লিভিং ইনসাইড

ব্যক্তিত্ব উন্নয়নে করণীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৮:০২ এএম, ১৯ অক্টোবর, ২০২১


Thumbnail

আমরা সব সময় নিজেকে অন্যের চেয়ে বুদ্ধিমান, যোগ্য ও শ্রেষ্ঠ হিসেবে তুলে ধরার জন্য সচেষ্ট থাকি। কারণ বর্তমান যুগ হচ্ছে প্রতিযোগিতার যুগ। নিজেকে শ্রেষ্ঠ প্রমাণ করতে না পারলে আপনি অন্যদের থেকে পিছিয়ে পড়বেন। এই প্রচেষ্টায় আপনি কখনও কখনও সফল হচ্ছেন।

কিন্তু যখন নিজেকে নিয়ে একান্তে ভাবছেন তখন আপনি নিজেও স্বীকার করবেন যে আপনার ব্যক্তিত্ব উন্নয়নের যথেষ্ঠ সুযোগ রয়েছে। আপনার এমন অনেক গুণ আছে যা আপনি কাজে লাগাননি, অনেক কৌশল রয়েছে যা আপনি আয়ত্ব করতে পারেননি। মেধার অনেক ক্ষেত্রকে বিকশিত করতে পারেননি। তাই প্রতিনিয়ত নিজের উন্নয়নের সুযোগ রয়েছে। আর এই পরিবর্তনের লক্ষ্য থাকে আরও ভাল মানুষ হওয়া। অমরা চাই আমাদের ব্যক্তিত্ব আরও আকর্ষণীয় হোক, প্রভাব বলয় আরও বাড়ুক। কিছু ভুল ভ্রান্তি কাটিয়ে উঠতে পারলেই আমাদের ব্যক্তিত্ব আরও আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে।

লক্ষ্য স্থির করুন

আমরা প্রতিনিয়ত কিছু কাজ করতে চাই। আমরা মনে করি যে এই কাজগুলো করতে হবে। কিন্তু দেখা যায় যে সে কাজগুলো করা হয় না, জমতে থাকে বা আমাদের মধ্যে এমন আলস্য রয়েছে যা কাজকে পিছিয়ে দেয়। হয়তো আমরা ব্যস্ত, অথবা ক্লান্ত বা সময়মত কাজটি করতে মন চাচ্ছে না। এ ক্ষেত্রে আমাদের আসল সমস্যা হচেছ সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যের অভাব। তাই কাজ করার আগে আমাদের লক্ষ্য স্থির করতে হবে। লক্ষ্য সবসময় মানসিক প্রেরণা যোগায়, আপনার শক্তিকে বাড়িয়ে দেয়। গবেষণায় দেখা যায়, লক্ষ্য যদি খুব ভাসা ভাসা হয় তাহলে তা আদৌ কার্যকরী হয় না। বাস্তবতার সাথে লক্ষ্যের সঙ্গতি না থাকলে তা ফলপ্রসু হয় না। আর লক্ষ্য অর্জনের জন্য নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করা আবশ্যক।

নিজেকে ভালোবাসুন

আপনি নিজেকে যখন পছন্দ করতে শুরু করবেন তখনি আপনি আত্মবিশ্বাসী ও সৃজনশীল হয়ে উঠবেন। দৈনন্দিন কাজের বাধাগুলো আপনার কাছে সহনীয় মনে হবে। তাই নিজের সম্পর্কে ধারণাকে উন্নত করতে সচেষ্ট হোন। আপনার কাজের প্রশংসাসূচক চিঠি, নোট, যে কোন প্রসংশাপত্র, মানপত্র, সার্টিফিকেট এগুলোকে সযত্নে একটি ফাইলে রেখে দিন। কোন কারণে কখনও হতাশা সৃস্টি হলে বা মন খারাপ লাগলে এই কাগজগুলোর দিকে তাকান। আপনি উদ্দীপনা ফিরে পাবেন। নেতিবাচক চিন্তাকে পুরোপুরি বাদ দিন। নিজের সীমাবদ্ধতা নিয়ে না ভেবে নিজের কাজ করার ক্ষমতা ও শক্তি সম্পর্কে বেশি ভাবুন। 

প্রয়োজনে নিজেকে নতুনভাবে উপস্থাপিত করুন। নিজের অবয়বে কিছু পরিবর্তন, গোঁফ, দাড়ি বা নতুন হেয়ার স্টাইল, নতুন পোশাক পরিচ্ছদ এমন কি নতুন শেইপের শাইনিং জুতো ইত্যাদি আপনার ব্যক্তিত্বের প্রকাশকে উন্নততর করতে পারে।

সময়মত কাজ করুন

হাতে সময় থাকতেই কাজ শুরু করুন। সময়ের কাজ সময়ে শেষ না করলে একদিকে যেমন প্রতিদিন কিছু কিছু করে জমতে থাকে তেমনি অন্যদিকে হঠাৎ আপনার বস এমন একটি  জরুরী কাজ আপনাকে ধরিয়ে দিয়েছেন যে সেটি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়তে হবে। ফলে টেবিলে কাজের স্তুপ হয়ে উঠে। যা মনকে খিটমিট করে তোলে। অফিসে উপস্থিতি, মিটিং, অ্যাপয়েন্ট সব ব্যাপারে সময়ানুবর্তী হোন। কোথাও দেরিতে উপস্থিত হওয়া নিজের সম্পর্কে অন্যদের মনে নেতিবাচক বার্তা দেয়।

সময় বাঁচানোর জন্য আপনার কর্মদিবসগুলোতে এক ঘন্টা কম ঘুমান। ঘুম থেকে প্রতি কর্মদিবসে এক ঘন্টা বাঁচাতে পারলে বছর শেষে আপনি পুরো একটি মাস পেয়ে যাচ্ছেন। আর এই অতিরিক্ত কর্মমাস যোগ করতে পারায় আপনি আপনার অনেক অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে পারবেন। যা অন্যদের চেয়ে আপনাকে এগিয়ে রাখবে।

রাগ নিয়ন্ত্রণ করুন

রাগ ও ক্রোধ ব্যক্তিত্ব বিকাশের অন্তরায়। রাগের সময় মানব মস্তিস্ক গামা লেভেলে অবস্থান করে। এ সময় ব্রেনের সার্কিটগুলোর সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ফলে মানুষ সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ হয়। এজন্য ক্রোধের কারণগুলো খুঁজে বের করুন। সেগুলো দূর করার জন্য বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ গ্রহণ করুন, দেখবেন রাগ বা উত্তেজনা কমে গেছে। 

জ্ঞানচর্চা করুন

আত্মনির্মাণ বা আত্মআবিস্কারের জন্য ব্যস্ততার ফাঁকে নিয়মিত পড়াশুনা করুন। আত্মউন্নয়নমূলক, শরীরচর্চা, খাবার, ব্যায়াম, চিকিৎসা, সাহিত্যবিষয়ক বইপত্র সংগ্রহ করে পড়ুন। সফল মানুষদের জীবনী পড়ুন, সে সাথে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও আর্তমানবতার সেবামূলক কর্মকান্ডে নিজকে যুক্ত রাখুন। কারণ জীবন সম্পর্কিত জ্ঞানই আপনার চলার পথকে সহজ করতে পারে। 

ধ্যানচর্চা করুন

আত্মনিমঘ্ন হওয়া ছাড়া নিজের অমিত সম্ভাবনাকে আবিস্কার করা যায় না। তাই প্রতি রাতে শোয়ার আগে বিছানায় গিয়ে চুপচাপ বসুন। ধ্যানের প্রক্রিয়ায় দেহ মনকে প্রশান্ত করুন। সারাদিনের কাজের পর্যালোচনা করুন। ভুলগুলোর জন্য নিজের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিন। ভালো কাজের জন্য নিজকে ধন্যবাদ দিন। নিজের যোগ্যতার প্রতি নতুনভাবে বিশ্বাস স্থাপন করুন। তারপর ঘুমিয়ে পড়ুন।

সকালে ঘুম থেকে উঠে পুনরায় ধ্যানচর্চা করুন। সারাদিনের কাজের পরিকল্পনা করুন। নতুন বিশ্বাসে নতুন দিনের কাজ শুরু করুন। আপনার ব্যক্তিত্ব যেমন উন্নত হবে তেমনি আপনি ধীরে ধীরে সাফল্যের স্বর্ণশিখরে আরোহন করবেন।


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

বর-কনের বয়সের ব্যবধান কত হওয়া উচিত?

প্রকাশ: ০২:২৮ পিএম, ২৮ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

বয়সের ব্যবধান সব দম্পতির জন্য আলাদাভাবে কাজ করে। কারো জন্য ২ বছরের ব্যবধান ভালো কাজ করে, কারো ক্ষেত্রে হয়তো দশ বছরের ব্যবধান। অনেকে আছে যারা নিজের থেকে বেশ বয়স্ক সঙ্গী পেতে চায়। নিজের চাওয়ার মতো সঙ্গী খুঁজে পাওয়াটাই সবচেয়ে বেশি কার্যকরী। তবে বেশিরভাগ সফল বিয়ের ক্ষেত্রে বর-কনের মধ্যে একটি নিখুঁত বয়সের ব্যবধান থাকে যা পছন্দের সঙ্গে সামঞ্জস্যের ভারসাম্য বজায় রাখে। কিছু ক্ষেত্রে বয়সের ব্যবধানই হয়ে উঠতে পারে সুন্দর দাম্পত্যের বড় বাধা। চলুন জেনে নেওয়া যাক-

৭ বছর

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বয়সের ব্যবধান সাত বছরের মতো হলে সেটি তুলনামূলক বেশি সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়। সেক্ষেত্রে দম্পতিদের মধ্যে সংঘর্ষ, ভুল বোঝাবুঝি এবং তর্ক কম হয়। বিয়ের ক্ষেত্রে দুইজনের একজনকে সব সময় পরিণত হতে হবে; তারা বিয়েকে ভেঙে পড়া থেকে রক্ষা করবে। এই বয়সের ব্যবধান অন্যদের তুলনায় অনেক বেশি আদর্শ, কারণ এটি দম্পতিকে স্থিতিশীলতা অর্জন করতে এবং একে অপরকে ঘনিষ্ঠ দৃষ্টিকোণ থেকে বুঝতে সাহায্য করে।

১০ বছর

এমন অনেক বিয়ে আছে যেখানে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পর্যাপ্ত ভালোবাসা এবং বোঝাপড়া থাকলে বয়সের ব্যবধান দশ বছর হলেও সমস্যা হয় না। যখন দুজন মানুষের জীবনের লক্ষ্য, আকাঙ্ক্ষা এবং দৃষ্টিভঙ্গি মিলে যায়, তখন দশ বছরের ব্যবধান হুমকিস্বরূপ নাও হতে পারে। তবে সাধারণ দম্পতির জন্য এটি কিছুটা বাড়াবাড়ি হতে পারে। কখনো কখনো কম বয়সী জন বেশি বয়সী জনের পরিপক্কতার স্তরে দাঁড়াতে পারে না এবং এটি অনেক সমস্যা তৈরি করতে পারে।

২০ বছর

এটি দম্পতির জন্য বয়সের ব্যবধান হিসেবে সেরা নয়। যদিও অনেক বিখ্যাত দম্পতি আছে যাদের বয়সের ব্যবধান ২০ বছরের বেশি। এটি আসলে পার্থক্য হিসেবে খুব বেশি। এক্ষেত্রে লক্ষ্য, আকাঙ্ক্ষা এবং মতামতের ব্যাপক পরিবর্তন হবেই। সব থেকে বড় সমস্যা হতে পারে সন্তান ধারণের প্রয়োজনীয়তা; স্ত্রী বয়স্ক হলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সন্তান ধারণ করতে চাইবে কম বয়সী হলে ততটা আগ্রহী নাও হতে পারে। এক্ষেত্রে চিন্তার স্তরের পার্থক্য সবচেয়ে অন্যতম বড় সমস্যা হতে পারে।

বয়সের ব্যবধান কি সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ?

হ্যাঁ, বয়সের ব্যবধান সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ। বয়সের ব্যবধান অনেক বেশি হলে মতামতের মধ্যে বিশাল পার্থক্য থাকবে, কারণ বর্তমান বিশ্ব প্রতিটি মুহূর্তে পরিবর্তিত হচ্ছে। সেক্ষেত্রে বিয়ে স্বল্পস্থায়ী এবং বিভিন্ন সমস্যা ডেকে আনতে পারে। সাধারণভাবে, বয়সের ব্যবধান যত বেশি হয়, দম্পতিরা তত বেশি সমস্যার মুখোমুখি হয়।


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

অ্যালকোহলে বাড়ে যেসব মারাত্মক রোগের ঝুঁকি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৮:০৭ এএম, ২৪ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

মাদক-অ্যালকোহল শরীরের জন্য ক্ষতিকারক জেনেও অনেকেই নিয়মিত সেবন করে যাচ্ছেন। এখনকার শহুরে জীবনে পার্টিগুলোতে খাবার খাওয়ার পর অ্যালকোহল গ্রহণ অনেকটা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। অভিজাত পরিবারে মদ্যপান স্বাভাবিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে। 

অ্যালকোহল সেবনে কেউ সাময়িকভাবে কিছুটা আরাম অনুভব করতে পারে; কিন্তু বেশি অ্যালকোহল সেবনে রক্তের ট্রাইগ্লিসারাইড লেভেল বৃদ্ধি পেতে পারে, যার ফলে রক্তনালীতে রক্ত জমাট বেঁধে হার্টঅ্যাটাক এবং স্ট্রোক হতে পারে।  রক্তের ট্রাইগ্লিসারাইড লেভেল বেশি পরিমাণে বৃদ্ধি পেলে প্যানক্রিয়াস বা অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ হতে পারে। নিয়মিত এলকোহল নিলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায়। 

আমাদের শরীর এলকোহল পানীয়কে এসিটাইলডিহাইডে রূপান্তরিত করে। এসিটাইল ডিহাইড একটি কারসিনোজেন অর্থাৎ ক্যান্সার সৃষ্টিকারী উপাদান।  অতিরিক্ত অ্যালকোহল সেবনে রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে দুর্বল করে দেয়। ফলে সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যায়। যারা নিয়মিত মদ্যপান বা অ্যালকোহল সেবন করে থাকেন, তাদের যক্ষ্মা, নিউমোনিয়া, এইচআইভি বা এইডস, যৌনবাহিত রোগ সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি। কারণ অতিরিক্ত মদ্যপানকারীরা ঝুঁকিপূর্ণ যৌন আচরণে নিজেদের সম্পৃক্ত করে থাকে। ফলে তারা অস্বাভাবিক আচরণ করে থাকে। 

দীর্ঘমেয়াদে অ্যালকোহল সেবনের ফলে মস্তিস্ক, যকৃত ও হার্টের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সিরোসিস, অ্যালকোহলিক হেপাটাইটিস, ফাইব্রোসিস, উচ্চ রক্তচাপ, কার্ডিওমায়োপ্যাথি, এরিথমিয়া, স্ট্রোক, প্যানক্রিয়েটাইটিসের মতো প্রাণঘাতি রোগ দেখা দিতে পারে। দীর্ঘমেয়াদে অ্যালকোহল সেবনের ফলে মুখ, গলা, ব্রেস্ট এবং লিভারের ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে।  বেশি পরিমাণে অ্যালকোহল সেবনে ডিমেনসিয়া হতে পারে। বিয়ার, ওয়াইন, এলকোহল যেকোনো রূপে সেবন করলে বেশি প্রস্রাব করতে হয়। এলকোহল মুখকে শুষ্ক করে এবং ডিহাইড্রেশন করে থাকে। এ অবস্থায় ব্যাকটেরিয়া মুখের দুর্গন্ধ সৃষ্টি করে থাকে। 

অ্যালকোহল সেবনে বছরে ২.৮ মিলিয়ন মানুষ মারা যায়। গবেষকরা বলেন, অ্যালকোহল সেবনের কোনো নিরাপদ মাত্রা নেই। সামান্য অ্যালকোহল সেবনেও অনেক ক্ষতি হতে পারে। তাই এটি মনে করার কোনো কারণ নেই যে অল্প একটু খেলে কোনো সমস্যা হবে না। অ্যালকোহল সেবনকালে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ব্যথানাশক ওষুধ সেবন করা ঠিক নয়। বিশেষ করে এনএসএআইডি গোত্রভুক্ত ব্যথানাশক ওষুধ সেবন করলে মারাত্মক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হবে।


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

অনলাইন কেনা-কাটায় প্রতারণা, বাঁচবেন কীভাবে?

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৮:০০ এএম, ২৩ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে নিত্য নতুন অনেক অনলাইন প্রতিষ্ঠানেরই জন্ম হয়েছে। এদের মধ্যে কোনটি ভুয়া বুঝবেন কীভাবে? অনলাইন কেনাকাটায় আবার একটু অসতর্ক হলেই প্রতারণার ভয়। তাই নির্দিষ্ট কিছু বিষয়ে সতর্ক থাকুন, স্বাচ্ছন্দ্যে কেনাকাটা করুন। চলুন জেনে নিই, কী বলছেন অনলাইন মার্কেটিং এবং প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা।

আসল ওয়েবসাইট চিনতে হবে

প্রতারক চক্র প্রযুক্তির জ্ঞান কাজে লাগিয়ে অনেক সময় প্রতিষ্ঠানের আসল ওয়েবসাইটের ডিজাইন হালকা পরিবর্তন করে ক্রেতাদের ধোকায় ফেলে দেয়। আবার অনেক সময় ওয়েবসাইটের নামের অক্ষর পরিবর্তন করা হয়, যা ক্রেতারা খেয়াল করেন না। এই বিষয়টি একটু খেয়াল রাখতে হবে। 

এ রকম প্রতারণা থেকে রক্ষা পেতে সত্যিকারের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করেছেন কিনা সেটা বোঝার জন্য দুটো বিষয়ের উপর খেয়াল রাখতে হবে। এর মধ্যে আসল ওয়েবসাইটের অ্যাড্রেসের শুরুতে অবশ্যই https থাকবে এবং ওয়েবসাইটটির একটি পূর্ণ ডোমেইন নেইম থাকবে, অর্থাৎ (WWW.) এর পরে কোন একটি নাম এবং শেষে ডটকম (.COM) থাকবে।

ঠিকানা ও রিভিউ

অনলাইন থেকে পণ্য কেনার সময় ওয়েসবসাইটির ঠিকানা কোথায় তা দেখে নিতে হবে এবং ফোন নাম্বার আছে কিনা তাও দেখতে হবে, প্রয়োজনে ফোন দিয়ে সত্যতা যাচাই করে নিতে হবে। এছাড়া দেখে নিতে হবে পণ্যটির সঠিক রিভিউ। অনেক সময় প্রতারক চক্র ভুয়া রিভিউ দিয়ে ক্রেতাদের প্রতারিত করে থাকে। রিভিউ’র পাশাপাশি দেখতে হবে ক্রেতাদের মন্তব্যগুলো।

শুধু বাংলাদেশ নয় বিশ্বব্যাপি প্রতারণার একটি বড় হাতিয়ার হলো চটকদার বিজ্ঞাপন ও অতিরিক্ত মূল্য ছাড়। এ দুটির ফলেই ক্রেতারা যাচাই-বাছাই না করে পণ্য কিনে প্রতারিত হয়ে থাকেন। আর এমন অফার খুবই সীমিত সময়ের মধ্যে দেওয়া হয়ে থাকে, যাতে ক্রেতারা প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়ে পড়েন। তাই এসব ক্ষেত্রে হুটহাট অর্ডার করার আগে অবশ্যই সতর্ক হওয়া উচিত।

পেইজের বয়স

অনলাইনে পণ্য কেনাকাটা করার ক্ষেত্রে ফেসবুক একটি জনপ্রিয় মাধ্যম। কিন্তু সচেতনতার অভাবে এই ফেসবুক থেকেই প্রতারণার ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটে থাকে। এ জন্য দেখতে হবে ফেসবুক পেইজটি কবে তৈরি করা হয়েছে। পণ্য বিক্রির ক্ষেত্রে এর আগে তারা কোনো লাইভ প্রোগ্রাম করেছে কিনা। ফেসবুক পেইজে ক্রেতাদের কমেন্টের রিপ্লাই দেওয়া হয়েছে কিনা। এছাড়া পেইজটিতে যে সব পোস্ট বুস্ট করা হয়েছে, সেগুলোর তুলনায় অন্য পোস্টগুলোতে যদি লাইক-কমেন্ট অস্বাভাবিক কম থাকে তাহলে সতর্ক হতে হবে। দেখতে হবে ঠিকানা এবং রিভিউ অপশন আছে কি-না।

পণ্য যাচাই-বাছাই

কোনা পণ্য অর্ডার করার আগে সেটির বিবরণ বিস্তারিত আছে কি-না সেটি দেখে নিতে হবে। এছাড়া পণ্যের মাপ, ওজন ইত্যাদির তথ্য জেনে নিতে হবে। প্রয়োজনে চ্যাটিংয়ে গিয়ে আরও প্রশ্ন করুন। সন্দেহ হলে বিজ্ঞাপনের ছবি ছাড়াও পণ্যটির আসল ছবি চাইতে পারেন। সবশেষে প্রতিষ্ঠানটির রিটার্ন এবং রিফান্ড পলিসি আছে কি-না, থাকলে সেটা কেমন এবং গ্রাহকবান্ধব কি-না, সেটাও যাচাই করুন।

অগ্রিম পেমেন্ট

অনলাইন কেনা-কাটায় প্রতারণার একটি বড় হাতিয়ার, গ্রাহকদের কাছ থেকে অগ্রিম অর্থ নেওয়া। কোনো প্রতিষ্ঠিত অনলাইন না হলে বা প্রতিষ্ঠানটির সম্পর্কে সঠিক তথ্য না পেলে অগ্রিম পেমেন্ট না করাই ভালো।

এছাড়া অনলাইনে বা ফেসবুকে লোভনীয় অফারের কোনো পপআপ, ইমেইলে পাওয়া কোনো ফিশিং লিংকে ক্লিক করা কিংবা পাবলিক ওয়াইফাই ব্যবহার করে অনলাইনে কেনাকাটা করা থেকে বিরত থাকাই ভালো।


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

স্যানিটাইজার সম্পর্কে প্রচলিত ভুল ধারণা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৮:৪২ এএম, ১৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

করোনার সময়ে স্যানিটাইজারের জনপ্রিয়তা বাড়তে শুরু করেছে। বিজ্ঞাপন থেকে শুরু করে প্রতিটি মাধ্যমে স্যানিটাইজারের আবেদন বাড়তে শুরু করেছে। কিন্তু স্যানিটাইজারই স্বাস্থ্য সচেতনতার একমাত্র মাধ্যম নয়। স্যানিটাইজার সম্পর্কে আমাদের কিছু ভুল ধারণা রয়ে গেছে। সেগুলো নিয়েই আজ আমাদের আলোচনা:

স্যানিটাইজার হাত পরিষ্কার করায় না

স্যানিটাইজার হয়তো ব্যাকটেরিয়া মেরে ফেলে কিন্তু হাত পরিষ্কার করেনা৷ তাই হাত ধুয়ে স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন। 

সাবানের চেয়ে ভালো স্যানিটাইজার নয়

স্যানিটাইজার কখনই সাবানের প্রতিপূরক না। বরং সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার পর হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হয়৷ হ্যান্ড স্যানিটাইজার কখনই আপনার হাত পরিষ্কার করবে না। ধুলো বালি, ময়লার থেকে নিস্তার আপনি কখনই পাবেন না সাবান বাদে অন্যকিছু ব্যবহার করলে। 

সব হ্যান্ড স্যানিটাইজারের মান এক নয়

সব হ্যান্ড স্যানিটাইজারেই যে একইরকম উপাদান ব্যবহৃত হবে তা কিন্তু না। আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো জানায় হ্যান্ড স্যানিটাইজারে অন্তত ৬০ শতাংশ এলকোহল থাকা উচিত। কিন্তু এর মাত্রার হেরফের তো আছেই। তাই হ্যান্ড স্যানিটাইজারকে পুরোপুরি বিশ্বাস করার মতো যুক্তি তেমন নেই। 

হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিপদ ডেকে আনতে পারে

বাজারের ভালো ভালো হ্যান্ড স্যানিটাইজারগুলোতে এলকোহলের মাত্রা বেশি থাকে। অর্থাৎ এই পণ্যগুলো থেকে সহজেই আগুন লেগে যেতে পারে। তাই যথেষ্ট সাবধান থাকতে হবে ব্যবহারের সময়। 

বাজে রাসায়নিক উপাদান থাকতে পারে

আগেই বলা হয়েছে, হ্যান্ড স্যানিটাইজারে এলকোহলের মাত্রা সমান না। আবার হ্যান্ড স্যানিটাইজারে কিছু বাজে উপাদানও থাকতে পারে। এসকল বাজে উপাদান ত্বকের ক্ষতি করে৷ তাই কেনার আগে উপাদানগুলো দেখে নিশ্চিত হয়ে কিনুন। 

সর্দি কাশির জীবাণু মারতে পারেনা

কাশি কিংবা হাচি দেয়ার সময় হাতে হাচি বা কাশি পড়লে প্রচুর জীবাণু চলে আসে। তখন হ্যান্ড স্যানিটাইজার খুব কাজে আসার কথা না। সর্দি কিংবা ফ্লু এর ভাইরাস মিউকাসে আবৃত থাকে। তাই এলকোহল থাকলেও রক্ষা পায়। তাই চেষ্টা করবেন সাবান দিয়ে হাত ধোঁয়ার কাশি কিংবা হাঁচির পর। 

হয়তো ভুলভাবে ব্যবহার করছেন

হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের আগে হাত ভালোমতো ধুয়ে নিতে হয়। হাতের বালি, ময়লা পরিষ্কার না করে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা বোকামো৷ 

ঘরেই বানানো যায়

করোনার সময়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সংকট এবং দামের উর্ধ্বগতি সত্যিই চিন্তার উদ্বেগ ঘটিয়েছিলো। পরিস্থিতি এখন একটু স্বাভাবিক৷ তবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার যে ঘরেই বানানো যায় তা অনেকেই জানেন না। পদ্ধতিটাও খুব বেশি কঠিন না।


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

শুরু হচ্ছে শীত, সুস্থ থাকবেন যেভাবে

প্রকাশ: ১২:০০ এএম, ১৮ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

নভেম্বর শেষ হয়ে ডিসেম্বর মাস আসি আসি করছে। শীতের আমেজ বাতাসে। মৃদু উষ্ণ পানিতে স্নান, উষ্ণ কম্বল, কফির স্বাদের কারণে অনেকের পছন্দ শীতকাল। কিন্তু শীতকালে সাধারণ সর্দি-কাশি থেকে শুরু করে অন্যান্য স্বাস্থ্য-সমস্যার বিষয়টিও মাথায় রাখা দরকার। এ সময় জ্বর, অ্যাজমা, গা-ব্যথা, অসাড় ভাবসহ নানা ধরনের সংক্রমণ দেখা দেয়। এ ধরনের সমস্যায় চিকিৎসার নানা উপায় আছে। এগুলো যদি সহজে এড়িয়ে যাওয়া যায়, তবে কিসের অপেক্ষা?

কথায় আছে, চিকিৎসার চেয়ে প্রতিরোধ উত্তম। শীতের এ মৌসুমে কিছু খাবার খেলে ও কিছু পরামর্শ মেনে চললে সহজেই রোগব্যাধি এড়াতে পারবেন।

ভিটামিনযুক্ত খাবার খান: যেসব খাবারে ভিটামিন সি ও জিংক বেশি আছে, তা এ সময় বেশি করে খান। লেবুজাতীয় ফল ও রসুন বেশি করে খান। এতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে এবং রোগের বিরুদ্ধে শরীরকে লড়াই করতে শক্তি জোগাবে।
 
কিছুটা ঘাম ঝরান: শীতের সময় বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় মানুষের একটু বেশি খাওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। এ সময় শরীরের ওজন ঠিক রাখা তাই বেশি দরকার। শরীর ফিট রাখলে রোগব্যাধি দূরে থাকবে। শরীরে বিপাকপ্রক্রিয়া উন্নত হবে এবং রক্তপ্রবাহ বাড়বে। শরীরকে উষ্ণ ও কর্মক্ষম রাখতে শীতের সময় নিয়মিত ব্যায়াম করে ঘাম ঝরানো উচিত।

ফল ও সবজি: শীতকালে প্রচুর সবজি বাজারে পাওয়া যায়। পুষ্টিকর খাবার সব সময়ই শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এ সময় তাই বেশি করে শাকসবজি খেতে হবে। এতে শরীর যথেষ্ট পুষ্টি পাবে এবং রোগব্যাধি কমবে।

হাত ধোয়ার অভ্যাস: ঘরে-বাইরে যেখানেই থাকুন না কেন, শীতের সময় নিয়মিত হাত ধুয়ে তারপর কিছু খাবেন। এ সময় বাতাসে নানা রকম রোগজীবাণু থাকতে পারে। গণটয়লেট ও সংক্রমণের শিকার হওয়া ব্যক্তিদের কাছ থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। এ ছাড়া শীতের সময় বেশি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার চেষ্টা করুন।
 
শরীরকে আর্দ্র রাখুন: শীতের সময় অনেকেই পানি খেতে চান না। কিন্তু এ সময় শরীর আর্দ্র রাখতে প্রচুর পানি পান করা উচিত। শীতের সময় শরীর শুষ্ক হয়ে যায়। এ কারণে শরীরে চুলকানি, খসখসে ত্বকের মতো সমস্যা হয়। শীতের এই শুষ্কতা দূর করতে শুধু বাইরে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করলেই হবে না, ভেতর থেকে শরীরকে আর্দ্র করার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। প্রচুর পানি পান করার পাশাপাশি পুষ্টিকর খাবার, প্রচুর ফল ও শাকসবজি খেলে শরীর আর্দ্র থাকে।


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন