কালার ইনসাইড

হঠাৎ ডিবি কার্যালয়ে হিরো আলম

প্রকাশ: ০৫:১৪ পিএম, ০১ এপ্রিল, ২০২৩


Thumbnail

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয়ে গেছেন ইউটিউবার হিরো আলম। ব্যক্তিগত কারণে তিনি সেখানে গেছেন বলে জানা গেছে। শনিবার (১ এপ্রিল) বেলা আড়াইটার দিকে তিনি মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে প্রবেশ করেন।

ডিবি সূত্রে জানা গেছে, ব্যক্তিগত কারণে হিরো আলম ডিবি কার্যালয়ে এসেছেন। তিনি একটি বিষয়ে ডিবি পুলিশের সহযোগিতা চান। এ ব্যাপারে কাজ শেষে বের হয়ে কথা বলবেন।

সম্প্রতি পুলিশ কর্মকর্তা হত্যা মামলার আসামি রবিউল ইসলাম ওরফে আরাভ খানের স্বর্ণের দোকান উদ্বোধনের নিমন্ত্রণে বাংলাদেশ থেকে ছুটে যান ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ও কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিরো আলমসহ অনেকেই।

বিষয়টি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হলে তখন ডিবি প্রধান হারুন-অর-রশিদ সাংবাদিকদের জানান, সেখানে যাওয়ায় তদন্তের স্বার্থে সাকিব আল হাসান ও হিরো আলমকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে।

এর আগে গত বছরের ২৭ জুলাই পুলিশের এই গোয়েন্দা কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য হিরো আলমকে ডেকে পাঠানো হয়। তখন হিরো আলম বলেছেন, এদিন ভোর ৬টার দিকে ডিবির লোকজন তার রামপুরার অফিস থেকে তাকে তুলে আনে। দুপুর ২টার দিকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

পরে ডিবি জানিয়েছে, অনুমতি ছাড়া পুলিশের ড্রেস পরে ঘুরে বেড়ানো এবং রবীন্দ্রসংগীতসহ সংস্কৃতি বিকৃতি করার অভিযোগে হিরো আলমকে ডেকেছিল ডিবি পুলিশ।

ডিবি আরও জানিয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদের পর মুচলেকা দিয়েছেন হিরো আলম। মুচলেখায় উল্লেখ করে হিরো আলম বলেছেন, তিনি আর কখনও এমন কিছু করবেন না।

ডিবি কার্যালয়   হিরো আলম  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

অনন্ত আম্বানির বিয়েতে শাহরুখসহ অন্যান্য তারকাদের দুই কোটি টাকা মূল্যের সোনার ঘড়ি উপহার

প্রকাশ: ০৫:১৫ পিএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

ভারতের অন্যতম ধনী এবং বিশ্বব্যাপী পরিচিত ধনকুবের মুকেশ আম্বানির ছোট ছেলে অনন্ত আম্বানির বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে শুক্রবার (১২ জুলাই)। দীর্ঘদিনের প্রেমিকা রাধিকা মার্চেন্টের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন অনন্ত আম্বানি। এই বিবাহ অনুষ্ঠানটি ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে ব্যয়বহুল বিয়ের তকমা পেয়েছে। এই মহা আয়োজনে বিশ্বের তাবড় তাবড় ব্যক্তিত্বরা উপস্থিত ছিলেন। বলিউড থেকে হলিউড, সব মহাতারকারাই বিয়েতে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

বিয়ের মহা আয়োজনে আম্বানি পরিবার সবকিছুর চমক দেখিয়েছে। আমন্ত্রিত অতিথিদের বিনোদনের জন্য তারা কোনোরকম কমতি রাখেননি। অতিথিদের জন্য বিশেষ উপহারও প্রদান করা হয়েছে। শাহরুখ খানদের জন্য বিশেষ সংস্করণের ঘড়ি আনা হয়েছে, যার প্রতিটির মূল্য ২ কোটির বেশি!

দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে জানা গেছে, অনন্ত আম্বানি তার বরযাত্রীতে অংশগ্রহণকারী বন্ধুদের ২ কোটি টাকার বিলাসবহুল ঘড়ি উপহার দিয়েছেন।

একটি রেডিট পোস্টের মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে যে, অনন্ত 'রয়্যাল ওক পারপেচুয়াল ক্যালেন্ডার লুমিনারি সংস্করণ' নামে পরিচিত ২৫টি সীমিত সংস্করণের অডেমারস পিগুয়েট টাইমপিস কিনেছেন। আর এই সৌভাগ্যবান প্রাপকদের মধ্যে রয়েছেন বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব শাহরুখ খান, রণবীর সিং, জাহ্নবী কাপুরের প্রেমিক শিখর পাহাড়িয়া, বীর পাহাড়িয়া এবং মিজান জাফরি। ২৫ জনের জন্য মোট ৫০ কোটি টাকার ঘড়ি কেনা হয়েছে।

জানা যাচ্ছে, ১৮ ক্যারেটের রোজ গোল্ডে তৈরি এই ঘড়িগুলির জন্য আম্বানি পরিবারের মোট খরচ হয়েছে ৫০ কোটির কাছাকাছি। তবে তাদের কাছে এই অর্থ কিছুই না।

ভারতের বিজনেস টাইকুন এবং রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানির কনিষ্ঠ পুত্র অনন্ত আম্বানি বরাবরই ঘড়ির প্রতি বিশেষ দুর্বল। প্যাটেক ফিলিপ থেকে শুরু করে রিচার্ড মিলের কালেকশন, সবই আছে তার ঝুলিতে। কিছুদিন আগেই ১২ কোটি ৫৩ লাখ টাকা মূল্যের রিচার্ড মিল ব্র্যান্ডের ঘড়ি দেখা গিয়েছিল অনন্তের হাতে, যা বেশ ভাইরাল হয়েছিল।

অনন্ত-রাধিকার বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, রাজনীতিবিদ, কূটনীতিকসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনের শীর্ষ ব্যবসায়ীরা। এছাড়াও হলিউড-বলিউড এবং ক্রীড়াঙ্গনের মহাতারকারাও উপস্থিত ছিলেন।


অনন্ত আম্বানি   মুকেশ আম্বানি   শাহরুখ খান   বিয়ে  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

নন্দিত অভিনেতা রাইসুল ইসলাম আসাদের জন্মদিন আজ

প্রকাশ: ০৪:০৮ পিএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

বরেণ্য অভিনেতা ও মুক্তিযোদ্ধা রাইসুল ইসলাম আসাদের আজ ৭১তম জন্মদিন। রণাঙ্গণ থেকে বেতার, মঞ্চ, টেলিভিশন এবং চলচ্চিত্র—সবখানেই তাঁর নন্দিত পদচারণা রয়েছে।

১৯৫২ সালের ১৫ জুলাই ঢাকার পুরানা পল্টনে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তার পুরো নাম আসাদুজ্জামান মোহাম্মাদ রাইসুল ইসলাম। শৈশব কেটেছে ঢাকাতেই, আর বড় হয়েছেন ঢাকার অলিগলিতে। পল্টনে বেড়ে ওঠার ফলে এই এলাকার রাজনৈতিক পরিবেশকে উপেক্ষা করা তার পক্ষে সম্ভব হয়নি। তখন তাদের পাড়ায় একটি ক্লাব ছিল, নাম- একতা বিতান, যেখানে খেলাধুলার পাশাপাশি তিনি রাজনীতি নিয়ে তর্ক-বিতর্কেও মেতে থাকতেন।

তরুণ বয়সে তিনি থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত হন। ১৯৭২ সালে রাইসুল ইসলাম আসাদ প্রথম মঞ্চনাটকে অভিনয় করেন। পরবর্তীতে  ‘আমি রাজা হব না’ এবং ‘সর্পবিষয়ক গল্প’ নামের দুটি নাটকে তিনি অভিনয় করেন। এরপর তিনি আরণ্যক নাট্যদলের হয়ে ‘পশ্চিমের সিঁড়ি’ নাটকে অভিনয় করেন।

১৯৭৩ সালে তিনি কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে গঠন করেন ঢাকা থিয়েটার। এরপর ‘সংবাদ কার্টন’, ‘সম্রাট’ এবং ‘প্রতিদ্বন্দ্বীগণ’ নাটকে অভিনয় করেন। এরপর ঢাকা থিয়েটারে একের পর এক সাড়া-জাগানো নাটকে অভিনয় করতে থাকেন। একই বছর মুক্তি পায় তার প্রথম চলচ্চিত্র ‘আবার তোরা মানুষ হ’, এরপর থেকে তিনি বহু সিনেমাতে অভিনয় করেন। তার অভিনীত ‘ঘুড্ডি’, ‘লালসালু’, ‘পদ্মা নদীর মাঝি’, ‘লালন’ কালের সীমানা পেরিয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে ‘আবার তোরা মানুষ হ’, ‘দুখাই’, ‘ঘুড্ডি’, ‘লালসালু’, ‘লালন’, ‘ঘানি’, ‘আধিয়ার’, ‘কীত্তনখোলা’, ‘নদীর নাম মধুমতী’, ‘মনের মানুষ’, ‘নয়নের আলো’, ‘আমার বন্ধু রাশেদ’। তিনি কিছু বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন। তবে সবচেয়ে বেশি খ্যাতি পেয়েছেন ‘পদ্মা নদীর মাঝি’ চলচ্চিত্রের কুবের মাঝি চরিত্রে অভিনয় করে।

২০০৬ সালে ‘ঘানি’ এবং ২০১৩ সালে ‘মৃত্তিকা মায়া’ সিনেমার জন্য তিনি পার্শ্ব অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। এছাড়া ৪৫তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে আজীবন সম্মাননা লাভ করেন এবং ২০২১ সালে বাংলাদেশ সরকার তাকে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত করে।


জন্মদিন   পদ্মা নদীর মাঝি   লালসালু   আমার বন্ধু রাশেদ  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

অনন্ত-রাধিকার বিয়েতে শাহরুখের সঙ্গে দেখা, যা বললেন জন সিনা

প্রকাশ: ০৭:১১ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

সম্প্রতি ভারতের অন্যতম ধনী মুকেশ আম্বানির ছোট ছেলে অনন্ত আম্বানি এবং রাধিকা মার্চেন্টের বিয়েতে যোগ দিতে ভারতে এসেছিলেন হলিউড তারকা তথা ডব্লিইডব্লিউই কুস্তিগীর জন সিনা। এবং এখানে সকলের সঙ্গে বেশ কিছুটা সময় উপভোগও করেছিলেন তিনি।

এদিকে তাকে দেশি পোশাকে দেখে ভক্তেরাও রীতিমতো মুগ্ধ বলা চলে। শুধু তাই নয়, জন সিনাকে মাথায় পাগড়ি বেঁধে বিয়ের উৎসবে প্রচুর নাচ করতেও দেখা গিয়েছে। এই বিয়ের অনুষ্ঠানে এসেই তার দেখা হয়েছে দেশ-বিদেশের একঝাঁক অতিথিদের পাশাপাশি এমন একজ মানুষের সঙ্গে, যে তার জীবন বদলে দিয়েছিল একটা সময়।  

তিনি সবসময়ের জন্য সেই ব্যক্তির কাছে কৃতজ্ঞ থাকবেন বলা চলে। জানেন কি কে সেই ব্যক্তি?

জন সিনার জীবন পরিবর্তনকারী সেই ব্যক্তি আর কেউ নন, শাহরুখ খান। এছাড়াও আম্বানি পরিবারের আতিথেয়তার জন্য কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেছেন। দেশে ফেরার পর, জন সিনা সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করেছেন। যেখানে তিনি অনন্ত আম্বানি এবং রাধিকার বিয়েতে যোগ দেওয়ার অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন। শাহরুখের জন্যও লিখেছেন, তার জীবনে ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

জন সিনা তার এক্স-এ রাধিকা এবং অনন্তের বিয়ে থেকে শাহরুখের সঙ্গে তার ছবি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘এটি একটি অনন্য এবং আশ্চর্যজনক মুহূর্ত। ২৪ ঘণ্টা অসাধারণ কেটেছে। এই সময়টাকে এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না। আমি আম্বানি পরিবারের প্রতি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ এবং আমাকে স্বাগত জানানোর জন্য আমি মুগ্ধ। অনেক অবিস্মরণীয় মুহূর্ত দিয়ে ভরা একটি অভিজ্ঞতা। যা আমাকে অগণিত নতুন বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ করে দিয়েছে। এর মধ্যে শাহরুখ খানও রয়েছেন। তাকে ব্যক্তিগতভাবে বলতে পেরেছিলাম যে তিনি আমার জীবনে কতটা পজিটিভ করে তুলেছে।’

অন্যদিকে জন সিনার এই পোস্ট দেখে ভক্তরাও তার রীতিমতো প্রশংসা করেছেন। সকলেই বলছেন যে জন সিনাকে পাগড়িতে অসম্ভব সুন্দর দেখাচ্ছিল। মুকেশ আম্বানিও জন সিনাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছেন।


মুকেশ আম্বানি   অনন্ত আম্বানি   রাধিকা মার্চেন্ট   জন সিনা   হলিউড তারকা   শাহরুখ খান  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

বিনা দাওয়াতে আম্বানির ছেলের বিয়েতে গিয়ে গ্রেপ্তার ২

প্রকাশ: ০৬:৩৮ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

রাজকীয় এক বিয়ে বলে কথা, সুযোগ পেলে যে কেউ এমন বিয়ের সাক্ষী হতে চাইবে। সেই সুযোগই কাজে লাগাতে গিয়ে পুলিশের কাছে ধরা পড়েছেন দুই ব্যক্তি। ঘটনা ভারতীয় ধনকুবের মুকেশ আম্বানীর ছেলে অনন্ত আম্বানী ও রাধিকা মার্চেন্টের বিয়ের।   

মুম্বাইয়ের কুরলা কমপ্লেক্সের জিও ওয়ার্ল্ড কনভেনশন সেন্টারে গত ১২ জুলাই অনুষ্ঠিত হলো ভারতের শীর্ষ ধনীর ছোট ছেলের রাজকীয় বিয়ের আয়োজন। যেখানে উপস্থিত ছিলেন বলিউড-হলিউড থেকে শুরু করে খেলোয়াড়-ধনকুবেররা। 

যে কারণে বিয়েতে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও ছিল চোখে পড়ার মতো। তবুও জমকালো এই আয়োজনে বিনা দাওয়াতে অবৈধভাবে ভেন্যুতে প্রবেশের অভিযোগের পৃথক ঘটনায় দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের সন্দেহজনক গতিবিধি লক্ষ্য করে অভিযুক্তদের ধরে ফেলেন। পরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

এফআইআরে বলা হয়েছে, শনিবার ভোরে জিও ওয়ার্ল্ড সেন্টারের দোতলায় এক ব্যক্তিকে সন্দেহজনক আচরণ করতে দেখা যায়। লাল ওই ব্যক্তিকে তার সিকিউরিটি ইনচার্জ মণীশ শ্যামলেটির কাছে নিয়ে আসেন, যিনি তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এবং পরে তাকে বান্দ্রা-কুরলা কমপ্লেক্স পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, ভিরারের ব্যবসায়ী লুকমান মোহাম্মদ শফি শেখ (২৮) নামে ওই ব্যক্তি ১০ নম্বর গেট দিয়ে অবৈধভাবে অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করেন। শনিবার ছিল অনন্ত-রাধিকার শুভ আশীর্বাদের অনুষ্ঠান। ভেন্যুতে প্রবেশের জন্য বিশেষ পাস দেওয়া হয়েছিল সকলকে। শেখ পরে স্বীকার করেন, কৌতূহলবশত আম্বানির ছেলের বিয়েতে হাজির হয়েছেন তিনি।

দ্বিতীয় ঘটনায়, শুক্রবার সকালে জিও ওয়ার্ল্ড সেন্টারের ১ নম্বর প্যাভিলিয়নের নিরাপত্তা কর্মীরা এক ব্যক্তিকে সন্দেহজনক আচরণ করতে দেখেন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে আটক করা হয়। আটকের পর তিনি জানান, ইউটিউব চ্যানেলের জন্য ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করতে এমন কীর্তি ঘটিয়েছেন।

মুম্বাই পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, দুই অভিযুক্তর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি, ২০২৩-এর ৩২৯ ধারা (অপরাধমূলক অনধিকার প্রবেশ এবং গৃহ-অনধিকারপ্রবেশ)-র অধীনে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।


অনন্ত আম্বানী   রাধিকা মার্চেন্ট   ভারত   মুকেশ আম্বানী  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

মোদির পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নিলেন অনন্ত

প্রকাশ: ০৫:১৯ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে ভারতের ধনকুবের মুকেশ আম্বানির ছোট ছেলে অনন্ত আম্বানি ও বিনোদ মার্চেন্টের কন্যা রাধিকা মার্চেন্টের বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। অনন্ত-রাধিকার গ্র্যান্ড ওয়েডিং-এর ষোলকলা পূর্ণ হয়েছে। 

এদিকে বিয়ের আসরে দেখা না মিললেও একদিন পর শনিবার রাতে নবদম্পতির ‘শুভ আশীর্বাদ’ অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। অনন্ত-রাধিকাকে আশীর্বাদ দিতে হাজির হন তিনি। 

এদিকে মোদিকে দেখা মাত্রই খুশির ঝিলিক অনন্ত-রাধিকার মুখে। মোদির পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নিলেন আম্বানি পরিবারের ছোট ছেলে। এরপর মোদির চরণ ছুঁয়ে আশীর্বাদ নেয় নতুন বউ রাধিকা। এসময় প্রাণ ভরে দুজনকে আশীর্বাদ করেন মোদি। রাধিকার মাথায় হাত রেখে তার সিঁথির সিঁদুর অটুট থাকার মঙ্গল আশীর্বাদ করেন প্রধানমন্ত্রী।

এরপর হাতে তুলে দেন উপহার। রূপার থালায় সাজিয়ে ঈশ্বরের ছবি নবদম্পতিকে উপহার দেন প্রধানমন্ত্রী। ঠাকুরের সেই ছবি মাথায় ঠেকিয়ে আশীর্বাদ গ্রহণ করেন অনন্ত-রাধিকা। এরপর ফের মোদির পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নিতে দেখা যায় অনন্তকে। মোদির আগমন তার জীবনের এই বিশেষ মুহূর্তকে আরও বিশেষ করে তুলেছে স্বভাবতই খুশিতে ডগমগ আম্বানির ২৯ বছরের পুত্র।

ছেলে-বউমাকে যখন মোদি আশীর্বাদ দিচ্ছেন তখন মঞ্চের আরেক পাশে হাতজোর করে দাঁড়িয়ে রয়েছেন নীতা ও মুকেশ। এরপর মোদী এগিয়ে আসেন তাদের দিকে। প্রধানমন্ত্রীর হাতে মাথা ঠেকিয়ে তাকে ধন্যবাদ জানান এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি। শুধু পাত্রের বাবা-মাকেই নয়, নিজে এগিয়ে গিয়ে রাধিকার বাবা-মার সঙ্গেও সৌজন্য বিনিময় করেন মোদি। 

এরপর মঞ্চ থেকে নেমে ধর্মগুরুদের দিকে হেঁটে যান প্রধানমন্ত্রী। এরপর শঙ্করাচার্যের পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নেন মোদি। এরপর ধীরে ধীরে অন্যান্য ধর্মগুরুদের থেকে আশীর্বাদ গ্রহণ করেন। 

মুম্বাইয়ের জিও ওয়ার্ল্ড কনভেনশন সেন্টারে এই আশীর্বাদ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এদিনের অনুষ্ঠানেও উপস্থিত হয়েছেন বলিউডের প্রথম সারির তারকারা। অমিতাভ বচ্চন, শাহরুখ খান, সালমান খান থেকে নতুন প্রজন্মের তারকারা, বাদ নেই কেউই। ফ্যাশন, গ্ল্যামার আর আভিজাত্যে মোড়া এই অনুষ্ঠানের দিকে নজর গোটা দেশের। 

শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনন্ত ও রাধিকাকে আশীর্বাদ দিতে পৌঁছেছিলেন। বিয়ের আসরে দেখা মিলেছে রাজনীতির দুনিয়ার রথী-মহারথীদের।



মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন