কোর্ট ইনসাইড

নিজের পক্ষে আইনজীবী নিয়োগ করেছেন বেনজির আহমেদ

প্রকাশ: ০২:০০ পিএম, ২৩ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

হাইকোর্টে রিট লড়তে নিজের পক্ষে আইনজীবী নিয়োগ করেছেন সাবেক আইজিপি বেনজির আহমেদ। 

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সুপ্রিম কোর্ট বারের সম্পাদক ও সিনিয়র আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হককে রিট শুনানির সময় বসে থাকতে দেখা যায়। যদিও বেনজিরের সম্পদ অনুসন্ধানের রিট শুনানির জন্য দুপুর আড়াইটায় সময় নির্ধারণ করেছেন হাইকোর্ট।

এর আগে সোমবার (২২ এপ্রিল) সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদের সম্পদ অনুসন্ধান চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সালা উদ্দিন রিগ্যান। বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদারের হাইকোর্ট বেঞ্চে এর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অনুসন্ধানে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) চিঠি দেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি প্রকাশিত এক জাতীয় দৈনিকের দাবি, পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ও র‌্যাবের সাবেক মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদের বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের খোঁজ মিলেছে। এরপর থেকেই বেশ আলোচনায় পুলিশের সাবেক এই আইজিপি।

বেনজির আহমেদ   সাবেক আইজিপি  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

বেনজীরের আরও ৮টি ফ্ল্যাট ও জমি জব্দের নির্দেশ

প্রকাশ: ০৬:০৪ পিএম, ১২ জুন, ২০২৪


Thumbnail

পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী জিশান মীর্জাসহ মেয়েদের নামে থাকা আটটি ফ্ল্যাটসহ আরও জমি জব্দের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। 

দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার (১২ জুন) ঢাকা মহানগরের জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন এই আদেশ দেন। দুদকের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এ বিষয়ে দুদকের আইনজীবী মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর গণমাধ্যমকে বলেন, রূপগঞ্জে ২৪ কাঠা জমি, উত্তরায় তিন কাঠা জমি, বাড্ডায় ৩৯.৩০ কাঠা জমির ওপর দুটি ফ্ল্যাট, বান্দরবান জেলায় ২৫ একর জমি (লিজ), স্ত্রী জিসান মির্জার নামে আদাবর থানার পিসি কালচার এলাকায় ৬টি ফ্ল্যাট ক্রোক করা হয়েছে। এছাড়া গুলশানে বাবার কাছ থেকে পাওয়া ‘পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি’ মূলে সম্পত্তিতে ৬তলা ভবন, সিটিজেন টিভিতে শেয়ার ও টাওয়ার অ্যাপারেলস (গার্মেন্টেসে) শেয়ার অস্থাবর জমি ফ্রিজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

এর আগে, দুই দফায় বেনজীরের অঢেল সম্পত্তি ক্রোক ও ফ্রিজ করার নির্দেশ দেন আদালত। এরমধ্যে জব্দের সম্পত্তির মধ্যে ১০ কোটি ২১ লাখ টাকার ২৭৩ বিঘা জমি, ২ কোটি ১৯ লাখ টাকা মূল্যের গুলশানে চারটি ফ্ল্যাট, একটি প্লট, ৩০ লাখ টাকা সঞ্চয়পত্রসহ ৪টি বিও অ্যাকাউন্ট, চারটি শতভাগ মালিকানার কোম্পানি ও শেয়ার হিসেবে থাকা ১৫টি কোম্পানি রয়েছে। এসকল সম্পত্তি সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী জীশান মির্জা, তিন মেয়ে যথা- ফারহিন রিসতা বিনতে বেনজীর, জাহরা জারিন বিনতে বেনজীরের এবং তাহসিন রাইসা বিনতে বেনজীরের নামে বলে উল্লেখ করে দুদক।

বেনজীর আহমেদ   দুদক  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

অর্থ আত্মসাতের মামলায় ইউনূসের বিচার শুরু

প্রকাশ: ১১:৩৮ এএম, ১২ জুন, ২০২৪


Thumbnail

নোবেলজয়ী অধ্যাপক . মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দিয়েছেন আদালত। গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক-কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিলের ২৫ কোটি ২২ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের করা মামলায় এ আদেশ দিলেন আদালত। বুধবার (১২ জুন) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত- এর বিচারক সৈয়দ আরাফাত হোসেন আদেশ দেন।

বিচার শুরুর প্রতিক্রিয়ায় ড. ইউনুস গণমাধ্যমকে বলেন, “অনেক হয়রানি করছে বুঝতে পারছি। আজকে সারাক্ষণ খাঁচার মধ্যে ছিলাম। এটা কি নায্য হলো নাকি? যতদিন অপরাধ প্রমাণিত না হচ্ছে, ততদিন নিরপরাধ। একজন নিরপরাধ নাগরিককে লোহার খাঁচায় দাড়িয়ে থাকতে হবে, এটা আমার কাছে অত্যন্ত অপমানজনক।”

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, “কর ফাঁকি দেওয়ার মামলাকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশসহ পশ্চিমা দেশগুলো গুরুত্বপূর্ণ মামলা হিসেবে বিবেচনা করে। ঠিক সেভাবেই ড. ইউনূসের মামলা পরিচালিত হচ্ছে। দেশের যে কোনো নাগরিক আইন ভঙ্গ করলে তার যেমন বিচার হয় ড. ইউনূসেরও সেভাবেই বিচার হচ্ছে। তবে তিনি যেসব কথা বলে বেড়াচ্ছেন তা অসত্য এবং এসব কথা বাংলাদেশের জনগণের জন্য অপমানজনক।”

গত মে দুদকের মামলায় . মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনকে জামিন দেন আদালত। একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে মামলায় অভিযোগ গঠনের বিষয়ে শুনানির জন্য জুন দিন ধার্য করা হয়। গত বছরের ৩০ মে দুদকের উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

মামলার আসামিরা হলেন-গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান . মুহাম্মদ ইউনূস, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নাজমুল ইসলাম, পরিচালক সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আশরাফুল হাসান, পরিচালক পারভীন মাহমুদ, নাজনীন সুলতানা, মো. শাহজাহান, নূরজাহান বেগম পরিচালক এস. এম হাজ্জাতুল ইসলাম লতিফী, অ্যাডভোকেট মো. ইউসুফ আলী, অ্যাডভোকেট জাফরুল হাসান শরীফ। এছাড়াও গ্রামীণ টেলিকম শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মো. কামরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ হাসান, শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের দপ্তর সম্পাদক কামরুল হাসান প্রতিনিধি মো. মাইনুল ইসলাম।

মামলার তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আসামিরা গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক কল্যাল তহবিল থেকে ২৫ কোটি ২২ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। অবৈধভাবে অর্থ স্থানান্তর করা হয়েছে, যা মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে অপরাধ।


মামলা   ইউনূস   বিচার  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

আদালতের নির্দেশ: তনির শোরুম খুলে দিল ভোক্তা অধিদপ্তর

প্রকাশ: ১১:২২ এএম, ১২ জুন, ২০২৪


Thumbnail

উচ্চ আদালতের নির্দেশের পর আলোচিত পোশাক বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানসানভীস বাই তনি শোরুম খুলে দেয়া হয়েছে। বুধবার (১২ জুন) সকাল ১০টার দিকে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক বিকাশ চন্দ্র দাসের নেতৃত্বে একটি টিম পুলিশ প্লাজায় গিয়ে শোরুম খুলে দেন।

এর আগে সোমবার (১০ জুন) তনির শোরুম খুলে দেওয়ার আদেশ দেন উচ্চ আদালতের বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম বিচারপতি এস এম মাসুদ হোসেন দোলনের বেঞ্চ। তবে মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত শোরুম খুলে দেওয়া হয় নি ফলে মঙ্গলবার দুপুরে তনির আইনজীবীরা আদালতে যান। পরে ২৪ ঘণ্টার সময় বেঁধে দেন আদালত।

মঙ্গলবার আদালতের নির্দেশের পর আজ (বুধবার) সকাল ১০টায় তনির শোরুম খুলে দেওয়া হবে বলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছিল জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

এর আগে গত ২১ মে রিট পিটিশনটি দায়ের করেন সানভীস বাই তনির স্বত্তাধিকারী রোবাইয়াত ফাতিমা তনি। ২৭ মেসানভীস বাই তনিশোরুম সিলগালা করা কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

উল্লেখ্য, গত ১২ মে সানবিসের প্রধান শোরুমে অভিযান চালিয়ে সেটি সিলগালা করে দেন সহকারী পরিচালক জব্বার মণ্ডলের নেতৃত্বে একটি টিম। পরে ১৪ মে সানবিসকে দুটি অপরাধের দায়ে ৫০ হাজার দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। কিন্তু শোরুম খুলে না দেয়ায় উচ্চ আদালতে যান তনি।


তনি   শোরুম   ভোক্তা অধিদপ্তর  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

বিচার বিভাগের ইতিহাসে ‘নজিরবিহীন’ ঘটনা ঘটালেন প্রধান বিচারপতি

প্রকাশ: ০৬:৩৮ পিএম, ১০ জুন, ২০২৪


Thumbnail

প্রচলিত নিয়মে সুপ্রিম কোর্টের আপিল ও হাইকোর্ট বিভাগসহ সব আদালত কক্ষে ছবি ওঠানো, ভিডিও করা দণ্ডনীয় অপরাধ। তবে এই প্রচলিত নিয়মের বাইরে বিচার বিভাগের ইতিহাসে ‘নজিরবিহীন’ ঘটনা ঘটালেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান।

সংস্কার কাজ শেষে সুপ্রিমকোর্টের প্রধান বিচারপতির এজলাসে আবার বিচারিক কাজের উদ্বোধন উপলক্ষে বিশেষ অধিবেশন শুরু হয়েছে। আর এই অধিবেশনের বিশেষ দিক ছিল আপিল বিভাগের এজলাস কক্ষে ছবি ও ভিডিও করার পাশাপাশি, সেখান থেকে লাইভ সম্প্রচার করা হয়। 

সোমবার (১০ জুন) বিকাল ৪টার দিকে প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান নেতৃত্বে সুপ্রিমকোর্টের উভয়বিভাগের বিচারপতিদের সমন্বয়ে গঠিত একটি বিশেষ বেঞ্চ বিশেষ অধিবেশনে অংশ নেন।  

বিশেষ অধিবেশনে অ্যাটর্নি জেনারেল সুপ্রিম কোর্টের গৌরবময় ইতিহাস তুলে ধরে বক্তব্য দিয়েছেন। 

এর আগে গত বুধবার এ বিষয়ে দেওয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতির এজলাস কক্ষের নানান মাত্রায় সংস্কারসহ আধুনিকীকরণ করা হয়েছে। 

বিচার বিভাগ   প্রধান বিচারপতি   ওবায়দুল হাসান  


মন্তব্য করুন


কোর্ট ইনসাইড

চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল নিয়ে হাইকোর্টের রায় চেম্বারে বহাল

প্রকাশ: ০৬:০০ পিএম, ০৯ জুন, ২০২৪


Thumbnail

প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করে জারি করা পরিপত্র অবৈধ মর্মে হাইকোর্টের দেওয়া রায় বহাল রেখেছেন চেম্বার জজ আদালত। তবে এ বিষয়ে আপিল বিভাগের নিয়মিত ও পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য আগামী ৪ জুলাই পরবর্তী দিন ঠিক করেছেন আদালত।

রোববার (৯ জুন) চেম্বার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম হাইকোর্টের রায় স্থগিত না করে পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির দিন ধার্য করেন।

এরফলে মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের আদেশটি আপাতত বহাল রইলো বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।


এর আগে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আবেদন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। রোববার (৯ জুন) আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আবেদন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মুহাম্মদ সাইফুল আলম।

গেল ৫ জুন প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে পদে সরাসরি নিয়োগে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি তুলে দিয়ে মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে পরিপত্র জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। কোটা বাতিলে মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্তের একদিন পর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ পরিপত্র জারি করে।

সেখানে বলা হয়েছিল, ৯ম গ্রেড (পূর্বতন ১ম শ্রেণি) এবং ১০ম-১৩তম গ্রেড (পূর্বতন ২য় শ্রেণি) পদে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে মেধাতালিকার ভিত্তিতে নিয়োগ দিতে হবে। ওই পদসমূহে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বাতিল করা হলো।

সরকারি চাকরি   মুক্তিযোদ্ধা কোটা   হাইকোর্ট   চেম্বার আদালত  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন