লিট ইনসাইড

আবুল হাসনাৎ মিল্টনের ‘নুসরৎ’ উপন্যাস প্রাত্যহিকের অনুপুঙ্খ সন্ধান

প্রকাশ: ১২:৩৬ পিএম, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

“এবারকার গল্প বানাতে হবে এ-যুগের কারখানা-ঘরে।” চোখের বালি-র সূচনায় বলেছিলেন রবীন্দ্রনাথ। আবুল হাসনাৎ মিল্টনের পাঞ্জেরী পাবলিকেশন থেকে প্রকাশিত উপন্যাস পড়তে গিয়ে একথা বলা চলে যে  ‘যুগের কারখানা-ঘর’ থেকেই এর সৃষ্টি। সময়, তার গায়ে লেপ্টে থাকা সামাজিক, ব্যক্তিগত ও চিন্তন জগতের ক্ষত আর ভাঙনের গল্প নিয়েই লেখকের এই সৃষ্টি। ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ করেছিলেন। ২০১৯ সালের ২৭ মার্চ অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা নুসরাতকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে এবং এই পরিপ্রেক্ষিতে অধ্যক্ষ এর বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগে মামলা করা হয়।  ৬ এপ্রিল ২০১৯ সকালে অধ্যক্ষ তার অনুসারীদের হত্যার প্ররোচণা দিয়ে নির্দেশনা প্রদান করে।  নুসরাত এর ভাষ্য মতে  মাদ্রাসার তিনতলায় তাকে নিয়ে গিয়ে হাত মোজা, পা মোজাসহ বোরকা পরিহিত ৪-৫ জন তাকে অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে মামলা ও অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। রাজি না হওয়ায় তারা নুসরাতের মুখ চেপে ধরে ও ওড়না দিয়ে নুসরাতের পা বাঁধে, তারপরে কেরোসিন তেল গ্লাসে করে নিয়ে নুসরাতের শরীরে ঢেলে নুসরতের শরীরে আগুন দেয়। নুসরাতের শরীরের ৮০% শতাংশই ঝলসে গিয়েছিল। ১০ এপ্রিল ২০১৯ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নুসরাত এর মৃত্যু ঘটে। এই ঘটনার ক্ষত এখনও মোছে নি বাংলাদেশের বুক থেকে। এই প্রেক্ষিত লেখক বেছে নিয়েছেন তার উপন্যাসের প্রেক্ষাপট হিসেবে। যদিও তিনি প্রথমেই বিধিসম্মত সতর্কীকরণ উল্লেখ করেছেন - এই উপন্যাসের সব চরিত্র কাল্পনিক। কিন্তু উৎসর্গপত্রে লিখেছেন - অন্যায়ের বিরূদ্ধে আমৃত্যু প্রতিবাদী নুসরাত জাহান রাফিকে।

এবার আসি উপন্যাসে। “তিনি শুধু কাঁদাতে পারেন, ভাবাতে পারেন না”— শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সম্পর্কে এই নালিশ তখনকার পাঠকদের ছিল। কিন্তু চোখের জলে ভেসে সাহিত্যের আঙিনায় পা রাখা ঔপন্যাসিকের সংখ্যা কম নয়। এই পরিচিত পথে পাঠক হেঁটে চলেছে বহু প্রজন্ম। কিন্তু আবুল হাসনাৎ মিল্টন নতুন শিক্ষার অভিঘাতে সমাজ-সংসারে আলোড়নের ছবি এঁকে একদিকে পাঠককে কাঁদিয়েছেন, আবার তথাকথিত এলিটদের ভাবিয়েছেন। তাঁর লিখন, শিল্পের সঙ্গে রাজনৈতিক সচেতনতার মেলবন্ধনের যথার্থ উদাহরণ। সত্যের উদ্ভাস সেই লিখনকে আরও শক্তিশালী করে তোলে। অত্যন্ত গতিময় এই উপন্যাসের এক উজ্জ্বল দিক হল এর সংলাপ। এই সংলাপই পাঠকের সামনে মাদ্রাসা নামক শিক্ষাক্ষেত্রের যে সাংগঠনিক তথ্য তুলে ধরে, তার সঙ্গে বেশির ভাগ মানুষেরই সম্যক পরিচয় নেই। গল্পের প্রেক্ষিত যেহেতু বর্ণনা করেছি তাই মূল গল্প পাঠক বইটি কিনে পড়ে নেবেন আশা রাখি। কিন্তু কয়েকটি মুন্সীয়ানার কথা না বললেই নয়। তেরো অধ্যায়ে বিভক্ত উপন্যাসের অধ্যায়কে তিনি উপবিভাজিত করেছেন সেটা উপন্যাস লেখায় পাকা হাত ছাড়া সম্ভব নয়। একই সাথে তার রাজনৈতিক বিশ্বাস প্রতিফলিত হয়েছে তার উপন্যাসে। তিনি লিখছেন – ‘বাংলাদেশ সরকার তাদের ঠাঁই দিয়েছে। এ জন্য তারা সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞ। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের কাছে মায়ের মতন।‘ রাজনৈতিক মতের অনুপ্রবেশ যে কোন উপন্যাসকে একদেশদর্শী করে তোলে। এখানে সাবধানতা নেওয়া ভাল। যদিও তিনি সরকারীদলের স্থানীয় নেতার সাথে মাদ্রাসা অধ্যক্ষের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বৈষয়িক আঁতাতের কথা নিপুনভাবে তুলে ধরেছেন। সম্পূর্ণ বিপরীতধর্মী রাজনৈতিক আদর্শের দুজনের মানুষের স্বার্থের ঐক্য বর্তমান বাংলাদেশের বাস্তবতাও। লেখক হিসেবে তার এই নির্মোহ অবস্থান প্রশংসনীয়। সাংবাদিকের আদর্শ ভূমিকার কথা সোচ্চারে বর্ণনা করেছেন লেখক। এত বজ্জাতি, বাস্তবতা এবং গদ্যশৈলীর জাদু নিয়ে শেষ অবধি এ এক চমৎকার উপন্যাস। মুসলমান সমাজ ও জীবনের বৈষয়িক, আধ্যাত্মিক ও একই সঙ্গে প্রাত্যহিকের অনুপুঙ্খ সন্ধান এই উপন্যাস। দুই বাংলার কথা মাথায় রেখেই দাবি করা যায়, এমন উপন্যাস দুর্লভ। মিল্টন প্রধানত কবি, তবে তাঁর গদ্যের হাতও দুর্দান্ত। সেটাও পুনর্বার প্রতিফলিত হল ‘নুসরাত’ উপন্যাসে। বইটা পড়া শুরু করলে শেষ না করে ওঠা ভার। যেমন গল্পের গাঁথুনি, তেমনি ভাষার প্রাঞ্জলতায় সমৃদ্ধ এবারের বইমেলার অন্যতম উপন্যাস ‘নুসরাত’।

আমি ‘নুসরাত’ উপন্যাসটির বহুল প্রচার কামনা করছি।



মন্তব্য করুন


লিট ইনসাইড

কবিতা

প্রকাশ: ০২:০৩ পিএম, ২৩ মার্চ, ২০২৪


Thumbnail




মন্তব্য করুন


লিট ইনসাইড

বিশ্বের সেরা এবং আকর্ষণীয় পাচ মসজিদ

প্রকাশ: ১১:০২ এএম, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

বিশ্বের এমন পাঁচটি মসজিদ সম্পর্কে জেনে নিন:


১. মসজিদুল হারাম, মক্কা, সৌদি আরব:

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মানুষ দেখতে যায়, এমন মসজিদের তালিকায় সবার প্রথমে আছে পবিত্র নগরী মক্কার মসজিদুল হারাম। প্রতিবছর প্রায় ৮০ লাখ মানুষ এই মসজিদে যান। এটিই বিশ্বের সবচেয়ে বড় মসজিদ। একসঙ্গে ১৫ লাখ মানুষ এখানে প্রবেশ করে ঘুরে দেখতে পারেন। মুসলমানদের কাছে সবচেয়ে পবিত্র তিন স্থানের একটি এই মসজিদুল হারাম। মুসলমানদের কিবলা পবিত্র কাবাশরিফ এখানেই অবস্থিত।

তবে যে কেউ চাইলেই মসজিদুল হারামে প্রবেশ করতে পারেন না। অমুসলিমদের জন্য মক্কা নগরীতে প্রবেশ পুরোপুরি নিষিদ্ধ।


২. শেখ জায়েদ মসজিদ, আবুধাবি, সংযুক্ত আরব আমিরাত:

২০০৭ সালে স্থাপিত এই মসজিদ পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মসজিদগুলোর একটি। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ঝাড়বাতি ও সবচেয়ে বড় গালিচাও আছে এই মসজিদে।

আরব আমিরাতে বসবাসকারীদের বেশির ভাগই প্রবাসী, যাঁরা মূলত শ্রমজীবী হিসেবে বিভিন্ন দেশ থেকে সেখানে যান। এই বৈচিত্র্যময়তাই মসজিদটির নকশার মূল ভিত্তি। ব্রিটিশ, ইতালীয় ও আমিরাতি স্থপতিরা মিসর, মরক্কো, তুরস্ক, পাকিস্তানসহ বিশ্বের বিভিন্ন মুসলিম দেশের মসজিদের নকশা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে শেখ জায়েদ মসজিদের নকশা এঁকেছেন।

প্রতিবছর মসজিদটি দেখতে প্রচুর দর্শনার্থী আসেন। শুধু ২০১৭ সালেই এসেছেন প্রায় ৫৮ লাখ দর্শনার্থী। নামাজের সময় ছাড়া অন্য সময় অমুসলিম দর্শনার্থীরাও মসজিদ ঘুরে দেখতে পারেন। তবে শুক্রবার অমুসলিম দর্শনার্থীদের এই মসজিদে প্রবেশ নিষেধ।


৩. আয়া সোফিয়া, ইস্তাম্বুল, তুরস্ক:

ইউরোপের সবচেয়ে আকর্ষণীয় শহরগুলোর একটি তুরস্কের রাজধানী ইস্তাম্বুল। আর ইস্তাম্বুল বা গোটা ইউরোপের অন্যতম সুন্দর মসজিদ আয়া সোফিয়া। ৩৬০ খ্রিষ্ট-পূর্বাব্দে স্থাপিত এ স্থাপনা শুরুতে মসজিদ ছিল না। ১৪৬৩ সালে সুলতান মেহমেদ এটিকে মসজিদ হিসেবে স্বীকৃতি দেন।

১৯৩৪ সালে এটিকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করে তৎকালীন তুরস্ক সরকার। কিন্তু ২০২০ সালে তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান এটিকে আবার নামাজ আদায়ের জন্য মুসল্লিদের কাছে উন্মুক্ত করে দেন। ১৯৮৫ সালে আয়া সোফিয়াকে বিশ্ব ঐতিহ্যর স্বীকৃতি দেয় ইউনেসকো।


৪. আল–আকসা মসজিদ, পূর্ব জেরুজালেম, ইসরায়েল:

মুসলিম স্থাপত্যশৈলীর শুরুর দিককার অন্যতম নিদর্শন জেরুজালেমের আল–আকসা মসজিদ।

বলা হয়ে থাকে, খোলাফায়ে রাশিদিনের অন্যতম খলিফা হজরত উমর (রা.)–র শাসনামলে ৬৩৭ খ্রিষ্টাব্দে শুরু হয় মসজিদটির নির্মাণকাজ। তবে বর্তমানে আল-আকসা বলতে পুরো চত্বরটাকেই বোঝানো হয়। ‘হারাম আল শরিফ’ নামে পরিচিত এই চত্বরের চার দেয়ালের মধ্যে আছে কিবলি মসজিদ, কুব্বাতুস সাখরা (ডোম অব দ্য রক) ও বুরাক মসজিদ। মূল আল–আকসা বা কিবলি মসজিদ হলো ধূসর সীসার পাতে আচ্ছাদিত গম্বুজওয়ালা একটি স্থাপনা। তবে পর্যটকের কাছে আল–আকসা নামে বেশি প্রসিদ্ধ সোনালি গম্বুজের স্থাপনা কুব্বাতুস সাখরা।

জেরুজালেমের সবচেয়ে দৃষ্টিনন্দন এই মসজিদ ইউনেসকোর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানের তালিকায় উঠে আসে ১৯৮১ সালে। এখানে প্রায় চার লাখ মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারেন । তবে ২০২৩ সালের অক্টোবর থেকে দখলকৃত পূর্ব জেরুজালেমে অবস্থিত আল-আকসা মসজিদ বন্ধ করে দিয়েছে ইসরায়েলি পুলিশ। কোনো মুসল্লিকে তারা মসজিদ প্রাঙ্গণে ঢুকতে দিচ্ছে না। পবিত্র স্থানটির দায়িত্বে থাকা ইসলামিক ওয়াক্‌ফ বিভাগ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।


৫. দ্বিতীয় হাসান মসজিদ, কাসাব্লাঙ্কা, মরক্কো:

আলজেরিয়ার জামা এল জাযের মসজিদের মিনার সবচেয়ে উঁচু, ৮৭০ ফুট। তারপরেই কাসাব্লাঙ্কার দ্বিতীয় হাসান মসজিদের মিনার, উচ্চতা ৬৮৯ ফুট। মরক্কোর বাদশাহ দ্বিতীয় হাসানের তত্ত্বাবধানে নির্মিত মসজিদটির নকশাকার ফরাসি স্থপতি মিশেল পিনসু।

আটলান্টিক মহাসাগরের একটি শৈলান্তরীপের মাথায় মসজিদটির অবস্থান। মেঝের একটা অংশ স্বচ্ছ কাচের বলে আটলান্টিকের নীল পানি দেখতে পান নামাজে যাওয়া মুসল্লিরা। দেয়ালে মার্বেলের চোখধাঁধানো কারুকাজ। ছাদ অপসারণযোগ্য বলে নামাজ পড়তে যাওয়া মুসল্লিরা রাতের আকাশও দেখতে পান।

দ্বিতীয় হাসান মসজিদের মিনার থেকে একটি লেজাররশ্মি মুসলমানদের কিবলা কাবাঘরের দিকে তাক করা। অনন্য স্থাপত্যশৈলীর জন্য জগৎ–খ্যাত এই মসজিদে একসঙ্গে ১ লাখ ৫ হাজার মুসল্লির নামাজ আদায় করার সুবিধা আছে।


মসজিদ   সেরা  


মন্তব্য করুন


লিট ইনসাইড

মুখের ঠিকানা

প্রকাশ: ১২:১৬ পিএম, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪