কালার ইনসাইড

কোকাকোলার বিজ্ঞাপন নিয়ে ক্ষমা চাইলেন জীবন-শিমুল

প্রকাশ: ০৫:১৮ পিএম, ১১ জুন, ২০২৪


Thumbnail

সম্প্রতি ফিলিস্তিন-ইসরায়েল ইস্যুতে সারাবিশ্বের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে কোমল পানীয় 'কোকাকোলা' বয়কটের ডাক দেয় দেশের একটি মহল। কোকাকোলা ইসরায়েলের একটি কোম্পানি এমন একটি  ধারণা দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক মাধ্যমে প্রচলিত থাকায় কোকাকোলা বাংলাদেশ বারবার বোঝানোর চেষ্টা করেছে যে এটি ইসরায়েলি কোম্পানি নয়। বাংলাদেশে উৎপাদিত কোকাকোলা দেশীয় প্রক্রিয়ায় তৈরি হয়। তবে, কোকাকোলার এই বার্তা জনগণ তেমনভাবে গ্রহণ করেনি।

তাই কোম্পানিটি এবার সরাসরি একটি বিজ্ঞাপন নির্মাণ করেছে, যেখানে তারা বোঝানোর চেষ্টা করেছে, কোকাকোলা ১৯৩টি দেশে তৈরি হয় এবং ফিলিস্তিনেও তাদের একটি ফ্যাক্টরি রয়েছে। এই প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠানটি প্রমাণ করতে চেয়েছে যে, কোকাকোলার ইসরায়েলি মালিকানাধীন বলে যে তথ্যটি ছড়ানো হচ্ছে তা পুরোপুরি মিথ্যা ও গুজব। আর কোকাকোলা বাংলাদেশের এই বিজ্ঞাপনটি নিয়েই এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয়েছে তীব্র বিতর্ক, চলছে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা। 

বিজ্ঞাপনটিতে মডেল হয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা শরাফ আহমেদ জীবন ও শিমুল শর্মা। আর তাই কোকাকোলা বয়কটের পাশাপাশি এবার এই দুই অভিনয়শিল্পীকে বয়কটের হুমকি দিয়েছেন নেটিজেনরা। বিভিন্ন গ্রুপ থেকে শুরু করে অনেকে নিজের ফেসবুক আইডিতেও পোস্ট দিয়ে এমন বয়কটের ডাক দিচ্ছেন। 

 এমন পরিস্থিতিতে তোপের মুখে পড়ে কোকাকোলার বিজ্ঞাপনে কাজ করার বিষয়ে অবশেষে মুখ খুলেছেন অভিনেতা শরাফ আহমেদ জীবন। সোমবার (১০ জুন) রাতে এ অভিনেতা তার ফেসবুক আইডিতে দেয়া এক পোস্টে দাবি করেছেন, তিনি ইসরায়েলের পক্ষে কোন কাজ করেননি।

পোস্টে শরাফ আহমেদ জীবন বলেন, ‘আমি একজন নির্মাতা এবং অভিনেতা হিসেবে সবার কাছে পরিচিত। বিগত দুই দশক ধরে আমি নির্মাণ ও অভিনয়ের সাথে জড়িত। ব্যক্তিগত জীবনে আমি সবসময় মানবাধিকারবিরোধী যেকোনো আগ্রাসনের বিপক্ষে দাঁড়িয়েছি এবং আপনাদের অনুভূতি ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকেছি।’

এ অভিনেতা আরও দাবি করেন, বিজ্ঞাপনটিতে তিনি কোথাও ইসরায়েলের পক্ষ নেননি, এমনকি অতীতেও তিনি ইসরায়েলের পক্ষ নিয়ে কোন মন্তব্য করেননি। পাশাপাশি তার হৃদয় সবসময়  ন্যায়ের পক্ষে এবং মানবতার পাশে আছে, থাকবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি। 

কোকাকোলার বিজ্ঞাপনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি কোকা-কোলা বাংলাদেশ তাদের একটি বিজ্ঞাপন নির্মাণ এবং এতে অভিনয়ের জন্য আমাকে প্রস্তাব দেয়। আমি শুধুমাত্র তাদের দেয়া তথ্য ও উপাত্তই কাজটিতে তুলে ধরেছি। বিজ্ঞাপনটি প্রচার হবার পর থেকে আমি আপনাদের অনেক মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করছি এবং আপনাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে আমি আবারো বলতে চাই কাজটি শুধুই আমার পেশাগত জীবনের একটি অংশমাত্র।’

এদিকে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দিয়ে বিজ্ঞাপনটিতে মডেল হওয়ার জন্য দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চেয়েছেন আরেক অভিনেতা শিমুল শর্মা। মঙ্গলবার (১১ জুন) সকালে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেইজে একটি স্ট্যাটাস দেন তিনি। স্ট্যাটাসটিতে তিনি লিখেছেন,

‘আমি শিমুল শর্মা যদিও পরিচয় দেবার মত একজন অভিনেতা এখনও হয়ে উঠতে পারিনি কারণ একজন অভিনেতা হবার জন্য যে অধ্যবসায় এবং দূরদর্শিতা দরকার সেটা এখনো আমার হয়ে উঠেনি, আমি চেষ্টা করছি মাত্র। তাই হয়ত না বুঝে করা আমার কাজ আজ আমার দর্শক, তথা আমার পরিবার ও দেশের মানুষকে কষ্ট দিয়েছে। আমি ভবিষ্যতে কোন কাজে অভিনয় করতে গেলে অবশ্যই আমাদের দেশের মূল্যবোধ, মানবাধিকার, মানুষের মনোভাবকে যথেষ্ট সম্মান দিয়ে বিবেচনা করে তারপর কাজ করব। আমি মাত্র আমার জীবনের পথচলা শুরু করেছি, আমার এই পথচলায় ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুলভ দৃষ্টিতে দেখবেন এবং আমাকে ভবিষ্যতে একজন বিবেকবান শিল্পী হয়ে ওঠার জন্য শুভ কামনায় রাখবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।’

এর আগে শিমুল বলেছিলেন,  বাংলাদেশে কোকাকোলা নিয়ে প্রোপাগান্ডামূলক একটি তথ্য ছড়িয়ে আছে। কোনো প্রোডাক্টকে যদি ধর্মীয় মোড়কে মুড়িয়ে ফেলা হয়, তাহলে কিছু করার নেই। সবাই  নিজেদের জায়গা থেকে স্টেটমেন্ট  দিতে পারে। মূলত সেই জায়গা থেকেই  বিজ্ঞাপনটি নির্মাণ করা হয়েছে।

তবে কোকাকোলার বিতর্কিত বিজ্ঞাপনটি বয়কটের ডাক দেওয়ার পরে তার ফেসবুক পেজ ডিএক্টিভেট করে রেখেছিলেন শিমুল। এরপর আজ সকালে পেইজটি পুনরায় অ্যাক্টিভ করে বিজ্ঞাপনের বিষয়ে পোস্ট দিয়ে ক্ষমা চাইলেন এই অভিনেতা।

এদিকে, বিজ্ঞাপনটি নিয়ে যেহেতু বিতর্ক হচ্ছে- স্বাভাবিকভাবেই এর নির্মাতাকে নিয়েও আলোচনা হচ্ছে। অনেকেই জানতে চাইছেন বিজ্ঞাপনটির নির্মাতা 'ব্যাচেলর পয়েন্ট' খ্যাত কাজল আরেফিন অমি কিনা। আর তাই এ বিষয়ে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেছেন অমি নিজেই। ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে তিনি দাবি করেন,  এটি তার বানানো নয়। কাজল আরেফিন অমি তার ফেসবুকে লিখেছেন, আমি কখনো বিজ্ঞাপন বানাই নি, আমি নাটক, ওয়েব ফিল্ম, ওয়েব সিরিজ নিয়েই কাজ করেছি, ভবিষ্যতে সিনেমা বানাবো। ধন্যবাদ।

এদিকে, আসন্ন ঈদুল আযহায় কাজল আরেফিন অমি নির্মিত 'ফিমেল' সিরিজের নতুন সংস্করণ 'ফিমেল ৪' আসছে। যা প্রথমবারের মতো ওটিটি প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পাবে।


কোকাকোলা   ইসরায়েল   ফিলিস্তিন   শরাফ আহমেদ জীবন   শিমুল শর্মা   বয়কট  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

এরকম ধাঁচের বাংলাদেশি সিনেমা এর আগে কেউ কখনো দেখেনি: রায়হান রাফি

প্রকাশ: ১২:২৫ পিএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

বর্তমান সময়ের ঢালিউডপাড়ার সবচেয়ে আলোচিত সফল পরিচালক রায়হান রাফি। ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমার সাফল্যের পর এবার আসছে মেগা স্টার শাকিব খানকে নিয়ে তার পরিচালিত নতুন সিনেমা ‘তুফান’। 

টিজার প্রকাশের পরে থেকেই 'তুফান' ঘিরে তুমুল আলোচনা শুরু হয়। এরপর “লাগে উরাধুরা” গানটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। সর্বশেষ গতকাল তুফানের ট্রেলার প্রকাশের পর থেকেই সিনেমাটি নিয়ে দর্শকের মধ্যে ব্যাপক আগ্রহ তৈরি হয়েছে। এ নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের মুখোমুখি হয়েছেন 'তুফান' এর পরিচালক জনপ্রিয় নির্মাতা রায়হান রাফি।

বাংলা ইনসাইডার: রিলিজের আগেই তুফান নিয়ে মানুষের যে হাইপ লক্ষ্য করা যাচ্ছে, এটা নিয়ে কেমন অনুভব করছেন? 

রায়হান রাফি: খুবই ভালো লাগছে। আশা করছি ‘তুফান’ সিনেমাটির মাধ্যমে চলচ্চিত্র  নিয়ে দর্শকদের যে প্রত্যাশা সেটা আমরা পূরণ করতে পারবো।

বাংলা ইনসাইডার: সবাই বলছে তুফানের কাছে অন্য কোন সিনেমা টিকবে না, এ ব্যাপারে আপনার অভিমত কি? 

রায়হান রাফি: দেখুন, আমি কখনোই এভাবে ভাবি না। মুক্তি পাওয়া সকল সিনেমাই যদি ব্যবসাসফল হয় তবে সেটা আমাদের ইন্ডাস্ট্রির জন্য ভালো। তাই তুফান ছাড়া অন্য যেসকল সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে তাদের জন্যও শুভকামনা থাকবে। 

বাংলা ইনসাইডার: ‘তুফান’ কি বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে সুপারহিট সিনেমা হতে যাচ্ছে?

রায়হান রাফি: এসব নিয়ে আপাতত ভাবছি না। তবে এতোটুকু বলতে পারি এরকম ধাঁচের বাংলাদেশি সিনেমা এর আগে কেউ কখনো দেখেনি। আর মেগাস্টার শাকিব খানকেও এভাবে এর আগে কেউ প্রেজেন্ট করে নি। 

বাংলা ইনসাইডার: আপনার পাশাপাশি দেশে আরো বেশ কয়েকজন তরুণ নির্মাতা রয়েছেন, যাদের কাজ দর্শকরা সাদরে গ্রহণ করছে। এদিক থেকে বলতে গেলে আপনারাই দেশের চলচ্চিত্র শিল্পের ভবিষ্যৎ। এক্ষেত্রে আপনাদের কি কি করনীয় রয়েছে বলে আপনি মনে করেন? 

রায়হান রাফি: আমাদের প্রধান করণীয় হচ্ছে ভালো কাজ করে যাওয়া। আপনি যদি দেশের ইন্ডাস্ট্রিকে ভাল ভাল কাজ উপহার দিতে থাকেন, তাহলে সেটা এমনিতেই দেশের ইন্ডাস্ট্রিকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করবে। 

বাংলা ইনসাইডার: পরিশেষে, দর্শকদের উদ্দেশ্যে কিছু বলতে চান? 

রায়হান রাফি: এটাই বলবো, তুফানের মতো সিনেমা বাংলাদেশে আগে কখনো হয়নি। ঈদে মুক্তি পাচ্ছে ‘তুফান’। আশা করি সবাই সিনেমা হলে এসে ছবিটি উপভোগ করবেন। সবাই ভালো থাকুন এবং বাংলা সিনেমার পাশে থাকুন।


তুফান   শাকিব খান   রায়হান রাফি   মিমি   নাবিলা   চঞ্চল চৌধুরী   ফজলুর রহমান বাবু   ঈদ সিনেমা  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

প্রকাশ পেল তুফানের ট্রেলার

প্রকাশ: ০৯:৫২ এএম, ১৬ জুন, ২০২৪


Thumbnail

আর মাত্র এক দিন বাকি। ঈদ উপলক্ষে প্রেক্ষাগৃহে আসছে ঢাকাই সিনেমার শীর্ষ নায়ক শাকিব খানের 'তুফান'। সিনেমাটি মুক্তির আগে এর ২ মিনিট ৪৯ সেকেন্ডের ট্রেলার প্রকাশিত হয়েছে। শাকিব খানের নতুন এই সিনেমার ট্রেলার নিয়ে ভক্তদের মধ্যে ব্যাপক আগ্রহ ছিল। তাদের এই আগ্রহ মাথায় রেখেই ট্রেলারটি প্রকাশ করা হয়েছে।

তবে এর আগেই প্রকাশিত হয়েছিল 'তুফান'-এর টিজার। সেই টিজারেই বিধ্বংসী শাকিব খানের এক ঝলক পেয়েছিলেন দর্শকরা। পর্দায় অট্টহাসিতে হাজির হন চঞ্চল চৌধুরীও। টিজারের সেই উত্তেজনা ট্রেলারে আরও বেড়েছে। একের পর এক দৃশ্যে শাকিব খানকে ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে দেখা যায়, অন্যদিকে সিআইডি অফিসার চঞ্চল চৌধুরী চেষ্টা করছেন তাকে থামাতে। এছাড়াও ট্রেলারে মিশা সওদাগর এবং ফজলুর রহমান বাবুর উপস্থিতি রয়েছে। এক সংলাপে ফজলুর রহমান বাবু শাকিব খানকে প্রশ্ন করেন, "কী চাও তুমি?" জবাবে তুফান চরিত্রে অভিনয় করা শাকিব খান বলেন, "পুরো দেশ"। জানা গেছে, সিনেমাটি একজন গ্যাংস্টারের গল্প নিয়ে তৈরি, যেখানে নব্বই দশকের এক নামকরা গ্যাংস্টারের কাহিনী তুলে ধরা হবে।

এক সাক্ষাৎকারে পরিচালক রায়হান রাফী বলেন, “এ ধরনের সিনেমা আমি এবং শাকিব ভাই আগে কখনও করিনি। ‘তুফান’ এর মতো সিনেমা বাংলাদেশে আগে কখনও হয়নি। এটি একটি অ্যাকশন ফিল্ম, গডফাদারের গল্প। সুপারস্টার শাকিব খানকে নিয়ে গ্যাংস্টার সিনেমা বানানোর ইচ্ছা ছিল আমার, যেমন কেজিএফ এবং পুষ্পার মতো সিনেমা। বাংলাদেশে গ্যাংস্টার সিনেমা বানানোর জন্য শাকিব খানই উপযুক্ত, আর সে কারণেই তাকে নিয়ে এই সিনেমা করা।”

 শাকিব খান ছাড়াও এই সিনেমায় অভিনয় করছেন চঞ্চল চৌধুরী, মিম চক্রবর্তী, নাবিলা, ফজলুর রহমান বাবুসহ প্রমুখ।


তুফান   শাকিব খান   রায়হান রাফি   মিমি   নাবিলা   চঞ্চল চৌধুরী   ফজলুর রহমান বাবু   ট্রেলার  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

ডিপজলের বড়ভাই বাদশাহ আর নেই

প্রকাশ: ০৪:০৪ পিএম, ১৫ জুন, ২০২৪


Thumbnail

ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেতা, প্রযোজক ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার হোসেন ডিপজলের বড় ভাই হাজী মোহাম্মদ শাহাদাৎ হোসেন ওরফে বাদশা শনিবার (১৫ জুন) দুপুরে রাজধানীর শ্যামলীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। ডিপজল নিজেই এই খবরটি ফেসবুকে একটি পোস্টের মাধ্যমে জানিয়েছেন। ডিপজল তার বড় ভাইয়ের একটি ছবি শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেছেন,

 "হাজী মোহাম্মদ শাহাদাৎ হোসেন (বাদশা ভাই) কিছুক্ষণ আগে শ্যামলীর একটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না-লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। আল্লাহ যেন তাকে বেহেশত নসিব করেন।"

এর আগে ডিপজল ফেসবুকে একটি পোস্ট করে তার বড় ভাইয়ের জন্য দোয়া চেয়ে লিখেছিলেন, 

"আমার বড় ভাই হাজী মোহাম্মদ শাহাদাৎ হোসেন (বাদশা ভাই) শুক্রবার ভোর ৩টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতাল, কল্যাণপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বর্তমানে লাইফ সাপোর্টে আছেন। সবাই তার দ্রুত সুস্থতার জন্য দোয়া করবেন।" 

হাজী মোহাম্মদ শাহাদাৎ হোসেন একজন চলচ্চিত্র প্রযোজক, পরিচালক, প্রদর্শক এবং বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সাবেক সভাপতি ছিলেন।

ডিপজলের বড় ভাইয়ের মৃত্যুতে তার পরিবার, চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি এবং তার ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। 


ডিপজল   ঢালিউড   ইন্তেকাল  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

জীবন ও শিমুলকে আইনজীবীর লিগ্যাল নোটিশ

প্রকাশ: ০৩:২১ পিএম, ১৫ জুন, ২০২৪


Thumbnail

কোকাকোলা বাংলাদেশের একটি বিজ্ঞাপন নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে। এই বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে ছিলেন অভিনেতা শরাফ আহমেদ জীবন ও শিমুল শর্মা। বিজ্ঞাপনটি প্রচারিত হওয়ার পর থেকেই তারা সমালোচনার মুখে পড়েছেন। এবার তাদের নামে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। ময়মনসিংহের আইনজীবী এম আহসান উদ্দিন কোকা-কোলার এই বিজ্ঞাপন নিয়ে বিতর্কের প্রেক্ষিতে তাদের বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন। শুক্রবার (১৪ জুন) রাতে তিনি এ তথ্য গণমাধ্যমকে জানান।

নোটিশে বলা হয়েছে, কোকাকোলার বিতর্কিত বিজ্ঞাপনে অংশগ্রহণ করে শরাফ আহমেদ জীবন ও শিমুল শর্মা সাধারণ মানুষের অনুভূতিতে আঘাত করেছেন এবং আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন, যা মানবতাবিরোধী। এই অবস্থায় দেশের আইন-শৃঙ্খলা বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। আগামী সাত দিনের মধ্যে তাদের সংবাদ সম্মেলন করে এ বিষয়ে যুক্তিসঙ্গত ব্যাখ্যা দিতে হবে, অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল ইস্যুতে সারা বিশ্বে কোকাকোলা বয়কটের ডাকের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশেও একই দাবি উঠেছে। এই পরিস্থিতিতে কোকাকোলা বাংলাদেশের বিজ্ঞাপনটি নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। ইতিমধ্যে বিজ্ঞাপনটিতে অভিনয় করার বিষয়ে দর্শকদের কাছে নিজেদের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন দুই অভিনেতা।


কোকাকোলা   কোকাকোলা বিজ্ঞাপন   শরাফ আহমেদ জীবন   শিমুল শর্মা   বয়কট   ইসরায়েল   ফিলিস্তিন  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

হইচইয়ে মুক্তি পেলো 'বুকের ভেতর আগুন' সিরিজের স্পিনঅফ 'গোলাম মামুন'

প্রকাশ: ০২:০৬ পিএম, ১৫ জুন, ২০২৪


Thumbnail

গত বছর মুক্তি পেয়েছিল ওয়েব সিরিজ ‘বুকের মধ্যে আগুন’, যেখানে চলচ্চিত্রের এক নায়কের হত্যা রহস্য উদ্‌ঘাটনে পুলিশের দায়িত্বে ছিলেন গোলাম মামুন। এবার সেই সিরিজের স্পিনঅফ ‘গোলাম মামুন’ নির্মিত হয়েছে।

পুলিশ কর্মকর্তা গোলাম মামুন, যিনি অপরাধীদের আইনের আওতায় আনতে সর্বদা নিবেদিত, এবার নিজেই অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত। যদিও তিনি নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন, কিন্তু কেউই তার কথা বিশ্বাস করছে না। নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে তাকে আইন ভেঙে পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে। সিরিজটিতে গোলাম মামুনের ভূমিকায় জিয়াউল ফারুক অপূর্ব থাকলেও পরিচালক পরিবর্তিত হয়েছে। নতুন সিরিজের পরিচালনায় আছেন শিহাব শাহীন, যিনি তানিম রহমান অংশুর স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন।

প্রথমে সিরিজটি নিয়ে শিহাব শাহীন কিছুটা দ্বিধায় ছিলেন। তিনি বলেন, ‘অন্য একজন নির্মাতার সিরিজ থেকে স্পিনঅফ নির্মাণ করা চ্যালেঞ্জিং ছিল। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের অনুরোধে এবং তানিম রহমান অংশুর সম্মতি পাওয়ার পর কাজটি হাতে নেই। গোলাম মামুন সিরিজটি সম্পূর্ণ নতুন গল্প নিয়ে নির্মিত, যেখানে আগের সিরিজ থেকে কেবল চরিত্রটি ধার নেওয়া হয়েছে।’

শিহাব শাহীন আরও বলেন, ‘যারা অভিনয় করেছেন, তারা প্রত্যেকেই আমার প্রত্যাশা পূরণ করেছেন। অপূর্বর কথা বললে, সে তার দুই শতভাগ দিয়ে কাজটি করেছে। ট্রেনিং, রিহার্সাল এবং শুটিংয়ে যে সময় ও শ্রম দিয়েছে, তা সত্যিই প্রশংসনীয়। সবাই তাদের সাধ্যমতো প্রাণবন্ত অভিনয় দিয়েছেন।’

গোলাম মামুন সিরিজে অপূর্বর সঙ্গে অভিনয় করেছেন সাবিলা নূর, যিনি একজন পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে অভিনয় করেছেন। এছাড়া ইমতিয়াজ বর্ষণ, সুষমা সরকার, শার্লিন ফারজানা, নাজমুস সাকিব, রাশেদ মামুন অপু এবং সিরাজসহ আরও অনেকে অভিনয় করেছেন। আট পর্বের এই সিরিজটি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম হইচইয়ে মুক্তি পেয়েছে।


গোলাম মামুন   বুকের ভেতর আগুন   জিয়াউল ফারুক অপূর্ব   শিহাব শাহীন   হইচই  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন