লিভিং ইনসাইড

ব্যক্তিত্ব উন্নয়নে করণীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৮:০২ এএম, ১৯ অক্টোবর, ২০২১


Thumbnail

আমরা সব সময় নিজেকে অন্যের চেয়ে বুদ্ধিমান, যোগ্য ও শ্রেষ্ঠ হিসেবে তুলে ধরার জন্য সচেষ্ট থাকি। কারণ বর্তমান যুগ হচ্ছে প্রতিযোগিতার যুগ। নিজেকে শ্রেষ্ঠ প্রমাণ করতে না পারলে আপনি অন্যদের থেকে পিছিয়ে পড়বেন। এই প্রচেষ্টায় আপনি কখনও কখনও সফল হচ্ছেন।

কিন্তু যখন নিজেকে নিয়ে একান্তে ভাবছেন তখন আপনি নিজেও স্বীকার করবেন যে আপনার ব্যক্তিত্ব উন্নয়নের যথেষ্ঠ সুযোগ রয়েছে। আপনার এমন অনেক গুণ আছে যা আপনি কাজে লাগাননি, অনেক কৌশল রয়েছে যা আপনি আয়ত্ব করতে পারেননি। মেধার অনেক ক্ষেত্রকে বিকশিত করতে পারেননি। তাই প্রতিনিয়ত নিজের উন্নয়নের সুযোগ রয়েছে। আর এই পরিবর্তনের লক্ষ্য থাকে আরও ভাল মানুষ হওয়া। অমরা চাই আমাদের ব্যক্তিত্ব আরও আকর্ষণীয় হোক, প্রভাব বলয় আরও বাড়ুক। কিছু ভুল ভ্রান্তি কাটিয়ে উঠতে পারলেই আমাদের ব্যক্তিত্ব আরও আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে।

লক্ষ্য স্থির করুন

আমরা প্রতিনিয়ত কিছু কাজ করতে চাই। আমরা মনে করি যে এই কাজগুলো করতে হবে। কিন্তু দেখা যায় যে সে কাজগুলো করা হয় না, জমতে থাকে বা আমাদের মধ্যে এমন আলস্য রয়েছে যা কাজকে পিছিয়ে দেয়। হয়তো আমরা ব্যস্ত, অথবা ক্লান্ত বা সময়মত কাজটি করতে মন চাচ্ছে না। এ ক্ষেত্রে আমাদের আসল সমস্যা হচেছ সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যের অভাব। তাই কাজ করার আগে আমাদের লক্ষ্য স্থির করতে হবে। লক্ষ্য সবসময় মানসিক প্রেরণা যোগায়, আপনার শক্তিকে বাড়িয়ে দেয়। গবেষণায় দেখা যায়, লক্ষ্য যদি খুব ভাসা ভাসা হয় তাহলে তা আদৌ কার্যকরী হয় না। বাস্তবতার সাথে লক্ষ্যের সঙ্গতি না থাকলে তা ফলপ্রসু হয় না। আর লক্ষ্য অর্জনের জন্য নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করা আবশ্যক।

নিজেকে ভালোবাসুন

আপনি নিজেকে যখন পছন্দ করতে শুরু করবেন তখনি আপনি আত্মবিশ্বাসী ও সৃজনশীল হয়ে উঠবেন। দৈনন্দিন কাজের বাধাগুলো আপনার কাছে সহনীয় মনে হবে। তাই নিজের সম্পর্কে ধারণাকে উন্নত করতে সচেষ্ট হোন। আপনার কাজের প্রশংসাসূচক চিঠি, নোট, যে কোন প্রসংশাপত্র, মানপত্র, সার্টিফিকেট এগুলোকে সযত্নে একটি ফাইলে রেখে দিন। কোন কারণে কখনও হতাশা সৃস্টি হলে বা মন খারাপ লাগলে এই কাগজগুলোর দিকে তাকান। আপনি উদ্দীপনা ফিরে পাবেন। নেতিবাচক চিন্তাকে পুরোপুরি বাদ দিন। নিজের সীমাবদ্ধতা নিয়ে না ভেবে নিজের কাজ করার ক্ষমতা ও শক্তি সম্পর্কে বেশি ভাবুন। 

প্রয়োজনে নিজেকে নতুনভাবে উপস্থাপিত করুন। নিজের অবয়বে কিছু পরিবর্তন, গোঁফ, দাড়ি বা নতুন হেয়ার স্টাইল, নতুন পোশাক পরিচ্ছদ এমন কি নতুন শেইপের শাইনিং জুতো ইত্যাদি আপনার ব্যক্তিত্বের প্রকাশকে উন্নততর করতে পারে।

সময়মত কাজ করুন

হাতে সময় থাকতেই কাজ শুরু করুন। সময়ের কাজ সময়ে শেষ না করলে একদিকে যেমন প্রতিদিন কিছু কিছু করে জমতে থাকে তেমনি অন্যদিকে হঠাৎ আপনার বস এমন একটি  জরুরী কাজ আপনাকে ধরিয়ে দিয়েছেন যে সেটি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়তে হবে। ফলে টেবিলে কাজের স্তুপ হয়ে উঠে। যা মনকে খিটমিট করে তোলে। অফিসে উপস্থিতি, মিটিং, অ্যাপয়েন্ট সব ব্যাপারে সময়ানুবর্তী হোন। কোথাও দেরিতে উপস্থিত হওয়া নিজের সম্পর্কে অন্যদের মনে নেতিবাচক বার্তা দেয়।

সময় বাঁচানোর জন্য আপনার কর্মদিবসগুলোতে এক ঘন্টা কম ঘুমান। ঘুম থেকে প্রতি কর্মদিবসে এক ঘন্টা বাঁচাতে পারলে বছর শেষে আপনি পুরো একটি মাস পেয়ে যাচ্ছেন। আর এই অতিরিক্ত কর্মমাস যোগ করতে পারায় আপনি আপনার অনেক অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে পারবেন। যা অন্যদের চেয়ে আপনাকে এগিয়ে রাখবে।

রাগ নিয়ন্ত্রণ করুন

রাগ ও ক্রোধ ব্যক্তিত্ব বিকাশের অন্তরায়। রাগের সময় মানব মস্তিস্ক গামা লেভেলে অবস্থান করে। এ সময় ব্রেনের সার্কিটগুলোর সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ফলে মানুষ সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ হয়। এজন্য ক্রোধের কারণগুলো খুঁজে বের করুন। সেগুলো দূর করার জন্য বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ গ্রহণ করুন, দেখবেন রাগ বা উত্তেজনা কমে গেছে। 

জ্ঞানচর্চা করুন

আত্মনির্মাণ বা আত্মআবিস্কারের জন্য ব্যস্ততার ফাঁকে নিয়মিত পড়াশুনা করুন। আত্মউন্নয়নমূলক, শরীরচর্চা, খাবার, ব্যায়াম, চিকিৎসা, সাহিত্যবিষয়ক বইপত্র সংগ্রহ করে পড়ুন। সফল মানুষদের জীবনী পড়ুন, সে সাথে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও আর্তমানবতার সেবামূলক কর্মকান্ডে নিজকে যুক্ত রাখুন। কারণ জীবন সম্পর্কিত জ্ঞানই আপনার চলার পথকে সহজ করতে পারে। 

ধ্যানচর্চা করুন

আত্মনিমঘ্ন হওয়া ছাড়া নিজের অমিত সম্ভাবনাকে আবিস্কার করা যায় না। তাই প্রতি রাতে শোয়ার আগে বিছানায় গিয়ে চুপচাপ বসুন। ধ্যানের প্রক্রিয়ায় দেহ মনকে প্রশান্ত করুন। সারাদিনের কাজের পর্যালোচনা করুন। ভুলগুলোর জন্য নিজের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিন। ভালো কাজের জন্য নিজকে ধন্যবাদ দিন। নিজের যোগ্যতার প্রতি নতুনভাবে বিশ্বাস স্থাপন করুন। তারপর ঘুমিয়ে পড়ুন।

সকালে ঘুম থেকে উঠে পুনরায় ধ্যানচর্চা করুন। সারাদিনের কাজের পরিকল্পনা করুন। নতুন বিশ্বাসে নতুন দিনের কাজ শুরু করুন। আপনার ব্যক্তিত্ব যেমন উন্নত হবে তেমনি আপনি ধীরে ধীরে সাফল্যের স্বর্ণশিখরে আরোহন করবেন।



মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

তীব্র শীত এবং ওমিক্রন: আতঙ্ক নয়, প্রয়োজন সচেতনতা

প্রকাশ: ০৮:১০ এএম, ২৯ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

দেশের বর্তমান অবস্থায় পরিচিত দুটি শব্দ 'তীব্র শীত' এবং ওমিক্রন। সকাল হলেই কর্মজীবী মানুষের অফিস বা কর্মক্ষেত্রে যাওয়ার আগে একবার চোখ বুলিয়ে নেয় আবহাওয়ার দিকে, দেখে নেয় শীতের তীব্রতা কত। তারপর এই তীব্র শীতের মধ্যে গরম কাপড় পরে প্রস্তুতি নিয়ে কর্মক্ষেত্রের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। অন্যদিকে বিকেলের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনার আপডেট পেতে টিভি, মোবাইল ফোন নিয়ে বসে থাকে মানুষ। আজকে দেশে কতজন মারা গেলো, শনাক্ত হলো কতজন -এর ওপর নির্ভর করে এখন আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মানার সচেতনতা। হু হু করে শীত বাড়ছে এবং বাড়বে, আবহাওয়া অফিসও তাই বলছে। গতকাল করোনায় শনাক্তের হার রেকর্ড করলেও, নেই সতর্কতা।

'তীব্র ঠাণ্ডা' আর করোনাভাইরাসের ভ্যারিয়েন্ট 'ওমিক্রন' সংক্রমণের উপসর্গ যেন দুই ভাই। তীব্র ঠাণ্ডা এবং ওমিক্রনের উপসর্গের মধ্যে রয়েছে এক যোগসূত্র। যদিও বিষয়টি এখনও গবেষণাধীন কিন্তু প্রাথমিকভাবে দেখা যায় শীতের তীব্রতার সাথে করোনাভাইরাসের একটি সম্পর্ক রয়েছে। আজকে আমাদের প্রতিবেদনে 'তীব্র শীত' এবং ওমিক্রন থেকে মুক্ত থাকা নিয়েই আলোচনা করবো।

সারাদেশে শীতের তীব্রতায় সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রায় যেমন সমস্যা হচ্ছে, তেমনি স্বাস্থ্যের উপরও বিরূপ প্রভাব ফেলছে। গতকালও রাজধানীর ঢাকায়  তীব্র শীত ছিলো পাশাপাশি ছিলো দমকা হাওয়া। গতকাল ঢাকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিলো ২১.৬ ডিগ্রী সে. এবং সর্বনিম্ন ১৩.০ ডিগ্রী সে.। এই সময় মানুষের সর্দি-কাশি, টনসিলাইটিস, নিউমোনিয়া সহ শ্বাসতন্ত্রের বিভিন্ন রোগ, অ্যাজমা বা শ্বাসকষ্ট, আর্থ্রাইটিস বা বাতব্যথা, হার্টের সমস্যার প্রকোপ বেড়ে যায়। বিশেষ করে শিশুদের অ্যাজমা, নিউমোনিয়া, কোল্ড ডায়রিয়া, ব্রংকিওলাইটিসসহ নানা রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এদিকে ওমিক্রন খুব দ্রুত সংক্রমিত হয় এবং ছড়ায় জন্য এতে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে বহুগুণ। ওমিক্রনে আক্রান্তদের উপসর্গগুলি যেমন- গলা ব্যথা, সর্দি নাক কিংবা বন্ধ নাক, মাথাব্যথা, হাঁচি, চোখ ছলছল করা ইত্যাদি। লক্ষ্য করলে দেখা যাবে এই একই সমস্যাগুলির সম্মুখীন হই শীতকালে।

শীতের তীব্রতায় এবং ওমিক্রন থেকে বাঁচতে হলে আতঙ্কিত না হয়ে প্রয়োজন একটু বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা। এ সময় সবার উচিত কুসুম কুসুম গরম পানি পান করা। এতে শ্বাসনালীতে মিউকাস তৈরি হয়ে রোগজীবাণু বের হয়ে যায়। এ ছাড়া গোসল ও অন্যান্য কাজে গরম পানি ব্যবহার করাই উত্তম। পরিবারের কেউ ঠাণ্ডা-জ্বরে আক্রান্ত হলে অন্যদেরও সাবধান থাকতে হবে। বিশেষ করে হাঁচি-কাশির সময় মুখে রুমাল ব্যবহার করতে হবে এবং সাবান দিয়ে ঘন ঘন হাত ধুতে হবে।

এমনিতেই জনসাধারণের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে অনীহা, এরপরে যদি এই তীব্র শীতেও যদি না মেনে চলে তাহলে আরো বেড়ে যেতে পারে ওমিক্রনের তাণ্ডব। বাড়বে শনাক্তের হার এবং এর প্রভাব পড়বে ব্যক্তিগত, সামাজিক স্বাস্থ্য এবং মানসিক ইত্যাদি দিকে। শীত এবং ওমিক্রনের সম্মিলিত প্রভাবে মৃত্যুর সংখ্যাও এখন বাড়ছে। স্বাস্থ্যবিধি মানতে আমাদের অসেচতনতাই হতে পারে আমাদেরকে এবং পরিবারের প্রিয়জনদের মৃত্যুর মুখে নিয়ে যাওয়ার একমাত্র কারণ।

তীব্র শীত   ওমিক্রন  


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

ঘন চুল পেতে যেসব খাবার খাবেন

প্রকাশ: ০১:১১ পিএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

ঘন চুল পেতে সঠিক যত্ন নেয়া প্রয়োজন। ভালো মানের তেল ও শ্যাম্পু ব্যবহার করা জরুরি। চুল ও স্ক্যাল্প পরিষ্কার রাখার উপরেও বিশেষ যত্ন নেয়া প্রয়োজন। সেইসঙ্গে সুষম খাবারও খেতে হবে।

অনেকেরই চুল পাতলা হয়ে যাওয়া কিংবা ডগা ফেটে যাওয়ার সমস্যা দেখা দেয়। এই ধরনের সমস্যার সমাধানের জন্য বাজারে বিভিন্ন ধরনের হেয়ার প্রোডাক্ট যেমন তেল, শ্যাম্পু, কন্ডিশনার ইত্যাদি পাওয়া যায়। এসব ব্যবহারে সাময়িক উপকার হলেও সম্পূর্ণ সমস্যার সমাধান হয় না।

বিশেষজ্ঞদের মতে, চুলের সুস্বাস্থ্য রক্ষায় শুধু কসমেটিক পণ্য নয়, ডায়েট বা খাদ্যাভ্যাসও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের কারণে চুলেও নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। চুলের সুস্বাস্থ্যের জন্য ভিটামিন এ, সি, ডি, ই, প্রোটিন, জিঙ্ক ও আয়রনের মতো উপাদান খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এগুলো চুলকে রাখে সজীব। দেখে নেয়ে যাক নিয়মিত খাদ্য তালিকায় কোন কোন খাবার রাখলে চুলের স্বাস্থ্য ভালো থাকে।
 
ডিম: চুলের জন্য ডিমের পুষ্টি খুব প্রয়োজন। ডিমে থাকে প্রোটিন ও বায়োটিন। এছাড়াও ডিমে জিঙ্ক, সেলেনিয়াম রয়েছে। প্রতিদিন নিয়ম মেনে খাবারের তালিকায় ডিম রাখলে চুলের ঘনত্ব বৃদ্ধি হয়। চুল আরও মজবুত হয়।

পালং শাক: পালং শাকের বিভিন্ন স্বাস্থ্যগুণ আমরা সবাই জানি। প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, আয়রন রয়েছে এতে। যার কারণে চুল পড়ার সমস্যা প্রতিরোধ করতে এবং চুল ঘন ও মজবুত করে তুলতে সাহায্য করে পালং শাক।

মাছ: চুলের স্বাস্থ্য ভালো চাইলে প্রতিদিন ডায়েটে মাছ রাখা আবশ্যক। মাছের মধ্যে থাকা ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড আমাদের চুল পড়া রোধ করে। চুলের উজ্জ্বলতা ও ঘনত্ব বাড়াতে সাহায্য করে।

ওটস: জিংক, ওমেগা সিক্স ফ্যাটি অ্যাসিড, আয়রন ও পলিঅনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিডের মতো পুষ্টি উপাদান রয়েছে ওটসে। প্রতিদিন এক বাটি ওটস খেলে চুল ঘন ও মজবুত হয়।

বাদাম: প্রতিদিন একমুঠো বাদাম খেলে চুলের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। বাদামে থাকে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও মিনারেল। এগুলো চুলের গঠনের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। চুলের বৃদ্ধিকেও ত্বরান্বিত করে বাদাম।

লেবুজাতীয় ফল: লেবুর মধ্যে থাকে প্রচুর ভিটামিন সি। যথেষ্ট ভিটামিন সি না খেলে কিন্তু আয়রন যথাযথভাবে শোষণ করতে পারবে না আপনার শরীর। চুলের গোড়া শক্তপোক্ত রাখার জন্য প্রয়োজন কোলাজেন, তার উৎপাদনের জন্য ভিটামিন সি একান্ত প্রয়োজনীয়।

ঘন চুল   টিপস  


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

শীতকালে যে ৩ টি খাবার গরম রাখবে আপনার শরীর

প্রকাশ: ০১:১২ পিএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

শীতকালে গরম লাগাটাই স্বাভাবিক বিষয়। কিন্তু অতিরিক্ত ঠান্ডার ফলে আবার জ্বর, সর্দি-কাশির সমস্যা হয়ে থাকে বেশি। শীতকালে সবাই এই সমস্যা নিয়ে ভয়ে থাকে যে কখন আবার ঠান্ডা, জ্বর হয়, তাই সকলেই চেষ্টা করে শীতকালে নিজেকে গরম রাখার। অনেকেই এর জন্য মোটা গরম জামা পড়ে। তবে শীতকালে গরম কাপড় ছাড়াও শরীর গরম রাখা যায়। হয়তো আপনারা ভাবতে পারেন গরম কাপড় ছাড়া শীতকালে শরীর গরম রাখার আর কি মাধ্যম আছে!

গরম কাপড় ছাড়াও শীতকালে খাবারের মাধ্যমে শরীর গরম রাখা যায়। এমন কিছু খাবার আছে যা আপনার শরীরকে গরম রাখতে সাহায্য করবে। অনেকেই আছেন যারা শীতে শরীর গরম রাখতে গুড় ও তিল রাখেন পাতে। প্রচণ্ড শীতে শররীর গরম রাখতে এর সাথে আরও ৩টি খাবার রাখতে পারেন। জেনে নিন কোন খাবারগুলো শরীরের তাপমাত্রা বাড়ায়-

আদা : আদায় থাকা পুষ্টিকর উপাদানসমূহ স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। এটি হজমে তো সাহায্য করেই, পাশাপাশি এর পরিচিতি আছে ডায়াফরেটিক উপাদান হিসাবেও। অর্থাৎ তা দেহের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে।

বাদাম : শরীরের তাপমাত্রা বাড়াতে পারে বাদামও। চিনাবাদাম, কাঠবাদাম, কাজুবাদামসহ খেঁজুরে থাকা পুষ্টিগুণ প্রচণ্ড ঠান্ডাতেও শরীরকে রাখে গরম। তাই শীতে নিয়মিত খেতে পারেন বাদাম।

মিষ্টি আলু: মিষ্টি আলুতে থাকে প্রচুর ফাইবার। ফলে এটি পরিপাক হয় বেশ ধীর গতিতে। স্বাভাবিকভাবেই যেসব খাদ্য উপাদান ধীর গতিতে পরিপাক হয়, সেগুলো দীর্ঘক্ষণ শরীরকে রাখে গরম।

শীতকাল   টিপস  


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

অসচেতনতায় ভয়াবহ হতে পারে ওমিক্রন!

প্রকাশ: ০৮:০৫ এএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

করোনাভাইরাসের ওমিক্রন-ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ছোবলে সারা বিশ্বে নাভিশ্বাস উঠেছে। করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের প্রকোপ এখন পুরো বিশ্বে। ওমিক্রন ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের চেয়ে কম বিপদজনক হলেও এবং মৃত্যুর হার অনেক কম হলেও এটি মিউট্যান্ট ভাইরাস বলে যেকোনো সময় বিপদজনক হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এটি করোনাভাইরাসের অন্য ধরনগুলোর চেয়ে দ্রুত ছড়ায়। আর দ্রুত ছড়াতে থাকলে সেটি নতুন ভ্যারিয়েন্ট তৈরির দ্বার উন্মুক্ত করে দেয়।

করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই সরকারের পক্ষ থেকে রয়েছে নানা নির্দেশনা, বিধি-নিষেধ। এখনো চালু রয়েছে নো মাস্ক নো সার্ভিস। এই নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনে দিন দিন আক্রান্ত হলেও কেউ মানছে না সতর্কতা, মানছে না স্বাস্থ্যবিধি। জনসাধারণের এই সচেতনতা না মানার ফলে অজান্তেই  ঝুঁকির মুখে পড়ছে আমাদের ব্যক্তিগত, পারিবারি এবং সামাজিক জীবনে।

ব্যক্তিগত জীবন: ওমিক্রন নিয়ে অনেকেই  ভয় পাচ্ছেন না। কারণ একটি কথা এর মধ্যেই পরিষ্কার হয়ে গেছে, ওমিক্রনে বিরাট কিছু উপসর্গ দেখা দিচ্ছে না। সাধারণ জ্বর, ঠান্ডা, কাশির মতই। কারণ ওমিক্রন ফুসফুসে সংক্রমিত হচ্ছে না। কিন্তু উপসর্গ বুঝার উপায় না থাকলেও এর প্রভাব তো রয়েছেই। করোনায় আক্রান্ত হলে ব্যক্তি জীবনে আপনার কর্মক্ষেত্রে সমস্যা হবে। আপনার পরিবারের মানুষজন আতঙ্কে থাকবে। আপনার সকল ধরনের বাইরের কাজে বাঁধাগ্রস্ত হবেন। ব্যাক্তি জীবনের কাজকর্ম স্বাভাবিক নিয়মে করতে পারবেন না। 
 
এছাড়াও  একবার কোভিড সংক্রমণ হলে তার প্রভাব পড়বে মস্তিষ্কে। এর প্রধান কারণ হিসেবে বিজ্ঞানীরা বলছেন সাইটোকাইন নামক ফ্লুইডের ভূমিকার কথা। শরীর এই উপাদানটি নিজেই তৈরি করে রোগটির সঙ্গে লড়াই করার জন্য। এটির প্রভাব পড়ে মস্তিষ্কে। ঠিক যেভাবে কেমোথেরাপি ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করে, সেভাবেই সাইটোকাইন কভিডের সঙ্গে লড়ে। এবং কেমোথেরাপির রাসায়নিকের মতোই এটিও মস্তিষ্কের কোষের গড়নে বদল ঘটায়। এই ছাপ সারা জীবন থেকে যায়।

পারিবারিক জীবন: অসচেতনতার ফলে আপনি যদি কোনভাবে করোনায় আক্রান্ত হন তাহলে ভোগান্তিতে পড়তে হবে আপনার পরিবারের মানুষজন। তারপরেও আবার  আপনি যদি পরিবারের  একমাত্র কর্মক্ষম হন, তাহলে তো পরিবারের জন্য আরো সমস্যার। আপনার কাজ কর্ম বন্ধ হয়ে গেলে আপনার পরিবারে দেখা দিবে আর্থিক সমস্যা এবং আপনার সন্তানের প্রয়োজনীয় খরচ করতে হিমশিমে পড়ে যাবেন। অন্যদিকে আবার কিছু পরিবারের  ডমেস্টিক ভায়োলেন্সের হার বেড়ে যাচ্ছে। অন্যের প্রতি সহিংসতা বৃদ্ধি হচ্ছে। এর ফলে ধীরে ধীরে পারিবারিক সম্পর্কগুলোর উপর একধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

শিক্ষাজীবন: ছাত্র-ছাত্রীরা কভিডে আক্রান্তের ফলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে। অনলাইনে কার্যক্রম চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রশাসন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলে শিক্ষার্থীরা চরম ভোগান্তিতে পড়ছে। অনেক শিশুর মধ্যেই আচরণগত পরিবর্তন হচ্ছে। সঠিক মানসিক বিকাশে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা পিছিয়ে যাচ্ছে, সেশন জটের মুখে পড়ছে। অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অনলাইন ক্লাসের কারণে শিশুদের মোবাইল এবং ইন্টারনেটের প্রতি আসক্তি বাড়ছে। অন্যদিকে  গ্রামাঞ্চলের শিক্ষার্থীরা নেটওয়ার্ক সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। গ্রামাঞ্চলের অনেক শিক্ষার্থীর আবার ভালো কোন ডিভাইস পাচ্ছে না ক্লাস করার জন্য। ফলে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে।

কর্মজীবন: মাত্রাতিরিক্ত করোনাভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে গেলে সরকার লকডাউন দিয়ে দিবে। ফলে মানুষ তার কর্মক্ষেত্রেও বিভিন্ন ধরণের অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে যাবে। কর্মী ছাটাই শুরু হবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে। প্রতিষ্ঠান চালাতে না পেরে বন্ধ হয়ে হয়ে যাবে ব্যবাসা প্রতিষ্ঠান। এর সাথে জড়িত লাখ লাখ মানুষ এবং তাদের পরিবার এক মারাত্মক অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তায় পড়ে যাবে। এই অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা  সাধারণ মানুষদের এক চরম মানসিক চাপের মধ্যে ফেলে দিতে বাধ্য হবে।

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কর্মী ছাটাই প্রক্রিয়া শুরু করবে। সকল লেভেলের কর্মীদের ছাটাই প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে। যারা ছাটাইয়ের শিকার হননি তারাও আশঙ্কা ও অনিশ্চয়তার মধ্যে পর্যবসিত হল। অনেক প্রতিষ্ঠান ব্যবসায় লস হওয়ার কারণে কর্মীদের বেতন এবং অন্যান্য সুবিধাদি কমিয়ে দিতে বাধ্য হল। ক্ষুদ্র ও মাঝারি অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালাতে না পেরে বন্ধ করে দিতে বাধ্য হল। এর ফলে এর সাথে জড়িত লাখ লাখ মানুষ এবং তাদের পরিবার এক মারাত্মক অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার দিকে ধাবিত হল। এই অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা আমাদের মত সাধারণ মানুষদের এক চরম মানসিক চাপের মধ্যে ফেলে দিল। 

সামাজিক জীবন: সমাজ জীবনে ব্যাপক বিস্তার ফেলছে করোনাভাইরাস। কভিডে আক্রান্তের ফলে আমাদের দেশে গ্রামাঞ্চলের বাল্য-বিবাহের পরিমাণ বেড়ে যাচ্ছে। কারন গ্রামাঞ্চলের নিম্নজীবি মানুষের আয়-রোজকার কমে যাওয়ার কারনে পরিবার চালাতেই হিমশিমে পড়ছে, বিয়ে দিয়ে দিচ্ছে ছোট ছোট মেয়েদের। ফলে বাল্য বিবাহের সংখ্যা বাড়ছে, সাথে সাথে বাড়ছে ডিভোর্সের সংখ্যাও। মানুষের মধ্যে থেকে হাড়িয়ে যাচ্ছে মানবিকতা, নৈতিকতা, মূল্যবোধ। ফলে জায়গা রে নিচ্ছে অনৈতিকতা, অমানবিকতা, নিষ্ঠুরতা। বাড়ছে অপরাধ প্রবণতা। 

মহামারির এই সময়ে আমরা যদি সচেতন না হই, স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলি তাহলে উপরোক্ত সকল সমস্যা পুনরায় আবার হানা দিতে পারে আমাদের দেশে। সুতরাং কভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা জোরদার করার পাশাপাশি সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করে চলতে হবে সকলকে। নিয়মিত মাস্ক পরিধান করতে হবে, জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে।

করোনাভাইরাস   ওমিক্রন  


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

শীতে যে শাকগুলো খেলে সহজেই আপনার ওজন কমবে

প্রকাশ: ০৮:০৫ এএম, ২৫ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

ঋতুচক্রের পালাবদলে এখন শীতকাল। বাজারে এসেছে শীতকালীন সবজি। নানা রঙের আর নানা স্বাদের সবজিতে বাজার এখন ভরপুর। যারা ওজন কমানোর কথা ভাবছেন তাদের জন্য শীতকাল খুবই উপযুক্ত সময়। কিন্তু  শীতে অনেকেরই এক্সারসাইজের আগ্রহ কমে যায়। এ অবস্থায় যারা ওজন কমানোর ব্যাপারে চিন্তা করছেন তাদের  নির্দিষ্ট কিছু খাবার হতে পারে ওজন কমানোর বিকল্প এক উপায়। শীতের কিছু শাক এক্ষেত্রে শরীরের ওজন কমানোর সহায়ক হতে পারে।

মেথিশাক: আলু ও গাজরের সঙ্গে মেথিশাক মিশিয়ে খেতে পছন্দ করেন অনেকে। মেথির বেশ কিছু উপকারিতা আছে। এটি খুব ভালো একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। পরিমিত মেথি খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে, ওজন কমে। মেথি হার্ট ও ব্লাড প্রেশারের জটিলতাও কমাতে সহায়ক। মেথিশাকে আছে অ্যাসকরবিক এসিড ও বিটা ক্যারোটিন।

মুলাশাক: শীতের আরেকটি পরিচিত সবজি মুলা। আর এই সময়ে মুলাশাকও অনেকে বেশ আয়েশ করেই খান। মুলাশাকে প্রচুর পুষ্টি ও ফাইবার আছে। এ শাকে ক্যালরি খুব কম, তাই এটি সহজে হজম হয়। এই শাক কয়েকভাবেই রান্না করা যায়। শীতে তাই ওজন কমাতে এই শাক বেছে নিতে পারেন।

সরিষাশাক: শীতে গ্রামাঞ্চলে মাঠজুড়ে সরিষাক্ষেত দেখা যায়। শীতে গ্রামের মানুষ তাই প্রায় সময় সরিষাশাক খান। কম ক্যালরিযুক্ত ভিটামিন সি ও ফাইবার সমৃদ্ধ এই শাক ওজন কমাতে সহায়ক।

পালংশাক: অনেক পুষ্টিগুণে ভরা পালংশাক ওজন কমাতেও সহায়ক। অনেকভাবেই পালংশাক খাওয়া যায়। আলুর সঙ্গে অথবা কটেজ চিজ দিয়ে বা ভেজে নানাভাবে খাওয়া যায় এই পুষ্টিকর শাক। নারী ও বয়স্ক মানুষের জন্য এটি খুব স্বাস্থ্যকর শাক। এতে কম ক্যালরি থাকায় তা ওজন কমাতেও সহায়ক।

শীতকাল   শাক  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন