ইনসাইড বাংলাদেশ

লক্ষীপুরে শেষ সময় জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা


Thumbnail

ঈদের আর বেশি দিন বাকি নেই। এরই মধ্যে ক্রেতাদের পদচারণায় সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত মুখর থাকছে লক্ষীপুর শহরের বিপণি বিতানগুলো। নিজেদের পছন্দের পোশাকটা কিনতে আগে থেকেই শপিংমলে ভিড় করছেন ক্রেতারা। 

এদিকে নিজেদের সাধ্যমতো কেনাকাটায় ব্যস্ত রয়েছেন সবাই। বাজারে সকল শ্রেণির লোকেদের চাহিদা অনুযায়ী সব দামের কাপড় রয়েছে বাজারে। জেলা শহরের বিভিন্ন বিপণি বিতানের পাশাপাশি ফুটপাতের দোকানগুলোতে কেনাকাটা শুরু হয়ে গেছে। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার রোজার প্রথম থেকেই কেনাকাটা শুরু করেছেন ক্রেতারা। আর বেচাবিক্রিতে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। ব্যবসায়ীরা সন্তুষ্ট প্রকাশ করলেও বেশি দামে বিক্রির অভিযোগ ক্রেতাদের। 

সরেজমিনে দেখা যায়৷ লক্ষীপুর পৌর শহরের  তমিজ মার্কেট। পৌর বিপণী বিধান। পৌর সুপার মার্কেট। মুক্তিযোদ্ধা মার্কেট।  পৌর হকার্স  মার্কেট। চকবাজার মসজিদ মার্কেট। অঙ্গ শোভা। নদী বাংলা রশিদ চৌধুরীর কমপ্লেক্স ভবনের শপিং মল সহ বিভিন্ন মার্কেটগুলোতে কাপড়, জুতা ও কসমেটিক্স দোকানে ক্রেতা সাধারণের ভিড় লক্ষ্য করা যায়। তাছাড়া মসজিদ মার্কেটের ফুটপাতের মৌসুমি ও ভ্রাম্যমাণ দোকানেও নিম্নবিত্ত মানুষদের আনাগোনা রয়েছে।

ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের জানায়, প্রতিবারের মতো এবারও ঈদ বাজারে এসেছে বিভিন্ন ধরনের আকর্ষণীয় সব পোশাক। তবে এবারে বাহারি ব্রান্ডের পাঞ্জাবির কালেকশন রয়েছে। তাছাড়া বাজারে দেশীয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের আধুনিক ডিজাইনের সব ধরনের পোশাক রয়েছে। বিভিন্ন ব্রান্ডের পাঞ্জাবি, শার্ট, গেঞ্জি, ফতোয়া, শার্ট-প্যান্ট, মেয়েদের জন্য থ্রি-পিস, ফ্রক, স্কার্ট ও শিশুদের শার্ট-প্যান্ট,  ট্রপিস ছাড়াও ওয়ান ম্যান, কালার কিউ, ডিটেক্স, ওয়েলি, ব্লুডিম, ব্লাক বার্ডের পাঞ্জাবি এবং শিশুদের জন্য সব ধরনের নজরকাড়া পোশাক পাওয়া যাচ্ছে। তবে পুরুষ ক্রেতাদের তুলনায় নারী ক্রেতাই বেশি। তাছাড়া গত বছরের তুলনায় এবার সব পোশাকের দাম একটু বেশি বলে দাবি ক্রেতাদের।

দিবাহা  নামে এক ক্রেতা বলেন, শেষ মুহূর্তে ভিড়ের কারণে এ বছর ঈদের কেনাকাটা একটু আগেই সেরে ফেলার ইচ্ছা থাকলেও এর পরেও এসে দেখি বাজারে উপচেপড়া ভিড়। কাপড়ের দাম চাইছে বেশি। দামাদামির সময় নেই,  এর মধ্যেই আমার জন্য থ্রি-পিস কিনলাম। আমার আরো অনেক কেনাকাটা বাকি আছে। 

পয়েন্ট টাস স্বত্ত্বাধিকারী কমল সাহা  বলেন, এবার বিভিন্ন ব্রান্ডের ভাল পাঞ্জাবীর কালেকশন আছে আমার দোকানে তাছাড়া ভাল মানের শার্ট-টিশার্ট ও আছে বিক্রি ও ভাল হচ্ছে। আমার কিছু স্থায়ী কাস্টমার আছে তারা দেরিতে হলেও আমার এখান থেকে কিনবেই। এবার বেচাবিক্রি বেশ ভাল বলে জানান তিনি। 

মীম ফ্যশনের স্বত্ত্বাধিকারী ও মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটে ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি  হেলাল  বলেন, শুরুতে ক্রেতা কিছুটা কম হলেও ঈদের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে দোকানে ক্রেতাদের ভিড় ততই বাড়ছে। আমাদের দোকানে পোশাকের পাশাপাশি জুতা ও প্রসাধনী বিক্রি হলেও এখন পর্যন্ত পোশাকের বিক্রিই বেশি। এ বছর দাম বেশি হলেও পোশাকের মান ভালো হওয়ায় ক্রেতারা সন্তষ্ট।

কামাল শপিং কমপ্লেক্সের রুপসী বস্ত্রালয়  স্বত্ত্বাধিকারী লিটন সাহা বলেন, আমার দোকানে সব বয়সের সকল সাইজের পোশাকের পাশাপাশি বেড়েছে জুতা-স্যান্ডেলের বিক্রি। ছোট-বড় সবাই আসছেন সাধ্যের মধ্যে পছন্দ মতো জুতা-স্যান্ডেল কিনতে।

লক্ষীপুর মডেল সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুদ্দিন  বলেন, ঈদকে সামনে রেখে ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা যেন নির্বিঘ্নে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারে সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সর্বদা তৎপর রয়েছে।


ঈদুল ফিতর. ঈদের বাজার  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

উপজেলা নির্বাচন: নওগাঁর দুই উপজেলায় নির্বাচিত যারা

প্রকাশ: ০৩:১৩ পিএম, ৩০ মে, ২০২৪


Thumbnail

নওগাঁর দুটি উপজেলা পরিষদের ৩য় ধাপে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২৯ মে) রাণীনগর ও আত্রাই উপজেলায় সকাল ৮ থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই এ ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়।

বুধবার (২৯ মে) রাতে ভোট গণনা শেষৈ বেসরকারিভাবে ভোটের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। ফলাফলে দেখা যায় রাণীনগরে বিজয়ী হয় রাহিদ সরদার এবং আত্রাই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হন এবাদুর রহমান।

প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে রাণীনগর উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য রাহিদ সরদার। তিনি কাপ পিরিচ প্রতীকে ২৩ হাজার ৪৬৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আসাদুজ্জামান কৈ মাছ প্রতীকে পেয়েছেন ১৪হাজার ৫৪৮ ভোট।

আর মহিলা ভাইস চেয়ারম্যন পদে রুমা বেগম পদ্ম ফুল প্রতীকে পেয়েছেন ৩২ হাজার ১৩৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মর্জিনা বেগম প্রজাপতি প্রতীকে ১৩ হাজার ২০ ভোট পেয়েছে। এবং পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যন পদে প্রদ্যুৎ কুমার প্রামানিক চশমা প্রতীকে পেয়েছে ১৬ হাজার ৪১৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জারজিস হাসান টিউবওয়েল প্রতীকে ১২ হাজার ৪৮ ভোট পেয়েছে।

অপরদিকে আত্রাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান এবাদুর রহমান বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি কৈ মাছ প্রতীকে ২১ হাজার ৪৭৬ ভোট পেয়ে চতুর্থবারের মতো নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আজিজুর রহমান পলাশ জোড়া ফুল প্রতীকে পেয়েছেন ১৩হাজার ৪৭৮ ভোট।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌসী চৌধুরী কলস প্রতীকে ৩৬ হাজার ৫২৯ ভোটে পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মিতু বানু ফুটবল প্রতীকে ২৯ হাজার ৯১১ভোট পেয়েছে। এবং পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজুল শেখ চশমা প্রতীকে ৩৩ হাজার ২৩৩ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মো: আফসার তালা প্রতীকে ৩২ হাজার ৮১ ভোট পেয়েছে।

তাদেরকে বেসরকারিভাবে তাদের বিজয়ী ফলাফল ঘোষণা করেন রাণীনগর আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে তাবাসসুম সঞ্চিতা বিশ্বাস।

উল্লেখ্য, রাণীনগর উপজেলায় ভোট পড়েছে ৪১ দশমিক ৬১ শতাংশ এবং আত্রাই উপজেলায় ৪২ দশমিক ৭৯ শতাংশ।


উপজেলা নির্বাচন   বিজয়ী প্রার্থী  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

উপকূলীয় অঞ্চলে দুর্যোগ সহনীয় ঘর করে দেয়া হবে: শেখ হাসিনা

প্রকাশ: ০২:২৩ পিএম, ৩০ মে, ২০২৪


Thumbnail

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ঘূর্ণিঝড়  রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা-বাঁধ মেরামত শুরু হয়েছে। উপকূলীয় অঞ্চলে দুর্যোগ সহনীয় ঘর করে দেয়া হবে। আওয়ামী লীগ সরকার এসেছে বলেই এই উপকূলীয় অঞ্চলে শান্তি এসেছে। অনেকেই ক্ষমতায় ছিল কিন্তু কেউ তা পারেনি। এই অঞ্চলের বাংলাদেশের কেউ ভূমিহীন থাকবে না। 

আজ বৃহস্পতিবার (৩০ মে) পটুয়াখালীর কলাপাড়া পৌর শহরে সরকারি মোজাহার উদ্দিন বিশ্বাস ডিগ্রি কলেজ মাঠে ত্রাণ বিতরণের পরে এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে দেওয়া বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। এর আগে ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গণতন্ত্র আছে বলেই দেশে উন্নয়ন হচ্ছে। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। এই অঞ্চলের (উপকূলের) মানুষ প্রতিনিয়ত প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করে জীবনযুদ্ধে লিপ্ত হয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসবেই, সেটাকে মোকাবিলা করে মানুষের জীবনমান রক্ষা করাই আমাদের লক্ষ্য এবং সেটাই আমরা করে যাচ্ছি।

শেখ হাসিনা বলেছেন, ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট, বাঁধ দ্রুত মেরামতে আওয়ামী লীগ সরকার কাজ করছে। ইতোমধ্যে যে সমস্ত রাস্তাঘাট ভেঙে গেছে, সেগুলো মেরামত করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি যে বাঁধগুলো ভেঙে গেছে, সেগুলোও মেরামতের কাজ ইতোমধ্যে আমরা শুরু করে দিয়েছি। যাতে বর্ষার আগেই আমরা বাঁধগুলো নির্মাণ করে জলোচ্ছ্বাস বা পানির হাত থেকে মানুষকে বাঁচাতে পারি।

এবারের ঝড়-জলোচ্ছ্বাস খুবই অস্বাভাবিক হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমি সাইক্লোন শেল্টার করেছি, সেখানে মানুষ আশ্রয় পেয়েছে। যারা গৃহহীন, তাদের দুর্যোগ সহনীয় ঘর করে দিয়েছি। যে কারণে মানুষ অন্তত আশ্রয়ের জায়গা পেয়েছে। পশুপাখি আশ্রয়ের ব্যবস্থা পেয়েছে।’

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ২ হাজার লোকদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তার সফরসঙ্গী হিসেবে সঙ্গে ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মহিববুর রহমানসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা।


উপকূলীয় অঞ্চল   দুর্যোগ   শেখ হাসিনা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে ৫০ জলদস্যুর আত্মসমর্পণ

প্রকাশ: ০১:৪৮ পিএম, ৩০ মে, ২০২৪


Thumbnail

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন চট্টগ্রাম কক্সবাজার জেলার উপকূলীয় এলাকার ১২ বাহিনীর ৫০ জলদস্যু। এর মধ্যে একজন নারীও রয়েছেন। বৃহস্পতিবার (৩০ মে) চট্টগ্রাম র‌্যাব আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে দস্যুরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে অস্ত্র গোলাবারুদ জমা দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেন।

র‌্যাব জানায়, সংস্থাটির চট্টগ্রাম ইউনিটের উদ্যোগে এর আগে ২০১৮ এবং ২০২০ সালে চট্টগ্রাম কক্সবাজারের উপকূলীয় অঞ্চলের ৭৭ জন জলদস্যু আত্মসমর্পণ করেছিল। এটি অন্যান্য জলদস্যুদের মধ্যে ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। একপর্যায়ে চট্টগ্রামে বাঁশখালী এবং কক্সবাজারের চকরিয়া, পেকুয়া, মহেশখালী কুতুবদিয়া অঞ্চলের জলদস্যুরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আশার আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম র‌্যাব তাদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়।

২০১৮ সালের গত নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত ঘোষণা করেন। এতে অত্র অঞ্চলের জলভাগে দস্যুতার ঘটনা কমে গেছে।


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী   জলদস্যু   আত্মসমর্পণ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

সড়ক মেরামতের কাজ শেষ করার নির্দেশ দিলেন কাদের

প্রকাশ: ০১:৩৬ পিএম, ৩০ মে, ২০২৪


Thumbnail

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলোর মেরামতের কাজ ঈদের আগেই শেষ করার নির্দেশ দিয়েছেন সড়ক পরিবহন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। পাশাপাশি নতুন করে কোথাও কোনও ধরনের খোঁড়াখুড়ি করে যেন জনভোগান্তি না সৃষ্টি করা হয়, সেই বিষয়েও সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (৩০ মে) বেলা সোয়া ১১টায় রাজধানীর বিআরটিএ কার্যালয়ে ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন নিরাপদ করার লক্ষ্যে আয়োজিত এক সভা শেষে তিনি এসব নির্দেশনার কথা জানান।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ঈদযাত্রায় বাড়তি ভাড়া যেন কেউ আদায় করতে না পারে, সে বিষয়ে তৎপর থাকতে হবে। এছাড়া, ঈদের আগে-পরে মিলিয়ে সিএনজি স্টেশন ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার জন্য পদক্ষেপ নিতে জ্বালানি মন্ত্রণালয়কে উদ্যোগ নিতে হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, কুমিল্লা থেকে ৫০ মিনিটের মধ্যে ঢাকায় পৌঁছে যায়, কিন্তু ফ্লাইওভারে এক ঘণ্ট-দেড় ঘণ্টা যানজটে আটকা থাকতে হয়। সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে কথা বলে সংশ্লিষ্টরা বিষয়ে ব্যবস্থা নেন।ফিটনেসবিহীন কোনও বাস যেন চলতে না পারে, বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করুন আপনারা।

তাছাড়া, দেশের সব বাস টার্মিনাল মহাসড়কে চাঁদাবাজি বন্ধ করা এবং সড়কপথে চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, পকেটমার, মলম পার্টি অজ্ঞান পার্টির দৌরাত্ম্য রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, ঈদের দিনসহ এর আগের তিন দিন পরের তিন দিন মহাসড়কে পশুবাহী গাড়ি ছাড়া ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান লরি চলাচল বন্ধ রাখা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তবে, নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য-দ্রব্য, পচনশীল দ্রব্য, গার্মেন্টস সামগ্রী, ওষুধ, সার এবং জ্বালানি বহনকারী যানবাহনকে এর আওতামুক্ত রাখার নির্দেশনা দেওয়া হবে।

বিআরটিএর চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার, সড়ক পরিবহন মহাসড়ক বিভাগের সচিব বি এম আমিন উল্লাহ নুরীসহ সড়ক জনপথ বিভাগ, হাইওয়ে পুলিশ, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়, বিআরটি, সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির প্রতিনিধিদের পাশাপাশি সব জেলার সংশ্লিষ্টরা সভায় অনলাইনে যুক্ত ছিলেন।


সড়ক   কাদের  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ০১:০৮ পিএম, ৩০ মে, ২০২৪


Thumbnail

ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শনে পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (৩০ মে) দুপুর সোয়া ১২টার দিকে তিনি কলাপাড়ায় পৌঁছে পায়রা বন্দরসহ ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। 

ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন শেষে  ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কলাপাড়া পৌর শহরের সরকারি মোজাহার উদ্দিন বিশ্বাস ডিগ্রি কলেজ মাঠে দুই হাজার দুর্গত মানুষের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন তিনি।

ত্রাণ বিতরণ শেষে কলাপাড়ার শেখ কামাল ব্রিজ পরিদর্শন করবেন শেখ হাসিনা। এরপর পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের সম্মেলনকক্ষে বরিশাল বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। 

বিকেল ৫টায় পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের হেলিপ্যাড থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে আজ বেলা ১১টায় রাজধানীর তেজগাঁও বিমানবন্দর থেকে হেলিকপ্টারে দুর্গত এলাকার উদ্দেশে রওনা হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  

উল্লেখ, গত ২৬ মে রাত থেকে ২৭ মে দুপুর পর্যন্ত ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন জেলার মত উপকূলীয় অঞ্চল ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। জলোচ্ছ্বাসের কারণে তলিয়ে গেছে কয়েক হাজার বসত বাড়ি। কৃষি মৎস্য খাতে প্রায় অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।


পটুয়াখালী   কলাপাড়া   প্রধানমন্ত্রী  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন