ইনসাইড পলিটিক্স

এবার কি তারা মনোনয়ন পাবেন

প্রকাশ: ০৯:০০ পিএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

আওয়ামী লীগ বিরোধী দলের আন্দোলন মোকাবেলার পাশাপাশি নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে। দফায় দফায় আওয়ামী লীগ বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকায় জরিপ করছেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি সম্প্রতি দলের সংসদীয় কমিটির বৈঠকে সুস্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন, যাদের এলাকায় গ্রহণযোগ্যতা নেই, এলাকায় যারা যান না এবং জনগণের সাথে সম্পর্কহীন তাদেরকে আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হবে না। 

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে, একশ থেকে দেড়শ আসনে আওয়ামী লীগ আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাল্টাতে পারে এবং আগামী নির্বাচনে বড় ধরনের চমক আসছে। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের ক্ষেত্রে বড় চমক ছিল যে, বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট কেন্দ্রীয় নেতাকে মনোনয়ন বঞ্চিত করা হয়েছিল। এবার সেক্ষেত্রে বড় ধরনের পরিবর্তন হবে কিনা বা মনোনয়ন বঞ্চিত ওই সমস্ত নেতারা নতুন করে মনোনয়ন পাবেন কিনা তা নিয়ে নানামুখী আলাপ-আলোচনা চলছে। 

গত বছর আওয়ামী লীগের যে সমস্ত হেভিওয়েট নেতাদের মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছিলেন তাঁদের মধ্যে ছিলেন মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, আ. ফ. ম. বাহাউদ্দিন নাছিম, এস এম কামাল এবং বিএম মোজাম্মেল। এদের মধ্যে এদের মধ্যে মনোনয়ন বঞ্চিত দুজনকে বিপুলভাবে পুরস্কৃত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে অন্যতম মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এবং মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন। 

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া: মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াকে গত বছরে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামে অন্তর্ভুক্ত করা হয় এবং এই প্রেসিডিয়ামে  অন্তর্ভুক্তির মধ্য দিয়ে তাকে পুরস্কৃত করা হয়েছে বলে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতাকর্মীরা মনে করছেন। অন্যদিকে মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ১/১১ এর সময় সংস্কারপন্থী হিসেবে পরিচিত ছিল। এজন্য তিনি রাজনীতিতে কোণঠাসা হয়ে পড়েন। সেখান থেকে তিনি প্রথমে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি, পরে বিএমএ সভাপতি এবং সর্বশেষ তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে মনোনীত হয়েছেন। এর ফলে এই দুইজনের আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে বিভিন্ন মহল মনে করছেন। যদিও মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এখনও চাঁদপুরে তার নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন গণসংযোগ মূলক কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছেন, এই দুই জনের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই কম। কারণ লালবাগে হাজী সেলিমের পরিবর্তে তার পুত্র ইরফান সেলিম ইতোমধ্যেই সেখানে ব্যাপক গণসংযোগ এবং নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন। 

জাহাঙ্গীর কবির নানক: জাহাঙ্গীর কবির নানক মোহাম্মদ থেকে ২০১৪ নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছিলেন। এর আগে ২০০৯ সালেও তিনি একই আসন থেকে বিজয়ী হন। গত নির্বাচনে জাহাঙ্গীর কবির নানককে মনোনয়ন না দিয়ে সাদেক খানবে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল। এবার জাহাঙ্গীর কবির নানক আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন বলেই বিভিন্ন মহল মনে করছেন। বিশেষ করে গত পাঁচ বছরে তার সাংগঠনিক তৎপরতা এবং দলের জন্য পরিশ্রমের পুরস্কার তিনি পেতে যাচ্ছেন বলে মনে করা হচ্ছে। তবে তিনি মোহাম্মদপুর আসনে মনোনয়ন পাবেন নাকি ধানমন্ডিতে নির্বাচন করবেন সেটি এখন পর্যন্ত নিশ্চিত হয়নি। তবে একাধিক সূত্র বলছে, জাহাঙ্গীর কবির নানক আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন এটি মোটামুটি নিশ্চিত।

আবদুর রহমান: আওয়ামী লীগের আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমানের বিষয়টি এখনও নিশ্চিত হয়নি। আবদুর রহমানের মূল আসন ফরিদপুর-১ যেখানে একজন আমলাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল। তিনি তার এলাকায় কোনো প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি। ফরিদপুরে কোনো আসনে আওয়ামী লীগের এই নেতা এবার মনোনয়ন পাবেন কিনা তা এখন পর্যন্ত নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে মনোনয়নপত্র আবদুর রহমান চেষ্টা করছেন। 

বাহাউদ্দিন নাছিম: বাহাউদ্দিন নাছিম গত নির্বাচনে মাদারীপুর থেকে মনোনয়ন না পাওয়াটা ছিল বিস্ময়কর। তবে এবার নির্বাচনে বাহাউদ্দিন নাছিম মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন এমনটি নিশ্চিত করেছেন বিভিন্ন মহল। কারণ রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তার দক্ষতা, কর্মীদের সঙ্গে তার সখ্যতা এবং সততার কারণে তিনি আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে যাচ্ছেন। তাছাড়া ওই নির্বাচনী এলাকায় কোনো কোনো ব্যক্তিকে নিয়ে বিভিন্ন রকম বিতর্ক সৃষ্টির প্রেক্ষিতে বাহাউদ্দিন নাছিম এখন লাইমলাইটে এসেছেন বলেও বিভিন্ন মহল মনে করছেন। 

এস এম কামাল: এস এম কামাল খুলনার একটি আসন থেকে নির্বাচনে মনোনয়ন পেতে আগ্রহী। তবে শেষ পর্যন্ত তিনি মনোনয়ন পাবেন কিনা তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। তবে একাধিক সূত্র বলছে, এস এম কামালের প্রতি দলের হাইকমান্ডের সহানুভূতি এবং সুস্পষ্ট সমর্থন রয়েছে। আগামী নির্বাচনে তিনি যদি শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন পান তাহলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

বিএম মোজাম্মেল: বিএম মোজাম্মেল ২০১৮ নির্বাচনে মনোনয়ন পাননি। এবারও তার মনোনয়ন পাওয়ার খুব একটা সম্ভাবনা আছে বলে কেউ মনে করেন না। তবে শেষ পর্যন্ত মনোনয়নের বিষয়টি চূড়ান্ত হবে আরও পরে। যখন নির্বাচনের সময় আরও কাছাকাছি চলে আসবে।

আওয়ামী লীগ   নির্বাচন   এস এম কামাল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

খন্দকার মোশাররফকে দেখতে বাসায় গেলেন ফখরুল

প্রকাশ: ০৯:৩৫ পিএম, ১৭ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

বিএনপি সিনিয়র স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেনের স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নিতে তার বাসায় যান দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৬টা ৫০ মিনিটে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের গুলশানের বাসায় যান বিএনপি মহাসচিব। এরপর প্রায় এক ঘণ্টা তারা একান্ত আলাপ করেন।

বিএনপি মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান এই তথ্য জানান। তিনি বলেন, এই দুই নেতা একান্তে প্রায় এক ঘণ্টা সময় কাটান। এ সময় দুজন পরস্পরের খোঁজ নিয়েছেন।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এরপর দুই দফায় সিঙ্গাপুর থেকে চিকিৎসা নিয়ে দেশে ফেরেন তিনি।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন   মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

নির্বাচন বর্জন: লাভের চেয়ে ক্ষতি হচ্ছে বেশি বিএনপির

প্রকাশ: ০৬:০০ পিএম, ১৭ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

উপজেলা নির্বাচনে নাটকীয়ভাবে বর্জনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে দীর্ঘ ১৭ বছরের বেশি ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি। বিএনপির এ সিদ্ধান্তে হতবাক স্থানীয় পর্যায়ের নেতারা। 

বিএনপির স্থানীয় পর্যায়ের একাধিক নেতার সঙ্গে আলাপ করে দেখা গেছে যে, শেষ পর্যন্ত তাদের ধারণা ছিল উপজেলা নির্বাচনের বিষয়টি তারা উপেক্ষা করবে। এমনকি দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সিনিয়র নেতারা অনেক প্রার্থীকে সবুজ সংকেত দিয়েছিলেন। কিন্তু শেষ মুহূর্তে গতকাল বিএনপি উজজেলা নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। 

উপজেলা নির্বাচন এবার দলীয় প্রতীকে হচ্ছে না। উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রতীক ব্যবহার করছে না। এরকম একটি নির্বাচন বিএনপি কেন বর্জন করলো এবং এ বর্জনের ফলে কি লাভ হবে তা নিয়ে বিএনপির মধ্যেই আলোচনা হচ্ছে।
ইতিমধ্যেই প্রথম দফা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির দলীয় পদ পদবী রয়েছে এমন ৪৭ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। দলীয় পদ পদবী নেই কিন্তু বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত এরকম আরও ৭৬ জন উপজেলা নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছিলেন। এখন তারা কি করবেন এ নিয়ে তারা নিজেরাই একটি বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছেন। 

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, যারা উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন তারা দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে কথা বলেই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। এবং তাদের আশ্বস্ত করা হয়েছিল যে, নির্বাচনের ব্যাপারে বিএনপি নমনীয় থাকবে। কিন্তু গতকাল বিএনপির এ সিদ্ধান্ত তাদেরকে হতাশ করেছে। এর ফলে বিএনপির মধ্যে দু’ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছে। 

অনেকেই যারা স্থানীয় পর্যায়ে পদ পদবী গ্রহণ করে আছেন তারা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে পারেন। কারণ যদি নির্বাচনে তারা অংশগ্রহণ করেন, তাহলে তাদেরকে বহিষ্কার করা হবে। এর আগে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে সিটি কর্পোরেশনসহ স্থানীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করায় ২ শতাধিক বিএনপির নেতাকে বহিষ্কার করা হয়। এখন আবার নতুন করে বিএনপি যদি তাদেরকে বহিষ্কার শুরু করে তাহলে তাদের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ক্ষতিগ্রস্থ হবে। একারণে অনেকে প্রত্যাহার করতে পারেন। কমিটিতে যাদের পদ পদবী নেই তাদেরকে নির্বাচন থেকে সরিয়ে রাখা কঠিন হবে বলে অনেকে মনে করছেন।  

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সভাপতি নরেন্দ্র চন্দ্র সরকার প্রার্থী হয়েছেন। তিনি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে কথা বলেই প্রার্থী হয়েছেন। এখন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার ফোন ধরছেন না বলে তিনি জানিয়েছেন। 

বিএনপির একাধিক সূত্র বলছে, মূলত দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান শেষ মুহূর্তে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এবং এ সরে যাওয়ার সিদ্ধান্তটি দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও আলোচিত হয়নি বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, উপজেলা নির্বাচন করা নিয়ে একটি উচ্চ পর্যায়ে আলোচনা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেই আলোচনাটি শেষ পর্যন্ত হয়নি। এবং এ আলোচনা না হওয়ার কারণে এখন দলটি নতুন করে সংকটের মধ্যে পড়তে যাচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে।

নির্বাচন বর্জন   বিএনপি   উপজেলা নির্বাচন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

মন্ত্রী-এমপিরাই আওয়ামী লীগের নির্দেশ মানছে না

প্রকাশ: ০৫:০০ পিএম, ১৭ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়েছে যে, মন্ত্রী এবং এমপিরা উপজেলা নির্বাচনে কোন প্রার্থীকে সমর্থন করতে পারবে না। তাদেরকে নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকতে হবে। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও একই রকম বার্তা দিয়েছেন। এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে লিখিত নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে। কিন্তু এই সমস্ত নির্দেশনা উপেক্ষা করে আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-এমপিরা উপজেলা নির্বাচনে নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে বিজয়ী করাতে মাঠে নেমেছেন। এমনকি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের নির্বাচনী এলাকাতেই এমপিরা প্রার্থীর নাম ঘোষণা করছেন। 

আওয়ামী লীগের যারা যারা উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন তাদের তালিকা পর্যালোচনা করলে দেখা যাচ্ছে যে, আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-এমপিদের পছন্দের প্রার্থীদেরকে উপজেলায় দাঁড় করানো হচ্ছে। 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অন্তত এক ডজন বার নির্দেশ দিয়েছেন মন্ত্রী এবং এমপিরা যেন উপজেলা নির্বাচনে নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকে। কিন্তু আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের এই নির্দেশ মানা হয়নি তার জেলাতেই। তিনি নির্দেশ দেয়ার পরও তার জেলায় এমপিরা আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে তাদের পছন্দের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করছেন। অনেক স্থানে এমপিদের আত্মীয়-স্বজন প্রার্থী হয়েছেন। 

নোয়াখালীতে দুই এমপির ছেলে প্রার্থী হয়েছেন। হাতিয়ায় চেয়ারম্যান পদে নোয়াখালী-৬ আসনের এমপি মোহাম্মদ আলীর বড় ছেলে আশিক আলী এবং সুবর্ণচরে চেয়ারম্যান পদে নোয়াখালী-৪ আসনের এমপি মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরীর ছেলে আতাহার ইসরাক শাবাব চৌধুরী প্রার্থী হয়েছেন, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের এমপি মামুনুর রশিদ কিরনের ছেলেকেও প্রাথী ঘোষণা করেছেন এমপি নিজে। 

শুধু তাই নয়, চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের এমপি আলী আজগর টগরের ছোট ভাই আলী মুনছুর বাবু চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন এবং সেখানে এমপি সরাসরিভাবে প্রার্থী হিসেবে তার নাম ঘোষণা করেছেন। অনেক স্থানে মন্ত্রী এবং এমপিরা তাদের প্রার্থীদের জন্য আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে নামছেন। 

মাদারীপুরের সদর উপজেলায় শাজাহান খানের বড় ছেলে আসিবুর রহমান খান প্রার্থী হয়েছেন এবং শাজাহন খান তার পক্ষে কাজ করছেন বলেও জানা গেছে। নরসিংদী-২ আসনের ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলিপের শ্যালক ঘোড়াশাল পৌরসভার সাবেক মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি শরিফুল হককে দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। অথচ আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী হিসেবে কাউকেই দিচ্ছে না। 

মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লব ও তার পরিবারের চাপে সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দেননি বলে অভিযোগ করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফসার উদ্দিন ভূঁইয়া। এভাবে নির্বাচনের ব্যাপারে এমপিদের প্রভাব এবং প্রতিপত্তি বেড়েই চলেছে। 

সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটেছে নাটোরে। সেখানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী ও নাটোর-৩ আসনের এমপি জুনায়েদ আহমেদ পলকের শ্যালক প্রার্থী হয়েছেন। এবং তাকে জিতিয়ে রাখার জন্য একজন প্রার্থীকে অপহরণের অভিযোগও উঠেছে। নির্বাচন কমিশন এই বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করছে। তবে আওয়ামী লীগের লোকজন বলছেন যে, এটি একটি অমার্জনীয় অপরাধ। 

বিভিন্ন উপজেলায় প্রার্থীতার হিসাব পর্যালোচনা করে দেখা যায়, আওয়ামী লীগের এমপিদের স্ত্রী, সন্তান, ভাই, ভাতিজা, শ্যালক, মামা-ভাগ্নেসহ নানা রকম আত্মীয় স্বজন উপজেলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। ফলে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল সেই নির্দেশনা অমান্য হচ্ছে।  


আওয়ামী লীগ   উপজেলা নির্বাচন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

যেসব কারণে পিছু হটল জামায়াত

প্রকাশ: ১১:০০ এএম, ১৭ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেওয়া থেকে পিছু হটল বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। দলটির যেসব নেতা নির্বাচনের প্রস্তুতিতে ছিলেন, এরই মধ্যে তাদের প্রার্থী না হতে বারণ করা হয়েছে। জামায়াতের নীতিনির্ধারণী পর্ষদ কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের বৈঠকে আলোচনার পর উপজেলা নির্বাচনে না যাওয়ার এ সিদ্ধান্ত হয়। কেন্দ্রের এ সিদ্ধান্ত স্থানীয় দায়িত্বশীল নেতারা তৃণমূলে জানিয়ে দিয়েছেন। সেইসঙ্গে যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন, তাদের প্রত্যাহার করতে বলা হয়েছে।

তবে এ বিষয়ে জামায়াত কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়নি। দলীয় সিদ্ধান্ত না থাকলেও দেশের বিভিন্ন এলাকায় জামায়াতের অনেক নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। সম্ভাব্য প্রার্থীরা স্থানীয়ভাবে নানারকম প্রচার ও গণসংযোগও করছিলেন। বিশেষ করে রোজার মধ্যে এবং ঈদুল ফিতরে তারা ব্যাপক গণসংযোগ করেছেন।

দলটির নেতারা বলছেন, মূলত বেশকিছু কারণে বর্তমান পরিস্থিতিতে নির্বাচনে যাচ্ছে না জামায়াত। তার মধ্যে মোটাদাগে চারটি কারণের কথা বলছেন নেতারা।

কারণগুলো হচ্ছে…

১। মানুষের ভোটাধিকার প্রয়োগে ক্ষমতাসীনদের ‘হস্তক্ষেপ’

২। বর্তমান নির্বাচনী ব্যবস্থা ও পরিবেশের প্রতি জনগণের ‘আস্থার সংকট’

৩। গণতন্ত্র না থাকা এবং

৪। উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিয়ে ‘অবৈধ সরকার’কে বৈধতা না দেওয়া

এদিকে, উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখের (সোমবার) আগেই সিদ্ধান্ত বদল করায় জামায়াতের তৃণমূলে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। মাঠপর্যায়ে পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, গাইবান্ধা, যশোর, সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গাসহ বেশকিছু উপজেলায় জামায়াতের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী তৎপরতা শুরু করেছিলেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকটি উপজেলার সম্ভাব্য প্রার্থীরা বলেন, নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত এমন সময় এলো, যখন তারা ব্যাপকভাবে গণসংযোগ করছিলেন। এতে তৃণমূল নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের মাঝে নেতিবাচক বার্তা যায়। নির্বাচনে গেলে কী লাভ আর কী ক্ষতি—এটা ভেবে অনেক আগেই সিদ্ধান্ত নিতে পারতেন দলের নীতিনির্ধারকরা। তবে সার্বিক পরিস্থিতিতে জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতারা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, সেটাকেও সম্মান জানাতে চান তারা।

গতকাল মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল হালিম বলেন, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় উপজেলা নির্বাচন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জামায়াত। এরই মধ্যে সারা দেশে দলীয় সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। কেউ মনোনয়ন জমা দিলে তা প্রত্যাহার করতে বলা হয়েছে।

দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, বিএনপি-জামায়াতসহ প্রায় ৬৩টি রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ সরকারের অধীন গত ৭ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করেছে। বিএনপিও এ উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না। ইসলামী দলগুলোর অন্যতম চরমোনাই পীরের ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশও সংসদ নির্বাচনের মতো উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সবমিলিয়ে জামায়াতকেও শেষ পর্যন্ত উপজেলা নির্বাচন না করার সিদ্ধান্ত নিতে হলো।

এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে শুরুর দিকে কিছুটা নমনীয় ছিল জামায়াত। জয়ের সম্ভাবনা আছে এবং স্থানীয়ভাবে প্রভাব আছে—এমন উপজেলাগুলোতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ব্যাপারে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েছিল দলটি। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য এবং প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট উপজেলা ও জেলা কমিটির দায়িত্বশীল নেতাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। সে মোতাবেক সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রস্তুতিও নিচ্ছিলেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশের চলামান রাজনৈতিক ও সার্বিক পরিস্থিতিতে ঈদের আগে দলের নীতিনির্ধারণী পর্ষদ কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের বৈঠক ডাকে জামায়াতে ইসলামী। সেখানে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। একপর্যায়ে উপজেলা নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ঈদুল ফিতরের পরপরই গত শনিবার উপজেলা নির্বাচন না করার বিষয়ে জেলা ও উপজেলার দায়িত্বশীল নেতাদের মাধ্যমে তৃণমূলে মৌখিকভাবে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে।

সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের ব্যাপারে জামায়াতের নেতারা বলছেন, তারা পর্যালোচনা করে দেখেছেন যে, দেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের কোনো পরিবেশ নেই। জনগণ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারছে না। নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হচ্ছে। যার সর্বশেষ প্রমাণ গত ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন।

দেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপিসহ অসংখ্য রাজনৈতিক দল এ সরকারের অধীনে নির্বাচন বর্জন করেছে। এ অবস্থায় জামায়াতে ইসলামী উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিয়ে ‘অবৈধ সরকার’কে বৈধতা দেওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না। তা ছাড়া নির্বাচনের আগেই বিভিন্ন স্থানে জামায়াতের সম্ভাব্য প্রার্থীদের হুমকি দিয়ে ভয় দেখানো হচ্ছে। এসব বিষয়কে বিবেচনা করে উপজেলা নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জামায়াত।

গতকাল জামায়াতের কেন্দ্রীয় সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল হামিদুর রহমান আজাদ বলেন, ‘জামায়াতে ইসলামী শুধু নয়, বাংলাদেশের কোনো গণতান্ত্রিক দল উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না। কারণ, গত ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে দেশের জনগণ ভোট দিতে যায়নি। তারা একতরফা নির্বাচন বর্জন করেছে। সেই জনরোষ এখনো আছে। সুতরাং যেসব কারণে আমরা জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করেছি, সেসব কারণেই উপজেলা নির্বাচনে যাচ্ছি না। তিনি বলেন, জামায়াতে ইসলামী জনগণের জন্য রাজনীতি করে। জনগণের প্রতি জামায়াতের দায়বদ্ধতা আছে। দায়িত্বশীল দল হিসেবে জামায়াত জনমতকে উপেক্ষা করে নির্বাচনে যেতে পারে না’।

প্রসঙ্গত, সর্বশেষ ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরপর অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিয়ে জামায়াতের শতাধিক প্রার্থী উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলাসহ) হন। ২০০৯ সালের নির্বাচনে ২৪টি উপজেলায় চেয়ারম্যানসহ ৩৯ জন ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলাসহ) নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০১৯ সালে দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচন বর্জন করে জামায়াত। দলের নিবন্ধন না থাকলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার সুযোগ ছিল জামায়াত নেতাদের। কিন্তু দলীয় সিদ্ধান্তে সেবার কেউ নির্বাচনে অংশ নেননি।


উপজেলা নির্বাচন   জামায়াত   বিএনপি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

বিএনপিসহ স্বাধীনতাবিরোধী সন্ত্রাসী শক্তিকে প্রতিহত করব: কাদের

প্রকাশ: ০৮:৪৮ এএম, ১৭ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)-কে বিজয়কে সুসংহত করার পথে প্রতিবন্ধকতা উল্লেখ করে সন্ত্রাসী এ অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ বুধবার (১৭ এপ্রিল) ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি এ মন্তব্য করেন।

কাদের বলেন, বিজয়কে সুসংহত করার পথে প্রতিবন্ধকতা হলো বিএনপির মতো সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসী অশুভ শক্তি। এ শক্তিকে প্রতিহত করতে হবে। আজকের এ দিনে বিএনপিসহ স্বাধীনতাবিরোধী সন্ত্রাসী শক্তি সব অপশক্তিকে, যারা আমাদের বিজয়কে সংহত করার প্রতিবন্ধক, এদের আমরা পরাজিত করব, পরাভূত করব, প্রতিহত করব। আমাদের লড়াইকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যাব।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমি তো কোনো দাবিকে বিচ্ছিন্নভাবে কিছু বলতে পারি না। মন্ত্রিসভা আছে, প্রধানমন্ত্রী আছেন। তারা এত বছর পর দাবিটা তুলছেন, কেন তুলছেন এটাও জানার দরকার আছে।

তিনি আরও বলেন, আজকের এই দিনে আমরা শপথ নেব মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে ধারাবাহিক লড়াইয়ে আমরা এগিয়ে যাব। উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বয়ে নিয়ে যাব, এটাই হোক আমাদের শপথ।

এর আগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পুষ্পস্তবক অর্পণের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সহযোগী ও ভাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতাকর্মীরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে তার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।


বিএনপি   মুজিবনগর দিবস   ওবায়দুল কাদের  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন