ইনসাইড গ্রাউন্ড

মেসির অলিম্পিকে খেলার সিদ্ধান্ত তার উপরই নির্ভর করবে : মাশ্চেরানো

প্রকাশ: ০৪:০০ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

ইতোমধ্যেই ‘অলিখিত ফাইনালে’ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলকে কাঁদিয়ে অলিম্পিকের মূল পর্ব নিশ্চিত করলো আর্জেন্টিনা। রোববার দিবাগত রাত আড়াইটায় ভেনেজুয়েলার এস্তাদিও ব্রিদিগো ইরিয়ার্তে স্টেডিয়ামে সেলেসাওদের ১-০ গোলে হারায় হাভিয়ের মাচেরানোর দল।

অলিম্পিক ফুটবলে বয়সভিত্তিক অর্থাৎ অনূর্ধ্ব-২৩ দল থাকলেও তিনজন সিনিয়রের সুযোগ থাকে। ক্যারিয়ারের শেষ প্রান্তে এসে আর্জেন্টাইন ফুটবল ভক্তদের প্রত্যাশা ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসি খেলুক আরও একটি অলিম্পিক। আর্জেন্টিনা অনূর্ধ্ব-২৩ দলের কোচ এবং লিওনেল মেসির সাবেক সতীর্থ হাভিয়ের মাশ্চেরানোও দিলেন একই ইঙ্গিত। তবে অলিম্পিকে খেলার সিদ্ধান্ত মেসির ওপরই ছেড়ে দিলেন তিনি।

অনেক সমালোচনা পাশ কাটিয়ে ব্রাজিলকে ১-০ গোলে হারিয়ে অলিম্পিকের টিকিট নিশ্চিত করেছে আলবেসিলেস্তে যুবারা। আরেক ম্যাচে ভেনেজুয়েলাকে ২-০ গোলে হারিয়ে প্যারাগুয়েও নিশ্চিত করেছে মূল পর্বের টিকিট। বাদ পড়তে হয়েছে গতবারের স্বর্ণজয়ী ব্রাজিলকে।

মেসির অলিম্পিক খেলা নিয়ে মাশ্চেরানো বলেন, ‘মেসি ও ডি মারিয়ার সঙ্গে আমার সম্পর্ক দারুণ। কোচ হিসেবে আমি তাদের অবশ্যই দলে নিতে চাই। তবে খেলোয়াড় হিসেবে দুজনের অন্যান্য দায়বদ্ধতার জায়গা আছে। দিনশেষে এটি তাদের ওপরই নির্ভর করবে।’

এদিকে অলিম্পিকে খেলা নিশ্চিত করে উচ্ছ্বসিত আর্জেন্টিনার অধিনায়ক থিয়াগো আলমাদা। তিনি বলেন, তার বিশ্বাস মেসি এবারের অলিম্পিক আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে জড়াবে। আর যদি তারা মেসিকে পান তাহলে সেটা হবে স্বপ্নের মতো।

জুলাইয়ের ২৪ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া অলিম্পিকের ঠিক ১০ দিন আগে শেষ হবে কোপা আমেরিকার আসর। কোপায় আর্জেন্টিনা সিনিয়র দলের নেতৃত্ব দেবেন মেসি। থাকবেন ডি মারিয়াও। শুধু মাত্র ইচ্ছা শক্তিই যথেষ্ট হবে না মেসি-মারিয়াদের জন্য। অলিম্পিকে অংশ নিতে হলে মিলতে হবে এসব সূচির সমীকরণও।


অলিম্পিক   মাশ্চেরানো   আর্জেন্টিনা   মেসি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

নিশাম ঝড়ে রানের পাহাড়ে রংপুর

প্রকাশ: ০৮:২৫ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

জিতলে ফাইনালে, হারলেই বিদায়—এমন সমীকরণের সামনে দাঁড়িয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের মুখোমুখি রংপুর রাইডার্স। এমন মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে আগে ব্যাট করে জিমি নিশাম ঝড়ে বড় সংগ্রহ পেয়েছে রংপুর।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে নির্ধারিত ২০ ওভারে ছয় উইকেটে ১৮৫ রান সংগ্রহ করেছে রংপুর রাইডার্স।

এ দিন টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন কুমিল্লা অধিনায়ক লিটন দাস। শুরুটা আশানুরূপ করে তার দল। মাত্র ২৭ রানে টপ অর্ডারের তিন উইকেট শিকার করে কুমিল্লা। রনি ১৩, শামীম ০ ও সাকিব ফেরেন ৫ রানে।

চতুর্থ উইকেটে বিপর্যয় কিছুটা সামাল দেন মাহেদী হাসান ও জিমি নিশাম। ব্যক্তিগত ২২ রানে মাহেদী আউট হলে ভাঙে দুজনের ৩৯ রানের জুটি। পঞ্চম উইকেটে ৩৮ রান যোগ করেন পুরান ও নিশাম। ১৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন পুরান।

ক্রিজে নেমে নিশামকে সঙ্গে নিয়ে রংপুরকে বড় সংগ্রহ এনে দেওয়ার কাজ করেন নুরুল হাসান সোহান। তার অধিনায়কোচিত ইনিংসে দ্রুত এগোতে থাকে রানের চাকা। অন্য প্রান্তে ৩১ বলে দারুণ এক অর্ধশতক পূরণ করেন নিশাম।

৩০ রানে সোহান আউট হন। এর আগে নিশামের সঙ্গে তিনি গড়েন ৫৩ রানের জুটি। রংপুরের ইনিংসের বাকিটা একাই টেনে নেন নিশাম। মিরপুরে চার-ছক্কার ঝড় তুলে অবিশ্বাস্য এক ইনিংস খেলেন এ কিউই অলরাউন্ডার।

ইনিংসের শেষ পর্যন্ত ৯৭ রানে অপরাজিত থাকেন নিশাম। কুমিল্লার হয়ে আন্দ্রে রাসেল দুটি এবং নারিন, তানভীর, বর্ষণ ও মুশফিক একটি করে উইকেট নেন।


বিপিএল   রংপুর   কুমিল্লা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ইংল্যান্ডের বাজবল গুঁড়িয়ে ভারতের হ্যাটট্রিক সিরিজ জয়

প্রকাশ: ০৭:৪১ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

ভারতে টেস্ট খেলতে আসার পূর্বে ইংল্যান্ডের যে ‘বাজবল’ স্টাইলের বেশ সমালোচনা হচ্ছিলো, এবার সেই স্টাইলেই রুট-স্টোকসের রীতিমতো নাস্তানাবুদ করে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে রোহিত শর্মার দল।  প্রথম টেস্টে ভারতের ঘরের মাঠে তাদের বিপক্ষে জেতার পর বেশ উড়তে লেগেছিলো ইংল্যান্ড। কিন্তু সেই হারের পর বাকি ৩ ম্যাচে ঘুরে দাঁড়িয়েছে ভারত।

৫ ম্যাচের টেস্ট সিরিজের মধ্যে চতুর্থ টেস্টে রাঁচিতে ১৯২ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছিল ইংল্যান্ড। ৮৪ রানের দারুণ সূচনার পর একপর্যায়ে ৩৬ রানের ব্যবধানে ৫ উইকেট হারিয়ে খাদের কিনারায় পৌঁছে যায় স্বাগতিক ভারত।

সেখান থেকে ষষ্ঠ উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৭২ রানের জুটি গড়েন শুভমান গিল ও উইকেটরক্ষক ধ্রুব জুরেল। সিরিজের চতুর্থ টেস্টে রাঁচিতে শেষ পর্যন্ত ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতকে ৫ উইকেটের জয় এনে দিয়েছেন তারা।

এই জয়ে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়ে এক টেস্ট বাকি থাকতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের সিরিজ জয় নিশ্চিত করেছে ভারত। এর মাধ্যমে ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক সিরিজ এবং টানা ১৭টি টেস্ট সিরিজ জয়ের নজির গড়েছে দলটি।

নিউজিল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালামের বাজবল ক্রিকেটে আজকের আগে কখনোই সিরিজ হারেনি ইংল্যান্ড। তবে ভারতের মাঠে রাঁচি টেস্টে ৫ উইকেটের হারে নিশ্চিত হয়েছে তাদের বাজবলে প্রথমবারের মতো সিরিজ হার। ম্যাককালামের অধীনে ৭ সিরিজ অপরাজিত থাকার পর ইংরেজদের প্রথম সিরিজ হারের স্বাদ দিলেন শুভমান গিল এবং ধ্রুব জুরেল।

প্রথমে দুই ওপেনার রোহিত ও যশস্বীকে ফেরত পাঠান হার্টলি ও রুট। এরপরই রজত পতিদার, রবীন্দ্র জাদেজা এবং সরফরাজ খানকে বেশিক্ষণ টিকতে দেননি শোয়েব বশির। ইংল্যান্ড স্বপ্ন দেখতে থাকে জয়ের। কিন্তু সেখানেই প্রতিরোধ গড়েন ধ্রুব জুরেল এবং শুভমান গিল। সময় নিয়ে সিঙ্গেলস আর ডাবলসে খেলেছেন দুজনে। বড় শট খেলার চিন্তা বাদ দেওয়া কাজে লেগেছে ভারতের জন্য। সেট হয়ে বড় শট খেলেছেন, তবে সেটাও বিপদ ডাকতে পারেনি। সহজ জয়ে নিশ্চিত করে মাঠে ছেড়েছেন তারা। গিল অপরাজিত ছিলেন ৫২ রানে। আর ৩৯ রান এসেছে জুরেলের ব্যাট থেকে।

চতুর্থ দিনের মতোই রং বদলেছিল রাঁচি টেস্টের শুরু থেকে শেষ অব্দি। এই সিরিজে রান করতে ব্যর্থ হয়েছিলেন জো রুট। চতুর্থ টেস্টে সবার ব্যর্থতার দিনে তিনিই করেছিলেন সেঞ্চুরি। বাকিদের কাছ থেকে যোগ্য সঙ্গ না পেলেও তার ১২২ রান দলকে নিয়ে গিয়েছে ৩৫৩ পর্যন্ত।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শোয়েব বশিরের ফাইফারে বিপর্যস্ত ছিল ভারতের ব্যাটিং লাইনআপ। ১৭৭ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে বড় বিপদের শঙ্কায় ছিল স্বাগতিকরা। সেখান থেকে দলের ত্রাতা হয়েছিলেন ধ্রুব জুরেল। ৯০ রানের ইনিংসটায় ভর করে দলীয় স্কোর ৩০০ ছাড়াতে সাহায্য করেছিলেন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটার।

লিড নিলেও সেটা অবশ্য দ্বিতীয় ইনিংসে উপভোগ করতে পারেননি ইংলিশ ব্যাটাররা। জ্যাক ক্রলির ব্যাট থেকে ৬০ রানের ইনিংস ছাড়া আর কেউই বলার মতো স্কোর করতে পারেননি। কুলদীপ যাদব আর রবিচন্দ্রন অশ্বিনের কল্যাণে ১৪৫ রানেই শেষ হয় ইংলিশদের ইনিংস। ১৯২ রানের টার্গেট পায় ভারত। যেটা তারা টপকেছে গিল আর রোহিতের ফিফটিতে ভর করে।


ভারত   ইংল্যান্ড   টেস্ট ক্রিকেট  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ফাইনালে ওঠার লক্ষ্যে মুখোমুখি কুমিল্লা-রংপুর

প্রকাশ: ০৭:০৩ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

জিতলে ফাইনালে, হারলেই বিদায়—এমন সমীকরণের সামনে দাঁড়িয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের মুখোমুখি রংপুর রাইডার্স। এমন মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কুমিল্লা অধিনায়ক লিটন দাস।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ম্যাচটি শুরু হয়। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত রংপুরের সংগ্রহ ৬ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ৩৫ রান।

এদিকে দিনের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও ফরচুন বরিশাল। চট্টগ্রামকে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে জায়গা নিশ্চিত করেছে বরিশাল। রংপুর ও কুমিল্লার পরাজিত দলের বিপক্ষে লড়বে তারা।

রংপুর রাইডার্স একাদশ: কাজী নু্রুল হাসান সোহান (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, রনি তালুকদার, শেখ মাহেদী হাসান, শামীম হোসেন পাটোয়ারী, হাসান মুরাদ, আবু হায়দার রনি, নিকোলাস পুরান, মোহাম্মদ নবী, জিমি নিশাম ও ফজল হক ফারুকি।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স একাদশ: লিটন দাস (অধিনায়ক), মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন, তাওহীদ হৃদয়, জাকের আলী অনিক, মুশফিক হাসান, তানভীর ইসলাম, রোহানত দৌলা বর্ষণ, সুনীল নারিন, মঈন আলী, জনসন চার্লস ও আন্দ্রে রাসেল।


বিপিএল   কুমিল্লা   রংপুর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

রোমাঞ্চকর এলিমিনেটরে চট্টগ্রামের বিদায়, পরের পর্বে বরিশাল

প্রকাশ: ০৪:৫৬ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

জিতলে ফাইনালের পথে এক ধাপ এগিয়ে যাবে, অন্যদিকে হারলেই বিদায়—এমন সমীকরণের সামনে দাঁড়িয়ে এলিমিনেটরের ম্যাচে বরিশালের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে ব্যর্থতার পর বোলিংয়েও পথ খুঁজে পায়নি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। অন্যদিকে দুই বিভাগেই দাপট দেখিয়েছে ফরচুন বরিশাল। ৭ উইকেটের বড় জয়ে কোয়ালিফায়ার নিশ্চিত করেছে তামিম ইকবাল বাহিনী।

আর ক্রিকেটে একটি প্রবাদ খুব প্রচলিত- ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস। প্রবাদটি যে কতটা সত্য আর নিষ্ঠুর, সেটাই যেন টের পেল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। কারণ ক্যাচ মিসের মহড়া না দিলে ম্যাচের ফল হয়তো অন্যরকমও হতে পারতো!

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) দশম আসরে প্লে অফ পর্বে এলিমিনেটরের লড়াইয়ে আজ ফরচুন বরিশালের মুখোমুখি হয়েছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। যেখানে চটগ্রামকে ব্যাটে-বলে নাস্তানাবুদ করে দাপুটে জয় তুলে নিয়েছে বরিশাল।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করে ৯ উইকেটে ১৩৫ রান সংগ্রহ করে চট্টগ্রাম। জবাবে মাত্র তিন উইকেট হারিয়েই লক্ষ্যে পৌঁছায় বরিশাল। বাকি ছিল আরো ৩১ বল। দাপুটে জয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে নিজেদের জায়গা নিশ্চিত করেছে তারা।

ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই সৌম্য সরকারকে হারায় চট্টগ্রাম। সিলভার ডাক খেয়ে ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই সাজঘরে ফিরেছেন এই ওপেনার। তবে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে কাইল মায়ার্সকে সঙ্গে নিয়ে দলকে জয়ের পথে রাখেন তামিম ইকবাল।

২৬ বলে ৫০ রান করে মেয়ার্স সাজঘরে ফিরলে ভাঙে ৯৯ রানের দ্বিতীয় উইকেট জুটি। এরপর চারে নেমে আক্রমণাত্মক শুরু করেছিলেন ডেভিড মিলারও। তবে ১৩ বলে ১৭ রানের বেশি করতে পারেননি এই প্রোটিয়া হার্ডহিটার ব্যাটার। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে কাইল মায়ার্সকে সঙ্গে নিয়ে দলকে জয়ের পথে রাখেন তামিম ইকবাল।

মিলার দ্রুত ফিরলেও আরেক প্রান্তে অবিচল ছিলেন তামিম। ফরচুন অধিনায়ক অপরাজিত ফিফটিতে দলকে জিতিয়ে অপরাজিত থেকে মাঠ ছেড়েছেন। এই জয়ে কোয়ালিফায়ারে জায়গা করে নিল বরিশাল। দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে বরিশালের মুখোমুখি হবে প্রথম কোয়ালিফায়ারে পরাজিত দল।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি চট্টগ্রামের। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই সাজঘরে ফেরেন তানজিদ তামিম। সাইফউদ্দিনের শিকার হওয়ার আগে এই ওপেনারের ব্যাট থেকে এসেছে ৩ বলে ২ রান।

তিনে নেমে আরও একবার ব্যর্থ হয়েছে ইমরানুজ্জামান। তবে এক প্রান্তে ভালোই খেলছিলেন জশ ব্রাউন। এই ওপেনার অবশ্য ফিরতে পারতেন ২০ রানেই। ইনিংসের ৫ম ওভারের ঘটনা। ওবেদ ম্যাকয়ের করা ওভারের পঞ্চম বলটি ঠিকমতো টাইমিং করতে পারেননি জশ ব্রাউন। বল দূরত্ব না পেলেও অনেকটাই উপরে উঠে যায়, এক্সট্রা কভারে দাঁড়িয়ে থাকা তামিমক ইকবাল বলের নিচেই ছিলেন।

জায়গায় দাঁড়িয়েও বলের ওপর নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেননি তামিম। চলিত বাংলায় বলা যায়—ডাল-ভাত ক্যাচ ছিল, সেটাও হাতে জমাতে পারলেন না বরিশালের অধিনায়ক। তাতে ২০ রানে জীবন পান ব্রাউন।

অবশ্য তামিমের এই ভুলের খেসারত হিসেবে বড় কিছু গুণতে হয়নি চট্টগ্রামকে। ম্যাকয়ের পরের ওভারেই সাজঘরে ফিরেছেন ব্রাউন। ইনিংসের সপ্তম ওভারের শেষ বলে ম্যাকয়কে তুলে মারতে গিয়ে আরও একবার মিস টাইমিং হয় ব্রাউনের। এবার বল চলে পয়েন্টে দাঁড়িয়ে থাকা ডেভিড মিলারের হাতে।

তামিম ভুল করলেও মিলার ভুল করেননি। সহজ ক্যাচ লুফে নেন এই প্রোটিয়া। তাতে ২২ বলে ৩৪ রান করে থেমেছেন ব্রাউন। তার এই ইনিংসে ২ চার ও ৩টি ছক্কার মার ছিল।

ব্রাউনের মতোই ভালো শুরু পেয়েছিলেন টম ব্রুসও। তবে ১৭ রানের বেশি করতে পারেননি তিনি। এদিন শুভাগত হোমও ব্রুস-ব্রাউনদের পথে হেটেছেন। উইকেটে থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি। ফিরেছেন ১৬ বলে ২৪ রান করে।

এরপর আর কেউই বলার মতো কোনো রান করতে পারেননি। ফলে ২০ ওভার খেলেও দেড়শ স্পর্শ করতে পারেনি চট্টগ্রাম।


বিপিএল   বরিশাল   চট্টগ্রাম  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

অস্ট্রেলিয়ার পর ভারত আসবে বাংলাদেশে!

প্রকাশ: ০৪:০২ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

চলতি বছরেই বাংলাদেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মেয়েদের টি-২০ বিশ্বকাপ। আর সেটিকে সামনে রেখে ইতোমধ্যেই প্রস্তুতি শুরু করেছেন সব দেশের নারীরা।

সেই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের মেয়েরাও প্রস্তুতি শুরু করলেও বেশ লম্বা সময় ধরে আন্তর্জাতিক খেলার বাইরে রয়েছে তারা। মেয়েদের বয়সভিত্তিক দল কক্সবাজারে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেললেও মূল দলের ক্রিকেটাররা খেলার বাইরেই আছেন।

আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপকে সামনে রেখেই প্রস্তুতি হিসেবে বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া দল। সেই সিরিজকে মাথায় রেখে প্রস্তুতি শুরু করেছে টাইগ্রেসরা। ১৬ মার্চ তিন ওয়ানডে ও টি-২০ খেলতে বাংলাদেশে আসার কথা অজিদের।

গত রোববার থেকে শুরু হয়েছে বাংলাদেশের জাতীয় দলের ফিটনেস ট্রেনিং ক্যাম্প। চার দিনের সেই ক্যাম্প শেষে ক্রিকেটাররা যাবেন খুলনায়। সেখানে দুই সপ্তাহের স্কিল ক্যাম্প শেষে মিরপুরে ফিরবেন বাংলাদেশ দলের মেয়েরা।

এদিকে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের পর আরও এক বড় দলের বিপক্ষে সিরিজ খেলার সুযোগ পাচ্ছে বাংলাদেশ। এপ্রিলের শেষদিকে বাংলাদেশ সফরে আসবে ভারতীয় নারী দল। ভারত সিরিজটি অবশ্য আইসিসি ভবিষ্যৎ সফর পরিকল্পনার বাইরে।

মূলত সামনে বিশ্বকাপ থাকায় কন্ডিশন সম্পর্কে ধারণা পেতেই বড় দলগুলো দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসতে আগ্রহী।


বাংলাদেশ   অস্ট্রেলিয়া   ভারত   সিরিজ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন