ইনসাইড গ্রাউন্ড

আইপিএলে রোহিতের লজ্জার রেকর্ড

প্রকাশ: ১১:০২ এএম, ০২ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আইপিএলে সফতম দলের মধ্যে একটি। যে সফলতার মূল নায়ক রোহিত শর্মা। নিজের সময়ের বিশ্বসেরা ওপেনার এবং ভারত জাতীয় দলের অধিনায়ক রোহিত অবশ্য এবার মুম্বাইয়ের নেতৃত্বে নেই। আর সেটা নিয়ে বড় রকমের বিতর্কও দেখা যাচ্ছে।

রোহিতের কাছ থেকে ব্যাটার হিসেবে আরও ভালো কিছু পাওয়ার আশাতেই নাকি অধিনায়কের পদ থেকে তাকে সরানো হয়েছিল। কিন্তু ভারতের এই ওপেনার যে ব্যাট হাতেও পার্থক্য গড়তে পারছেন না। মুম্বাই হেরেছে টানা তিন ম্যাচ। এই তিন ম্যাচে ছিল না কোনো রোহিতসুলভ ইনিংস। সবশেষ রাজস্থানের বিপক্ষে ম্যাচে তো গোল্ডেন ডাকই মেরেছেন তিনি।

রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে প্রথম বলে আউট হয়ে অনাকাঙ্ক্ষিত এক রেকর্ডের মালিকও হয়েছেন ভারত অধিনায়ক। আইপিএলে এখন সর্বোচ্চ বার শূন্য রানে আউট হয়েছেন রোহিত। মোট ১৭ বার ডাক মেরেছেন সময়ের সেরা এই ওপেনার। অবশ্য এই লজ্জায় তিনি একা নন। আগে থেকেই ১৭ ডাক নিয়ে সবার ওপরে ছিলেন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান দীনেশ কার্তিককে।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৫ বার শূন্য রানে আউট হয়েছেন চার জন। এদের মধ্যে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও সুনীল নারাইন মারকুটে ব্যাটার হিসেবে স্বীকৃত। পীযূষ চাওলা, মানদীপ সিংও মেরেছেন ১৫ ডাক। এরপরেই আছেন রশিদ খান, মনীশ পাণ্ডে ও আম্বাতি রাইডু। এদের ডাক আছে ১৪ বার।  

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতেও ডাক মারার হিসেবে ওপরের দিকে আছেন রোহিত শর্মা। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১২ বার শূন্য রানে আউট হওয়ার রেকর্ড রোহিতের। সর্বোচ্চ ১৩ বার শূন্য রানে আউট হয়েছেন আয়ারল্যান্ডের পল স্টার্লিং। এছাড়া স্বীকৃত টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ শূন্য রানে ৪৩ বার আউট হয়েছেন সুনীল নারাইন। ইংল্যান্ডের সাবেক ওপেনার অ্যালেক্স হেলসও ৪৩ বার ডাক মেরেছেন।


রোহিত শর্মা   মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স   আইপিএল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

আইপিএলে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে রাজস্থানকে হারিয়ে ফাইনালে হায়দরাবাদ

প্রকাশ: ০২:৪৭ এএম, ২৫ মে, ২০২৪


Thumbnail

আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ আগে ব্যাটিং করা মানেই প্রতিপক্ষ বোলারদের জন্য দুর্দিন। ভারতের এই ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগের গ্রুপ পর্বে এমন দৃশ্য নিয়মিত দেখা গেলেও প্লে অফে তা দেখা গেল না।

প্রথম কোয়ালিফায়ারে কলকাতা নাইট রাইডার্সের কাছে বিধ্বস্ত হলেও ফাইনালের ওঠার দ্বিতীয় সুযোগ পায় প্যাট কামিন্সের দল। সেখানেও আগে ব্যাট করে চিরচেনা তাণ্ডব চালাতে পারল না।

তবে ১৭৫ রানের পুঁজি নিয়ে হায়দরাবাদ ঠিকই নাম লিখিয়েছে ফাইনালে। শাহবাজ আহমেদ ও অভিষেক শর্মার ঘূর্ণিতে ভর করে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে রাজস্থান রয়্যালসকে ৩৬ রানে হারিয়েছে তারা।

 একই ভেন্যুতে আগামী ২৬ মে শিরোপা লড়াইয়ে কলকাতার মুখোমুখি হবে দলটি। চেন্নাইয়ের চেপক স্টেডিয়ামে রান তাড়ায় নেমে শুরুটা খুব একটা খারাপ করেনি রাজস্থান।

৭ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে তোলে ৫৬ রান। ওপেনার যশস্বী জয়সওয়াল বেশ ছন্দেই ছিলেন। কিন্তু একই উইকেটে রাজস্থানের দুই স্পিনার সফলতা না পেলেও মুদ্রার উল্টোপিঠ দেখেছেন হায়দরাবাদের দুই বাঁহাতি স্পিনার। পরের সাত ওভারে পাঁচ উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন তারা।  

নিজের প্রথম ওভারেই জয়সওয়ালকে (৪২) শিকার করেন শাহবাজ। বাঁহাতি এই স্পিনার নিয়মিত বোলার হলেও পার্টটাইমার হিসেবে পরিচিত অভিষেক। ব্যাট হাতে এবারের আসরে সর্বোচ্চ ছক্কা হাঁকিয়েছেন তিনি। তবে আজ বল হাতে নিজের কার্যকরিতা দেখালেন এই বাঁহাতি। প্রথম ওভারে রাজস্থান অধিনায়ক সাঞ্জু স্যামসনকে তুলে নেওয়ার পর সাজঘরে ফেরান শিমরন হেটমায়ারকেও। পুরো ৪ ওভার বোলিং করে ২৪ রান খরচে এ দুটো উইকেট নেন তিনি। অন্যদিকে সমান ওভারে ২৩ রান দিয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট শিকার করেন শাহবাজ।

শেষদিকে রাজস্থানকে লড়াইয়ে রাখার চেষ্টা করেন ধ্রুব জুরেল। কিন্তু ডেথ ওভারে নটরাজনের দুর্দান্ত বোলিংয়ের কাছে ব্যর্থ হয় তার একক প্রচেষ্টা। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটে ১৩৯ রানে থামে রাজস্থান। জুরেল অপরাজিত থাকেন ৩৬ বলে ৫৬ রান করে।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটে ১৭৫ রান তোলে হায়দরাবাদ। পাওয়ার প্লেতে ৩ উইকেট হারালেও ৬৮ রান জমা করে তারা। তিনটি উইকেটই নেন ট্রেন্ট বোল্ট। এর মাঝখানে ১৫ বলে ৩৭ রানের ঝলক দেখান রাহুল ত্রিপাঠি। কিন্তু এরপর কমতে থাকে হায়দরাবাদের রানের গতি। থিতু হলেও ২৮ বলে ৩৪ রানের বেশি করতে পারেননি ট্রাভিস হেড। বিপর্যয়ের ভিড়ে একপ্রান্ত আগলে রেখে হায়দরাবাদকে লড়াকু সংগ্রহ এনে দেন হাইনরিখ ক্লাসেন। ৩৪ বলে ৪ ছক্কায় ৫০ রান করেন এই ব্যাটার। তার কার্যকরী ইনিংসকে পরে বৃথা যেতে দেননি শাহবাজ-অভিষেক।


আইপিএল   ক্রিকেট   খেলাধুলা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

জাভিকে ছাঁটাইয়ের কিছুক্ষণের মধ্যেই বার্সা পেল নতুন কোচ

প্রকাশ: ০৯:০৯ পিএম, ২৪ মে, ২০২৪


Thumbnail

একটা লম্বা সময় ধরে গুঞ্জন ছিল যে বার্সেলোনা থেকে বরখাস্ত হতে যাচ্ছেন কোচ জাভি হার্নান্দেজ। তবে গুঞ্জন থাকলেও কোনো কিছুই নিশ্চিত ছিল না। অবশেষে সেসব নাটকীয়তার অবসান হলো। জাভি হার্নান্দেজকে বরখাস্ত করেছে স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা।

আর জাভিকে ছাঁটাই করার পর খুব বেশি সময় পার হয়নি, এর মধ্যেই নিজেদের পরবর্তী কোচ খুঁজে নিয়েছে কাতালান এই ক্লাব। অফিসিয়ালি কোনো ঘোষণা না এলেও বিবিসি ও ইতালিয়ান সাংবাদিক ফাব্রিসিও রোমানো নিশ্চিত করেছেন, হানসি ফ্লিকের সঙ্গে চুক্তিতে পৌঁছেছে কাতালানরা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রোমানো জানান, দুই বছরের জন্য ফ্লিককে হেড কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বার্সা। ফ্লিকের এজেন্ট পিনি যাহাবি বিষয়টি নিশ্চিত করে।

অর্থাৎ, ২০২৬ সাল পর্যন্ত বার্সায় থাকবেন জার্মান এই কোচ। সঙ্গে নিজের দুইজন সহকারীও নিয়ে আসবেন তিনি।

২০২০ সালে যিনি বায়ার্নের হয়ে ফ্লিক জিতেছিলেন ট্রেবল। এরপর জার্মানি জাতীয় দলের হয়ে দায়িত্ব পালন করেন এই কোচ। যদিও ২০২৩ সালে সেপ্টেম্বর মাসে তাকে ছাঁটাই করা হয়।

এর আগে ক্লাবের বাজে পারফরম্যান্সের কারণে গত জানুয়ারিতেই মৌসুম শেষে বার্সেলোনা ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন জাভি হের্নান্দেস। গত মাসে তিনি নেন ইউটার্ন, জানান কাতালানদের সঙ্গেই থাকছেন। এরপর আবারও আসে ভিন্ন খবর। জাভিকে ছাঁটাই করার বিষয়ে প্রতিবেদন আসে গণমাধ্যমে। অবশেষে শেষই হলো বার্সার সঙ্গে তার পথচলা।  

২০২১ সালে কাতারের ক্লাব আল সাদ থেকে বার্সেলোনায় যোগ দেন জাভি। ২০২২-২৩ মৌসুমে তার অধীনে দল জেতে লিগ শিরোপা। এরপর থেকে দিন দিন খারাপ হতে থাকে পারফরম্যান্স। চলতি মৌসুমে পিএসজির কাছে হেরে তাদের বিদায় নিতে হয় চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে। বাজে ফর্মে তারা খুঁইয়েছে লিগ শিরোপাও।


জাভি হার্নান্দেজ   বার্সেলোনা   ফুটবল   লা লিগা   হানসি ফ্লিক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

শেষমেষ বরখাস্ত হলেন বার্সা কোচ জাভি

প্রকাশ: ০৮:৪৫ পিএম, ২৪ মে, ২০২৪


Thumbnail

একটা লম্বা সময় ধরে গুঞ্জন ছিল যে বার্সেলোনা থেকে বরখাস্ত হতে যাচ্ছেন কোচ জাভি হার্নান্দেজ।তবে গুঞ্জন থাকলেও কোনো কিছুই নিশ্চিত ছিল না। অবশেষে সেসব নাটকীয়তার অবসান হলো। জাভি হার্নান্দেজকে বরখাস্ত করেছে স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা।

শুক্রবার নিজেদের অফিশিয়াল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে এক বিবৃতিতে তথ্যটি জানিয়েছে বার্সেলোনা। একই সঙ্গে তাদের ওয়েবসাইটেও জাভির সঙ্গে চুক্তি শেষ করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

বিবৃতিতে বার্সা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এফসি বার্সেলোনা জাভিকে তার কোচের দায়িত্ব পালনের জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছে। একইসঙ্গে বার্সার খেলোয়াড় এবং অধিনায়ক হিসেবে অতুলনীয় ভূমিকার জন্য তার প্রতি কৃতজ্ঞ। তার ভবিষ্যতের জন্য ক্লাব শুভকামনা জানাচ্ছে।

আগামী রোববার সেভিয়ার বিপক্ষে খেলবে বার্সা, যা হতে যাচ্ছে চলতি মৌসুম এবং জাভির অধীনে শেষ ম্যাচ। শিগগিরই ক্লাবের নতুন কোচের বিষয়ে ঘোষণা দেওয়া হবে।


জাভি হার্নান্দেজ   বার্সেলোনা   ফুটবল   লা লিগা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বাংলাদেশের হারের পর ইমরুলের খোঁচা!

প্রকাশ: ০৬:৪৩ পিএম, ২৪ মে, ২০২৪


Thumbnail

র‍্যাঙ্কিংয়ে ১০ ধাপ পিছিয়ে, পরিসংখ্যানে যোজন যোজন দূরে। তবুও সেই দলের কাছেই নত হতে হল টাইগারদের।

অভিজ্ঞতা ও পরিসংখ্যান, সবদিক থেকে এগিয়ে থেকেও যুক্তরাষ্ট্রের মতো ছোট দলের কাছে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খুইয়েছে টিম টাইগার্স। আর স্বাগতিকদের বিপক্ষে এমন হারের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উঠেছে সমালোচনার ঝড়।

হিউস্টনের প্রেইরি ভিউ ক্রিকেট কমপ্লেক্সে সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০তে মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র। এমনিতেই সিরিজের প্রথম টি-২০তে হেরে মানসিকভাবে পিছিয়ে ছিল সফরকারীরা। গতকাল সেই একই ভুলের পুনরাবৃত্তি করে শান্তরা। এতে ২-০ তে এগিয়ে সিরিজ শিরোপা নিশ্চিত করেছে স্বাগতিকরা।

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাস গড়ার রাতে সামাজিক মাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করেন নেটিজেনরা। টাইগারদের সাবেক ওপেনার ইমরুল কায়েসও দিয়েছেন রহস্যময় এক পোস্ট। 

ম্যাচ শেষ হওয়ার পরপরই নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে পোস্ট দিয়েছেন ইমরুল। কোনো কিছু না লিখে কয়েকটি ইমোজিতে নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছেন। দিয়েছেন চুপ থাকা ও ক্ষমা প্রকাশের ইমোজি। 

বাংলাদেশ সময় রাত ১২টা ৩৯ মিনিটে পোস্ট দেওয়ার পর সকাল ৯টা ৪৩ মিনিট পর্যন্ত রিঅ্যাকশন পড়েছে ১ লাখেরও বেশি। ১৮ হাজারেরও বেশি মন্তব্য এসেছে। স্বাভাবিকভাবেই সেখানে বাংলাদেশের ভক্ত-সমর্থকদের তির্যক মন্তব্য ছিল বেশি। শেয়ার হয়েছে ৭ হাজারেরও বেশি।


যুক্তরাষ্ট্র   বাংলাদেশ   ক্রিকেট   ইমরুল কায়েস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ধরাশায়ী বাংলাদেশ, সমস্যা কোথায় জানে না সাকিব

প্রকাশ: ০৬:২৭ পিএম, ২৪ মে, ২০২৪


Thumbnail

নিজেদের থেকে র‍্যাংকিংয়ে ১০ ধাপ পেছানো দল যুক্তরাষ্ট্রের কাছে লজ্জাজনকভাবে দ্বিপাক্ষিক টি-২০ সিরিজ হেরেছে বাংলাদেশ দল। এমন হারের পর থেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। অবশ্য সাকিব আল হাসান বলছেন, সমস্যা কোথায় জানলে, দলকে সমাধান দিতে পারতেন তিনি।

এদিন ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন সাকিব। এসময় তাকে কাছে প্রশ্ন করা হয়, সমস্যাটা কোথায়? সাকিবের কথায়, তিনি জানেন না কী কারণে এমন হচ্ছে।

সিরিজ হার নিয়ে সাকিবের কথা, ‘অবশ্যই হতাশার। আমরা আশা করিনি। যুক্তরাষ্ট্র দলকে কৃতিত্ব দিতে হয়, তারা যেভাবে খেলেছে।’

টপঅর্ডার ব্যাটাররা রান করছেন না। টি-২০ ক্রিকেটের সঙ্গে যেন মানাতেই পারছেন না তারা। আসলে মূল সমস্যাটা কোথায়? সাকিবের কাঠখোট্টা কথা, ‘আমি বলতে পারব না। এটার জবাব আমার কাছে নেই।’

এরপর আরেক প্রশ্নের জবাবে ফের বলেন, ‘আমি জানি না। আমি জানলে তো টিমকে বলতাম, রেজাল্ট অন্যরকম হতো।’

বৃহস্পতিবার হিউস্টনের প্রেইরি ভিউ ক্রিকেট কমপ্লেক্সে সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০তে মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র। এমনিতেই সিরিজের প্রথম টি-২০তে হেরে মানসিকভাবে পিছিয়ে ছিল সফরকারীরা। গতকাল সেই একই ভুলের পুনরাবৃত্তি করে শান্তরা। এতে এক ম্যাচ হাতে রেখেই ২-০ তে এগিয়ে সিরিজ শিরোপা নিশ্চিত করেছে স্বাগতিকরা।


সাকিব আল হাসান   ক্রিকেট   বাংলাদেশ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন