এডিটর’স মাইন্ড

আমাদের ক্রিকেট : রাজনীতি, প্রেম এবং প্রতারণা

প্রকাশ: ১২:০০ এএম, ০৬ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

জাতি হিসেবে বাঙালি বিভক্ত। নানা জনের নানা মত। দুজন বাঙালি এক হলে ঝগড়া করে। কেউ আওয়ামী লীগ, কেউ বিএনপি। কেউ বলে দেশ ভালো চলছে, কেউ বলে দেশের অবস্থা ভয়াবহ। এ রকম এক বিভক্ত জাতিকে ঐক্যের সুতোয় বাঁধে যে কটি উপলক্ষ তার মধ্যে ক্রিকেট একটি। ক্রিকেট আমাদের সব বিভেদের রেখা উপড়ে ফেলে। গোটা জাতিকে এক আত্মায় পরিণত করে। ক্রিকেট আমাদের হাসায়, কাঁদায়। যে মানুষটির খেলাধুলা নিয়ে তীব্র অনীহা, তিনিও বাংলাদেশের ক্রিকেট হলে উৎসাহী হন। একবারের জন্য হলেও টেলিভিশনে চোখ রাখেন কিংবা বেতারে কান পাতেন। বাংলাদেশ যে ক্রিকেটে এগিয়েছে তার অন্যতম কারণ এ দেশের দর্শক। বাংলাদেশ যখন টেস্ট ক্রিকেটের মর্যাদা পেল তখন যেসব কারণ বাংলাদেশের পক্ষে দেখানো হয়েছিল তার মধ্যে অন্যতম হলো দর্শক। দর্শক এবং সাধারণ মানুষের ভালোবাসায় এ দেশের ক্রিকেট জনপ্রিয় হয়েছে। এ দেশের ক্রিকেট অনেক সাফল্য অর্জন করেছে। বাংলাদেশের জনগণ ক্রিকেটের সাফল্যে উচ্ছ্বসিত হয়েছে। রাস্তায় বেরিয়েছে আনন্দ মিছিল। আবার খারাপ খেললে কেঁদেছে। খেলোয়াড়দের সমালোচনা করেছে। দর্শকদের ভালোবাসাই আমাদের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় শক্তি, সেই ভালোবাসা আমাদের অন্যতম দুর্বলতাও বটে। খেলায় হার-জিত থাকবেই। একদিন দল ভালো করবে, আরেকদিন খারাপ করবে। ভালো খেললে যেমন প্রশংসা পাওয়া যায়, তেমন খারাপ খেললে গালিও শুনতে হয়। বাংলাদেশের মতো আবেগপ্রবণ দেশে দুটোর মাত্রাই সীমা অতিক্রম করে। একটি জয় সব সমালোচনা ধুয়ে দেয়। এভাবেই অভ্যস্ত আমরা। কিন্তু এবার টি-২০ বিশ্বকাপ যেন সেই আদলে নয়। এখানে যেন বাংলাদেশের হারগুলো মনে হয়েছে অনাকাঙ্খিত। বাংলাদেশ দলকে মনে হয়েছে ছন্নছাড়া, বোর্ডকে মনে হয়েছে দায়িত্বহীন এবং কোচিং স্টাফদের অর্বাচীন লেগেছে। এর আগেও বাংলাদেশ বহুবার হেরেছে। বিশেষ করে টি-২০ ফরম্যাটে বাংলাদেশ কখনই খুব ভালো দল নয়। এর আগে টি-২০ বিশ্বকাপের মূল পর্বে বাংলাদেশ জিতেছে মাত্র একটি ম্যাচ। কাজেই বাংলাদেশ সেমিফাইনালে খেলবে বলে যারা হাঁকডাক করেছিলেন তারা যে যুক্তিহীন অতিরঞ্জন করেছিলেন সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ফলাফল নিয়ে আমার তেমন কোনো বক্তব্যও নেই। কিন্তু খেলায় বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের যে শরীরী ভাষা তা ছিল সম্পূর্ণ অখেলোয়াড়সুলভ। তারা খেলাটা উপভোগ করতে পারেননি। মনে হয়েছে দলে কোনো সমন্বয় নেই। একজন আরেকজনকে চেনেন না। কখনো কখনো মনে হয়েছে খেলা শেষ হলেই যেন হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন। হাসি নেই, উচ্ছ্বাস নেই। এবার বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ছেলেরা এবং ক্রিকেট বোর্ডই যেন পরস্পর প্রতিপক্ষ হিসেবে মঞ্চে আবির্ভূত হয়েছে। প্রথম রাউন্ডের প্রথম খেলায় বাংলাদেশ যখন স্কটল্যান্ডের সঙ্গে হারল তখনই বোর্ড সভাপতি হুঙ্কার দিলেন। ভাবখানা দেখে মনে হলো এবার বাগে পেয়েছি। ক্রিকেটারদের ধুয়ে দিলেন। মনে হলো স্কটল্যান্ডের কাছে হারার জন্যই তিনি অপেক্ষায় ছিলেন। আবার ওমানের সঙ্গে জয়ের পর পাল্টা আক্রমণ করলেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ। একটি জাতীয় দলে এ ধরনের প্রকাশ্য গৃহদাহ নজিরবিহীন। আমাদের দেশে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদে কিছু অযোগ্য, দায়িত্বহীন মানুষ বসে আছেন। শুধু বসে নেই, এরা যেন পাথরের মূর্তি। এদের সরানোর কোনো উপায় নেই। আমৃত্যু এরা একটা পদ আঁকড়ে থাকেন। তেমনি একজন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি। কোন যোগ্যতায় তিনি বছরের পর বছর ক্রিকেট বোর্ড শাসন করছেন সে প্রশ্নের উত্তর আমি অন্তত খুঁজে পাই না। তবে নাজমুল হাসান পাপনের একটা অদ্ভুত গুণ আছে। বাংলাদেশ ভালো খেললে সব সাফল্য তিনি শুষে নেন। ভাবখানা এমন বাংলাদেশ জিতেছে তাঁর জন্যই। এটা হতেই পারে। বিসিবির সভাপতি হিসেবে ক্রিকেটের অভিভাবক তিনি। দল ভালো করলে সাফল্য তো তাঁর পকেটে ঢুকবেই। নাজমুল হাসান সাফল্যে উচ্ছ্বসিত হন। প্রধানমন্ত্রীকে ফোন করেন। ভারিক্কি ভঙ্গিতে চামচাদের স্তুতিতে গদগদ করেন। আবার বাংলাদেশ হেরে গেলে তিনি যেন হাঁস হয়ে যান। ব্যর্থতার এক চিমটি দায় নিতে রাজি নন। তখন তিনি খেলোয়াড়দের ওপর চড়াও হন। মাঝেমধ্যে আমার মনে হয় তিনি যেন পাড়ার ‘বড় ভাই’। ক্রিকেটের কিছুই বোঝেন না, কিন্তু মাতব্বরি করেন ষোল আনা। পাড়ার ছেলেরা হারলে বড় ভাই পোলাপানকে রিমান্ডে নেন। খিস্তি করেন। কাউকে কাউকে কান ধরে উঠবোস করান। বেশি খারাপ খেলে যারা তাদের ওপর এক ঘা বসিয়ে দেন। পাপনও তেমনি, বাংলাদেশ হারলেই খেলোয়াড়দের ওপর এমনভাবে চড়াও হন যেন ক্রিকেটাররা অপরাধী, আসামি। পাপনতন্ত্রের মূল কথা হলো ‘সাফল্য যা আমার, ব্যর্থতা ক্রিকেটারদের’। তাঁর কোনো জবাবদিহি নেই। তিনি সর্বেসর্বা। আবার আমার মাঝেমধ্যে পাপনকে বোর্ডের সভাপতি নয়, হেড কোচ মনে হয়। কোন খেলোয়াড় খেলবেন না খেলবেন এ সম্পর্কে গণমাধ্যমে অকপটে বলেন। কোন খেলোয়াড় ওপেনিং করবেন, কে বোলিং করবেন এ নিয়ে বিসিবি সভাপতির বক্তব্য প্রায়ই শালীনতার সীমা অতিক্রম করে। বিশ্বকাপেই দেখলাম এমন ঘটনা। প্রথম খেলায় বাংলাদেশের পরাজয়ের পর দ্বিতীয় খেলা ওমানের বিরুদ্ধে। ব্যাটিং অর্ডারে একেবারে ওলটপালট ঘটানো হলো। দেশের সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিককে নামানো হলো ৭ নম্বরে। কেন এটা হলো? খুঁজতে গিয়ে দেখলাম এখানেও নাকি বোর্ড সভাপতির ভূমিকা ছিল। আমি বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের পক্ষে কোনো অজুহাত দাঁড় করছি না। এবার তারা আসলেই খারাপ খেলেছেন। কিন্তু এ খারাপ খেলায় বোর্ডের কি কোনো দায় নেই? আবার খেলোয়াড়দের সমালোচনার জবাব দিতে হয় মাঠে। প্রেস কনফারেন্সে নয়। বিসিবি সভাপতি যেমন ক্রিকেটারদের সাইজ করার সুযোগ খোঁজেন, তেমনি এবার বাংলাদেশের ক্রিকেটাররাও যেন বাগযুদ্ধে জড়িয়ে পড়ার সুযোগ খুঁজতেই ব্যস্ত ছিলেন। ওমানের সঙ্গে জয়ের পর রিয়াদ সংবাদ সম্মেলনে যা বলেছেন তা অগ্রহণযোগ্য। এমনকি মুশফিকের ‘আয়নাতত্ত্ব’ও এ দেশের ক্রিকেটকে কলঙ্কিত করেছে। বাংলাদেশ যেন বিশ্বকাপ খেলতে যায়নি, বোর্ড বনাম ক্রিকেটারদের লড়াই করতে গেছে।

আমি ক্রিকেটবোদ্ধা নই। একজন দর্শক মাত্র। দর্শক হিসেবে আমি বুঝি ক্রিকেট হলো মূলত মাইন্ড গেইম। এটা যতটা না শারীরিক তার চেয়ে বেশি মানসিক। এটা মনঃসংযোগের খেলা। মাঠের বাইরে বোর্ড আর ক্রিকেটারদের মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্বের ফল আমরা তো হাতেনাতেই দেখলাম। লিটন দাস যেভাবে একের পর এক ক্যাচ ফেলে দিলেন তাতে মনে হয়েছে তিনি বোধহয় বল দেখেননি, বিসিবির সভাপতিকে দেখছেন। তাই ভয়ে সরে গেছেন। রিয়াদ যেন কিছু একটা করে সভাপতিকে এক হাত দেখিয়ে দেওয়ার জন্যই মাঠে নেমেছিলেন। এজন্য সাকিব-মুস্তাফিজকে বাদ দিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজেই বল করতে শুরু করলেন। রিয়াদ ভালো খেলোয়াড় সন্দেহ নেই। কিন্তু তার কিছু কিছু আচরণ বালখিল্যের পর্যায়ে পড়ে। জিম্বাবুয়ে সফরের মাঝপথে অবসরের ঘোষণা দিয়ে রিয়াদ তার ওপর অবিচারের ঝাল মিটিয়েছিলেন। এটা কোনো ক্রীড়াবিদের কাজ হতে পারে না। প্রশ্ন হলো, এ রকম এক অবুঝ আবেগীর হাতে কেন দলের নেতৃত্ব তুলে দিল বোর্ড? বোর্ডের সভাপতি তাকে পছন্দ করেন না এটা বোঝাই যায়। সেই অপছন্দের ব্যক্তির হাতেই কীভাবে দলের নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হয়? ক্রিকেট বোর্ডের কর্তারা এবার সদলবলে গেলেন সংযুক্ত আরব আমিরাত। অথচ সাইফুদ্দিন আর সাকিব ইনজুরিতে পড়লে দেখা গেল ১৩ জনের বাংলাদেশ দল। বোর্ডের ‘বিচক্ষণতা’র এর চেয়ে আর কী উদাহরণ দেওয়া যায়।

এবার বিশ্বকাপে আমাদের দল, কোচিং স্টাফ ও বোর্ডের কার্যক্রম দেখে মনে হচ্ছে আমাদের ক্রিকেটের অন্তিমযাত্রা শুরু হলো। ক্রিকেটের বারোটা কি বাজতে চলেছে? কেনিয়ার কথা মনে আছে? আকরাম খানের সেই অনবদ্য ইনিংসের মাধ্যমে আমরা কেনিয়াকে হারিয়ে ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছিলাম। সেই কেনিয়ার ক্রিকেটের আজ করুণ অবস্থা। বলা হয়, কেনিয়ার ক্রিকেট এখন মৃত। এর কারণ কেনিয়ার ক্রিকেটে রাজনীতি, দলাদলি। নতুন খেলোয়াড় না আসা। একই অবস্থা জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটের। আমার শঙ্কা, বাংলাদেশের ক্রিকেটও কি কেনিয়া, জিম্বাবুয়ের পথে হাঁটছে?
একটা সময় বাংলাদেশের ফুটবল নিয়েও মাতামাতি ছিল বাঁধনহারা। সালাউদ্দিন, অমলেশ, চুন্নু, টুটুল একেকজন তারকা। মালদ্বীপকে বাংলাদেশ হাসতে হাসতে ৭ গোলে হারাত। সেই বাংলাদেশের ফুটবল এখন মৃত। মাঠে দর্শক যায় না। মালদ্বীপও বাংলাদেশকে বলে-কয়ে হারায়। ফুটবল নিয়ে এখন তরুণদের আবেগ নেই। নতুন খেলোয়াড় আসছে না। ফুটবলে স্পন্সর নেই। অথচ একসময় বাংলাদেশে ফুটবলাররাই ছিলেন সবচেয়ে বড় তারকা। দর্শক মুখ ঘুরিয়ে নেওয়ার ফলে ফুটবলও মুখ থুবড়ে পড়েছে। এখন বাংলাদেশে ক্রিকেটাররাই সবচেয়ে বড় তারকা। কয়েকদিন খেললেই হলো, ব্যস। বিজ্ঞাপনের মডেলের জন্য প্রস্তাব আসতে থাকে হু হু করে। কদিন আগে অফিসে খেলা দেখছিলাম। বাংলাদেশের টপটপ উইকেট পড়ছেন আর সঙ্গে সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে উপস্থিত হচ্ছেন তারকা ক্রিকেটাররা। মুশফিক-রিয়াদ ‘আকাশ’-এর মডেল। সাকিব তো বুস্ট থেকে এয়ারকুলার, চাটনি থেকে সেভেন আপ- সবকিছুতেই আছেন। একজন সহকর্মী বলে উঠলেন, এরা প্র্যাকটিস করে কখন? সারা দিন তো মডেলিং করেন। ক্রিকেটাররা জনপ্রিয়। তারা পণ্যের প্রসারে ব্যবহৃত হতেই পারেন। আয়-রোজগারও করতে পারেন। আপত্তি নেই। কিন্তু এটা করতে গিয়ে যদি খেলাটাই গুরুত্বহীন হয়ে যায় তাহলে তো পরিণতি ফুটবলের মতোই হবে। এবার বাংলাদেশের দর্শক প্রচণ্ড কষ্ট পেয়েছেন। অনেক দর্শক খেলা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। বাংলাদেশের শেষ দুটি খেলায় (দক্ষিণ আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়া) টিভি দর্শক কমেছে উল্লেখযোগ্য হারে।

এ দেশের মানুষ প্রচন্ড আবেগপ্রবণ। জাতি যা চায় তার জন্য হাসতে হাসতে জীবন দিতে পারে। যা চায় না তা প্রতিরোধ করার জন্যও অবলীলায় প্রাণ উৎসর্গ করতে পারে। এ জাতি ভালোবাসলে সবকিছু উজাড় করে দেয়। আর একবার মুখ ঘোরালে ফিরেও তাকায় না। আমাদের ক্রিকেট থেকে দর্শক মুখ ফেরাতে শুরু করেছেন এবারের বিশ্বকাপে। একবার যদি মানুষ ক্রিকেটবিমুখ হয় তাহলে তাকে ফেরানো অনেক কঠিন হবে। আর দর্শক যদি খেলা না দেখেন তাহলে এত স্পন্সর, টাকাকড়ি কিছুই থাকবে না। আমাদের ক্রিকেটের অন্দরমহলে এখন খেলার উত্তাপের চেয়ে টাকার উত্তাপ অনেক বেশি। বোর্ডের কর্তারা তাদের সাফল্যের কথা বলতে গিয়ে ব্যাংকে কত শত কোটি টাকা আছে তার ফিরিস্তি দেন। বাংলাদেশের ক্রিকেট বোর্ড নাকি বিশ্বের অন্যতম ধনী ক্রিকেট বোর্ড এমন দাবিও করেন বোর্ডের কর্তারা। অন্য খেলোয়াড়দের তুলনায় আমাদের ক্রিকেটাররাও অর্থনৈতিকভাবে বেশ মজবুত। ক্রিকেট বোর্ড কিংবা ক্রিকেটাররা ধনী হওয়া দোষের নয়। কিন্তু মনে রাখতে হবে, দর্শক আছে বলেই টাকা-পয়সার বাড়বাড়ন্ত আমাদের ক্রিকেটে। তাই দর্শক যতক্ষণ থাকবেন ততক্ষণই ক্রিকেটের সুদিন থাকবে। দর্শক না থাকলে ক্রিকেটের অবস্থাও ফুটবলের মতো হতে সময় নেবে না। আমাদের দর্শক ফুটবলের বিশ্বকাপ দেখে, রাত জেগে ইউরোপের বিভিন্ন খেলা দেখে, ভোর রাতে আধোঘুমে কোপা আমেরিকার খেলা দেখে। মেসি, রোনালদো, নেইমারদের চেনে না এমন একজনও খুঁজে পাওয়া কঠিন। সেই ফুটবল-পাগল দর্শক কেন বাংলাদেশের খেলা দেখে না? আমাদের ক্রিকেট বোর্ড, খেলোয়াড়দের এ প্রশ্নের মুখোমুখি হতেই হবে। এমন দিন যদি আসে এ দেশের দর্শক ভারত-পাকিস্তানের খেলা দেখছে, অ্যাসেজ দেখছে, বাংলাদেশের খেলা দেখছে না- তাহলে সেজন্য কাকে দায়ী করবেন? বাংলাদেশের দর্শক ভারত-পাকিস্তানের দর্শকের মতো উন্মাদ নয়। তারা বাংলাদেশ দলের সীমাবদ্ধতা জানে। বাংলাদেশ এর আগেও অনেক খারাপ খেলেছে। দর্শক মন খারাপ করেছে। আবার ঠিক হয়ে গেছে। এ মন খারাপ অনেকটা গরিবের গাড়ি কেনার স্বপ্নভঙ্গের মতো। কিন্তু এবার ব্যাপারটা তেমন নয়। আমি জানি না, অন্যরা আমার সঙ্গে একমত হবেন কি না, এবার দর্শক প্রতারিত হয়েছেন। বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশে জিম্বাবুয়ে এলো, অস্ট্রেলিয়া এলো, নিউজিল্যান্ড এলো। বাংলাদেশ এমন পিচ বানাল সেখানে একমাত্র বাংলাদেশই জিততে পারে। ক্রিকেট-কর্তাদের জন্য এ ‘জয়’ ছিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ জয় দেখিয়ে বিসিবিতে পাপন-রাজত্ব নিরঙ্কুশ করা হলো। আর সাধারণ মানুষকে বোঝানো হলো এবার টি-২০ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ কিছু একটা করে দেখাবে। তখন যারা ইনিয়ে-বিনিয়ে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে জয় নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন তাদের ক্রিকেটজ্ঞান নিয়ে প্রশ্ন তোলা হলো। যে দেশের উদ্বোধনী জুটি নেই, ফিনিশার নেই, হার্ড হিটার ব্যাটসম্যান নেই সে দেশ টি-২০তে সেমিফাইনালে যাবে? অথচ বোর্ডের নির্বাচনকে তামাশায় পরিণত করার জন্য এ রকম একটি প্রতারণা করা হলো জনগণের সঙ্গে। এর পরের ঘটনা তো সবাই জানেন।

ক্রিকেট বোর্ড করা হয় ক্রিকেটের কল্যাণের জন্য। কিন্তু আমাদের ক্রিকেট বোর্ড যেন পুনর্বাসন কেন্দ্র। এরা ক্রিকেটকে কিছু দিতে পারে না, বোর্ডের পরিচয় দিয়ে সমাজে পরিচিত হয়। আমার বিবেচনায় বাংলাদেশের ক্রিকেট এখন সবচেয়ে অসুখী পরিবার। এখানে ছেলেরা ম্যাচে নামছে যেন দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে। কোচরা যেন ভিনগ্রহের মানুষ। বাংলাদেশকে কখনো একটা ঐক্যবদ্ধ দল মনে হয়নি। বিশ্বকাপের লজ্জার পর বোর্ড যথারীতি তদন্ত করবে। রিয়াদ হয়তো ছাঁটাই হবেন। নানা রকম বাণী দেবেন বোর্ড সভাপতি। তারপর আসবে পাকিস্তান। আবার ‘বিশ্বমানের পিচ’ তৈরি করে পাকিস্তানকে নাস্তানাবুদ করা হবে। বলা হবে, আমাদের ক্রিকেট সঠিক পথে। এই যে আবার ফর্মে ফিরেছেন টাইগাররা। এ তো খেলা নয় যেন প্রতারণা। রাজনীতি যখন নষ্ট হয় তখন বলা হয় রাজনীতির মধ্যে ‘পলিটিক্স’ ঢুকে গেছে। এখন ‘পলিটিক্স’ আরও বড় পরিসরে নেতিবাচক অর্থে ব্যবহার হয়। বলা হয় প্রশাসনে ‘পলিটিক্স’, সাহিত্যে ‘পলিটিক্স’, সব দিকে ‘পলিটিক্স’। সে রকম এখন ক্রিকেটেও যেন পলিটিক্স ঢুকে গেছে। রাজনীতিবিদ বোর্ড সভাপতি খেলা নিয়ে জনগণের সঙ্গে নির্মম প্রতারণা করছেন। ক্রিকেট আমাদের ভালোবাসা। ভালোবাসার সঙ্গে প্রতারণা করলে ঘৃণা, উপেক্ষা তৈরি হয়। ক্রিকেট নিয়ে এ ভয়ঙ্কর প্রতারণার খেলা বন্ধ না হলে আমাদের ক্রিকেটের বারোটা বাজতে সময় লাগবে না।



মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

দুর্নীতিবাজরা প্রধানমন্ত্রীর লোক হতে পারে না

প্রকাশ: ১০:৩০ পিএম, ২৪ মে, ২০২৪


Thumbnail

সাবেক সেনাপ্রধান এবং সাবেক পুলিশ প্রধানকে নিয়ে এখন সারা দেশ জুড়ে তোলপাড় চলছে। সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার ঢাকার একটি আদালত ক্রোক পরোয়ানা জারি করেছে। বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী এবং কন্যার নামে থাকা ৮৩ টি বিভিন্ন স্থাবর সম্পত্তি দলিল জব্দ করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এছাড়া তাদের ব্যাংক একাউন্টও জব্দ করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বেনজীর আহমেদ অত্যন্ত দাপুটে পুলিশ কর্মকর্তা ছিলেন এবং পুলিশ প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন রকম অভিযোগ চাউর হয়েছিল। এখন বেনজীরের বিরুদ্ধে অভিযোগ গুলো দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করছে। 

সোমবার (২০ মে) মধরাতের পর মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আজিজ আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যরা যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।’ যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলারের দেয়া বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘উল্লেখযোগ্য পরিমাণ দুর্নীতিতে সম্পৃক্ততার কারণে বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদকে ‘ফরেন অপারেশন অ্যান্ড রিলেটেড প্রোগামস অ্যাপ্রোপ্রিয়েশনস অ্যাক্টের ৭০৩১ (সি) ধারার অন্তর্ভুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছে পররাষ্ট্র দপ্তর। এর ফলে আজিজ আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যরা যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।’ নিষেধাজ্ঞা আরোপের ক্ষেত্রে যে অভিযোগ গুলো উত্থাপন করা হয়েছে সে অভিযোগগুলো বহুল প্রচারিত এবং পুরোনো। অভিযোগগুলো প্রথম উত্থাপিত হয়েছিল ২০২১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি। ঐ দিন আল জাজিরা ‘অল প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে একটি অনুসন্ধানী প্রামাণ্য চিত্র প্রচার করেছিল। ঐ প্রামাণ্য চিত্রটি নির্মাণ করেন ডেভিড বাগম্যান, তাসনিম খলিল এবং জুলকার নাইন। এরা তিনজনজনই বিতর্কিত, মতলববাজ এবং একটি বিশেষ গোষ্ঠীর হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের জন্য পরিচিত। আল-জাজিরার প্রতিবেদনে জোর করে যুক্তিহীন ভাবে প্রধানমন্ত্রীকে টেনে আনার করার চেষ্টা হয়েছিল। আজিজ আহমেদ এবং তার তিন ভাইকে প্রধানমন্ত্রীর লোক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল এ প্রতিবেদনে। ঐ সময় ঐ প্রতিবেদন নিয়ে দেশে বিদেশে হৈ চৈ হয়। 

মার্কিন ঘোষণার পর সাবেক সেনাপ্রধান তার মতো করে আত্মপক্ষ সমর্থনের চেষ্টা করেছেন। তিনি বলেছেন, বিজিবির মহাপরিচালক এবং সেনাবাহিনীর প্রধান থাকা অবস্থায় কোন রকম দুর্নীতির আশ্রয় গ্রহণ করেননি। গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এটিও বলেছেন যে, এ ঘটনা সরকারকেও হেয় করে। 

আজিজ আহমেদের নিষেধাজ্ঞার ঘটনাটি এমন এক সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা করলো যখন দুই দেশ সম্পর্ক এগিয়ে নেয়ার  প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে। কদিন আগেই যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু বাংলাদেশ সফর করেছেন। এ সফরে তিনি অতীতের তিক্ততা ভুলে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার বার্তা দিয়েছেন। লু এর সফরের পর সরকারের মধ্যে ছিলো স্বস্তি ভাব। বিএনপির মধ্যে হতাশা। তবে ডোনাল্ড লু তার সফরে সুস্পষ্টভাবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান এবং দুর্নীতি প্রতিরোধে বাংলাদেশ সরকারকে সহযোগিতা করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছিলেন। আর তিনি ফিরে যাবার পর পরই যুক্তরাষ্ট্র সাবেক সেনাপ্রধানের উপর এই নিষেধাজ্ঞার বার্তাটি ঘোষণা করলো। বাংলাদেশে সাবেক সেনাপ্রধানের এই নিষেধাজ্ঞার ঘটনাটি নিয়ে নানারকম প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিএনপি এই ঘটনার পর স্ববিরোধী অবস্থান নিয়েছে। দলের মহাসচিব মঙ্গলবার সাংবাদিকদের বলেছেন, এতে বিএনপির কিছু যায় আসে না। তার মতে এই নিষেধাজ্ঞা একধরনের বিভ্রান্তি। এটিকে তিনি বলেছেন ‘আই ওয়াশ’। আবার দলটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এটিকে সরকারের দায় হিসেবে প্রচার করছে। আওয়ামী লীগের মধ্যেও নিষেধাজ্ঞা নিয়ে পরস্পর বিরোধী অবস্থান লক্ষ্য করা যাচ্ছে। দলের সাধারণ সম্পাদক ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য দুরকম।পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিষয়টিকে সরকারের সঙ্গে সম্পৃক্ত কোন বিষয় নয় বলেই মন্তব্য করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র আগেই জানিয়েছিল বলে উল্লেখ করে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এটি ব্যক্তির বিরুদ্ধে, সরকারের বিরুদ্ধে নয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর মন্তব্যও ছিলো একই রকম। কিন্তু বুধবার ওবায়দুল কাদের কথা বললেন উল্টো সুরে। ‘নিশি রাতের স্যাংশন পরোয়া করিনা’ বলে হুংকার দিলেন কাদের। আমি মনে করি এটি ব্যক্তির উপর নিষেধাজ্ঞা। দুই দেশের সম্পর্কের উপর এটি কোন প্রভাব ফেলবে না। ব্যক্তির অপরাধের জন্য যুক্তরাষ্ট্র এরকম নিষেধাজ্ঞা হরহামেশাই দেয়।

তবে এই নিষেধাজ্ঞার বহুমাত্রিক তাৎপর্য রয়েছে। জেনারেল আজিজ আহমেদ বাংলাদেশে একজন আলোচিত বিতর্কিত এবং সমালোচিত ব্যক্তি। ২০২১ সালের জুনে সেনাপ্রধানের পদ থেকে তিনি অবসরের পর নিভৃত জীবন যাপন করছেন বটে, কিন্তু তিনি সেনাপ্রধান এবং বিজিবির মহাপরিচালক থাকা অবস্থায় তার কর্মকান্ড নিয়ে নানামুখী আলাপ আলোচনা এখনও চলমান। তার তিন ভাইকে নিয়ে সত্য-মিথ্যা নানা গল্প বিভিন্ন মহলে আলোচনা হয়। অনেকের ধারণা আজিজ আহমেদের কারণেই তারা বেপোয়ারা হয়ে উঠেছিলেন। 

মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পর কেউ কেউ একটি সরল সমীকরণ আনার চেষ্টা করছেন। তারা বলছে যে, আজিজ আহমেদ এইসব অপকর্ম করেছেন সরকারের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে। বিতর্কিত এবং যুদ্ধ অপরাধীদের পৃষ্ঠপোষক ডেভিড ব্যাগম্যান ও তার সাঙ্গ-পাঙ্গরা আল জাজিরার প্রতিবেদনে আজিজ আহমেদকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিল। সেই প্রামাণ্য চিত্রকে সামনে এনে অনেকে অপপ্রচারের নতুন এজেন্ডা গ্রহণ করেছে। কিন্তু নির্মোহ ভাবে বিশ্লেষণ করলে আল জাজিরার প্রতিবেদনে এটিই ছিলো সবচেয়ে বড় দুর্বলতা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিবৃতিতে আজিজ আহমেদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সম্পর্কের বিষয় আমলে নেয় নি। নির্মোহভাবে তার অনিয়ম গুলো তুলে ধরা হয়েছে। এখন প্রশ্ন হলো যে, আজিজ আহমেদ কি প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ ছিলেন? প্রধানমন্ত্রীর অনুকম্পায় এবং প্রশ্রয়ে কি তিনি এই কথিত অপরাধগুলো করেছিলেন? এর উত্তর 'না'। প্রধানমন্ত্রী তার দায়িত্ব পালনকালে বেশ কয়েকজন সেনাপ্রধান পদে নিযুক্ত করেছেন। তাদের অনেকে সততা, ন্যায় নিষ্ঠার অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। একটি পদে ভালো বা খারাপ করা ব্যক্তির বিষয়, প্রধানমন্ত্রীর নয়।  

কোন দুর্নীতিবাজ প্রধানমন্ত্রীর লোক হতে পারেন না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতির ব্যাপারে সুস্পষ্ট অবস্থান রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী একাধিকবার বলেছেন, দুর্নীতিবাজ যেই হোক না কেন তিনি কোন রাজনৈতিক দলের না, তাকে প্রশ্রয় দেয়া হবে না। সরকার নানারকম সীমাবদ্ধতা এবং বাস্তবতার কারেণ দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান করতে পারছে না একথা সত্য। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোন দুর্নীতিবাজকে আশ্রয় প্রশ্রয় দিচ্ছেন এমন কথা কেউ যুক্তি দিয়ে প্রমাণ করতে পারবেন না। দুর্নীতিবাজদের কাউকে কাউকে প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ট বলে প্রচার চালানোর এক নোংরা খেলা ইদানিং প্রকট হয়েছে। এটি পরিকল্পিত মিথ্যাচার। এর উদ্দেশ্যে একটি জনগণের আস্থার জায়গা নষ্ট করা। বিজিবি বা সেনাপ্রধান হিসেবে আজিজ আহমেদ কোন অপরাধ করলে, তার দায় একান্তই তার, অন্য কারো নয়। 

তবে একথা অস্বীকার করার কোন কারণ নেই আজিজ আহমেদের পরিবারের সদস্যরা বাংলাদেশে কঠিন সময়ে বড় ধরনের ঝুঁকি নিয়েছিলেন। বিশেষ করে তার তিন ভাইয়ের যে হত্যা মামলার অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে, সে হত্যা মামলার ইতিহাসটা সম্পূর্ণ অন্যরকম। আজকের বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে হারিছ , আনিস ও জোসেফের কর্মকান্ড বিবেচনা করলে সেটি অপরাধ মনে হবে। কিন্তু ৭৫’ পরবর্তী বাংলাদেশের বাস্তবতায় যদি দেখা যায় তাহলে সেটি বীরত্ব, প্রতিরোধ যুদ্ধ। তারা সেই সময় ৭৫ এর ঘৃণ্য আত্ম স্বীকৃত খুনীদের দল ফ্রিডম পার্টিকে প্রতিরোধের জন্য জীবন বাজী রেখেছিলেন । জোসেফ, হারিছ, আনিছের মতো অনেকেই সেদিন ৭৫’ এর ঘাতকদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে ঝুঁকি নিয়েছিলেন। বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ৭৫’এর পর প্রতিরোধ যুদ্ধের ডাক দিয়েছিলেন। তাকে এবং তার সহযোদ্ধাদের আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করবেন? রাষ্ট্রদ্রোহী না বীর দেশপ্রেমিক? আওরঙ্গ, লিয়াকত বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনীদের বিরুদ্ধে অস্ত্র তুলে নিয়েছিলেন। তারা কি সন্ত্রাসী? তাদের কৌশল ভুল হতে পারে, তাদের প্রতিবাদের ভাষা ভুল হতে পারে। কিন্তু বাস্তবতা হলো এটি ছিলো আদর্শিক লড়াই, অস্তিত্বের যুদ্ধ। আনিছ, হারিছ কিংবা জোসেফের মতো কিছু সাহসী তরুণের জন্য বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনীরা কিছুটা হলেও ভয় পেয়েছিল। তারা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের নির্বিচারে হত্যার সাহস পায়নি। আনিছ, হারিছ জোসেফরা সেই সময় যদি ফ্রিডম পার্টির বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে তুলে না নিতেন তাহলে আত্মস্বীকৃত ৭৫’র খুনীরা বাংলাদেশ দখল করে নিতো। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের একটি মানুষও থাকতো না। বাংলাদেশের রাজনীতিতে আরেকটি অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি সৃষ্টি হতো। যে কথিত হত্যাকান্ড নিয়ে আজিজ আহমেদের তিন ভাইকে অভিযুক্ত করা হয়েছিল এবং দন্ডিত করা হয়েছিল, সেই হত্যাকান্ডের পুরো বিচার প্রক্রিয়া হয়েছিল বিএনপির আমলে। যারা ফ্রিডম পার্টি এবং ৭৫’ এর খুনীদের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক। ঐ বিচার প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিয়েও প্রশ্ন আছে। যে দেশে কর্ণেল তাহেরের মতো বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পঙ্গু অবস্থায় ফাঁসির কাষ্ঠে ঝোলানো হয় সেই দেশে ফ্রিডম পার্টির সশস্ত্র ক্যাডারকে প্রতিরোধ করার জন্য কাউকে হত্যা মামলার আসামি করাটা অস্বাভাবিক নয়। যিনি নিহত হয়েছিলেন তিনি ছিলেন ফ্রিডম পার্টির সন্ত্রাসী, বহু মানুষের হত্যা দায়ে অভিযুক্ত। হারিছ, আনিছ, আজিজরা সেই সময় যেটা করেছেন সেটি কতটা রাজনৈতিক, কতটা সন্ত্রাসী তার বিচারের ভার ইতিহাসের। কিন্তু সেই সময় ৭৫’ এর খুনীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোটা ছিলো অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। আর একারণেই ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতা গ্রহণ করে মিথ্যা হয়রানি মূলক মামলাগুলো প্রত্যাহার করা এবং এসমস্ত মামলায় যারা দন্ডিত হয়েছেন তাদেরকে ছেড়ে দেয়া নৈতিক দায়িত্ব হিসেবে বিবেচনা করেছে। আওয়ামী লীগ সাহসের সাথে এই দায়িত্ব পালন করেছে। ঘাতকদের বুলেট থেকে বাঁচার জন্য যদি কেউ সহিংস হয়ে উঠে তবে সেটি আত্মরক্ষা, অপরাধ নয়। কাজেই হারিছ, আনিস, জোসেফকে মুক্ত করার বিষয়টি কোন ভাবেই দুর্নীতির সাথে যুক্ত করা উচিত না। এটি একটি রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত। এটি অস্বীকার করার কোন কারণ নেই তার ভাইদের ত্যাগ এবং ৭৫’ পরবর্তী সময়ে তাদের বীরত্বপূর্ণ প্রতিরোধের কারণেই আজিজ আহমেদ সরকারের দৃষ্টিতে এসেছেন এবং তার পদোন্নতি ঘটেছে। এমনকি একারণেই হয়তো তিনি গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পেয়েছেন। এটি শুধু বাংলাদেশ নয়, পুরো বিশ্বের বাস্তবতা। রাজনৈতিক বিশ্বস্ততা এবং আনুগত্য অনেক গুলো স্পর্শকাতর নিয়োগের ক্ষেত্রে বিবেচনা করা হয়।

দ্বিতীয় বিষয় হলো আজিজ আহমেদ যখন কোন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন সেই দায়িত্ব গ্রহণ করে তিনি কি করেছেন? তিনি কি দুর্নীতি করেছেন? তিনি কেনাকাটার ক্ষেত্রে তার ভাইদেরকে প্রাধান্য দিয়েছেন? তার ভাইদের পরিচয় পাল্টে দিয়ে তাদেরকে বিদেশে পাঠিয়েছেন? তার ভাইয়েরা অনৈতিকভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য করেছেন আজিজ আহমেদের নাম ভাঙ্গিয়ে? এসমস্ত প্রশ্নের উত্তরগুলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাদের মতো করে নির্মোহভাবে তদন্ত করেছে। আল জাজিরা অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এই বিষয়টি উপস্থাপন করেছে। এই বিষয়ের সাথে সরকারের কোন সম্পৃক্ততা নেই। সরকার এই ব্যক্তির দুর্নীতির দায় কেন নিবে? এ ধরনের পদে থেকে দুর্নীতি করতে বা ক্ষমতার অপব্যবহার করতে অন্য কারো সহযোগিতা লাগেনা। ব্যক্তি আজিজ যখন একটি পদে গেছেন তখন যদি তিনি কোন দুর্নীতি করে থাকেন, তিনি কোন অন্যায় করে থাকেন তার সব দায়-দায়িত্ব একমাত্র তারই। তার দায়িত্ব রাষ্ট্র বা সরকারের নয়। শুধু আজিজ আহমেদ কেন এখন সাম্প্রতিক সময়ে অনেকের দুর্নীতির থলের বিড়াল বেড়িয়ে আসছে। সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীর আহমেদের দুর্নীতির বিশাল ফিরিস্তি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এই দুর্নীতির অভিযোগ হাইকোর্ট পর্যন্ত গড়িয়েছে। হাইকোর্ট বিষয়টি দুর্নীতি দমন কমিশনকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। দুর্নীতি দমন কমিশন হাইকোর্টের নির্দেশে বেনজির আহমেদের দুর্নীতির অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখছে। ইতোমধ্যে আদালতের মাধ্যমে বেনজীর আহমেদ এবং তার পরিবারের সদস্যদের সব স্থাবর সম্পত্তি জব্দ করার আদেশ পেয়েছে দুদক। এর ফলে দুর্নীতির ব্যাপারে যে সরকার নির্মোহ এবং প্রভাবমুক্ত সেটি আরেকবার প্রমাণিত হয়েছে। বেনজীর আহমেদকে পুলিশ প্রধান করাটা ছিলো সরকারের সিদ্ধান্ত। কিন্তু পুলিশ প্রধান হয়ে তিনি যদি কোন অন্যায় করে থাকেন, যদি কোন দুর্নীতির সঙ্গে নিজেকে সম্পৃক্ত করেন তবে সেটি তার অপরাধ। এর দায় সরকার নেবে কেন? 

প্রধানমন্ত্রী টানা ১৫ বছর এবং মোট ২০ বছর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। এ ২০ বছরে তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে শত শত নিয়োগ দিয়েছেন। দায়িত্ব পেয়ে কেউ ভালো কাজ করেছেন, কেউ খারাপ কাজ করেছেন। কেউ দুর্নীতি করেছে, কেউ সততার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। কেউ যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছেন, কেউ আবার ছিলেন অযোগ্য। যে যেই কাজ করেছেন তার পুরষ্কার বা তিরস্কার তিনিই পাবেন। আনিছ, হারিছ, জোসেফের দন্ড মওকুফ সরকারের রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। কিন্তু তাদের নাম পাল্টানো, পরিচয় গোপন করে ভোটার কার্ড বা পাসপোর্ট গ্রহণ ব্যক্তিগত অনিয়ম, অপরাধ। বাংলাদেশে ডা. সাবরিনার মতো অনেকেই এধরনের অপকর্ম করেছে। কয়েক হাজার রোহিঙ্গা জালিয়াতি করে পাসপোর্ট করেছে, সংগ্রহ করেছে জাতীয় পরিচয় পত্র। এটি সরকারি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর দুর্বলতা। এসব অনিয়ম করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর লোক হওয়ার দরকার নেই। সত্যিকারের প্রধানমন্ত্রীর লোকরা এই সব অনিয়ম করে না। কোন নির্দিষ্ট দায়িত্ব পেয়ে যারা দুর্নীতি করছেন, যারা অনিয়ম করছেন এটি একেবারেই তাদের সিদ্ধান্ত, তাদের লোভ। এর জন্য প্রায়শ্চিত্ত ভোগ করতে হবে তাদেরকেই। আমরা জানি যে, বিভিন্ন জায়গায় সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পদে এমন অনেক ব্যক্তি ছিলেন বা আছেন যারা দুর্নীতিবাজ হিসেবে পরিচিত। অন্তত সাধারণ মানুষ তাই মনে করে। তাদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না বলেও অভিযোগ আছে। এটি সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ব্যর্থতা। এক্ষেত্রে দুর্নীতি দমন কমিশন সহ সংশ্লিষ্টদের সক্রিয় হতে হবে। উদ্যোগী হতে হবে। আজিজ আহমেদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগগুলো উত্থাপিত হয়েছে সে অভিযোগগুলো দুর্নীতি দমন কমিশনকে নিরপেক্ষভাবে খতিয়ে দেখতে হবে। বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন যাতে নিরপেক্ষ তদন্ত করে তা নিশ্চিত করতে হবে। সরকারের আশে পাশে যেসমস্ত লোক ছিলেন বা আছেন এবং তাদের বিরুদ্ধে যেসমস্ত দুর্নীতির অভিযোগ আকাশে বাতাসে ঘুরে বেড়ায় সেই অভিযোগগুলোর নির্মোহ তদন্ত দরকার। কারণ দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘শূন্য সহিষ্ণুতা’ প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার। প্রধানমন্ত্রী যে টানা ক্ষমতায় আছেন এবং তিনি যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে তার অন্যতম কারণ তিনি দুর্নীতিবাজদের প্রশ্রয় দেন না। তিনি নিজে দুর্নীতির সঙ্গে জড়ান না। তার কট্টর সমালোচকরাও তাকে দুর্নীতিবাজ বলতে পারবে না। আর এই বাস্তবতায় যারা বিভিন্ন দায়িত্ব পেয়ে বা গুরুত্বপূর্ণ পদে বসেই দুর্নীতি করেন তারা প্রধানমন্ত্রীর লোক হতে পারে না, তারা বিশ্বাসঘাতক। প্রধানমন্ত্রীর লোকরা দুর্নীতি করে এই ধরনের অভিযোগ সম্পূর্ণ অযৌক্তিক এবং অগ্রহণযোগ্য। প্রধানমন্ত্রীর লোক তারাই যারা দায়িত্ববান, সৎ যারা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে চান। প্রধানমন্ত্রীর লোক তারাই যারা তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে, সততার সাথে পালন করেন। প্রধানমন্ত্রীর লোক তারাই যারা বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার আদর্শ অনুসরণ করে। যারা দুর্নীতিবাজ, চাটুকার, লোভী, অর্থ পাচার করে, লুটেরা তারা কখনোই প্রধানমন্ত্রীর লোক না। 

সৈয়দ বোরহান কবীর, নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত
ই-মেইল: poriprekkhit@yahoo.com


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

ওবায়দুল কাদেরের হ্যাটট্রিক

প্রকাশ: ০৮:০০ পিএম, ২০ মে, ২০২৪


Thumbnail

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ইতোমধ্যে তিনি একটি হ্যাটট্রিক করেছেন। টানা তিন তিনবার আওয়ামী লীগের মতো একটি ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন রাজনৈতিক দলের সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই একমাত্র যিনি আওয়ামী লীগের তিনবার বা তার বেশি সাধারণ সম্পাদক হয়েছিলেন। এখন ওবায়দুল কাদেরও আওয়ামী লীগের টানা তিনবারের সাধারণ সম্পাদক। এবার তিনি আরেক রকম হ্যাটট্রিক করলেন। 

ওবায়দুল কাদের গত এক মাসে তার তিনটি নীতি নির্ধারণী বক্তব্য ধরে রাখতে পারলেন না। তার এই বক্তব্যগুলোর উল্টো ফল হল। এবং হিতে বিপরীত ফলাফলের দিক থেকে তার বক্তব্যগুলো হ্যাটট্রিক করেছে। ওবায়দুল কাদের উপজেলা নির্বাচনের আগে সংবাদ সম্মেলন করে বলেছিলেন, আওয়ামী লীগের কোনো আত্মীয় স্বজন উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না। উপজেলা নির্বাচনে যদি কেউ প্রার্থী হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ রকম বক্তব্য তিনি তিনবার দিয়েছিলেন। কিন্তু তার বক্তব্যে সাড়া দিয়ে কেউই উপজেলা নির্বাচনে তাদের আত্মীয়স্বজনকে প্রার্থিতা থেকে সরিয়ে দেয়নি। একমাত্র প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক তার শ্যালককে উপজেলা নির্বাচন থেকে তার প্রার্থীতা প্রত্যাহারের সমর্থ হয়েছিলেন। কিন্তু নোয়াখালীর একরামুল করিম চৌধুরী, ড. রাজ্জাক কিংবা শাহজাহান খান কেউই তাদের পুত্রদেরকে নির্বাচন থেকে সরিয়ে আনেননি। 

এরপর আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আত্মীয় স্বজনদের ব্যাপারে তার ভিন্ন রকম অবস্থা ব্যাখ্যা করেন। তিনি বলেন, পরিবার বলতে শুধুমাত্র স্ত্রী, পুত্র এবং স্বামী বোঝাবে। তিনি এটাও বলেন যে, যারা দীর্ঘদিন রাজনীতি করেছে, আগে থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান আছে, তারা কেন প্রার্থিতা প্রত্যাহার করবে? এর ফলে ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য আর ধোপে টেকেনি। পরবর্তী পর্যায়ে কেউই ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য আমলে নেননি। ওবায়দুল কাদেরও আত্মীয় স্বজনদের ব্যাপারে যে রুদ্রমূর্তি অবস্থানে ছিলেন সেখান থেকে সরে আসেন। 

দ্বিতীয় হিতে বিপরীত ঘটনা ঘটে মেট্রোরেলে ভ্যাট না দেওয়ার ঘটনা। মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ যখন এনবিআর-এর কাছে আবারও ভ্যাট প্রত্যাহারের জন্য সুপারিশ করেছিল, তখন এনবিআর তা নাকচ করে দেয় এবং ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপের জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। কিন্তু এর বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, বিষয়টি নিয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন এবং এই ভ্যাট আরোপের সিদ্ধান্তকে তিনি অযৌক্তিক বলে মনে করেন। এর পরপরই আসন্ন অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নে এনবিআর মেট্রোরেলের ওপর ১৫ শতাংশ প্রস্তাবের সুপারিশ করেছে। 

গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ ব্যাপারে আবারও একই রকম বক্তব্য রেখেছেন। তিনি ভ্যাট আরোপের বিরোধিতা করে এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পরামর্শ করবেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু ওবায়দুল কাদের এক মাস আগে যে বক্তব্য দিয়েছিলেন সেই বক্তব্য এনবিআর আমলে নেয়নি। 

সর্বশেষ ঘটনা ঘটল ঢাকায় অটোরিকশা নিয়ে। ওবায়দুল কাদের আকস্মিকভাবে ঘোষণা করেছিলেন যে, ঢাকায় অটোরিকশা চলবে না। গতকাল থেকে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী অটোরিকশা ঢাকায় চলাচল বন্ধ হয়েছিল। এ নিয়ে অটোরিকশা চালকরা রাজপথে নেমেছিল। গতকাল বিভিন্ন স্থানে তারা বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। কোথাও কোথাও সহিংসতার ঘটনাও ঘটে। আজ মন্ত্রিপরিষদ সভায় অনির্ধারিত ভাবে বিষয়টি আলোচিত হয়। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী সরাসরি এর বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করেন। তিনি বলেন যে, বিকল্প ব্যবস্থা না করে কেন অটোরিকশা প্রত্যাহার করা হবে। দরিদ্র মানুষেরা তারা কী করে খাবে। এরপর তিনি সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারে নির্দেশনা দেন। মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক থেকে বেরিয়ে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদেরকে জানান, ঢাকায় অটোরিকশা থাকবে, এটি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা। তার কথার হিতে বিপরীতের ঘটনা এটি ঘটল তৃতীয়বার।

ওবায়দুল কাদের   আওয়ামী লীগ   সাধারণ সম্পাদক  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

‘টেকা দেন দুবাই যামু’

প্রকাশ: ১০:০০ এএম, ২০ মে, ২০২৪


Thumbnail

আমাদের ছোটবেলার ঈদে অন্যতম আনন্দের উৎস ছিল আমজাদ হোসেনের নাটক। অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতাম আমজাদ হোসেনের ঈদের নাটক দেখার জন্য। এই নাটকে জব্বর আলীর ভূমিকায় অভিনয় করতেন আমজাদ হোসেন। একেক ঈদে জব্বর আলীর দুর্নীতির একেকটি চিত্র উঠে আসত হাস্যরসের মাধ্যমে। কিন্তু প্রতিটি নাটকে একটি বক্তব্য থাকত; যে বক্তব্যটি সমাজের জন্য, রাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং শিক্ষণীয়। আমজাদ হোসেনের ঈদের নাটকগুলোর মধ্যে একটি ছিল আদম ব্যবসা নিয়ে। আদম পাচার এবং আদম ব্যবসায়ের আড়ালে যেভাবে মানুষকে হয়রানি এবং প্রতারণা করা হতো, তার চিত্র ফুটে উঠেছিল। সে নাটকে ফরিদ আলীর একটি উক্তি বহুল জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। মানুষের মুখে মুখে ছিল ওই সংলাপটি। সংলাপটিতে ফরিদ আলী বলছিলেন, ‘টেকা দেন দুবাই যামু।’ বৃহস্পতিবার দেশের প্রায় সব গণমাধ্যমে দুবাইয়ে ধনকুবেরদের সম্পদের পাহাড় প্রতিবেদনটি দেখে আমজাদ হোসেনের ‘টেকা দেন দুবাই যামু’ কথাটি স্মৃতির পর্দায় ভেসে উঠল। তখন অর্থ উপার্জনের জন্য সর্বস্ব বিক্রি করে মানুষ দুবাই যেতে চাইত। এতে দেশের উপকার হতো। এখন অর্থ পাচারের জন্য দেশকে কেউ কেউ দুবাইয়ে ঠিকানা করছে। আগে দুবাই যেতে জমি বিক্রি করে নিঃস্ব হতো একটি পরিবার। এখনকার ফরিদ আলীরা টাকা নিয়ে ব্যাংক খালি করছে। নিঃস্ব হচ্ছে দেশ। আগে দুবাই ছিল টাকা আনার জায়গা। এখন টাকা রাখার ‘নিরাপদ’ স্থান। এখন শুধু জীবিকার সন্ধানে এ দেশের মানুষ দুবাই যান না। কষ্ট করে শুধু রেমিট্যান্স পাঠান না। লুটেরা, অর্থ পাচারকারীদের ঠিকানা ইদানীং দুবাই। দুবাইয়ে এখন বিনিয়োগ করেছেন বিশ্বের ধনকুবেররা। এই চিত্রটি ফুটে উঠেছে ‘দুবাই আনলকড’ নামে বৈশ্বিক অনুসন্ধানে।

মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটিতে এখন আকাশচুম্বী ঐশ্বর্য, আকাশচুম্বী বিলাসিতা এবং এক রকম প্রাচুর্যে ভরপুর জীবনযাপন। একসময় এটি ছিল ধু-ধু মরুভূমি। সেই অবস্থা থেকে এটি এখন বিশ্বের আধুনিকতম শহর হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের আরেকটি বড় সুবিধা হলো, এখানে অবৈধ অর্থের উৎস জানতে চাওয়া হয় না। এ কারণেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের হাজার হাজার মানুষ বিপুল পরিমাণ সম্পদ দুবাইয়ে রাখতে চাইছেন। গোপন সম্পদের আড়ত হয়েছে দুবাই। ব্যাংকের মাধ্যমে কিংবা ব্যক্তিগত বিমানে ভরে অর্থ নিয়ে যাওয়া যায় সংযুক্ত আরব আমিরাতে। এই সুযোগে বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়ী, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব থেকে শুরু করে বৈশ্বিক নিষেধাজ্ঞার কবলে থাকা ব্যক্তি, অর্থ পাচারকারী এবং অপরাধীরা সংযুক্ত আরব আমিরাতে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। আর এই অধিকাংশ সম্পদই অবৈধ। জ্ঞাত আয়ের উৎসবহির্ভূত গোপন সম্পদ। ‘দুবাই আনলকড’ নামে এই অনুসন্ধানী প্রতিবেদনটি ৫৮টি দেশের ৭৪টি সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিরা ছয় মাস ধরে অনুসন্ধান চালিয়ে প্রস্তুত করেছেন। অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের বৈশ্বিক নেটওয়ার্ক, ‘অর্গানাইজড ক্রাইম অ্যান্ড করাপশন, রিপোর্টিং,’ (ওসিসিআরপি) ও নরওয়ে সংবাদমাধ্যম ই-২৪-এর নেতৃত্বে অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

এই প্রতিবেদনটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। বিশ্বব্যাপী লুণ্ঠনের একটি চিত্র ফুটে উঠেছে এ প্রতিবেদনে। বিভিন্ন দেশ থেকে ধনকুবেররা কীভাবে গোপনে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন, তার চিত্র ফুটে উঠেছে ‘দুবাই আনলকড’-এ। দুবাইয়ে সরকারি ভূমি দপ্তরসহ অন্যান্য রিয়েল এস্টেট কোম্পানির ফাঁস হওয়া তথ্য-উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে এই অনুসন্ধানী প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২০ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত দুবাইয়ে বিদেশিদের মালিকানায় থাকা সম্পদের পরিমাণ ১৬০ বিলিয়ন ডলারের বেশি।

প্রতিবেদনটি বিশ্লেষণ করে দেখানো হয়েছে, সংযুক্ত আরব আমিরাতে বিদেশিদের সম্পদের মালিকানার তালিকায় শীর্ষে আছে ভারতীয়রা। ২৯ হাজার ৭০০ ভারতীয় নাগরিকের ৩৫ হাজার সম্পদের মালিকানা রয়েছে দুবাইয়ে। ভারতীয়দের এসব সম্পত্তির মোট মূল্য ১৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি। ভারতের পর এই তালিকায় রয়েছে পাকিস্তান। দুবাইয়ে ১৭ হাজার পাকিস্তানি নাগরিকের ২৩ হাজার সম্পদের মালিকানা রয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। পাকিস্তানের ইংরেজি ভাষার ‘দৈনিক ডন’-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুবাইয়ে ১৭ হাজার পাকিস্তানি সম্পদের মালিক। তবে তথ্য-উপাত্ত ও সূত্র ব্যবহার করে এই সংখ্যা ২২ হাজারের মতো বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট, অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তারা ছাড়াও শীর্ষস্থানীয় রাজনীতিবিদ, ব্যাংকার এবং আমলারা সংযুক্ত আরব আমিরাতের অভিজাত এলাকায় বিপুল সম্পদের মালিক। পাকিস্তান অর্থনৈতিকভাবে দেউলিয়া প্রায় একটি রাষ্ট্র। ভয়াবহ অর্থকষ্টে দেশটির জনগণ দিশেহারা। মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণহীন। রিজার্ভ শূন্য। ঋণ নিয়ে কোনোরকমে দেশটি চলছে। বিভিন্ন ঋণের দেনা পরিশোধ করতে গিয়ে যার কাছে পারছে তার কাছেই হাত পাতছে দেশটি। পাকিস্তানের শোচনীয় অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের প্রধান কারণ যে দুর্নীতি এবং অর্থ পাচার, তা সবারই জানা। এই প্রতিবেদন তা আরেকবার প্রমাণ করল। জনগণের সম্পদ লুণ্ঠন করে যারা বিদেশে পাঠিয়েছে, তারাই পাকিস্তানের মসনদে।

বাংলাদেশিদেরও সম্পদ কম নয় দুবাইয়ে। ওসিসিআরপির তথ্য বলছে, এই শহরে গোপন সম্পদ গড়েছেন অন্তত ৩৯৪ জন বাংলাদেশি। এসব বাংলাদেশির মালিকানায় রয়েছে ৬৪১টি সম্পদ। বাংলাদেশিদের মালিকানায় থাকা এসব সম্পদের মোট মূল্য ২২ কোটি ৫৩ লাখ ডলারেরও বেশি, বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা। আমার ধারণা, দুবাইয়ে এর চেয়েও দ্বিগুণ পরিমাণ অর্থ বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়েছে। অনেকে বেনামে, কেউ কেউ কানাডা, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র থেকে অর্থ সরিয়ে এখন দুবাইয়ে রাখছেন। শুধু দুবাই কেন? ইউরোপীয় ইউনিয়নের ট্যাক্স অবজারভেটরি গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ‘অ্যাটলাস অব অফশোর ওয়ার্ল্ড’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশিদের প্রায় ৫ দশমিক ৯১ বিলিয়ন ডলারের অফশোর সম্পদ আছে। এটি বাংলাদেশের মোট জিডিপির ১ দশমিক ৩ শতাংশ। এর মধ্যে ৫ বিলিয়ন ডলার এশিয়ার কর স্বর্গ দেশগুলোতে, বাকিটা ইউরোপ, আমেরিকায়। ট্যাক্স জাস্টিস নেটওয়ার্কের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা পাচার হচ্ছে কর স্বর্গ বলে পরিণত দ্বীপ রাষ্ট্রগুলোতে। সুইস ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী এখানকার ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশিদের গচ্ছিত অর্থ ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি। তবে বাংলাদেশিদের সম্পদ ও মালিকানার তথ্য সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি এসব কোনো প্রতিবেদনে। তাদের পরিচয় গোপন করা হলেও আমরা তাদের চিনি। কারা ব্যাংকের টাকা লুট করে দুবাইয়ে স্থায়ীভাবে বসবাস করছে, আমাদের অজানা নয়। কোন দুর্নীতিবাজরা বিদেশে দুর্নীতির টাকা গচ্ছিত রেখেছে, সে চর্চা এখন সর্বত্রই হয়। তাদের কারণেই যে অর্থনীতির সংকট, তা কে না জানে? বাংলাদেশের অর্থনীতির অবস্থা এখন আশঙ্কাজনক। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ১৩ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে গেছে। অথচ পাচারকৃত অর্থ যোগ করলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থাকত ৩০ বিলিয়ন ডলারের বেশি। এক ধাপে ডলারের মূল্য ৭ টাকা বাড়িয়ে ১১৭ টাকা করা হয়েছে। ডলার নিয়ে এখন হাহাকার। ডলারের অভাবে আমদানি করা যাচ্ছে না অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। রপ্তানিতেও শুভঙ্করের ফাঁকি। রপ্তানি আয়ের টাকা কাগজে আছে, ব্যাংকে নেই। ব্যাংকগুলোর অবস্থা খুবই নাজুক। দুর্বল ব্যাংকগুলোকে একীভূত করার যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, সে উদ্যোগও এখন হালে পানি পাচ্ছে না। ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে, আর্থিক সংকটে ধুঁকছে ব্যাংকগুলো। ব্যাংকে সুদসীমা উঠিয়ে দেওয়ার পর এক ধরনের অস্থিরতা বিরাজ করছে। ব্যবসায়ীরা আতঙ্কে। ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের নেতারা বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাদের উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন। ভুল নীতি এবং ভুল পরিকল্পনার কারণে মুদ্রাস্ফীতি এখন ১০ শতাংশের আশপাশে ঘোরাফেরা করছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের জীবনযাত্রায় নাভিশ্বাস উঠেছে। এসব কিছুর প্রধান কারণ হিসেবে আমি মনে করি, ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণ, অর্থ পাচার এবং দুর্নীতি। এই তিনটি বিষয়ে যদি সরকার পদক্ষেপ গ্রহণ না করে, তা হলে সামনের দিনগুলোতে অর্থনৈতিক সংকট কাটিয়ে তোলা অত্যন্ত কষ্টসাধ্য ব্যাপার হয়ে যাবে। যেভাবে পাকিস্তানের অর্থনীতি ডুবেছে, সেভাবে কি বাংলাদেশের অর্থনীতির বারোটা বাজানোর ষড়যন্ত্র চলছে? এখন পর্যন্ত দুর্নীতিবাজ, ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপি এবং অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। বিপুল বিস্ময়কর উন্নয়নকে ম্লান করে দিয়েছে মুষ্টিমেয় কিছু লুটেরা দুর্বৃত্ত।

গত তিন-চার বছরে অর্থ পাচারের নতুন ঠিকানা হয়েছে দুবাই। আগে যারা বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচার করেছেন, তাদের মূল ঠিকানা ছিল যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড। অনেকে এসব দেশের নাগরিকত্ব নিয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে লুণ্ঠিত সম্পদ নিয়ে সেই দেশে শীর্ষ ধনীদের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন। তারা এখন ধরাছোঁয়ার বাইরে। এখন দুবাইয়ের প্রতি অর্থ পাচারকারীদের আগ্রহ বেড়েছে। এর কারণ হলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, সুইজারল্যান্ড, সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন দেশ অর্থ পাচারের বিরুদ্ধে বেশ কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে। এ কারণেই সেসব দেশে নতুন করে অর্থ পাচার কঠিন হয়ে পড়ছে। আমরা সুইস ব্যাংকে যেসব অর্থ পাচারকারী অর্থ পাচার করেছে তাদের তথ্য জানি না। এ তথ্যগুলো সংগ্রহের জন্য বাংলাদেশ সরকার কী ধরনের অবস্থান গ্রহণ করেছে, সে সম্পর্কেও আমরা অন্ধকারে রয়েছি। আমরা জানি না যে, ‘ট্যাক্স হেভেন’ বলে পরিচিত দ্বীপরাষ্ট্রগুলোতে যারা কোম্পানি খুলে অর্থ পাচার করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ওসিসিআরপি এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেছিল। কিন্তু সেই তথ্যের তদন্ত হয়নি। আমরা এটাও জানি না যে, বাংলাদেশের যেসব ব্যবসায়ী রপ্তানির নামে ‘ওভার ইনভয়েসিং’-এর মধ্যে বিদেশে অর্থ পাচার করেছে, তাদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নিয়েছে। আমরা জানি না কানাডার বেগমপাড়ায় যাদের বাড়িঘর আছে তাদের তালিকা কার কাছে। এই তালিকা প্রকাশের জন্য কয়েক বছর ধরেই হৈচৈ হয়েছে, আলোচনা হয়েছে; কিন্তু তালিকা আলোর মুখ দেখেনি। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়ায় যারা সম্পদের পাহাড় গড়েছেন, তারা কারা?

অর্থ পাচার রোধে সরকারের গ্রহণ করা ব্যবস্থাগুলো কতটুকু বাস্তবে রূপ নিয়েছে, তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। সরকার অর্থ পাচার রোধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পেরেছে কি না, তা নিয়েও অনেকের মধ্যে সংশয় ও সন্দেহ রয়েছে। গত বছর অর্থনৈতিক সংকটের মুখে এবং বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের সংকটের কারণে অর্থ পাচারকারীদের থেকে অর্থ ফেরত নেওয়ার জন্য কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল সরকার। বিদেশ থেকে অর্থ নিয়ে এলে কোনো প্রশ্ন করা হবে না—এমন দায়মুক্তিও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তার পরও অর্থ পাচারকারীদের শুভবুদ্ধির উদয় হয়নি। একটি ডলারও পাচারকারীরা দেশে ফিরিয়ে আনেনি। কানাডা, যুক্তরাজ্য, আমেরিকার কথা বাদই দিলাম; মালয়েশিয়ায় ‘সেকেন্ড হোম’ করা বাঙালির সংখ্যা হাজারের ওপর। সিঙ্গাপুরে অলিগলিতে বাঙালিদের বিভিন্ন সম্পদ পাওয়া যায়। অর্থ পাচার যদি বন্ধ না হয়, তা হলে অর্থনৈতিক সংকট কাটানো যাবে না। দুর্নীতি যদি বন্ধ না করা যায়, তা হলে অর্থনীতি আরও ভয়াবহ রূপ নেবে। আমরা যদি ব্যাংক খাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে না পারি, তা হলে অর্থনীতির ধ্বংস ঠেকানো অসম্ভব। দুর্নীতি, অর্থ পাচার এবং লুণ্ঠনে পাকিস্তান বাংলাদেশের চেয়ে অনেক এগিয়ে।

পাকিস্তানের রাষ্ট্রক্ষমতায় যারা ছিলেন, তারা যেভাবে দুর্নীতি করে দেশকে ফোকলা বানিয়েছেন, বাংলাদেশ তার থেকে অনেক পেছনে। কিন্তু বাংলাদেশে যেভাবে অর্থ পাচার হচ্ছে, যেভাবে দুর্নীতি হচ্ছে, তা যদি অব্যাহত থাকে, তা হলে বাংলাদেশ পাকিস্তান হতে বাধ্য। আমরা কি বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানাতে চাই? যারা বাংলাদেশ চায়নি তারাই অর্থনীতির বারোটা বাজাচ্ছে। আমজাদ হোসেনের ফরিদ আলী ‘টেকা’ নিয়ে বিদেশ যেতে চেয়েছিল। নিজের ভাগ্য গড়তে চেয়েছিল। সেখান থেকে অর্থ উপার্জন করে দেশে পাঠানোর স্বপ্ন ছিল তার। কিন্তু এখনকার নব্য ফরিদ আলীরা ব্যাংক খালি করে, জনগণের সম্পদ লুট করে দুবাই যাচ্ছে। এই ফরিদ আলীদের রুখতে হবে। তাদের হাত থেকে বাঁচাতে হবে অর্থনীতি, বাংলাদেশকে।


লেখক: নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত

ইমেইল: poriprekkhit@yahoo.com



মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

সবকিছু ঠিক আছে?

প্রকাশ: ১০:৩০ পিএম, ১৭ মে, ২০২৪


Thumbnail

১৭ মে প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত হলো জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে একধরনের প্রতিযোগিতা লক্ষ্য করলাম। যে যেভাবে পেরেছে ১৭ মে তে নিজেদেরকে জানান দেয়ার চেষ্টা করেছেন। সংবাদপত্রগুলো ভরে গেছে শেখ হাসিনার স্তুতিতে। শেখ হাসিনাকে নিয়ে বন্দনা কতটা আসল, কতটা চাটুকারিতা তা নিয়ে গবেষণা হতেই পারে। ১৭ মে ১৯৮১ তে যখন তিনি স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেছিলেন, তখন সাধারণ মানুষের ভালবাসা আবেগ ছিলো হৃদয় নিংড়ানো, পুরোটাই নিখাঁদ। ৪৩ বছর পর এই উচ্ছ্বাস কি তেমনি অকৃত্রিম? 

১৭ মে নিঃসন্দেহে আওয়ামী লীগের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। ঘুরে দাঁড়াবার দিন। আমি মনে করি শুধু আওয়ামী লীগের জন্য নয়, ১৭ মে বাংলাদেশের জনগণের জন্যও অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ একটি দিন। এরপর ৪৩ বছর পেরিয়ে গেছে। ৪৩ বছর বাঙালীর যে সংগ্রাম বা অর্জন তার সবকিছুর মূলে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি তিল তিল করে সংগ্রাম করেছেন এবং বাংলাদেশকে বিনির্মাণ করেছেন। জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণের পথে তিনি এখন প্রায় গন্তব্যে পৌঁছে গেছেন। কিন্তু এই ৪৩ বছর পেরিয়ে এখন যখন আমরা আজকে বাংলাদেশের দিকে তাকাবো, তখন একটি প্রশ্ন সামনে আসে। সবকিছু কি ঠিক আছে? দেশের রাজনীতি, অর্থনীতিতে সবকিছু ঠিকঠাক মতো চলছে? অর্থনীতির চেহারা ক্রমশঃ বিবর্ণ, মলিন হচ্ছে। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে মানুষের হাঁসফাঁস অবস্থা। আওয়ামী লীগের মধ্যে সবকিছু উপেক্ষা এবং অবজ্ঞা করার প্রবণতা বাড়ছে। কোন সমস্যাকেই অনেকে পাত্তা দিতে রাজী নন। কেউ যদি সমস্যা উপলব্ধি না করে তাহলে সমাধান করবে কিভাবে?

১৯৮১ সালের ১৭ মে যখন শেখ হাসিনা বাংলাদেশে এসেছিলেন জাতির পিতার রক্তে ভেজা মাটিতে। সেসময় বাংলাদেশ কেমন ছিল? বাংলাদেশ ছিল ক্ষুধা-দারিদ্রে নিষ্পেষিত গণতন্ত্রহীন একটি দেশ। যেদেশের মানুষের মৌলিক মানবাধিকার ছিলো না, সাংবিধানিক অধিকারকে হরণ করা হয়েছিল, বিচারের নামে হতো প্রহসন, মানবাধিকার ছিলো ভুলুণ্ঠিত। অভাব,দারিদ্র, বিদেশের উপর নির্ভরতা সবকিছুর মিলিয়ে বাংলাদেশ ছিলো যেন এক স্বপ্নহীন রাষ্ট্র। সে ধ্বংস স্তূপেই এসে শেখ হাসিনা গণতন্ত্রের ডাক দিয়েছিলেন। মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামের জন্য নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছিলেন। ১৯৮১ থেকে ২০২৪, শেখ হাসিনার এই ৪৩ বছরের জীবনকে আমরা দু’ভাগে ভাগ করতে পারি। প্রথম ভাগ, তার সংগ্রামের জীবন। দ্বিতীয় ভাগ, অর্জনের। এই ৪৩ বছরে তিনি জীবনের ঝুঁকি নিয়েছেন, সংগ্রাম করেছেন এবং এক সাহসী নেতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে প্রতিকূল পরিস্থিতিকে জয় করেছেন। শেখ হাসিনা যখন এসেছিলেন তখন ঘরে বাইরে ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিলেন। একদিকে, সামরিক শাসকরা তাকে বাঁধা দিতে চেয়েছিল, তার রাজনৈতিক অস্তিত্বকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল। তিনি যাতে দেশে না আসেন সে চেষ্টা করা হয়েছিল। দেশে আসার পর এমন এক পরিস্থিতি তৈরী করা হয়েছিল যেন তিনি রাজনীতি করতে না পারেন। কিন্তু শেখ হাসিনা সে ভয়ের কাছে নিজেকে আত্মসমর্পণ করেননি। প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে অকুতোভয় সৈনিকের মতো তিনি লড়াই করেছেন। শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সময় দলেও ছিলো এক বৈরী পরিস্থিতি। কোন্দলে বিভক্ত দলটিতে ৭৫ এর খুনীদের দোসরদের পুনর্বাসিত করা হয়েছিলো। ৩৩ বছর বয়সী বঙ্গবন্ধুর কন্যাকে পুতুল বানিয়ে রাখতে চেয়েছিল অনেকে। ঘরে বাইরে লড়াই করতে হয়েছে শেখ হাসিনাকে।

লক্ষণীয় ব্যাপার যে, ১৯৮১ সাল থেকে ১৯৯৬ পর্যন্ত সংগ্রামে যেমন স্বৈরাচার, ধর্মান্ধ মৌলবাদ এবং স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি তার বিরুদ্ধে ছিল। ঠিক তেমনিভাবে দলের ভেতরে ছিল কুচক্রী মহল, ছিলো ষড়যন্ত্রকারী। সেই ষড়যন্ত্রকারীরা শেখ হাসিনার অভিযাত্রার পথে কাঁটা বিছিয়েছিলেন। তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছিলেন। আবার ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা, মানুষের নির্যাতন, নিপীড়নের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনার যে সংগ্রাম সেই সংগ্রামেও দলের ভিতর থেকে তিনি সহযোগিতা পেয়েছেন খুবই কম। দলের ভেতর অনেকেই সেসময় নব্য মোশতাকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিল। আওয়ামী লীগ মুসলিম লীগে পরিণত হবে- এমন কথা বলতেন দলটির ডাক সাইট নেতারা। ২০০৭ সাল থেকে ২০০৮ সাল এই দুই বছর শেখ হাসিনাকে মাইনাস করার ষড়যন্ত্রের মধ্যেও আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ নেতাদের দায় চোখ এড়াবে না। তারা শেখ হাসিনাকে মাইনাস করার জন্য যে ঘৃণ্য  খেলায় অংশীদার হয়েছিলেন। ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেই তাকে দল আগলে রাখতে হয়েছে। এসময় আওয়ামী লীগইে শেখ হাসিনার সমালোচকের অভাব ছিলোনা। সেই সমালোচনার জবাব দিয়েই তিনি স্রোতের বিপরীতে সাঁতার কেঁটেছেন। এখন তার সমালোচকরাই সবচেয়ে বড় চাটুকার। শেখ হাসিনার সংগ্রামের অধ্যায়ের যোদ্ধারা এখন কোণঠাসা। অর্জনের সময় অতিথি পাখিদের দাপট দৃষ্টিকটু পর্যায়ে পৌঁছেছে। তাদের দাপটে দুঃসময়ের সঙ্গীরা কোণঠাসা। এরাই চারপাশে এমন স্তুতির রঙ্গীন ফানুস সাজিয়েছেন যে বাস্তব অবস্থাই আড়াল হয়ে গেছে। এটাই হলো ভয়ের কারণ। আওয়ামী লীগের মতো রাজনৈতিক দলকে তিনি ৪৩ বছর ধরে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। ৭৫ বছর বয়সী উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন দলটি ৭৫’র আগস্টের শোকাবহ ঘটনার পর তাঁর হাতেই পুনর্জন্ম লাভ করে, বিকশিত হয়। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ২০ বছর তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন আরও ৫ বছরের জন্য জনগণ তাকে নির্বাচিত করেছে। শেখ হাসিনা তাঁর রাজনৈতিক প্রজ্ঞায় ধর্মান্ধ মৌলবাদী শক্তিকে পরাজিত করেছেন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে তিনি এখন একমাত্র তারকা হিসেবে উদ্ভাসিত হয়েছেন। রাজনীতিতে তার কোন প্রতিপক্ষ নেই। তিনি দেশ পরিচালনায় একজন প্রাজ্ঞ, বিচক্ষণ এবং একজন বিশ্ব নেতার সমতুল্য, সেটি আজ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কোন বিকল্প নেই। কিন্তু তারপরও কোথায় যেন একটা অস্বস্তি, কোথায় যেন একটা আতঙ্ক, কোথায় যেন একটা প্রশ্ন। সবকিছু কি ঠিক আছে? দেশ কি সঠিক পথে?

চতুর্থ মেয়াদে শেখ হাসিনার ক্ষমতায় আসাটা কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না। এসময় এক প্রচন্ড প্রতিপক্ষ এবং নানা রকম প্রতিকূলতাকে প্রতিহত করতে হয়েছে শেখ হাসিনাকে। বিএনপি এবং আন্তর্জাতিক মহল এ নির্বাচন বাতিলের এক নীল নকশা রচনা করেছিলো। নির্বাচন হবে কিনা তা নিয়ে অনিশ্চয়তা ছিলো। বাংলাদেশের গণতন্ত্র থাকবে কিনা তা নিয়ে এক শংকা তৈরী হয়েছিলো। এই অনিশ্চয়তা কাটিয়ে সাহসের সাথে তিনি পরিস্থিতি মোকাবেলা করেন। অনেকে কল্পনাও করতে পারেননি যে, এইভাবে বিরোধী দল ছাড়া একটি নির্বাচন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে গ্রহণযোগ্য হবে এবং নির্বাচনের পর বাংলাদেশের রাজনীতিতে একটি স্বস্তির হাওয়া বইবে। ৭ জানুয়ারির নির্বাচন একটি ম্যাজিক।

নির্বাচনের পর নতুন সরকার গঠিত হয়েছে। নতুন সরকার চার মাস সময় পার করেছে। আন্তর্জাতিক চাপ নেই। রাজনীতির প্রতিপক্ষরা সরকারকে চোখ রাঙ্গাতে পারছে না। আওয়ামী লীগ অনেকটাই দুশ্চিন্তা মুক্ত। কিন্তু এক অজানা আশঙ্কা ভর করেছে। অর্থনীতিতে অস্থিরতা। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ প্রতিনিয়ত কমছে, নানামুখী সংকটে অর্থনীতি আজ মুখ থুবড়ে পরার উপক্রম। সাধারণ মানুষ স্বস্তিতে নেই। জিনিস পত্রের দাম উর্ধ্বমুখী, বিদ্যুৎ সংকট বেড়েছে, ডলারের দাম হঠাৎ করেই বেড়ে যাওয়ার ফলে ব্যবসায়ীদের মধ্যে উৎকণ্ঠা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। চারিদিকে ফিসফাঁস। ব্যাংকে টাকা নেই, ঋণ খেলাপির সংখ্যা বাড়ছে। অর্থ পাচারকারীরা বুক চিতিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে সামনের দিনগুলোতে সরকার কিভাবে এগুবে? অর্থনীতির সংকট কিভাবে সরকার কাটিয়ে উঠবে সেটিই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। অথচ সরকারের ভেতর কিছু ব্যক্তি সমস্যাকে আমলে নিতে রাজী নন। যুক্তিহীন ভাবে তারা বলছে, শেখ হাসিনা সব ম্যানেজ করবে। অর্থনৈতিক সংকট কেটে যাবে। কিভাবে?-এই প্রশ্নের উত্তর কারো জানা নেই। অর্থনৈতিক সংকট যদি প্রবল হয় তাহলে সরকারের জনপ্রিয়তা প্রশ্নবিদ্ধ হতে বাধ্য। অথচ বাংলাদেশের অর্থনীতির এই দৈন্য চেহারা হবার কথা ছিলো না। সঠিক পরিকল্পনা এবং নীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রে আমলাদের নির্বোধ নিরীক্ষার কারণে অর্থনীতিতে বর্তমান সংকট সৃষ্টি হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘শূন্য সহিষ্ণুতা’ নীতি গ্রহণ করলেও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত দৃশ্যমান ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি। অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ কঠোর হতে পারেনি। ইচ্ছাকৃত ঋণ খেলাপীদের বিরুদ্ধেও অসহায় সরকার। কেন পারছে না আওয়ামী লীগ? যারা অর্থ পাচার করছে, যারা দুর্নীতিবাজ, ঋণ খেলাপী তারা ক্ষমতার চারপাশে রয়েছে এমন আলোচনা বিভিন্ন সময় শোনা যায়। আমলাতন্ত্রের উপর অনেকটা নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে সরকার। আমলারা এখন সবকিছুর কর্তা। নীতি নির্ধারণী সিদ্ধান্ত নিচ্ছে আমলারা। একের পর এক ভুল সিদ্ধান্তের কারণে অর্থনীতির অবস্থা খারাপের দিকে এমনটি মনে করেন সরকারের অনেকেই। কিন্তু তারপরও অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের আমলাতান্ত্রিক বটিকার বাইরে সরকার কোন সমাধান বের করতে পারেনি। 

সাংগঠনিকভাবেও আওয়ামী লীগের মধ্যে নানারকম অস্থিরতা। দলের ভেতর চেইন অব কমান্ড ভেঙ্গে গেছে। স্থানীয় নেতারা কেন্দ্রের কথা শুনছেন না। উপজেলা নির্বাচন নিয়ে যা হচ্ছে সেটা আওয়ামী লীগের জন্য লজ্জার। সারাদেশে আওয়ামী লীগের সংগঠনের অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। গ্রুপিং, কোন্দল এখন আওয়ামী লীগের স্বাভাবিক চিত্র। অনেকেই বলবেন, আওয়ামী লীগের মতো একটা বড় দল টানা ক্ষমতায় আছে তাই বিভক্তি থাকতেই পারে। এটি নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। কিন্তু এই বিভক্তি যখন দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করতে শেখায়, এই বিভক্তি যখন দলের স্বার্থের পরিপন্থী অবস্থান নেয়ার জন্য প্রলুব্ধ করে, তখন তা উদ্বেগের কারণই বটে। আওয়ামী লীগ এখন সাংগঠনিকভাবে অগোছালো, নানারকম সংকটে জর্জরিত। ক্ষমতায় আছে জন্য এ সংকটগুলো দৃশ্যমান হচ্ছে না। কিন্তু দলের জন্য যারা নিবেদিত প্রাণ, তারা জানেন সংকট কোথায় এবং কতটা গভীর। কোন্দল ঠেকাতে, শৃঙ্খলা ফেরাতে দায়িত্ব প্রাপ্ত নেতারা নিষ্ক্রিয়। তাহলে এতো নেতার কাজ কি? আওয়ামী লীগ এবং সরকারে সবাই তাকিয়ে থাকেন শেখ হাসিনার দিকে। কেউ কোন সিদ্ধান্ত নেন না।

১৭ মে যখন শেখ হাসিনা দেশে ফিরেছিলেন তখন এক প্রবল প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে তাকে লড়াই করতে হয়েছে। বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু নিষিদ্ধ ছিলো। এক বিরূপ বাস্তবতার মধ্য দিয়ে তাকে যেতে হয়েছে দীর্ঘ সময়। এখন দেশে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীর অভাব নেই। হাটে, মাঠে, ঘাটে আওয়ামী লীগে সয়লাব। বর্ষার বৃষ্টিতে যেমন খাল-বিলে মাছে টইটুম্বুর থাকে দেশ এখন আওয়ামী লীগ দিয়ে টইটুম্বুর হয়ে গেছে। কে আসল, কে নকল তা বোঝা ভার। আর একারণেই প্রশ্ন উঠেছে, যারা সর্বনাশা খেলায় মেতেছেন, যাদের ভুল পরামর্শে অর্থনীতির বারোটা বাজছে, যাদের কারণে আওয়ামী লীগের ভেতর কোন্দল বেড়ে যাচ্ছে, যাদের কারণে দ্রব্যমূল্যের বাজারে অস্থিরতা। তারা সরকারের চারপাশেই আছেন। তারা কি সরকারের শুভাকাঙ্খী নাকি ষড়যন্ত্রকারী? আওয়ামী লীগ যখন বিপদে পড়বে তখন এদের চেহারাটা কেমন হবে? আর আওয়ামী লীগের জন্য এখন খুবই আয়েশি সময়। আওয়ামী লীগ এক আত্মতুষ্টির আতিশায্যে দিন কাটাচ্ছে। কিন্তু মনে রাখতে হবে যে, আলোর পরেই অন্ধকার। তাই চাটুকার, সুবিধাবাদী, এবং সুযোগ সন্ধানীদের কাছ থেকে আওয়ামী লীগকে মুক্ত করতে হবে। দেশের প্রকৃত অবস্থা উপলব্ধির চেষ্টা করতে হবে। জনগণের কাছে যেতে হবে আওয়ামী লীগকে। সরকার যদি জনবান্ধব না হয়, মানুষের জীবনে যদি সরকার স্বস্তি আনতে না পারে তাহলে জনগণও মুখ ফিরিয়ে নেয়। এটাই ইতিহাসের শিক্ষা। ১৭ মে থেকে আওয়ামী লীগকে সেই শিক্ষাই নিতে হবে। জনগণই ১৯৮১ সাল থেকে আওয়ামী লীগ সভাপতিকে সমর্থন দিয়ে তাকে রাজনীতির উচ্চ শিখরে আসীন করেছে। জনগণের ভালোবাসাতেই তিনি প্রতিকূলতাকে জয় করেছেন। জনগণই তার প্রধান শক্তি। কাজেই জনগণের সন্তুষ্টি নিশ্চিত করা আওয়ামী লীগের প্রধান কাজ। সবকিছু ঠিক আছে, বলে বাস্তবতাকে আড়াল করলে ক্ষতি হবে আওয়ামী লীগেরই। 

সৈয়দ বোরহান কবীর, নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত
ই-মেইল: poriprekkhit@yahoo.com


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

এই সব সুশীলদের এখন কী হবে?

প্রকাশ: ০৮:০০ পিএম, ১৫ মে, ২০২৪


Thumbnail

বাংলাদেশে সুশীল সমাজের কিছু প্রতিনিধি আছেন যাদেরকে মনে করা হয় তারা মার্কিনপন্থী। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রেখে তারা গর্ব অনুভব করেন। কথায় কথায় মার্কিন দূতাবাসে যান। সেখানে প্রাতঃরাশ, মধ্যাহ্নভোজ, নৈশভোজে মিলিত হন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যা বলে তারা তার চেয়ে তিন ধাপ গলা উঁচিয়ে কথা বলেন। বাংলাদেশ নিয়ে তাদের কোন ভালবাসা নেই, প্রেম নেই, আগ্রহ নাই। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান এবং নীতি বাংলাদেশে বাস্তবায়ন করাই যেন তাদের প্রধান লক্ষ্য। এই সমস্ত সুশীলদেরকে বলা হয় যুক্তরাষ্ট্রের মাইক্রোফোন। 

গত প্রায় পাঁচ বছর ধরে এই ধরনের সুশীলের প্রভাব প্রতিপত্তি বাংলাদেশে ব্যাপক লক্ষ্য করা গিয়েছিল। মিডিয়া থেকে শুরু করে বিভিন্ন ফোরামে তারা যেন ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কণ্ঠস্বর। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যখন গণতন্ত্র সম্মেলনে বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানায়নি, তখন এই সমস্ত সুশীলরা বাহবা দিয়েছেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সিদ্ধান্ত সঠিক বলেই বিভিন্ন টকশোতে, বিভিন্ন লেখালেখিতে বক্তব্য দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার সময়ও সুশীলদের দেখা গেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে কথা বলতে। এতে যে দেশের ক্ষতি সেটি অনুভব করার সামর্থ্য তাদের নেই। আবার ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিসা নীতি ঘোষণা করল তখন এই সমস্ত সুশীলরা ভিসা নীতি নিয়ে যেন মার্কিন কূটনীতিকের ভূমিকা অবতীর্ণ হয়েছিলেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে যখনই কোনো প্রতিনিধিরা আসতেন তখন এই সমস্ত সুশীলদের সঙ্গে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বৈঠক করতেন এবং এতেই বাজারে তাদের কদর বাড়ত। বিভিন্নভাবে তারা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতেন। আর এই সমস্ত সুশীলদের খুঁটির জোর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এমন কথাটা সর্বত্র চাউর ছিল। কিন্তু সেই সুশীলরাই এখন অপাংক্তেয় হয়ে গেলেন। তারা এখন হতাশার সাগরে নিমজ্জিত। 

ডোনাল্ড লুর সফরে এবার চায়ের দাওয়াত পাননি সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা। ডোনাল্ড লুর সঙ্গে তাদের দেখা সাক্ষাৎও হয়নি। এ নিয়ে তাদের ভীষণ মন খারাপ। বিশেষ করে হেফাজতের তাণ্ডবের সময়ে যিনি হেফাজতের কর্মীদের মৃত্যু আবিষ্কার করেছিলেন, মানবাধিকারের নামে যিনি সরকারবিরোধী অপতৎপরতায় লিপ্ত সেই আদিলুর রহমান খান প্রতিবারই মার্কিন দূতাবাসে দাওয়াত পেতেন। কিন্তু এবার তাকে দাওয়াত দেওয়া হয়নি। এই বিতর্কিত তথাকথিত মানবাধিকার কর্মী বাংলাদেশকে নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এক ধরনের ষড়যন্ত্রের সঙ্গে লিপ্ত। 

জিল্লুর রহমান তৃতীয় মাত্রা উপস্থাপক। পিটার হাস রাষ্ট্রদূত হওয়ার পরপরই লাইমলাইটে আসেন জিল্লুর রহমান। তার সঙ্গে পিটার হাসের সখ্যতার কথা তিনি নিজেই বিভিন্ন জায়গায় বলে বেরিয়েছেন। ডোনাল্ড লু যখন ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে তখন ডোনাল্ড লুর সঙ্গে তিনি এক সাক্ষাৎকারেও আয়োজন করেছিলেন। একদা খুনি রশিদের সাক্ষাৎকার নেওয়া এই বিতর্কিত উপস্থাপক মার্কিন অর্থায়নে এবং মার্কিন আর্থিক সহায়তায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন। কিন্তু এবার তিনিও অপাংক্তেয় ছিলেন। 

স্বাধীনতাবিরোধীর সন্তান সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের কর্মী। সৈয়দা রিজওয়ানা হাসানের প্রধান কাজ হল সরকারকে নানাভাবে সমালোচনা করা। সরকারের লক্ষ্য ত্রুটি বিচ্যুতি বের করাই যেন তাঁর একমাত্র মিশন। সেই রিজওয়ানা হাসানকেও এবার দাওয়াত দেয়নি মার্কিন দূতাবাস। আর এই সমস্ত ব্যক্তিদেরকে দাওয়াত না দেওয়া ফলে প্রশ্ন উঠেছে। 

তবে বিস্ময়কর ব্যাপার ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক দম নিজস্ব ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত বদিউল আলম মজুমদারের অনুপস্থিতি। বদিউল আলম মজুমদার প্রভাবশালী হয়ে উঠেছিলেন। কারণ তাকে মনে করা হত তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশে মূখপাত্র। এমন কী মার্সিয়া বার্নিকাটকে বিদায়ের আগে তাঁর বাসায় নৈশ্যভোজের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। সেই বদিউল আলম মজুমদারের মার্কিন দূতাবাসে চায়ের দাওয়াত না পাওয়াটা বিস্ময়কর। প্রশ্ন হচ্ছে দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি নিয়ে যে সব সুশীলরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পদলেহন করেছেন তাদের এখন কী হবে?

সুশীল   ডোনাল্ড লু   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র   সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান   বদিউল আলম মজুমদার   আদিলুর রহমান খান  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন