ক্লাব ইনসাইড

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত

প্রকাশ: ০৪:৫৩ পিএম, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের জন্য দিনব্যাপী এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘প্রিপারেশন অ্যান্ড প্রসেস অব পাবলিশিং রিসার্চ আর্টিকেলস্ ইন ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল’ শিরোনামে কর্মশালাটি সকাল ৯.৪৫ মিনিটে উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন। কর্মশালায় রিসোর্স পারসন ছিলেন এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ-এর উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহজাহান খান। 

সোমবার ৫ ডিসেম্বর, ২০২২ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাস্যুরেন্স সেল (আইকিউএসি)-এর পরিচালক অধ্যাপক ড. মীর খালেদ ইকবাল চৌধুরী। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন আইকিউএসি’র অতিরিক্ত পরিচালক ড. শেখ রাসেল আল-আহম্মেদ এবং ড. মো. নূর আলম। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন বলেন, কোনো বিষয় সম্পর্কে ভালো ধারণা নিতে হলে, বেশি বেশি চর্চা করতে হবে। চর্চার মাধ্যমে অন্তর্নিহিত বিষয়গুলো সামনে চলে আসবে। জ্ঞান-বিজ্ঞান কখনো শেষ হয়না। এটি চলমান প্রক্রিয়া এবং চলতে থাকে। গুণগত শিক্ষাকে আমাদের নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, সম্পদের সীমাবদ্ধতার মধ্যেও আমাদের শিক্ষকরা আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে গবেষণায় ভালো করছেন। স্বল্প সম্পদকে সর্বোচ্চ ব্যবহার করে আমাদের গবেষণায় এগিয়ে যেতে হবে। ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাস্যুরেন্স সেল-এর উদ্যোগে দুটি ব্যাচে ১৪৩ জন শিক্ষক প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করেন। 

প্রথম ব্যাচে সকাল ৯.৪৫ মিনিট হতে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৭৫জন অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও প্রভাষক এবং দ্বিতীয় ব্যাচে দুপুর দুইটা হতে বিকাল চারটা পর্যন্ত ৬৮জন সহকারী অধ্যাপক কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান ভবনের গ্যালারী ২ এ অনুষ্ঠিত হয়। সঞ্চালনা করেন আইকিউএসি’র প্রশাসনিক কর্মকর্তা সানজিদা শারমিন।

কর্মশালা  


মন্তব্য করুন


ক্লাব ইনসাইড

রাবির ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে ১০ ট্রেনে যুক্ত হচ্ছে অতিরিক্ত বগি

প্রকাশ: ০৩:৩৬ পিএম, ০১ মার্চ, ২০২৪


Thumbnail

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সম্মান (স্নাতক) শ্রেণির প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের আওতাধীন ১০টি ট্রেনে অতিরিক্ত ১৫টি কোচ যুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের রাজশাহীতে আসা-যাওয়ার জন্য ছয়টি ট্রেনের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করেছে কর্তৃপক্ষ। 

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের সহকারী চিফ অপারেটিং সুপারিনটেনডেন্ট মো. আব্দুল আউয়ালের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রাবির ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে যাত্রীচাপ মোকাবিলায় আগামী ৪ মার্চ থেকে রাজশাহী-খুলনা রুটে সাগরদাড়ি এক্সপ্রেস, ৫মার্চ রাজশাহী-গোবরা রুটে টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস এবং রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে পদ্মা এক্সপ্রেস, ৬ মার্চ রাজশাহী-চিলাহাটি-রাজশাহী রুটে তিতুমীর এক্সপ্রেস এবং রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে ধূমকেতু এক্সপ্রেস এবং ৭ মার্চ রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে মধুমতি এক্সপ্রেসের অফ-ডে (ছুটি) প্রত্যাহার করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, এ ছাড়া বনলতা ট্রেনে একটি, পদ্মা, ধূমকেতু ও সিল্কসিটি ট্রেনে দুইটি, তিতুমীর ট্রেনে একটি, বরেন্দ্র ট্রেনে একটি কোচ, সাগরদাঁড়ি ও কপোতাক্ষ ট্রেনে দুইটি করে কোচ, ঢালারচর এক্সপ্রেস এবং বাংলাবান্ধা ট্রেনে একটি করে অতিরিক্ত কোচ যুক্ত সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আগামী ৫ মার্চ ‘সি’ ইউনিট, ৬ মার্চ ‘এ’ ইউনিট এবং ৭ মার্চ ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ত বছরের ন্যায় এ বছরও দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষার সুযোগ থাকছে। এবারের ভর্তি পরীক্ষায় গত বছরের মতো ৮০টি বহুনির্বাচনি প্রশ্নের মান হবে ১০০ নম্বর। এক ঘণ্টার পরীক্ষায় প্রতিটি বহুনির্বাচনি প্রশ্নের মান হবে ১.২৫।

এবার রাবির ভর্তি পরীক্ষার জন্য চূড়ান্ত আবেদন জমা পড়েছে এক লাখ ৮৫ হাজার ৫০০টি। সেই হিসাবে আসনপ্রতি আবেদন পড়েছে প্রায় ৪৭টি। মোট আসন তিন হাজার ৯৮৪টি। এর মধ্যে ‘এ’ ইউনিটে এক হাজার ৮৭২টি আসন রয়েছে। এ ছাড়া ‘বি’ ইউনিটে ৫১৫ ও ‘সি’ ইউনিটে আসন রয়েছে এক হাজার ৫৯৭টি।


রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়   ভর্তি পরীক্ষ  


মন্তব্য করুন


ক্লাব ইনসাইড

বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডে জবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু

প্রকাশ: ০২:৪৯ পিএম, ০১ মার্চ, ২০২৪


Thumbnail

রাজধানীর বেইলি রোডের ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় দগ্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে এমবিএ (ইভেনিং) প্রোগ্রামের ১৩ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী শিক্ষার্থী মো. নুরুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) অগ্নিসংযোগের ঘটনা পর আহত ও নিহতদের নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজে। 

এসময় ঢাকা মেডিকেলে দগ্ধ হওয়া এক মরদেহের পকেটে পাওয়া যায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট আইডি কার্ড। মো. নুরুল ইসলামের (সেশন-২০১৮) এই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে এমবিএর সন্ধ্যাকালীন কোর্সে ম্যানাজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের। খোঁজ পেয়ে তার বন্ধুরা কাঁদতে কাঁদতে ছোটাছুটি করছিলেন, চেষ্টা করছিলেন রাতের মধ্যে মরদেহ গ্রামের বাড়িতে পাঠাতে।

এ শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম এবং ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো: হুমায়ুন কবীর চৌধুরী গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

এছাড়াও বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ব্যাপক সংখ্যক প্রাণহানির ঘটনায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং ট্রেজারার গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।


বেইলি রোড   অগ্নিকাণ্ড   শিক্ষার্থীর মৃত্যু   জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়  


মন্তব্য করুন


ক্লাব ইনসাইড

গাজায় গণহত্যার প্রতিবাদে রাবিতে অনশন

প্রকাশ: ০১:৫৩ পিএম, ২৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

গাজায় ইজরায়েলি আগ্রাসন ও গণহত্যার প্রতিবাদে এবং ক্ষুধার্ত ও তৃষ্ণার্ত মানুষের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়ে অনশনে বসেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ফ্রেন্ডস অফ পেলেস্টাইন। বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জোহা চত্বরে তারা এই কর্মসূচি শুরু করেন শেষ হবে বিকেল ৪ টায়। 

 

অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘গাজায় যে গণহত্যা চলছে তার ফলে সেখানে খাবারের সংকট এবং চিকিৎসার অভাবে অনেক মানুষ মারা যাচ্ছে। সেখানে যে দুর্বিক্ষ নেমে এসেছে তা আমাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে।

 

আমরা চাই দ্রুত এই ইজরায়েলি আগ্রাসন বন্ধ হোক এবং খাবের যে রেস্ট্রিকশন অর্থাৎ বাহির থেকে খাবার আসতে না দেওয়া তা যেন বন্ধ হয়। বাংলাদেশে থেকে আমাদের তেমন কিছুই করার নেই তবুও আমরা মানবিক দৃষ্টিকোন থেকে ফিলিস্তিনের প্রতি সহানুভূতি ও ইজরায়েলের প্রতি ঘৃণা প্রকাশ করছি’।

 

আরবি বিভাগের অধ্যাপক ইফতেখাউর আলম মাসুদ বলেন, ‘সারা বিশ্বের মানবতাবাদী মানুষেরা ইজরায়েলি জায়ান্টবাদি নীতি প্রত্যাখ্যান করছে,তবুও ফিলিস্তিনে ইজরায়েলি আগ্রাসন বন্ধ হচ্ছে না। প্রতি বছরই রোজা আসলে তাদের আক্রমণাত্বক ভঙ্গি বেড়ে যায়। আমরা এখান থেকে কিছুই করতে পারবোনা কিন্তু আমাদের হৃদয়ের তারনা থেকে মানবতা বিরোধী এই অপকর্মের বিরুদ্ধে অবস্থান করছি।

 

আন্তর্জাতিক কূট রাজনৈতিক কারণে কিছু রাষ্ট্র ইজরায়েলের পক্ষ নিলেও অধিকাংশ রাষ্ট্র ইজরায়েলের অপকর্মের নিন্দা জানাচ্ছে। ইজরায়েলের এই নিকৃষ্ট কর্মকান্ডকে সরাসরি সমর্থন করে এমন রাষ্ট্র কমই পাওয়া যাবে। যারা এই কর্মকাণ্ডকে সমর্থন করে তা কোনো রাষ্ট্রই হতে পারেনা, যতই গণতন্ত্রের কথা বলুক না কেন প্রকৃতপক্ষে তারা মানবতা বিরুধী’।

 

অর্থনীতি বিভাগের ২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মনিমুল হক বলেন, জায়ান্টবাদি নীতির নামে ফিলিস্তিনে যে গণহত্যা চালানো হচ্ছে তা আমরা কখনোই সমর্থন করিনা। আমরা এই জায়ান্টবাদিদের বিরুদ্ধে, তাদের এই নিকৃষ্ট অপকর্মের বিরুদ্ধে। 

 

এছাড়াও প্রতিবাদে অনশনে উপস্থিত ছিলেন, প্রকৌশল (অবসরপ্রাপ্ত) সাঈদুর রহলাম চৌধুরী, অর্থনীতি বিভাগের ২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মো:মোকাররম হোসাইন, অর্থনীতি বিভাগের ২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী তৌফিকুল ইসলাম ও অর্থনীতি বিভাগের ২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী গোলাম শাহরিয়ার মেহেদি।


রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়   ফ্রেন্ডস অফ পেলেস্টাইন   অনশন  


মন্তব্য করুন


ক্লাব ইনসাইড

বন্ধ হওয়া পানির প্ল্যান্ট ও সততা ফোয়ারা চালুর দাবিতে ইবি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

প্রকাশ: ০৯:৩৬ পিএম, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) বিশুদ্ধ পানির প্ল্যান্ট ও সততা ফোয়ারা চালুর দাবিতে মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০ টায় প্রশাসন ভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে শিক্ষার্থীরা।

এসময় আগামী প্রসাশনকে আগামী ২৪ ঘন্টার ভিতরে কাজের দৃশ্যমান অগ্রগতি না হলে কঠোর কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তারা।

শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি বনি আমিন ও মামুনুর রশিদের নেতৃত্বে মানবন্ধনে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। এসময় শিক্ষার্থীদের হাতে, ‘সততা ফোয়ারা পুনরায় চালু চাই’ ভিসির দোয়ারে টোকা মারুন, সততা ফোয়ারা চালু করুন’, ‘ইবির সৌন্দর্য সততা ফোয়ারা অনিবার্য’, ‘পরিস্কার পরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস চাই, শিক্ষার্থীদের থাকার পরিবেশ চাই’, ‘নয় ছয় বাদ দিন সততা ফোয়ারায় পানি দিন’, ক্যাম্পাসে নিরাপদ পানি নাই, বন্ধ পানির প্ল্যান্ট পুনরায় চালু চাই’ ইত্যাদি দাবি সম্বলিত প্লা-কার্ড দেখা যায়।

শিক্ষার্থীরা বলেন, বিগত কয়েক বছর ধরে মৃতপ্রায় হয়ে থাকা সততা ফোয়ারা এবং বিশুদ্ধ পানির প্ল্যান্ট চালুর দাবিতে বেশ কয়েকবার ভিসি স্যারের নিকট গেলেও কোন আশানুরূপ ফল পাওয়া যায় নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পত্তি রক্ষা করতে আমরা সকল শিক্ষার্থী বদ্ধপরিকর।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, কর্তৃপক্ষের রক্ষণাবেক্ষণের অভাবেই দীর্ঘদিন ধরে বিকল অবস্থায় পড়ে রয়েছে ফোয়ারা ও পানির প্লান্টগুলো। প্রশাসনের অবহেলার কারণে একদিকে হারাতে চলেছে ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য এবং অন্যদিকে বিশুদ্ধ পানির অভাবে ধুকছে শিক্ষার্থীরা। তাই ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনা ও শিক্ষার্থীদের সুপেয় পানির ব্যবস্থা করতে ফোয়ারা ও প্লান্টগুলো চালুর জোর দাবি তোলেন তারা। আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে কাজের কোন দৃশ্যমান অগ্রগতি না হলে পরবর্তীতে কঠোর আন্দোলনেরও হুশিয়ারি দেন শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধন শেষে শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি বনি আমিন ও মামুনুর রশিদের নেতৃত্বে শিক্ষার্থীরা তাদের দাবি নিয়ে ভিসির সাথে দেখা করতে তার কার্যালয়ে যান। কিন্তু এসময় ভিসি তার কার্যালয়ে না থাকায় প্রক্টরিয়াল বডি তাদেরকে কার্যালয়ে যেতে বাঁধা দিলে প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যদের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়ান মানববন্ধনকারীরা।

পরে শিক্ষার্থীরা জোরপূর্বক ঢুকে কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে কার্যালয় ঘেরাও করে রাখেন। এসময় শিক্ষার্থীদের ‘সততা ফোয়ারা বন্ধ কেন প্রসাশন জবাব চাই’, আমাদের দাবি আমাদের দাবি মানতে হবে মানতে হবে, কাজ চালু দেখতে চাই’ ইত্যাদি স্লোগান দিতে শোনা যায়। পরে বেলা ১২টায় তারা কর্মসূচি স্থগিত করেন। তবে আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে কাজের কোন দৃশ্যমান অগ্রগতি না হলে কঠোর কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে বলে জানান শিক্ষার্থীরা।

এই বিষয়ে দায়িত্বরত প্রক্টর ড. আমজাদ হোসেন বলেন, তাদের ব্যানারে ছিলো তাদের প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি। কিন্তু কি কারণে তারা জোরপূর্বক কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিলো সেটা বোধগম্য নয়। আর ফোয়ারা চালুর বিষয়ে আজ সকালে উপাচার্য বসেছেন। ইতোমধ্যে এটি ঠিক করার জন্য প্রকৌশল অফিসকে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি কেনার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।


মানববন্ধন   ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়  


মন্তব্য করুন


ক্লাব ইনসাইড

রাবিতে 'ভেন্ডিং মেশিন'র সেবা পাবে শিক্ষার্থীরা

প্রকাশ: ০৬:২০ পিএম, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭টি হলের আবাসিক শিক্ষার্থীদের জন্য আধুনিক ভেন্ডিং মেশিন যুক্ত করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা যেন সহজেই প্রয়োজনীয় খাবার কিনতে পারে, সে লক্ষ্যে এই মেশিন যুক্ত করা হবে।

এছাড়াও, এই মেশিন থেকে যেকোনো সময় নগদ টাকা বা অনলাইন পেমেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরাই কিনতে পারবেন পছন্দের সব পণ্য। এই পদ্ধতিতে মেশিন থেকে চাহিদাকৃত পণ্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে বের হয়ে আসবে। এতে লাগবে না কোনো বিক্রেতার উপস্থিতি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাধ্যক্ষ পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক একরামুল ইসলাম।

জানা যায়, ‘ইওর ক্যাম্পাস’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান এই সেবা চালু করতে যাচ্ছে। এই প্রতিষ্ঠান একটি স্মার্টআপ কোম্পানি। প্রতিষ্ঠানটি হলে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন স্মার্ট সেবা নিয়ে কাজ করে।

অধ্যাপক একরামুল ইসলাম জানান, "শিক্ষার্থীদের সুবিধার দিকটি বিবেচনায় নিয়েই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭টি হলে ভেন্ডিং মেশিন যুক্ত হতে যাচ্ছে। আধুনিক এই মেশিনে কেক, চিপ্স, সফট ড্রিংকস, আইসক্রিমসহ শুকনো খাবারগুলো খুব সহজেই ক্রয় করা যাবে।"

কবে নাগাদ এই মেশিন হলগুলোতে যুক্ত হবে এমন প্রশ্নের উত্তরে অধ্যাপক ড. একরামুল ইসলাম বলেন, "প্রাথমিক কিছু কাজ ইতোমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। ভেন্ডরের সাথে চুক্তিপত্রসহ কিছু অফিসিয়াল কার্যক্রম বাকি আছে। এগুলো সম্পন্ন হলেই ভেন্ডিং মেশিনগুলো এক এক করে হলগুলোতে স্থাপন করা হবে।"

ইওর ক্যাম্পাসের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর আবু সাহাদাৎ বাঁধন বলেন, ইওর ক্যাম্পাস একটি স্মার্টআপ কোম্পানি। যেটি হলে থাকা শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সুবিধা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আমরা ভেন্ডিং মেশিন দিয়েছি। প্রশাসনের সাথে অফিসিয়াল কিছু কার্যক্রম শেষ হলেই আনুষ্ঠানিকভাবে এই সেবাটি চালু হবে।

আধুনিক এই মেশিনটি স্থাপন করা হলে আবাসিক হলে এবং হল সংলগ্ন দোকান বন্ধ থাকা অবস্থাতেও নিজেদের পছন্দের পণ্য কিনতে পারবেন শিক্ষার্থীরা।

ভেন্ডিং মেশিন ছাড়াও শিক্ষার্থীদের জন্য আরও কিছু সেবামূলক কার্যক্রম করার ইচ্ছে পোষন করে ইওর ক্যাম্পাসের রাবি ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর আবু সাহাদাৎ বাঁধন বলেন, এর পরপরই হলে হলে আমরা ওয়াশিং স্টেশন দিবো। যেখান থেকে শিক্ষার্থীরা সহজে কাপড় পরিস্কার করার সেবাটি গ্রহণ করতে পারবে। এছাড়াও স্মার্টবিন নামে আমাদের নতুন সেবাটিও চালু করা হবে।

ভেন্ডিং মেশিন বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা করা হচ্ছে, 'সাধারণ শিক্ষার্থীদের যেকোনো প্রয়োজনে সবসময় সাথে আছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ।' ভেন্ডিং মেশিন বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কি ধরনের উদ্যোগ ছিলো এমন প্রশ্নের জবাবে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাবু বলেন, সাধারণ শিক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য আমরা বারবার বলে আসছিলাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভেন্ডিং মেশিন চালু করার জন্য। এ বিষয়ে আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য  বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে কথা বলেছি যাতে ভেন্ডিং মেশিন দ্রুত চালু করা হয়।

এই মেশিন শিক্ষার্থীদের জন্য কতটুকু উপকারী হবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা এর সুবিধা ২৪ ঘন্টা পাবে। যেকোনো সময় নিজের হলেই নিতে পারবেন এই ভেন্ডিং মেশিনের সুযোগসুবিধা। সফট ড্রিংকস, শুখনো খাবারের জন্য যেতে হবে না দোকানে’।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক জামসেদ সবুজ বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হচ্ছে ভেন্ডিং মেশিন। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ অনেক আগে থেকেই ভেন্ডিং মেশিন চালু করার জন্য চেষ্টা করছিলো। আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের সাথেও কয়েকবার বসে কথা বলেছিলাম এ বিষয়ে।

শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭টি হলে ভেন্ডিং মেশিন যুক্ত হবে। এই মেশিনে কেক, চিপ্স, সফট ড্রিংকস, আইসক্রিমসহ শুকনো খাবারগুলো খুব সহজেই ক্রয় করা করতে পারবে শিক্ষার্থীরা’।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী তানভির বলেন, প্রশাসনের এরকম সিদ্ধান্তে শিক্ষার্থীরা খুব উপকৃত হবে। হালকা খাবারের জন্য এখন আর হল এর সামনে দোকানগুলোতে ভিড় জমানো লাগবে না। হলের ভিতরে ভেন্ডিং মেশিন থাকলে খুব সহজেই সেখান থেকে খাবার সংগ্রহ করতে পারবো।


রাবি   ভেন্ডিং মেশিন   শিক্ষার্থী  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন