ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

পাকিস্তানে যেভাবে নিয়োগ পান আইএসআইপ্রধান

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ১০:৫৫ এএম, ১৯ অক্টোবর, ২০২১


Thumbnail

বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থার তালিকা করলে সেরা ৫-এর একটি অবশ্যম্ভাবী নাম আসবে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা ইন্টার–সার্ভিসেস ইন্টেলিজেন্সর (আইএসআই)। সংস্থাটির কার্যক্রম নিয়ে সারা বিশ্বের মাঝে প্রশ্ন থাকলে সবাই এক সুরে স্বীকার করে নিতে বাধ্য আইএসআইয়ের সমকক্ষ বিশ্বে খুব কম আছে। সেই ক্ষমতাশালী গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান নিয়োগ নিয়ে পাকিস্তানের রাজনৈতিক অঙ্গনে এখন শুরু হয়েছে বিতর্ক।

প্রতিবার আইএসআই প্রধান নিয়োগ নিয়ে দেশটিতে তর্ক-বিতর্ক হলেও এবারের বিষয়টি কিছুটা ভিন্ন রূপে মোড় নিয়েছে। গোয়েন্দা প্রধানের নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে দেশটির বেসামরিক ও সামরিক নেতৃত্বের মধ্যে বিতর্ক দেখা দিয়েছে।

গত সপ্তাহে পাকিস্তানের সামরিক শাখা আইএসপিআর ঘোষণা দেয়, লেফটেন্যান্ট জেনারেল নাদিম আহমেদকে নতুন আইএসআই প্রধান করা হয়েছে। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মিডিয়া উইং থেকে তাঁকে ডিজি হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার জন্য নামও ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু তাঁকে নিয়োগ দেওয়ার ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে বার্তা আসেনি। এ নিয়ে নানা বিতর্ক হয় ও হচ্ছে। তার মধ্যে এ ইস্যুতে প্রথমবার পাকিস্তান সরকারের একজন মন্ত্রী বক্তব্য দেন। এরপরই শুরু হয় বিতর্ক।

তবে প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের মতে, আইএসআই প্রধান নিয়োগের পদ্ধতি সংবিধান বা সামরিক আইনে উল্লেখ করা হয়নি। অতীতের সব নিয়োগ ঐতিহ্য অনুসারে করা হয়েছিল। এ প্রক্রিয়ায় সেনাপ্রধান প্রধানমন্ত্রীর কাছে তিনটি নাম প্রস্তাব করেন। তারপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেন প্রধানমন্ত্রী।

২০ বছর পর গত আগস্টে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। এরপর আফগানিস্তানে নতুন সরকার গঠন নিয়ে তালেবান যখন জটিলতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল, সে সময় আকস্মিক কাবুলে গিয়েছিলেন আইএসআইয়ের প্রধান ফাইজ হামিদ। সেখানে তিনি বলেন, সব সমস্যার সমাধান করা হবে। তাঁর ওই সফরের কয়েক দিনের মধ্যে তুলনামূলক রক্ষণশীল নেতাদের নিয়ে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার ঘোষণা করে তালেবান। এরপর ফাইজ হামিদের বদলে নাদিম আহমেদকে দেশটির প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের মহাপরিচালক পদে আনার কথা জানানো হয়।

বিতর্কের মধ্যেও জেনে নেওয়া যাক আসলে কোন প্রক্রিয়ায় পাকিস্তানের গোয়েন্দাদের গুরুকে নিয়োগ দেওয়া হয়। ডনের সাংবাদিক উরুহ ইমরান ও সানা চৌধুরী সেই উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেছেন।

সম্প্রতি মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জানান, তিনি চান বর্তমান প্রধান লে. জেনারেল ফাইজ হামিদ আরও কিছুদিন দায়িত্ব চালিয়ে যান। আর তাঁর এ চাওয়ার কারণ হলো আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি।

এ সবকিছুর মধ্যে বর্তমানে কিছু প্রশ্ন সামনে এসেছে। কীভাবে আসলে আইএসআইয়ের প্রধান নিয়োগ দেওয়া হয়। আসলে কে আইএসআই মহাপরিচালক নিয়োগ দেন, মহাপরিচালক কার কাছে রিপোর্ট করবেন, আইএসআইয়ের প্রধান কি বেসামরিক কেউ হতে পারবেন?

আইএসআইয়ের প্রধান নিয়োগের প্রক্রিয়া কী?

বিভিন্ন তথ্য–উপাত্ত, অতীতের নিয়োগ প্রক্রিয়া এবং নিয়োগ প্রক্রিয়ার নথি ঘেঁটে বিশ্লেষকেরা বলেন, আসলে পাকিস্তানের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান নিয়োগে শতসিদ্ধ কোনো নিয়ম বা প্রক্রিয়ার কথা তাঁরা চেষ্টা করেও জানতে পারেননি। অন্তত কোনো প্রকাশ্য লিখিত ডকুমেন্টও তাঁরা পাননি।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর হাতে নতুন আইএসআই মহাপরিচালক পদের প্রার্থীদের নাম এসেছে। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া সম্প্রতি বৈঠক করেন। এ বৈঠকের বিবরণ প্রকাশের জন্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে ক্ষমতাসীন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) জাতীয় পরিষদের চিফ হুইপ আমির ডোগারকে তিরস্কার করেছেন। তিনি দল থেকে কারণ দর্শানোর নোটিশও পেয়েছেন।

ডনের আবাসিক সম্পাদক ফাদ হুসেন বলেন, আমির ডোগার আসলে প্রক্রিয়াটি আমাদের জানিয়ে দিয়েছেন। গত মঙ্গলবার তিনি বলেন, আমির ডোগার ব্যাখ্যা করেন, তিনটি নাম প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের হাতে আছে। এখান থেকে তিনি সম্ভাব্য যোগ্য একজনকেই বেছে নেবেন। আইএসআই নানা কাজে প্রধানমন্ত্রীর কাছে রিপোর্ট করে আর তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকেই গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানের নামটি আসে।

ডনের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক সাঈদ বাকিরও বলেন, আইএসআইয়ের প্রধান নিয়োগের কোনো সাধারণ প্রক্রিয়া নেই। সেনাপ্রধান এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে কথা বলেন। সম্ভাব্য যোগ্য প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনা হয়। তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে সেরাদের নামগুলো তুলে ধরেন। তিনি বলেন, যখন সেরা দুজনের মধ্য একজনকে বেছে নিতে হয়, তখন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সারসংক্ষেপ পাঠান আইএসআইয়ের প্রধান নিয়োগের ব্যাপারে।

সাহিত্যিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক জাহিদ হুসেইন ডনকে বলেন, আইএসআইয়ে কোনো কর্মকর্তার বদলি বা পদায়নের ক্ষমতা সেনাপ্রধানের হাতে থাকলেও সাধারণ চর্চা হচ্ছে যে গোয়েন্দাদের প্রধান প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত করেন। কারণ, তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে রিপোর্ট করেন। আইএসআইয়ের প্রধান কে হবেন, তা হয়তো প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেন। তবে সেনাপ্রধান আবার আইএসআইয়ের প্রধানসহ যে কারও বদলি ও পদায়ন করে থাকেন। তিনি জানান, ফাইজ হামিদের বদলির সিদ্ধান্ত সেই নিয়ম মেনে হয়েছে। তাই ইমরান খানের ইচ্ছায় আইএসআইয়ে প্রধান হিসেবে ফাইজ হামিদের থাকার আর কোনো অধিকার নেই।

আইএসআইয়ের মহাপরিচালক কি বেসামরিক কেউ হতে পারেন?

বিশ্লেষকদের মতে, আইএসআই প্রধানের পদে একজন বেসামরিক লোক নিয়োগে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই বা কোনো বিধিনিষেধ নেই। গোয়েন্দা সংস্থায় কতজন সামরিক এবং কতজন বেসামরিক লোক থাকবে, নিয়োগ বা পদায়ন করা হবে তারও কোনো শতসিদ্ধ নিয়ম নেই।

জাহিদ হুসেইন জানান, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো অবসরে যাওয়া জেনারেল শামসুর রহমানকে আইএসআইয়ের প্রধান করেছিলেন। তিনি বেশি দিন সামরিক বাহিনীতে ছিলেন। শামসুর রহমান নিয়োগের সময় বেসামরিক ব্যক্তিই ছিলেন।

সাঈদ বাকির জানান, বেসামরিক ব্যক্তির গোয়েন্দাদের প্রধান হওয়ার পথে কোনো বাধা নেই।

আইএসআই আসলে কার অধীন

অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল শাহজাদ চৌধুরী সম্প্রতি এক টেলিভিশন অনুষ্ঠানে বলেন, আইএসআই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মানতে বাধ্য। কিন্তু সেখানে যাঁরা কাজ করেন, তাঁরা সেনাপ্রধানের নির্দেশনা মানেন। এর অর্থ দাঁড়াল প্রতিষ্ঠান হিসেবে আইএসআই প্রধানমন্ত্রীর কাছে জবাবদিহি করে। আবার এটাও ঠিক যে প্রধানমন্ত্রীর সন্তুষ্টি ও অসন্তুষ্টির ওপরও মহাপরিচালকের পদে বেশি দিন থাকা না থাকা নির্ভর করে।

গুপ্তচরদের প্রধান নিয়োগে আইনি প্রক্রিয়াটি আসলে কী

মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শেষে মঙ্গলবার তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, গোয়েন্দাদের নতুন প্রধান নিয়োগের জন্য আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে। কিন্তু বিশ্লেষকদের মতামত থেকে এটা স্পষ্ট যে আসলে এ ক্ষেত্রে কোনো নির্দিষ্ট আইন নেই।

এর আগে মঙ্গলবার তথ্যমন্ত্রী বলেন, সংবিধান অনুযায়ী নতুন আইএসআই প্রধানকে নিয়োগ দিতে চান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করেই আইএসআইয়ের প্রধান নিয়োগ করা হবে। আইনি প্রক্রিয়া নিয়ে বিতর্ক হচ্ছে। আমরা এ উপসংহারে আসতে পারি যে আইনি প্রক্রিয়াটি এখন অনুসরণ করা হবে’। তিনি প্রশ্ন তোলেন, আগে কি আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়নি?

সাঈদ বাকির যোগ করেন, এ নিয়োগে প্রধানমন্ত্রীর চূড়ান্ত কথা বলতে হবে না। তবে, আইএসআইয়ের প্রধান নিয়োগের জন্য তাঁর সম্মতি প্রয়োজন। আইএসআই প্রধান নিয়োগ পদ্ধতির জন্য লিখিত কোনো আইন আছে বলে তিনি জানেন না। তিনি এমন কিছু দেখেননি।

আইএসআইয়ের প্রধান কীভাবে নিয়োগ হয়, এটা নিয়ে বিতর্ক প্রথমবার হচ্ছে, ব্যাপারটি এমন নয়। সুনির্দিষ্ট নিয়মের অভাবে সশস্ত্র বাহিনীর পেস্টিং এবং নিয়োগের পদ্ধতি নিয়ে অস্পষ্টতা আছে।

২০১৯ সালের আগস্টে জেনারেল বাজওয়াকে সেনাপ্রধান হিসেবে মেয়াদ শেষের তিন মাস আগেই তাঁর মেয়াদ বাড়ানোর অনুমোদন দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। প্রায় এক দশকে দ্বিতীয়বারের মতো দেশের শীর্ষ জেনারেলের মেয়াদ এভাবে বাড়ানো হয়েছিল। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছিল। সর্বোচ্চ আদালত সাময়িকভাবে জেনারেল বাজওয়াকে সেনাপ্রধান পদে থাকার অনুমতি দিয়েছিল। তখন আদালত পার্লামেন্টে এ বিষয়ে আইন প্রণয়নের নির্দেশ দিয়েছিল।

এরপর পাকিস্তানের পার্লামেন্ট তিনটি বিল পাস করেছে। সেই বিলে অনেক দিনের দীর্ঘ এবং বিতর্কিত নানা সমস্যার অবসান হয়। এ তিন বিলের ফলে প্রধানমন্ত্রীর সেনাপ্রধান, জয়েন্ট স্টাফ কমিটির চেয়ারম্যানসহ কয়েক পদে নিয়োগ এবং মেয়াদ বাড়ানোর পথ পরিষ্কার হয়ে যায়।

তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী জানান, প্রধানমন্ত্রী ও সেনাপ্রধান মিলে আইএসআইয়ের প্রধান নিয়োগের আলোচনা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ফেলেছেন। নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছে। তথ্যমন্ত্রীর মতে, বেসামরিক ও সামরিক নেতৃত্ব আবারও প্রমাণ করেছে যে দেশের স্থিতিশীলতা, অখণ্ডতা এবং অগ্রগতির জন্য সব ঐক্যবদ্ধ।

তবে নানা বিতর্ক, আলোচনা ও সমালোচনার পরে রাজনৈতিক মহলে যাঁরা আছেন, তাঁরা এখন আইএসআইয়ের নতুন মহাপরিচালক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তির অপেক্ষায় আছেন।

 

 


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ওমিক্রন ১৩ দেশে শনাক্ত হয়েছে

প্রকাশ: ০৫:৫৯ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

বিশ্বের ১৩টি দেশে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তদের বেশির ভাগ সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকা বা অন্য কোনো দেশে গিয়েছিলেন। ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার পরই এর প্রভাব ও ভয়াবহতা নিয়ে এখনো নিশ্চিত করে কিছু জানা যায়নি। ওমিক্রন টিকার সুরক্ষা ভেদ করতে পারে এমন উদ্বেগ থেকে অনেক দেশ দক্ষিণ আফ্রিকা ও আশপাশের দেশগুলোর ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

ওমিক্রন যেসব দেশে শনাক্ত হয়েছে

দক্ষিণ আফ্রিকা: রাজধানী জোহানেসবার্গ নিয়ে গঠিত দক্ষিণ আফ্রিকার একটি প্রদেশে পিসিআর পরীক্ষায় পাওয়া নমুনায় দেখা গেছে যে এ সপ্তাহের মাঝামাঝি দক্ষিণ আফ্রিকায় মোট করোনা শনাক্ত ১ হাজার ১০০ রোগীর মধ্যে ৯০ শতাংশ ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত।

বতসোয়ানা: দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে সীমান্ত লাগোয়া দেশ বতসোয়ানায় কমপক্ষে ১৯ জনের ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে।

যুক্তরাজ্য: দেশটিতে তিনজন ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের সবাই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট।

জার্মানি: দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে মিউনিখ বিমানবন্দরে যাওয়া দুজনের ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। আঞ্চলিক কর্মকর্তাদের বরাতে এ খবর জানিয়েছে এএফপি।

নেদারল্যান্ডস: দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে নেদারল্যান্ডসে যাওয়া কয়েক শ যাত্রীর ৬১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১৩ জন ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত।

ডেনমার্ক: দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে যাওয়া দুজনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে।

বেলজিয়াম: একজনের ওমিক্রনে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানা গেছে। ইউরোপের প্রথম দেশ হিসেবে বেলজিয়ামে ওমিক্রন ধরন শনাক্ত হয়।

ইসরায়েল: ২৭ নভেম্বর ইসরায়েলে একজন নতুন এই ধরনে আক্রান্ত হন। আরও একজন ওমিক্রনে আক্রান্ত বলে ধারণা করছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

ইতালি: ইতালিতে একজনের ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। ওই ব্যক্তি আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হওয়ার আগে গোটা দেশ ঘুরে বেরিয়েছেন।

চেক প্রজাতন্ত্র: স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী দেশটিতে একজনের ওমিক্রনে আক্রান্ত হওয়ার কথা নিশ্চিত হওয়া গেছে।

হংকং: সন্দেহভাজন আক্রান্ত হিসেবে হোটেলে কোয়ারেন্টিনে থাকা দুজনের ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়া: দেশটির নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যে ওমিক্রনে আক্রান্ত দুজন শনাক্ত হয়েছেন। তারা উভয়ই সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকা গিয়েছিলেন।

কানাডা: সম্প্রতি নাইজেরিয়া সফর করা দুই ব্যক্তির দেহে ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ওমিক্রন: ভারতের ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ

প্রকাশ: ০৫:৪৭ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

বাংলাদেশে এখনো করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্ত হয়নি। এরপরও দেশটিকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে তালিকাভুক্ত করে ভ্রমণে অতিরিক্ত কড়াকড়ি আরোপ করেছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। এমনকি পূর্ণডোজ টিকা নেওয়া ভ্রমণকারীদের জন্য যে ছাড় দেওয়া হচ্ছিল, সেটিও বাতিল করা হয়েছে। গত রোববার (২৮ নভেম্বর) নতুন এসব নির্দেশনা জারি করেছে ভারত সরকার।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের খবর অনুসারে, করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন প্রতিরোধে এসব পদক্ষেপ নিয়েছে ভারত। দীর্ঘ ২০ মাসেরও বেশি সময় পর গত ২৬ নভেম্বর আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক ফ্লাইট ফের শুরুর ঘোষণা দিয়েছিল ভারতীয় প্রশাসন। আগামী ১৫ ডিসেম্বর থেকে এসব ফ্লাইট চলাচল স্বাভাবিক হওয়ার কথা ছিল। বর্তমানে দ্বিপাক্ষিক এয়ার বাবল চুক্তির আওতায় বাংলাদেশসহ কয়েকটি দেশের সঙ্গে সীমিত সংখ্যক ফ্লাইট চালু রয়েছে ভারতের।

‘ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশ কারা?
চলতি মাসের শুরুর দিকে ওমিক্রন প্রথম শনাক্ত হয় দক্ষিণ আফ্রিকায়। এরপর তা ছড়িয়ে পড়েছে আরও কয়েকটি দেশে। ওমিক্রন ধরা পড়া দেশগুলোর পাশাপাশি আরও কয়েকটি দেশকে আন্তর্জাতিক ভ্রমণের ক্ষেত্রে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে ভারত।

ভারত সরকারের নির্দেশনা অনুসারে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশের তালিকায় রয়েছে, যুক্তরাজ্য, গোটা ইউরোপ এবং আরও ১১টি দেশ বা অঞ্চল; সেগুলো হলো- বাংলাদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল, বতসোয়ানা, চীন, মরিশাস, নিউজিল্যান্ড, জিম্বাবুয়ে, সিঙ্গাপুর, হংকং ও ইসরায়েল।

‘ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশের ভ্রমণকারীদের জন্য নিয়ম
ভারতীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসারে, ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশগুলো থেকে ভ্রমণকারী অথবা ট্রানজিটগ্রহীতাদের ভারতে পৌঁছানোর পরপরই আরটি-পিসিআর টেস্ট করাতে হবে এবং এর ফলাফল আসা পর্যন্ত বিমানবন্দরেই অপেক্ষা করতে হবে।

ভ্রমণকারীদের কেউ করোনা পজিটিভ শনাক্ত হলে ভারত সরকার নির্ধারিত জায়গায় আইসোলেশনে নিয়ে যাওয়া হবে এবং নেগেটিভ শনাক্ত না হওয়া পর্যন্ত তাদের সেখানেই থাকতে হবে। এক্ষেত্রে ভ্রমণকারী ওমিক্রন বা করোনার অন্য যেকোনো ধরনেই আক্রান্ত হোন না কেন, সবারই আইসোলেশনে যেতে হবে এবং চিকিৎসকের ছাড়পত্র পাওয়ার পরেই কেবল তারা ছাড়া পাবেন।

‘ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশগুলো থেকে যাওয়া ভ্রমণকারীরা করোনা নেগেটিভ শনাক্ত হলেও তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা এবং অষ্টম দিনে করোনা টেস্ট করানো বাধ্যতামূলক। ওই পরীক্ষায় তারা করোনা নেগেটিভ শনাক্ত হলে ভারত সরকারের কোভিড-১৯ হেল্পলাইনে তা জানাতে হবে। এছাড়া, ভ্রমণকারীদের সবশেষ ১৪ দিনের ভ্রমণ বৃত্তান্তও জমা দিতে হবে।


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগে মামলা করবে আর্জেন্টিনা

প্রকাশ: ০৪:২৬ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে চলমান গণহত্যার বিষয়ে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দেয়ার পদক্ষেপ নিয়েছে আর্জেন্টিনার বিচার বিভাগ। এ তথ্য জানিয়েছে বার্মিজ রোহিঙ্গা অর্গানাইজেশন ইউকে (বিআরওইউকে)।

আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিআরওইউকে জানিয়েছে, গত ২৬ নভেম্বর বুয়েনস আয়ার্সের ফেডারেল ফৌজদারি আদালতের দ্বিতীয় চেম্বার নিশ্চিত করেছে যে, তারা সার্বজনীন এখতিয়ারের নীতির অধীনে মিয়ানমারের সিনিয়র কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলা শুরু করবে।

আরও বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে কিছু অপরাধ এতটাই ভয়াবহ যে সেগুলোর বিচার যে কোনো জায়গায় করা যেতে পারে। উল্লেখ্য, বিআরওইউকে ২০১৯ সালের নভেম্বরে প্রথমে আর্জেন্টিনার বিচার বিভাগের কাছে মিন অং হ্লাইং এবং বর্তমান জান্তার ঊর্ধ্বতন নেতৃত্বসহ মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে এই ধরনের মামলার জন্য আবেদন করেছিল।


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

ওমিক্রন: বিদেশিদের জন্য সীমান্ত বন্ধ করছে জাপান

প্রকাশ: ০৪:১০ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্টওমিক্রন ইতোমধ্যে এক ডজন দেশে এই ভ্যারিয়েন্ট পৌঁছে যাওয়ায় অনেক দেশ আতঙ্কিত হয়ে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা এবং বিমান চলাচলে বিধি-নিষেধ আরোপ করছে।

সোমবার জাপান বলেছে, তারা বিদেশিদের জন্য সীমান্ত বন্ধ করছে। বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির এই দেশটি করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া ইসরায়েলের পথে হেঁটেছে। অন্যদিকে, অস্ট্রেলিয়ার পুনরায় খুলে যাওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে দেখা দিয়েছে শঙ্কা।

আগের সব ভ্যারিয়েন্টের তুলনায় সম্ভাব্য অতি-সংক্রামক ওমিক্রন গত বুধবার দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম শনাক্ত হয়। এরপর থেকে এই ভ্যারিয়েন্ট অস্ট্রেলিয়া, বেলজিয়াম, বতসোয়ানা, ব্রিটেন, কানাডা, ডেনমার্ক, ফ্রান্স, জার্মানি, হংকং, ইসরায়েল, ইতালি এবং নেদারল্যান্ডসেও শনাক্ত হয়েছে।


মন্তব্য করুন


ওয়ার্ল্ড ইনসাইড

শ্রেণিকক্ষে গান ছেড়ে ধূমপান, চার ছাত্রছাত্রী বহিষ্কার

প্রকাশ: ০৪:০৬ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

শ্রেণিকক্ষে সিগারেট টানছে শিক্ষার্থীরা। এক ছাত্রী ধোঁয়া দিচ্ছে আরেক ছাত্রের মুখে। সুখটানের পাশাপাশি অশ্লীল অঙ্গিভঙ্গি চলছে। মোবাইলে বাজছে পছন্দের গান। হাসাহাসি, খুনসুঁটির সেই ভিডিওই এখন ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়।

শুক্রবার এমনই একটি ভিডিও পশ্চিমবঙ্গের চন্দ্রকোনা এলাকায় ভাইরাল হয়েছে। নিন্দার ঝড় ওঠতেই চার শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করেছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

তবে এর আগেও স্কুলের ভেতরে ক্লাস চলাকালীন ছাত্রীদের মদপানের বিষয়ও প্রকাশ্যে এসেছিল। বার বার এমন ঘটনা শিক্ষকদের গাফিলতির কারণেই ঘটছে বলে মনে করছেন অভিভাবকরা।

পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা নম্বর ব্লকের জাড়া হাইস্কুলে শুক্রবার ক্লাস ইলেভেনের ছাত্র-ছাত্রীদের ধূমপানসহ অশ্লীল আচরণের ছবি ভাইরাল হতে শনিবার থেকে এলাকায় দেখা দিয়েছে চরম ক্ষোভ।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, এই ঘটনায় ক্লাস ইলেভেন টুইলেভ মিলিয়ে জন ছাত্রছাত্রী যুক্ত রয়েছে। করোনা লকডাউনে দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকার পরেও স্কুল খুললে ছাত্র-ছাত্রীরা এখনও উশৃঙ্খল জীবনযাপন থেকে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে পারেনি বলে মনে করছেন একাংশ।

তারপরও বিষয়টাকে ছোট করে দেখতে চায়নি বিদ্যালয়ের পরিচালন কমিটি। শনিবারই পরিচালন কমিটির বৈঠকে বসে এক বছরের জন্য ওই ছাত্র-ছাত্রীদের বহিষ্কার করার কথা ঘোষণা করেছে। তবে তাদের ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে যেন পরীক্ষা দিতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখা হয়েছে।

এরই মধ্যে গ্রামবাসীর ক্ষোভের মুখে পড়ে ওই ছাত্রদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করলেও এতে খুশি নয় শাসকদলের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে অভিভাবকরা। সবাই চাচ্ছেন এই ঘটনা প্রথম নয় এর আগেও অনেক ঘটনা ঘটেছে শুধুমাত্র এর জন্য দায়ী স্কুলের শিক্ষকরা।

ঘটনার কথা স্বীকার করে নিয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বলেন, খারাপ এই ঘটনাটি ঘটেছে বিদ্যালয়ের মধ্যে। এটা অস্বীকার করার কোনো সুযোগ নেই। আমরা আরও সতর্ক হবো যেন ভবিষ্যতে ধরনের ঘটনা পুনরায় না ঘটে। একইসঙ্গে ওই ছাত্র-ছাত্রীদের বিরুদ্ধে শাস্তিযোগ্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন