ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

কে হচ্ছেন ইরানের নতুন প্রেসিডেন্ট?

প্রকাশ: ১১:০০ এএম, ১১ জুন, ২০২৪


Thumbnail

আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য প্রার্থীকে অনুমতি দিয়েছে ইরানের শক্তিশালীগার্ডিয়ান কাউন্সিল নির্বাচনে জয়ী প্রার্থী হবেন ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের ১৪তম প্রেসিডেন্ট।

নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য চূড়ান্তভাবে মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীরা হলেন-মোস্তফা পুরমোহাম্মাদী, সাঈদ জালিলি, মোহাম্মদ বাকের কলিবফ, আলী রেজা যাকানি, সাইয়্যেদ আমির হোসেন কাজীজাদেহ হাশেমি মাসুদ পেজেশকিয়ান।

মাসুদ পেজেশকিয়ান

তার জন্ম পশ্চিম আজারবাইজান প্রদেশে ১৯৫৪ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর। ১৯৭৩ সালে প্রথম ডিপ্লোমা ডিগ্রি নেওয়ার পর তিনি ১৯৭৫ সালে বিজ্ঞান বিষয়ে দ্বিতীয় ডিপ্লোমা ডিগ্রি নেন। এরপর তাব্রিজ মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন ১৯৭৬ সালে।

মাসুদ পেজেশকিয়ান প্রেসিডেন্ট খাতামির দ্বিতীয় মেয়াদের সরকারে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছিলেন এবং তাব্রিজ অঞ্চলের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে ইরানের জাতীয় সংসদ মজলিশের সদস্য তথা সংসদ ছিলেন পর পর বার।

দশম সংসদে তিনি ছিলেন প্রথম ডেপুটি স্পিকার। এবারের নির্বাচনে একমাত্র তিনিই সংস্কারকামী ধারার প্রার্থী।

মোস্তফা পুরমোহাম্মাদী

তার জন্ম কোম প্রদেশে ১৯৬০ সালে মার্চ। ইসলামী আইন বিচার এবং দর্শন বিষয়ে তিনি মাধ্যমিক উচ্চ-মাধ্যমিক পর্যায়ের পড়াশোনা কোমে শেষ করার পর বিচার ইসলামী আইন বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ের পড়াশোনা করেছেন মাশহাদ কোম এবং তেহরান শহরে।

১৯৭৯ সালে মোস্তফা পুরমোহাম্মাদী ইসলামী বিপ্লবী আদালতের প্রসিকিউটর বা কৌশলী হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন এবং ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত তিনি ইরানের কয়েকটি প্রদেশে এই পদে দায়িত্বপালন করেন। ১৯৯৭ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত তিনি ছিলেন গোয়েন্দা বিষয়ক উপমন্ত্রী।

২০০৫-২০০৮ মেয়াদে মোস্তফা পুরমোহাম্মাদী ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং ২০০৮-২০১৩ মেয়াদে তিনি ছিলেন জাতীয় তদন্ত দপ্তরের প্রধান। ২০১৩-১৭ মেয়াদে তিনি ছিলেন বিচারিক বিষয়ক মন্ত্রী। বর্তমানে তিনি সংগ্রামী আলেম সমাজ নামক দলের মহাসচিব এবং ইসলামী বিপ্লবের দলিল-পত্র বিষয়ক কেন্দ্রের প্রধান।

সাঈদ জালিলি

তার জন্ম মাশহাদ শহরে ১৯৬৫ সালের সেপ্টেম্বর। কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র থাকাকালে কয়েকবার তিনি প্রতিরক্ষার যুদ্ধে (ইরাক-ইরান) অংশ নেন।

১৯৮৬ সালে তিনি একুশতম খোরাসান ইমাম রেজা ব্রিগেডের একজন সেনা হিসেবে সক্রিয় থাকার সময় কারবালা- নামক অভিযান চলাকালে পায়ে মারাত্মক আঘাত পান এবং জরুরি চিকিৎসার সুযোগ-সুবিধা না থাকায় তার ডান পা হারান। এরপরও সাঈদ জালিলি রসদপত্র বিভাগে সেনা হিসেবে সক্রিয় থাকেন।

সাঈদ জালিলি ১৯৮৯ সালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তদন্ত বিষয়ক দপ্তরের প্রধান হন। এরপর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আমেরিকান বিভাগ বিষয়ে তিনি প্রধান ডেপুটি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

সাঈদ জালিলি ২০০৭ সাল থেকে ২০১৩ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত জাতীয় সর্বোচ্চ নিরাপত্তা পরিষদের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং পশ্চিমা সরকারগুলোর সঙ্গে পরমাণু বিষয়ক আলোচনায় নেতৃত্ব দেন।

২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত ১১ তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হন এবং ৪০ লাখেরও বেশি ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করেন। এরপর থেকে সাঈদ জালিলি জাতীয় নীতি নির্ধারণী পরিষদের অন্যতম সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

২০১৭ সালের নির্বাচনে ইব্রাহিম রায়িসির পক্ষে ব্যাপক প্রচার চালিয়েছিলেন তিনি। ২০২১ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও তিনি প্রার্থী হন এবং নির্বাচন অনুষ্ঠানের দুই দিন আগে রায়িসির প্রতি সমর্থন জানিয়ে নিজের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেন।

আলী রেজা যাকানি

তিনি জন্মগ্রহণ করেন ১৯৬৬ সালের মার্চ। ১৯৮৯ সালে তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হন। ১৯৯৮ সালে তিনি জেনারেল ফিজিশিয়ান হিসেবে ডিগ্রি লাভ করেন। ২০০৪ সালে তিনি পারমাণবিক চিকিৎসা বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

আলী রেজা যাকানি ইরানের সপ্তম, অষ্টম নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনপ্রতিনিধি হিসেবে তেহরান অঞ্চল থেকে নির্বাচিত হন। ১১ তম সংসদ নির্বাচনে তিনি কোমের প্রতিনিধি হিসেবে বিজয়ী হন।

আলী রেজা যাকানি সংসদের গবেষণা বিভাগের প্রধান, তেহরান চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সমিতির সভাপতি তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বাসিজের প্রধান, তেহরান প্রদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বাসিজ শাখার প্রধান এবং রেড ক্রিসেন্ট সংস্থার সুপ্রিম কাউন্সিলের সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

তিনি ২০২১ সাল থেকে তেহরানের মেয়র হিসেবে এবং ২০২৩ সালে প্রেসিডেন্টের সহকারী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

কাজীজাদেহ হাশেমি

তার জন্ম হয়েছিল ১৯৭১ সালের ১৪ এপ্রিল খোরাসান প্রদেশের ফারামিন শহরে। তিনি ছিলেন ১১ তম জাতীয় সংসদে মাশহাদ অঞ্চলের অন্যতম প্রতিনিধি এবং সংসদের প্রথম ডেপুটি স্পিকার।

সংসদের অষ্টম, নবম দশম নির্বাচনেও তিনি একই অঞ্চলের প্রতিনিধি হিসেবে বিজয়ী হন। স্পিকার পরিষদের সদস্যও ছিলেন তিনি।

কাজীজাদেহ হাশেমী একাধারে সার্জন, মেডিসিন নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞ। কিছুকালের জন্য তিনি সেমনান চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলরও ছিলেন। পেইদারি ফ্রন্ট নামক দলের কেন্দ্রীয় পরিষদ সদস্য দলটির মুখপাত্রও ছিলেন তিনি।

ইসলামী ইরানের ১৩ তম সরকারের তিনি অন্যতম ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং শহীদ ফাউন্ডেশনের প্রধান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৩ তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে তিনি চতুর্থ স্থান অধিকার করেছিলেন।

মোহাম্মদ বাকের কলিবফ

তার জন্ম হয়েছিল ১৯৬১ সালের ২৩ আগস্ট মাশহাদের কাছে তোরক্বাবেহ অঞ্চলে। ১৯৭৯ সালে ইসলামী বিপ্লবের পর প্রতিবিপ্লবী গ্রুপগুলোর তৎপরতার প্রেক্ষাপটে ইমাম খোমেনীর নির্দেশে ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনী গঠন করা হলে তিনি এই বাহিনীতে যোগ দেন ১৮ বছর বয়সে এবং ১৯৮২ সালে এই বাহিনীর ইমাম রেজা () ব্রিগেডের কমান্ডার হন। 

এক বছর পর তিনি খোরাসানের নাসর- ডিভিশনের কমান্ডার হন। মোহাম্মদ বাকের কলিবফ ১৯৯৭ সালে ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর বিমান-সেনা শাখার প্রধান হন ইরানের সর্বোচ্চ নেতার নির্দেশে। ২০০১ সালে তিনি রাজনৈতিক ভূগোল বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

এর আগে ২০০০ সালে তিনি ইরানের পুলিশ বাহিনীর প্রধান হন। ২০০৫ সালে তেহরানের মেয়র হন এবং এই পদে ১২ বছর দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৯ সালের সংসদ নির্বাচনে তিনি তেহরান অঞ্চলের আসনগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়ে একটি আসনে বিজয়ী হন। সেসময় কলিবফ ভোট পেয়েছিলেন দশ লাখেরও বেশি।

তিনি ২০০৫, ২০১৩ ২০১৭ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও প্রার্থী হন। ২০১৩ সালের নির্বাচনে তিনি ৬০ লাখ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছিলেন। ২০১৭ সালের নির্বাচনে তিনি ইব্রাহিম রায়িসির প্রতি সমর্থন জানিয়ে প্রার্থিতা ত্যাগ করেছিলেন।


ইরান   প্রেসিডেন্ট  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

গাজায় নেই ঈদের আনন্দ, অশ্রুসিক্ত ফিলিস্তিনবাসী

প্রকাশ: ০৪:০০ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা, মুসলিম বিশ্বের প্রতিটি প্রান্তে এই দুটি ঈদ উদযাপন করা হয় উৎসাহ-উদ্দীপনা ও আনন্দের মধ্য দিয়ে। কিন্তু যুদ্ধবিধ্বস্ত অবরুদ্ধ গাজায় ঈদের এই আনন্দ যেন প্রতিবারই ম্লান হয়ে যায়। সেখানে ঈদের দিনে হাসি-আনন্দের পরিবর্তে প্রতি মুহূর্তে ভর করে চাপা আতঙ্ক, প্রতিধ্বনিত হয় বেদনার সুর।

ইসরায়েলি হামলায় বিধ্বস্ত গাজার নুসেইরাত ক্যাম্পের বাসিন্দা ইসমাইল আলিয়ান। তাঁর বাড়ি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে। তিনি বলেন, “আজকের দিনে পাঁচ মিলিয়নের বেশি মুসলিম আরাফাত পর্বতে দাঁড়িয়ে প্রার্থনা করছে। আর আমরা ফিলিস্তিনিরা নির্যাতিত, গণহত্যার শিকার। আমরা কীভাবে ঈদুল আজহা উদযাপন করবো? আমাদের জন্য এটি একটি দুর্দশাগ্রস্ত ঈদ, প্রতিনিয়ত এখানে মানুষ মারা যাচ্ছে।" 

ইসমাইল আলিয়ান তার ধ্বংসপ্রাপ্ত বাড়ির মধ্যে দাঁড়িয়ে আরো বলেন, “আমরা শান্তিতে থাকতে চাই। আমরা মর্যাদার সাথে বাঁচতে চাই। আমরা শিক্ষিত মানুষ, কিন্তু কেউ আমাদের কথা শুনছে না। কেউ আমাদের পরিস্থিতি নিয়ে ভাবছে না। আমরা এখানে দুর্বিষহ, ভয়াবহ অবস্থায় বাস করছি। আমরা প্রস্তরযুগে ফিরে যাচ্ছি। এটা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায়না। সব ফিলিস্তিনি হামাসের সদস্য বলে যে অভিযোগ করা হচ্ছে, তা সত্য নয়। তাদের সাথে আমাদের কোনো সম্পর্ক নেই। আমরা শান্তি এবং মর্যাদার সাথে বাঁচতে চাই।"

শিশুরা ঈদ উদযাপনের মূল কেন্দ্রবিন্দু, অথচ ফিলিস্তিনে এই কঠিন বাস্তবতায় সবচেয়ে ক্ষতির শিকার এই শিশুরাই। ঈদ আনন্দে জেগে ওঠার পরিবর্তে তাদের ঘুম ভাঙছে ড্রোন ও বিস্ফোরণের শব্দে। সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলে বাস করার মানসিক ক্ষত কেড়ে নিয়েছে তাদের নিরুদ্বেগ শৈশবকে। ঘরবাড়ি ও পরিবারের সদস্যদের হারানোর ব্যাথা ঈদকে করে তুলেছে বেদনাদায়ক। স্মারক হয়ে উঠেছে কঠিন এক বাস্তবতার। 

আহত শিশু জামিল আবু ওদেহ ঈদের দিনে হাসপাতালে শুয়ে বলছে, "যুদ্ধ শুরুর পরপরই আমরা ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাই। আমরা বেইত হনুন থেকে দেইর আল-বালাহতে চলে আসি। সেখানে আমরা একটি স্কুলে আশ্রয় নেই। পরে স্কুলটিতে হামলা হলে আমরা আহত হই। আগের ঈদগুলো অনেক সুন্দর ছিল, আমরা উদযাপন করেছিলাম এবং মাংস খেয়েছিলাম, আমরা তখন বেশ খুশি ছিলাম, কিন্তু এখনকার ঈদে কোন আনন্দ নেই। প্রতিনিয়ত আমরা আহত হচ্ছি, মারা যাচ্ছি। এটা কোনভাবেই ঈদ হতে পারেনা।" 

একসময় ঈদের আগে গাজার বাজারগুলোতে সাধারণত দেখা যেত মানুষের ভিড়, হট্টগোল, নতুন পোশাক ও খেলনার স্টল। কিন্তু এবারের ঈদে সেসব জায়গায় কেবলই ধ্বংসস্তূপ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গ্যাব্রিয়েসুসের মতে, গাজার অনেক মানুষ প্রচন্ড ক্ষুধা এবং দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি হচ্ছেন। অচিরেই পরিস্থিতির উন্নতি না হলে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়ের আশঙ্কাও করেন তিনি। 

গাজাবাসীর জন্য ঈদ মানে বেদনা, হাজারো কষ্টের গল্প। পৃথিবীর বেশিরভাগ মুসলিম দেশ তাদের তাদের এ অবস্থা সম্পর্কে জ্ঞাত থাকা সত্ত্বেও মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে অসহায় ফিলিস্তিনিদের ওপর থেকে।  তবুও গাজাবাসী স্বপ্ন দেখে একদিন সবাই তাদের বুঝবে, তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসবে। একদিন তারাও আনন্দ-উল্লাসে ঈদ উদযাপন করতে পারবে।

গাজা   ঈদ   ইসরায়েলি হামলা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

রাখাইনের নিয়ন্ত্রণ হারানোর পথে মিয়ানমার জান্তা

প্রকাশ: ০২:৩২ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মংডুতে আরও ১০টি জান্তা ক্যাম্প দখল করেছে আরাকান আর্মি। জাতিগত সশস্ত্র গোষ্ঠীটির দাবি, শহরটিতে লড়াই চলাকালে একজন স্ট্র্যাটেজিক কমান্ডারসহ প্রায় ২০০ জান্তা সেনা নিহত হয়েছেন। থাইল্যান্ড-ভিত্তিক বার্মিজ সংবাদমাধ্যম ইরাবতি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

গত মাসে মংডুর উত্তরাঞ্চল দখলের পর সম্প্রতি দক্ষিণে সামরিক জান্তা ক্যাম্প এবং সীমান্তরক্ষী পুলিশ অবস্থানগুলোকে নিশানা করেছে আরাকান আর্মি।

মূলত, বুথিডাং শহর দখলের পর গত মে মাসের শেষের দিক থেকে মংডু শহরে বড় আকারে আক্রমণ শুরু করে সশস্ত্র গোষ্ঠীটি। দুটি শহরই বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে উত্তর-পূর্ব রাখাইন রাজ্যে অবস্থিত। এসব এলাকায় মূলত রোহিঙ্গারা বসবাস করেন।

গত শুক্রবার (১৪ জুন) এক ঘোষণায় আরাকান আর্মি দাবি করেছে, তারা এ সপ্তাহে আরও চারটি জান্তা ক্যাম্প দখল করেছে, যার মধ্যে মাওয়ায়াদ্দি স্ট্র্যাটেজিক কমান্ড বেস এবং না খাউং টো ক্যাম্পও রয়েছে।

লড়াই চলাকালে তাদের হাতে জান্তা বাহিনীর মাওয়ায়াদ্দির স্ট্র্যাটেজিক কমান্ডার কর্নেল তাইজার হতেসহ প্রায় ২০০ সেনা নিহত হয়েছেন।

গত বুধবার রাতে শহরটির প্রবেশপথে অবস্থিত সুপরিচিত জান্তা ক্যাম্প আহ লেল থান কিয়াও দখল করে আরাকান আর্মি। হামলার আগে সেখানে প্রায় ২০০ জন সেনা এবং সীমান্তরক্ষী কর্মী ছিলেন। তাদের অনেকে অন্যান্য ঘাঁটিতে পালিয়ে গেছেন বলে দাবি করা হয়েছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনী তাদের আহ লেল থান কিয়াউ ক্যাম্প এবং মাওয়ায়াদ্দি স্ট্র্যাটেজিক কমান্ড বেস উভয়কে রক্ষা করতে বিমান হামলা এবং কামানের গোলা ব্যবহার করেছিল বলে জানানো হয়েছে।

এর আগে, চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে আরাকান আর্মি ছয়টি জান্তা ঘাঁটি দখল করে, যার মধ্যে মংডু-আগনুমাউ রোডের মিন্ট লুট গ্রামের কাছে বর্ডার গার্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন নং ৯ এবং ইন দিন গ্রামে বর্ডার গার্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন নং ৬-এর সদর দপ্তরও রয়েছে।

আরাকান আর্মি বলেছে, তারা আরও কয়েকজন জান্তা সেনাকে বন্দি করেছে এবং পালিয়ে যাওয়া সেনাদের খোঁজে সন্ধান অব্যাহত রেখেছে।

বাংলাদেশি কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে ইরাবতির খবরে বলা হয়েছে, গত বৃহস্পতিবার মংডু থেকে অন্তত ২৮ জন জান্তা সেনা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

এর আগে পালিয়ে আসা মিয়ানমারের ১৩০ জনেরও বেশি নিরাপত্তাকর্মী এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের গত রোববার ফেরত পাঠায় বাংলাদেশ। তার পরেই নতুন করে এই অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটলো।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে শহর রয়েছে প্রায় ১৭টি। এর মধ্যে নয়টিরই নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার দাবি করেছে আরাকান আর্মি। গত বছরের নভেম্বর থেকে রাজ্যটিতে জান্তা বাহিনীর সঙ্গে তীব্র লড়াই চলছে তাদের। পার্শ্ববর্তী চিন রাজ্যের পালেতওয়া শহরেরও নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার দাবি করেছে জাতিগত গোষ্ঠীটি।



রাখাইন   মিয়ানমার   জান্তা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

মক্কায় হিটস্ট্রোকে ৬ হজযাত্রীর মৃত্যু

প্রকাশ: ০২:০৯ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

হজের সময় এই বছর মক্কার তাপমাত্রা ৪৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে পারে বলে আগেই সতর্ক করেছিল সৌদি কর্তৃপক্ষ। গরম কমাতে নেওয়া হয়েছিল নানা রকম ব্যবস্থাও। তারপরও হিটস্ট্রোকে অন্তত হজযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (১৫ জুন) আরাফাতের ময়দানে জড়ো হওয়ার পর, এই হজযাত্রীদের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন খবর জানিয়েছে।

নিহত সবাই জর্ডানের নাগরিক। জর্ডানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শনিবার এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। এক বিবৃতি মন্ত্রণালয় বলেছে, মৃতদের দাফন প্রক্রিয়া এবং মৃতদেহ ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে তারা জেদ্দার সৌদি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয় করছেন ।

লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’—লাখো কণ্ঠে মহান আল্লাহর প্রতি আনুগত্য প্রকাশের মধ্য দিয়ে শনিবার পবিত্র হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা পালিত হয়।

সৌদি আরবের পবিত্র মক্কা নগরীর আরাফাত ময়দানে লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশ্যে সমবেত হন। তাদের কণ্ঠে ছিল ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হাম্‌দা ওয়ান নি’মাতা লাকা ওয়াল মুল্ক, লা শারিকা লাক’ (আমি হাজির, হে আল্লাহ আমি হাজির, তোমার কোনো শরিক নেই, সব প্রশংসা ও নিয়ামত শুধু তোমারই, সব সাম্রাজ্যও তোমার)।

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা লাখ লাখ মুসল্লি পাপমুক্তি ও আত্মশুদ্ধির আকুল বাসনা নিয়ে এবার পবিত্র হজ পালন করেছেন। তারা গতকাল সূর্যোদয়ের পর মিনা থেকে ট্রেনে, বাসে ও পায়ে হেঁটে রওনা হন আরাফাতের ময়দানের দিকে। তাদের কণ্ঠে ছিল একটাই রব, ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক।’

হজের খুতবা দেন খতিব শায়েখ ড. মাহের আল মুয়াইকিলি। বিশ্বের মুসলমানদের আল্লাহকে ভয় করে চলার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এর মধ্য দিয়ে মুসলমানরা জীবনে কল্যাণ, আল্লাহর সন্তুষ্টি ও মৃত্যু–পরবর্তী জীবনে নিয়ামতপূর্ণ জান্নাত অর্জন এবং জাহান্নামের সব ধরনের শাস্তি থেকে মুক্তিলাভ করতে পারেন।

আরাফাতের ময়দানে সমবেত হয়ে হাজিরা কেউ পাহাড়ের কাছে, কেউ সুবিধাজনক জায়গায় বসে ইবাদত করেন। কেউ যান জাবালে রহমতের কাছে। আবার কেউ যান মসজিদে নামিরায় হজের খুতবা শুনতে।

মূলত ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করে হজ পালন করা হয়। এ ময়দানে উপস্থিত হওয়া হজের অন্যতম ফরজ। পবিত্র হজ ইসলামের পাঁচ স্তম্ভের একটি। আর্থিকভাবে সমর্থ ও শারীরিকভাবে সক্ষম পুরুষ ও নারীর জন্য হজ ফরজ।

সৌদির পরিসংখ্যান বিষয়ক সাধারণ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এ বছর ১৮ লাখ মানুষ সারা বিশ্ব থেকে হজ পালনে অংশ নিয়েছে।


হিটস্ট্রোক   হজযাত্রী   মক্কা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

গাজায় ৫০ হাজার শিশুর জরুরি চিকিৎসা প্রয়োজন: জাতিসংঘ

প্রকাশ: ০১:৪৮ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

গাজা উপত্যকায় ৫০ হাজারের বেশি শিশুর তীব্র অপুষ্টিজনিত জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের ত্রাণ কর্ম সংস্থা (ইউএনআরডব্লিউএ)  শনিবার (১৫ জুন) এক বিবৃতিতে সংস্থাটি তথ্য জানায়। খবর আলজাজিরার।

বিবৃতিতে ইউএনআরডব্লিউএ বলেছে, মানবিক সহায়তা প্রবেশে অব্যাহত বিধিনিষেধের কারণে গাজার বাসিন্দারা তীব্র ক্ষুধার মুখোমুখি হচ্ছে। ফলে ইউএনআরডব্লিউএ দলগুলো বিপর্যয়কর পরিস্থিতির মধ্যেও ত্রাণ নিয়ে এসব পরিবারের কাছে পৌঁছানোর জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করছে।

এছাড়া ইউনিসেফের মুখপাত্র জেমস এল্ডার আলজাজিরাকে বলেছেন, জাতিসংঘের আবির্ভাবের পর যে কোনো যুদ্ধের চেয়ে এই যুদ্ধে বেশি ত্রাণকর্মী নিহত হয়েছে।

এল্ডার বলেন, ‘বুধবার গাজায় ১০ হাজার শিশুর জন্য পুষ্টি চিকিৎসা সরবরাহভর্তি একটি ট্রাক নিয়ে যাওয়ার মিশন ছিল ইউনিসেফের। তাদের কাজ ছিল ত্রাণ দেয়া যা আগেই ইসরাইলি বাহিনীর কাছ থেকে অনুমোদন নেয়া ছিল।

তিনি বলেন, ‘ জন্য ১৩ ঘণ্টা সময় লেগেছে। আমরা তাদের আটটি চেকপয়েন্টে  ‘‘এটি একটি ট্রাক নাকি একটি ভ্যান’’- নিয়েই তর্ক করেছি।


গাজা   জাতিসংঘ   জরুরি চিকিৎসা  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

পশ্চিমবঙ্গে বাড়ছে তিস্তার পানি, শঙ্কায় নদী তীরবর্তী পরিবার

প্রকাশ: ১২:৪১ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

ভারতের সিকিম রাজ্য থেকে নেমে আসা তিস্তা নদীর পানি বাড়ছে। ফলে উত্তর সিকিমে তিস্তায় পানি বেড়ে যাওয়ায় ধসের ঘটনা ঘটেছে। ইতোমধ্যে সিকিম রাজ্য সরকার নিচু এলাকার মানুষকে সরিয়ে নিয়েছে।

তিস্তার পানি বেড়ে যাওয়ায় জলপাইগুড়ির গজলডোবা তিস্তা ব্যারেজের ১ হাজার ১০০ কিউসেক পানি গতকাল শনিবার ছাড়া হয়েছে। এই গজলডোবা থেকে তিস্তা নদী বাংলাদেশে গিয়ে পড়েছে।

গজলডোবা এলাকায় তিস্তার পানি বেড়ে যাওয়ায় শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নদীর দুই পারের মানুষ। তাঁদের আশঙ্কা, সিকিম থেকে নেমে আসা তিস্তার পানিতে বন্যা দেখা দিতে পারে।

উত্তর সিকিমে বিভিন্ন পাহাড়ি এলাকায় ধস নামায় ১ হাজার ২০০ পর্যটক আটকা পড়েছেন। এই পর্যটকদের সিংহভাগ পশ্চিমবঙ্গের। তাঁদের মধ্যে বাংলাদেশের ১০ পর্যটকসহ থাইল্যান্ডের ২ জন এবং নেপালের ৩ পর্যটক রয়েছেন। তাঁদের উদ্ধারে সেনা নামানো হয়েছে।

সড়ক ও পাহাড়ের অংশে ধস নামায় পর্যটকেরা আটকা পড়েছেন। পর্যটকদের উদ্ধারে সিকিম সরকার সেনা নামিয়ে নতুন করে বেইলি ব্রিজ তৈরি করে পর্যটকদের উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

প্রবল বৃষ্টি হওয়ায় উত্তর সিকিমে রাস্তাঘাট বন্ধ হয়ে গেছে। কুয়াশার কারণে উদ্ধারকাজ ব্যাহত হচ্ছে। সিকিম সরকার ওই রাজ্যে আসা পর্যটকদের হোটেল বা যে যেখানে আছেন, সেখানে থাকার পরামর্শ দিয়েছে।

সিকিমের পর্যটনসচিব সি এস রাও বলেন, আটকে পড়া বা হোটেলে অবস্থান করা কোনো পর্যটক যেন ঝুঁকি না নেন। তাঁদের জন্য মজুত রয়েছে প্রচুর খাবার। যদিও তিস্তা বাজার থেকে দার্জিলিংয়ে যাওয়ার পেশক রোড এখনো বন্ধ রয়েছে। এ রাস্তার পাশে বিপজ্জনকভাবে বইছে তিস্তা নদী।


পশ্চিমবঙ্গ   তিস্তার পানি   শঙ্কা  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন