প্রেস ইনসাইড

স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের মুখোশ উন্মোচন!


Thumbnail স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের মুখোশ উন্মোচন!

গত বৃহস্পতিবার (৬ এপ্রিল) কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকার নিবন্ধন বাতিল ও চক্রান্তকারীদের শাস্তি চেয়ে মানব-বন্ধন করেছে স্বাধীনতা-সচেতন নাগরিক সমাজ। এদিন প্রথম আলোর নিবন্ধন বাতিল এবং স্বাধীনতা বিরোধী চক্রান্তকারীদের বিচার দাবিতে মানববন্ধনের পর থেকেই সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে এই নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। সেই সঙ্গে স্বাধীনতা বিরোধী ষড়যন্ত্রকারী এবং বাংলাদেশ বিরোধী অপশক্তির দোসর দেশের বহুল প্রচারিত দৈনিকটির নিবন্ধন বাতিল এবং পত্রিকাটি বন্ধের দাবিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় শুরু হয়।

তারই পরিপ্রেক্ষিতে ৯ এপ্রিল (রোববার) রাত সাড়ে ১০টার দিকে প্রথম আলো এবং স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের অন্যতম দোসর এবং ১/১১ কুশীলব ‘ডেইলি স্টার’র বাংলা বিভাগ ‘প্রথম আলোর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে ১১৯ নাগরিকের বিবৃতি’- শিরোনামে একটি সংবাদ পরিবেশন করে বলে জানিয়েছে সূত্র। সূত্রটি বলছে, এই বিবৃতিতে যারা অংশগ্রহণ করেছেন বা বিবৃতিতে যে ১১৯ জন ব্যক্তির নাম উল্লেখ করা হয়েছে, তাদের অনেকেই প্রথম আলো এবং ডেইলি স্টার পালিত দেশের স্বাধীনতা বিরোধী সুশীল সমাজ। এই বিবৃতির মাধ্যমে স্বাধীনতা বিরোধী এই চক্রটির মুখোশ উন্মোচন হয়েছে বলেও জানিয়েছে সূত্র।       

ডেইলি স্টারের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘প্রথম আলোর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ১১৯ নাগরিক। আজ রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘প্রথম আলো পত্রিকায় একটি সংবাদ প্রকাশের জেরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় পত্রিকাটির সম্পাদক মতিউর রহমান ও প্রতিবেদক শামসুজ্জামান শামস সম্প্রতি আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন। এই মামলায় তাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা এখনো বিচারাধীন এবং অপ্রমাণিত অবস্থায় রয়েছে। কিন্তু আমরা লক্ষ করছি যে, মামলা দায়েরের পর থেকেই একটি বিশেষ মহল পত্রিকাটির বিরুদ্ধে অসত্য এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সংবাদ প্রকাশের মনগড়া অভিযোগ এনে পত্রিকাটির নিবন্ধন বাতিলের দাবি জানিয়ে আসছে।’

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘তাদের এই কার্যক্রম শুধু প্রথম আলো নয়, দেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সাংবাদিকতার ওপর আক্রমণের শামিল। আমরা মনে করি গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও মুক্তচিন্তার প্রতি শ্রদ্ধাশীল কোনো মহল সংবাদ মাধ্যমের বিরুদ্ধে খড়গহস্ত হওয়ার উদ্যোক্তা বা সমর্থক হতে পারেন না।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘আমরা সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী নাগরিকরা তীব্র ভাষায় গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধের যে কোনো চেষ্টার নিন্দা জানাই। পাশাপাশি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সুরক্ষা এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার আহ্বান জানাই। সর্বোপরি, দেশের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের পাশাপাশি জনসাধারণকেও সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার জন্য সোচ্চার হতে আহ্বান ও অনুরোধ জানাই।’


প্রতিবেদনে বিবৃতি প্রদানকারীদের নামও উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়, ‘প্রথম আলোর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি প্রদানকারী ১১৯ নাগরিক হলেন- ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আনোয়ার উল্লাহ চৌধুরী, সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেড আই খান পান্না, নারীগ্রন্থ প্রবর্তনার সভানেত্রী ফরিদা আখতার, অর্থনীতিবিদ ও অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, সুশাসনের জন্য নাগরিকের সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার, মানবাধিকারকর্মী খুশী কবির, টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম ইন বাংলাদেশের (এএলআরডি) নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মোহাম্মদ আজম, অধ্যাপক আসিফ নজরুল, অধ্যাপক তানজীম উদ্দিন খান ও সহযোগী অধ্যাপক মোশাহিদা সুলতানা ঋতু, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মানস চৌধুরী, অধ্যাপক কামরুল আহসান, অধ্যাপক মো. জামাল উদ্দিন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক স্নিগ্ধা রেজওয়ানা, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ফাতেমা সুলতানা শুভ্রা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সালেহ হাসান নকিব, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মাহবুব হোসেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইফতিখারুল আলম মাসউদ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এস এম নছরুল কদির, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক মাইদুল ইসলাম, কানাডার ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ও লেখক ড. মঞ্জুরে খোদা, যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লামিংহাম স্টেট ইউনিভার্সিটির কমিউনিকেশন মিডিয়া অ্যান্ড পারফরম্যান্স বিভাগের শিক্ষক জাহেদ আরমান, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মুতাসিম বিল্লাহ নাসির, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. সাইমুম পারভেজ, শিক্ষক ও অনুবাদক জি এইচ হাবীব, অধ্যাপক খলিকুজ্জামান ইলিয়াস, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহা. নবায়ন পারভেজ, আইনজীবী মোহসীন রশিদ, ব্যারিস্টার জিশান মহসিন, অ্যাড. নূরে এরশাদ সিদ্দিকী, অ্যাড. তাজুল ইসলাম, ব্যারিস্টার যুবায়ের আহমেদ ভূইয়া, আইনজীবী ও রাজনীতিক ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ,  ব্যারিস্টার অনীক আর হক, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ইউএসএ'র বাংলাদেশ ও পাকিস্তান বিষয়ক বিশেষজ্ঞ সুলতান মোহাম্মদ জাকারিয়া, এএফপির বাংলাদেশ ফ্যাক্টচেক এডিটর কদরুদ্দীন শিশির, বাতিঘরের স্বত্বাধিকারী দীপঙ্কর দাশ, গবেষক ও অ্যাক্টিভিস্ট কল্লোল মোস্তফা, লেখক ও অ্যাক্টিভিস্ট পারভেজ আলম, লেখক ফাহাম আবদুস সালাম, রাজনীতিবিদ জলি তালুকদার, কথাসাহিত্যিক আফসানা বেগম, লেখক ও গবেষক জিয়া হাসান, অ্যাক্টিভিস্ট বাকি বিল্লাহ, লেখক ও অনুবাদক লুনা রুশদী, কথাসাহিত্যিক ও অনুবাদক আলভী আহমেদ, লেখক ও শিক্ষক উম্মে ফারহানা, নারী অধিকারকর্মী মাহফুজা মালা, লেখক ও সাংবাদিক বীথি সপ্তর্ষি, কথাসাহিত্যিক হামীম কামরুল হক, কবি সালেহীন শিপ্রা, সিনিয়র সাংবাদিক মাসুদ কামাল, পরিচালক নারীগ্রন্থ প্রবর্তনা সাইদা আখতার, চলচ্চিত্র নির্মাতা প্রসূন রহমান, কবি ও প্রাবন্ধিক আহমেদ স্বপন মাহমুদ, প্রাবন্ধিক ও সাংবাদিক ধ্রুব সাদিক, কবি ও গায়ক মুয়ীয মাহফুজ, কথাসাহিত্যিক গাজী তানজিয়া, কথাসাহিত্যক পাপড়ি রহমান, গায়ক অমল আকাশ, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক মাহবুব মোর্শেদ, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক সালাহ উদ্দিন শুভ্র, আদর্শ’র প্রকাশক মাহাবুব রাহমান, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক এহসান মাহমুদ, শিল্পী কৃষ্ণকলি ইসলাম, চিত্রশিল্পী এএইচ চঞ্চল, চলচ্চিত্র নির্মাতা নুরুল আলম আতিক, সাংবাদিক ও গবেষক সায়দিয়া গুলরুখ, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও লেখক সৈয়দ আবদাল আহমদ, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এম আব্দুল্লাহ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সংগঠক ও বিতর্কিক জাফর সাদিক, অধিকারকর্মী ও গবেষক রোজীনা বেগম, মানবাধিকার কর্মী রেজাউর রহমান লেলিন, লেখক ও অ্যাক্টিভিস্ট দিলশানা পারুল, বাংলাদেশ ইন্টেলেকচুয়াল নেটওয়ার্কের সংগঠক আরিফুল ইসলাম আদীব, পেশাজীবী অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক জাফর মাহমুদ, নারী সংগঠক ও মানবাধিকার কর্মী ব্যারিস্টার নাসরীন সুলতানা মিলি, অ্যাক্টিভিস্ট ও সাংস্কৃতিক কর্মী নুসরাত জাহান, কবি টোকন ঠাকুর, কবি ও কথা সাহিত্যিক চঞ্চল আশরাফ, শিল্পী অরূপ রাহী, রাজনীতিবিদ ফিরোজ আহমেদ, নির্মাতা আশফাক নিপুণ, চলচ্চিত্র নির্মাতা শ্যামল শিশির, কবি আবদুল হাই শিকদার, প্রকৌশলী ও টেকসই উন্নয়ন বিষয়ক লেখক ফয়েজ আহমদ তৈয়্যব, লেখক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক ড. মারুফ মল্লিক, হালখাতার সম্পাদক ও কবি শওকত হোসেন, প্রাবন্ধিক ও গবেষক আরশাদ সিদ্দিকী, লেখক ও সাহিত্যিক রবিউল করিম মৃদুল, লেখক ও গবেষক জাকারিয়া পলাশ, লেখক ও বিশ্লেষক সোহেল রানা, কবি ও সাংবাদিক শিমুল সালাহ্উদ্দিন, লেখক ও অ্যাক্টিভিস্ট তুহিন খান, লেখক ও নারী অধিকার কর্মী ফেরদৌস আরা রুমী, কবি ও সাংবাদিক মাহবুব আজিজ, কবি ও সাংবাদিক ফারুক ওয়াসিফ, সাবেক কূটনীতিক সাকিব আলি, লেখক ও অ্যাক্টিভিস্ট সহুল আহমদ, চলচ্চিত্র নির্মাতা জায়েদ সিদ্দিকী, লেখক ও গবেষক এ.টি.এম. গোলাম কিবরিয়া, লেখক ও শিক্ষা আন্দোলনকর্মী রাখাল রাহা, লেখক ও সাংবাদিক তন্ময় ইমরান, কথাসাহিত্যিক ওয়াসি আহমেদ, চলচিত্র নির্মাতা খন্দকার সুমন, কবি ও অনুবাদক রাজু আলাউদ্দিন, অভিনেত্রী বন্যা মির্জা, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক মহাসচিব এম এ আজিজ, কবি ও অনুবাদক রনক জামান, কবি ও গদ্যকার বায়েজিদ বোস্তামী, লেখক হেলাল মহিউদ্দিন ও অনুবাদ রওশন জামিল।

এদিকে সূত্রটি বলছে, এই সুশীল সমাজের বিবৃতিকারী যে ১১৯ জনের নাম প্রকাশ করা হয়েছে, প্রকৃতপক্ষে বিভিন্নভাবে তাদের অনেকেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা এবং সরকার বিরোধী চক্রের সাথে সম্পৃক্ত। এদের কেউ কেউ ভাষা আন্দোলন এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির সাথেও জড়িত। বিশেষ করে প্রথম নামটি- ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বিভিন্ন সময়ে তার বিভিন্ন লেখায়, তিনি বাংলার ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসকে বিকৃত করেছেন। সেখানে তিনি কারো অবদানকে খাটো করে দেখানোর চেষ্টা করেছেন। এছাড়াও, এই বিবৃতিকারীদের অনেকেই প্রথম আলো, ডেইলি স্টারের পালিত লেখক, কবি, বুদ্ধিজীবী, চলচ্চিত্র নির্মাতা- তথা সুশীল সমাজ। যে কারণে তারা মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতা বিরোধী প্রথম আলোর পক্ষে বিবৃতি দিবেন- এটা খুবই সাধারণ একটি ব্যাপার।     

সূত্রটি জানায়, সিরাজ শিকদারকে নিয়ে একটি অনুষ্ঠান হয়েছিল পল্টনের ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন অডিটোরিয়ামে। মঞ্চে ছিলেন আহমদ শরীফ ও ফয়েজ আহমেদ। আলোচনার কোনো এক পর্যায়ে আহমদ শরীফ ফয়েজ আহমেদকে লক্ষ্য করে বলেছিলেন, ফয়েজ কি একটা আওয়ামী সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি না? ফয়েজ আহমেদ মঞ্চ থেকে বললেন, না, না, এটার নাম সম্মিলিতি সাংস্কৃতিক জোট। তখন আহমদ শরীফ আবার বললেন এটার কথাইতো বলছিলাম। এটাই আওয়ামী সাংস্কৃতিক জোট।- এভাবেই তারা বার বার দেশের স্বাধীনতা, বঙ্গবন্ধু এবং বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগকে কটাক্ষ করেছে। কিন্তু তারা সব সময়ই কোনো না কোনোভাবে বেঁচেই যাচ্ছে। 

সূত্রটি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লেখা ‘শেখ হাসিনা রচনা সমগ্র- ২, (পৃষ্ঠা ২৮৮)’- বইটির উদ্ধৃতি দিয়ে বলছেন, ‘সব মিথ্যা পুড়ে ছাই হয়ে যাবে। প্রতিষ্ঠিত হবে সত্য, চিরন্তন সত্য। সত্য যে বড় কঠিন, বড় বাস্তব, বড় দৃঢ়, একদিন সে প্রকাশিত হবেই। এটাই তো তার ধর্ম।’

সত্যিই তাই, সত্য চিরকালই সত্য। সত্য কোনোদিনও গোপন থাকে না। সত্য একদিন প্রস্ফুটিত হবেই। এটিই আজকের দিনের প্রত্যাশা। সত্যের জয় হবে, বাংলাদেশে একদিন এই স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের মুখোশ উন্মোচন হবে, জনতার মঞ্চে তাদের উন্মুক্ত বিচার হবে, এটাই প্রত্যাশা।


স্বাধীনতা বিরোধী   চক্র   মুখোশ   উন্মোচন  


মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

চাটমোহর উপজেলা প্রেসক্লাবের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা

প্রকাশ: ০৫:২৯ পিএম, ০৩ জুন, ২০২৪


Thumbnail

পাবনার চাটমোহর প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন আগামী ২৯ জুন (শনিবার) অনুষ্ঠিত হবে। লক্ষ্যে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। রোববার (০২ জুন) বিকেলে প্রেসক্লাব চত্বরে এক অনুষ্ঠানে তফসিল ঘোষণা করেন চাটমোহর প্রেসক্লাব নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার এম জিন্নাহ।

সময় প্রেসক্লাব নির্বাচন কমিশনের সদস্য বিপ্লব আচার্য্য, জাহাঙ্গীর আলম মধু, জ্যৈষ্ঠ সাংবাদিক আব্দুল মান্নান পলাশ, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রকিবুর রহমান টুকুন, হেলালুর রহমান জুয়েল, সাবেক সহ-সভাপতি ইশারত আলীসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ জুন, খসড়া ভোটার তালিকা আপত্তি গ্রহণ নিরসন জুন, চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ জুন, মনোনয়নপত্র উত্তোলন জমা জুন থেকে ১১ জুন, মনোনয়নপত্র বাছাই ১২ জুন, মনোনয়নপত্র আপত্তি নিরসন ১৪ জুন, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ১৯ জুন, চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ ২১ জুন এবং নির্বাচন ২৯ জুন।

নির্বাচনে ৯টি পদে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। পদগুলো হলো সভাপতি, সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সহ-সাধারণ সম্পাদক, অর্থ সম্পাদক, দপ্তর সম্পাদক, প্রচার সম্পাদক, সাহিত্য প্রকাশনা সম্পাদক এবং কার্যকরী সদস্য।

উল্লেখ্য, ১৯৯০ সালে চাটমোহর প্রেসক্লাবের যাত্রা শুরু হয়।


প্রেসক্লাব   নির্বাচন   তফসিল   কমিটি  


মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

মুকসুদপুর প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি ঘোষণা

প্রকাশ: ০৬:০৩ পিএম, ০২ জুন, ২০২৪


Thumbnail

গোপালগঞ্জ এর মুকসুদপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী সাংবাদিক সংগঠন মুকসুদপুর প্রেস ক্লাবের ২০২৪-২০২৬ মেয়াদের নতুন কার্যকরি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

শনিবার (১ জুন) রাতে মুকসুদপুর প্রেসক্লাব ভবনে অনুষ্ঠিত এক সমাবেশে ক্লাবের উপস্থিত সদস্যদের কণ্ঠভোটে এই নতুন কমিটি গঠন করা হয়।কমিটিতে দৈনিক নবরাজ প্রতিনিধি হুজ্জাত হোসেন লিটুকে সভাপতি এবং মুকসুদপুর সংবাদ সম্পাদক হায়দার হোসেনকে সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। 

২১সদস্য বিশিষ্ট এই কার্যকরি কমিটিতে দৈনিক যায়যায়দিনের মোহাম্মদ ছিরু মিয়া, দৈনিক আমার সংবাদ এর সরদার মজিবুর রহমান সহ-সভাপতি এবং দৈনিক ভোরের কাগজ এর কাজী ওহিদুল ইসলাম এবং দৈনিক নবরাজ এর হাদীউজ্জামান হাদী এবং দৈনিক বাঙ্গালীর কণ্ঠ এর শরীফুল রোমান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এছাড়া দৈনিক ঢাকা প্রতিদিন এর হাফিজুর রহমান লেবু সাংগঠনিক সম্পাদক, দৈনিক আমাদের সময় এর দেলোয়ার হোসেন দপ্তর সম্পাদক, দৈনিক ভোরের পাতা’র হুসাইন কবির প্রচার সম্পাদক, দৈনিক মাতৃভুমি’র লুৎফর রহমান মোল্যা অর্থ সম্পাদক, সিএনএন বাংলা টিভি’র  সামচুল আরেফিন মুক্তা তথ্য প্রযুক্তি সম্পাদক, মুকসুদপুর সংবাদের কামরুজ্জামান কামাল ক্রীড়া সম্পাদক, দৈনিক গণজাগরন রবিউল খন্দকার ধর্ম সম্পাদক নির্বাচিত হন।

এছাড়াও নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন সময় এর তৌহিদুল হক বকুল, বাংলার নয়ন এর মহিউদ্দীন আহম্মেদ মুক্ত, বঙ্গটিভি সাব্বির মিয়া, দৈনিক জনকণ্ঠ এর মেহের মামুন, দৈনিক কালেরকণ্ঠ এর পরেশ বিশ্বাস এবং মধুমতি কণ্ঠ এর আবুবক্কর মিয়া নির্বাচিত হয়েছেন।

এর আগে সন্ধ্যায় মুকসুদপুর প্রথম অধিবেশনে বার্ষিক সাধারণ সভায় মোহাম্মদ ছিরু মিয়ার সভাপতিত্বে ওই সভায় পুরোনো কমিটি বিলুপ্ত করে দেওয়া হয়।

২য় অধিবেশনে প্রবীণ সদস্য তৌহিদুল হক বকুলের সভাপতিত্বে উম্মুক্ত এবং প্রকাশ্য কণ্ঠভোটে আগামী ২ বছরের জন্য কার্যকরি কমিটি গঠন করা হয়।


প্রেসক্লাব   নতুন কমিটি  


মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

পাঁচশ কোটি এবং পাঁচ শর্তে প্রথম আলো বিক্রিতে রাজি মিডিয়া স্টার

প্রকাশ: ০২:০০ পিএম, ৩১ মে, ২০২৪


Thumbnail

প্রথম আলো বিক্রির প্রক্রিয়া মাঝখানে থেমে যাওয়ার পর আবার নতুন করে শুরু হয়েছে। বুধবার এবং বৃহস্পতিবার গুলশানের একটি বাসায় প্রথম আলো বিক্রির ব্যাপারে আলাদা আলাদা দুটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে বাংলা ইনসাইডারের কাছে নিশ্চিত তথ্য আছে। এই বৈঠকে মিডিয়া স্টারের সিংহ মালিকের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

গত বুধবারের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন স্কয়ার গ্রুপের ঊর্ধ্বতন কয়েকজন কর্মকর্তা এবং একজন পরিচালক। তারা প্রথম আলো বিক্রির প্রক্রিয়া নিয়ে আলোচনা করেন। একই ধরনের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় একই বাড়িতে বৃহস্পতিবার। ওই বৈঠকে এস আলম গ্রুপের কয়েকজন শীর্ষ কর্মকর্তা এবং একজন পরিচালক উপস্থিত ছিলেন। ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর একজন প্রভাবশালী উপদেষ্টার প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। ছিলেন একজন ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। প্রথম আলোর মালিক প্রতিষ্ঠান মিডিয়া স্টারের পক্ষ থেকে তিন জন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন এবং এই বৈঠকগুলোতে মিডিয়া স্টারের সিংহভাগ মালিকানায় থাকা সিমিন রহমান টেলিফোনে কথা বলেন বলে নিশ্চিত তথ্য পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন: প্রথম আলো বিক্রি: দর কষাকষিতে চারটি শিল্প গ্রুপ

গত বুধবারের বৈঠকে স্কয়ার গ্রুপের কাছে প্রথম আলো বিক্রির আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পেশ করা হয়। এই প্রস্তাবে বলা হয়েছে, প্রথম আলোর বর্তমান বাজার মূল্য পাঁচশ কোটি টাকার বেশি। তারা প্রথম আলোর ৭৩ শতাংশ শেয়ার বিক্রির জন্য পাঁচশ কোটি টাকা মূল্য নির্ধারণ করেছেন।

এ ছাড়াও যে প্রতিষ্ঠান বা যিনি প্রথম আলো কিনবেন তার জন্য পাঁচটি শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়েছে। শর্তগুলোর মধ্যে রয়েছে-

প্রথমত, প্রথম আলোর মিডিয়া স্টারের সিংহভাগ শেয়ার যিনি কিনবেন তিনি প্রথম আলোর সম্পাদকীয় নীতি পরিবর্তন করবেন না বা করা যাবে না।

দ্বিতীয়ত, সম্পাদক বা অন্য কোন সংবাদকর্মীকে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অযৌক্তিক কারণে চাকরিচ্যুত করা যাবে না।

তৃতীয়ত, প্রথম আলো সামাজিক দায়বদ্ধ কর্মসূচি, যেমন- দুর্গতদের পাশে দাঁড়ানো, কম্বল বিতরণ- যে সমস্ত কার্যক্রমগুলো প্রথম আলো ট্রাস্ট এর মাধ্যমে সংঘটিত হচ্ছে সেগুলোকে অব্যাহত রাখতে হবে।

চতুর্থত, প্রথমা, বন্ধুসভা, কিশোর আলোর মত প্রথম আলোর অন্যান্য উদ্যোগগুলোকে বন্ধ করা যাবে না। সেগুলোকে অব্যাহত রাখতে হবে।

পঞ্চমত, সম্পাদক ও প্রকাশকের শেয়ার বিক্রি হবে না। প্রথম আলোতে সম্পাদক ও প্রকাশক মতিউর রহমানের একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ শেয়ার আছে। এছাড়া বাকি শেয়ারগুলো ট্রান্সকম গ্রুপের মালিকদের। লতিফুর রহমানের মৃত্যুর পর মিডিয়া স্টারে সিমিন রহমান ছাড়াও তার মা শাহনাজ রহমান  এবং বোন শাযরেহ হকের শেয়ার রয়েছে।

আরও পড়ুন: ট্রান্সকমের বিরোধ: বিক্রি হচ্ছে প্রথম আলো?

এই শেয়ারগুলোর মধ্যে সিমিন রহমান, তার ছোট বোন শাযরেহ হক এবং মা শাহনাজ রহমানের শেয়ারগুলো বিক্রি হবে বলে জানা গেছে এবং সেই বিক্রি প্রক্রিয়ার মধ্যে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের সাথে প্রাথমিক আলাপ-আলোচনা হয়েছিল। প্রথমে প্রথম আলো কেনার জন্য ৭ থেকে ১০টি প্রতিষ্ঠান আগ্রহী হলেও এখন দুটি প্রতিষ্ঠানের সাথে চূড়ান্ত আলাপ-আলোচনা চলছে।

উল্লেখ্য যে, লতিফুর রহমানের মৃত্যুর পর ট্রান্সকম গ্রুপের মালিকানা নিয়ে বিরোধ আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। ট্রান্সকমের বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা জামিনে রয়েছেন। গত পরশুদিন তাদের রিমান্ডে নেওয়ার জন্য আবেদন করা হয়েছিল।কিন্তু আদালত রিমান্ডের আবেদন নামঞ্জুর করেছেন। আর এই পারিবারিক বিরোধের কারণেই প্রথম আলো বিক্রি হবে বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, স্কয়ার এবং এস আলম গ্রুপ- দুইজনকেই প্রথম আলোর শর্তগুলো দেওয়া হয়েছে। এখন তারা নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে এ নিয়ে আবারও বৈঠক করবে বলে জানা গেছে।


প্রথম আলো   এস আলম গ্রুপ   স্কয়ার গ্রুপ  


মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

প্রতিদিনের বাংলাদেশে বেনজীর আহমেদের সংবাদ 'ব্ল্যাকআউট'

প্রকাশ: ০৯:০৭ পিএম, ২৯ মে, ২০২৪


Thumbnail

গত এক সপ্তাহ ধরে বাংলাদেশের সংবাদপত্র গুলোতে সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীর আহমেদের দুর্নীতির বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক সংবাদ প্রকাশিত হলেও একটি সংবাদপত্র বিষয়টি নিয়ে মৌনব্রত অবলম্বন করছে। সেই সংবাদপত্রটির নাম হল ‘দৈনিক প্রতিদিনের বাংলাদেশ।’ 

এই সংবাদপত্রটি গত ২৩ মে থেকে আজ ২৯ মে পর্যন্ত বেনজীর আহমেদের ঘটনা নিয়ে একটি সংবাদও প্রকাশ করেনি। বেনজীর আহমেদ সম্পর্কিত সমস্ত সংবাদ পত্রিতাটিতে ব্ল্যাকআউট করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৩ মে বেনজীরের সম্পত্তি ক্রোক করার আদেশ দেওয়া হলে পরের দিন ২৪ মে দেশের প্রথম সারির পত্রিকা প্রথম আলো, কালবেলা, বাংলাদেশ প্রতিদিন সহ সব পত্রিকাই ‘সাবেক আইজিপি বেনজীরের সম্পদ জব্দের আদেশ’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করলেও প্রতিদিনের বাংলাদেশ পত্রিকায় বেনজীরের কোন সংবাদ পাওয়া যায়নি।

প্রতিদিনের বাংলাদেশ এর গত শুক্রবার (২৪ মে) থেকে আজ বুধবার (২৯ মে) পর্যন্ত প্রতিটি সংস্করণ বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ২৪ মে পত্রিকার প্রধান শিরোনাম করেছিল ‘সন্দেহে এক সাবেক এমপি’। যেখানে প্রথম আলো ‘বেনজীরের সম্পদ জব্দ করার আদেশ’ শিরোনামে প্রধান সংবাদ প্রকাশ করেছিল। অন্যান্য সংবাদপত্র গুলোও বেনজীরের সম্পদ জব্দের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

এরপর গতকাল মঙ্গলবার (২৮ মে) দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে বেনজীরকে তলব করে চিঠি দিলে আজকেও দেশের সকল সংবাদপত্র বিভিন্ন শিরোনামে বেনজীরকে দুদকের তলব- এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করলেও প্রতিদিনের বাংলাদেশ এই বিষয়টি নিয়ে কোন সংবাদই প্রকাশ করেনি। এভাবে গত শুক্রবার (২৪ মে) থেকে শুরু করে আজ বুধবার (২৯ মে) পর্যন্ত সংবাদপত্রটির প্রতিটি সংস্করণ বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, এ সময় সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজীর আহমেদের দুর্নীতি নিয়ে কোন সংবাদই পত্রিকাটি প্রকাশ করেনি।

আজ বুধবার (২৯ মে) পত্রিকাটি প্রধান শিরোনাম করেছে ‘প্রকট হচ্ছে ক্ষতের গভীরতা’। গতাকল মঙ্গলবার (২৮ মে) প্রধান শিরোনাম করেছিল ‘বিধ্বস্ত উপকূলে মানুষের হাহাকার; এর আগের দিন রোববার (২৬ মে) ‘অহেতুক ব্যয়বহুল প্রকল্প আর নয়’। এভাবে পত্রিকাটির প্রতিটি সংস্করণ ধরে ধরে খোঁজ করে দেখা গেছে যে, প্রধান শিরোনাম তো দূরের কথা, কোন পৃষ্টাতেও বেনজীর আহমেদের কোন সংবাদই পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য যে, রংধনু গ্রুপ ‘দৈনিক প্রতিদিনের বাংলাদেশ’ পত্রিকার কর্ণধার। এর সম্পাদক হলেন মুস্তাফিজ শফি এবং প্রকাশক হলেন কাউসার আহমেদ অপু। 

প্রতিদিনের বাংলাদেশ   বেনজীর আহমেদ  


মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

বাংলাদেশ ব্যাংককে কঠোর হুঁশিয়ারি সাংবাদিকদের

প্রকাশ: ০৭:০৮ পিএম, ১৫ মে, ২০২৪


Thumbnail

বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশে আরোপিত কড়াকড়ি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে সম্পাদক ও সাংবাদিক নেতারা। তা না হলে আগামীতে বড় ধরনের আন্দোলনের হুমকি দেন সাংবাদিক নেতারা।

বুধবার (১৫ মে) রাজধানীর পুরানা পল্টন অর্থনৈতিক সাংবাদিকদের সংগঠন ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ)  সাংবা‌দিক নেতারা এসব কথা বলেন। 

‘সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকারে বাংলাদেশ ব্যাংকের নিষেধাজ্ঞা আরোপ বিষয়ে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দকে অবহিতকরণ’ বিষয়ক এক সভার আয়োজন করা হয়। ইআরএফ সভাপতি রেফায়েত উল্লাহ মীরধার সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সংগঠনটির সম্পাদক আবুল কাশেম। ইআরএফ সভাপতি ব‌লেন, গত দেড় মা‌সের বে‌শি সময় ধ‌রে বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশাধিকারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হ‌য়ে‌ছে। ইতোম‌ধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স‌ঙ্গে একাধিকবার যোগা‌যোগ করা হ‌য়ে‌ছে। কিন্তু কো‌নো সুরাহা হয়‌নি। এমন প‌রি‌স্থি‌তি‌তে তথ্য সংগ্রহে বাধা ও অবাধ প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা তু‌লে নি‌তে কী কর‌তে পা‌রি এ বিষয় পরামর্শ ও মতামত নি‌তে এ আয়োজন করা হ‌য়ে‌ছে। রাজ‌নৈ‌তিক মতাদ‌র্শের ঊর্ধ্বে থে‌কে সাংবা‌দিক‌দের স্বার্থে সবাইকে পরামর্শ দেওয়ার আহ্বান জানান ইআরএফ সভাপতি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন- জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, মহাসচিব কাদের গনি চৌধুরী, ইআরএফের প্রতিষ্ঠাকালীন আহ্বায়ক ও ইং‌রে‌জি দৈ‌নিক দ্য ফাইন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের সম্পাদক শামসুল হক জাহিদ, ইআরএফের সা‌বেক সভাপ‌তি ম‌নোয়ার হো‌সেন, বেসরকারি বার্তা সংস্থা ইউনাইটেড নিউজ অব বাংলাদেশের (ইউএনবি) উপদেষ্টা সম্পাদক ফরিদ হোসেন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন- ডিইউজের (একাংশ) সভা‌প‌তি সো‌হেল হায়দায় চৌধুরী, সাজ্জাদ আলম খান তপু, ডিইউজের অপর অংশের সভাপতি মো. শহিদুল ইসলাম, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সভাপতি সৈয়দ শুকুর আলী শুভ, সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন ম‌হি, ইআরএফের সি‌নিয়র সদস্য সো‌হেল মঞ্জুর, ইআরএফের সা‌বেক সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান, এস এম রাশিদুল ইসলাম প্রমুখ।

বাংলাদেশ ব্যাংক   সাংবাদিক  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন