ইনসাইড হেলথ

‘ওমিক্রন’ প্রতিরোধে যেসব পদক্ষেপ বাস্তবায়নের কথা জানাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

প্রকাশ: ০৮:৩৬ এএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail ‘ওমিক্রন’ রোধে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশনা

করোনার ভাইরাসের ভয়ংকর সংক্রামক সংস্করণ ‘ডেল্টা’ ভ্যারিয়েন্টের চেয়েও অধিক ক্ষতিকর দক্ষিণ আফ্রিকান ধরন ‘ওমিক্রনের’ সংক্রমণ রোধে ১৫ দফা পদক্ষেপ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের কথা বলেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

যুক্তরাজ্যসহ অনেক দেশ দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, বতসোয়ানা, এসওয়াতিনি ও লেসোথোর সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগ বন্ধ করেছে। নতুন এ ভ্যারিয়েন্ট ডেল্টা থেকেও অধিক সংক্রামক বলে বিশেষজ্ঞরা মত দিয়েছেন। তাই এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

রোববার (২৮ নভেম্বর) অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলামের সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব পদক্ষেপ সম্পর্কে জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দক্ষিণ আফ্রিকা ও অন্যান্য দেশে করোনাভাইরাসের দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট (ধরন) ‘ওমিক্রন’-এর সংক্রমণ দেখা দেওয়ায় অধিকতর সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সব দেশকে এ সম্পর্কে সতর্ক করেছে।

এ পরিস্থিতিতে দেশব্যাপী ১৫টি পদক্ষেপ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের জন্য অনুরোধ জানিয়েছে অধিদফতর।

১. দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, বতসোয়ানা, এসওয়াতিনি, লেসোথো ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক সময় সময় ঘোষিত অন্যান্য আক্রান্ত দেশ থেকে আসা যাত্রীদের বন্দরসমূহে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও স্ক্রিনিং জোরদার করতে হবে।

২. সব ধরনের (সামাজিক/রাজনৈতিক/ধর্মীয়/অন্যান্য) জনসমাগম নিরুৎসাহিত করতে হবে।

৩. প্রয়োজনে বাড়ির বাইরে গেলে প্রত্যেক ব্যক্তিকে সর্বদা সঠিকভাবে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরাসহ সব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে।

৪. রেস্তোরাঁতে বসে খাওয়ার ব্যবস্থা ধারণক্ষমতার অর্ধেক বা তার কম করতে হবে।

৫. সব জনসমাবেশ, পর্যটন স্থান, বিনোদন কেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার, সিনেমা হল/থিয়েটার হল ও সামাজিক অনুষ্ঠানে (বিয়ে, বৌভাত, জন্মদিন, পিকনিক, পার্টি ইত্যাদি) ধারণক্ষমতার অর্ধেক বা তার কমসংখ্যক লোক অংশগ্রহণ করতে পারবে।

৬. মসজিদসহ সব উপাসনালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে।

৭. গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হবে।

৮. আক্রান্ত দেশসমূহ থেকে আসা যাত্রীদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে।

৯. সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (মাদরাসা, প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক, মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক, বিশ্ববিদ্যালয়) ও কোচিং সেন্টারে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হবে।

১০. সব স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে সেবা গ্রহীতা, সেবা প্রদানকারী ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সর্বদা সঠিকভাবে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরাসহ সব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে।

১১. স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভ্যাকসিন কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

১২. করোনা উপসর্গ/লক্ষণযুক্ত সন্দেহজনক ও নিশ্চিত করোনা রোগীর আইসোলেশন ও করোনা পজিটিভ রোগীর ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা অন্যান্যদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

১৩. কোডিড-১৯ এর লক্ষণযুক্ত ব্যক্তিকে আইসোলেশনে রাখা এবং তার নমুনা পরীক্ষার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে সহায়তা করা যেতে পারে।

১৪. অফিসে প্রবেশ এবং অবস্থানকালে বাধ্যতামূলকভাবে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা দাফতরিকভাবে নিশ্চিত করতে হবে।

১৫. কোডিড-১৯ রোগ নিয়ন্ত্রণ ও হ্রাস করার নিমিত্তে কমিউনিটি পর্যায়ে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার সচেতনতা তৈরির জন্য মাইকিং ও প্রচারণা চালানো যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনে মসজিদ/মন্দির/গির্জা/প্যাগোডার মাইক ব্যবহার করা যেতে পারে এবং ওয়ার্ড কাউন্সিলর/ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যসহ নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করা যেতে পারে।

এদিকে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি ৪৮তম সভা শেষে চারটি সুপারিশ করেছে। যার মধ্যে রয়েছে, ওমিক্রন সংক্রমিত দেশ থেকে বাংলাদেশে যাত্রী আসা বন্ধ রাখা, এসব দেশ থেকে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকরণ, বন্দরে কোভিড পরীক্ষা জোরদার ইত্যাদি।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

ডেঙ্গুতে মৃত্যু ১, আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ১২৮ জন

প্রকাশ: ০৪:৩৮ পিএম, ১৬ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail ডেঙ্গুতে মৃত্যু ১, আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ১২৮ জন

সারাদেশে গত ২৪ ঘন্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও ১২৮ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। একই সময়ে ডেঙ্গুতে নতুন করে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। সবমিলিয়ে সারা দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪২৪ জনে। 

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) সারাদেশের পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এর আগে সোমবার ৯৬ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে নতুন ভর্তি হওয়াদের মধ্যে ১০৮ জনই ঢাকার বাসিন্দা। এ সময়ে ঢাকার বাইরের হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন করে ভর্তি হয়েছে ২০ জন।

বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি থাকা সর্বমোট ৪২৪ জনের মধ্যে ৩৬১ জনই ঢাকার বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। আর ঢাকার বাইরে রয়েছেন সর্বমোট ৬৩ জন।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে আজ (১৬ আগস্ট) পর্যন্ত হাসপাতালে সর্বমোট রোগী ভর্তি হয়েছেন ৩ হাজার ৯৮৩ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ৩ হাজার ৩১৮ জন এবং ঢাকার বাইরে বিভিন্ন জেলায় সর্বমোট রোগী ভর্তি হয়েছেন ৬৬৫ জন।

ডেঙ্গু   মৃত্যু   আক্রান্ত   হাসপাতাল   ভর্তি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

বিএসএমএমইউতে অসচ্ছল রোগীদের বিনামূল্যে এনজিওগ্রাম সেবা প্রদান

প্রকাশ: ০৭:৩৬ পিএম, ১৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail বিএসএমএমইউতে অসচ্ছল রোগীদের বিনামূল্যে এনজিওগ্রাম সেবা প্রদান

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) হৃদরোগ বিভাগে প্রথমবারের মত গরীব রোগীদের ফ্রি এনজিওগ্রাম করা হয়েছে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) সকালে হৃদরোগ বিভাগের ক্যাথল্যাবে এ সেবা দেয়া। এই কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধুর পূণ্য স্মৃতির প্রতি সম্মান প্রদর্শনের নিমিত্তে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের উদ্যোগে স্বেচ্ছায় রক্তদান ও বিনামূল্যে ব্লাড গ্রুপিং, মেডিসিন, সার্জারি, ডেন্টাল, বেসিক সাইন্স অনুষদ ভুক্ত বিভিন্ন বিভাগের উদ্যোগে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত বিনামূল্যে পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসাসেবা দেওয়া, সার্জারি সেবা দেওয়া, ইন্টারভেনশনাল হেপাটোলজি ডিভিশনের উদ্যোগে বিনামূল্যে সি ভাইরাসের ওষুধ বিতরণ, প্লাস্টিক সার্জারির উদ্যোগে শহীদ শেখ জামাল ফ্রি প্লাস্টিক সার্জারি ক্যাম্পের আওতায় জন্মগত মুখমণ্ডলের বিকৃতি, ঠোট কাটা ও তালু কাটা রোগীদের অস্ত্রোপচার, কার্ডিওলজি বিভাগের উদ্যোগে বিনামূল্যে অসচ্ছল রোগীদের এনজিওগ্রাম ও এনজিওপ্লাস্টি, বিনামূল্যে ব্রেস্ট ক্যান্সার সার্জারি, স্ত্রী ও প্রসূতি বিভাগে বিসা হিস্ট্রেকটোমি, মিয়োমেকটোমির মতো গুরুত্বপূর্ণ সার্জারি, বিনামূল্যে ল্যাপকল সার্জারিসহ বিভিন্ন সেবা দেওয়া হয়।



এ বছর বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকবৃন্দ মোট  ৩৭১৫ জন রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা প্রদান করেছেন। এরমধ্যে মেডিসিন অনুষদভুক্ত বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসকবৃন্দ ২৩৩১ জন রোগীকে, সার্জারি অনুষদভুক্ত বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসকবৃন্দ ১২৫৪ জন রোগীকে এবং ডেন্টাল অনুষদভুক্ত বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসকবৃন্দ ১৩০ জন রোগীকে চিকিৎসাসেবা প্রদান করেছেন।হৃদরোগ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোঃ রসুল আমীন প্রথম এনজিওগ্রাম করেন।

এছাড়া জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা, শোকের প্রতীক কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাচ ধারণ, বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন, বাদ জোহর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে মিলাদ মাহফিল, দোয়া ও তবারক বিতরণ, বাদ ফজর থেকে বাদ জোহর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে কোরআন খতম ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, দেশে স্বাধীনতাবিরোধী পাকিস্তানপন্থী ষড়যন্ত্রকারীরা আবার রাজপথে সক্রিয় হচ্ছে। এরাই সেই চক্র যারা বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের পর ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের বিচারের পথ রুদ্ধ করে রেখেছিল।

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের তারা দেশে বিদেশে পুরস্কৃত করেছিল। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের দিন ১৫ আগস্টে তারা কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন করতো। আজ সময় এসেছে স্বাধীনতায় বিশ্বাসী মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণকারী সব পক্ষকে সব ধরনের বিভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে স্বাধীনতাবিরোধীদের রুখে দাঁড়ানোর। জাতীয় শোক দিবসে আমাদের শপথ হোক আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে ষড়যন্ত্রকারীদের রুখবো এবং নিজ নিজ দায়িত্ব ও কর্তব্য সঠিকভাবে পালন করবো।

বিভিন্ন কর্মসূচিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) অধ্যাপক ডা. এ কে এম মোশাররফ হোসেন, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. আতিকুর রহমান, ডেন্টাল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মো. আলী আসগর মোড়ল, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হোসেন, বেসিক সাইন্স ও প্যারা ক্লিনিক্যাল সাইন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. শিরিন তরফদার, শিশু অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. শাহীন আকতার, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবুর রহমান দুলাল, হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ডা. এসম মোস্তফা জামানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সব বিভাগের বিভাগীয় চেয়ারম্যানরা, শিক্ষক, বিভিন্ন অফিস প্রধানরা, চিকিৎসক, কর্মকর্তা, নার্স, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় শোক দিবসের দিন আজ ১৫ আগস্টে বিশ্ববিদ্যালয়ের হাসপাতাল (ইনডোর), ফিভার ক্লিনিক, পিসিআর ল্যাব ও জরুরি বিভাগ খোলা ছিল। এছাড়া বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা কনভেনশন সেন্টারে স্থাপিত ফিল্ড হাসপাতালের কার্যক্রমও যথারীতি চলছে।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শনিবার (২০ আগস্ট) বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক। এতে সভাপতিত্ব করবেন উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

করোনায় আরও ১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৫৯

প্রকাশ: ০৭:০৪ পিএম, ১৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail করোনায় আরও ১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৫৯

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার ৩১৪ জনে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে এ সময়ের মধ্যে ২৫৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ৯ হাজার ১২৯ জনে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৪১৫ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৫১ হাজার ৭৩৭ জন।

২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ৩৫৫টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৬ হাজার ৩৩৬টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৪ দশমিক ০৯ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬৮ শতাংশ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। ২০২১ সালের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান।

করোনা   আক্রান্ত   মৃত্যু  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

৫ থেকে ১১ বছরের শিশুদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই টিকা দেওয়া হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশ: ০২:৫৭ পিএম, ১৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail ৫ থেকে ১১ বছরের শিশুদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই টিকা দেওয়া হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন যে  ৫ থেকে ১১ বছরের শিশুদের (প্রাথমিকের শিক্ষার্থী) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই টিকা দেওয়া হবে। 

তিনি বলেন, শিশুদের এই টিকা কর্মসূচি পরিচালিত হবে সিটি কর্পোরেশন এলাকাগুলোতে। সেখানকার স্কুলগুলোতে আমরা টিকা দেবো। ইতোমধ্যেই কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, শিশুরা যেন সঠিক সময়ে কেন্দ্রে এসে টিকা নেয়। টিকা কেন্দ্রে এসে যেন শিশুরা বসতে পারে সে ব্যবস্থা করতে হবে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) রাজধানীর মহাখালীতে জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সভা ও দোয়া মাহফিল শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

দেশে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী ২ কোটি ২০ লাখ শিশু আছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, এই শিশুরা দেশের যে প্রান্তেই থাকুক তাদের হিসেবে নেওয়া হয়েছে। ভাসমান হোক আর স্কুলে না পড়া শিশু হোক, সব শিশুই টিকা পাবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের টিকা কার্যক্রম চলমান রয়েছে। টিকার প্রথম ডোজ, দ্বিতীয় ডোজ ও বুস্টার ডোজ কার্যক্রমও চলমান রয়েছে। শিশুদের টিকা কার্যক্রম ১১ আগস্ট উদ্বোধন করা হয়েছে। আগামী ২৫ তারিখ থেকে পুরোদমে টিকা কার্যক্রম পরিচালনা হবে। এজন্য যা যা করা প্রয়োজন, সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, টিকা তারাই নিতে পারবে, যারা নিবন্ধন করেছে। নিবন্ধন কার্যক্রম চলমান রয়েছে, তবে তা দ্রুত শেষ করতে বলা হয়েছে। এই বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রী আরও জানান, আমরা অতীতেও টিকা দিয়েছি। আমাদের চিকিৎসক, নার্সদের এখন পর্যাপ্ত অভিজ্ঞতা রয়েছে। তারা প্রশিক্ষিত। ৩০ কোটি টিকাদানেও আমাদের কোনো অঘটন ঘটেনি। আমরা শিশুদের প্রতি বিশেষভাবে মনোযোগী আছি।



স্বাস্থ্যমন্ত্রী   করোনা টিকা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

করোনায় মৃত্যু শূন্য দেশ

প্রকাশ: ০৫:০২ পিএম, ১৩ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail করোনায় মৃত্যু শূন্য দেশ

সারাদেশে গত ২৪ ঘন্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একজনও মারা যায়নি। ফলে মৃত্যু সংখ্যা অপরিবর্তিত থেকে মৃত্যু সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার ৩১২ জনে। একই সময়ে ১৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ৮ হাজার ৬৪৪ জনে।

শনিবার (১৩ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৪৫৬ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৫০ হাজার ৮৪৩ জন।

২৪ ঘণ্টায় ৩ হাজার ৩৫৫টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৩ হাজার ৩৫৭টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৪ দশমিক ২৯ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬৯ শতাংশ।

করোনাভাইরাস   ওমিক্রন  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন