ইনসাইড বাংলাদেশ

কিশোরগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জেরে ফিসারিতে আগুন


Thumbnail

কিশোরগঞ্জে মাছ চাষের ফিসারিতে আগুন দিয়ে মাছ ধরার নৌকা ও থাকার ঘর পুড়ে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) দিবাগত রাত ২ টার দিকে সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়নের কাশোরারচর এলাকায় শরিফ নামে এক ব্যক্তির ফিসারিতে এ আগুন দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

জানা যায়, ফিসারি মালিক চর শোলাকিয়া এলাকার বাসিন্দা। শরিফের সাথে মহিনন্দ ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য আবুল কাশেম এর সোমবার (১ এপ্রিল) দিবাগত রাতে কথা কাটাকাটি হয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সাবেক ইউপি সদস্য খোকন ফিসারি মালিক শরিফকে ফিসারিতে মাছ ধরতে নিষেধ করে। এ নিয়ে তর্ক বিতর্ক ও হাতাহাতি হয়।

 

এরই জের ধরে সাবেক ইউপি সদস্য খোকন ফিসারির থাকার ঘরে ও মাছ ধরার নৌকায় আগুন ধরিয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ফিসারি মালিক শরিফ।

 

ফিসারি মালিক শরিফ অভিযোগ করে বলেন, ‘পূর্ব বিরোধের জের ধরে সাবেক ইউপি সদস্য খোকন আমার ফিসারিতে থাকার ঘরে ও মাছ ধরার নৌকায় আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। এতে আমার ঘরসহ ঘরে থাকা মাছ ধরার জাল,মাছের খাবার,বিভিন্ন পাত্র, কার্পেট পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। তাছাড়া মাছ ধরার নৌকাটিও পুড়ে গেছে। এতে আমার ৪-৫ লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়েছে।’

 

স্থানীয় বাসিন্দা মোস্তফা বলেন, শরিফের ফিসারির পাসের ফিসারিটি আমার। মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) রাত প্রায় ২ টায় লোক মাধ্যমে খবর পাই কে বা কারা যেন ফিসারিতে আগুন দিয়েছে। পরে এসে দেখি ঘর ও ঘরে থাকা জিনিসপত্র ও মালামাল সহ মাছ ধরার নৌকাটি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।’

 

এঘটনায় সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে ভুক্তভোগী শরীফ।


ফিসারিতে আগুন   পূর্ব বিরোধের জেরে  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

সংসদ সদস্য আনার খুনের তদন্তে ভারত যাবে ডিবি

প্রকাশ: ০২:৫৯ পিএম, ২৫ মে, ২০২৪


Thumbnail

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার ঘটনা তদন্তে ভারত যাবে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

শনিবার (২৫ মে) রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ভারতীয় পুলিশ বর্তমানে এই হত্যার ঘটনাটি তদন্ত করছে। কিছুদিন পর আমিসহ ডিবির কয়েকজন অফিসার তদন্তের কাজে ভারত যাবো।

হত্যাকাণ্ডের মোটিভ কী হতে পারে? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ডিবি প্রধান বলেন, মোটিভ অনেকগুলো হতে পারে। পূর্ব শত্রুতার জেরে হতে পারে, আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত হতে পারে, রাজনীতিক বিষয়ও থাকতে পারে। এসব বিষয় জানতে তদন্ত চলছে।


সংসদ সদস্য   ভারত   ডিবি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

দুদক কর্মকর্তাদের সম্পদের হিসাব চায় এইচআরবি

প্রকাশ: ০২:০০ পিএম, ২৫ মে, ২০২৪


Thumbnail

হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরবি) জানিয়েছে, দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক)কর্মরত সবার সম্পদের হিসাব ২ বছর পরপর জনগণের সামনে প্রকাশ করতে হবে। 

শনিবার (২৫ মে) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এইচআরবি আয়োজিত দুর্নীতি দমনে নাগরিকদের ভূমিকা শীর্ষক সেমিনারে এসব সুপারিশ উপস্থাপন করেন সংগঠনের প্রেসিডেন্ট সিনিয়র অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। 

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ। আরও উপস্থিত ছিলেন সাবেক সংসদ ব্যারিস্টার শামিম হায়দার পাটওয়ারী, সাংবাদিক জ ই মামুন প্রমুখ। 

সম্পদের বিবরণ দুদকের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করাসহ ১৯টি সুপারিশ দিয়েছে সংগঠনটি। এইচআরবির সুপারিশগুলো হলো- কমিশনের সদস্য সংখ্যা ৭ জন ও কর্মরত লোকবল সংখ্যা ৩ গুন বৃদ্ধি করার জন্য আইনের প্রয়োজনীয় সংশোধনের ব্যবস্থা নিতে হবে।

দুদকের চেয়ারম্যান, কমিশনার ও কর্মকর্তাদের নির্দলীয় মনোভাব, সাহসী ব্যক্তিত্ব এবং দুর্নীতি থেকে দুর্নীতি দমনে ভূমিকা রাখার ব্যবস্থা করতে হবে, দলমত, পেশা, এলাকা এবং ব্যক্তি পরিচিতি স আইন প্রয়োগ করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

এছাড়া কমিশনের প্রত্যেক মামলা তদন্তের ক্ষেত্রে দুদকের আইন ও বিধি সুনির্দিষ্টভাবে অনুসরণ করতে হবে, ব্যত্যয় ঘটলে কমিশন কর্তৃক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে, উচ্চপদস্থ ও প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ হলে সেক্ষেত্রে অনুসন্ধান, তদন্ত দ্রুত সময় শেষ করার ব্যবস্থা করতে হবে।

দুদকে ডেপুটেশনে পদায়নের ক্ষেত্রে তাদের চাকরি দুদকে ন্যস্ত করার বিধান করতে হবে । দুদকে চাকরিরত অবস্থায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তদন্ত ও শাস্তি, দুদক আইনে দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

দুদকে কর্মরত সবার সম্পদের হিসাব ২ বছর পরপর জনগণকে অবহিত করার জন্য সংস্থার ওয়েবসাইটে প্রকাশ করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। 

বিভিন্ন রিপোর্টে বিচার বিভাগের দুর্নীতির বিষয়ে বলা হচ্ছে, বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি রক্ষার জন্য সেসব রিপোর্ট সম্পর্কে দুদককে তদন্ত করার কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

দুদক কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আসলে তাদের বিষয় দুদকের তদন্তের পাশাপাশি গোয়েন্দা তথ্য পাওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে এবং তাৎক্ষণিক তদন্ত থেকে বিরত রাখা নিশ্চিত করতে হবে। অধিক গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

গণমাধ্যমে প্রচারিত অনুসন্ধানী রিপোর্ট দুদককে সরাসরি অনুসন্ধানের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। দুদকে মামলা দায়েরের পর আসামিকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদের বিধান অন্তর্ভুক্ত করে আইন সংশোধনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে, দ্রুত সময়ে মামলার অনুসন্ধান ও তদন্ত সমাপ্ত করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে এবং যারা তা করতে পারবেন তাদের পুরস্কৃত করতে হবে, কোটি টাকার ওপরে দুর্নীতির অভিযোগ সংক্রান্ত মামলার তদন্ত কর্মকর্তার ওপরে গোয়েন্দা নজরদারির ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে, যাতে সে প্রভাবিত না হতে পারে, বিভিন্ন আদালতে মামলা পরিচালনার জন্য অধিক সংখ্যক দক্ষ আইনজীবী নিয়োগ করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে, কোনো আইনজীবী আসামি পক্ষ থেকে প্রভাবিত হলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের মধ্য থেকে দুর্নীতিমুক্ত ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে পুরস্কার দিতে হবে। যেসব অনুসন্ধান, তদন্ত ১ বছরের মধ্যে শেষ হচ্ছে না সেগুলো তালিকাভুক্ত করে কমিশনের তত্ত্বাবধানে দ্রুত শেষ করার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

বিদেশে অর্থ পাচার বা ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের সাথে জড়িতদের তথ্য দুদকের নিকট আসলে বা মিডিয়ায় প্রকাশিত হলে কমিশনকে গুরুত্ব সহকারে ব্যবস্থা নিতে হবে। তাদের ভ্রমণ, গাড়ি ব্যবহার, ব্যাংক লেনদেন বন্ধ রাখার জন্য প্রয়োজনীয় আইনি বিধান সংযোজন করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। 

আর  ইতঃপূর্বে অনেক দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে সঠিকভাবে অনুসন্ধান না করায় ঢালাওভাবে অব্যাহতি পেয়েছেন এবং এ বিষয় মিডিয়ায় যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে মিডিয়ার তথ্য বিবেচনায় নিয়ে অব্যাহতিপ্রাপ্ত উচ্চপদস্থ ও প্রভাবশালীদের বিষয় নথি পুনরায় অনুসন্ধানের আওতায় আনার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।


এইচআরবি   দুদক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

আনারকে ৮০ টুকরো করে কসাই জিহাদ

প্রকাশ: ০১:২৬ পিএম, ২৫ মে, ২০২৪


Thumbnail

এমপি আনারের দেহ ৮০ টুকরো করে কসাই জিহাদ। এরপর টুকরো অংশ নিউটাউনের ভাঙড় এলাকার নানা জায়গায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আর এই কাজের বিনিময়ে হাজার রুপি পেয়েছে সে। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে জিহাদ এসব কথা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন হিন্দুস্তান টাইমস। কলকাতা পুলিশ সূত্র বলছে, লাশের টুকরোগুলো যেহেতু জলাশয়ে ফেলা হয়েছে তাই সব অংশ উদ্ধার করা কঠিন।

পুলিশের গোয়েন্দাসূত্র বলছে, এমপি আনার হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক আখতারুজ্জামান শাহীন কলকাতায় যাওয়ার দুই মাস আগেই জিহাদকে ডেকে আনা হয়। জিহাদ জানিয়েছে, আখতারুজ্জামানের নির্দেশে তিনিসহ চারজন এমপি আনারকে নিউ টাউনের ওই ফ্ল্যাটে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, তদন্তকারীদের নজরে এসেছেন বাংলাদেশের নাগরিক শিলাস্তি রহমান নামে এক তরুণী। খুনের দিন সম্ভবত তিনিই সম্ভবত এমপি আনারকে নিউটাউনের ওই ফ্ল্যাটে ডেকে নিয়ে গিয়েছিলেন। ইতিমধ্যেই শিলাস্তিকে  গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে ঢাকা পুলিশ।

ভারতে গ্রেপ্তার হওয়া অভিযুক্ত সিয়াম জিহাদ জানিয়েছেন, নিউটাউনের অভিজাত আবাসনের ফ্ল্যাটে প্রথমে ক্লোরোফর্ম দিয়ে অজ্ঞান করা হয় আনোয়ারুলকে এবং পরে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়। মৃত্যু নিশ্চিত করতে ভারী বস্তু দিয়ে সাংসদের মাথায় আঘাত করা হয়েছিল। তার পর রান্নাঘরে নিয়ে গিয়ে দেহ টুকরো টুকরো করা হয়। খুনের পর হাড়, মাংস পৃথক করে হলুদ মাখিয়ে দেহের টুকরোগুলো নানা জায়গার জলাশয়ে ফেলা হয়।

তদন্তে উঠে এসেছে, এই খুনের মাস্টারমাইন্ড আক্তারুজ্জামান শাহীন নামে বাংলাদেশের এক ব্যক্তি। তার সঙ্গে এমপি আনারের বন্ধুত্ব ছিল। আর ওই তরুণীও শাহীনের পরিচিত। ২০০ কোটি টাকার লেনদেন নিয়ে সাংসদের সঙ্গে শাহীনের বিরোধ ছিল।


আনার   কসাই   জিহাদ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

জামালপুরে ধানক্ষেত থেকে মরদেহ উদ্ধার


Thumbnail

জামালপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের পারপাড়া গ্রামে জামালপুর-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কিছুটা অদূরে ধানক্ষেতে একটি মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা। পরে খবর পেয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ।

 

আজ শনিবার (২৫ মে) সকালে এ লাশ উদ্ধার করে করে পুলিশ।

 

এদিকে ঘটনাস্থলের পাশের গ্রাম পূর্ব কুটামনি এলাকায় বাঁশঝাড়ে একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা পরিত্যক্ত অবস্থায় পরে ছিলো, পরে পুলিশ অটোরিক্সাটিও উদ্ধার করে। নিহত শাহাদাত সদর উপজেলার শরিফপুর ইউনিয়নের ভেড়া পাথালিয়া গ্রামের জাবেদ আলীর ছেলে। সে গতকাল রাতে বের হয়ে আর বাড়ি ফিরেনি। 

জামালপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মহব্বত কবীর জানান, ‘নিহত অটোরিক্সা চালকের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জামালপুর মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহতের অটোরিক্সাটি উদ্ধার করা হলেও ব্যাটারি চুরি হয়ে গিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে অটোরিক্সা ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যেই তাকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে।’  


অটোরিক্সা   ছিনতাই   ধানক্ষেত  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

'ঢাকায় কোনো বস্তি থাকবে না, দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে'

প্রকাশ: ১১:৫০ এএম, ২৫ মে, ২০২৪


Thumbnail

ঢাকায় কোনো কাঁচা বস্তি, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ থাকবে না, সবাইকে সুন্দর পরিবেশে বসবাসের ব্যবস্থা করে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  

শনিবার(২৫ মে) সকালে পুড়ে যাওয়া বঙ্গবাজারের স্থানে ১০তলা বঙ্গবাজার পাইকারি মার্কেট, শাহবাগে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানের আধুনিকায়নসহ ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। 

তিনি বলেন, আমাদের পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের জন্য ফ্ল্যাট করে দিচ্ছি। বস্তিবাসীদের জন্য ভাড়াভিত্তিক ফ্ল্যাট নির্মাণ করে দিচ্ছি। যে বস্তিতে যেরকম ভাড়া সেরকম ভাড়াই দেবে। কিন্তু তারা ফ্ল্যাটে থাকবে। শুধু বড়লোকেরাই ফ্ল্যাটে থাকবে সেটা হতে পারে না, আমাদের রিকশাওয়ালা থেকে শুরু করে দিন মজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে। স্বল্প ভাড়া, কেউ যদি প্রতিদিন ভাড়া দিতে চায়, সেই ব্যবস্থা আছে। কেউ যদি সাত দিনের ভাড়া দিতে চায়, সে ব্যবস্থা আছে। কেউ মাসের ভাড়া দিতে চাইলে সে ব্যবস্থাও হবে। আমরা ইতিমধ্যে ৩০০ পরিবার তুলেছি। 

এছাড়াও, পরিবেশ রক্ষার গাছ লাগানোর আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, যাদের এক টুকরো জমি আছে তারা একটা ফুলের গাছ, একটা ফলের গাছ হলেও লাগান। যাদের গ্রামের বাড়ি আছে সেখানে যেন অনাবাদি জমি না থাকে সেই দিকে দৃষ্টি দিতে হবে। 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। 

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস,  ঢাকা-৮ আসনের সংসদ সদস্য আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব মুহম্মদ ইব্‌রাহিম।


প্রধানমন্ত্রী   শেখ হাসিনা  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন