লিট ইনসাইড

বাজারে এলো মেজর নাসিরের নতুন দু’টি বই

প্রকাশ: ০৬:২৪ পিএম, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

ছোট বেলা থেকেই লেখালেখির অভ্যাস থাকলেও মেজর নাসির উদ্দিন আহমেদ (অব:) পিএইচডি পত্র-পত্রিকায় নিয়মিত লিখছেন প্রায় দুই যুগ হলো। তবে বইয়ের জগতে এই প্রথম। জিনিয়াস পাবলিকেশন্স এবারের বই মেলায় তাদের ২০ নম্বর প্যাভিলিয়ন থেকে প্রকাশ করেছে হালের এই কলম যোদ্ধার দু’টি বই, ২২৪ পৃষ্ঠার ‘মুসলিম বিশ্বের বিচিত্র ইতিহাস’ ও ২০৮ পৃষ্ঠার ‘বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও রাজনীতি’। বই দু’টিরই প্রচ্ছদ করেছেন বাংলা একাডেমি পদক প্রাপ্ত বিখ্যাত প্রচ্ছদ শিল্পী ধ্রুব এষ, ছাপার মান  আকর্ষণীয় এবং উন্নত মানের। আকারেও যৌক্তিক। 

‘মুসলিম বিশ্বের বিচিত্র ইতিহাস’ : ইসলামিক এই বইটি হাতে তুলে নিয়ে যেন আলাদা রকমের অনুভূতি আসে, যা মন কে  নিয়ে যায় আধ্যাতিক জগতের দোর গোঁড়ায়। যথাযথ সূত্র উল্লেখ করে বিভিন্ন যুগে মুসলিম বিশ্বের বিচিত্র বিষয় বইটিতে সাবলীলভাবে  উপস্থাপনায় লেখকের অভিনবত্ব প্রশংসার দাবি রাখে। আদ্যপ্রান্ত বইটি পড়ে একবারও মনে হয়নি বইয়ের জগতে লেখকের প্রথম প্রচেষ্টা এটি। মুসলমানদের নির্দিষ্ট কিছু বিষয়ের ইতিহাস আর ঐতিহ্যকে সহজ ও আকর্ষণীয় ভাষায় তুলে ধরতে কোনো নিদৃষ্ট গন্ডিতে থাকেন নি লেখক, বরং পুবের বরফ আচ্ছাদিত উজবেকিস্তান থেকে ছুটে গেছেন পশ্চিমের  তপ্ত মরুর বুকে। কখনো করেছেন কালো হয়েও উজ্জ্বল জগৎখ্যাত মুসলমানদের সন্ধান। অনেক  ক্ষেত্রেই তুলে এনেছেন প্রচলিত ধারার পাশাপাশি কম জানা বা অজানা তথ্য, যা  পাঠকের জ্ঞানের ভান্ডার কে অনেক খানি বাড়িয়ে দেয় অনায়াসেই। হাদিস কিংবা মাজহাব নিয়ে কম বেশি অনেকেই জানি ।  তবে  হাদিস সংগ্রহ বং মাজহাব সৃষ্টির পেছনেও যে কোনো কত ঘটন - অঘটন  থাকতে পারে, তা এই বইটিতে প্রথম নজরে পড়ল। কাবার বন্ধ কপাট, কোরান ও হাদিসে বর্ণিত বৃক্ষ, মহানবী (সা:) কে নিয়ে অমুসলিম মনীষীদের প্রশংসাসহ বইটিতে মোট ২৫ টি অতিপ্রাকৃত বর্ণনা রয়েছে। সহজ অথচ আকর্ষণীয় ভাষায় সূত্রসহ মুসলিম বিশ্বের এমন বিচিত্র বিষয়ের  বর্ণনা বাংলা ও ইসলামিক সাহিত্যে সম্পদ হয়ে থাকবে।



‘বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও রাজনীতি’ : বাঙালি আর বাংলাদেশের অস্তিত্বের  সমার্থক ‘বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও রাজনীতি। আর এই তিন শব্দকেই নাম নির্বাচক করে গল্পের আকারে লেখা বই ‘বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও রাজনীতি। মেজর নাসির উদ্দিন আহাম্মেদ (অব:) পিএইচডি'র পরিচিতি  যুদ্ধ, সংঘাত আর রাজনীতি নিয়ে পত্র পত্রিকায় বাংলা ও ইংরেজিতে বিশ্লেষণ বা ফিচার  লেখারর জন্য। তিনি টেলিভশন ও অনলাইন মাধ্যমে টকশোর জন্যও খ্যাত। মুক্তিযুদ্ধের নানা  বিষয় গবেষণায় তিনযুগ ধরে কাজ করছেন।
  
‘বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও রাজনীতি’ গ্রন্থে লেখক একাত্তরের সেনানিবাস ও রণাঙ্গণের শ্বাসরুদ্ধকর সময়কে তুলে এনেছেন মুক্তিযোদ্ধাদের সাক্ষাৎকার ও ব্যাপক গবেষণের ভিত্তিতে। দীর্ঘ ২৩ বছরের শোষণ-বঞ্চনার অনিবার্য পরিণতি ছিল একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ। ১৯৭১ সালের ১ মার্চ থেকে উত্তাল হতে থাকে পূর্ব বাংলা। ৭ ই মার্চ জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু  শেখ মুজিবর রহমানের এক ভাষণেই পাল্টে যায় ইতিহাস নামক নদীর গতিপথ। আবার ১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্ট সেই নদী পথ হারায়। পাতানো নির্বাচন, ক্যাসিনো, খেলা হবে -  এমন দুষ্ট আবর্ত ডুবোচরেরমতো বাধাগ্রস্থ করে স্বাভাবিক রাজনৈতিক প্রবাহ। সেসব দিনের কাহিনি ও সমসাময়িক প্রাসঙ্গিক তথ্য গল্পের মতো তুলে ধরেছেন মেজর নাসির। এক মলাটে তিনটি বিষয়ের এমন অবতারণা সচরাচর দেখা যায় না।

বঙ্গবন্ধু   মুক্তিযুদ্ধ ও রাজনীতি   নাসির উদ্দিন আহমেদ   বইমেলা  


মন্তব্য করুন


লিট ইনসাইড

কবিতা

প্রকাশ: ০২:০৩ পিএম, ২৩ মার্চ, ২০২৪


Thumbnail




মন্তব্য করুন


লিট ইনসাইড

বিশ্বের সেরা এবং আকর্ষণীয় পাচ মসজিদ

প্রকাশ: ১১:০২ এএম, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

বিশ্বের এমন পাঁচটি মসজিদ সম্পর্কে জেনে নিন:


১. মসজিদুল হারাম, মক্কা, সৌদি আরব:

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মানুষ দেখতে যায়, এমন মসজিদের তালিকায় সবার প্রথমে আছে পবিত্র নগরী মক্কার মসজিদুল হারাম। প্রতিবছর প্রায় ৮০ লাখ মানুষ এই মসজিদে যান। এটিই বিশ্বের সবচেয়ে বড় মসজিদ। একসঙ্গে ১৫ লাখ মানুষ এখানে প্রবেশ করে ঘুরে দেখতে পারেন। মুসলমানদের কাছে সবচেয়ে পবিত্র তিন স্থানের একটি এই মসজিদুল হারাম। মুসলমানদের কিবলা পবিত্র কাবাশরিফ এখানেই অবস্থিত।

তবে যে কেউ চাইলেই মসজিদুল হারামে প্রবেশ করতে পারেন না। অমুসলিমদের জন্য মক্কা নগরীতে প্রবেশ পুরোপুরি নিষিদ্ধ।


২. শেখ জায়েদ মসজিদ, আবুধাবি, সংযুক্ত আরব আমিরাত:

২০০৭ সালে স্থাপিত এই মসজিদ পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মসজিদগুলোর একটি। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ঝাড়বাতি ও সবচেয়ে বড় গালিচাও আছে এই মসজিদে।

আরব আমিরাতে বসবাসকারীদের বেশির ভাগই প্রবাসী, যাঁরা মূলত শ্রমজীবী হিসেবে বিভিন্ন দেশ থেকে সেখানে যান। এই বৈচিত্র্যময়তাই মসজিদটির নকশার মূল ভিত্তি। ব্রিটিশ, ইতালীয় ও আমিরাতি স্থপতিরা মিসর, মরক্কো, তুরস্ক, পাকিস্তানসহ বিশ্বের বিভিন্ন মুসলিম দেশের মসজিদের নকশা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে শেখ জায়েদ মসজিদের নকশা এঁকেছেন।

প্রতিবছর মসজিদটি দেখতে প্রচুর দর্শনার্থী আসেন। শুধু ২০১৭ সালেই এসেছেন প্রায় ৫৮ লাখ দর্শনার্থী। নামাজের সময় ছাড়া অন্য সময় অমুসলিম দর্শনার্থীরাও মসজিদ ঘুরে দেখতে পারেন। তবে শুক্রবার অমুসলিম দর্শনার্থীদের এই মসজিদে প্রবেশ নিষেধ।


৩. আয়া সোফিয়া, ইস্তাম্বুল, তুরস্ক:

ইউরোপের সবচেয়ে আকর্ষণীয় শহরগুলোর একটি তুরস্কের রাজধানী ইস্তাম্বুল। আর ইস্তাম্বুল বা গোটা ইউরোপের অন্যতম সুন্দর মসজিদ আয়া সোফিয়া। ৩৬০ খ্রিষ্ট-পূর্বাব্দে স্থাপিত এ স্থাপনা শুরুতে মসজিদ ছিল না। ১৪৬৩ সালে সুলতান মেহমেদ এটিকে মসজিদ হিসেবে স্বীকৃতি দেন।

১৯৩৪ সালে এটিকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করে তৎকালীন তুরস্ক সরকার। কিন্তু ২০২০ সালে তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান এটিকে আবার নামাজ আদায়ের জন্য মুসল্লিদের কাছে উন্মুক্ত করে দেন। ১৯৮৫ সালে আয়া সোফিয়াকে বিশ্ব ঐতিহ্যর স্বীকৃতি দেয় ইউনেসকো।


৪. আল–আকসা মসজিদ, পূর্ব জেরুজালেম, ইসরায়েল:

মুসলিম স্থাপত্যশৈলীর শুরুর দিককার অন্যতম নিদর্শন জেরুজালেমের আল–আকসা মসজিদ।

বলা হয়ে থাকে, খোলাফায়ে রাশিদিনের অন্যতম খলিফা হজরত উমর (রা.)–র শাসনামলে ৬৩৭ খ্রিষ্টাব্দে শুরু হয় মসজিদটির নির্মাণকাজ। তবে বর্তমানে আল-আকসা বলতে পুরো চত্বরটাকেই বোঝানো হয়। ‘হারাম আল শরিফ’ নামে পরিচিত এই চত্বরের চার দেয়ালের মধ্যে আছে কিবলি মসজিদ, কুব্বাতুস সাখরা (ডোম অব দ্য রক) ও বুরাক মসজিদ। মূল আল–আকসা বা কিবলি মসজিদ হলো ধূসর সীসার পাতে আচ্ছাদিত গম্বুজওয়ালা একটি স্থাপনা। তবে পর্যটকের কাছে আল–আকসা নামে বেশি প্রসিদ্ধ সোনালি গম্বুজের স্থাপনা কুব্বাতুস সাখরা।

জেরুজালেমের সবচেয়ে দৃষ্টিনন্দন এই মসজিদ ইউনেসকোর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানের তালিকায় উঠে আসে ১৯৮১ সালে। এখানে প্রায় চার লাখ মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারেন । তবে ২০২৩ সালের অক্টোবর থেকে দখলকৃত পূর্ব জেরুজালেমে অবস্থিত আল-আকসা মসজিদ বন্ধ করে দিয়েছে ইসরায়েলি পুলিশ। কোনো মুসল্লিকে তারা মসজিদ প্রাঙ্গণে ঢুকতে দিচ্ছে না। পবিত্র স্থানটির দায়িত্বে থাকা ইসলামিক ওয়াক্‌ফ বিভাগ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।


৫. দ্বিতীয় হাসান মসজিদ, কাসাব্লাঙ্কা, মরক্কো:

আলজেরিয়ার জামা এল জাযের মসজিদের মিনার সবচেয়ে উঁচু, ৮৭০ ফুট। তারপরেই কাসাব্লাঙ্কার দ্বিতীয় হাসান মসজিদের মিনার, উচ্চতা ৬৮৯ ফুট। মরক্কোর বাদশাহ দ্বিতীয় হাসানের তত্ত্বাবধানে নির্মিত মসজিদটির নকশাকার ফরাসি স্থপতি মিশেল পিনসু।

আটলান্টিক মহাসাগরের একটি শৈলান্তরীপের মাথায় মসজিদটির অবস্থান। মেঝের একটা অংশ স্বচ্ছ কাচের বলে আটলান্টিকের নীল পানি দেখতে পান নামাজে যাওয়া মুসল্লিরা। দেয়ালে মার্বেলের চোখধাঁধানো কারুকাজ। ছাদ অপসারণযোগ্য বলে নামাজ পড়তে যাওয়া মুসল্লিরা রাতের আকাশও দেখতে পান।

দ্বিতীয় হাসান মসজিদের মিনার থেকে একটি লেজাররশ্মি মুসলমানদের কিবলা কাবাঘরের দিকে তাক করা। অনন্য স্থাপত্যশৈলীর জন্য জগৎ–খ্যাত এই মসজিদে একসঙ্গে ১ লাখ ৫ হাজার মুসল্লির নামাজ আদায় করার সুবিধা আছে।


মসজিদ   সেরা  


মন্তব্য করুন


লিট ইনসাইড

মুখের ঠিকানা

প্রকাশ: ১২:১৬ পিএম, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪