ইনসাইড গ্রাউন্ড

মেসিকে নিয়ে সেরা ১৩ উক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৯:৩০ পিএম, ০৯ জুন, ২০১৮


Thumbnail

বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার লিওনেল মেসি। আর সামনেই দাড়িয়ে আছে ফুটবল বিশ্বের সবচেয়ে বড় আসর বিশ্বকাপ ফুটবলের আসর। আর এই আসরটিই হতে যাচ্ছে মেসির শেষ টুর্নামেন্ট। আর মেসিকে নিয়ে প্রায়ই নানাজন হরেকরকম মন্তব্য করে থাকে। আসুন সে সব মন্তব্য বা উক্তি থেকে জানে নেই মেসিকে নিয়ে সেরা ১৩টি উক্তি।

১. আমি কখনোই মেসির মত কাউকে দেখিনি। সে ইশ্বরের অলৌকিক ক্ষমতা। সে যখন মাঠে তার কাজ গুলো করে সেটা আমি পছন্দ করি। এটা ইর্ষা নয়। তখন আমি আনন্দিত হই- আদ্রা তুরান

২. আমার জন্য মেসির খেলা দেখা একটি আনন্দের। এটি প্রচণ্ড উত্তেজনা থাকার মত একটি অবিশ্বাস্য আনন্দ- লুইস ফিগো

৩. এই বার্সা মেসিকে মনে রাখবে মেসির বার্সা হিসেবে। সে সব কিছু এত সহজে করত যা আমি আগে কখনোই দেখিনি। সে এলিয়েন- পুয়েল

৪. মেসির খেলা দেখা অনেকটাই ভিডিও গেমের মত। মেসি ফুটবল মাঠে যা করে তা অচিন্তনিয়। সে এদিক সেদিক হাটাহাটি করে আর সুযোগ পেলেই ম্যাজিক তৈরি করে- ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কা।

৫. সে সবসময় সামনে দিকে এগিয়ে চলে। বল পায়ে সে ব্যাক কিংবা সাইডে পাস করে না। তার শুধু একটাই চিন্তা সামনে এগিয়ে চলো গোল করো। তাই একজন ফুটবল ভক্ত হিসেবে তার শো উপভোগ করো- জিদান

৬. কে বিশ্বসেরা খেলোয়াড়? লিও মেসি। কে ইতিহাসের সেরা খেলোয়াড়? লিও মেসি- আর্সেন ওয়েঙ্গার।

৭. আমি সেই খেলোয়াড়কে দেখেছি যে আর্জেন্টিনায় আমার জায়গা দখল করেছে। সে হল মেসি এবং সে সেরা- ম্যারাডোনা।

৮. আমি মেসিকে পছন্দ করি। সে অসাধারণ খেলোয়াড়- পেলে।

৯. মেসির ডান পায়েরে প্রয়োজন হয়না। সে শুধু বাম পায়েই বিশ্ব সেরা। একবার ভাবুন, সে যদি ডান পাও ব্যবহার করত তাহলে আমরাই সমস্যায় পড়ে যেতাম- ইব্রাহিমোবিচ।

১০. রোনালদোর জীবনে একমাত্র খারাপ জিনিস হল মেসি। যদি মেসি না থাকত তাহলে রোনালদোই হত বিশ্বসেরা- স্কলারি।

১১. আমি বিশ্বাস করিনা, মেসর মত এরকম করে অন্য কেউ ফুটবল খেলতে পারবে- মাইকেল ওয়েন।

১২. মেসি হল একটি প্রতিভা। সে সবকিছু। আমি যখন তাকে দেখি তখন আমার ম্যারাডোনার কথা মনেহয়- ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার।

১৩. তাকে নিয়ে লিখো না। তাকে বর্ননা করার চেষ্টা করো না। শুধু দেখে যাও- গার্দিওলা।


বাংলা ইনসাইডার/ডিআর



মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

প্যারিসের পর এবার যুদ্ধের ঘোষণা দিলেন বার্সা কোচও

প্রকাশ: ০৩:১৬ পিএম, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে বুধবার রাতে পার্ক দ্য প্রিন্সেসে স্প্যানিশ জায়ান্টদের মুখোমুখি হয়েছিল প্যারিসিয়ানরা। যেখানে বার্সেলোনার কাছে ৩-২ গোলে হেরেছে পিএসজি। আর এমন হারকে হতাশাজনক ও বিরক্তিকর উল্লেখ করে এবার বার্সেলোনায় ফিরতি লেগে যুদ্ধে লড়তে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন প্যারিসের কোচ লুইস এনরিকে।

প্যারিস কোচের এমন ঘোষণার পর চুপ থাকেননি বার্সা কোচ জাভিও। লা লিগায় শনিবার কাদিসের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয় পেয়েছে বার্সেলোনা। এই জয়ের পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দ্বিতীয় লেগের আগে পিএসজিকে হুমকি দিয়ে রেখেছেন জাভি। তার কথায়, মঙ্গলবার আমাদের একটি যুদ্ধ আছে।

ইউরোপের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে পিএসজির বিপক্ষে প্রথম লেগে জয়ের পর দারুণ ছন্দে রয়েছে বার্সা। কাদিসের বিপক্ষে ম্যাচেও নিজেদের শক্তির জানান দিয়েছে জাভির শিষ্যরা।

এদিন ম্যাচের ৩৭তম মিনিটে পর্তুগিজ তারকা জোয়াও ফেলিক্সের গোলে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। পুরো ম্যাচে আধিপত্য বিস্তার করে খেলা বার্সা আর গোলের দেখা না পেলেও চ্যাম্পিয়নস লিগের দ্বিতীয় লেগের ম্যাচের আগে জয় দিয়ে নিজেদের প্রস্তুতি সেরেছে।

পিএসজির বিপক্ষে নিজেদের মাঠে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচটিকে যুদ্ধ হিসেবে আখ্যায়িত করে জাভি বলছেন, ‘মঙ্গলবার আমাদের একটি যুদ্ধ আছে (পিএসজির বিপক্ষে)। আমরা বড় কিছু করতে চাই। মৌসুমে সেরা ছন্দে থাকা অবস্থায় ম্যাচটা আমাদের সামনে এসেছে।’

এর আগে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচ নিয়ে পিএসজি কোচ লুইস এনরিকে বলেন, ‘আমরা বার্সেলোনায় যুদ্ধে লড়তে যাব।’

তিনি বলেন, অনেক আশা প্রত্যাশা নিয়ে আমরা খেলতে যাব। আমরা সেখানে জিততেও পারি এই ভাবনা আমাদের জন্য ইতিবাচক দিক। আমাদের জন্য ফাইনাল ম্যাচ হতে যাচ্ছে। আমার দলের ওপর বিশ্বাস আছে যে তারা পারবে।

আগামী ১৭ এপ্রিল ঘরের মাঠে পিএসজির বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে মাঠে নামবে বার্সেলোনা।


বার্সালোনা   চ্যাম্পিয়ন্স লিগ   জাভি হার্নান্দেজ   প্যারিস   লুইস এনরিকে  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

আইপিএলের ‘এল ক্লাসিকো’ আজ

প্রকাশ: ১২:৫২ পিএম, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

আইপিএলের ১৬ আসরের মধ্যে ১০টির চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এবং চেন্নাই সুপার কিংস। এই দুই দলের ধারে কাছেও নেই বাকি দলগুলো। উভয় দলেরই রয়েছে ৫টি করে কাপ।

এবারের আসর শুরু হয়েছে তিন সপ্তাহের বেশি সময়। কিন্তু এখনও মুখোমুখি হয়নি মুম্বাই ও চেন্নাই। তবে আজ রোববার (১৪ এপ্রিল) মুখোমুখি হচ্ছে তারা। আর তাইতো আজকের এই ম্যাচকে এল ক্লাসিকো অ্যাখ্যা দিয়েছেন সাবেক ক্রিকেটার ও বর্তমান ধারাভাষ্যকার ইয়ান বিশপ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম 'এক্স' এ বিশপ লিখেছেন, 'এল ক্লাসিকো আজ!!! ওয়াংখেড়েতে সিএসকে বনাম এমআই ম্যাচ দুর্দান্ত কিছু হতে যাচ্ছে।'

এল ক্লাসিকো শব্দটি মূলত 'দ্য ক্লাসিক' এর স্প্যানিশ অনুবাদ। ফুটবল বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ দুই ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ এবং বার্সেলোনার মধ্যেকার ফুটবল ম্যাচকে বলা হয় এল ক্লাসিকো। দুই দলের সাফল্য, রাজনীতি এবং অন্যান্য সব ইতিহাস বিবেচনায় এই ম্যাচকে নিয়ে থাকে বাড়তি উন্মাদনা। ইয়ান বিশপ সেই উন্মাদনা খুঁজেছেন চেন্নাই এবং মুম্বাইয়ের ম্যাচে।

এখন পর্যন্ত দুই দলের দেখায় অবশ্য কিছুটা এগিয়েই থাকছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। দুই দলের মাঝে এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়েছে ৩৮ ম্যাচ। তাতে চেন্নাই জিতেছে ১৭ ম্যাচ। আর মুম্বাই শেষ হাসি হেসেছে ২১ ম্যাচে। এমনকি আজকের ম্যাচ ভেন্যু ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামের হিসেবেও এগিয়ে স্বাগতিকরা। ১১ ম্যাচের মধ্যে চেন্নাই জিতেছে ৪ ম্যাচ। আর স্বাগতিকরা জিতেছে ৭ ম্যাচ।

আইপিএলের সবচেয়ে সফল দুই দলের এই লড়াইয়ে অবশ্য বাংলাদেশের ভক্তদের থাকবে বাড়তি নজর। এই ম্যাচে চেন্নাইয়ের জার্সিতে খেলতে পারেন টাইগার পেসার মুস্তাফিজুর রহমান।

আজ মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের মুখোমুখি হবে চেন্নাই। ৫ ম্যাচের ৩ টিতে জিতে পয়েন্ট তালিকার ৩ নম্বরে আছে এম এস ধোনির দল। এদিকে সমান ম্যাচ খেলে ২ জয়ে ৭ নম্বরে অবস্থান মুম্বাইয়ের। আইপিএল ইতিহাসের সেরা এই দুই দলের লড়াই অন্যরকম আবহের সৃষ্টি করে। যাকে বলা হয়ে থাকে আইপিএলের সবচেয়ে বড় রাইভালিটি।

আজকের ম্যাচেও কিছুটা এগিয়ে থাকবে হার্দিক পান্ডিয়ার নেতৃত্বাধীন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।  মুম্বাইয়ের হোম ভেন্যু বরাবরই দর্শক সমর্থনে পুষ্ট। বোলারদের স্নায়ুতে চাপ ফেলতে ওয়াংখেড়ের দর্শকদের জুড়ি মেলা ভার। এবারের আসরেও টানা ব্যর্থতায় ঘুরপাক খাচ্ছিল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। কিন্তু সবশেষ দুই ম্যাচে জয় পেয়েছে ৫ বারের চ্যাম্পিয়নরা। আর মুম্বাইয়ের ঘুরে দাঁড়ানোর মিশনে এক্স-ফ্যাক্টর হয়ে ছিল ঘরের মাঠ ওয়াংখেড়ে।


মুস্তাফিজ   চেন্নাই সুপার কিংস   আইপিএল   মহেন্দ্র সিং ধোনি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

আবারও মেসিই উদ্ধার করলেন মায়ামিকে

প্রকাশ: ১১:২৮ এএম, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

হারের বৃত্ত থেকে বেরোতে না পারা ইন্টার মায়ামিকে আবারও সেই লিওনেল মেসিই জয়ের ধারায় ফেরালেন। টানা ৫ ম্যাচ জয়হীন থাকার পর রোববার (১৪ এপ্রিল) কানসাস সিটির বিপক্ষে দলকে উদ্ধার করেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি।

দুর্দান্ত পারফরম্যান্স আর দৃষ্টিনন্দন করে ইন্টার মায়ামিকে দারুণ এক জয় উপহার দেন মেসি। বিশ্বকাপজয়ী তারকার জ্বলে ওঠার দিনে মেজর লিগ সকারে (এমএলএস) কানসাস সিটির বিপক্ষে ৩-২ গোলের জয় পায় মায়ামি।

ইনজুরির কারণে টানা পাঁচ ম্যাচে খেলা হয়নি মেসির। কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়ন্স কাপে মন্তেরির বিপক্ষের ফেরেন একাদশে। কিন্তু সেদিন পুরোপুরি ছন্দহীন ছিলেন সাবেক বার্সা তারকা। কানসাস সিটির মাঠে ম্যাচের শুরুতে পিছিয়ে পড়ে মায়ামি।

ঘরের মাঠে প্রায় ৭৩ হাজার দর্শকে সামনে মায়ারির জালে বল জড়ান এরিক টমি। যদিও সমতায ফিরতে খুব বেশি সময় অপেক্ষা করতে হয়নি মেসিদের। প্রতিপক্ষের ডি বক্সের বেশ বাইরে থেকে দিয়েগো গোমেজকে দুর্দান্ত এক পাস দেন মেসি। সেখান থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান গোমেজ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে মায়ামিকে এগিয়ে নেন মেসি। ডেভিড রুইজের কাছ থেকে বক্সের বাইরে বল পান মেসি। দুর্দান্ত এক শটে স্কোর শিটে নাম তোলেন বিশ্বকাপজয়ী এই তারকা। চলতি মৌসুমে লিগে এটি মেসির পঞ্চম গোল। যদিও এগিয়ে যাওয়ার আনন্দ খুব বেশি সময় স্থায়ী হয়নি তাদেল।

৫৮ মিনিটে নিজের জোড়া গোলে দলকে সমতায় ফেরান টমি (২-২)। ৭১ মিনিটে অবশ্য মায়ামিকে আবার এগিয়ে নেন লুইস সুয়ারেজ (৩-২)। এ জয়ে আবারও ইস্টার্ন কনফারেন্সের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে ফিরেছে মায়ামি। ৯ ম্যাচে পয়েন্ট ১৫ মায়ামির। আগামী ২১ এপ্রিল ভোরে ঘরের মাঠে ন্যাশভিলকে আতিথ্য দেবে ইন্টার মায়ামি।


লিওনেল মেসি   আর্জেন্টিনা   ইন্টার মায়ামি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বাংলা বর্ষপঞ্জির প্রথম দিনের শুভেচ্ছা জানালেন সাকিব

প্রকাশ: ১১:০৮ এএম, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

সময়ের চাকা আরও এক পাক ঘুরে বাংলা বর্ষপঞ্জিতে আজ রোববার (১৪ এপ্রিল) শুরু হলো ১৪৩১ সনের দিন গণনা। বাঙালির জীবনে বৈশাখ মাসের এই প্রথম দিনটি কেবল বর্ষ শুরুর সূচনা দিনেই সীমিত নয়। নতুন বছরের নতুন দিনটি উদযাপিত হয় সবচেয়ে বড় উৎসবের উপলক্ষ্য হিসেবে। সাধারণ মানুষ থেকে তারকা সকলেই আজকের এই দিনটি উদযাপন করছেন ভিন্নভাবেই।

বাংলা নতুন এ বছরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দেশসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। নববর্ষকে বরণ করে নিতে বর্ণিল উৎসবের বিশেষ এই দিনটির শুভেচ্ছা জানিয়ে ফেসবুক পোস্টে একটি ছবি যুক্ত করে তিনি লেখেন, ‘শুভ নববর্ষ! আশা করি আমাদের সবার জীবনে এই নতুন বছর অঢেল সুখ, শান্তি এবং আনন্দ নিয়ে আসবে।’

সাকিবের যুক্ত করা ছবিতে আরও লেখা, ‘নতুন বছরে নতুন আশা, নতুন আনন্দ আর নতুন উদ্যোগে ভরে উঠুক আপনার জীবন।’

অতীতে বাংলা নববর্ষের মূল উৎসব ছিল হালখাতা। এটি পুরোপুরিই একটি অর্থনৈতিক ব্যাপার। গ্রামে-গঞ্জে-নগরে ব্যবসায়ীরা নববর্ষের প্রারম্ভে তাদের পুরোনো হিসাব-নিকাশ সম্পন্ন করে নতুন খাতা খুলতেন। এ উপলক্ষে তারা নতুন-পুরাতন খদ্দেরদের আমন্ত্রণ জানিয়ে মিষ্টি বিতরণ করতেন এবং নতুনভাবে তাদের সঙ্গে ব্যবসায়িক যোগসূত্র স্থাপন করতেন। চিরাচরিত এ অনুষ্ঠানটি পালিত হয় এখনও।

মূলত ১৫৫৬ সালে কার্যকর হওয়া বাংলা সন প্রথমদিকে পরিচিত ছিল ফসলি সন হিসেবে, পরে তা পরিচিত হয় বঙ্গাব্দ নামে। কৃষিভিত্তিক গ্রামীণ সমাজের সঙ্গে বাংলাবর্ষের ইতিহাস জড়িয়ে থাকলেও এর সঙ্গে রাজনৈতিক ইতিহাসেরও সংযোগ ঘটেছে।


সাকিব আল হাসান   বাংলা নববর্ষ   ১৪৩১  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

এবারের প্রিমিয়ার লিগে কে হবেন সর্বোচ্চ গোলদাতা?

প্রকাশ: ০৯:০০ এএম, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

ফুটবলে আন্তর্জাতিক সূচিটা কিছুটা দীর্ঘ। প্রায় লম্বা সময় পরপর মাঠে গড়ায় নিজ পছন্দের দেশের খেলা। তবে লম্বা এই বিরতির মাঝে খেলা থেমে থাকে না। চলতে থাকে বিভিন্ন দেশের লিগগুলোর খেলা। যার জন্য এখন ফুটবল ভক্তদের কাছে আন্তর্জাতিক খেলার চেয়ে ক্লাবগুলোর খেলা বেশি উন্মাদনা সৃষ্টি করে।

বিশ্বের সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বপূর্ণ আসর ভাবা হয় ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগকে। সেই লিগের লড়াই এবার জমে উঠেছে বেশ। পয়েন্ট টেবিলে যেন একজন আরেকজনকে ছুঁই ছুঁই অবস্থা। এমন পরিস্থিতিতে কার হাতে উঠবে এবারের শিরোপা তা এই মুহূর্তে বলা খুব কঠিন।

শিরোপার দৌড়ে থাকা তিন দলের পয়েন্ট ব্যবধান মাত্র ১। শীর্ষে থাকা আর্সেনালের পয়েন্ট ৭১, সমান পয়েন্টে দ্বিতীয় স্থানে লিভারপুল। আর তৃতীয় স্থানে থাকা ম্যানচেস্টার সিটির পয়েন্ট ৭০। তিন দলই আবার খেলেছে সমান ৩১ ম্যাচ।

শিরোপার দৌড়ের মতো ব্যাক্তিগত সর্বোচ্চ গোলদাতার লড়াইয়েও দেখা যাচ্ছে টান টান উত্তেজনা। লিগ জয়ের দৌড়ে তিনটি দল টিকে থাকলেও সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার লড়াইয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে টিকে আছেন ১০ জন। যেখানে সর্বোচ্চ গোলদাতার চেয়ে ১০ নম্বরের ব্যবধান মাত্র ৫ গোলের।

সবশেষ মৌসুমে ৩৬ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছিলেন অভিষিক্ত আর্লিং হালান্ড। ম্যানচেস্টার সিটির নরওয়েজীয় স্ট্রাইকারই যে সর্বোচ্চ গোলদাতা হতে যাচ্ছেন বোঝা গিয়েছিল লিগ মাঝ পথেই।

সেই হালান্ডই এবারও এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি গোল করেছেন। ২৫ ম্যাচে তার গোল ১৯। ৩১ ম্যাচে ১৮ গোল করে হালান্ডের ঘাড়ে তপ্ত নিশ্বাস ফেলছেন অ্যাস্টন ভিলার ওলি ওয়াটকিনস। প্রিমিয়ার লিগে এক মৌসুমে ইংলিশ স্ট্রাইকার এর আগে সর্বোচ্চ ১৫ গোল করেছিলেন গতবার।

এর আগে তিনবার সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়া মোহাম্মদ সালাহ ১৭ গোল করে আছেন তিনে। লিভারপুলের মিসরীয় ফরোয়ার্ড এবার ম্যাচ খেলেছেন ২৫টি। ১৬ গোল করে এরপর যৌথভাবে চারে চেলসির কোল পালমার ও বোর্নমাউথের ডমিনিক সোলাঙ্কি। প্রিমিয়ার লিগ ক্যারিয়ারে ইংলিশ মিডফিল্ডার পালমারের মোট গোলই ১৬টি। অন্যদিকে ইংলিশ ফরোয়ার্ড সোলাঙ্কি এবারই প্রথমবার গোলসংখ্যাটাকে দুই অঙ্কে নিতে পারলেন।

সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় শীর্ষ দশে থাকা অন্য পাঁচজন জ্যারড বোয়েন, আলেকসান্দর ইসাক, সন হিয়ুং-মিন, ফিল ফোডেন ও বুকায়ো সাকা। এদের প্রথম তিনজন করেছেন ১৫ গোল, শেষের দুজন ১৪ গোল।


প্রিমিয়ার লিগ   ফুটবল   ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ   ক্রীড়াঙ্গন  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন