ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

আকাশছোঁয়া আবাসিক ভবন বানাচ্ছে আমিরাত

প্রকাশ: ১০:১৮ এএম, ২৪ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই শহরে তৈরি হচ্ছে নতুন আরেকটি আকাশচুম্বী ভবন। আগে থেকেই বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ভবন বুর্জ খলিফার জন্য শহরটি বিখ্যাত। এবার সেখানে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আবাসিক ভবন তৈরি করা হচ্ছে। ভবনটির নাম হবে ‘বিনঘাটি জ্যাকব অ্যান্ড কোম্পানি রেসিডেন্সেস’। তবে এটি ‘হাইপারটাওয়ার’ নামেও পরিচিতি পেয়েছে। ভবনটি তৈরিতে কাজ করছে দেশটির আবাসিক খাতের প্রতিষ্ঠান বিনঘাটি ও ঘড়িনির্মাতা জ্যাকব অ্যান্ড কোম্পানি।

নিউইয়র্ক পোস্টের খবরে বলা হয়েছে, গত মঙ্গলবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আবাসিক ভবনের নকশা উন্মুক্ত করা হয়। পরে তাদের যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, রেকর্ড গড়ার জন্যই তারা এই ভবন তৈরি করছে। এই ভবন হবে ১০০ তলা। বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আবাসিক ভবনটির অবস্থান যুক্তরাষ্ট্রের ম্যানহাটানের ফিফটি সেভেনথ স্ট্রিটে। এটি ৯৮ তলা।

ভবনটির নির্মাতারা বলছেন, তাঁদের তৈরি হাইপারটাওয়ারটি ম্যানহাটানের ৪৭২ মিটার উঁচু ভবনটিকে ছাড়িয়ে যাবে।

বিনঘাটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ বিনঘাটি বলেন, ‘আবাসন খাতে অনন্য নকশা ও স্থাপত্যের নজির স্থাপন করে একটি ব্র্যান্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে বিনঘাটি। গয়না ও ঘড়ির দুনিয়ায় একই কথা খাটে জ্যাকব অ্যান্ড কোম্পানির ক্ষেত্রেও। আমাদের উভয় ব্র্যান্ডই সীমানা ভেঙে তাদের লক্ষ্য অর্জন করার ইচ্ছা পোষণ করেছে।’

নকশা অনুযায়ী, নতুন এই সুউচ্চ আবাসিক ভবনের দৃষ্টিনন্দন দিক হবে এর ওপরে বসানো বিশেষ মুকুট। এতে হীরাসদৃশ চূড়া বসানো হবে।

বিলাসবহুল এ ভবনের বাসিন্দাদের জন্যও থাকছে নানা সুবিধা। নিজস্ব গাড়িসেবা, নিরাপত্তা প্রহরী, ব্যক্তিগত শেফের মতো নানা ব্যবস্থা। এ ছাড়া বিশেষ সুইমিংপুল, লাউঞ্জ, প্রাইভেট ক্লাবসহ নানা সুবিধা রাখার পরিকল্পনা করছেন এর নির্মাতারা।

দুবাইয়ের ব্যস্ত ব্যবসায়িক এলাকা হিসেবে পরিচিত বিজনেস বের কেন্দ্রস্থলে এই ভবনটি তৈরি করা হবে। ভবনটির সবচেয়ে ওপরের তলায় বিলাসবহুল ও স্বতন্ত্র পেন্ট হাউস তৈরি করা হবে। কবে নাগাদ এই ভবন উন্মুক্ত করা হবে, তার কোনো ঘোষণা দেয়নি এর উদ্যোক্তারা।


আবাসিক ভবন   আমিরাত  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

স্ত্রীর ফোনে আড়ি পেতে কোটিপতি হলেন তিনি!

প্রকাশ: ০৭:০৩ পিএম, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

নিজের স্ত্রীর ফোনে আড়ি পেতে রীতিমতো কোটিপতি বনে গেছেন আমেরিকার টেক্সাসের এক ব্যাক্তি। তাঁর স্ত্রী বাড়ি থেকে অফিস করতেন এবং প্রয়োজনে সহকর্মীদের সঙ্গে ফোনে নানা বিষয়ে কথা বলতেন। সেই ফোনে আড়ি পেতে ১ দশমিক ৭৬ মিলিয়ন ডলার আয় করেছেন, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১৯ কোটি ৩২ লাখ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, চাঞ্চল্যকর এ তথ্য জানা গেছে  মার্কিন সিকিয়োরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) এক প্রতিবেদন থেকে।

স্ত্রীর ফোনে আড়ি পেতে যিনি কোটিপতি হয়েছেন, তার নাম টেইলার লুডন। তাঁর স্ত্রী চাকরি করতেন ব্রিটিশ সংস্থা বিপি পিএলসিতে। তবে করোনা মহামারির সময় থেকে তিনি বাসা থেকেই অফিসের কাজ করেন।

এসইসি জানিয়েছে, গত ফেব্রুয়ারিতে স্ত্রীর ফোনে আড়ি পেতে টেইলার জানতে পারেন, বিপি পিএলসি ৭৪ শতাংশ পিমিয়াম দামে আমেরিকার ট্রাভেল সেন্টারস কিনতে যাচ্ছে। এই তথ্য কাজে লাগিয়ে ট্রাভেল সেন্টারসের একের পর এক শেয়ার কেনা শুরু করেন টেইলার। পুরাতন পড়ে থাকা অ্যাকাউন্টও সচল করেন। এভাবে তিনি ১ দশমিক ৭৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেন, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১৯ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

এ ঘটনা জানার পর ভীষণ ক্ষুব্ধ হোন টেইলারের স্ত্রী। বাড়ি ছেড়ে চলে যান এবং কয়েক দিনের মধ্যে বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন করেন।

এরপর ঘটনা আরও জটিল আকার ধারণ করে। টেইলারের কুকর্ম জানার পর বিপি পিএলসি তাঁর স্ত্রীকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করে। পরে বিপদ সামাল দিতে টেইলার আড়ি পেতে কামানো অর্থ ফিরিয়ে দিতে রাজি হন।

কিন্তু এ ব্যাপারে টেইলারের আইনজীবী পিটার জিডেনবার্গ কিংবা বিপি পিএলসির সংশ্লিষ্ট কর্তাদের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

পাকিস্তানের ইতিহাসে প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী হলেন মরিয়ম

প্রকাশ: ১১:৪৪ এএম, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

পাকিস্তানের নবনির্বাচিত এমপিরা পাঞ্জাবের প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছেন।পাকিস্তানের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দেশটির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পাঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন নওয়াজ শরীফের কন্যা মরিয়ম নওয়াজ। 

শুক্রবার(২৩ ফেব্রুয়ারি) স্পিকার সিবতাইন খান তাদের শপথ পড়ান।

শনিবার(২৪ ফেব্রুয়ারি) নতুন স্পিকার এবং ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত করা হবে। এর মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিক গঠন হল পাঞ্জাব সরকার। একই সাথে কেন্দ্রীয় সরকার গঠনেও আরেক ধাপ এগিয়ে গেছে পিএমএল-এন ও পিপিপি জোট।

শুক্রবার দুই ঘণ্টার বেশি বিলম্বের পর স্পিকার সিবতাইনের সভাপতিত্বে প্রাদেশিক পরিষদের অধিবেশন শুরু হয়। এই অধিবেশনে ৩১৩ এমপি উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে পিএমএল-এনের ও এর মিত্রদের ২১৫ জন এবং সুন্নি ইত্তেহাদ কাউন্সিলের (এসআইসি) ৯৮ এমপি শপথ গ্রহণ করেছেন।

মরিয়ম বর্তমানে পিএমএল-এনের সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি নওয়াজ শরিফের বড় মেয়ে এবং শাহবাজ শরিফের ভাতিজি। এবার তিনি শরিফ পরিবারের চতুর্থ সদস্য হিসেবে পাঞ্জাবের প্রাদেশিক পরিষদে এমপির শপথ বাক্য পাঠ করেন। একই সঙ্গে তিনি এই পরিবারের প্রথম নারী এমপিও। সব কিছু ঠিক থাকলে তিনিই হচ্ছেন পাঞ্জাবের পরবর্তী ও প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী।


পাকিস্তান   মুখ্যমন্ত্রী   মরিয়ম নওয়াজ    


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

রাজধানীর কাছে পুলিশ স্টেশন দখল করলো আরাকান আর্মি

প্রকাশ: ০৯:০৪ এএম, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রাজধানী সিত্তওয়ের কাছে একটি থানা দখলে নিয়েছে আরাকান আর্মি। বৃহস্পতিবার বাহিনীটি জানিয়েছে, পোন্নাগিউন টাউনশিপ পুলিশ স্টেশনটি এখন তাদের নিয়ন্ত্রণে। খবর ইরাবতীর। 

পোন্নাগিউন রাজধানী সিত্তওয়ে থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে ইয়াঙ্গুন-সিত্তওয়ে সড়কে নিরাপত্তা জোরদার করেছে মিয়ানমারের জান্তা সরকার।


খবরে জানানো হয়, আরাকান আর্মি সম্প্রতি পাকতাও শহর দখল করে। এই শহরটিও সিত্তওয়ের কাছে। বাহিনীটি রাখাইনের সামরিক কমান্ডকে আত্মসমর্পণ করার আহ্বান জানিয়েছে। নইলে তাদেরকে পরাজিত করা হবে বলে ঘোষণা করেছে আরাকান আর্মি।

তাদের ভয়ে জান্তা সরকারের বহু কর্মকর্তা সিত্তওয়ে ছেড়ে পালিয়েছে। এছাড়া শহরটির বাসিন্দাদেরও অর্ধেকের বেশি অন্যত্র চলে গেছে। বিদ্রোহী বাহিনীটির দাবি, তারা পোন্নাগিউন, রাথেদাউং, বুথিদাউং এবং মংডু শহরের কমান্ড সেন্টার সহ জান্তা বাহিনীর ঘাঁটিগুলোতে আক্রমণ চালাচ্ছে।

অপরদিকে সিত্তওয়ে, পোন্নাগিউন, রাথেদাউং এবং বুথিডাং শহরে বেসামরিক লক্ষ্যবস্তুতে গোলাবর্ষণ অব্যাহত রেখেছে জান্তা সরকার।

বৃহস্পতিবার মিনবিয়া টাউনশিপের কান নি গ্রামের কাছে জান্তা বাহিনীর একটি বড় ও শক্তিশালী ঘাঁটিতে আক্রমণ করেছে আরাকান আর্মি। 

এর আগে শনিবার থেকে জান্তার ৯ম সেন্ট্রাল মিলিটারি ট্রেনিং স্কুলে আক্রমণ অব্যাহত আছে। এর কাছে থাকা তিনটি ফাঁড়ি দখল করেছে তারা। 

বৃহস্পতিবার ওয়াই১২ বিমান থেকে উপকূলীয় শহর রামরিতে বোমা ফেলেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। বিমান হামলা এখনও অব্যাহত আছে। এছাড়া যুদ্ধজাহাজ থেকেও রামরিতে হামলা চালানোর চেষ্টা করে জান্তা বাহিনী। তবে আরাকান আর্মির পালটা হামলায় তারা ফিরে যেতে বাধ্য হয়।

পুলিশ স্টেশন দখল   আরাকান আর্মি  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

আন্তর্জাতিক চাপ সামলে কতদূর এগোতে পারবে রাশিয়া

প্রকাশ: ০৮:৫০ এএম, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

রাশিয়া ২০২২ সালের শুরুর দিকে ইউক্রেনকে প্রথম বারের মতো আক্রমণ করে রাশিয়া।  এই আক্রমণটিকে আন্তর্জাতিকভাবে আগ্রাসন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। 

নিজস্ব ভূখণ্ডে রাশিয়ার লাগাতার হামলার জবাব হিসেবে ইউক্রেনও পালটা হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। 

যুদ্ধে বিস্তৃত পরিসরে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটে চলেছে। এতে মানুষের জীবন ও জীবিকা ধ্বংস হচ্ছে। এই যুদ্ধের দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাব প্রজন্মের পর প্রজন্মের ওপর পড়বে।

এই যুদ্ধ লাখ লাখ বেসামরিক মানুষের জীবনে তীব্র দুর্দশা নিয়ে এসেছে বলে উল্লেখ করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার ফলকার টুর্ক। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, এই যুদ্ধের কোনো শেষ দেখা যাচ্ছে না।

যুদ্ধের ময়দানের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা দেশগুলোর প্রবল চাপ সামলে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রেও পুতিন সুবিধাজনক অবস্থানে আছেন। ইউক্রেনে হামলা শুরু করার পর রাশিয়ার ওপর একের পর এক নিষেধাজ্ঞা দেয় পশ্চিমা দেশগুলো। 

আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল, এতে ধসে পড়বে দেশটির অর্থনীতি। তবে ব্যবসার বিকল্প অংশীদার খুঁজে ধাক্কা সামলে নেয় মস্কো। ইউরোপ-আমেরিকায় তেল বিক্রি বন্ধ হলেও তা কয়েক গুণ বেড়ে যায় চীন, ভারতসহ কয়েকটি দেশে। 

এই পরিস্থিতিতে যুক্তরাষ্ট্র গতকাল রাশিয়ার পাঁচ শতাধিক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার তালিকায় রাশিয়ার সঙ্গে লেনদেন করা চীন, উত্তর কোরিয়া, ইরান, তুরস্ক, ভারত ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানও রয়েছে।

রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়ে গতকাল এক বিবৃতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, দুই বছর আগে পুতিন ইউক্রেনকে মানচিত্র থেকে মুছে দিতে চেয়েছিলেন। এসব নিষেধাজ্ঞা বিদেশে আগ্রাসন এবং দেশের ভেতরে নিপীড়ন চালানোর জন্য তার চরম মূল্য দেওয়া নিশ্চিত করবে।


আন্তর্জাতিক   রাশিয়া   ইউক্রেন  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইমরান খানকে প্রত্যাখান আইএমএফ

প্রকাশ: ০৮:৫২ পিএম, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) প্রতিষ্ঠাতা ইমরান খানের দাবি প্রত্যাখ্যান করেছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। বরং পাকিস্তানের নতুন সরকারের সঙ্গে কাজ করার আগ্রহ দেখিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

নির্বাচনে কারচুপির কারণে আইএমএফের কাছে অর্থসহায়তা বন্ধের দাবি জানিয়েছিলেন ইমরান খান।

একটি প্রেস ব্রিফিংয়ে আইএমএফের ডিরেক্টর কমিউনিকেশনস জুলি কোজ্যাক বলেছেন, ১১ জানুয়ারি, স্ট্যান্ডবাই অ্যারেঞ্জমেন্ট (এসবিএ) এর অধীনে মোট ঋণ ১ দশমিক ৯ বিলিয়ন ডলারে নিয়ে আসা হয়েছে। অর্থনীতিকে স্থিতিশীল করার জন্য (পাকিস্তান) কর্তৃপক্ষের প্রচেষ্টা চলছে। অবশ্যই সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অর্থনীতির দিকেই আমাদের নজর।

এই কর্মকর্তা পাকিস্তানের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রশংসা করে বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে কর্তৃপক্ষ অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রেখেছে।

তিনি বলেন, ‘সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী রক্ষা করার পাশাপাশি আর্থিক লক্ষ্যমাত্রা কঠোরভাবে মেনে চলার মাধ্যমে এটি করা হয়েছে। মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে এবং বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ানো অব্যাহত রাখার জন্য কঠোর মুদ্রানীতির অবস্থান বজায় রাখা হয়েছে।’

মুখপাত্র আরও বলেছেন, তারা পাকিস্তানের নাগরিকের জন্য সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা এবং সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে নতুন সরকারের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান দাবির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি চলমান রাজনৈতিক অগ্রগতির বিষয়ে মন্তব্য করতে যাচ্ছি না।’

ইমরান খানের চিঠির প্রতিক্রিয়ায় মূলত বিবৃতি দিয়েছে আইএমএফ।

ইমরান খান   আইএমএফ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন