ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইকুয়েডর ও পেরুতে শক্তিশালী ভূমিকম্পে নিহত ১৪

প্রকাশ: ০৮:২২ এএম, ১৯ মার্চ, ২০২৩


Thumbnail

দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ইকুয়েডর ও পেরুতে শক্তিশালী ভূমিকম্পে অন্তত ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ইকুয়েডরে ১৩ জন এবং পেরুতে ১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। ৬ দশমিক ৮ মাত্রার এ ভূমিকম্পের পর বেশ কয়েকটি শহরে ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। খবর রয়টার্সের।

স্থানীয় সময় শনিবার (১৮ মার্চ) দুপুরে দেশটির উপকূলীয় অঞ্চলসহ পাশের দেশ পেরুর উত্তরাঞ্চলে এ ভূমিকম্প আঘাত হানে। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা জানিয়েছে, ভূমিকম্পের কেন্দ্র ভূপৃষ্ঠ থেকে ৬৪ কিলোমিটার গভীরে। এর উৎপত্তিস্থল গুয়ায়ের প্রদেশের বালাও শহর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে। ভূমিকম্পটির জেরে ৫০ মাইল দূরেও কম্পন অনুভূত হয়।

আলজাজিরার খবরে জানা গেছে, দক্ষিণের প্রদেশ এল ওরো সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেখানে ধসে পড়া বাড়ির ভেতরে অনেকে আটকে আছেন। 

আহতদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য জরুরি সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট গুয়েলারমো ল্যাসো। তবে ভূমিকম্পের কারণে কোনো সুনামি সতর্কতা জারি করেনি দেশটির কর্তৃপক্ষ। 


ইকুয়েডর   পেরু   ভূমিকম্প  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত আরও ১৪১ ফিলিস্তিনি

প্রকাশ: ০৮:১৪ এএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

থেমে নেই ইসরাইলি গণহত্যা। গাজা উপত্যকা যেন মৃত্যুপুরী। দখলদার ইসরাইলি বাহিনীর বর্বর এই হামলায় নিহত হয়েছেন আরও প্রায় দেড়শো ফিলিস্তিনি। এতে করে উপত্যকাটিতে নিহতের মোট সংখ্যা পৌঁছে গেছে প্রায় ৩৮ হাজার ৬০০ জনে।

এছাড়া গত বছরের অক্টোবর থেকে চলা এই হামলায় আহত হয়েছেন আরও প্রায় ৮৯ হাজার ফিলিস্তিনি। রোববার (১৪ জুলাই) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা আনাদোলু।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের চলমান হামলায় আরও ১৪১ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এতে করে গত বছরের অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৮ হাজার ৫৮৪ জনে পৌঁছেছে বলে রোববার অবরুদ্ধ এই ভূখণ্ডের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, নিরলস এই হামলায় আরও অন্তত ৮৮ হাজার ৮৮১ জন ব্যক্তিও আহত হয়েছেন।

মন্ত্রণালয় বলেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ইসরায়েলি বাহিনীর করা তিনটি ‘গণহত্যায়’ ১৪১ জন নিহত এবং আরও ৪০০ জন আহত হয়েছেন। অনেক মানুষ এখনও ধ্বংসস্তূপের নিচে এবং রাস্তায় আটকা পড়ে আছেন কারণ উদ্ধারকারীরা তাদের কাছে পৌঁছাতে পারছেন না।

মূলত গাজায় অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির দাবি জানিয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব সত্ত্বেও ইসরায়েল অবরুদ্ধ এই ভূখণ্ডে তার নৃশংস আক্রমণ অব্যাহত রেখেছে।

উল্লেখ্য, গত ৭ অক্টোবর হামাসের নজিরবিহীন আন্তঃসীমান্ত হামলার পর থেকে ইসরায়েল গাজা উপত্যকায় অবিরাম বিমান ও স্থল হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। ইসরায়েলি এই হামলায় হাসপাতাল, স্কুল, শরণার্থী শিবির, মসজিদ, গির্জাসহ হাজার হাজার ভবন ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়ে গেছে।

এছাড়া ইসরায়েলি আগ্রাসনের কারণে প্রায় ২০ লাখেরও বেশি বাসিন্দা তাদের বাড়িঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন।

মূলত ইসরায়েলি আক্রমণ গাজাকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করেছে। জাতিসংঘের মতে, ইসরায়েলের বর্বর আক্রমণের কারণে গাজার প্রায় ৮৫ শতাংশ ফিলিস্তিনি বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। আর খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি এবং ওষুধের তীব্র সংকটের মধ্যে গাজার সকলেই এখন খাদ্য নিরাপত্তাহীন অবস্থার মধ্যে রয়েছেন।

এছাড়া অবরুদ্ধ এই ভূখণ্ডের ৬০ শতাংশ অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়ে গেছে। ইসরায়েল ইতোমধ্যেই আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে গণহত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছে।


গাজা   ফিলিস্তিনি   ইসরায়েল   নিহত   আহত   হামলা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

নির্বাচনী প্রচারে গুগল বিজ্ঞাপনে ১৬২ কোটি টাকা ব্যয় বিজেপির

প্রকাশ: ০৮:১৮ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

ভারতের সর্বশেষ লোকসভা নির্বাচনে সবগুলো দলই ব্যাপক প্রচার কার্যক্রম চালিয়েছিল। তবে ক্ষমতাসীন বিজেপি ছিল প্রচারে সবচেয়ে এগিয়ে। গুগল বিজ্ঞাপনেই তারা খরচ করেছে ১১৬ কোটি রুপি, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ১৬২ কোটি টাকারও বেশি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ওয়ার এর এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২৪ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে মে মাসের মধ্যে বিজেপি গুগলে ভিডিও এবং ইমেজ ফরম্যাটে ১ লাখ ৮৪ হাজার ২৪৭টি বিজ্ঞাপন দিয়েছে। এর মধ্যে বেশি জোর দেওয়া হয় ভিডিও বিজ্ঞাপনগুলিতে। এজন্য ৮৮ কোটি রুপি খরচ করে বিজেপি। সেই তুলনায় ইমেজ ফরম্যাটে কম টাকার বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়। এজন্য খরচ হয়েছে ২৮ কোটি রুপি।

তবে ডিজিটাল মাধ্যমে এত বিপুল প্রচারেও সাড়া পায়নি বিজেপি। এবারে তাদের প্রচারে মূল স্লোগান ছিল ‘ইস বার চারস পার’ অর্থাৎ এবার ৪০০ আসনের বেশি অর্জন ছিল তাদের ঘোষণা। অথচ বিজেপি এবার ২৫০ আসনও নিশ্চিত করতে পারেনি।

অন্যদিকে ডিজিটাল মাধ্যমে বিজ্ঞাপনের জন্য ৩৯ কোটি রুপি খরচ করে কংগ্রেস। তাদের ৪০টি ভিডিও বিজ্ঞাপন ১ কোটি ভিউ হয়। মোট ৩ হাজার ৮১১টি বিজ্ঞাপন দেয় তারা। তবে বিজেপির ১৪০টি ভিডিও বিজ্ঞাপন ১ কোটি ভিউয়ের মাইলফলক অতিক্রম করেছে। সেই তুলনায় কংগ্রেসের ভিডিওর ওয়াচ টাইম ছিল অনেক কম।

তবে মূল লড়াইয়ে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইন্ডিয়া জোট ছিল লোকসভায় দারুণ সফল। নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপির একক ক্ষমতা ঠেকিয়ে দিয়েছে তারা।


নরেন্দ্র মোদী   গুগল বিজ্ঞাপন   কংগ্রেস   বিজেপি  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

চাকরি পেতে টি-শার্টে জীবনবৃত্তান্ত ছেপে ঘুরছেন যুবক

প্রকাশ: ০৮:১৫ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

চাকরি পেতে এবার অভিনব পন্থা অবলম্বন করেছেন চীনের এক যুবক। সদ্য স্নাতক পাস করা সং জিয়ালি নিজের টি-শার্টে জীবনবৃত্তান্ত ছাপিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরেছেন। পরে অবশ্য কাজে এসেছে  ২১ বছর বয়সী জিয়ালির এই বুদ্ধি।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, চীনের হুবেই প্রদেশের উহান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সদ্য স্নাতক পাস করেছেন জিয়ালি। স্নাতকোত্তরের পড়াশোনা শুরুর আগে তিনি যেকোনো প্রতিষ্ঠান থেকে ইন্টার্নশিপ করতে চেয়েছিলেন। এজন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আবেদন করেও সাড়া  না পেয়ে একরকম হতাশ হয়ে পড়েন এই যুবক।

এই পরিস্থিতিতে তার মাথায় নতুন এক বুদ্ধি আসে। পণ্য বিক্রি করতে অনেকের পোশাকে বিজ্ঞাপন ছেপে রাস্তায় ঘুরা দেখে তিনি চিন্তা করেন, চাকরি পেতেও একই কাজ করা যায়। সেই ভাবনা থেকেই একই পথে হাঁটেন জিয়ালি। পোশাকে নিজের জীবনবৃত্তান্ত ছেপে রাস্তায় বের হন তিনি। যেখানে টি-শার্টের সামনের অংশে লেখা, ‘২০২৪ সালের একজন শিক্ষার্থী চাকরি খুঁজছেন। বিস্তারিত জানতে পেছনে দেখুন।’ আর পেছনে ছাপা ছিল তার জীবনবৃত্তান্ত। এতে নিজের নাম, ছবি, বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম, পড়াশোনার বিষয় এবং শিক্ষার্থী হিসেবে তার নানা কর্মকাণ্ডের হিসাব লেখার পাশাপাশি একটি কিউআর কোডও যুক্ত করেন জিয়ালি। 

কিউআর কোডের পাশে লিখে রাখেন, ‘মানবসম্পদ বিভাগের যাদের আমার এই কৌশল ভালো লেগেছে, তারা কিউআর কোড স্ক্যান করে যোগাযোগ করতে পারেন।’ পাশাপাশি তিনি মজা করে লেখেন, ‘জীবনসঙ্গী খোঁজার মতোই চাকরি খোঁজা কঠিন।’

সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, জিয়ালির এই বুদ্ধি শেষ পর্যন্ত কাজে এসেছে। দেশটির বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এই যুবকের সঙ্গে যোগাযোগ করে। পরে পোশাক খাত নিয়ে কাজ করা একটি প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপের কাজ শুরু করেছেন ওই যুবক।


চীন   টি-শার্ট   জীবনবৃত্তান্ত  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

আহত ট্রাম্পকে সহানুভূতি জানালেন শি জিনপিং

প্রকাশ: ০৬:৫৭ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় সমবেদনা ও সহানুভূতি প্রকাশ করেছেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং।

স্থানীয় সময় শনিবার (১৩ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের বাটলারে ট্রাম্পের নির্বাচনী জনসভায় গুলি চালান থমাস ম্যাথিউ ক্রুকস নামের এক ব্যক্তি। এতে ট্রাম্প বেঁচে যান কিন্তু তার ডান কান ফুটো হয়ে গুলি বেরিয়ে যায়। কানে আঘাতের কারণে বেশ রক্তক্ষরণ হলেও বর্তমানে নিরাপদ ও সুস্থ আছেন তিনি। তবে সিক্রেট সার্ভিস এজেন্টদের পাল্টা গুলিতে মারা যান ট্রাম্পকে হত্যাচেষ্টাকারী ম্যাথিউ।

প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর ওপর হামলার ঘটনায় হতবাক গোটা বিশ্ব। এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকারপ্রধান ও রাষ্ট্রনেতারা।

এরই ধারাবাহিকতায় চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘ট্রাম্পের ওপর হামলার ঘটনায় বেইজিং উদ্বিগ্ন। আর প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ট্রাম্পের প্রতি সহানুভূতি জানিয়েছেন।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনাকে চীন নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।’

ট্রাম্পের ওপর এ হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে সহিংসতার কোন জায়গা নেই।’

এছাড়াও এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন মার্কিন স্পিকার মাইক জনসন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো, ইতালির প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনি, যুক্তরাজ্যের নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী কিয়ার স্টারমার ও  ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁসহ অনেকে।


ট্রাম্প   শি জিনপিং   হামলা   আহত   সহানুভূতি  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ট্রাম্পকে গুলি করা বন্দুকধারী রিপাবলিকান পার্টির নিবন্ধিত ভোটার

প্রকাশ: ০৪:৪০ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

নির্বাচনী প্রচারণায় সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর গুলি চালানো টমাস ম্যাথিউ ক্রুকস রিপাবলিকান পার্টির নিবন্ধিত ভোটার ছিলেন।

রোববার (১৪ জুলাই) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া অঙ্গরাজ্য পর্যায়ের একটি ভোট-সংক্রান্ত নথিতে দেখা গেছে, টমাস ম্যাথিউ ক্রুকসের জন্ম ২০০৩ সালের ২০ সেপ্টেম্বর। ওই নথি অনুযায়ী, তিনি ট্রাম্পের রিপাবলিকান পার্টির নিবন্ধিত একজন ভোটার। সেই সঙ্গে ভোটার স্ট্যাটাসের ঘরে ক্রুকসকে ‘সক্রিয়’ হিসেবে লেখা হয়েছে।

শনিবার (১৩ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যে নির্বচনী প্রচার সমাবেশে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে লক্ষ্য করে গুলি করা হয়। গুলির শব্দ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ট্রাম্প মঞ্চে বসে পড়েন। পরে গোয়েন্দা সংস্থার তাকে টেনে তুললে তার কান ও মুখমণ্ডল দিয়ে রক্ত ঝরতে দেখা যায়। পরে ট্রাম্প উঠে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন তখন ট্রাম্প মুষ্টিবদ্ধ হাত ওপরে তুলে বলে ওঠেন, ‘ফাইট, ফাইট, ফাইট!

প্রত্যক্ষদর্শী হামলার ঘটনার বর্ণনায় বলেছেন, ট্রাম্পের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সিক্রেট সার্ভিস টিম মুহূর্তের মধ্যে গুলি করে হামলাকারীর মাথা উড়িয়ে দিয়েছিল।

এদিকে দেশটির কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা (এফবিআই) জানিয়েছে, হামলাকারীর ২০ বছর বয়সী থমাস ম্যাথিউ ক্রুকস। বিবিসির খবর বলছে, হামলাকারী ক্রুকস পেনসিলভানিয়ার বেথেল পার্ক এলাকার বাসিন্দা। বাটলার থেকে এই শহরের দূরত্ব ৭০ কিলোমিটার। গুলির এই ঘটনাকে হত্যাচেষ্টা ধরে তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছে সিক্রেট সার্ভিস।

এতো নিরাপত্তার মধ্যে কিভাবে এমন হামলার ঘটনা ঘটলো তা নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়েছে, ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর হামলাকারী যুবকের দিকে আগে থেকেই নজর ছিল স্নাইপারের। তাহলে কেন এই ঘটনা ঘটল? কেন আগেই শুটারকে থামানো গেল না।

মার্কিন প্রশাসন সূত্রে খবর, ট্রাম্প যেখানে দাঁড়িয়ে বক্তব্য দিচ্ছিলেন, তার থেকে মাত্র দেড়শো মিটার দূরে ছিলেন হামলাকারী। একটি এক তলা বাড়ির ছাদে উঠে গুলি চালান তিনি। জোসেফ নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী যুবক বলেন, আমি পর পর অনেকগুলো গুলির শব্দ শুনতে পেয়েছিলাম। আমার পাশের এক ব্যক্তি গুলি খেয়ে লুটিয়ে পড়েন। তার ঠিক মাথায় গুলি লেগেছিল। আর এক মহিলাকেও দেখলাম বসে পড়তে। তার হাতে গুলি লেগেছে।

বিবিসিকে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, তিনি হামলাকারীকে বন্দুক হাতে এক তলা বাড়ির ছাদে উঠতে দেখেছিলেন। তিনিই চিৎকার করে নিরাপত্তা বাহিনীকে সতর্ক করেন। কিন্তু তার আগেই ট্রাম্পকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়ে দেন। তবে তিনি লক্ষ্যভ্রষ্ট হন।

প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, সিক্রেট সার্ভিস টিম হামলাকারীর মাথা গুলি করে। তার পর তারা হামাগুড়ি দিয়ে ছাদে উঠেছিল। হামলাকারীর মৃত্যু নিশ্চিত করতে বন্দুক তাক করেই এগোচ্ছিল টিম। কিন্তু ততক্ষণে হামলাকারীর মৃত্যু হয়েছিল।


ডোনাল্ড ট্রাম্প   রিপাবলিকান পার্টি   নিবন্ধিত ভোটার   বন্দুকধারী  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন