ইনসাইড বাংলাদেশ

টেকনোক্রেট মন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে কারা?

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪


Thumbnail

সংসদীয় গণতন্ত্রে মন্ত্রিসভার সদস্য হতে হলে সংসদ সদস্য থাকতে হয়। তবে তার ব্যতিক্রম রয়েছে। সংবিধান অনুযায়ী মন্ত্রিসভার মোট সদস্যের এক দশমাংশ অনির্বাচিত বা টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী থাকতে পারবেন। বর্তমানে নতুন যে মন্ত্রিসভা আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করেছে এই মন্ত্রিসভার সদস্য সংখ্যা ৩৭ জন। ৩৭ জনের মন্ত্রিসভায় তিনজন টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী থাকতে পারেন। তবে আওয়ামী লীগ নতুন মন্ত্রিসভায় এখন পর্যন্ত দুইজন টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীকে দায়িত্ব দিয়েছে। এদের মধ্যে একজন হলেন টানা তিনবারের মন্ত্রী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। আর অন্যদিকে এবার মন্ত্রিসভার সবচেয়ে বড় চমক ডা. সামন্ত লাল সেন। এখনও টেকনোক্র্যাট কোটায় একটি মন্ত্রীর পদ খালি আছে। এছাড়াও সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে, সংসদে মহিলা আসনগুলো চূড়ান্ত হওয়ার পর তারা মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ করবে। 

বিভিন্ন সরকারি সূত্রগুলো বলছে, আরও ১০ থেকে ১২ জন নতুন মন্ত্রী মন্ত্রিসভায় যুক্ত হতে পারেন। বিশেষ করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় একজন পূর্ণমন্ত্রী, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে একজন মন্ত্রী, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে একজন মন্ত্রী। এছাড়া অর্থ মন্ত্রণালয় এবং পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রী দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা রয়েছে। 

পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগে নতুন কোন প্রতিমন্ত্রী দেওয়া হয়নি। সেখানে একজন প্রতিমন্ত্রী দেওয়ার বিষয়টি বিবেচিত হচ্ছে। এই মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণে কারা যুক্ত হবেন তা নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে নানা রকম আলাপ আলোচনা চলছে। তবে আওয়ামী লীগের নেতারাই স্বীকার করছেন যে, একমাত্র আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া এ বিষয়ে কেউ কিছু জানেন না। তবে মন্ত্রিসভার অন্তর্ভুক্তি নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে জল্পনা কল্পনা, আলাপ আলোচনা থেমে নেই। এই আলাপ আলোচনার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছে যে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে কারা মন্ত্রী হতে পারেন, সেই বিষয়টি। মন্ত্রিসভায় আরও বেশি রাজনৈতিক মুখ আনার পক্ষে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ কথা বলছেন, তাদের মতামত দিচ্ছেন। বিশেষ করে রাজপথে যারা সক্রিয় ছিলেন, নেতাকর্মীদের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক এমন ব্যক্তিদেরকে মন্ত্রিসভায় সম্পৃক্ত করা উচিত বলে অনেকে মনে করেন। 

সরকার সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, মন্ত্রিসভায় বেশ কিছু টেকনোক্রেট মন্ত্রী যুক্ত হতে পারেন। এখন মন্ত্রিসভা যদি বড় হয় এবং সেটি যদি ৪০ এর ওপরে যায় তাহলে আরও দুজন টেকনোক্রেট মন্ত্রীর মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এটি সম্পূর্ণভাবে প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছাধীন বিষয়। মন্ত্রিসভায় কারা নতুন করে অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন এ নিয়ে বিভিন্ন আলাপ আলোচনা চলছে। এদের মধ্যে দুইজন আমলার টেকনোক্রেট মন্ত্রী হওয়ার গুঞ্জন রয়েছে। 

কবির বিন আনোয়ার আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। পিএলআরে থাকার কারণে এবং নির্বাচনী আইনে তিন বছরের বিধিনিষেধের কারণে তিনি নির্বাচন করতে পারেননি। আবার নির্বাচনের পরপরই তার পিএলআর শেষ হয়ে যায়। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তিনি আওয়ামী লীগে আনুষ্ঠানিক ভাবে যোগদান করেছেন। ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে নির্বাচন পরিচালনায় তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। যদিও সরকারি চাকরির বাধ্যবাধকতার কারণে তাকে কোনো আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব দেওয়া হয়নি। তিনি উপদেষ্টা হতে পারেন এমন গুঞ্জন ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ড. কামাল নাসের চৌধুরী উপদেষ্টা হন। এখন কবির বিন আনোয়ার মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন এমন গুঞ্জন রয়েছে। টেকনোক্রেট কোটায় থাকে মন্ত্রিসভায় আনার কথা শোনা যাচ্ছে বিভিন্ন মহলে। আবার কেউ কেউ মনে করছেন হয়তো তিনি মন্ত্রিসভায় থাকবেন না। তবে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা হিসেবে তাকে দেখলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

অন্যদিকে নির্বাচনের পরপরই বিশ্ব ব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক পদ থেকে পদত্যাগ করে আলোচনায় আছেন ড. আহমদ কায়কাউস। আহমদ কায়কাউস আসতে পারেন মন্ত্রিসভায় এমন গুঞ্জন সব মহলেই রয়েছে। যদিও আহমদ কায়কাউস তার ঘনিষ্ঠদেরকে বলেছেন যে, সহসাই সরকারের যোগদানে তার সম্ভাবনা খুবই কম। ড. কায়কাউস ছাড়াও গত মন্ত্রিসভায় যারা টেকনোক্রেট কোটায় বাদ পড়েছেন সেই দুইজনও চেষ্টা করছেন মন্ত্রিসভায় ফিরে আসার জন্য। তবে তাদের সম্ভাবনা খুবই কম।

সরকারের বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে একজন প্রতিমন্ত্রী এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ে একজন প্রতিমন্ত্রী টেকনোক্রেট কোটায় দেওয়া হতে পারে। তবে এই দুইজন মন্ত্রী কারা হবেন বা প্রধানমন্ত্রী কাদেরকে পছন্দ করবেন সেটি একমাত্র প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের বিষয় বলেও তারা মনে করছেন।

টেকনোক্রেট মন্ত্রী   মন্ত্রিসভা   ড. আহমদ কায়কাউস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

ঘূর্ণিঝড় রেমাল: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে ৭০১ কোটি ৮১ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

প্রকাশ: ০১:৩০ পিএম, ২৮ মে, ২০২৪


Thumbnail

বঙ্গপোসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে দেশের ১৯ জেলায় ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে মৎস ও প্রাণিসম্পদ খাতে মোট ৭০১ কোটি ৪১ লাখ টাকার ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে মৎস্য অধিদপ্তর ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর।

মঙ্গলবার (২৮ মে) এই নিশ্চিত করে মৎস প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনের দুটি অধিদপ্তর। 

মৎস্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ‘রেমালের প্রভাবে মৎস্য সম্পদ খাতে প্রায় ৭০০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। উপকূলীয় ১৩টি জেলার প্রায় ৪১ হাজার মাছের ঘের, ২৬ হাজার ৩০০টি পুকুর এবং চার হাজার কাঁকড়ার ঘের ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

অন্যদিকে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর জানায়, রেমালের প্রভাবে প্রাণিসম্পদ খাতে প্রায় কোটি ৪১ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। উপকূলীয় ৮টি জেলার প্রায় ৫০টি গবাদিপশু ৩০টি হাঁস-মুরগির খামার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে মারা গেছে বেশকিছু ছাগল, ভেড়া হাঁস-মুরগিও।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (২৮ মে) পর্যন্ত সংগৃহীত তথ্যের ভিত্তিতে এ ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় করা হয়েছে বলে জানিয়েছে উভয় অধিদপ্তর। 


রেমাল   ঘূর্ণিঝড়   মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাত   ক্ষয়ক্ষতি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

ঈদে অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু ২ জুন

প্রকাশ: ১২:৫৯ পিএম, ২৮ মে, ২০২৪


Thumbnail

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে আগামী ২ জুন থেকে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুর হবে ঘোষণা দিয়েছেন রেলমন্ত্রী জিল্লুর হাকিম।

মঙ্গলবার (২৮ মে) দুপুরে রেলমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন।

এসময় মন্ত্রী বলেন, ‘শতভাগ টিকিট অনলাইনে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী ১৭ জুনকে ঈদের দিন ধরে আগামী জুন আন্তঃনগর ট্রেনের অগ্রিম ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু হবে।‘

ঈদুল আজহায় আগামী ১৬-১৮ জুন সরকারি ছুটি। এর আগে ১৪ ১৫ জুন শুক্র শনিবার। সে হিসেবে এবারের ঈদে সব মিলিয়ে ৫ দিনের ছুটি পাবে কর্মজীবিরা।

এর আগে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের এক সভায় আগামী জুন থেকে অগ্রিম টিকিট বিক্রির প্রস্তাব দেয়া হয়। প্রস্তাব অনুযায়ী, এবার ঈদের আগে দিন ট্রেনযাত্রা ধরা হতে পারে। একজন যাত্রী সর্বোচ্চ চারটি টিকিট অনলাইনে সংগ্রহ করতে পারবেন।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, এবার ঈদে পশ্চিমাঞ্চল পূর্বাঞ্চল মিলে সক্ষমতা অনুযায়ী মোট ১০ জোড়া বিশেষ ট্রেন চালানো হতে পারে।

রেলওয়ের কর্ম পরিকল্পনা অনুযায়ী, ঈদের আগে আন্তঃনগর ট্রেনের ১২ জুনের আসন বিক্রি হতে পারে জুন; ১৩ জুনের আসন বিক্রি হতে পারে জুন; ১৪ জুনের আসন বিক্রি হতে পারে জুন; ১৫ জুনের আসন বিক্রি হতে পারে জুন; ১৬ জুনের আসন বিক্রি হতে পারে জুন।


ঈদ যাত্র   ট্রেন   অগ্রিম টিকেট  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবসের কর্মসূচি ঘোষণা

প্রকাশ: ১২:৪৬ পিএম, ২৮ মে, ২০২৪


Thumbnail

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস (আগামী বুধবার,২৯ মে) উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। এদিন শান্তিরক্ষীদের স্মরণে সকালে 'শান্তিরক্ষী দৌড়-২০২৪' এর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবসের কর্মসূচি শুরু হবে। 

এরপর, বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শহীদ শান্তিরক্ষীদের নিকটাত্মীয় ও আহত শান্তিরক্ষীদের জন্য সংবর্ধনা এবং জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের ওপর বিশেষ উপস্থাপনার আয়োজন করা হবে। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশের কার্যক্রমের ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ অন্যান্য বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে ইতোমধ্যে প্রচারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শহীদ ও আহত শান্তিরক্ষীদের সম্মানে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদের সদস্যগণ, বাংলাদেশে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত বা হাইকমিশনারগণ, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী, তিন বাহিনী প্রধানগণ, সংসদ সদস্যরা, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও), পুলিশের মহাপরিদর্শক, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বসহ ঊর্ধ্বতন সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তাগণ উপস্থিত থাকবেন বলেও জানা গেছে।


জাতিসংঘ   শান্তিরক্ষী দিবস   কর্মসূচি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ঘাটে স্বাভাবিক ফেরি ও লঞ্চ চলাচল

প্রকাশ: ১২:৩৭ পিএম, ২৮ মে, ২০২৪


Thumbnail

দীর্ঘ ৩৬ ঘণ্টা পর দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল ও ৪৮ ঘণ্টা পর লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ মে) ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাব কেটে গেলে সকাল ৯ টা থেকে ওই নৌরুটে ফেরি ও সকাল ১০ টা থেকে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এর আগে রোববার (২৬ মে) বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে পদ্মা নদী উত্তাল হতে শুরু করলে নৌ-দুর্ঘটনা এড়াতে সকাল ৯ টা থেকে সব ধরনের লঞ্চ এবং রাত ৯ টা থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্পোরেশন বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মোঃ সালাহউদ্দিন বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে পদ্মা নদী উত্তাল ছিল। যার কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিল। নদী স্বাভাবিক হলে প্রায় ৩৬ ঘণ্টা পর আজ সকাল ৯টা থেকে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। বর্তমানে ১০টি ফেরি চলাচল করছে।

দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাট ম্যানেজার নুরুল আনোয়ার মিলন বলেন, ‘দুর্ঘটনা এড়াতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ২৬ মে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সব ধরনের লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখা হয়। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে আবারও লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।’


ফেরী চলাচল   স্বাভাবিক   লঞ্চ   দৌলদিয়া-পাটুরিয়া  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

ঘূর্ণিঝড় রেমাল: রাজধানীতে উর্ধ্বমুখী কাঁচা বাজার

প্রকাশ: ১২:০৩ পিএম, ২৮ মে, ২০২৪


Thumbnail

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে সোমবার (২৯ মে) দিনব্যাপী অতি ভারী বৃষ্টি হয়েছে রাজধানী জুড়ে। আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে ঢাকায় ২৪ ঘণ্ঠায় বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে ১৫৭ মিলিমিটার। টানা বৃষ্টির এ প্রভাব দেখা গিয়েছে রাজধানীর কাঁচা বজারে। সরবরাহ কম থাকায় প্রায় সব ধরনের সবজির দামই উর্ধ্বমূখী। রাতারাতি দাম বেড়ে যাওয়ায় সাধারণ ক্রেতারা পড়েছেন অস্বস্তিতে।

মঙ্গলবার (২৮ মে) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে সবজির এমন বাড়তি দাম লক্ষ্য করা গেছে। তবে, ব্যবসায়ীদের দাবি ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে সব ধরনের সবজির দাম বেড়েছে।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, রাজধানীর কাঁচা বাজারে শসা প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৭০ টাকা, বেগুন প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৭০ টাকা, ঢেঁড়স প্রতি কেজি ৬০ টাকা, পটল বিক্রি ৫০ থেকে ৬০, ঝিঙা প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৭০ টাকা, কাঁকরোল ১০০ টাকা, কচুর লতি প্রতি কেজি ৬০ টাকা, করলা প্রতি কেজি ৬০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া প্রতি কেজি ৪০ টাকা টাকা, টমেটো প্রতি কেজি ৬০ টাকা, গাজর প্রতি কেজি ৮০ টাকা, ধুন্দল প্রতি কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকা, বরবটি প্রতি কেজি ৬০ টাকা এবং কাঁচা মরিচ মানভেদে প্রতি কেজি ২০০ থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ব্যবসায়ীদের দাবি, আজ সবজির পাইকারি বাজার কাওরান বাজারেই পাইকারি দামি বেশি। এর কারণ ঘূর্ণিঝড়ের কারণে গতকাল সারা দিন বৃষ্টি হয়েছে, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে কৃষকরা ফসল তুলতে পারেনি। সে কারণে আজকে ঢাকায় ফসলের সরবরাহ একেবারেই কম।

তবে, আজ যেহেতু বৃষ্টি নেই, হয়তোবা আগামীকাল থেকে রাজধানীতে সবজি সরবরাহ ঠিক হয়ে যাবে। সে কারণে কালকে থেকে সবজির দাম কিছুটা কমে আসবে বলে জানায় তারা। 


কাঁচা বাজার   রাজধানী   রেমাল   দাম  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন