ইনসাইড গ্রাউন্ড

ইসরায়েলকে নিষিদ্ধ করতে ফিফাকে চিঠি

প্রকাশ: ০২:৫৮ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

ইসরায়েলকে আন্তর্জাতিক ফুটবলে নিষিদ্ধের দাবি তুলেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরান। এ বিষয়ে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা- ফিফাকে চিঠি দিয়েছে তারা।

গাজায় আগ্রাসনের প্রতিবাদ জানিয়ে এবং আন্তর্জাতিকভাবে ইসরায়েলকে নিষিদ্ধ করতে ইতোমধ্যেই নানা পদক্ষেপ নিয়েছে ইরান। সেই ধারাবাহিকতায় ফিফার কাছে এই দাবি তুলে ইরান ফুটবল ফেডারেশন।

এর আগে বৃহস্পতিবার স্কাই নিউজে ইরানের ফুটবল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল মধ্যপ্রাচ্যের ইসরায়েলকে নিষিদ্ধ করতে একমত হয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের ১২টি দেশের ফুটবল সংস্থা। এমন দাবি সংবলিত একটি চিঠি ফিফার কাছে পাঠাতে প্রস্তুত ইরান।

ইরান ফুটবল ফেডারেশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক পোস্টে দেখা যায়, ইসরায়েল ফুটবল ফেডারেশনকে ‘আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে পুরোপুরি নিষিদ্ধ করার’ দাবি করা হয়েছে।

এ ছাড়া ফিফা ও এর সদস্য দেশগুলোকে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার আহবান জানানো হয়। সেই পোস্টে ফিলিস্তিনে খাবার, পানীয়, ওষুধ ও চিকিৎসা-সরঞ্জাম পাঠানোর আবেদনও করেছে ইরান ফুটবল ফেডারেশন।

গত বছর ৭ অক্টোবর ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাসের আক্রমণে ইসরায়েলে ১ হাজার ১৬০ জন নিহত হয়। এর জবাবে সেই থেকে পাল্টা হামলা চালানো শুরু করে ইসরায়েল। ‘হামাস নির্মূলে’র নামে চালানো ইসরায়েলের হামলায় এখন পর্যন্ত প্রায় ২৮ হাজার ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এর অধিকাংশই শিশু ও নারী।


ফিফা   ফুটবল   ইরান. ইসরায়েল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

শ্বাসরুদ্ধকর লড়াইয়ে বেঙ্গালুরুকে ১ রানে হারাল কলকাতা

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

মিচেল স্টার্ক আবারও খলনায়কে পরিণত হতে যাচ্ছিলেন। শেষ ওভারে জয়ের জন্য রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর প্রয়োজন ২১ রান। ব্যাটিংয়ে করণ শর্মা ও মোহাম্মদ সিরাজ। স্ট্রাইকে শর্মা। প্রথম চার বলে মিচেল স্টাকর্কে জায়গায় দাঁড়িয়ে তিনবার ছক্কা হাঁকালেন তিনি। শেষ দুই বলে প্রয়োজন মাত্র ৪ রান।

এমন সময়ই জমে উঠলো চূড়ান্ত নাটকের। ৫ম বলটি লোয়ার ফুলটস দিলেন স্টার্ক। স্ট্রেইট ব্যাটে খেললেন করণ শর্মা। বল তুলতে পারলেন না। দ্রুতগতির হলেও মিচেল স্টার্কের হাত এড়াতে পারেনি। কঠিন একটি ক্যাচ ধরে ম্যাচের মোড় পুরোপুরি ঘুরিয়ে দিলেন স্টার্ক নিজে।

লকি ফার্গুসন শেষ ব্যাটার হিসেবে উইকেটে আসেন। শেষ বলে প্রয়োজন ৩ রান। জিততে হলে অন্তত বাউন্ডারি মারতে হবে। দুই রান নিলে টাই। ম্যাচ গড়াবে সুপার ওভারে। ফার্গুসন বাউন্ডারি মারার উদ্দেশ্যেই খেললেন। রিঙ্কু সিং বল কুড়িয়ে ফেরত পাঠানোর আগে দ্বিতীয় রানের জন্য দৌড় শুরু করেন মোহাম্মদ সিরাজ এবং লকি ফার্গুসন। কিন্তু ফার্গুসন ক্রিজে পৌঁছার আগেই উইকেটরক্ষক ফিল সল্ট স্ট্যাম্প ভেঙে দিলেন।

নিশ্চিত হতে আম্পায়ার টিভি আম্পায়ারকে কল করলেন। টিভি রিপ্লে দেখে বলে দেয়া হলো রানআউট ফার্গুসন। ফলে মাত্র ১ রানের শ্বাসরুদ্ধকর জয় নিয়ে মাঠ ছাড়লো কলকাতা নাইট রাইডার্স।

কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে প্রথমে ব্যাট করে ২২২ রান সংগ্রহ করে কেকেআর। জবাব দিতে নেমে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু শেষ বলে অলআউট হয়েছে ২২১ রানে।

২২৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামার পর উইল জ্যাকস এবং রজত পাতিদার মিলে ১০২ রানের জুটি গড়ে বেঙ্গালুরুকে জয়ের ভিত গড়ে দেন। দু’জনই করেন হাফ সেঞ্চুরি। ৩২ বলে ৫৫ রান করেন উইল জ্যাকস। ২৩ বলে ৫২ রান করেন রজত পাতিদার। তবে এ দু’জন আউট হয়ে গেলে বেঙ্গালুরুর জয়ের আশা শেষ হয়ে যায়।

তবুও সুইয়াস প্রভুদেশাই ১৮ বলে ২৪, দিনেশ কার্তিক ১৮ বলে ২৫ এবং করণ শর্মা ৭ বলে ২০ রান করে দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে গিয়েছিলেন; কিন্তু শেষ মুহূর্তের নাটকীয়তায় আর সম্ভব হয়নি তাদের জয় পাওয়া। বিরাট কোহলি আজও ব্যর্থ। ৭ বলে ১৮ রান করে আউট হয়ে যান তিনি।

এর আগে ঘরের মাঠ ইডেন গার্ডেন্সে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৬ উইকেট হারিয়ে ২২২ রানের সংগ্রহ দাঁড় করে স্বাগতিক কেকেআর। অধিনায়ক স্রেয়াশ আয়ার হাফ সেঞ্চুরি করেন। সর্বোচ্চ রানের ইনিংস ৫০।

বাকিদের আর কেউ হাফ সেঞ্চুরি করতে পারেনি। তবে, মাঝারি মানের বেশ কয়েকটি ইনিংসের কারণে বেঙ্গালুরুর সামনে ২২৩ রানের বড় লক্ষ্য দাঁড় করিয়ে দিয়েছে কেকেআর।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ফিল সল্ট এবং সুনিল নারিন মিলে ঝড় তোলার ইনিঙ্গত দেন। ৪.২ ওভারেই ৫৬ রানের জুটি গড়ে বিচ্ছিন্ন হন তারা দু’জন। ১৫ বল খেলে এ সময় আউট হয়ে যায় সুনিল নারিন। ১৪ বলে ৪৮ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলেন ফিল সল্ট। ৭টি বাউন্ডারির সঙ্গে ৩টি ছক্কার মার মারেন তিনি।

অঙ্করিশ রঘুভানসি ৩ রান করে আউট হয়ে গেলেও কেকেআরের বড় স্কোর গড়তে অসুবিধা হয়নি। কারণ, ভেঙ্কটেশ আয়ার ৮ বলে ১৬, স্রেয়াশ আয়ার ৩৬ বলে ৫০ রান করেন। রিঙ্কু সিং করেন ১৬ বলে ২৪ রান। আন্দ্রে রাসেল অপরাজিত ছিলেন ২০ বলে ২৭ রান করে। ৯ বলে ২৪ রান করে অপরাজিত থাকেন রামদিপ সিং।


বেঙ্গালুরু   কলকাতা   আইপিএল   কেকেআর   রয়েল-চ্যালেঞ্জার্স-ব্যাঙ্গালুরু  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

এল ক্লাসিকোতে রাতে মুখোমুখি রিয়াল-বার্সা

প্রকাশ: ০৪:৫৪ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

ফুটবল দুনিয়ায় বাড়তি উত্তেজনা, আর রোমাঞ্চ ছড়ায় এল ক্লাসিকো। দু'দলের লড়াইয়ে দুভাগ ফুটবল বিশ্ব। তবে পয়েন্ট টেবিলে তাদের অবস্থান কিছুটা হলেও রঙ হারায়। বিগ ম্যাচের আগে বিপরীত মেরুতে রিয়াল-বার্সা। চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ চার নিশ্চিত করে উড়ছে লস ব্লাঙ্কোস। আর কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায়ে কালো মেঘ ব্লগরানা শিবিরে। রোববার (২১ এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় মাঠে নামবে এই দুই দল। 

এ মৌসুম পর বার্সেলোর দায়িত্ব ছাড়ছেন জাভি হার্নান্দেজ। তাই স্প্যানিশ ট্যাকটিশিয়ানের জন্য এটিই হতে যাচ্ছে শেষ এল ক্লাসিকো। লিগ শিরোপা ধরে রাখার লড়াইয়ে জয়ের বিকল্প দেখছেন না জাভি। মৌসুমে একমাত্র শিরোপার জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখতে চায় বার্সেলোনা। যদিও কাজটা কঠিন। ৭৮ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষে রিয়াল। আর ৮ পয়েন্ট কম নিয়ে পরের অবস্থানে বার্সেলোনা।

বার্সা কোচ জাভি বলেন, শিরোপা জয়ের রেসে টিকে থাকার শেষ সুযোগ আমাদের। মৌসুমের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ এটি। সবকিছু ভুলে নতুন করে শুরু করতে হবে। তবে মানসিকভাবে আমাদের চেয়ে এগিয়ে থাকবে রিয়াল মাদ্রিদ।

এল ক্লাসিকোর আগে শুধু চ্যাম্পিয়নস লিগের সুখস্মৃতি নয়। শেষ দু’দেখায় জয় আর ঘরের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে খেলা বলে বাড়তি আত্মবিশ্বাসী রিয়াল মাদ্রিদ। তবে বার্সেলোনাকে হালকাভাবে নেয়ার কোনো সুযোগ দেখছেন না কার্লো আনচেলত্তি। এই ম্যাচ জিতে শিরোপা পুনরুদ্ধারের আরও কাছে যেতে চান ইতালিয়ান ট্যাকটিশিয়ান।

মাদ্রিদ কোচ বলেন, বার্সেলোনা কঠিন প্রতিপক্ষ। তারা এখনো শিরোপা রেসে টিকে আছে। তবে আমরা চাই এ ম্যাচ জিতে শিরোপা জয়ের আরও কাছে যেতে। আমি নিশ্চিত, অন্য সব ক্লাসিকোর মতোই হতে যাচ্ছে এটি।

দু’দলেই নেই নতুন কোন ইনজুরি। আগের ২৫৬ দেখায় ১০৪ জয়ে এগিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ। বার্সেলোনা জিতেছে ১০০টি। দু ট্যাকটিশিয়ানের লড়াইয়েও এগিয়ে আনচেলত্তি। তাই এ ম্যাচ জিতে হিসাবটা সমান করে নিতে চাইবেন জাভি।


ফুটবল   রিয়াল   বার্সা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

দুর্দান্ত মেসিতে জয় পেল মায়ামি

প্রকাশ: ০৩:৪০ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

লিওনেল মেসির দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে এমএলএসের ম্যাচে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছেড়েছে ইন্টার মায়ামি। স্পোর্টিং কানসাস সিটির পরে এবার নাশভিলের বিপক্ষে জয়ে বড় ভূমিকা রাখেন বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক।

রোববার (২১ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৫টায় এমএলএসের ম্যাচে চেজ স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় ইন্টার মায়ামি ও নাশভিল। ম্যাচটিতে ৩-১ গোলে জয় পায় মায়ামি। দরের হয়ে জোড়া গোল করেন মেসি। মেসির পাস থেকে বাকি গোলটি করেন সার্জিও বুসকেটস। নাশভিলের হয়ে একমাত্র গোলটি হয় আত্মঘাতি। 

অবশ্য ম্যাচের শুরুতে বড় ধাক্কা খেতে হয়েছে মায়ামি। ম্যাচের দুই মিনিটের সময় দলটির ডিফেন্ডার ফ্রাঞ্চো নেগ্রির আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় নাশভিল। তবে ম্যাচে ফিরতে বেশিক্ষণ সময় নেয়নি মায়ামি। ম্যাচের ১১তম মিনিটে সুয়ারেজের অ্যাসিস্ট থেকে গোল করে ম্যাচে সমতা ফেরার মেসি। 

এরপর ম্যাচের প্রথমার্ধেই লিড নেয় মায়ামি। ৩৯তম মিনিটে মেসির কর্নার কিক থেকে হেড করে দলকে লিড পাইয়ে দেন সার্জিও বুসকেটস। ২-১ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় মায়ামি। 

বিরতি থেকে ফিরে ৮১তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন এলএমটেন। শেষ পর্যন্ত ৩-১ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ইন্টার মায়ামি। 

এর মধ্যদিয়ে আটবারের ব্যালন ডি’অর বিজয়ী তার ক্যারিয়ারে ৮৩০তম গোল করে। আর চলতি মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলে ৯ খেলায় নয়টি গোল করলেন। এমএলএসে ৭টি ও কনকাকাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ২টি গোল করেছেন। পাশাপাশি সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেন ৫টি গোল। 

এ জয়ের ফলে ১০ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে মায়ামি। 


ইন্টার মায়ামি   বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বিশ্বকাপ নিয়ে পাকিস্তানের সমর্থকদের ‘সুখবর’ দিলেন আমির

প্রকাশ: ০৩:২১ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

চলতি বছরই রয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। বৈশ্বিক এই আসরকে সামনে রেখে ইতোমধ্যেই দলগুলো নিজের পরিকল্পনা শুরু করেছে। এবারের বিশ্বকাপকে সামনে রেখে নিজেদের সেরা দল গঠনে বেশ মনোযোগী পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। দলের শক্তিমত্তা বৃদ্ধির লক্ষ্যে অবসর ভেঙে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেছেন পাক পেসার মোহাম্মদ আমির। দলে ফিরেই পাকিস্তানের সমর্থকদের দিলেন সুখবর। 

প্রায় চার বছর মাঠের বাইরে থাকার পর পাকিস্তানের জার্সিতে মাঠে নামেন আমির। তিনি জানান, স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য নিয়েই ফিরেছেন তিনি। আসন্ন বিশ্বকাপ জয়ের লক্ষ্যেই তাকে দলে ফেরানো হয়েছে বলেও জানান এই পেসার। 

আমির বিশ্বাস করেন, অবসরের আগে তিনি যে টুর্নামেন্টগুলোতে খেলেছিলেন সেগুলোতে দল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার রেকর্ড আছে। এবারও সেই ধারা অব্যাহত রাখতে চান তিনি। আমির বলেন, ‘আমি ২০০৯ সালে প্রথমবার আসি এবং পাকিস্তান বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়। ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনাল খেলি, যেখানে দল চ্যাম্পিয়ন হয়। পিসিবি ম্যানেজমেন্ট আমাকে স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য দিয়ে ফিরিয়ে এনেছে, সেটা হলো বিশ্বকাপ।’

এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের জার্সিতে বিশেষ কিছু করে দেখাতে চান আমির। নিজের ফিটনেস নিয়ে এই পাক পেসার জানান, ২০১৯ সালের চেয়েও বর্তমানে বেশ ফিট আছেন তিনি। 

আমির বলেন, ‘আমি মনে করি আমার ফিটনেস ২০১৯ সালের চেয়ে অনেক ভালো। গেলো কয়েক বছর আমি আগের চেয়ে বেশি ফিট বোধ করছি। আপনি যতই দক্ষ হন না কেনো, ফিট না থাকলে মাঠে নিজের সেরাটা দিতে পারবেন না। আমি বিশ্বাস করি, আমার যে ফিটনেস লেভেল আছে, তাতে আমি দলে বড় অবদান রাখতে পারব।’


বিশ্বকাপ   পাকিস্তান   পিসিবি   মোহাম্মদ আমির  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

পাকিস্তানের সাথে টেস্ট সিরিজ খেলতে আগ্রহী ভারতের অধিনায়ক রোহিত

প্রকাশ: ০২:০৩ পিএম, ২১ এপ্রিল, ২০২৪


Thumbnail

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে টেস্ট সিরিজ খেলার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ক রোহিত শর্মা। তার মতে, বিশ্ব ক্রিকেটের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে টেস্ট সিরিজ হলে অসাধারণ ব্যাপার হবে।

রাজনৈতিক বৈরিতার কারণে দীর্ঘদিন ধরেই দ্বিপাক্ষীক সিরিজ খেলছে না ভারত ও পাকিস্তান। ২০০৭ সালে সর্বশেষ টেস্ট ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে এই দুই দল। সাদা বলের ফরম্যাটে একে অপরের বিপক্ষে আইসিসি বা এশিয়া কাপের মত টুর্নামেন্টে মুখোমুখি হয় ভারত ও পাকিস্তান। দুই দলের ওই ম্যাচগুলোও হয় নিরপেক্ষ ভেন্যুতে।

অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক অ্যাডাম গিলক্রিস্ট এবং ইংল্যান্ডের মাইকেল ভনের সঙ্গে ইউটিউবে চ্যাট শোতে ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষীক সিরিজ নিয়ে নিজের আগ্রহের কথা প্রকাশ করেন রোহিত।

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার লংগার ভার্সনের ম্যাচ টেস্ট ক্রিকেটের জন্য সহায়ক হবে কিনা, ভনের এমন প্রশ্নের উত্তরে রোহিত বলেন, ‘আমি পুরোপুরিভাবে তা বিশ্বাস করি। পাকিস্তান ভালো এবং প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ দল। দুর্দান্ত বোলিং লাইন আপ আছে তাদের। বিশেষ করে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেলা হলে, অসাধারণ হবে।’

নিরপেক্ষ ভেন্যুতে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে সিরিজ আয়োজনের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছিলো ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। ২০১২ সাল থেকে কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজে একে অপরের মুখোমুখি হয়নি ভারত-পাকিস্তান। গেল বছর এশিয়া কাপের ম্যাচ খেলতে পাকিস্তানে যেতে ভারত অস্বীকৃতি জানালে, তাদের ম্যাচগুলো শ্রীলঙ্কার মাটিতে অনুষ্ঠিত হয়। তবে একই বছরের অক্টোবরে ভারতের মাটিতে ওয়ানডে বিশ্বকাপে ঠিকই অংশ নিয়েছিল পাকিস্তান। বিশ্বকাপের ওই ম্যাচটিই দুই দলের সর্বশেষ লড়াই।


ভারত   পাকিস্তান   টেস্ট সিরিজ   রোহিত শর্মা  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন