কোর্ট ইনসাইড

বিএনপি নেতা সোহেলসহ ১৪ জনকে দেড় বছরের কারাদণ্ড

প্রকাশ: ০২:৪৫ পিএম, ২০ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

পুলিশের ওপর হামলা ও দায়িত্ব পালনে বাধা দেওয়ার ঘটনায় রাজধানীর নিউমার্কেট থানার মামলায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেলসহ ১৪ জনকে দেড় বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (২০ নভেম্বর) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতাউল্লাহ আসামিদের অনুপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানাসহ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

দণ্ডবিধির ১৪৩ ধারায় আসামিদের ছয় মাসের কারাদণ্ড ও দুই হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে তাদের আরও এক মাসের কারাভোগ করতে হবে এবং দণ্ডবিধির ৩২৩ ধারায় এক বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে তাদের আরও দুই মাসের কারাভোগ করতে হবে বলে রায়ে উল্লেখ করেন বিচারক।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের বিএনপির হরতাল অবরোধ চলাকালে নিউমার্কেটের ৪নং গেটে পুলিশের কাজে বাধা প্রদান করেন আসামিরা। এসময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন তারা। এ ঘটনায় নিউমার্কেট থানা পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা করেন।

তদন্ত শেষে সোহেলসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ। এরপর দণ্ডবিধি ১৪৩ ও ৩২৩ ধারায় আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। মামলার বিচার চলাকালে আদালত পাঁচ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন।

 

 


পুলিশ   হামলা   দায়িত্ব   রাজধানী   মামলা   সোহেল   কারাদণ্ড  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

অবসরের ৬ মাসের মধ্যে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের সুবিধা প্রদানের নির্দেশ

প্রকাশ: ০৭:১৩ পিএম, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীকে ৬ মাসের মধ্যে অবসর ভাতা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। .সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এই নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের দ্বৈত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ এ রায় দেন।

হাইকোর্ট বলেছেন, এটা চিরন্তন সত্য যে শিক্ষকরা রিটায়ারমেন্ট বেনিফিট পেতে বছরের পর বছর ঘুরতে হয়। এই হয়রানি থেকে তারা কোনভাবেই পার পান না। একজন প্রাথমিকের শিক্ষক কত টাকা বেতন পান, সেটাও বিবেচনায় নিতে হবে। এজন্য তাদের অবসরভাতা ৬ মাসের মধ্যে দিতে হবে। এই অবসরভাতা পাওয়ার জন্য শিক্ষকরা বছরের পর বছর দ্বারে দ্বারে ঘুরতে পারেন না। যেখানে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শিক্ষকদের প্রতি সহানুভূতিশীল। প্রধানমন্ত্রীর মনোভাব ইতিবাচক দৃষ্টিতে নিয়েই শিক্ষকদের অবসর ভাতা কিভাবে দ্রুত দেওয়া যায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে মাথায় রাখতে হবে।

এদিকে পাঁচ লক্ষাধিক শিক্ষক ও কর্মচারীর বেতনের ১০ ভাগ কর্তনের বিপরীতে আর্থিক সুবিধা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, দশ ভাগ কর্তন করলে সে পরিমাণ সুবিধা শিক্ষকদের দিতে হবে। একেক সময় একেক ধরনের সিদ্ধান্ত কাম্য নয়।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া। তিনি জানান, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ‘শিক্ষক ও কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট প্রবিধানমালা, ১৯৯৯’ এর প্রবিধান-৬ এবং ‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা প্রবিধানমালা, ২০০৫’ এর প্রবিধান-৮ অনুযায়ী শিক্ষকদের  মূল বেতনের ২ শতাংশ ও কর্মচারীদের ৪ শতাংশ কাটার বিধান ছিল। যার বিপরীতে শিক্ষকদের ট্রাস্টের তহবিল হতে শিক্ষক ও কর্মচারীদের কিছু আর্থিক সুবিধা প্রদান করা হতো। কিন্তু ২০১৭ সালের ১৯ এপ্রিল উল্লিখিত প্রবিধানমালাগুলোর শিক্ষক ও কর্মচারীদের মূল বেতনের ২ শতাংশ এবং ৪ শতাংশ কাটার বিধানগুলো সংশোধন করে ৪ শতাংশ এবং ৬ শতাংশ করে দুইটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী এই অতিরিক্ত অর্থ কাটার বিপরীতে শিক্ষক ও কর্মচারীদের কোনও বাড়তি আর্থিক সুবিধার বিধান করা হয়নি বলে জানান মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া। তিনি বলেন, পরবর্তী সময়ে ২০১৯ সালের ১৫ এপ্রিল মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ, শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারীদের ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসের বেতন হতে ৬ শতাংশ এবং ৪ শতাংশ টাকা অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টে জমা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা প্রদান করেন।

তিনি বলেন, অতিরিক্ত অর্থ কাটার বিপরীতে কোনও আর্থিক সুবিধা বৃদ্ধি না করায় বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫ লাখ শিক্ষক ও কর্মচারীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকে ক্ষুব্ধ হয়ে বিভিন্ন সময়ে অতিরিক্ত অর্থ কাটার আদেশ বাতিল করার জন্য কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোনো সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে তারা বিভিন্ন সময়ে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। তাতেও কর্তৃপক্ষ নীরব থাকলে শিক্ষক ও কর্মচারীরা ২০১৯ সালের ১৫ এপ্রিল মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের জারি করা প্রজ্ঞাপনটি চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করেন।

রিটের শুনানি নিয়ে ২০১৯ সালের ৮ ডিসেম্বর বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম এবং বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত তৎকালীন হাইকোর্ট বেঞ্চ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের জারি করা প্রজ্ঞাপনটি কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে বিবাদীদের প্রতি ৪ সপ্তাহের রুল জারি করেন।

পরবর্তীতে নতুন একটি প্রবিধানমালা জারি করে শিক্ষক ও কর্মচারীদের অবসরের ৬ মাসের মধ্যে কেটে নেওয়া ৬ শতাংশ এবং ৪ শতাংশ অর্থের বিপরীতে সুবিধা প্রদান করার নির্দেশনা চেয়ে সাপ্লিমেন্টারি রুলের জন্য আবেদন দাখিল করেন। শুনানির পর বিচারপতি জাফর আহমেদ এবং বিচারপতি মো. আখতারুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ বিবাদীদের প্রতি ৪ সপ্তাহের রুল জারি করেন।


হাইকোর্ট   অবসরদের ভাতা   এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারী  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

প্রতারণার অভিযোগে যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিম ও তার স্বামী রিমান্ডে

প্রকাশ: ০৬:৪৮ পিএম, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

প্রতারণার অভিযোগে পাবনা জেলা যুব মহিলা লীগ নেত্রী আফসানা মিম ও তার স্বামী ওবায়দুল্লাহ’র রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা হকের আদালত শুনানি শেষে তাদের জামিন নামঞ্জুর করে একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

জানা গেছে, মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও গুলশান থানার উপপরিদর্শক মো. রোমেন মিয়া রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন। অন্যদিকে আসামিপক্ষে রিমান্ড বাতিল ও জামিন চেয়ে আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

অভিযোগের বিষয়ে মামলার বাদী মনিরুজ্জামান বাবু বলেন, ওবায়দুল্লাহ নামে এক ব্যক্তিকে দুলাভাই হিসেবে আমার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন মিম। পরে বিভিন্ন সময়ে ব্যবসার কথা বলে ১৩ লাখ ১৭ হাজার টাকা নেন মিম ও ওবায়দুল্লাহ। বিশ্বাস করে দলিল ছাড়া লেনদেন হলেও পরে দলিল করতে চাইলে তারা টালবাহানা শুরু করেন। পাওনা টাকা ফেরত দেবেন না বলে হুঁশিয়ারি দেন এবং আমাকে বিভিন্ন রকমের ভয়ভীতি ও হুমকি দেখান।

এ ঘটনায় আটঘড়িয়া উপজেলার যুবলীগ নেতা ও ব্যবসায়ী মনিরুজ্জামান বাবু বাদী হয়ে রাজধানীর গুলশান থানায় মামলা দায়ের করেন। এ মামলার পর তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃত মিম খাতুন পাবনা পৌর সদরের পুরাতন মাসুম বাজার এলাকার মিন্টু মোল্লার মেয়ে এবং তার স্বামী ওবায়দুল্লাহ একই এলাকার মৃত মাওলানা কেসমত উল্লাহর ছেলে। মিম পাবনা পৌর যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি।


যুব মহিলা লীগ নেত্রী আফসানা মিম   গ্রেপ্তার  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

সাংবাদিক আশফাক ও স্ত্রীর জামিন নামঞ্জুর

প্রকাশ: ০৯:১৯ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

গৃহকর্মী প্রীতি ওরাংয়ের মৃত্যুর ঘটনায় ডেইলি স্টারের নির্বাহী সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল হক ও তার স্ত্রী তানিয়া খন্দকারের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) তারা জামিন আবেদেন করলে তার ওপর শুনানি নেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ফারাহ দিবা ছন্দা।

পরে বিচারক জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে আদেশ দেন বলে আদালত পুলিশের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসআই হেলাল উদ্দিন জানান।

গৃহকর্মীর মৃত্যুতে স্ত্রীসহ আসামি সাংবাদিক আশফাক গৃহকর্মীর মৃত্যুতে স্ত্রীসহ আসামি সাংবাদিক আশফাক 
চারদিনের রিমান্ড শেষে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি আশফাক ও তার স্ত্রীকে কারাগারে পাঠানো হয়েছিলো। ওই সময় তাদের পক্ষে জামিন চাওয়া হয়নি।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি সকালে মোহাম্মদপুরের শাহজাহান রোডের বাসার ৯ তলা থেকে পড়ে গুরুতর আহত হয় শিশু প্রীতি ওরাং। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় ৭ ফেব্রুয়ারি বুধবার নিহত প্রীতি ওরাংয়ের বাবা লুকেশ ওরাং বাদী হয়ে ‘অবহেলাজনিত কারণে’ মৃত্যু হয়েছে মর্মে মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে আশফাকুল-তানিয়াসহ ওই বাসা থেকে মোট ছয়জনকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে চারজনকে ছেড়ে দেয় পুলিশ।

সেদিনই দুই আসামিকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি চেয়েছিলো পুলিশ। কিন্তু তা নাকচ করে দিয়ে দুই আসামিকে তিন দিনের মধ্যে কারা ফটকে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছিলেন বিচারক।

এরপর ১৩ ফেব্রুয়ারি আসামিদের চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুর রহমান। থানা পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদের মধ্যেই মামলার তদন্তভার পায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। ওইদিনই আসামিদের ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়।

সাংবাদিক আশফাক   ডেইলি স্টার  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

আরও ৩ মামলায় জামিন পেলেন দুদু

প্রকাশ: ০৩:৩৭ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

রাজধানীর পল্টন থানার আলাদা পৃথক তিন মামলায় জামিন পেয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু।  মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে শুনানি শেষে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. সুলতান সোহাগ উদ্দিনের আদালত এই আদেশ দেন।

এর আগে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি একই আদালত দুদুর আরও পাঁচ মামলায় জামিনের আদেশ দেন। শামসুজ্জামান দুদুর আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তাদলুকদার জানান, নতুন করে এই তিন মামলায় জামিন হওয়ায় সবগুলো মামলাতেই তার জামিন মঞ্জুর হলো। তাই কারামুক্তি তার আর কোনও বাধা রইলো না।

উল্লেখ্য, গত ৫ নভেম্বর রাত ১২টার পরপর গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয়ে ১৫ থেকে ২০ জনের একটি দল শামসুজ্জামানের বড় বোনের বাসা থেকে তাকে তুলে নিয়ে যায়। পরদিন প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলা, পুলিশের ওপর হামলা ও পুলিশ সদস্য হত্যার অভিযোগের মামলায় তিন দিন রিমান্ডে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। রিমান্ড শেষে গত ৯ নভেম্বর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

বিএনপি   ভাইস চেয়ারম্যান   শামসুজ্জামান দুদু  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

মেডিকেল সেক্টরে মাফিয়া চক্র কাজ করে: হাইকোর্ট

প্রকাশ: ০৬:৩০ পিএম, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশু আয়ানের মৃত্যু প্রতিবেদন নিয়ে শুনানিতে হাইকোর্ট বলেছেন, ‘শুধু বাংলাদেশেই নয়— সারা বিশ্বে মেডিকেল সেক্টরে মাফিয়া চক্র কাজ করে। তারা ওষুধসহ মেডিকেল উপকরণ সরবরাহে রি—এজেন্ট হিসেবে কাজ করে।’

স্বাস্থ্য খাত নিয়ে সবার সচেতন হওয়া প্রয়োজন উল্লেখ করে সংশ্লিষ্ট বিচারক বলেন, ‘শুধু আদেশ দিলাম, পত্রিকায় নাম আসলো এটা আমরা চাই না। ১৮ কোটি মানুষের উপকার হবে এমন কিছু করতে চাই।’

রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশু আয়ান আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় রিটের শুনানিতে বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মো. আতাবুল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব কথা বলেন।

এদিন আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়। রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ বি এম শাহজাহান আকন্দ মাসুম।

আদালত এ মামলায় দেশের স্বাস্থ্যখাত নিয়ে তথ্য ও আইন তুলে ধরার জন্য আইনজীবী শিশির মনিরকে ইন্টারভেনর হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেন।

মেডিকেল সেক্টর   হাইকোর্ট  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন