ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

বিশ্ববাজারে গম রপ্তানি নিষিদ্ধ করলো ভারত

প্রকাশ: ১০:২৪ এএম, ১৪ মে, ২০২২


Thumbnail

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্ববাজারে হু হু করে বাড়ছে সকল খাদ্যশস্যর দাম। যুদ্ধের কারণে ইউক্রেনের গম রপ্তানিতে বাধায় বেড়ে গেছে গমের মূল্য। যার আঁচ পড়েছে ভারতের বাজারেও। গম উৎপাদনে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম হলেও নিজেদের অভ্যন্তরীণ বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে এবার গম রপ্তানি নিষিদ্ধ করলো ভারত।  

শুক্রবার (১৩ মে) ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হয়েছে এ নিষেধাজ্ঞা। 

ভারত সরকার জানিয়েছে, যেসব রপ্তানি চালানের ক্রেডিট লেটার বিজ্ঞপ্তির আগে ইস্যু করা হয়েছে, শুধু সেগুলোর চালান যেতে দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে। খবর এনডিটিভির।

মূলত এপ্রিল মাসে গত আট বছরের মাঝে ভারতে বার্ষিক ভোক্তা মূল্যস্ফীতি ৭.৭৯ শতাংশে পৌঁছে, যার মাঝে খুচরা খাদ্য মূল্যস্ফীতি পৌঁছেছে ৮.৩৮ শতাংশে। নিজেদের খাদ্য যোগান ঠিক রাখতে এবং ভোক্তা পর্যায়ে দাম সহনীয় রাখতেই এই উদ্যোগ নিলো মোদি সরকার।  

যুদ্ধের কারণে ইউক্রেনের রপ্তানি বন্ধ আর রাশিয়ার ওপর পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞার কারণে সম্প্রতি বিশ্বব্যাপী ভারতীয় গমের চাহিদা বেড়েছে। ভারতের গম রপ্তানিকারকরা জানিয়েছেন, রাশিয়া-ইউক্রেনের বিকল্প হিসেবে অনেক ক্রেতাই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন।

কিন্তু স্থানীয় বাজারে গমের দাম ক্রমাগত বাড়তে থাকায় শেষপর্যন্ত রপ্তানি নিষিদ্ধ করলো ভারত সরকার। তাদের এ সিদ্ধান্তে ক্রেতা দেশগুলো আরও বড় সমস্যার সম্মুখীন হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ভারত বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম গম উৎপাদক হলেও রপ্তানিতে তাদের অংশ মাত্র এক শতাংশের মতো। পরিমাণ ও মূল্য উভয় দিক থেকে ভারতীয় গমের সবচেয়ে বড় ক্রেতা বাংলাদেশ।

২০২০-২১ অর্থবছরে ভারতের মোট গম রপ্তানির ৫৪ শতাংশই এসেছে বাংলাদেশে। ওই বছর ভারতীয় গমের শীর্ষ ১০ ক্রেতা ছিল বাংলাদেশ, নেপাল, সংযুক্ত আরব আমিরাত, শ্রীলঙ্কা, ইয়েমেন, আফগানিস্তান, কাতার, ইন্দোনেশিয়া, ওমান ও মালয়েশিয়া।

গম   রপ্তানি   ভারত  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

জি-২০ সম্মেলনে যাচ্ছেন পুতিন-শি জিনপিং, দেখা হতে পারে বাইডেনের সঙ্গে

প্রকাশ: ০৭:১৫ পিএম, ১৯ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail জি-২০ সম্মেলনে যাচ্ছেন পুতিন-শি জিনপিং, দেখা হতে পারে বাইডেনের সঙ্গে

চলতি বছরের নভেম্বরে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে জি-২০ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং যোগ দেবেন। ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। শুক্রবার (১৯ আগস্ট) রাশিয়ার সংবাদমাধ্যম আরটির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

উইদোদো বলেছেন, শি জিনপিং আসবেন। তাছাড়া প্রেসিডেন্ট পুতিনও আসবেন বলে নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন তিনি। ক্রেমলিন জানিয়েছে, পুতিন ও উইদোদো দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের পাশাপাশি খাদ্য নিরাপত্তা ইস্যুতে আলোচনা করেছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, উইদোদোর দাবি যদি সত্যি হয় তাহলে ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর এটাই হতে যাচ্ছে পুতিন ও শি জিনপিংয়ের সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সরাসরি সাক্ষাৎ। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেনেরও সেখানে যাওয়ার কথা রয়েছে।

জানা গেছে, সম্মেলনটিতে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কিকেও দাওয়াত দিয়েছে ইন্দোনেশিয়া। যদিও দেশটি জি২০-এর সদস্য নয়।


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

সুদানে ভয়াবহ বন্যায় নিহত ৭৭, বিধ্বস্ত বহু ঘরবাড়ি

প্রকাশ: ০২:০৬ পিএম, ১৯ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail সুদানে ভয়াবহ বন্যায় নিহত ৭৭, বিধ্বস্ত বহু ঘরবাড়ি

সুদানে ভারি বৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যায় ৭৭ জনের নিহত হয়েছে। এছাড়াও বন্যার কারণে সাড়ে ১৪ হাজারের বেশি ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। 

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) দেশটির জাতীয় কাউন্সিল সিভিল ডিফেন্সের মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল জলিল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ব্রিগেডিয়ার আব্দুল জলিল জানান, গত মে মাসে বর্ষাকাল শুরুর পর থেকে এতো মানুষের মৃত্যু হলো সেখানে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্য উত্তর কোর্দোফান, গেজিরা, দক্ষিণ কোর্দোফান, দক্ষিণ দারফুর।

সাধারণত মে থেকে অক্টোবর পর্যন্ত সুদানে ভারী বৃষ্টিপাত হয়। এতে বহু ঘরবাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়।

জাতিসংঘের মানবিক সহায়তাবিষয়ক সমন্বয় অফিস (ওসিএইচএ) সপ্তাহের শুরুতে এক প্রতিবেদনে জানায় যে, সরকারের মানবিক সহায়তা কমিশন, মানবিক সংস্থা এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষের হিসাবে, বন্যায় এক লাখ ৩৬ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবার।

সংস্থাটির তথ্য বলছে, ২০২১ সালে সুদানে বর্ষাকালে দেশজুড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় তিন লাখ ১৪ হাজার পাঁচশ মানুষ। গত বছর বন্যায় দেশটিতে ৮০ জনের মৃত্যু হয়।

সূত্র: আল-জাজিরা

সুদান   বন্যা   নিহত   বিধ্বস্ত   ঘরবাড়ি  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ইউরোপের তিন দেশে প্রবল ঝড়-বৃষ্টি, ১৩ জনের প্রাণহানি

প্রকাশ: ১১:১৯ এএম, ১৯ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail ইউরোপের তিন দেশে প্রবল ঝড়-বৃষ্টি, ১৩ জনের প্রাণহানি

ইউরোপের তিন দেশ অস্ট্রিয়া, ইতালি ও ফ্রান্সের কর্সিকা দ্বীপে প্রবল ঝড়-বৃষ্টিতে অন্তত ১৩ জন নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে তিনজন শিশুও রয়েছে। প্রবল ঝড়-বৃষ্টিতে আহত হয়েছেন আরও কয়েক ডজন মনুষ।

বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) এই প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঘটনা ঘটে। নিহতদের অধিকাংশই মারা গেছেন ঝড়ে উপড়ানো গাছের নিচে চাপা পড়ে।

ফ্রান্সের কর্সিকা দ্বীপেই মারা গেছেন ৬ জন বলে জানিয়েছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ঝড়ো আবহাওয়া শান্ত হওয়ার পর সেখানকার পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখতে কর্সিকা দ্বীপে গিয়েছিলেন ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গেরাল্ড ডারমানিন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, নিহতদের মধ্যে ১৩ বছর বয়সী এক কিশোরী এবং এক যুবক মারা গেছেন ঝড়ে উপড়ে যাওয়া গাছের নিচে চাপা পড়ে। আর একজন বয়স্ক নারীর গাড়ির ছাদে আছড়ে পড়ে সাগরতীরে পর্যটকদের জন্য তৈরি একটি ছাউনির ছাদ। তাতেই মারা পড়েন তিনি।

ফ্রান্সের আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, ঝড়ের সময় কর্সিকার ওপর দিয়ে ঘণ্টায় ২২৪ কিলোমিটার গতিতে বয়ে গেছে দমকা হাওয়া। বিপুল শক্তিতে বাতাস বয়ে যাওয়ায় দ্বীপটির বহু জায়গায় গাছ উপড়ে গেছে, বিপুলসংখ্যক ঘরবাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ইউরোপের অধিকাংশ অঞ্চলে গত দু’সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে চলেছে মৃদু ও মাঝারি তাপপ্রবাহ। তারপরই এলো এই দুর্যোগ। প্রত্যক্ষদর্শীলা জানিয়েছেন, ‍বৃহস্পতিবারের ঝড় ছিল একেবারেই অপ্রত্যাশিত এবং আবহাওয়া দপ্তর থেকে কোনো প্রকার সতর্কবার্তা দেওয়া হয়নি।

কর্সিকা দ্বীপের রেস্তোরাঁ ব্যবসায়ী কেড্রিক বয়েল বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘প্রথমে আমরা ভেবেছিলাম সাধারণ মৌসুমি ঝড়। কিন্তু পরে বুঝলাম— এটা কোনো সাধারণ ঝড় নয়। এত ধ্বংসাত্মক ঝড় আমরা এর আগে দেখিনি।’

ঝড়ে অস্ট্রিয়ায় ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে ২ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক। সব মৃত্যুই ঘটেছে গাছের তলায় চাপা পড়ে। এছাড়া ইতালিতে ২ জন নিহত হয়েছেন, তাদেরও মৃত্যুর কারণ একই।

ইউরোপ   ঝড়   বৃষ্টি   প্রাণহানি  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর নাচ-গানের ভিডিও ভাইরাল, দেশটিতে তোলপাড়

প্রকাশ: ১০:২০ এএম, ১৯ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর নাচ-গানের ভিডিও ভাইরাল, দেশটিতে তোলপাড়

ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সানা মারিনের পার্টি করার একটি ভিডিও ফাঁস হয়েছে নেট দুনিয়ায়। এই ঘটনায় ব্যাপক তোলপাড় চলছে দেশটিতে। ফাঁস হওয়া ভিডিওতে দেখা গেছে, ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী দেশটির কয়েকজন সেলিব্রেটি ও তার বন্ধুদের সঙ্গে নাচছেন ও গান গাইছেন। এই ঘটনায় বিরোধী দলগুলোর তোপের মুখেও পড়েছেন সানা মারিন। এক বিরোধী দলের নেতার দাবি, মারিনের ড্রাগ টেস্ট করা উচিত।

তবে ৩৬ বছর বয়সী প্রধানমন্ত্রী সানা মারিন মাদক নেওয়ার অভিযোগটি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন, তিনি পার্টিতে শুধু অ্যালকোহল পান করেছিলেন।

ফাঁস হওয়া ভিডিও নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) এক মন্তব্যে ফিনিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভিডিও করার কথা জানতেন তিনি। কিন্তু ভিডিও প্রকাশ্যে আসায় হতাশ হয়েছেন তিনি।

সানা মারিন বলেন, ‘আমি নেচেছি, গান গেয়েছি এবং পার্টি করেছি- এগুলো আইন সম্মত’। কিন্তু আমি কখনো এমন পরিস্থিতিতে ছিলাম না যখন আমি কাউকে দেখেছি বা চিনি যারা মাদক ব্যবহার করে।

দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা রেখে পার্টি করা নিয়ে আলোচনার ঝড় বইছে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে। তবে ফিনিশ প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার একটি পারিবারিক জীবন, একটি কর্মজীবন রয়েছে। বন্ধুদের সঙ্গে কাটানোর মতো সময় আমার আছে। যা আমার বয়সী একজন মানুষের প্রয়োজন’।

তিনি আরও বলেন, আচরণে পরিবর্তন করার কোনও প্রয়োজনীয়তা তিনি অনুভব করছেন না। সানা মারিন বলেন, এখন পর্যন্ত আমি যেমন মানুষ আছি সেটিই থাকবো এবং আশা করি তা গ্রহণযোগ্য হবে সবার কাছে।

এদিকে, বিরোধীদলীয় নেতা রিকা পুরা দাবি করেছেন, প্রধানমন্ত্রীর উচিত স্বেচ্ছায় ড্রাগ টেস্ট করা। কারণ প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে সন্দেহ আরও ঘনীভূত হচ্ছে।

অন্য বিরোধী দলের সদস্যরাও এ প্রসঙ্গে সানাকে ছেড়ে কথা বলছেন না। তারা একই সঙ্গে যেমন প্রধানমন্ত্রীর তুলোধনা করছেন, তেমনই দেশের সংবাদমাধ্যমকেও একহাত নিচ্ছেন। অনেকেরই মত, সংবাদমাধ্যম প্রধানমন্ত্রীর কোনো ভুলত্রুটি নিয়ে খবর প্রকাশ করে না।

সূত্র: বিবিসি

ফিনল্যান্ড   প্রধানমন্ত্রী   নাচ-গান   ভিডিও   ভাইরাল  


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

১০ সন্তান জন্ম দেয়া নারীদের ১০ লাখ রুবল দেওয়ার ঘোষণা পুতিনের

প্রকাশ: ০৯:৫৩ এএম, ১৯ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail ১০ সন্তান জন্ম দেয়া নারীদের ‘মাদার হিরোইনে’ ভূষিত করবেন পুতিন

রাশিয়ার যেসব নারী ১০ বা তার বেশি সন্তান জন্ম দেবেন তাদের ‘মাদার হিরোইন’ পুরস্কারে ভূষিত করা হবে বলে একটি ডিক্রি জারি করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এই পুরস্কারের আওতায় পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রত্যেক রুশ নারীকে দেওয়া হবে ১০ লাখ রুবল। সেই সঙ্গে তাদের প্রদান করা হবে রাশিয়ার পতাকা খচিত একটি স্বর্ণপদক। খবর ফক্সনিউজের।

ফক্সনিউজের প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, দেশের জনসংখ্যা বাড়াতে তাই নতুন এই প্রণোদনার ঘোষণা দিয়েছেন পুতিন। ১০ বা তার বেশি সন্তান ধারণের জন্য নারীদের ১৬ হাজার ৬৪৫ ডলার করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। গত জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত রাশিয়ার জনসংখ্যা প্রতি মাসে গড়ে ৮৬ হাজার করে কমেছে। মূলত দেশটির জনসংখ্যা বাড়াতে এ পুরস্কার চালু করা হচ্ছে। যাতে শিশু জন্ম বৃদ্ধির হার হ্রাস না পায়।

তবে এ পুরস্কার পেতে হলে রুশ নারীদের একটি শর্ত পূরণ করতে হবে। সেটা হলো ১০ সন্তানকেই জীবিত থাকতে হবে। অবশ্য কোনো সন্তান সন্ত্রাসী হামলা বা সশস্ত্র সংঘাত ও যুদ্ধে মারা গেলে  ছাড় পাওয়া যাবে। উল্লেখ্য, ‘মাদার হিরোইনের’ প্রবর্তক ছিলেন সাবেক রুশ শাসক জোসেফ স্টালিন।  দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ১০ সন্তানের জননীদের এ পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা দেন তিনি। 

তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের জনসংখ্যা ব্যাপক হারে কমে গিয়েছিল। তবে ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পর এ পুরস্কার প্রথা বিলুপ্ত হয়। এবার সেটিই পুনরায় চালু করছেন প্রেসিডেন্ট পুতিন। দম্পতিদের অধিক সন্তান জন্মদানে উৎসাহিত করতে এ পদক্ষেপ নিলেন তিনি।

‘মাদার হিরোইনে’ পুতিন  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন