ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

ড. মুহাম্মদ ইউনূস : মুখোশের আড়ালে আসল মানুষটি!

প্রকাশ: ০৪:১৬ পিএম, ০২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩


Thumbnail ড. মুহাম্মদ ইউনূস : মুখোশের আড়ালে আসল মানুষটি!

বাংলাদেশের প্রথম নোবেল জয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস। ১৯৭৬ সালে তিনি গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেন। যার মাধ্যমে তিনি এবং গ্রামীণ ব্যাংক যৌথভাবে ২০০৬ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কার লাভ করেন। নোবেল পুরস্কার প্রাপ্তির পর থেকেই মুহম্মদ ইউনূস বিভিন্ন বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। ২০০৬ সালে তিনি নিজে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন। ওয়ান ইলেভেন আনার পেছনেও তার একটি ভূমিকা আছে বলে অনেকে মনে করেন। কিন্তু বর্তমানে তিনি একাধিক ফৌজদারী আইনী জটিলতায় পড়েছেন। তার বিরুদ্ধে শ্রম আইন লঙ্ঘন ও দুর্নীতির বেশ কয়েকটি মামলা চলমান রয়েছে। নিজে দুর্নীতির দায় থেকে বাঁচার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে বিবৃতি সংগ্রহ করেছেন। ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে নিয়ে ইতিমধ্যে বিশ্বের নোবেল বিজয়ী বিভিন্ন ব্যক্তি এবং নেতারা তার বিচার কার্যক্রম স্থগিত করার জন্য বিবৃতি দিয়েছেন। তার বিচার স্থগিতের জন্য প্রভাবশালী অন্তর্জাতিক মহল থেকে সরকারের উপর চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। কিন্তু বিশ্বের সেই খ্যাতিমান ব্যক্তি এবং নেতারা জানেন কি মুখোশের অন্তরালের মানুষটিকে? 

অন্তরালের অন্তর্নিহিত বার্তা  

ড. মুহাম্মদ ইউনূস। দেশের সমস্যা নিয়ে তিনি নীরব। দেশের কোন সংকটে, উৎসবে তিনি থাকেন না। ব্যক্তি স্বার্থে বিদেশে তিনি সরব। ক্ষুদ্র ঋণের মাধ্যমে দারিদ্রকে জাদুঘরে পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন। দারিদ্র জাদুঘরে যায়নি বটে, তবে তিনি অর্থ, বিত্ত-বৈভবের জাদু দেখিয়েছেন। এখন ‘সামাজিক ব্যবসার’ আওয়াজ তুলে বিশ্বে বক্তৃতা দিচ্ছেন। সামাজিক ব্যবসা প্রবর্তন হোক না হোক তার বিত্তের প্রসার ঘটেছে। এখন শিক্ষক থেকে তিনি হয়ে উঠেছেন বিলিয়নিয়ার। কিন্তু তার এই বিত্ত বেড়ে ওঠেছে গরীবের সম্পদ লুটে; সরকারকে ঠকিয়ে; রাষ্ট্রীয় সম্পদ আত্মসাৎ করে। 

ড. মুহাম্মদ ইউনূস। পেশাগত জীবনে অর্থনীতিবিদ হলেও নোবেল বানিয়ে নিয়েছেন শান্তিতে। অর্থনীতিবিদ কিভাবে শান্তিতে নোবেল পেলেন সেটাও ভাবার বিষয়। নোবেল বিজয়ী হিসেবে বিদেশে বক্তৃতা করে পান কোটি কোটি টাকা। কিন্তু প্রশ্ন ওঠেছে, দেশ এবং জাতির জন্য তিনি কি করেছেন? জোবরা গ্রামে গবেষণা শুরু করেছিলেন ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম নিয়ে। এক সময় এই দরিদ্র, হতদরিদ্র মানুষদের স্বাবলম্বী করে তোলার কথা বলে দারস্থ হয়েছিলেন বাংলাদেশ সরকারের কাছে। ড. মুহাম্মদ ইউনূসের প্রস্তাবেই এরশাদ সরকার গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করে। ড. ইউনূস সেখানে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের চাকরি নেন। ১৯৮৩ সালে এটি একটি বৈধ এবং স্বতন্ত্র ব্যাংক হিসেবে যাত্রা শুরু করে। সরকার গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করে একটি আইনের মাধ্যমে এবং সেখানে ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় ড.  মুহাম্মদ ইউনূসকে। 

১৯৮৩ সালের ৪ সেপ্টেম্বর সরকার গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ নামে একটি অধ্যাদেশ (অধ্যাদেশ নম্বর-৪৬) জারি করে। সে সময়ে গ্রামীণ ব্যাংক শুরু হয় মাত্র তিন কোটি টাকা মূলধন দিয়ে। এর মধ্যে বেশিরভাগ টাকা অর্থাৎ ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা ছিল সরকারের এবং ১ কোটি ২০ লাখ টাকা ছিল ঋণ গ্রহীতাদের। অর্থাৎ গ্রামীণ ব্যাংকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ব্যক্তিগত কোনো টাকা ছিল না। অথচ গ্রামীণ ব্যাংককে ব্যবহার করেই ড. ইউনূস পেয়েছেন সবকিছু। কাগজে কলমে গ্রামীণ ব্যাংকের মালিক সরকার এবং ঋণ গ্রহীতা জনগণ। কিন্তু ‘অসাধারণ’ মেধায় রাষ্ট্র ও জনগণের অর্থ ড. ইউনূস পুরে ফেলেন তার পকেটে। গ্রামীণ ব্যাংকের টাকায় ড. মুহাম্মদ ইউনূস গড়ে তুলেছেন তার নিয়ন্ত্রণাধীন ২৮টি প্রতিষ্ঠান এবং গ্রামীণ ব্যাংক তথা সরকারের টাকা আত্মসাৎ করে তিনি এখন হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। 

গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠার পর থেকেই দাতা গোষ্ঠী অনুদান এবং ঋণ দেয় গ্রামীণ ব্যাংককে। অনুদানের সব অর্থ যদি রাষ্ট্র এবং জনগণের কাছে যায় তাহলে ড. ইউনূসের লাভ কি? তাই দাতাদের অনুদানের অর্থ দিয়ে গঠন করলেন সোশাল ভেনচার ক্যাপিটাল ফান্ড (এসভিসিএফ)। ১৯৯২ সালের ৭ অক্টোরব ঐ ফান্ড দিয়ে আলাদা একটি প্রতিষ্ঠান গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ১৯৯৪ সালে ‘গ্রামীণ ফান্ড’ নামের একটি লিমিটেড কোম্পানী গঠন করা হয়। তাতে ঐ ফান্ডের ৪৯ দশমিক ১০ কোটি টাকা স্থানান্তর করা হয়। গ্রামীণ ব্যাংক দেখিয়ে বিদেশ থেকে টাকা এনে তা সরিয়ে ফেলার চেষ্টা ছিলো শুরু থেকেই। গ্রামীণ ব্যাংক সরকারি প্রতিষ্ঠান হলেও ড. ইউনূস- এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে সব সিদ্ধান্ত একাই নিতেন। পরিচালনা পর্ষদ এমনভাবে গঠন করা হয়েছিল, যাতে কেউ ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে কথা না বলেন। ড. ইউনূস এই সুযোগটি কাজে লাগান। ১৯৯৩ সালের ১৯ ডিসেম্বর গ্রামীণ ব্যাংকের ৩৪ তম বোর্ড সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঐ সভায় সিদ্ধান্ত হয় দাতা গোষ্ঠীর অনুদানের অর্থ এবং ঋণ দিয়ে সোশাল এডভান্সমেন্ট ফান্ড (এসএএফ) গঠন করা হয়। কিন্তু দাতারা গ্রামীণ ব্যাংক থেকে এভাবে অর্থ সরিয়ে ফেলার আপত্তি জানায়। দাতারা সাফ সাজিয়ে দেন, এভাবে অর্থ স্থানান্তর জালিয়াতি। এবার ভিন্ন কৌশল গ্রহণ করেন ড. ইউনূস। আনুষ্ঠানিক চিঠি দিয়ে তিনি জানান এটি একটি ভুল সিদ্ধান্ত। ভবিষ্যতে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকবেন বলে অঙ্গীকার করেন তিনি। পরে ২৫ এপ্রিল, ১৯৯৬ সালে তিনি গ্রামীণ ব্যাংকের বোর্ড সভায় ‘গ্রামীণ কল্যাণ’ গঠনের প্রস্তাব আনেন। 

প্রস্তাবে বলা হয়, গ্রামীণ ব্যাংকের সদস্য ও কর্মীদের কল্যাণে ‘কোম্পানী আইন ১৯৯৪’ এর আওতায় ‘গ্রামীণ কল্যাণ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান গঠন করা হলো। গ্রামীণ ব্যাংকের বোর্ড সভা এই প্রস্তাব অনুমোদন করে। এটি গ্রামীণ ব্যাংকেরই অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। ‘গ্রামীণ কল্যাণ’ যে গ্রামীণ ব্যাংকেরই শাখা প্রতিষ্ঠান, তা আরও স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয় এর মূলধন গঠন প্রক্রিয়ায়। গ্রামীণ কল্যাণ-এ গ্রামীণ ব্যাংকের সোশাল এডভ্যান্সমেন্ট ফান্ড (এসএএফ) থেকে ৬৯ কোটি টাকা প্রদান করা হয়। গ্রামীণ কল্যাণের মেমোরেন্ডাম অব আর্টিকেলেও গ্রামীণ ব্যাংকের সাথে এর সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ মেলে। মেমোরেন্ডাম আব আর্টিকেল অনুযায়ী গ্রামীণ কল্যাণের ৯ সদস্যের পরিচালনা পরিষদের ২ জন সদস্য হবেন গ্রামীণ ব্যাংকের মনোনীত প্রতিনিধি। এছাড়াও গ্রামীণ কল্যাণের চেয়ারম্যান হবেন গ্রামীণ ব্যাংকের মনোনীত প্রতিনিধি। গ্রামীণ ব্যাংকের মনোনীত প্রতিনিধি হিসেবে ড. ইউনূস গ্রামীণ কল্যাণের চেয়ারম্যান হন। এরপরে ‘গ্রামীণ কল্যাণ’ হয়ে ওঠে ড. ইউনূসের ‘সোনার ডিম পাঁড়া রাঁজহাস’। গ্রামীণ কল্যাণের মাধ্যমে তিনি গড়ে তোলেন একাধিক প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানগুলো হলো:-

১.গ্রামীণ টেলিকম লি: ২. গ্রামীণ ডিস্ট্রিবিউশন লি: ৩. গ্রামীণ শিক্ষা ৪. গ্রামীণ নিটওয়্যার লি: ৫. গ্রামীণ ব্যবস্থা বিকাশ ৬. গ্রামীণ আইটি পার্ক ৭. গ্রামীণ ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট ৮. গ্রামীণ সলিউশন লি: ৯. গ্রামীণ ডানোন ফুডস: লি: ১০. গ্রামীণ হেলথ কেয়ার সার্ভিসেস লি: ১১. গ্রামীণ স্টার এডুকেশন লি: ১২. গ্রামীণ ফেব্রিক্স এ্যান্ড ফ্যাশন লি: ১৩. গ্রামীণ কৃষি ফাউন্ডেশন। 

অন্যদিকে, গ্রামীণ কল্যাণের আদলে প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ ফান্ডের মাধ্যমে গঠন করা হয় আরো কিছু প্রতিষ্ঠন। এগুলো হল:-

১.গ্রামীণ ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লি: ২. গ্রামীণ সল্যুশন লি: ৩. গ্রামীণ উদ্যোগ ৪. গ্রামীণ আইটেক লি: ৫. গ্রামীণ সাইবারনেট লি: ৬. গ্রামীণ নিটওয়্যার লি: ৭. গ্রামীণ আইটি পার্ক ৮. টিউলিপ ডেইরী এ্যান্ড প্রোডাক্ট লি: ৯. গ্লোব কিডস ডিজিটাল লি: ১০. গ্রামীণ বাইটেক লি: ১১. গ্রামীণ সাইবার নেট লি: ১২. গ্রামীণ স্টার এডুকেশন লি: ১২. রফিক আটোভ্যান মানুফ্যাকটার লি: ১৩. গ্রামীণ ইনফরমেশন হাইওয়ে লি: ১৪. গ্রামীণ ব্যবস্থা সেবা লি: ১৫. গ্রামীণ সামগ্রী।

মজার ব্যাপার হলো গ্রামীণ ব্যাংকের অর্থে এবং বোর্ড সভার সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ‘গ্রামীণ কল্যাণ’ এবং ‘গ্রামীণ ফান্ড’ গঠিত হয়। এই দুটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে যে প্রতিষ্ঠানগুলো গঠিত হয়েছে- তা সবই আইনত গ্রামীণ ব্যাংকের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। কিন্তু ২০২০ সাল পর্যন্ত গ্রামীণ ফান্ড এবং গ্রামীণ কল্যাণের পরিচালনা পর্ষদে গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিনিধি থাকলেও ২০২১ সাল থেকে এই প্রতিষ্ঠান দুটিতে গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিনিধি নেই। গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ দু’টি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান হবেন গ্রামীণ ব্যাংকের মনোনীত ব্যক্তি। কিন্তু ড. মুহাম্মদ ইউনূস এখনও গ্রামীণ কল্যাণ এবং গ্রামীণ ফান্ডের চেয়ারম্যান পদে বহাল আছেন। প্রশ্ন হলো; কোন কর্তৃত্ব বলে তিনি এখনও চেয়ারম্যান? এক্ষেত্রে গ্রামীণ ব্যাংকের নীরবতাও এক রহস্য। ড. ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব থেকে অবসরে গেলেও ব্যাংকটি নিয়ন্ত্রণ করছে তার অনুগতরাই। একারণেই তাদের নীরবতা। গ্রামীণ ব্যাংক কর্তৃপক্ষের রহস্যময় আচরণের কারণেই গ্রামীণ ব্যাংকের অর্থে প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলোর মালিকানা বঞ্চিত রাষ্ট্র ও জনগণ। রাষ্ট্রের অর্থ দিয়ে ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার এ এক অদ্ভুদ জালিয়াতি। রাষ্ট্রীয় সম্পদের টাকা দিয়ে ব্যক্তিগত কোম্পানী গঠন রাষ্ট্রের সাথে ভয়ংকর প্রতারণা।

লাভে গ্রামীণ টেলিকম এবং বাকি সব লোকসানী প্রতিষ্ঠান কেন? 

‘গ্রামীণ কল্যাণ’ এবং ‘গ্রামীণ ফান্ড’র মাধ্যমে গঠিত ২৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে একমাত্র গ্রামীণ টেলিকম ছাড়া আর সব প্রতিষ্ঠানই লোকসানী। গ্রামীণ টেলিকম দেশের সর্ববৃহৎ মোবাইল নেটওয়ার্ক ‘গ্রামীণ ফোন’র ৩৪ দশমিক দুই শতাংশ শেয়ারের মালিক। ২০২২ সালে গ্রামীণ ফোন ট্যাক্স, ভ্যাট দেয়ার পর নীট মুনাফা করেছে তিন হাজার নয় কোটি ষোল লাখ টাকা। অর্থাৎ গ্রামীণ ফোন থেকে গ্রামীণ টেলিকম প্রতিবছর নীট মুনাফা পায় এক হাজার কোটি টাকার বেশি। গ্রামীণ ফোনের লভ্যাংশ নয়-ছয় করা ছাড়া গ্রামীণ টেলিকমের আর কোন কাজ নেই। এই টাকা দিয়ে ড. ইউনূসের ২৮টি হায় হায় কোম্পানী প্রতিপালন করা হয়। গ্রামীণ টেলিকমের লাভের টাকার একটি অংশ যায় গ্রামীণ কল্যাণে। গ্রামীণ কল্যাণের মাধ্যমে বাকি নাম সর্বস্ব প্রতিষ্ঠানগুলোকে বাঁচিয়ে রাখা হয়। এই সব প্রতিষ্ঠানই লোকসানী প্রতিষ্ঠান। প্রশ্ন হলো; লোকসান দিয়ে বছরের পর বছর এই প্রতিষ্ঠানগুলো চলবে কেন? একটু লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, গ্রামীণ ব্যাংক থেকে টাকা সরিয়ে গ্রামীণ কল্যাণের মাধ্যমে যে প্রতিষ্ঠানগুলো গঠন করা হয়েছে; তার সবগুলোর চেয়ারম্যান ড. ইউনূস। আর এই প্রতিষ্ঠানগুলোর এমডি পদে নিয়োগ দেয়া হয় ড. ইউনূসের একান্ত অনুগত এবং বিশ্বস্তদের। এরা গাড়ী পান, মোটা অংকের বেতন পান এবং ড. ইউনূসের কথা অনুযায়ী কাজ করেন। এটা এক ধরনের উৎকোচ। এই প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতিষ্ঠার এক বড় কার্যক্রম হলো গ্রামীণ টেলিকমের লাভের টাকা আত্মসাৎ করা এবং আয়কর ফাঁকি। 

এই প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমেই ড. ইউনূস আসলে অর্থপাচার করেন। গ্রামীণ টেলিকমের টাকাকে হাতবদল করে করে অর্থ পাচারের পথ তৈরী করা হয়। গ্রামীণ টেলিকম কোম্পানি আইন ১৯৯৪- এর ধারা ২৮ এবং ২৯ এর বিধান লঙ্ঘন করে গ্রামীণ ফোন লিমিটেড থেকে গ্রামীণ কল্যাণকে তার লভ্যাংশ আয়ের ৪২.৬% বিতরণ করে আসছে। যদিও ‘গ্রামীণ কল্যাণ’ গ্রামীণ ফোন লিমিটেডের শেয়ারহোল্ডার নয়। আইন অনুযায়ী, গ্রামীণ টেলিকমের সমগ্র লভ্যাংশ আয়কে এর আয় হিসেবে ভোগ করতে হবে এবং সেই অনুযায়ী, সংশ্লিষ্ট আর্থিক বছরের জন্য প্রযোজ্য করপোরেট হারে কর দিতে হবে। কিন্তু তাদের নিরীক্ষিত হিসাব পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, তারা গ্রামীণ টেলিকম থেকে গ্রামীণ কল্যাণকে তাদের লভ্যাংশ আয়ের প্রায় অর্ধেক প্রদান করেছে শুধুমাত্র অগ্রিম আয়কর (এআইটি) ১০-২০% হারে। অথচ আইন অনুযায়ী তাদের জন্য প্রযোজ্য করপোরেট করের হার ছিল ৩৫% থেকে ৩৭.৫% পর্যন্ত।

এই করপোরেট রেট এবং ডিভিডেন্ট ট্যাক্সের পার্থক্য কর ফাঁকি। কারণ গ্রামীণ কল্যাণ প্রচলিত আইন অনুযায়ী কোনভাবেই গ্রামীণ টেলিকমের লভ্যাংশ আয়ের অধিকারী নয়। গ্রামীণ টেলিকম শুরু থেকে যে সকল কর ফাঁকি দিয়েছে সেগুলো যোগ করলে- এর পরিমান দাঁড়ায় প্রায় এক হাজার কোটি টাকা। এই কর ফাঁকির হিসাব শুধুমাত্র গ্রামীণ টেলিকমের। ড. ইউনূসের নিয়ন্ত্রিত অন্যান্য কোম্পানি ও প্রতিষ্ঠান এবং তার ব্যক্তিগত আয়করের ক্ষেত্রেও ব্যাপকভাবে কর ফাাঁকির ঘটনা অনেকটা স্বাভাবিক নিয়মের মতোই বহু বছর ধরে ঘটেছে। ড. ইউনূস নিয়ন্ত্রিত অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলোর কর ফাঁকির ঘটনাগুলো হিসাব করলে এই পরিমাণ দাঁড়াবে বিশাল অংকের।

গ্রামীণ টেলিকমের ২৬ বছরের কার্যক্রম চলাকালীন প্রায় এক হাজার কোটি টাকার কর ফাঁকি দেওয়া হয়। এই দীর্ঘ সময়ে ড. ইউনূস প্রতিবছর শতকরা ১৫ থেকে ২৫ ভাগ পর্যন্ত কর ফাঁকি দিয়ে আসছেন। ১৯৯৭ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত প্রতিবছর গ্রামীণ টেলিকমে ড. ইউনূস ২৫% কর ফাঁকি দিয়েছেন। ওই সময়ে কর ছিল ৩৫%, প্রদান করেছিলেন মাত্র ১০%। ২০০৬ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানে ড. ইউনূস কর ফাঁকি দিয়েছেন বছরে ২০%। ওই সময়ে কর ছিল ৩৫%, প্রদান করেছিলেন মাত্র ১৫%। ২০০৯ সাল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত ড. ইউনূস নিয়ন্ত্রিত গ্রামীণ টেলিকমে প্রতিবছর ১৫% কর ফাঁকি দেওয়া হয়েছে। ওই সময়ের মধ্যে কর ছিল ৩৫%, আর প্রদান করেছিলেন মাত্র ২০%। 

এটি লক্ষণীয়, ড. ইউনূস তার কর ফাঁকির বিষয়গুলো ধামাচাপা দিতে দেশের আদালতে বেশ কিছু মামলা ও রিট পিটিশন দায়ের করেন। এ সকল মামলা ও রিটের উদ্দেশ্য হচ্ছে কর ফাঁকি সংক্রান্ত বিষয়ে ড. ইউনূসকে যেন আইনের মুখোমুখি হতে না হয়। ড. ইউনূসের কর সংক্রান্ত প্রতিটি ক্ষেত্রেই তার কর ফাঁকির বিষয়গুলো দালিলিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে। ড. ইউনূসের কর ফাঁকির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট রাষ্ট্রীয় ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের দ্বারা পরিচালিত তদন্তে এটি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে যে, ড. ইউনূস নিজে এবং তার নিয়ন্ত্রিত প্রতিষ্ঠানগুলো তার নির্দেশনাতেই কর ফাঁকির অপরাধে জড়িত। সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশে সম্প্রতি তিনি ১২ কোটির টাকার বেশি দান কর পরিশোধ করেন। 

অস্বচ্ছ ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট, জালিয়াতি এবং অর্থপাচার

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট রয়েছে তিনটি। এই ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তিনটি হলো যথাক্রমে:- ১. সাউথ ইস্ট ব্যাংক, (অ্যাকাউন্ট নাম্বার-০২১২১০০০২০০৬১), ২. স্ট্যান্ডার্ট চার্টড ব্যাংক, (অ্যাকাউন্ট নাম্বার- ১৮১২১২৭৪৭০১) এবং ৩. রুপালি ব্যাংক, (অ্যাকাউন্ট নাম্বার-০৪৮৯০১০০০৮০৯৬)। এই তিনটি ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মধ্যে ২০০০ সালে খোলা সাউথ ইস্ট ব্যাংকের অ্যাকাউন্টটি (অ্যাকাউন্ট নাম্বার-০২১২১০০০২০০৬১) তার মূল ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্ট হিসেবেই প্রতীয়মান হয়েছে। এই অ্যাকাউন্টে ২০০০ সাল থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত ১শ’ ১৮ কোটি ২৭ লক্ষ ৭৬ হাজার ৩শ’ ৬৮ টাকা রেমিটেন্স এসেছে। এই রেমিটেন্সের বেশিরভাগ ৪৭ কোটি ৮৯ লাখ ৯৬ হাজার ৬শ’ ৫২ টাকা এসেছে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে। সেই সময়েই একটি রাজনৈতিক দল গঠনেরও প্রয়াস করেছিলেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। তাহলে কি রাজনৈতিক দল গঠনের জন্য বিদেশি বন্ধুরা ড. ইউনূসকে টাকা দিয়েছিল? বিদেশ থেকে টাকা এনে রাজনৈতিক দল করতে চেয়েছিলেন ইউনূস?  

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ট্যাক্স ফাইল বিশ্লেষণে ওঠে এসেছে, ২০০৩ সালের পরে নোবেল বিজয়ীর তকমাধারী ড. মুহাম্মদ ইউনূস তার ট্যাক্স ফাইলে ২০০৫-০৬ কর বছরে তিনি সর্বমোট ৯৭ কোটি ৪ লাখ ৬১ হাজার ১৯১ টাকা রেমিটেন্স প্রাপ্তির কথা উল্লেখ করেছেন। কিন্তু ওই সময়ে তার ব্যক্তিগত সাউথ ইস্ট ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে রেমিটেন্স প্রাপ্তির পরিমাণ ১১৫ কোটি ৯৮ লাখ ৯৬ হাজার ২৪ টাকা। অর্থাৎ ওই সময়ে তিনি ১৮ কোটি ৯৪ লাখ ৩৪ হাজার ৮শ’ ৩৫ টাকার রেমিটেন্স প্রাপ্তির তথ্য সরকারকে কর ফাঁকি দেওয়ার লক্ষ্যে তার ব্যক্তিগত ট্যাক্স ফাইলে গোপন করেছেন। এটি স্পষ্ট অর্থপাচারের দোষে দুষ্ট। 

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টের ডেবিট অ্যানালাইসিসে ওঠে এসেছে, অপ্রদর্শিত অর্থ সমূহের মূল অংশ তিনি সাউথ ইস্ট ব্যাংকের অন্য দু’টি অ্যাকাউন্ট, সাউথ ইস্ট ব্যাংকের ১৫ নম্বর ব্রাঞ্চের ট্র্যাভেল ইন্টারন্যাশনাল লিঃ নামের (অ্যাকাউন্ট নম্বর- ৭৩৩০০০০০৩৩৩৯) ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ১১ কোটি ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৭শ’ ৬৭ টাকা এবং ০০৩৫ নম্বর ব্রাঞ্চের (অ্যাকাউন্ট নম্বর-৯০৩০৩১৬০৯১০) ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ২ কোটি ৫২ লাখ টাকা স্থানান্তর করেছেন। অর্থপাচারের জন্যই এভাবে টাকা এক ব্যাংক থেকে আরেক ব্যাংকে স্থানান্তর করা হয়। 

সরকারকে কর ফাঁকি দেওয়ার লক্ষ্যে বিভিন্ন কর বছরে তিনি তার ব্যক্তিগত ট্যাক্স ফাইলে নিজস্ব সাউথ ইস্ট ব্যাংকে প্রাপ্ত বিপুল পরিমাণ রেমিটেন্সের তথ্য গোপন করেছেন। ২০০৭-০৮ অর্থবছরে তিনি রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন ১৫ কেটি ১১ লাখ ৩১ হাজার ৪৭ টাকা। কিন্তু তিনি তার ট্যাক্স ফাইলে প্রদর্শন করেছেন ৯ কোটি ১৪ লাখ ৫৮ হাজার ৪শ’ ৮৯ টাকা। ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট এবং ট্যাক্স বা কর ফাইলের সাথে এখানে পার্থক্য রয়েছে ৫ কোটি ৯৬ লাখ ৭২ হাজার ৫শ’ ৫৯ টাকা। ২০০৮-০৯ কর বছরে তিনি রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন ১১ কোটি ৮৩ লাখ ১৪ হাজার ৪শ’ ১০ টাকা। অথচ তিনি তার ট্যাক্স ফাইলে উল্লেখ করেছেন ১০ কোটি ৪০ লাখ ২৪ হাজার ৮শ’ ৩২ টাকা। এখানে তিনি ১ কোটি ৪২ লাখ ৮৯ হাজার ৫শ’ ৭৮ টাকার তথ্য গোপন করেছেন। ২০০৯-১০ কর বছরে তিনি রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন ২০ কোটি ৯৫ লাখ ৫১ হাজার ১শ’ ৯৫ টাকা। তিনি তার ট্যাক্স ফাইলে উল্লেখ করেছেন ১৮ কোটি ৯৯ লাখ ২৮ হাজার ৭শ’ ৩১ টাকা। এখানে তিনি ১ কোটি ৯৬ লাখ ২২ হাজার ৪শ’ ৬৫ টাকার তথ্য গোপন করেছেন। ২০১০-১১ কর বছরে তিনি রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন ৮ কোটি ১৮ লাখ ৬৫ হাজার ২শ’ ৪ টাকা। অথচ তার ট্যাক্স ফাইলে উল্লেখ করেছেন ৬ কোটি ৬০ লাখ ৪৪ হাজার ৯২ টাকা। এখানে তিনি ১ কোটি ৫৮ লাখ ২১ হাজার ১শ’ ১২ টাকার তথ্য গোপন করেছেন। ২০১১-১২ কর বছরে তিনি রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন ৫ কোটি ৯১ লাখ ৫ হাজার ৫শ’ ৮৬ টাকা। আর ট্যাক্স ফাইলে উল্লেখ করেছেন ৪ কোটি ৬৫ লাখ ৩৬ হাজার ৫শ’ ৭২ টাকা। এখানে তিনি ১ কোটি ২৫ লাখ ৬৯ হাজার ১৪ টাকার তথ্য গোপন করেছেন। ২০১২-১৩ কর বছরে তিনি রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন ৮ কোটি ৩৭ লাখ ২ হাজার ৭৭ টাকা। তিনি তার ট্যাক্স ফাইলে উল্লেখ করেছেন ৬ কোটি ৫০ লাখ ৬৬ হাজার ৬শ’ ৬৫ টাকা। এখানে তিনি ১ কোটি ৮৬ লাখ ৩৫ হাজার ৪শ’ ১২ টাকার তথ্য গোপন করেছেন। ২০১৩-১৪ কর বছরে তিনি রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন ১০ কোটি ৫৫ লাখ ৪২ হাজার ৩শ’ ৩৬ টাকা। তিনি তার ট্যাক্স ফাইলে উল্লেখ করেছেন ৭ কোটি ৯৮ লাখ ৫৯ হাজার ৫শ’ ৪৪ টাকা। এখানে তিনি ২ কোটি ৫৬ লাখ ৮২ হাজার ৭শ’ ৯৩ টাকার তথ্য গোপন করেছেন। ২০১৪-১৫ কর বছরে তিনি রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়েছেন ৭ কোটি ১৪ লাখ ৫৭ হাজার ২শ’ ৭ টাকা। অথচ ট্যাক্স ফাইলে উল্লেখ করেছেন ৫ কোটি ১৬ লাখ ৬১ হাজার ৫শ’ ৯৮ টাকা। এখানেও তিনি ১ কোটি ৯৭ লাখ ৯৫ হাজার ৬শ’ ৯ টাকার তথ্য গোপন করেছেন। 

২০০০ সালের পর থেকে এমন প্রতিটি কর বছরে ড. মুহাম্মদ ইউনূস বিদেশ থেকে রেমিটেন্স প্রাপ্ত হয়ে কোটি কোটি টাকার তথ্য গোপন করে সরকারের কর ফাঁকি দিয়েছেন। ২০০৫-০৬ কর বছর থেকে শুরু করে ২০২২-২৩ কর বছর পর্যন্ত সরকারকে কর ফাঁকি দেওয়ার লক্ষ্যে তিনি ১৮ কোটি ৯৪ লাখ ৩৪ হাজার ৮শ’ ৩৫ টাকা রেমিটেন্সের তথ্য গোপন করেছেন। 

মজার ব্যাপার হলো ২০২০-২১ অর্থবছরে ড. ইউনূস এর ব্যক্তিগত একাউন্ট থেকে প্রায় সব টাকা তুলে ‘ইউনূস ট্রাস্ট’ গঠন করেন। ট্রাস্টের টাকা আয়কর মুক্ত। সে হিসেব থেকেই এমন কান্ড করেন তিনি। কিন্তু এরকম ফান্ডের জন্য ১৫ শতাংশ কর দিতে হয়, এটি তিনি দেননি। এই ট্যাক্স ফাঁকির কারণেই তার বিরুদ্ধে মামলা হয়। এই মামলায় তিনি হেরে যান।

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলো বিশ্লেষণে ওঠে এসেছে, তার সব ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বিভিন্ন সময়ে বিদেশ থেকে কোটি কোটি টাকা রেমিটেন্স এসেছে। নির্বাচন মৌসুমগুলোতে তার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে এই রেমিটেন্সের টাকার প্রবাহ সবচেয়ে বেশি। কিন্তু প্রশ্ন ওঠেছে, ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলোতে নির্বাচনী মৌসুমে বিদেশ থেকে বেশি অর্থ আসার উদ্দেশ্য কি? কোন বিশেষ রাজনৈতিক দলের জন্য কি তিনি টাকা এনেছেন?

ড. ইউনূস ট্যাক্স ফাঁকি দেয়ার জন্য যে ট্রাস্ট গঠন করেন- তার একটি মাত্র কার্যক্রম দেখা যায়। তা হলো ড. ইউনূস এবং তার পরিবারের সব ব্যয় বহন করা হয় এই ট্রাস্টের টাকায়। এটাও এক ধরনের জালিয়াতি। এই ট্রাস্ট যে ধরনের সমাজ সেবামূলক কার্যক্রম করবে বলে আঙ্গীকার করা হয়েছে তার কিছুই করে না। তাহলে কি কর ফাঁকি দিয়ে বিলাসী জীবন যাপনের জন্যই এই ট্রাস্ট? একজন নোবেল জয়ী ব্যক্তি, কিভাবে রাষ্ট্র এবং জনগণের সংঙ্গে এ রকম প্রতারণা করতে পারেন? রাষ্ট্রের সম্পদ দিয়ে বানাতে পারেন একের পর এক ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান। আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন ব্যক্তি কিভাবে আয়কর ফাঁকি দেয়ার জন্য করতে পারেন নানা ছল-চাতুরী ও প্রতারণা? এই প্রশ্নের কি উত্তর দেবেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস?

মুখোশের আড়ালে এই মানুষটি আসলে আইনের প্রতি অশ্রদ্ধাশীল একজন দুর্নীতিবাজ। ড. ইউনূস যদি মনে করেন, তিনি নির্দোষ। তাহলে তার উচিত মামলার মুখোমুখি হয়ে আত্মপক্ষ সমর্থন করে নিজের বক্তব্য পেশ করা। বিতর্কের অবসান করা। কিন্তু তা না করে তিনি মামলা প্রত্যাহারের জন্য বিপুল অর্থ  খরচ করছেন। প্রশ্ন হলো- তার মত গুণী ব্যক্তির আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে বিবৃতি সংগ্রহের প্রয়োজন কি? কেন এই তদবির?


ড. মুহাম্মদ ইউনূস   মুখোশ   অন্তরাল   অন্তর্নিহিত   বার্তা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

কোকোর সম্পত্তি তারেকের কুক্ষিগত: মামলা করবেন সিঁথি

প্রকাশ: ০৯:০০ পিএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুবার্ষিকী যখন পালিত হচ্ছে, ঠিক সেই সময় জিয়া পরিবারের সম্পত্তির উত্তরাধিকার নিয়ে চলছে তুমুল গণ্ডগোল। বিশেষ করে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর সব সম্পত্তি আত্মসাৎ করেছেন লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। এই অভিযোগে সিঁথি তার আইনজীবীর মাধ্যমে একটি আইনগত নোটিশ পাঠিয়েছেন তারেক জিয়ার কাছে। 

এর আগে সিঁথি ঢাকায় এসেছিলেন। বেগম খালেদা জিয়ার কাছে এই বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন। কিন্তু খালেদা জিয়া সেই সময় ছিলেন অসুস্থ। সে কারণে তিনি এ ব্যাপারে কোন সুরাহা দিতে পারেননি। তাছাড়া এই সম্পত্তির বিষয় সম্পর্কে বেগম খালেদা জিয়াও ততটা অবহিত নন।

একাধিক সূত্র বলছে, বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় যান আরাফাত রহমান কোকো এবং মালয়েশিয়া তার বিপুল পরিমাণ অর্থ সম্পদ ছিল। দেশে বিভিন্ন দুর্নীতি এবং অনিয়মের মাধ্যমে যে সম্পদ করেছিলেন তার একটি বড় অংশই প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকো পাঠিয়েছিলেন মালয়েশিয়ায়। সেখানে মালয়েশিয়া বিএনপির সভাপতির মাধ্যমে তিনি বিভিন্ন ব্যবসায় সেই টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন। মালয়েশিয়া ছাড়াও সিঙ্গাপুরে আরাফাত রহমান কোকোর বেশ কিছু বিনিয়োগ ছিল। এই বিনিয়োগের পরিমাণ বাংলাদেশি টাকায় এক হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি বলে জানা গেছে। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, মালয়েশিয়ায় আরাফাতের একটি ট্র্যাভেল এজেন্সি, দুটি অ্যাপার্টমেন্ট, পাঁচটি দোকান এবং আরও কিছু সম্পদ রয়েছে। এই সম্পদগুলো কোকো মারা যাওয়ার পর কিছুদিন বিএনপির মালয়েশিয়ায় থাকা ওই নেতার হেফাজতে ছিল। এই সময় কোকোর স্ত্রী শর্মিলা সিঁথি সম্পত্তিগুলো নিজের নামে নেওয়ার জন্য চেষ্টা তদবির করেন। কিন্তু এসময় তারেক জিয়া কোকোর সন্তানদের উচ্চশিক্ষার কথা বলে তাকে লন্ডনে নিয়ে আসেন এবং সিঁথি লন্ডনে আসার পর তারেক মালয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুরে অবস্থানরত বিএনপি নেতাদের মাধ্যমে ঐ সম্পদগুলো গ্রহণ করেন। এর বিনিময়ে মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত বিএনপির ওই নেতাকে ২০১৮ নির্বাচনে মনোনয়নও দিয়েছিলেন তারেক। এরপর সিঁথি যখন সম্পত্তিগুলোর অধিকার চান এবং সম্পত্তিগুলোর হালহকিকত জানতে চান তখন তারেক জিয়া বলেন, এগুলো সব বিক্রি করার প্রক্রিয়া চলছে। বিক্রি হলে সম্পত্তি বিক্রির টাকা সিঁথিকে বুঝিয়ে দেওয়া হবে এবং সিঁথি যেন বাকি জীবন সন্তানদের ভরণপোষণ এই টাকা দিয়ে করতে পারেন সেজন্য এই ব্যবস্থা করা হয়েছে। সিঁথি প্রথম এই বিষয়টি মেনে নিয়েছিলেন। কিন্তু বছরের পর বছর চলে গেলেও সিঁথিকে কোন টাকা দেওয়া হয়নি। বরং একটা পর্যায়ে তারেক সিঁথির জন্য যে ভরণপোষণের খরচ দিতেন সেই খরচও বন্ধ করে দেন।

লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়ার এই সিদ্ধান্তের পর বেগম খালেদা জিয়ার অনুরোধে ২০১৬ সাল থেকে সিঁথির যাবতীয় ভরণপোষণের ব্যবস্থা করছেন সৌদি আরবে পলাতক মোসাদ্দেক আলী ফালু। ফালু কোকোর ব্যবসায়িক পার্টনার ছিলেন। সেই সূত্রে বিভিন্ন ব্যবসা থেকে যে লভ্যাংশের টাকা সিঁথিকে পাঠানো হয় এবং সেটি দিয়ে সিঁথি চলেন।

সাম্প্রতিক সময়ে গত সিঁথি তার প্রয়াত স্বামীর সম্পত্তি পাওয়ার জন্য দেন দরবার করেন। এরপর তিনি লন্ডনে অবস্থানরত একজন আইনজীবীর মাধ্যমে তারেক জিয়াকে একটি উকিল নোটিশ পাঠান। কিন্তু তারেক জিয়া এই উকিল নোটিশের কোন জবাব দেননি। এরপর সিঁথি ঢাকায় আসেন, বিষয়টি বেগম খালেদা জিয়াকে জানানোর। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়াও বিষয়টির কোন সুরাহা করতে পারেনি।

জানা গেছে, সিঁথি এই বিষয়টি নিয়ে খুব শিগিগির আইনের আশ্রয় নিবেন এবং এই মালয়েশিয়া আদালতে তিনি আইনী লড়াইয়ে অবতীর্ণ হবেন। এজন্য একজন আইনজীবীরও শরণাপন্ন হয়েছে সিঁথি এমন তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

শর্মিলা রহমান সিঁথি   বিএনপি   খালেদা জিয়া   তারেক জিয়া  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

দলের নেতৃত্ব ছেড়ে উপদেষ্টা পদ নিতে পারেন তারেক

প্রকাশ: ১১:০০ পিএম, ২৫ জানুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

৭ জানুয়ারি নির্বাচনের পর তারেক জিয়ার কর্তৃত্ব এখন চ্যালেঞ্জের মুখে। দেশে বিদেশে তারেক জিয়ার নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। একই ভাবে প্রশ্ন উঠেছে কিভাবে বিএনপিকে পুনর্গঠন করা যায়? বিশেষ করে আন্তর্জাতিক মহলের কাছে গ্রহণযোগ্যতা অর্জনের জন্য বিএনপির খোলনলচে পাল্টে ফেলার দাবি উঠেছে দলের ভিতর থেকেই। 

নির্বাচনের আগ পর্যন্ত তারেক জিয়ার প্রশংসায় যারা পঞ্চমুখ ছিলেন তারাই এখন তারেক জিয়ার নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। বিশেষ করে বিদেশে থেকে দল পরিচালনা করা যায় কিনা এই প্রসঙ্গটি উঠেছে। একই ভাবে বিদেশি কূটনীতিকরা বলছেন, একজন দণ্ডিত ব্যক্তি এবং যিনি দেশে অবস্থান করছেন না, তিনি যদি দলের নির্বাহী প্রধান হন তাহলে সেই দল পরিচালনা করা কতটুকু গণতান্ত্রিক এবং কতটুকু শোভন। আর এই সমস্ত প্রেক্ষাপটে তারেক জিয়ার বিএনপিতে অবস্থান নড়বড়ে হয়ে গেছে। তিনি এখন বিএনপির জন্য একটি দায়ে পরিণত হয়েছে। এ নিয়ে বিএনপির নীতি নির্ধারক মহলে কথাবার্তা হচ্ছে এবং আলাপ আলোচনা হচ্ছে। তারেক জিয়া নিজেও গতকাল বিএনপির শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে দলের স্বার্থে প্রয়োজনে সরে যাওয়ার কথা বলেছেন। একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

গতকাল রাতে স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে মিলিত হয়েছিলেন লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। তিনি সেখানে তার নিজের ব্যর্থতার কথা স্বীকার করেছেন। বিদেশ থেকে তিনি বাংলাদেশের অনেক বাস্তবতা বোঝেননি। বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো নির্বাচনের পরে যে আচরণ করছেন তাতেও তারেক জিয়া হতাশা প্রকাশ করেছেন বলে একাধিক বিএনপি নেতা জানিয়েছেন। আর এরকম বাস্তবতার সাময়িক সময়ের জন্য হলেও বা দেশে না ফেরা পর্যন্ত সময়ে তিনি নেতৃত্ব যিনি বাংলাদেশে আছেন এ রকম কারও হাতে তুলে দিতে চান।

উল্লেখ্য, এই বৈঠকে বিএনপি নেতারা বলেছেন, যেহেতু এখনও দলের শীর্ষ তিনজন নেতা কারা অন্তরীণ আছেন, কাজেই এই ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য তাদের মুক্তি পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মির্জা আব্বাস এবং আমীর খসরু মাহমুদের জামিনের আবেদন গুলো এখন প্রক্রিয়াধীন আছে। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং আমীর খসরু মাহমুদের একটি মামলায় জামিন শুনানি বাকি আছে। সেখানেও তারা জামিন পাবেন বলে আশা করা হচ্ছে। আর এই জামিন পেলে স্থায়ী কমিটির সকল সদস্যকে নিয়ে তারেক জিয়া এ ব্যাপারে একটি সিদ্ধান্ত নেবেন। 

তারেক জিয়ার ঘনিষ্ঠ একজন তরুণ নেতা বলেছেন, তিনি আপাতত দায়িত্ব ছাড়তে চাচ্ছেন। বিএনপির তিনি কোন আলঙ্কারিক পদ উপদেষ্টা বা প্রধান উপদেষ্টা এ রকম কোন দায়িত্ব গ্রহণ করতে চাইছেন। 

মূল বিষয়টা হচ্ছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তার গ্রহণযোগ্যতা সংকট রয়েছে। বিশেষ করে বিদেশি কূটনীতিকরা তার সঙ্গে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছেন। নির্বাচনের পর তারেক জিয়া একাধিক কূটনীতিকের সঙ্গে বাংলাদেশ প্রসঙ্গ নিয়ে আলাপ করতে চাইলেও তারা এড়িয়ে গেছেন। তাছাড়া লন্ডনে অবস্থানরত এই দণ্ডিত নেতা এখন বুঝতে পেরেছেন তিনি যে কৌশলগুলো প্রয়োগ করছেন সেই কৌশলগুলো কার্যত ব্যথ। এই সমস্ত কৌশল দিয়ে আন্দোলন করা যাবে না। আর বাস্তবতা হলো ভারত সহ প্রভাবশালী দেশগুলো বিএনপিকে গণতান্ত্রিক ধারায় সম্পৃক্ত হতে তারেক জিয়ার নেতৃত্বকে বাদ দেওয়া পরামর্শ দিচ্ছেন। এই প্রেক্ষিতে বিএনপিতে আগামী কয়েক মাসের মধ্যে নাটকীয় ঘটনা ঘটেতে পারে। বিএনপির নেতৃত্বে বড় ধরনের পরিবর্তন আসতে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে এবং সেক্ষেত্রে তারেক জিয়া হয়তো ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের পদ থেকে বিএনপির উপদেষ্টা হবেন। আর আনুষ্ঠানিক ভাবে দলের জন্য একজন কার্যকর নেতা নির্বাচন করা হবে। আর এটি যদি করা হয় তাহলে হবে বিএনপির জন্য একটি বড় চমক।

বিএনপি   তারেক জিয়া   রাজনীতির খবর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

পদত্যাগ করলেন কায়কাউস: মন্ত্রী হওয়ার গুঞ্জন

প্রকাশ: ০৫:৫১ পিএম, ১৫ জানুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

বিশ্বব্যাংকের ওয়াশিংটনের প্রধান কার্যালয়ে বিকল্প নির্বাহী পরিচালক পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন ড. আহমদ কায়কাউস। গত ৮ জানুয়ারি তিনি এই পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন বলে সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। উল্লেখ্য, ২০২২ সালের ৭ ডিসেম্বর তাকে তিন বছরের জন্য নিয়োগ দেওয়া হলেও এক বছর পর তিনি পদত্যাগ করলেন।

সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, আজ তার পদত্যাগ পত্রের সার সংক্ষেপ অনুমোদিত হয়েছে। এখন এটি প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের অপেক্ষায়। প্রধানমন্ত্রী অনুমতি দিলে বিশ্বব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক পদ থেকে তার এই পদত্যাগ পত্র গৃহীত হবে বলে জানা গেছে।

ড. আহমদ কায়কাউস টেকনোক্রেট কোটায় মন্ত্রী হতে পারেন এমন গুঞ্জন রয়েছে। 

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে, নির্বাচনের আগে ড. আহমদ কায়কাউস ঢাকায় এসেছিলেন এবং সে সময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ এবং বিশ্বব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক পদ থেকে পদত্যাগ করে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। এরপরই তিনি বিশ্বব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক পদ থেকে পদত্যাগ করলেন।

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে, ড. আহমদ কায়কাউস টেকনোক্রেট কোটায় সরকারের গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী হতে পারেন।

উল্লেখ্য যে, বিশ্বব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক হিসেবে সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম অথবা বর্তমান  মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাহবুব হোসেনকে নিয়োগ দেওয়া হতে পারে বলে বিভিন্ন মহলে আলোচনা রয়েছে।


ড. আহমদ কায়কাউস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

৩০ ডিসেম্বর, ২০১৮: সেদিন কী হয়েছিল

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ৩০ ডিসেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন ছিল বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে অন্যতম আলোচিত বিতর্কিত সমালোচিত ঘটনা। কিন্তু আজ পর্যন্ত কেউ স্পষ্ট করে বলতে পারেননি সেই নির্বাচনে আসলে কী হয়েছিল। কেউ একটি রাতের ভোটের উদাহরণ সরজমিনে দেখাতে পারেননি। কিন্তু বিভিন্ন মহলে বারবার আলোচনা হচ্ছে যে ৩০ ডিসেম্বর আসলে কোন ভোট হয়নি। ২৯ ডিসেম্বর রাতেই সব ভোট দেওয়া হয়েছে। আর এরকম প্রচারণার মধ্য দিয়েই ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের ভোটের দিনকে রাতের ভোট হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং বিভিন্ন ভাবে সমালোচনা করা হয়। 

আওয়ামী লীগের অনেক নেতারাও ইদানিং বলেন যে, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন সব কিছু ঠিকঠাক মতো হয়নি। আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো চেয়ারম্যান কাজী জাফরউল্লাহ বলেছেন, কিছু অনিয়ম তো হয়েছে, না হলে এই কথাগুলো আসবে কেন? আসলে কী হয়েছিল? বাস্তবতা কী ছিল? ৩০ ডিসেম্বর সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন অনুষ্ঠানের যে একটি ঐতিহাসিক মুহূর্তে বাংলাদেশ দাঁড়িয়ে ছিল, সেই মুহূর্তটিকে কেন প্রশ্নবিদ্ধ করা হল। 

বাংলাদেশের ইতিহাসে সংসদীয় গণতন্ত্র চালুর পর ২০১৮ নির্বাচনই প্রথম নির্বাচন যেখানে ১৯৭৩ এর ২০১৮ নির্বাচনই প্রথম নির্বাচন যেখানে দলীয় সরকারের অধীনে সকল রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করেছিল। এই নির্বাচন এমন একটি প্রেক্ষাপটে অনুষ্ঠিত হয়েছিল যেখানে আওয়ামী লীগের হারার কোনো সম্ভাবনা ছিল না। প্রধান বিরোধী দল বিএনপি অংশগ্রহণ করলেও তারা তাদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেছিল এবং তারাও জানত যে এই নির্বাচনের মাধ্যমে তারা ক্ষমতায় আসবে না। তাহলে কী হয়েছিল? 

এই প্রসঙ্গে বাংলা ইনসাইডার দীর্ঘদিন ধরে অনুসন্ধান করেছে, গবেষণা করেছে এবং এই অনুসন্ধানের প্রেক্ষিতে বহু লোকের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে এবং এই সমস্ত কথা বলার প্রেক্ষিতে দেখা গেছে যে, কিছু কিছু জায়গায় অনিয়মের ঘটনা ঘটেছে বা অনিয়মের চেষ্টা করা হয়েছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যেতে পারে জামালপুর-৩ আসনের কথা। সেখানে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মির্জা আজম। ২৯ ডিসেম্বর রাতের বেলা তার কাছে একজন স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তা ফোন করেন। ফোন করে তাকে বলেন যে, ভোটের ব্যবস্থা হয়ে গেছে। রাতেই সবগুলো কেন্দ্রে তার জন্য একটা নির্দিষ্ট সংখ্যক ভোট প্রদান করা হবে। মির্জা আজম একজন জনপ্রিয় নেতা। তিনি তার আগে পাঁচবার এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি এ ধরনের প্রস্তাবে হতবাক হয়ে যান। তিনি ঊর্ধ্বতন একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে ফোন করেন এবং তাকে এধরনের কোন রকম অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটানো থেকে বিরত থাকার জন্য কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। ফলে ওই আসনে আর কোনো অনিয়ম বা অন্য কোনো ঘটনা ঘটেনি। ২৯ তারিখে সেখানে কোন ভোট গ্রহণের ঘটনাই ঘটেনি। ৩০ ডিসেম্বর লোকজন শান্তিপূর্ণভাবে সেখানে ভোট দিয়েছেন এবং স্বাভাবিক ফলাফল হয়েছে। দেশের অধিকাংশ স্থানে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। তবে কিছু কিছু স্থানে অতি উৎসাহীরা জামালপুরের ঘটনার মত ঘটনা ঘটিয়েছে। এর বেশ কিছু তথ্য প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে এখন। তবে কেউই সঠিক ভাবে বলতে পারেনি কার নির্দেশে বা কারা এটি করেছে। 

বাংলা ইনসাইডারের অনুসন্ধানে দেখা যাচ্ছে যে, আমলাদের একটি অংশ, পুলিস প্রশাসনের একটি অংশ এবং কয়েকজন অতি উৎসাহী রাজনীতিবিদরা ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে ঢাকার অফিসার্স ক্লাবে একটি বৈঠকে মিলিত হন। সেই বৈঠকে আলোচনা করা হয় যে ভোটে একটি নীরব বিপ্লব হতে পারে। বিএনপির পক্ষে একটা নীরব বিপ্লব হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং এ রকম ঘটনা ঘটলে তা হবে লজ্জাজনক। ১৯৯১ সালের নির্বাচনের মতো যেন ঘটনা না ঘটে সেজন্য সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে আলাপ আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। 

বিজয় দিবস উপলক্ষে অফিসার্স ক্লাবে এক আলোচনা অনুষ্ঠানে পরবর্তীতে ঊর্ধ্বতন আমলারা এই বৈঠকে মিলিত হন বলে বাংলা ইনসাইডারের হাতে নিশ্চিত তথ্য রয়েছে। এই বৈঠকের পরপরই আমলারা সিদ্ধান্ত নেন যে, কিছু কিছু আসনে ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিং করা হবে এবং কিছু সুনির্দিষ্ট আসনে আগে থেকেই কিছু ভোট প্রদান করে জয় নিশ্চিত করা হবে। কিন্তু এই সিদ্ধান্তটা ছিল কয়েকটি আসনের ক্ষেত্রে। পরবর্তীতে এটি সারা বাংলাদেশে সব জায়গায় নির্দেশনা আকারে চলে যায়। পরবর্তীতে দেখা যায় যে, কেউ কারও কোন কথা শুনছেন না। ৩০০ আসনে এরকম জয়ী হওয়ার ক্ষেত্রে কিছু অতি উৎসাহী সরকারি কর্মকর্তা ভূমিকা রাখেন। 

তবে বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোটের হিসাব পর্যালোচনা করে দেখা গেছে যে, ১৬৭টি কেন্দ্রে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়েছে, যেখানে কোন রকম কারচুপি হয়নি। যেভাবে জিতে ছিলেন জামালপুরের মির্জা আজম। ঠিক সেভাবে ১৬৭ আসনে সত্যিকারের ভোট হয়েছে। বাকি আসনগুলোর ভোটের ক্ষেত্রে নানা রকম অনিয়ম হয়েছে। আর এই অনিয়ম যারা করেছেন তারা সকলেই সরকারের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা। রাজনৈতিক শক্তিকে অন্ধকারে রেখে, রাজনৈতিক শক্তিকে বোকা বানিয়ে ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর এই ঘটনা ঘটিয়েছিল মুষ্টিমেয় একটি গোষ্ঠী। সেই গোষ্ঠী আসলে আওয়ামী লীগের শুভাকাঙ্ক্ষী ছিল কিনা সেই প্রশ্ন অনেকের মধ্যে।


২০১৮ নির্বাচন   একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

কী হচ্ছে মির্জা আব্বাসকে নিয়ে?

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

বিএনপির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নেতা মির্জা আব্বাস। ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন অসুস্থ হয়ে যাওয়ার পর তাকে দলের দ্বিতীয় প্রধান ব্যক্তি হিসাবে মনে করা হয়। লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়াকে বাদ দিলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং মির্জা আব্বাস দুজন মিলেই ঢাকা এবং বাংলাদেশের রাজনীতিতে নীতি নির্ধারকের ভূমিকা পালন করেন বলে অনেকে মনে করেন। 

একটা সময় লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়ার সঙ্গে তার দূরত্ব তৈরি হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে সেই দূরত্ব মিটে যায়।মির্জা আব্বাস এবং তার স্ত্রী দুজনই বিএনপির রাজনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন। ২৮ অক্টোবরের তাণ্ডবের পর প্রথমে মির্জা ফখরুল, তারপর মির্জা আব্বাস গ্রেপ্তার হন। মির্জা আব্বাসের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। তবে দুর্নীতির একটি মামলায় তার রায় তিন দফা পিছিয়েছে। এই রায় পেছানোর পেছনে কোন রাজনৈতিক সমঝোতার ইঙ্গিত আছে কিনা এ বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন ভাবে আলোচনা হচ্ছে। 

বিএনপির একাধিক সূত্র বলছে, সরকার নির্বাচন পরবর্তী আন্দোলন এবং বিএনপির কার্যক্রমকে নিয়ন্ত্রণের জন্য মির্জা আব্বাসকে ব্যবহার করতে চাইছে। আর এ কারণেই মির্জা আব্বাসের মামলার রায় পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে। একটি সূত্র  জানিয়েছে যে মির্জা আব্বাসের সঙ্গে সরকারের যোগাযোগ রয়েছে। বিশেষ করে মির্জা আব্বাস তার স্ত্রীর সঙ্গে সরকারের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সংস্থার ব্যক্তিদের নিবিড় বৈঠকের খবর এখন বিএনপির নেতা কর্মীদের মুখে মুখে। তারা দাবি করছেন যে, ৭ জানুয়ারির নির্বাচনের পর বিএনপি ঘরে ফিরে যাবে এবং কোন আন্দোলনের কর্মসূচি তারা দেবে না। আস্তে আস্তে সরকারকে স্বাভাবিক বৈধতা দেবে এবং সরকারের সঙ্গে পরবর্তীতে সমঝোতার মাধ্যমে তারা স্বাভাবিক রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করার প্রক্রিয়া শুরু করবে—এরকম একটি রাজনৈতিক পরিকল্পনা এখন টেবিলে। আর সেই রাজনৈতিক পরিকল্পনায় বিএনপির পক্ষ থেকে মূল নেতৃত্ব দেবেন ফখরুল ইসলাম আলমগীর নন, মির্জা আব্বাস। আর সে কারণেই তার মামলার রায় পিছিয়ে যাচ্ছে বলে একাধিক সূত্র মনে করে। 

মির্জা আব্বাসের সঙ্গে এর আগেও সরকারের গোপন এবং ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে। দীর্ঘ ১৭ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকলেও মির্জা আব্বাসের ঢাকা ব্যাংক এবং তার পরিবহন ব্যবসার মোটেও ক্ষতি হয়নি। বরং সরকারের সঙ্গে নানা রকম গোপন সম্পর্কের মাধ্যমে তার এই সমস্ত ব্যবসার আরও বারবাড়ন্ত হয়েছে। আর এই কারণেই তারেক জিয়ার আস্থা হারিয়েছিলেন মির্জা আব্বাস। কিন্তু পরবর্তীতে মোটা অঙ্কের লেনদেনের বিনিময়ে তিনি বিএনপিতে ভালো মতোই
গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেন। 

বিএনপির একজন নেতা বলছেন, বিএনপির রাজনীতিতে আদর্শ বলে কোন কথা নেই। সেখানে যার কাছে টাকা আছে তিনি বড় নেতা। আর এই সূত্রে মির্জা আব্বাস দলের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছিলেন। তারেক জিয়াও তাকে মেনে নিয়েছেন। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে যে মির্জা আব্বাস কি একা পারবেন বিএনপিকে সব আন্দোলন থেকে গুটিয়ে নিতে? সেই সক্ষমতা বা সেই দক্ষতা কি তার রয়েছে? 

এর আগে শাহজাহান ওমরকে দিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ চেষ্টা করেছিল। শাহজাহান ওমরের সঙ্গে কারাগারেই সরকারের দর কষাকষি হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত শাহজাহান ওমর আওয়ামী লীগ ফিরিয়ে আনা হয়েছে। যেটাতে আওয়ামী লীগের লাভের চেয়ে ক্ষতি হয়েছে। এখন মির্জা আব্বাসের ক্ষেত্রে যে দেন দরবার, দরকষাকষি হচ্ছে তার ফলাফল কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে সেটাই দেখার বিষয়। 

তবে মির্জা আব্বাসের একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র বলছে, মির্জা আব্বাস কোনো অবস্থাতেই বিএনপি ত্যাগ করবেন না। তবে বিএনপিতে মির্জা ফখরুলের অবস্থান এক বছর আগেও অনেক দুর্বল ছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়েছেন। আর এই কারণেই বিকল্প হিসাবে মির্জা আব্বাসকে নেতৃত্বে বসিয়ে অনুগত বিএনপি বানানোর প্রক্রিয়া কতটুকু সফল হবে সেটিও একটি বড় প্রশ্ন।

মির্জা আব্বাস   বিএনপি  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন