ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

আরও একটি স্নায়ুযুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে বিশ্ব?

প্রকাশ: ১১:০০ এএম, ২৬ মার্চ, ২০২৩


Thumbnail

পৃথিবীর ইতিহাসে ঘটে যাওয়া দুটি ভয়াবহ বিশ্বযুদ্ধের পর বিশেষ করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকেই স্নায়ু যুদ্ধের সূচনা হয়েছিল। ইতিহাসের পাতায় স্নায়ু যুদ্ধের সময়কালটা ছিল ১২ মার্চ ১৯৪৭ থেকে ২৬ ডিসেম্বর ১৯৯১ পর্যন্ত। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার শীতল যুদ্ধের ফলে বিশ্বে এর নানা রকম প্রভাব দেখা গেছে। বলা যায় পৃথিবীর ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ অনেক ঘটনায় ঘটেছে এই সময়টায়।

সোভিয়েতের পতনের পর থেকে স্নায়ু যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটলেও বর্তমানে চীন-রাশিয়ার ক্রমবর্ধমান গভীর হওয়া সম্পর্কের পরিণতি শেষ পর্যন্ত স্নায়ু যুদ্ধে রুপ নিতে পারে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

আধুনিক ইতিহাসের সবচেয়ে সহিংস দুটি বিপ্লবের উত্তরাধিকারীরা মস্কোতে একটি সাম্প্রতিক বৈঠকে হাত মিলিয়েছেন এবং তাদের ‘নতুন যুগের জন্য সমন্বয়ের ব্যাপক কৌশলগত অংশীদারিত্ব’ নিয়ে আলোচনা করেছেন। চীনা কমিউনিস্ট পার্টির চেয়ারম্যান শি জিনপিং এবং রাশিয়ার ভ্লাদিমির পুতিনের মধ্যে এই সম্পর্ক নিয়ে পশ্চিমের অনেকেই বিভ্রান্ত হয়েছেন। কেউ কেউ কল্পনা করেছেন, উদাহরণস্বরূপ, শি ইউক্রেনে পুতিনের যুদ্ধে একটি নিরপেক্ষ পক্ষ হবেন, বা তিনি এমনকি শান্তিপ্রণেতাও হতে পারেন।

কিন্তু কয়েক দশক ধরে শান্তিকালীন বিশ্বায়নের পর একটি সমস্যাজনক নতুন অংশীদারিত্ব অপ্রত্যাশিতভাবে আবির্ভূত হয়েছে তা কল্পনা করার পরিবর্তে বিশ্বের সঙ্গে রাশিয়া এবং চীনের ভাগাভাগি দ্বন্দ্ব বোঝার জন্য আমাদের ইতিহাসের দীর্ঘ বৃত্তের দিকে তাকাতে হবে।

ইউক্রেনে পুতিনের আক্রমণকে চীনের অর্থনৈতিক শক্তির দ্বারা প্রকাশ্যে সমর্থিত করা হচ্ছে বলেও কেউ কেউ মনে করছেন। এই যুদ্ধকে বিশ্লেষকরা বলছেন পুনরুদ্ধার করা রাশিয়া-চীন অক্ষের প্রথম ভূ-রাজনৈতিক পণ্য এবং দুটি রাষ্ট্রের প্রত্যাবর্তন যাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা স্নায়ু যুদ্ধ-পরবর্তী শান্তি দ্বারা কখনো পূরণ হয়নি। আবারও, বিশ্বের গণতন্ত্রগুলো ইউরোপ এবং এশিয়া উভয় দেশেই এই দুই স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে তাদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সংগঠিত করার চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি।

১৯৫০ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের উপস্থাপিত স্নায়ু যুদ্ধের চ্যালেঞ্জের চারপাশে আমেরিকান গ্র্যান্ড স্ট্র্যাটেজি সমন্বয় করতে শুরু করলে মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের আধিকারিক পল নিটজে অভ্যুত্থানের সময়কাল ব্যাখ্যা করেছিলেন যা তার প্রজন্মের আন্তর্জাতিক বিষয়গুলির অভিজ্ঞতাকে সংজ্ঞায়িত করেছিল। তার মতে, বিগত পঁয়ত্রিশ বছরের মধ্যে বিশ্ব প্রচণ্ড সহিংসতার দুটি বৈশ্বিক যুদ্ধের সম্মুখীন হয়েছে। এছাড়াও রুশ এবং চীনা বিপ্লবের মতো দুটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছে বিশ্ব। এর মধ্যে অটোমান, অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান, জার্মান, ইতালীয় এবং জাপানি, এই পাঁচটি সাম্রাজ্যের পতনও দেখা গেছে এবং সেইসঙ্গে দুটি প্রধান সাম্রাজ্য ব্যবস্থা, ব্রিটিশ এবং ফরাসিদের তীব্র পতন উল্লেখযোগ্য।

নিটজে এমন একটি বিশ্ব পর্যবেক্ষণ করেছেন যেখানে ‘ক্ষমতার আন্তর্জাতিক বন্টন মৌলিকভাবে পরিবর্তিত হয়েছে।’ এই পরিবর্তন এবং অস্থিরতার কারণগুলির মধ্যে ছিল দুটি বিপ্লব যা তিনি বিজ্ঞতার সঙ্গে স্বীকার করেছিলেন। সেগুলো অবশ্যই রুশ এবং চীনা। দুটি বিপ্লব যার পরিণতি, আমাদের এখন স্বীকার করা উচিত, পুরোপুরি শেষ হয়নি।

আমাদের নিজেদেরকে মনে করিয়ে দেওয়া উচিত যে ২১ শতকের রাশিয়া এবং চীন এবং তাদের পরিচালনাকারী নেতারা মূলত রুশ এবং চীনা বিপ্লবেরই পণ্য যা নিটজ বুঝতে পেরেছিলেন যে তার জীবনকালের ইতিহাস এবং ভূ-রাজনীতিকে রূপ দেবে। শি এবং পুতিন, এই বিপ্লবগুলির পণ্য হিসেবে তাদের পশ্চিমা-বিরোধী ধারণা এবং সংঘাতের কৌশলগুলোর উত্তরাধিকারী।

আমেরিকান স্পাইমাস্টার জ্যাক ডিভাইন যেমন উল্লেখ করেছেন, পুতিনের কর্মজীবন পূর্ব জার্মানির ড্রেসডেনে রূপ নিয়েছিল, ওয়ারশ চুক্তি বিশ্বে আবদ্ধ ছিল এবং তিনি সোভিয়েত সাম্রাজ্যের পতনকে ‘২০ শতকের সর্বশ্রেষ্ঠ ভূ-রাজনৈতিক বিপর্যয়’ বলে অভিহিত করেছেন। এখন, চীনা কমিউনিস্ট পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে শি তার উত্তরাধিকারী যাকে পার্টি ‘চীনা জাতির মহান পুনর্জাগরণ’ বলে অভিহিত করে, জাতীয় পুনরুজ্জীবনের একটি প্রকল্প যা মাও সে তুংয়ের ‘নয়া চীন’ থেকে উদ্ভূত হয়েছিল এবং বিভিন্ন রূপে অব্যাহত রয়েছে।

শির চীন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দ্বন্দ্ব এবং ‘বিশ্বের কেন্দ্রস্থলে’ চীনের সঙ্গে একটি নতুন আদেশ প্রতিষ্ঠা করতে চায়। এই প্রচেষ্টায় পুতিনের রাশিয়া হল শির প্রধান সহযোগী এবং ‘কৌশলগত অংশীদার।’

২০ শতকে সর্বগ্রাসী কমিউনিস্ট রাষ্ট্র হিসেবে, রাশিয়া এবং চীন বিশ্বের গণতন্ত্রকে চ্যালেঞ্জ করেছিল এবং তাদের নিজস্ব একটি শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেছিল। দশকব্যাপী চীন-সোভিয়েত জোট কোরিয়ান যুদ্ধ এবং একাধিক তাইওয়ান সংকটকে ছড়িয়ে দিয়েছে, যা ইউরোপ এবং এশিয়া উভয় অঞ্চলে বিস্তৃত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের জন্য একটি দ্বি-থিয়েটার কৌশলগত চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মাত্র আটলান্টিক এবং প্রশান্ত মহাসাগরে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে লড়েছে, সম্ভবত একটি দুই-থিয়েটার কৌশলগত প্রতিযোগিতা পরিচালনা করার জন্য আরও প্রস্তুত ছিল।

কমিউনিস্ট চীন এবং সোভিয়েত ইউনিয়ন উভয়ের একযোগে নিয়ন্ত্রণ তাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষার বিরুদ্ধে একটি চেক প্রদান করেছিল। চীন-সোভিয়েত জোট শেষ পর্যন্ত টেকসই হয়ে ওঠে এবং অনেকাংশে ভেঙ্গে যায় কারণ মাও চীনকে বিশ্বব্যাপারে একটি ক্ষমতা ও কেন্দ্রিয়তার অবস্থানে ফিরিয়ে দিতে চেয়েছিলেন; তিনি মস্কোর জুনিয়র পার্টনার হিসেবে ভূমিকা সহ্য করবেন না।

আজ এই ভূমিকাগুলি বিপরীত হয়েছে এবং এই উচ্চাকাঙ্ক্ষাগুলি পুনরুদ্ধার করা হয়েছে। কমিউনিস্ট মতাদর্শের নামে নয়, একটি আক্রমণাত্মক, সামরিক জাতীয়তাবাদের আলোকে যা উভয় শাসনকে সক্রিয় করে।

শি এবং পুতিন ইউক্রেনে পুতিনের আক্রমণের কয়েক সপ্তাহ আগে ২০২২ সালে বেইজিং অলিম্পিকে অংশীদারিত্বের যৌথ ঘোষণায় তাদের সম্পর্কের দার্শনিক গভীরতা এবং রূপ বিশ্বকে দেখিয়েছিলেন। কিন্তু কৌশলগত অংশীদারিত্ব আরও আগেই শুরু হয়েছে।

২০১০ এর দশক জুড়ে উভয় দেশ তাদের সামরিক, অর্থনৈতিক এবং কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রসারিত করার জন্য কাজ করেছে। বেইজিং অলিম্পিকের বিবৃতিতে চীন এবং রাশিয়া একে অপরের ‘মূল স্বার্থের’ জন্য পারস্পরিক সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। তাইওয়ানের ওপর বেইজিংয়ের দাবির প্রতি মস্কো তার সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, যাকে এটি ‘চীনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ’ বলে অভিহিত করেছে এবং বেইজিং প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে ‘উভয় পক্ষই ন্যাটোর আরও বিস্তৃতির বিরোধিতা করে এবং উত্তর আটলান্টিক জোটকে তার আদর্শিক স্নায়ু যুদ্ধের পন্থা পরিত্যাগ করার আহ্বান জানায়।’

যৌথ পারমাণবিক সক্ষম বোমারু বিমানের মহড়া, স্থল ও নৌ মহড়া, শক্তি, প্রযুক্তিতে বাণিজ্য বৃদ্ধি, মস্কোর জন্য চীনের প্রচার সমর্থন এবং রাশিয়ার জন্য চীনা অ্যাসল্ট রাইফেল এবং বডি আর্মারের নতুন প্রতিবেদন, পুতিনের ইউক্রেন আক্রমণের পর থেকে যা রূপ নিয়েছে তার কিছু উপাদান মাত্র।

ইউরোপ এবং এশিয়ার ভাগ করা চীন-রাশিয়া বিভাগ চীন-সোভিয়েত জোটের মূল ভূগোলকে স্মরণ করিয়ে দেয়। স্তালিন যেমন কমিউনিস্ট চীনে তার সমকক্ষদের বলেছিলেন, ‘আমাদের মধ্যে শ্রমের কিছু বিভাজন হওয়া উচিত... আপনি পূর্বে কাজ করার জন্য আরও দায়িত্ব নিতে পারেন... এবং আমরা পশ্চিমে আরও দায়িত্ব নেব।’

ইউক্রেনে পুতিনের যুদ্ধই একমাত্র সংঘাত নয়, অবশ্যই এই অক্ষটি সংঘাত তৈরিও করতে পারে। স্নায়ুযুদ্ধ-পরবর্তী সময়ে গণতন্ত্রের সঙ্গে চীনের অর্থনৈতিক সম্পৃক্ততা একটি আধুনিক গণপ্রজাতন্ত্রী চীনকে সুপারচার্জ করেছে যেটি এখন সমালোচনামূলক প্রযুক্তি এবং কৌশলগত শিল্পে বিশ্বের গণতন্ত্রের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে এবং এশিয়ায় অতুলনীয় সুযোগের একটি সামরিক বাহিনী গড়ে তুলেছে যা প্রশান্ত মহাসাগরে এর নিজস্ব সক্ষমতা দেখাতে পারে। এটি হলো বিংশ শতাব্দীর বিরোধীদের প্রত্যাবর্তন যাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা সত্যিকার অর্থে চলে যায়নি।


চিন   রাশিয়া   যুক্তরাষ্ট্র   স্নায়ুযুদ্ধ  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

রাখাইনের নিয়ন্ত্রণ হারানোর পথে মিয়ানমার জান্তা

প্রকাশ: ০২:৩২ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মংডুতে আরও ১০টি জান্তা ক্যাম্প দখল করেছে আরাকান আর্মি। জাতিগত সশস্ত্র গোষ্ঠীটির দাবি, শহরটিতে লড়াই চলাকালে একজন স্ট্র্যাটেজিক কমান্ডারসহ প্রায় ২০০ জান্তা সেনা নিহত হয়েছেন। থাইল্যান্ড-ভিত্তিক বার্মিজ সংবাদমাধ্যম ইরাবতি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

গত মাসে মংডুর উত্তরাঞ্চল দখলের পর সম্প্রতি দক্ষিণে সামরিক জান্তা ক্যাম্প এবং সীমান্তরক্ষী পুলিশ অবস্থানগুলোকে নিশানা করেছে আরাকান আর্মি।

মূলত, বুথিডাং শহর দখলের পর গত মে মাসের শেষের দিক থেকে মংডু শহরে বড় আকারে আক্রমণ শুরু করে সশস্ত্র গোষ্ঠীটি। দুটি শহরই বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে উত্তর-পূর্ব রাখাইন রাজ্যে অবস্থিত। এসব এলাকায় মূলত রোহিঙ্গারা বসবাস করেন।

গত শুক্রবার (১৪ জুন) এক ঘোষণায় আরাকান আর্মি দাবি করেছে, তারা এ সপ্তাহে আরও চারটি জান্তা ক্যাম্প দখল করেছে, যার মধ্যে মাওয়ায়াদ্দি স্ট্র্যাটেজিক কমান্ড বেস এবং না খাউং টো ক্যাম্পও রয়েছে।

লড়াই চলাকালে তাদের হাতে জান্তা বাহিনীর মাওয়ায়াদ্দির স্ট্র্যাটেজিক কমান্ডার কর্নেল তাইজার হতেসহ প্রায় ২০০ সেনা নিহত হয়েছেন।

গত বুধবার রাতে শহরটির প্রবেশপথে অবস্থিত সুপরিচিত জান্তা ক্যাম্প আহ লেল থান কিয়াও দখল করে আরাকান আর্মি। হামলার আগে সেখানে প্রায় ২০০ জন সেনা এবং সীমান্তরক্ষী কর্মী ছিলেন। তাদের অনেকে অন্যান্য ঘাঁটিতে পালিয়ে গেছেন বলে দাবি করা হয়েছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনী তাদের আহ লেল থান কিয়াউ ক্যাম্প এবং মাওয়ায়াদ্দি স্ট্র্যাটেজিক কমান্ড বেস উভয়কে রক্ষা করতে বিমান হামলা এবং কামানের গোলা ব্যবহার করেছিল বলে জানানো হয়েছে।

এর আগে, চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে আরাকান আর্মি ছয়টি জান্তা ঘাঁটি দখল করে, যার মধ্যে মংডু-আগনুমাউ রোডের মিন্ট লুট গ্রামের কাছে বর্ডার গার্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন নং ৯ এবং ইন দিন গ্রামে বর্ডার গার্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন নং ৬-এর সদর দপ্তরও রয়েছে।

আরাকান আর্মি বলেছে, তারা আরও কয়েকজন জান্তা সেনাকে বন্দি করেছে এবং পালিয়ে যাওয়া সেনাদের খোঁজে সন্ধান অব্যাহত রেখেছে।

বাংলাদেশি কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে ইরাবতির খবরে বলা হয়েছে, গত বৃহস্পতিবার মংডু থেকে অন্তত ২৮ জন জান্তা সেনা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

এর আগে পালিয়ে আসা মিয়ানমারের ১৩০ জনেরও বেশি নিরাপত্তাকর্মী এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের গত রোববার ফেরত পাঠায় বাংলাদেশ। তার পরেই নতুন করে এই অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটলো।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে শহর রয়েছে প্রায় ১৭টি। এর মধ্যে নয়টিরই নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার দাবি করেছে আরাকান আর্মি। গত বছরের নভেম্বর থেকে রাজ্যটিতে জান্তা বাহিনীর সঙ্গে তীব্র লড়াই চলছে তাদের। পার্শ্ববর্তী চিন রাজ্যের পালেতওয়া শহরেরও নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার দাবি করেছে জাতিগত গোষ্ঠীটি।



রাখাইন   মিয়ানমার   জান্তা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

মক্কায় হিটস্ট্রোকে ৬ হজযাত্রীর মৃত্যু

প্রকাশ: ০২:০৯ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

হজের সময় এই বছর মক্কার তাপমাত্রা ৪৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে পারে বলে আগেই সতর্ক করেছিল সৌদি কর্তৃপক্ষ। গরম কমাতে নেওয়া হয়েছিল নানা রকম ব্যবস্থাও। তারপরও হিটস্ট্রোকে অন্তত হজযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (১৫ জুন) আরাফাতের ময়দানে জড়ো হওয়ার পর, এই হজযাত্রীদের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন খবর জানিয়েছে।

নিহত সবাই জর্ডানের নাগরিক। জর্ডানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শনিবার এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। এক বিবৃতি মন্ত্রণালয় বলেছে, মৃতদের দাফন প্রক্রিয়া এবং মৃতদেহ ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে তারা জেদ্দার সৌদি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয় করছেন ।

লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’—লাখো কণ্ঠে মহান আল্লাহর প্রতি আনুগত্য প্রকাশের মধ্য দিয়ে শনিবার পবিত্র হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা পালিত হয়।

সৌদি আরবের পবিত্র মক্কা নগরীর আরাফাত ময়দানে লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশ্যে সমবেত হন। তাদের কণ্ঠে ছিল ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হাম্‌দা ওয়ান নি’মাতা লাকা ওয়াল মুল্ক, লা শারিকা লাক’ (আমি হাজির, হে আল্লাহ আমি হাজির, তোমার কোনো শরিক নেই, সব প্রশংসা ও নিয়ামত শুধু তোমারই, সব সাম্রাজ্যও তোমার)।

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা লাখ লাখ মুসল্লি পাপমুক্তি ও আত্মশুদ্ধির আকুল বাসনা নিয়ে এবার পবিত্র হজ পালন করেছেন। তারা গতকাল সূর্যোদয়ের পর মিনা থেকে ট্রেনে, বাসে ও পায়ে হেঁটে রওনা হন আরাফাতের ময়দানের দিকে। তাদের কণ্ঠে ছিল একটাই রব, ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক।’

হজের খুতবা দেন খতিব শায়েখ ড. মাহের আল মুয়াইকিলি। বিশ্বের মুসলমানদের আল্লাহকে ভয় করে চলার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এর মধ্য দিয়ে মুসলমানরা জীবনে কল্যাণ, আল্লাহর সন্তুষ্টি ও মৃত্যু–পরবর্তী জীবনে নিয়ামতপূর্ণ জান্নাত অর্জন এবং জাহান্নামের সব ধরনের শাস্তি থেকে মুক্তিলাভ করতে পারেন।

আরাফাতের ময়দানে সমবেত হয়ে হাজিরা কেউ পাহাড়ের কাছে, কেউ সুবিধাজনক জায়গায় বসে ইবাদত করেন। কেউ যান জাবালে রহমতের কাছে। আবার কেউ যান মসজিদে নামিরায় হজের খুতবা শুনতে।

মূলত ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করে হজ পালন করা হয়। এ ময়দানে উপস্থিত হওয়া হজের অন্যতম ফরজ। পবিত্র হজ ইসলামের পাঁচ স্তম্ভের একটি। আর্থিকভাবে সমর্থ ও শারীরিকভাবে সক্ষম পুরুষ ও নারীর জন্য হজ ফরজ।

সৌদির পরিসংখ্যান বিষয়ক সাধারণ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এ বছর ১৮ লাখ মানুষ সারা বিশ্ব থেকে হজ পালনে অংশ নিয়েছে।


হিটস্ট্রোক   হজযাত্রী   মক্কা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

গাজায় ৫০ হাজার শিশুর জরুরি চিকিৎসা প্রয়োজন: জাতিসংঘ

প্রকাশ: ০১:৪৮ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

গাজা উপত্যকায় ৫০ হাজারের বেশি শিশুর তীব্র অপুষ্টিজনিত জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের ত্রাণ কর্ম সংস্থা (ইউএনআরডব্লিউএ)  শনিবার (১৫ জুন) এক বিবৃতিতে সংস্থাটি তথ্য জানায়। খবর আলজাজিরার।

বিবৃতিতে ইউএনআরডব্লিউএ বলেছে, মানবিক সহায়তা প্রবেশে অব্যাহত বিধিনিষেধের কারণে গাজার বাসিন্দারা তীব্র ক্ষুধার মুখোমুখি হচ্ছে। ফলে ইউএনআরডব্লিউএ দলগুলো বিপর্যয়কর পরিস্থিতির মধ্যেও ত্রাণ নিয়ে এসব পরিবারের কাছে পৌঁছানোর জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করছে।

এছাড়া ইউনিসেফের মুখপাত্র জেমস এল্ডার আলজাজিরাকে বলেছেন, জাতিসংঘের আবির্ভাবের পর যে কোনো যুদ্ধের চেয়ে এই যুদ্ধে বেশি ত্রাণকর্মী নিহত হয়েছে।

এল্ডার বলেন, ‘বুধবার গাজায় ১০ হাজার শিশুর জন্য পুষ্টি চিকিৎসা সরবরাহভর্তি একটি ট্রাক নিয়ে যাওয়ার মিশন ছিল ইউনিসেফের। তাদের কাজ ছিল ত্রাণ দেয়া যা আগেই ইসরাইলি বাহিনীর কাছ থেকে অনুমোদন নেয়া ছিল।

তিনি বলেন, ‘ জন্য ১৩ ঘণ্টা সময় লেগেছে। আমরা তাদের আটটি চেকপয়েন্টে  ‘‘এটি একটি ট্রাক নাকি একটি ভ্যান’’- নিয়েই তর্ক করেছি।


গাজা   জাতিসংঘ   জরুরি চিকিৎসা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

পশ্চিমবঙ্গে বাড়ছে তিস্তার পানি, শঙ্কায় নদী তীরবর্তী পরিবার

প্রকাশ: ১২:৪১ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

ভারতের সিকিম রাজ্য থেকে নেমে আসা তিস্তা নদীর পানি বাড়ছে। ফলে উত্তর সিকিমে তিস্তায় পানি বেড়ে যাওয়ায় ধসের ঘটনা ঘটেছে। ইতোমধ্যে সিকিম রাজ্য সরকার নিচু এলাকার মানুষকে সরিয়ে নিয়েছে।

তিস্তার পানি বেড়ে যাওয়ায় জলপাইগুড়ির গজলডোবা তিস্তা ব্যারেজের ১ হাজার ১০০ কিউসেক পানি গতকাল শনিবার ছাড়া হয়েছে। এই গজলডোবা থেকে তিস্তা নদী বাংলাদেশে গিয়ে পড়েছে।

গজলডোবা এলাকায় তিস্তার পানি বেড়ে যাওয়ায় শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নদীর দুই পারের মানুষ। তাঁদের আশঙ্কা, সিকিম থেকে নেমে আসা তিস্তার পানিতে বন্যা দেখা দিতে পারে।

উত্তর সিকিমে বিভিন্ন পাহাড়ি এলাকায় ধস নামায় ১ হাজার ২০০ পর্যটক আটকা পড়েছেন। এই পর্যটকদের সিংহভাগ পশ্চিমবঙ্গের। তাঁদের মধ্যে বাংলাদেশের ১০ পর্যটকসহ থাইল্যান্ডের ২ জন এবং নেপালের ৩ পর্যটক রয়েছেন। তাঁদের উদ্ধারে সেনা নামানো হয়েছে।

সড়ক ও পাহাড়ের অংশে ধস নামায় পর্যটকেরা আটকা পড়েছেন। পর্যটকদের উদ্ধারে সিকিম সরকার সেনা নামিয়ে নতুন করে বেইলি ব্রিজ তৈরি করে পর্যটকদের উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

প্রবল বৃষ্টি হওয়ায় উত্তর সিকিমে রাস্তাঘাট বন্ধ হয়ে গেছে। কুয়াশার কারণে উদ্ধারকাজ ব্যাহত হচ্ছে। সিকিম সরকার ওই রাজ্যে আসা পর্যটকদের হোটেল বা যে যেখানে আছেন, সেখানে থাকার পরামর্শ দিয়েছে।

সিকিমের পর্যটনসচিব সি এস রাও বলেন, আটকে পড়া বা হোটেলে অবস্থান করা কোনো পর্যটক যেন ঝুঁকি না নেন। তাঁদের জন্য মজুত রয়েছে প্রচুর খাবার। যদিও তিস্তা বাজার থেকে দার্জিলিংয়ে যাওয়ার পেশক রোড এখনো বন্ধ রয়েছে। এ রাস্তার পাশে বিপজ্জনকভাবে বইছে তিস্তা নদী।


পশ্চিমবঙ্গ   তিস্তার পানি   শঙ্কা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

জাপানে ছড়াচ্ছে মাংসখেকো ব্যাকটেরিয়া, সংক্রমণের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই মৃত্যু

প্রকাশ: ১২:১৩ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

করোনা ভাইরাসের পর ফের উদ্বেগ ছড়াচ্ছে নতুন এক ব্যাকটেরিয়া। যা এখন জাপানজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে। মাংসখেকো এ ব্যাকটেরিয়া এতটাই মারাত্মক যে, এর সংক্রমণের পর ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই মানুষের মৃত্যু হতে পারে।

এই ব্যাকটেরিয়ার নাম গ্রুপ এ স্ট্রেপ্টোককাস (জিএএস)। এর সংক্রমণে যে রোগ সৃষ্টি হচ্ছে, তার নাম স্ট্রেপ্টোককাল টক্সিক শক সিনড্রোম।

জাপানের সংক্রামক রোগ গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ইনফেকশাস ডিজিজের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর জানুয়ারি থেকে ২ জুন পর্যন্ত দেশটিতে এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৯৭৭ জন। গত বছর এসটিএসএসে আক্রান্ত হয়েছিলেন ৯৪১ জন মানুষ। ১৯৯৯ সাল থেকে এই রোগে আক্রান্ত ও মৃত্যুর তথ্য রেকর্ড করছে।

সংক্রমণের এই ধারা অব্যাহত থাকলে এই বছরে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াবে আড়াইহাজারে। এই রোগে মৃত্যুর হার ভয়ঙ্করজনকভাবে বেশি, শতকরা ৩০ শতাংশ।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ইনফেকশাস ডিজিজের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রতি বছরই জাপানে এসটিএসসে আক্রান্ত হওয়া রোগীদের সংখ্যা বাড়ছে।

এই ব্যাকটেরিয়াটির বিভিন্ন প্রজাতি রয়েছে। কিছু কিছু প্রজাতির মূলত শিশুদের আক্রান্ত করে। এতে আক্রান্ত শিশুর গলা ফুলে যায়, সঙ্গে ব্যথাও থাকে। তবে কিছু প্রজাতি মূলত ৫০ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সী লোকজনকে আক্রমণ করে ।

এসব প্রজাতির সংক্রমণ ঘটলে প্রথমে গলা ব্যথা এবং পরে মাংসপেশীতে ব্যথা শুরু হয়। হাত-পা-মুখ ফুলে যায়, রক্তচাপ নেমে আসে এবং একপর্যায়ে মাংশপেশিতে পচন ধরে, শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা হয়, অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিকল হয়ে পড়ে এবং রোগীর মৃত্যু ঘটে।

টোকিও উইম্যান্স মেডিকেল ইউনিভার্সিটির সংক্রামক রোগ বিভাগের অধ্যাপক কেন কিকুচি বলেন, এসব লক্ষণ দেখা দিলে একজন রোগীর ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে মৃত্যু হতে পারে।

এই রোগের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা পেতে হাত পরিষ্কার রাখা এবং শরীরের যে কোনো ক্ষতস্থান খোলা অবস্থায় না রাখার পরামর্শ দিয়েছেন অধ্যাপক কেন কিকুচি। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া


মাংসখেকো   ব্যাকটেরিয়া   মৃত্যু  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন