনি তারেক জিয়াকে ঠিক কী পরিমাণ অর্থ চাঁদা বা ঘুষ দিয়েছেন সে সম্পর্কে আরও বিস্তারিত অনুসন্ধান প্রয়োজন বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন। সে সময় বেনজীর আহমেদ অন্য দুর্নীতিগ্রস্তদের মতো মনে করেছিলেন যে, আওয়ামী লীগের হয়তো পতন ঘটবে। এ কারণেই তারেক জিয়ার প্রতি ঝুঁকেছিলেন বেনজীর আহমেদ।




দুদক   দুর্নীতি দমন কমিশন   বেনজীর আহমেদ   তারেক জিয়া  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

জিয়াউর রহমান যেভাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ঠেকাতে চেয়েছিলেন

প্রকাশ: ০৮:০০ পিএম, ১৬ মে, ২০২৪


Thumbnail

১৯৮১ সাল ১৬ মে। জিয়াউর রহমান রাতে তাঁর বাসভবনে মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ সদস্য এবং সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিয়ে এক বৈঠকের আয়োজন করেছিলেন। বৈঠকে জিয়াউর রহমান ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিচারপতি আব্দুস সাত্তার, শাহ আজিজুর রহমান, একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এস এম মুস্তাফিজুর রহমান। 

এই সময় বিচারপতি আব্দুস সাত্তার ছিলেন উপরাষ্ট্রপতি। তিনি আইন ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে দায়িত্বে ছিলেন। শাহ আজিজুর রহমান ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী। অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং কর্নেল (অবঃ) মুস্তাফিজুর রহমান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। এ ছাড়াও তৎকালীন সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানকেও জিয়াউর রহমান ডেকেছিলেন। একই সঙ্গে গোয়েন্দা সংস্থার কয়েকজন ব্যক্তিকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। ওই বৈঠকে জিয়াউর রহমান বলেছিলেন, কোন অবস্থাতেই যেন শেখ হাসিনা দেশে ফিরতে না পারেন। শেখ হাসিনার দেশে ফেরা ঠেকাতে কী কী করা যেতে পারে সে ব্যাপারে তিনি সবার মতামত জানতে চেয়েছিলেন। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান বলেছিলেন যে, এয়ারলাইন্স সংস্থাগুলোকে যদি বলে দেওয়া হয় যে, শেখ হাসিনা পারসোনা নন গ্রাটা, তাকে বাংলাদেশে প্রবেশের অধিকার দেওয়া হবে না, সেক্ষেত্রে এয়ারলাইন্সগুলো তাকে বাংলাদেশে নেবে না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জিয়াউর রহমানের অনুমতি চেয়েছিলেন এরকম আদেশ দেওয়া হবে কি না। এ ছাড়াও ওই বৈঠকে উপস্থিত শাহ আজিজুর রহমানও বলেছিলেন, শেখ হাসিনা যেন কোনভাবেই বাংলাদেশে আসতে না পারেন। তাকে যদি বাংলাদেশে আসতে দেওয়া হয় তাহলে এটি একটি গণ অভ্যুত্থানের মতো পরিস্থিতি তৈরি হবে। 

তবে সেই সময় থাকা সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার ব্যক্তিরা জিয়াউর রহমান এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করেছেন। সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার দুজন কর্মকর্তা বলেছেন যে, এর ফলে একাধিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। প্রথমত, ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের বড় ধরনের অবনতি ঘটতে পারে। কারণ তিনি ভারত থেকে আসছেন। ভারতের ইমিগ্রেশন বিভাগ যদি শেখ হাসিনাকে বিমানে ওঠার অনুমতি দেন, সেক্ষেত্রে বাংলাদেশে নামলে অন্য রকম পরিস্থিতি হবে। সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষ থেকে এটাও বলা হয়েছিল যে, শেখ হাসিনাকে যদি আসতে না দেওয়া হয় তাহলে রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে যেতে পারে। কারণ শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে শুধু আওয়ামী লীগ নয়, সারা দেশের জনগণের মধ্যে একটা আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। এই সময়ে যদি শেখ হাসিনাকে বাঁধা দেওয়া হয় তাহলে জনগণ সরকারের বিপক্ষে অবস্থান নেবে। মূলত সামরিক গোয়েন্দাদের এই বক্তব্যের পর জিয়াউর রহমান তাঁর অবস্থান থেকে সরে আসেন। এই সময় বলা হয় যে, শেখ হাসিনা দেশে ফিরলেও তাকে রাজনীতি করতে দেওয়া হবে না। তাকে গৃহবন্দি করা যায় কি না সেই বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়। 

বৈঠকে উপস্থিত সিনিয়র ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. এ কে এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছিলেন, শেখ হাসিনা আসার পর পরিস্থিতি বুঝে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। আমরা আগে বুঝার চেষ্টা করি তিনি আসার পরে কী করেন। তবে ওই বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল শেখ হাসিনাকে ৩২ নম্বর বাসভবন দেওয়া হবে না এবং কোন ভাবেই ৩২ নম্বরের গেট খোলা যাবে না। শেখ হাসিনা দেশে ফেরার পর জনতার ঢল দেখে জিয়াউর রহমান বিচলিত হয়েছিলেন। জিয়াউর রহমানের নির্দেশনা অনুযায়ী ওই দিন ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের গেট খুলে দেওয়া হয়নি। আওয়ামী লীগ সভাপতি ৩২ নম্বরে এসে রাস্তার পর মিলাদ মাহফিল পড়েন, দোয়া পড়েন। এ সময় তিনি আকুল কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন। জিয়াউর রহমানের মৃত্যুর আগে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বুঝে পাননি শেখ হাসিনা। এই তথ্যগুলো ওই সময়ে কর্মরত সামরিক গোয়েন্দাদের কাছ থেকে সংগৃহীত। নানা রকম বাস্তবতার কারণে তারা তাদের পরিচয় গোপন করতে চেয়েছেন।

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

তৃতীয় লিঙ্গের ক্ষমতায়ন: এলডিডিপি প্রকল্পের নীরব বিপ্লব (ভিডিও)

প্রকাশ: ০৪:০০ পিএম, ০৫ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

খায়রুন তৃতীয় লিঙ্গ জনগোষ্ঠীর একজন। তবে সে আর দশজনের মতো রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে না, মানুষের কাছে চাঁদা চায় না কিংবা কারো কারো মতো অশ্লীল আচরণ করে মানুষকে বিব্রতও করে না। সময় করে একটু ঘাস কাটে, বাচ্চাকে সময় দেয়। তার পরিবারের সদস্যের যত্ন করতেই তার বেশির ভাগ সময় যায়। এভাবেই ব্যস্ততার মধ্য দিয়ে দিন অতিবাহিত হয় তার। যত স্বপ্ন পুরো পরিবার নিয়েই। সেই স্বপ্ন পূরণে সে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ধাপে ধাপে। আর স্বপ্ন পূরণে সহযাত্রী হয়েছে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্প (এলডিডিপি)।

বলছি, সিরাজগঞ্জ সদরের কালিয়া হরিপুর ইউনিয়নের কান্দাপাড়া গ্রামের খায়রুন হিজড়ার কথা। যিনি একজন তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীর মানুষ। তবে এখন তার বড় পরিচয় হলো তিনি একজন পুরোদমে খামারি এবং প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পের পিজি গ্রুপের একজন সক্রিয় সদস্য। তার আইডি নম্বর ৬৮৮৭৮-এসসি-০৩-১১। শুরুতে ২০টি উন্নত জাতের মুরগি দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও বর্তমানে তার খামারে গরুর সংখ্যা ৫টি, ছাগল রয়েছে ৮টি। এছাড়া বেশ কিছু মুরগিও রয়েছে তার খামারে। দু মাস আগে একটি ছাগল বাচ্চাও দিয়েছে।

শুরুটা ২০টি মুরগি দিয়ে শুরু করলেও তেমন সুবিধা করতে পারেননি খায়রুন হিজড়া। কোন অজ্ঞাত রোগে দু-একটি মুরগি মারা গেলে যোগাযোগ করেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয় তাকে পরামর্শ দেন সেগুলো বিক্রি করে যেন তিনি ছাগল বা অন্য কিছু কেনেন এবং সেগুলো দিয়ে খামার করেন। এরপর উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের পরামর্শে তিনি মুরগিগুলো প্রায় ১০ হাজার টাকা দিয়ে বিক্রি করে পাঁচ হাজার টাকা দরে দুটি ছাগল কেনেন। এরপরই যেন ঘুরে যায় খায়রুন হিজড়ার ভাগ্যের চাকা। এখন তার খামারে ছাগলের সংখ্যা ৮টি। একইভাবে ছাগলের পাশাপাশি একটি গরু দিয়ে শুরু করলেও এখন তার গরুর সংখ্যাও বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫টি। এতে করে দৈনিক তিনি ৭ থেকে ৯ লিটার গরুর দুধ বিক্রি করতে পারেন তিনি।

খায়রুন হিজড়া বাংলা ইনসাইডারকে বলেন, আমি উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে ট্রেনিং করেছি। এরপর তারা আমাকে ২০টি মুরগি দেয়। কিন্তু সেগুলো দিয়ে বেশি সুবিধা করতে পারিনি। সেজন্য ‍মুরগি গুলো বিক্রি করে আমি ছাগল কিনেছি। পরে একটা সময় আমি একটি গরু কিনি। এখন আমার খামারের ৫টি গরু এবং ৮টি ছাগল এবং বেশ কিছু মুরগি রয়েছে।

এই খামার নিয়ে তার পরিকল্পনার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রত্যেক মানুষের স্বপ্ন থাকে একদিন সে ছোট থেকে বড় হবে। আমারও স্বপ্ন আছে একদিন আমি বড় খামারি হব। সেজন্য এখানে আমার বিনিয়োগ দরকার। যেটা আমার জন্য কঠিন বা অত্যন্ত চ্যালেঞ্জের। কারণ আমরা হিজড়া (তৃতীয় লিঙ্গ) হওয়ার কারণে কেউ আমাদের ঋণ দেয় না, দিতেও চায় না। বিশেষ করে প্রাতিষ্ঠানিক ঋণ পাওয়ার আমাদের জন্য দুষ্কর। সেজন্য সরকার থেকে যদি আমাদের বিনা সুদে ঋণের ব্যবস্থা করে তাহলে আমি যেমন আরও এগিয়ে যেতে পারব তেমনি আমার মতো হাজারো হিজড়া স্বাবলম্বী হবে। তাদেরকে কারও কাছে আর হাত পাততে হবে না। এছাড়া সরকারের প্রতি আমার অনুরোধ মুরগির পরিবর্তে যদি ছাগল বা গরু দেয়া হয় তাহলে বেশ ভালো হবে। 

জানা যায়, দেশব্যাপী প্রান্তিক খামারিদের নিয়ে প্রোডিউসার গ্রুপ (পিজি) গঠন করেছে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর। উদ্দেশ্য এসব পিজিগুলোর মাধ্যমে প্রান্তিক খামারিদেরকে সংগঠিত করে বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা প্রদান করা। বিশেষ করে প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তি ইত্যাদি পৌঁছে দেওয়া এবং তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে প্রাণিসম্পদ খাতের কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন সাধনে কাজ করা। 

সারাদেশে মোট ৬৫০০টি পিজি গ্রুপ রয়েছে। প্রতিটি গ্রুপে সদস্যের সংখ্যা প্রায় ২০ থেকে ৪০ জন। মোট ৬৫০০ পিজি গ্রুপের মধ্যে সিরাজগঞ্জের এটি একটি এবং একমাত্র তৃতীয় লিঙ্গের পিজি গ্রুপ।

পিজি গ্রুপে শুধু খায়রুন হিজড়া একা নয়, তার সাথে আছে আরও ১৪ জন অর্থাৎ মোট ১৫ জন পিজি গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত। এদের মধ্যে অন্যতম হলেন সোহাগী হিজড়া (৬৮৮৭৮-এসসি-০৩-১২), মো: সবুজ ওরফে সংখিনী (৬৮৮৭৮-এসসি-০৩-১৩), সেতু হিজড়া (৬৮৮৭৮-এসসি-০৩-১৫) সহ আরও কয়েকজন। যারা প্রত্যেকে পিজি গ্রুপের সক্রিয় সদস্য।

সিরাজগঞ্জ জেলার হিজড়া (তৃতীয় লিঙ্গ) সমিতির সভাপতি মো: ওমর ফারুক রাব্বি বাংলা ইনসাইডারকে বলেন, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্তৃক গঠিত ট্রান্সজেন্ডার ও হিজড়াদের নিয়ে গঠিত ১৫ সদস্যের পিজি দল নিয়ে আমরা কাজ করছি। উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর আমাদের সার্বক্ষণিক সহযোগিতা দিয়ে আসছে। আমরা বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ পেয়ে থাকি। গবাদি পশু থেকে শুরু করে লৈঙ্গিক বৈচিত্র্যের জনগোষ্ঠীর সাথে সম্পর্কে, পিজি দলের দায়িত্ব-কর্তব্য কি, দলের সভাপতি, ক্যাশিয়ারের দায়িত্ব কর্তব্য সর্ম্পকে এবং পিজি দলের নীতিমালা সম্পর্কে জেনেছি। 

তিনি আরও বলেন, আমরা প্রত্যেক সদস্য প্রতি মাসে ১০০ টাকা করে সঞ্চয় রাখি। রাজশাহী ‍কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকে আমাদের পিজি দলের একটা একাউন্ট আছে। শুরুতে উপজেলা থেকে আমাদের ২০টি করে মুরগি দেয়া হয়। আমরা সেগুলো লালন পালন করে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি। পিজি দলের পক্ষ থেকে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কাছে আমাদের অনুরোধ আমাদের যেন গরু এবং ছাগল দেয়া হয় তাহলে আমরা আরও ভালো ভাবে স্বাবলম্বী হতে পারব। ফলে মানুষের কাছেও আমাদের আর হাত পাততে হবে না। আমরাও কর্ম করেই খেতে চাই। কারও মুখাপেক্ষী হতে চাই না। আমরা একটা দল গঠন করে দেখিয়েছি যে, হিজড়ারা সমাজের মূল স্রোতে এসে কাজ করে খেতে চায়। সমাজের সহযোগিতা পেলে আমরাও স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারবো।

সিরাজগঞ্জ উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডা. মোঃ আলমগীর হোসেন জানান, আমরা যখন রাস্তা ঘাটে বের হয় তখন দেখা যায় যে, রেল স্টেশন বা বাজারগুলোতে তারা (হিজড়া) অন্যের কাছে হাত পাতে। যেহেতু এলডিডিপি প্রকল্প থেকে সুযোগ ছিলো পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে মূল স্রোতে নিয়ে আসা। এরই অংশ হিসেবে তৎকালীন রাজশাহী বিভাগীয় পরিচালক ডা. নজরুল ইসলাম ঝন্টু স্যারের মাথায় প্রথম এই ধারণা আসে। এদেরকে নিয়ে যদি একটা দল গঠন করা যায় তাহলে এরা মানুষের দ্বারে দ্বারে যে হাত পাতে এটা থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে এবং আমাদের সমাজের মূল স্রোতে তারা চলতে পারবে। তারাও আমাদের সমাজে কন্ট্রিবিউট করতে পারবে। এই চিন্তা থেকেই আমরা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে সেটা প্রস্তাব করি। কর্তৃপক্ষ সেটা গ্রহণ করে। এরপর আমরা তাদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে শুরুতে ২০টি করে মুরগি দিয়েছি। পাশাপাশি মুরগির খাদ্য এবং পাত্র দিয়েছি। সেখানে থেকে তারা এখন একটা ভালো অবস্থানে আছে। 

সিরাজগঞ্জের এই হিজড়া পিজি গ্রুপ একটা দৃষ্টান্ত উল্লেখ্য করে উপজেলা এই প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা বলেন, হিজড়া নিয়ে আরও বৃহৎ পরিসরে কিভাবে কাজ করা যায় আমরা সেটা নিয়ে এগোচ্ছি। সিরাজগঞ্জ জেলায় ২০০৫ জন হিজড়া রয়েছে। আমাদের পরিকল্পনা আছে এই রকম দল আরও বাড়ানো যায় কিনা। এখন আমরা শুরুতে তাদের শুধুমাত্র মুরগি দিয়ে থাকি। কিন্তু অদূর ভবিষ্যতে তাদেরকে যেন আমরা গরু বা ছাগলও দিয়ে পারি সেটা নিয়ে আমাদের পরিকল্পনা রয়েছে। তাদের নিয়ে যদি আমরা আরও বড় পরিসরে কাজ করতে পারি তাহলে সমাজে একটা বিপ্লব ঘটবে।


তৃতীয় লিঙ্গ   এলডিডিপি প্রকল্প   সিরাজগঞ্জ   প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

ফখরুলের রাজনীতি ছাড়ার বার্তা

প্রকাশ: ০২:০০ পিএম, ০৮ মার্চ, ২০২৪


Thumbnail

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর রাজনীতি ছেড়ে দিচ্ছেন—এমন বার্তা তিনি দিয়েছেন দলের একাধিক শীর্ষ নেতাকে। লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়াকেও তার অভিপ্রায়ের কথা জানিয়েছেন বলে একটি সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে নিশ্চিত করেছে। তবে তারেক জিয়া তাকে এখনই রাজনীতি না ছাড়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন বলেও সেই সূত্রটি বাংলা ইনসাইডারকে জানিয়েছে। 

উল্লেখ্য যে, এখন সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বিএনপির মহাসচিব। তার শারীরিক অবস্থা খুব একটা ভালো না। ২৮ অক্টোবরের বিএনপির তাণ্ডবের পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এই সময়ে তিনি সাড়ে তিন মাসেরও বেশি জেলে ছিলেন। জেলে থাকাকালীন সময় তার বিভিন্ন বার্ধক্যজনিত অসুস্থতা আরও জটিল আকার ধারণ করেছে বলে তার পারিবারিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। বিশেষ করে তার হার্টের যে পুরনো সমস্যা তা আগের চেয়ে আরও বেড়েছে। সিঙ্গাপুরে যে চিকিৎসককে মির্জা ফখরুল দেখিয়েছেন বা যাকে তিনি নিয়মিত দেখান, তিনি তাকে এখন বেশি করে বিশ্রাম নেওয়া, চিন্তামুক্ত জীবন যাপন করা এবং কোন রকম স্ট্রেস না নেওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন। এই প্রেক্ষিতে পারিবারিকভাবে তার ওপর চাপ এসেছে যে রাজনীতির চাপ কমিয়ে ফেলার জন্য।

বিএনপির মহাসচিব হিসেবে শুধু নয়, বিএনপির এখন তিনিই প্রধান সার্বক্ষণিক নেতা। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া জামিনে মুক্তি পেয়ে ফিরোজা অবস্থান করছেন। তিনি কোন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করে না। অন্যদিকে তারেক জিয়া লন্ডনে পলাতক। তিনিও একুশে অগাস্টের গ্রেনেড হামলা সহ একাধিক মামলায় দণ্ডিত। এরকম বাস্তবতায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ওপর দল পরিচালনার দায়িত্ব এসেছে এবং তিনি সার্বক্ষণিকভাবে দলের জন্য কাজ করছেন। তাই তার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে খারাপ হয়েছে বলে তার বিভিন্ন ঘনিষ্ঠ মহল জানিয়েছে। বিশেষ করে সাড়ে তিন মাস কারা জীবনের সময় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের শরীরে নতুন নতুন সমস্যা দেখা দিয়েছে বলেও তার পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে। এই সমস্ত শারীরিক সমস্যাগুলো ক্রমশ জটিল আকার ধারণ করেছে। আর এ কারণে তার দীর্ঘমেয়াদি বিশ্রাম প্রয়োজন বলেও চিকিৎসকরা তাকে পরামর্শ দিচ্ছেন। সবকিছু মিলিয়ে রাজনীতির মাঠে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর যে ভাবে সক্রিয় ছিল, তেমনটি তার পক্ষে সক্রিয় থাকা আর সম্ভব হবে কি না তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। 

চিকিৎসকের সাথে পরামর্শের পর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ঢাকায় বিএনপির অন্তত দু জন নেতাকে জানিয়েছেন যে তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ। ডাক্তার তাকে দীর্ঘ বিশ্রামের কথা বলেছেন। এই অবস্থায় মহাসচিবের দায়িত্ব তার পক্ষে পালন করা কতটুকু সম্ভব, সেই নিয়ে তিনি নিজেই সন্দিহান। তবে বিএনপি রাজনীতি থেকে তিনি দূরে যাবেন না। বিএনপির সঙ্গেই তার রাজনৈতিক সম্পর্ক থাকবে। 

একজন স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সঙ্গে টেলি আলাপকালে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছিলেন। এই দলের জন্য তিনি জীবন উত্সর্গ করতে প্রস্তুত এমন বার্তা দিয়েছিলেন। কিন্তু বাস্তবতা হল যে তিনি দলের পূর্ণকালীন দায়িত্ব পালনের মতো শারীরিক অবস্থায় নেই। 

উল্লেখ্য যে, বিএনপির একাধিক নেতা এখন শারীরিক ভাবে অসুস্থ এবং দায়িত্ব পালনে অক্ষম। ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন দীর্ঘদিন ধরে রোগ শোকের সঙ্গে লড়াই করছেন। তার অবস্থা এখন স্থিতিশীল হলেও তিনি কোন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করছেন না। বিএনপির আরেক নেতা জমির উদ্দিন সরকার বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছেন। তাকেও দলের কর্মকাণ্ডে খুব একটা দেখা যায় না। বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়াও দীর্ঘদিন ধরে শয্যাশায়ী। এই অবস্থায় ফখরুলও যদি অসুস্থ হয়ে রাজনীতির থেকে দূরে যান তাহলে কিএনপির হাল ধরবে কে সেটাই এখন বড় প্রশ্ন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর   বিএনপি   তারেক জিয়া  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন