ইনসাইড টক

আদৌ কাজে ফিরতে পারব কিনা নিশ্চয়তা নেই: শারমিন আঁখি

প্রকাশ: ০৪:০৩ পিএম, ০৭ এপ্রিল, ২০২৩


Thumbnail

চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি (শনিবার) মিরপুরের একটি শুটিং বাড়ির মেকআপ রুমে বিস্ফোরণে গুরুতর আহত হন ছোট পর্দার এই অভিনেত্রী শারমিন আঁখি। দীর্ঘ দুই মাস হাসপাতালে থাকার পর অবশেষে বাসায় ফিরেছেন অগ্নিদগ্ধ এই অভিনেত্রী। সম্প্রতি তিনি কিছুটা সুস্থ হলে বাসায় ফেরার অনুমতি পান। তবে আরও ৬ মাস তাকে বিশ্রামে থাকতে হবে। এসময় তার শরীরে আলো লাগানো যাবে না। একেবারে আলোহীন হয়ে বন্দি থাকতে হবে অভিনেত্রীকে। বাংলা ইনসাইডারের সাথে আলাপ কালে এই অভিনেত্রী জানান সেই ঘটনার নানা কথা। 

আঁখি বলেন,  আমি পুরনো নিউজগুলো দেখছি, হেডলাইনগুলো পড়ছি আর ভাবছি একটা মানুষ মৃত্যুশয্যায় আর আমরা কি অসুস্থ খেলায় মেতেছিলাম, মানুষটাকে আগে বাঁচতে দে তারপর যা খুশি নিউজ কর। আমি মরে গেলেও তার লাশের পচা গন্ধের চেয়েও বিশ্রী গন্ধ আমরা নিউজ করে ছড়িয়ে দিতে পারি।

আমি তো কোনো অভিযোগ এখনো জমা দেই নাই। তাহলে আমার বিরুদ্ধে এত খোব কেনো? একজন সংস্কৃতিকর্মী হয়েও নারী বৈষম্যের স্বীকার হতে হচ্ছে। এমনিতেই মেয়েদেরকে দোষ দেওয়ার জন্য সবাই বসে থাকে। তার উপর মিডিয়ার মেয়েরা খারাপ এই টেগ লাইন তো আছেই। কয়েকটা ক্লিক আর ভিউ পাওয়ার জন্য কিছু অসুস্থ মানুষ মন গড়া নিউজ করে গেছে যখন আমি হাসপাতালে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছি। ওই হাউজ আমাকে সামাজিকভাবে হেরাসমেন্ট করে কিছু হলুদ সাংবাদিকতাকে ইনফ্লুয়েন্স করে গেছেন।

আমি যে বেঁচে আছি এটাই তো মিরাকেল, মরে যাওয়ায় পসিবিলিটি ৮০%  ছিল উল্লেখ করে এই অভিনেত্রী বলেন, আমি মিডিয়াতে কাজ করি মানে তো এই নয় যে আমি এলিয়েন। আমার সাথে যে অন্যায় হয়েছে তার বিচার পাওয়ার অধিকার তো আমার আছে। আমি যে বেঁচে আছি এটাই তো মিরাকেল, মরে যাওয়ায় পসিবিলিটি ৮০%  ছিল। তখন তো এটেম্পট টু মার্ডার (প্রমাণ সাপেক্ষে) কেস হতে পারত। 

আগামী এক বছর আমার কাজ বন্ধ, আদৌ কাজে ফিরতে পারব কিনা নিশ্চয়তা নেই। ওই হাউজ মালিকের বিরুদ্ধে বিশাল অংকের ক্ষতি পূরণের মামলা হতে পারত, সব বাদ দিলাম, নেগলিজেন্স এক্টে মামলা হতে পারত। অথচ উনি এখন বলে বেড়াচ্ছে আমি কিছুই করতে পারব না। আমাকে এভাবে উস্কাচ্ছে কেনো আমি বুঝতে পারছি না!

আমাকে অপছন্দ করেন যেই কলিগরা (নাম উল্লেখ করলাম না), যারা বিভিন্ন সেটে আমাকে নিয়ে মন গড়া কথা বলছেন, ডবল স্ট্যান্ডার্ড আচরণ কইরেন না। আমার জায়গায় নিজেকে একবার দাঁড় করিয়ে দেখেন বুকে কাঁপুনি আসে কিনা, আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে এক মুহূর্তের জন্য ভিজুয়াল করে দেখেন আপনার মুখটা পুড়ে খত বিক্ষত, দুই হাত মুখের সামনে ধরে ভাবেন আপনার হাতের চামড়া নেই। 

তখন আপনাদের ভোতা অনুভূতিগুলো হয়ত জাগ্রত হবে। আমার মেল কলিগরা, জাস্ট এক সেকেন্ডের জন্য চোখ বন্ধ করে চিন্তা করেন আপনার লাইফ পার্টনার অগ্নিদগ্ধ দেখবেন আপনার পায়ের তলার মাটি সরে যাবে। আমাদের জীবনে যে কি যুদ্ধ করতে হচ্ছে তার হয়ত ১% এই লেখা পড়লে বুঝতে পারবেন- বাকিটা বুঝবেন না।

সাংবাদিক ভাই বন্ধু এবং শুটিং সেটে যেই সব অসুস্থ কলিগরা মন গড়া গসিপ করছেন তাদের কাছে প্রশ্ন- একটা পারমাণবিক সিগারেটের এত শক্তি একটা ওয়াশরুমে ব্লাস্ট ঘটাতে পারে? আমরাই তো সিগারেটের আগুনকে বিস্ফোরণের কারণ বলছি। ওয়াশরুমে জমে থাকা গ্যাসের কোনো দোষ নাই!

ওয়াশরুম বিস্ফোরিত, বিস্ফোরণে ওয়াশরুমের দরজার অস্তিত্ব নেই আর আমি ভেতরে অগ্নিদগ্ধ। ওয়াশরুমের বেসিনে একটা সিগারেট ভর্তি প্যাকেট পাওয়া গেছে, প্যাকেটটা পুড়েনি! ফ্লোরে একটা অক্ষত লাইটার পাওয়া গেছে, এত বড় অগ্নিকাণ্ডে লাইটারটা গলেনি, ফুটেও যায়নি!  

পাশেই সিগারেটের আধাপোড়া টুকরো পাওয়া গেছে, বিস্ফোরণে এক টুকরো ফোম আর কাগজের তৈরি সিগারেটের অক্ষত রয়ে গেছে! দরজা উড়ে গেছে, একটা মানুষ পুড়ে গেছে আর এই তিনটি আলামতে আগুনের আঁচও কেনো লাগেনি এই প্রশ্নের উত্তর কি কেউ আমাকে দিতে পারবেন? 


শারমিন আঁখি   অভিনেত্রী  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘প্রশাসন তো বেনজীরকে দুর্নীতি করতে বলে নাই’

প্রকাশ: ০৪:২৫ পিএম, ২৯ মে, ২০২৪


Thumbnail

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) মোহাম্মদ নুরুল হুদা বলেছেন, বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আনফরচুনেট (দুর্ভাগ্যজনক)। এটা না হওয়াই বাঞ্ছনীয় ছিল। আর এটা তো একটা অভিযোগ, অভিযোগ আসলেই কিন্তু কেউ দোষী হয়ে যায় না। অভিযোগ যখন প্রমাণ হয় তখন সে দোষী। এখন শুধু সন্দেহের আঙ্গুল থাকতে পারে, তবে সেটাও বাঞ্ছনীয় নয়।

সম্প্রতি অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ ও তার স্ত্রী-সন্তানদের নামে থাকা সকল স্থাবর-অস্থাবর সম্পতি ক্রোকের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এ রকম একটা দায়িত্বশীল পদে থেকে বেনজীর আহমদের ব্যাপক দুর্নীতিতে জড়িয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) মোহাম্মদ নুরুল হুদা বাংলা ইনসাইডারকে এ কথা বলেন। 

সাবেক আইজিপি নূরুল হুদা বলেন, বেনজীর আহমেদের ঘটনা পুলিশ প্রশাসনে প্রভাব ফেলবে না। প্রশাসন তো তাকে দুর্নীতি করতে বলে নাই; যে অভিযোগগুলো আছে সে তার নিজ দায়িত্বে করেছে। যার যার দায়িত্ব তার তার। আইন মোতাবেক একজনের দায়িত্ব আরেক জনের না। সুতরাং পুলিশ প্রশাসনে কোন প্রভাবের আমি অবকাশ দেখি না।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘সুশীল সমাজকে সান্ত্বনা দিতেই আজিজের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা’

প্রকাশ: ০৪:২১ পিএম, ২৬ মে, ২০২৪


Thumbnail

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেছেন, সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সরকারের মধ্যে এক ধরনের অস্বস্তি তৈরি করেছে এটা সত্যি। কিন্তু প্রশ্ন হল এতে করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কি লাভ হয়েছে। আজিজের বিরুদ্ধে যে সমস্ত অভিযোগ তুলে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে এগুলো তো এখনকার বিষয় নয়। এই বির্তকগুলো তো অনেক আগের। তার ভাইদের নিয়ে যে সমস্ত সমালোচনা রয়েছে সেগুলোও তো পুরোনো। আমেরিকা তো সবই জানে। তাহলে আগে কেন নিষেধাজ্ঞা দিল না? এখন কেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার ওপর এই নিষেধাজ্ঞা দিল? আজিজের ওপর মার্কিন এই নিষেধাজ্ঞাকে আসলে গুরুত্ব দেওয়ার কিছু নেই। কারণ এটা গুরুত্ব বহন করে না।

সম্প্রতি সময়ে সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কে কোন প্রভাব ফেলবে কিনা এ প্রসঙ্গে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এ কথা বলেন অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডারের নিজস্ব প্রতিবেদক শান্ত সিংহ।

ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, আপনারা নির্বাচনের আগে মার্কিন তৎপরতা দেখেছেন। নির্বাচন নিয়ে তারা কি রকম তৎপর ছিল। নির্বাচন ঘিরে সে সময় যুক্তরাষ্ট্র ভিসা নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করেছিল। পরে কিছুদিন পর আবার বেশ কয়েকজনের ওপর নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করা হয়েছে বলে দেশটি জানায়। কিন্তু সে সময়ও যুক্তরাষ্ট্র আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়নি। তারা তো সে সময় সেটি করত পারত। কিন্তু সেটা করা হয়নি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এমন সময় আজিজের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যখন সরকারের সাথে তাদের সম্পর্ক বেশ ভালো এবং সম্পর্ক আরও উন্নয়নে এক সাথে কাজ করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে দু দেশই।

তিনি বলেন, আমি মনে করি নির্বাচনের আগে এবং পরে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থানে কেউ কেউ রুষ্ট হয়েছেন। আমার ধারণা তাদেরকে শান্ত করতেই যুক্তরাষ্ট্র আজিজের ওপর এই নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। বিশেষ করে আমাদের দেশে সুশীল সমাজকে সান্ত্বনা দিতেই মার্কিন এই নিষেধাজ্ঞা। প্রকৃতপক্ষে এই নিষেধাজ্ঞা কোন গুরুত্ব বহন করে না। মিডিয়া কেন এত গুরুত্ব দেয় সেটাও আমার কাছে বোধগম্য নয়। 


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

‘রাইসির মৃত্যুর ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্র বা ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ইরানের অভিযোগ নাই’

প্রকাশ: ০৪:০৩ পিএম, ২৩ মে, ২০২৪


Thumbnail

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেছেন, ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির মৃত্যু নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনার কথা শোনা গেলেও এখন পর্যন্ত ইরানের কর্তৃপক্ষ সে ধরনের কিছু বলেনি। যদি কোন ষড়যন্ত্র হয়ে থাকত বা প্রমাণ থাকত তাহলে হয়ত ইরানই সবার আগে কথা বলত। কিন্তু এখন পর্যন্ত ইরান এ নিয়ে কিছু বলেনি। তার মানে রাইসির মৃত্যুর ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্র বা ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ইরানের অভিযোগ নাই। ইরান শুধু বলছে, যেহেতু হেলিকপ্টার গুলো পুরোনো, স্যাংশন থাকার কারণে তারা নতুন হেলিকাপ্টার আনতে পারেনি বা যে পার্টস গুলো তাদের দরকার সেগুলো তারা আনতে পারছে না। এ নিয়ে ইরানের অভিযোগ আছে বটে, তবে রাইসির মৃত্যুর বেশ কিছু দিন অতিবাহিত হলেও ইরান তার মৃত্যুতে ইসরায়েল বা যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করেনি। দায়ী করার মত কিছু হলে ইরান নিশ্চিত বসতে থাকত না। তারা অবশ্যই এটা নিয়ে কথা বলত।

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার পর ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসির মৃত্যু এবং মধ্যপ্রাচ্যে এর প্রভাব নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এ কথা বলেন অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডারের নিজস্ব প্রতিবেদক শান্ত সিংহ।

অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার ইরানের আরও সতর্ক থাকা উচিত ছিল। তবে এই প্রথমবার যে একজন রাষ্ট্রপতি হেলিকাপ্টার দুর্ঘটনায় মারা গেলেন তা নয়, এর আগেও অনেকে মারা গেছেন। ইরানেই যে প্রথম হয়েছে তা নয়। তবে কোন সন্দেহ নেই যে আবহাওয়া খারাপ থাকার পরও ইরান কেন আরও সতর্ক হল না। এ নিয়ে নিশ্চিয় হয়ত ইরান তদন্ত করবে। তাদের নিরাপত্তার কোন ঘাটতি ছিলো কিনা কিংবা রাইসি নিজেই ইচ্ছা প্রকাশ করেছে কিনা সেটাও একটি দিক। তবে এর আগেও কোন কোন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান বা পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিংবা সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বিমান দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। রাইসিই প্রথম হলে হয়ত কিছু সন্দেহ হত। তবে সন্দেহ নেই এখানে ইরানের অবশ্যই দুর্বলতা রয়েছে। আবহাওয়ার কারণে যদি হয়েই থাকে তাহলে ওই ধরনের আবহাওয়া কেন ঝুঁকি নিল, সেগুলো হয়ত ইরান তাদের দেশের জনগণকে জানানোর চেষ্টা করবে।

রাইসির মৃত্যু মধ্যপ্রাচ্যে কিংবা ইরানে কোন ধরনের প্রভাব ফেলবে কিনা জানতে চাইলে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ এই অধ্যাপক জানান, রাইসি ইরানের প্রেসিডেন্ট হলেও তারই যে সব ক্ষমতা তা কিন্তু নয়।  ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনিই হলেন সর্ব ক্ষমতার অধিকারী। যদিও রাইসি বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল এবং তার এই জনপ্রিয়তা নিয়ে কোন সন্দেহ নাই। ইরানের জনগণের কাছে তার একটা অন্যরকম গ্রহণযোগ্যতা ছিল। কিন্তু ইরানের রাষ্ট্র কাঠামো এমন ভাবে তৈরি করা সেখানে মূল ক্ষমতা হলো আয়াতুল্লাহ খামেনির। ইরানে তিনি সর্ব ক্ষমতার অধিকারী।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে কেবি মডেল

প্রকাশ: ০৪:০০ পিএম, ১৫ মে, ২০২৪


Thumbnail

দেশজুড়ে বিশেষ করে ঢাকা শহরে ডেঙ্গু একটি ক্রমবর্ধমান উদ্বেগের বিষয়। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাম্প্রতিক তথ্যও ডেঙ্গু আক্রান্তের তীব্রহারের ইঙ্গিত দেয়। ইতোমধ্যে ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাফল্য দেখিয়েছে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া কলকাতা মডেল। সম্প্রতি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মশা গবেষক অধ্যাপক . কবিরুল বাশার কেবি (কবিরুল বাশার) মডেল নামে একটি মডেল তৈরি করেছেন। বুধবার (১৫ মে) বাংলা ইনসাইডারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি মডেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানান।

বাংলাদেশ করোনা সংক্রমণ খুব সফলভাবে মোকাবেলা করেছে। মানুষ থেকে মানুষের ছড়ানো এই ভাইরাসটি মোকাবেলা করা খুব চ্যালেঞ্জিং ছিল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে করোনার বিরুদ্ধে জয়ী হতে পেরেছে বাংলাদেশ।

দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকা পরিচিত শত্রু এডিস মশা এবং তার দ্বারা সংক্রমিত রোগ ডেঙ্গু চিকুনগুনিয়া। ২০০০ সাল থেকে শুরু করে বর্তমান সময় পর্যন্ত প্রায় প্রতিবছরই কমবেশি ডেঙ্গু হয়েছে। ডেঙ্গু এবং এর বাহক মশা সম্বন্ধে আমরা সকলেই অবগত এবং এর নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাও আমাদের জানা। তারপরেও আমরা কেন ব্যর্থ হচ্ছি ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে?

গত কয়েকদিন ধরে  প্রতিদিন গড়ে ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে প্রায় আড়াই হাজারের বেশী মানুষ। ক্রমাগতভাবে বেড়েই চলেছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। কোনভাবেই যেন ঠেকানো যাচ্ছে না এডিস মশা এবং তার ডেঙ্গু সংক্রমণ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে এখন পর্যন্ত প্রায় লাখ ২৩ হাজার মানুষ ডেঙ্গু রোগ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছে। যদিও এই পরিসংখ্যানটি সম্পূর্ণ নয়। কারণ এটি শুধুমাত্র যে সকল হাসপাতালগুলোও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে রিপোর্টিং করে তাদের তথ্য। এছাড়াও অনেক হাসপাতাল ক্লিনিকে ডেঙ্গু রোগীর চিকিৎসা হচ্ছে যার তথ্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাতে পৌঁছায় না। আবার অনেক রোগী বাসায় থেকেও চিকিৎসা নিচ্ছেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব গবেষণাগার সবসময়ই মশা মশা বাহিত রোগ নিয়ে গবেষণা করে। আমরা ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা, মাঠ পর্যায়ের এডিস মশার ঘনত্ব, বৃষ্টিপাত, তাপমাত্রা, আদ্রতা এই কয়েকটি বিষয়কে নিয়ে মাল্টিভেরিয়েট এনালাইসিস করে ফোরকাস্টিং মডেল তৈরি করি। যার মাধ্যমে ডেঙ্গু সম্বন্ধে আগাম ধারণা দিতে পারি। আমাদের গবেষণাগার থেকে পর্যন্ত আমরা যে আগাম তথ্য দিয়েছি তার সবগুলোই সঠিক হয়েছে।  আমাদের বর্তমান ফোরকাস্টিং মডেল বলছে আগামী বছরগুলোতে বাংলাদেশে ডেঙ্গু পরিস্থিতি খারাপ হবে।  শুধুমাত্র ঢাকায় নয় বাংলাদেশের সব জায়গায় ডেঙ্গু আরও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে যাবে।

বাংলাদেশের ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের জন্য আমরা একটি মডেল তৈরি করেছি।  এই মডেলটি অনুযায়ী পাঁচ বছর কার্যক্রম চালাতে পারলে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ হবে বলে আমি নিশ্চিত করতে পারি। ধারণা করা হয় এবছর ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। আমার এই মডেলটি বাস্তবায়নে যে ব্যয় হবে তা মোট নিয়ন্ত্রণ ব্যয়ের চাইতে অনেক কম হবে। মানুষের কষ্ট লাঘব হবে। বাংলাদেশে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে প্রস্তাবিতকেবি মডেলরুপরেখা নিম্নরূপ।

. স্বাস্থ্যকর্মী: প্রতি এক হাজার হোল্ডিং বা বাড়ির জন্য একজন করে স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ দিতে হবে। আউটসোর্সিং পদ্ধতিতে এই জনবল নিয়োগ করা যেতে পারে। এই স্বাস্থ্যকর্মী কাছে প্রতিটি বাড়ির মালিকের ফোন নাম্বার এবং ঠিকানা থাকবে।  বাড়ির মালিকের সাথে তার নিয়মিত যোগাযোগ থাকবে। ওই বাড়িতে কারো কোনরকম জ্বর হয়েছে কিনা সেই তথ্য নিয়মিতভাবে তার কাছে থাকতে হবে।  প্রতি ১৫ দিনে একদিন তার নির্ধারিত বাড়িতে গিয়ে বাড়ির মালিকপক্ষের কাউকে নিয়ে সম্পূর্ণ বাড়ি এবং বাড়ির আঙিনা ঘুরে দেখতে হবে কোথাও কোন পাত্রে পানি জমা আছে কিনা, যেখান থেকে ডেঙ্গুর বাহক এইডিস মশার প্রজনন হতে পারে। যদি ওই বাড়িতে এইডিস মশার জন্মাতে পারে বা জন্মেছে এমন কোন ধরনের পাত্র পাওয়া যায় তাহলে সেই বাড়ির লোককে দিয়ে সেইটি ব্যবস্থাপনা করতে হবে। তাদেরকে বুঝিয়ে দিতে হবে কিভাবে এই কাজটি করতে হয়।  নিয়মিতভাবে তাদের এই কাজ করার জন্য অনুরোধ করতে হবে। যদি কোন বাড়িতে ডেঙ্গুর বাহক এইডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায় তাহলে সেই বাড়ির মালিককে মশার লার্ভা সম্পর্কে সম্মুখ  জ্ঞান প্রদান করতে হবে। লার্ভা প্রাপ্ত বাড়ির মালিককে সর্তকতা নোটিশ প্রদান করতে হবে যেন ভবিষ্যতে আর না পাওয়া যায়। ভবিষ্যতে লার্ভা পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সেই নোটিশে উল্লেখ থাকতে হবে।

বাড়ি ভিজিট করার সঙ্গে সঙ্গে প্রাপ্ত তথ্য এবং উপাত্ত ডেঙ্গু নিধন অ্যাপে এন্ট্রি দিতে হবে। এন্টি দেওয়ার পরেই কেন্দ্রীয় টিম,জিআইএস টিম, ্যাপিড রেসপন্স টিম সেটি দেখতে পাবে। যদি কোন বাড়িতে ডেঙ্গু রোগী থাকে এবংএইডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায় তাহলে কেন্দ্রীয় ্যাপিড রেসপন্স টিম দ্রুত ওই বাড়ি এবং তার আশেপাশে মশা নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা নিবে। মশা নিয়ন্ত্রণ নিশ্চিত করে সেটিও অনলাইন অ্যাপে এন্ট্রি দিতে হবে যেন কেন্দ্রীয় টিম সেটি সহজেই মনিটরিং করতে পারে। স্বাস্থ্যকর্মীর কাছে তিন ধরনের স্টিকার থাকবেসবুজ, হলুদ এবং লাল। যদি বাড়িতে কোন ধরনের পানি জমা না থাকে তাহলে সেই বাড়িতে সবুজ স্টিকার লাগানো, এইডিস মশার প্রজনন স্থল আছে কিন্তু লার্ভা নেই এমন বাড়িতে হলুদ আর যদি লার্ভা পাওয়া যায় তাহলে সেই বাড়িতে লাল স্টিকার লাগিয়ে দিতে হবে। বাড়ির মালিককে জানাতে হবে যে সে কোন কারণেই এই স্টিকার তুলে ফেলতে পারবে না। স্টিকার তুলে ফেললে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। স্বাস্থ্যকর্মীর কাছে ডেঙ্গু টেস্ট করার কিট থাকতে হবে।  ওই বাড়ির কারো জ্বর থাকে তাহলে সঙ্গে সঙ্গে পরীক্ষা করিয়ে দিতে হবে। যদি কোন বাড়িতে ডেঙ্গু পজেটিভ পাওয়া যায় তাহলে সিটি কর্পোরেশনের চিকিৎসকের সাথে তার সংযোগ করিয়ে দিতে হবে। সিটি কর্পোরেশনের চিকিৎসক নিয়মিতভাবে তার খোঁজখবর রাখবেন এবং চিকিৎসার ব্যবস্থাপত্র দিবেন। তার অধীনে থাকা প্রতিটি বাড়ির প্রতিবার পর্যবেক্ষণের পূর্ণাঙ্গ তথ্য ছবিসহ অ্যাপে আপলোড করতে হবে।

শুধুমাত্র আবাসিক এলাকা নয় একজন স্বাস্থ্যকর্মীর অধীনে তার এলাকার নির্ধারিত সমস্ত হোল্ডিং গুলোই থাকবে। সেটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল বা অফিস আদালতও হতে পারে। স্বাস্থ্যকর্মীকে ১৫ দিনে একদিন যেতেই হবে এবং সেই বাড়ির সমস্ত তথ্য অনলাইনে আপলোড করতে হবে। জাতীয় ডাটা ম্যানেজমেন্ট এর জন্য বিভিন্ন ধরনের ফ্রি অ্যাপস আছে।  অথবা সিটি কর্পোরেশন নিজেরাও এই অ্যাপ তৈরি করে নিতে পারে।

. ক্লিনার: প্রতিটি ব্লকে একজন করে ক্লিনার থাকবে। ক্লিনারের কাজ হচ্ছে আটকে যাওয়া ড্রেন, ডোবা, নর্দমার পানি প্রবাহিত রাখা। কারণ আবদ্ধ পানিতে মশা জন্ম হয়। সাথে সাথে তার ব্লকের বিভিন্ন স্থানে পড়ে থাকা পাত্র যেখানে এডিস মশা জন্মানোর সম্ভাবনা আছে সেগুলো পরিষ্কার রাখা।

. মশককর্মী: প্রতিটি ব্লকে দুজন করে মশককর্মী থাকবে যারা সকালে লার্ভিসাইড এবং বিকালে এডাল্টিসাইড স্প্রে করবে। প্রতি তিন দিন পর পর অবশ্যই একটি এলাকাতে লার্ভিসাইড এবং এডাল্টিসাইড স্প্রে নিশ্চিত করতে হবে। আর এই নিশ্চিতকরণের দায়িত্বে থাকবে একজন ওয়ার্ড সুপারভাইজার। ওয়ার্ড সুপারভাইজার আঞ্চলিক কীটতত্ত্ববিদকে রিপোর্ট করবেন।

. সুপারভাইজার: একটি  ওয়ার্ড এর জন্য একজন সুপারভাইজার থাকবে। তিনি তার ওয়ার্ডের সমস্ত স্বাস্থ্য কর্মী মশককর্মীদের নিয়মিত কাজ নিশ্চিত করবেন। তার স্বাস্থ্য কর্মীদের কাজের মাসিক মূল্যায়ন প্রতিবেদন ওয়ার্ড কমিটিকে প্রদান করবেন।  তার ওয়ার্ড প্রতিটি বাড়ির মশা বাহিত রোগের খবরা খবর রাখবেন। তার ব্লকে কোথায় মশা জন্মানোর স্থান আছে সেটি কিউলেক্স মশা না এডিস মশা তার রেকর্ড তার কাছে থাকতে হবে। সাথে সাথে তার ব্লকের জনগণকে সচেতন করা এবং মশা নিয়ন্ত্রণে জনগণকে সম্পৃক্ত করার দায়িত্ব তার থাকবে। তার অধীনে থাকা স্বাস্থ্যকর্মীরা নিয়মিত মোবাইল অ্যাপে এন্ট্রি দিচ্ছে কিনা তা মনিটরিং করবেন।

. সহকারি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা: প্রতিটি ওয়ার্ডে একজন করে চিকিৎসক সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হিসেবে থাকবেন।  তিনি সুপারভাইজারের কাছ থেকে ডেঙ্গুর বাহক এইডিস মশা, তার প্রজনন স্থল, ঘনত্ব, ডেঙ্গু রোগী ইত্যাদি সমস্ত তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করবেন। তার ওয়ার্ডে ডেঙ্গু রোগীর চিকিৎসা খবরাখবর রাখবেন। তিনি তার আঞ্চলিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কাছে নিয়মিত মাসিক সভায় প্রতিবেদন দাখিল করবেন।

আইন প্রণয়ন এবং বাস্তবায়ন: পৃথিবীতে কোন নাগরিকের সম্পৃক্ততা ছাড়া মশা নিয়ন্ত্রণ করা কখনোই সম্ভব নয়। নাগরিকদেরকে মশা নিয়ন্ত্রণে সম্পৃক্ত করার জন্য পৃথিবীতে বিভিন্ন দেশে আইন রয়েছে। সেরকম একটি আইন বাংলাদেশে তৈরি করে তার বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন। কোন ব্যক্তি যেন তার নিজ জায়গায় মশার প্রজনন ক্ষেত্র তৈরি করে অপরের ক্ষতি করতে না পারে তা রোধ করাই এই আইনের উদ্দেশ্য।

মশা নিয়ন্ত্রণে কীটনাশকের পর্যাপ্ততা: মশা নিয়ন্ত্রণে ব্যবহৃত কীটনাশক জনগণের হাতের নাগালে আনতে হবে। তেলাপোকা এবং ইদুর মারার কীটনাশক এর মত মশা নিয়ন্ত্রণের কীটনাশক মানুষের কাছে সহজলভ্য হতে হবে। যেন মানুষ সহজেই কীটনাশক কিনে তার বাড়ি এবং আশেপাশে ব্যবহার করতে পারে।

কীটনাশক রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সহজীকরণ: আমাদের দেশে একটি কীটনাশক বাজারজাত করতে গেলে যে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া রয়েছে সেটিতে দীর্ঘসূত্রিতা দেখা যায়। একটি কীটনাশক রেজিস্ট্রেশন এর জন্য আবেদন করার পরে সর্বোচ্চ মাসের মধ্যে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা প্রয়োজন।

মশক নিয়ন্ত্রণ বা ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ কাজটি সুচারুরূপে সম্পন্ন করার জন্য নিম্নলিখিত কমিটি করা যেতে পারে:

কেন্দ্রীয় কমিটি, কমিটির সদস্য: মেয়র, উপদেষ্টা বা পরামর্শক, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা, উপ প্রধান স্বাস্থ্যকর্মকর্তা, স্বাস্থ্যকর্মকর্তা,আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা, কীটতত্ত্ববিদ, জিআইএস এক্সপার্ট কাউন্সিলর।

কাজ: প্রতি দুই মাস অন্তর অন্তর ডেঙ্গু পরিস্থিতি মশক সমস্যা বিষয়ক মূল্যায়ন সভা। প্রতিটি ওয়ার্ডকে লিখিত আকারেপরবর্তী দিকনির্দেশনা প্রদান। মশা নিয়ন্ত্রণে কীটনাশকলোকবল, এবং সরঞ্জামাদি নিশ্চিত করা।

জি আই এস টিম, কমিটির সদস্য: প্রধান জিআইএস এক্সপার্ট, কীটতত্ত্ববিদ,স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

কাজ: স্বাস্থ্যকর্মীরা যে তথ্য উপাত্ত অ্যাপে এন্ট্রি দিচ্ছে তা নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ ম্যাপে রূপান্তর। ডেঙ্গুর হট স্পট নির্ধারণ। হটস্পট অনুযায়ী ্যাপিড রেসপন্স টিমের কাছে বাড়ির ঠিকানা তথ্য উপাত্ত সরবরাহ করা। ্যাপিড রেসপন্স টিমের কার্যক্রম নিশ্চিত করা।

মনিটরিং এন্ড ইভালুয়েশন টিম, কমিটির সদস্য: এটি সিটি কর্পোরেশনের বাইরের কোন অভিজ্ঞ কীটতত্ত্ববিদ বা প্রতিষ্ঠান দিয়ে করিয়ে নিতে হবে।

কাজ: দুই মাস অন্তর অন্তর প্রতিটি ওয়ার্ডের ডেঙ্গু পরিস্থিতি মশক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ মূল্যায়ন করবেন। প্রতিটি ওয়ার্ডের মশার ঘনত্ব ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ইত্যাদি নিয়ে গবেষণা করবেন। তাদের মূল্যায়ন প্রতিবেদন অনলাইনে এন্ট্রি করবেন। এতে স্পষ্ট হবে প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে যে কার্যক্রম করা হয়েছে সেটি আসলে ফলাফল দিয়েছে কিনা। ওয়ার্ড কমিটির কার্যক্রম কতটা ফলপ্রসু হলো তা এই মনিটরিং এন্ড ইভালুয়েশন টীম এর তথ্য উপাত্ত থেকে তুলনামূলক চিত্র পাওয়া যাবে  এবং এটি সরাসরি অনলাইনে দেখা যাবে। মনিটরিং এন্ড ইভালুয়েশন টিম তাদের মূল্যায়ন প্রতিবেদন কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সরবরাহ করবে এবং এই প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে কেন্দ্রীয় কমিটির পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

র‍্যাপিট রেসপন্স টিম, কমিটির সদস্য: কীটতত্ত্ববিদ,মশক সুপারভাইজার, স্প্রেম্যান, ফগারম্যান, ক্লিনার, ড্রাইভার।

কাজ: জিআই স্টিমের তথ্য উপাত্ত অনুযায়ী কোথাও ডেঙ্গুর রোগী পাওয়া গেলে সেই বাড়ির ৪০০ গজের মধ্যে উড়ন্ত মশা নিধন নিশ্চিত করা। কোথাও এইডিস মশার ঘনত্ব বেশি পাওয়া গেলে সেইখানেও মশা নিধন নিশ্চিত করা। তাদের কার্যক্রম সম্পন্ন করে মোবাইল অ্যাপে এন্ট্রি দেওয়া।

আঞ্চলিক কমিটি, কমিটির সদস্য: সিটি কর্পোরেশনের প্রতিটি অঞ্চলে একটি করে আঞ্চলিক কমিটি থাকতে হবে। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা,কীটতত্ত্ববিদ,মশক সুপারভাইজার।

কাজ: তার অঞ্চলে মশক নিধন কার্যক্রম তদারকি করা। কেন্দ্রীয় কমিটিকে অবহিত করা। প্রতি দুই মাস অন্তর অন্তর প্রতিটি ওয়ার্ডের ডেঙ্গু পরিস্থিতি মশক সমস্যা বিষয়ক মূল্যায়ন সভা। প্রতিটি ওয়ার্ডকে লিখিত আকারেপরবর্তী দিকনির্দেশনা প্রদান। মশা নিয়ন্ত্রণে তার অঞ্চলে কীটনাশক, লোকবল, এবং সরঞ্জামাদি নিশ্চিত করা।

ওয়ার্ড কমিটি, কমিটির সদস্য: সিটি কর্পোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে ওয়ার্ড কমিটি থাকতে হবে। কাউন্সিলর, সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা,মশক সুপারভাইজার।

কাজ: তার ওয়ার্ডে মশক নিধন কার্যক্রম তদারকি করা। আঞ্চলিক কমিটিকে অবহিত করা। প্রতি মাসে ডেঙ্গু পরিস্থিতি মশক সমস্যা বিষয়ক মূল্যায়ন সভা। মশক সুপারভাইজার কে লিখিত আকারেপরবর্তী দিকনির্দেশনা প্রদান। মশা নিয়ন্ত্রণে তার ওয়ার্ডে কীটনাশক, লোকবল, এবং সরঞ্জামাদি নিশ্চিত করা।

কাজগুলোকে বাস্তবায়নের জন্য অভিজ্ঞ কীটতত্ত্ববিদ দিয়ে আধুনিক এবং সময় উপযোগী গাইডলাইন তৈরি করে নিতে হবে। মশা নিয়ন্ত্রণের আধুনিক সরঞ্জামাদি এবং আধুনিক কীটনাশক নির্দেশিকা এই গাইডলাইন থাকবে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সারা দেশের মশা এবং অন্যান্য বাহক নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি স্বতন্ত্র সেন্টার তৈরি করতে পারে। যেটির নাম হতে পারে বাংলাদেশ ভেক্টর কন্ট্রোল রিসার্চ সেন্টার। এই সেন্টারের মাধ্যমে সারা বাংলাদেশের মশা এবং অন্যান্য বাহক নিয়ন্ত্রণ হতে পারে। এই সেন্টারে বছরব্যাপী মশা, অন্যান্য বাহক কীটনাশক নিয়ে গবেষণা হবে এবং তারাই নির্দেশনা দিবে কখন কোন কীটনাশক কোন বাহক এর জন্য ব্যবহৃত হবে। বাহকের আচরণ এবং নতুন নতুন বাহক এর ক্ষেত্রে কি ধরনের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে সেটির দায়িত্ব তাদের উপর থাকবে। এই সেন্টারে অভিজ্ঞ কীটতত্ত্ববিদ নিয়োগ দিতে হবে। এই সেন্টার দেশব্যাপী মশা অন্যান্য বাহক নিয়ন্ত্রণের অভিভাবক হিসেবে কাজ করবে। এই প্রতিষ্ঠান অভিজ্ঞ কীটতত্ত্ববিদদের মাধ্যমে স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন সেক্টরের জনপ্রতিনিধি কর্মকর্তাদেরকে বাহকের আচরণ, প্রজনন এবং নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা সম্পর্কে ব্যবহারিক প্রশিক্ষণ প্রদান করবে।  সাথে সাথে মশা নিয়ন্ত্রণের আধুনিক সরঞ্জাম কীটনাশক সরবরাহ করবে।

ডেঙ্গু যেহেতু এখন সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই তাই স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অঙ্গ প্রতিষ্ঠানগুলোকে মশক নিধনে যুগোপযোগী করে তুলতে হবে। ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ এবং জেলা পরিষদ প্রতিটি জায়গায় তাদের মশক নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সক্ষমতা বাড়াতে হবে।

প্রতিটি জেলাতে জেলা কীটতত্ত্ববিদ এর একটি পদ রয়েছে। কোন কোন জেলাতে এপদে কর্মকর্তা রয়েছে। যেসব জেলাতে পদগুলি ফাঁকা রয়েছে সেসব জেলাতে এই পথ গুলো পূরণ করে এই মশা নিয়ন্ত্রণ কাজ জোরদার করা প্রয়োজন।

এই মুহূর্তে ডেঙ্গু পরিস্থিতি নাজুক। আগামী দুটি মাস পরিস্থিতি খারাপ থাকবে। তাই এই মুহূর্তে একে অপরকে দোষারোপ না করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন অঙ্গ প্রতিষ্ঠান এবং জনগণকে যার যার অবস্থান থেকে নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে।

ডেঙ্গু পরিস্থিতি ভালো হয়ে গেলে নীতি নির্ধারকরা ভুলে যাবেন না। আগামী বছরগুলোর জন্য একটি টেকসই পরিকল্পনা তৈরি করার জন্য উদ্যোগী হবেন নিশ্চয়ই।


জাহাঙ্গীরনগর   প্রাণিবিদ্যা   মশা   গবেষক   অধ্যাপক ড. কবিরুল বাশার  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড টক

কোরবানিতে পশুর কোন সংকট হবে না: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ১৪ মে, ২০২৪


Thumbnail

আগামী কোরবানি ঈদে চাহিদার তুলনায় গবাদি পশুর যোগান বেশি আছে, ফলে পশুর কোনো সংকট হবে না বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী আব্দুর রহমান। তিনি বলেন, আমাদের পরিসংখ্যান অনুযায়ী এক কোটি ৩০ লাখের বেশি পশু রয়েছে।  

মঙ্গলবার (১৪ মে) সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এ কথা বলেন মন্ত্রী।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, চাহিদার তুলনায় কোরবানির পশু বেশি আছে। সুতরাং এটি নিয়ে বিভ্রান্তি হওয়ার কোন কারণ নেই। হতাশা হওয়ারও কোন কারণ নেই। আমরা আমাদের উৎপাদিত গবাদি পশু দিয়েই কোরবানির চাহিদা মেটাতে পারব। 

তিনি বলেন, কেউ একটা গরু মোটা অংকের টাকা দিয়ে কেনে সে যেমন কোরবানি দিয়ে ধর্মীয় অনুশাসন পালন করে তেমনি অন্যদিকে তার একটা সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধিরও বিষয় বা ক্ষেত্র তৈরি করতে চায়। সুতরাং মোটাতাজা গরুর যেমন চাহিদা আছে আবার ছোট বা মাঝারি গরুরও আলাদা একটা চাহিদা আছে। এবং সেভাবে আমাদের প্রস্তুতিও আছে। আমি মনে করি ক্রেতাদের কাউকে বিমুখ হয়ে ফেরত যেতে হবে না। মানুষের চাহিদা মতো এবার আমাদের গবাদি পশু প্রস্তুত আছে।

কোরবানি পশু দাম বৃদ্ধির জন্য সিডিকেন্ট একটি কারণ উল্লেখ্য করে আব্দুর রহমান বলেন, সিডিকেন্ট একটা ব্যাধির মতো। এটি বন্ধ করতে যে জায়গা গুলো চিহ্নিত করার প্রয়োজন সেটি হলো পথে পথে চাঁদাবাজি বন্ধ হওয়া, হাট বাজারে হাসিল নিয়ে নানা ধরনের বিষয়াদি থাকে। গরুর বেপারীদের হয়রানির বিষয় থাকে। এগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য আমরা আন্ত:মন্ত্রণালয় একটা বৈঠক খুব শিগগিরই করবো। এ নিয়ে আমরা ১৬ তারিখে খামারিদের নিয়ে বসবো। এই সমস্যাগুলো নিরসন করতে কী ধরনের উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে সে বিষয়গুলো নিয়ে তাদের সাথে আলাপ করবো।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে এখন অনলাইনে গবাদি পশু কেনাবেচার প্রবণতা বা আগ্রহের বিষয়টি বাড়ছে। এটি আমরা কীভাবে আরও উৎসাহিত করতে পারি এবং ঝামেলামুক্ত করতে পারি সেটা নিয়েও আমাদের আলাদা পরিকল্পনা রয়েছে। অনেকে পরিবার সহ গরু কিনতে যেতে পছন্দ করেন আবার কেউ কেউ আছেন যারা এটাকে ঝামেলা মনে করে অনলাইন পাঁচটি গরু দেখে পরে একটা পছন্দ করে কেনেন। সুতরাং পুরো বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রণালয় আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে।



মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন